alt

আন্তর্জাতিক

ওমিক্রন: কতটা মারাত্মক?

সংবাদ অনলাইন ডেস্ক: : বুধবার, ০১ ডিসেম্বর ২০২১

করোনাভাইরাসের নতুন ভ্যারিয়েন্ট বা ধরন ওমিক্রনের তথ্য দেখে বিজ্ঞানীরা হকচকিয়ে গেছেন। কেননা এখন পর্যন্ত যতগুলো ধরন সম্পর্কে জানা গেছে তার মধ্যে এটাই সবচেয়ে “আজব”। বিশৃঙ্খল ঝাঁকে এদের একেকটা একেকরকম। কোনো কোনোটি খুবই সমস্যাজনক – ভাইরাস প্রতিরোধী এন্টিবডি একদম শেষ করে দেয়। এর আগে কোনো করোনাভাইরাসের কোনো ভ্যারিয়েন্টের মধ্যেই এত মিউটেশন বা রূপান্তরশীলতা দেখা যায়নি।

ওমিক্রন নিয়ে নানা ধরনের সংশয় ঘুরপাক খাচ্ছে এখন। এটা কি ডেল্টা ভ্যারিয়েন্টের চেয়ে বেশি সংক্রামক? এর ফলে অসুস্থতার মাত্রা কি বেশি হবে? এটা কি সংক্রমণে বা টিকায় সৃষ্ট রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কমিয়ে দেবে? ইত্যাদি।

এ বিষয়ে টেক্সাসের এএন্ডএম ইউনিভার্সিটির ভাইরোলজিস্ট বেঞ্জামিন নিউম্যান বলেন, ‘এর আগে করোনাভাইরাসের ধরনগুলোর মধ্যে বড় জোর দু-তিনটি মিউটেশন দেখেছি। মিউটেশন হলেই ভাইরাসগুলোকে ধ্বংস করা কঠিন হয়ে দাঁড়ায়। তবে সেগুলো খুব বেশি বিস্তার ঘটাতে পারেনি।কিন্তু এখন যেটা বেরিয়েছে, সেটা ভয়ঙ্কর সবকিছুই ঘটাতে পারে।’

প্রাথমিকভাবে বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থার পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, সামগ্রিকভাবে ওমিক্রনের বৈশ্বিক ঝুঁকি অনেক বেশি।

তারা ওমিক্রন শনাক্ত করা, এবং তাতে কেউ আক্রান্ত হলে সেই তথ্য বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাকে দিতে সব দেশের সরকারের প্রতিই আহবান রেখেছে।

আগের আলফা বা ডেল্টা ভ্যারিয়েন্টগুলো মিউটেশনের মাধ্যমে সংক্রমণ বাড়িয়েছে। তবে বিজ্ঞানীদের এই আশঙ্কা আগে থেকেই ছিল যে, করোনা ভাইরাসের আরো মারাত্মক, অধিক সংক্রমণে সক্ষম ভ্যারিয়েন্টের আবির্ভাব হবে এবং সেগুলো আগের সংক্রমণ বা টিকার মাধ্যমে তৈরি হওয়া রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা আংশিকভাবে হলেও নষ্ট করবে।

এছাড়া টি সেল বলে পরিচিত রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতার আরেকটি উপাদান আছে। সেটি ভয়াবহ ধরনের ভাইরাসের সংক্রমণ থেকে শরীরকে ‍সুরক্ষা দেয়।

এখন ঘটনা হচ্ছে, করোনারভাইরাস মানবশরীরের কোষে যে স্পাইক প্রোটিনের কাঁটা দিয়ে সংক্রমণ ঘটায়,তার রকম ফের হিসেব করলে ওমিক্রন আছে ৩০ প্রকারের। আমাদের শরীরের এন্টিবডি এই স্পাইক প্রোটিনকে আটকে দিয়েই রোগ প্রতিরোধ করে।

কিন্তু ওমিক্রন অ্যামিনো অ্যাসিডের পরিবর্তনের মাধ্যমে এই কাঁটাগুলোর কাঠামো রাসায়নিকভাবে বদলে ফেলে। ফলে তখন শরীরের এন্টিবডি আর স্পাইক প্রোটিনগুলোকে আটকে ফেলতে পারে না।

এই ভ্যারিয়েন্টের মিউটেশন খুব সহজে ধরা যায় না এবং এর প্রতিটি গুচ্ছে বহু ধরনের রূপান্তর ঘটতে থাকে। এটা ডেল্টা ভ্যারিয়েন্টের চেয়ে বেশি বিপদজনক হবে কিনা তা এখনই কেউ বলতে পারছে না।

নিউম্যান বলেন, ‘ওমিক্রনের ব্যাপারটা জনি ক্যাশের “ওয়ান পিস অ্যাট এ টাইম” গানের গাড়ির গল্পের মতো। তাতে একেকটা গাড়ির একেকটি পার্টস দিয়ে একটি গাড়ি বানানো হয়। ওমিক্রনেও যেনবা একেকটা ভ্যারিয়েন্টের একেকটা সক্ষমতার সমাহার ঘটেছে।’

“তবে এ মুহূর্তে ওমিক্রনের বিষয়ে এটুকুই শুধু বলা যায় যে এটা একটা বিদঘুটে ভ্যারিয়েন্ট,” বলেন তিনি।

বিজ্ঞানীরা জানেন না বাস্তবে এই ভ্যারিয়েন্ট কী করতে পারে। তবে এখানেই থেমে যেতে চান না তারা। যদি ওমিক্রন রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতার বিরুদ্ধে বেশি বিধ্বংসী হয়, তাহলে টিকা নিয়ে আবার ভাবতে হবে। ইতোমধ্যেই সেই কাজ শুরু হয়েছে। প্রাথমিক পর্যায়ের কাজ চলছে। তবে যদি সত্যি সত্যিই ওমিক্রনের বিরুদ্ধে টিকা কাজ না করে তাহলে তা হবে মহামারি থেকে উত্তরণের পথে বড় এক ধাক্কা।

আরেকটা সম্ভাবনা হচ্ছে ওমিক্রন হয়তো করোনার ভাইরাসের অন্যান্য ভ্যারিয়েন্ট - যেমন আলফা, বেটা, ডেল্টা, গামা - এগুলোর মতো অল্প সময় রাজত্ব করবে। তারপর ডেল্টার আবির্ভারের মুখে যেভাবে সেগুলো হারিয়ে গেছে, তেমনি শক্তিশালী আরেক ধরনের ভ্যারিয়েন্টের উত্থানে ওমিক্রনও হয়তো হারিয়ে যাবে।

তুলেন ইউনিভার্সিটির ভাইরাসবিশারদ রবার্ট এফ গ্যারি জুনিয়র বলেন, ‘আমরা এখন ডেল্টা মহামারির মধ্যে আছি। ওমিক্রন কি ডেল্টাকে পেছনে ফেলে দেবে?

তার মতে, ডেল্টা বেশ শক্তিশালী একটা ভ্যারিয়েন্ট। এটা খুব বেশি ছড়িয়েছে। ডেল্টার চেয়ে বেশি ছড়ানোর জন্য ওমিক্রনকে তার চেয়েও বেশি বিধ্বংসী হতে হবে।

স্ক্রিপস রিসার্চ ইনস্টিটিউটের রোগ প্রতিরোধ বিষয়ক বিশেষজ্ঞ ক্রিস্টিয়ান কে এন্ডারসেন বলেন, ‘আমার মনে হয় এখন পর্যন্ত যে কয়টি ধরন দেখা গেছে তার মধ্যে এটাই সবচেয়ে বেশি সংক্রমণে সক্ষম। তবে আগেভাগে এর বেশি বলা কঠিন । হয় এটা ১০-এ ৩ পাবে, অথবা ১০-এ ১০। বা এর মাঝামাঝি।’

তবে গবেষেণাগারের পরীক্ষা থেকে বলা যাবে এর মিউটেশন কি ধারাবাহিক নাকি সাধারণ পরিবর্তন। তবে পরীক্ষা সেভাবে শুরু হয়নি এখনো।

লস অ্যালমোস ন্যাশনাল ল্যাবরেটরির তাত্ত্বিক জীববিজ্ঞানী বেট কোরবার বলেন, ‘এটাকে খারাপই মনে হচ্ছে। পরীক্ষা হওয়া দরকার। আমরা তো জানি না এই মিউটেশনগুলো কীভাবে কাজ করবে।’

তাই নিশ্চিত হওয়া যায়নি ওমিক্রন কি ডেল্টার চেয়েও মারাত্মক কিনা।

ডেল্টা এ বছরের শুরেতে ভারতে দেখা দেয়। এই ভ্যারিয়েন্টটা তার দুই বছর আগে উহানে দেখা দেওয়া ভ্যারিয়েন্টটার চেয়ে দ্বিগুণ ভয়াবহ। এরই মধ্যে ডেল্টা মোটামুটি সারা বিশ্বেই ছড়িয়েছে।

এদিকে শনাক্ত হওয়ার আগে দক্ষিণ আফ্রিকায় ওমিক্রনের বিস্তার সীমিতই ছিল। সেখানে এটি নির্দিষ্ট এলাকায় ছড়িয়েছে। সেকারণেই সংশয় দেখা দিয়েছে, ওমিক্রনের সংক্রমনের ক্ষমতা নাকি আক্রান্তদের মধ্যে নৈকট্যের কারণে দক্ষিণ আফ্রিকায় ভ্যারিয়েন্টটা বেশি ছড়িয়েছে।

তবে এন্ডারসন আরেকটি অনুমানকে সমর্থন করেন। তিনি বলেন, ‘ওমিক্রন সম্ভবত অন্য কোনো প্রানী দেহে থেকে এসেছে। কেননা মানুষের শরীরে এ ধরনের মিউটেশন আগে দেখা যায়নি।’

করোনা ভাইরাস মানুষের দেহ থেকে অন্য প্রানীর দেহে এবং অন্য প্রাণীর দেহ থেকে মানুষের দেহে আসতে পারে।

তা ধারাবাহিকভাবে রূপ বদলে চলেছে। এর মধ্যে কোনো কোনোটি শক্তিশালী হয়েছে। তাদের স্পাইক প্রোটিন পোক্ত হয়েছে জীবদেহের কোষে সংক্রমণ ঘটানোর ক্ষেত্রে।

তবে দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে ওমিক্রনের সংক্রমণের যে তথ্য পাওয়া যাচ্ছে, তাতে অত আতঙ্কিত না হওয়ারও বিষয় আছে। কেননা সংক্রমণের যে তথ্য পাওয়া গেছে, তা একটি ইউনিভার্সিটির। সেখানে একসঙ্গে যারা সংক্রমিত হয়েছে তাদের সংখ্যা দিয়ে গোটা জনসংখ্যার ঝুঁকি হিসেব করার যৌক্তিকতা এখনো পরীক্ষা-সাপেক্ষ।

তথ্যের এই অপ্রতুলতার কারণেই বিজ্ঞানীরা এখনও এর স্বাস্থ্যঝুঁকির মাত্রা সঠিক নিরূপণ করতে পারছেন না।

আরেকটি আশার কথা জানিয়েছেন দক্ষিণ আফ্রিকার চিকিৎসকেরা। তারা বলছেন, ওমিক্রন সংক্রমিতদের মধ্যে মারাত্মক অসুস্থতার প্রমাণ তারা পাননি।

সেখানে ওমিক্রন আক্রান্ত রোগী দেখা প্রথম ডাক্তার অ্যাঞ্জেলিক কোয়েৎজি বলেন রোগীদের মধ্যে সামান্য উপসর্গ দেখা যাচ্ছে। আবার অনেকে আছে উপসর্গহীন।

আর আক্রান্তদের মধ্যে কমবয়সী ছেলেমেয়েরাই বেশি। করোনাভাইরাসে যাদের মারাত্মকভাবে সংক্রমিত হওয়ার সম্ভাবনা কম।

ছবি

মোদির ওপর হামলার আশঙ্কায় নিরাপত্তা জোরদার

ছবি

ফেইসবুকে ‘মৃত’ তসলিমা, টুইটারে ক্ষোভ

ছবি

ইয়েমেনে সৌদি জোটের বিমান হামলা, নিহত ১৪

ছবি

আয়াতুল্লাহ খামেনির ভাতিজি গ্রেপ্তার

ছবি

টোংগায় সুনামি : স্বজনদের খবর পেতে উদ্বেগ প্রবাসীদের

ছবি

আফগানিস্তানে ভূমিকম্পে নিহত অন্তত ২৬

ছবি

পুলিশের সাহায্যে কাশ্মীর প্রেসক্লাব দখল, নিন্দা এডিটরস গিল্ডের

ছবি

চীনে বার্ষিক জন্মহার হ্রাসের রেকর্ড

ছবি

উত্তর কোরিয়া ফের ক্ষেপণাস্ত্র ছুড়েছে, জানাল দক্ষিণ কোরিয়া

ছবি

অ্যাস্ট্রাজেনেকার বুস্টার অমিক্রনের বিরুদ্ধে ‘কার্যকর’

ছবি

শীর্ষ ১০ ধনীর সম্পদ দ্বিগুণ হয়েছে মহামারিতে

ছবি

বিশ্বে একদিনে কমেছে শনাক্ত ও মৃত্যু

ছবি

ব্যক্তিগত খরচে ব্রিটেন পুলিশের নিরাপত্তা চান প্রিন্স হ্যারি

ছবি

জ্যামাইকায় হাইতির প্রেসিডেন্ট হত্যার অন্যতম সন্দেহভাজন জ্যামাইকায় গ্রেপ্তার

ছবি

ইরানের শহরে বড় বিস্ফোরণের শব্দ, আতঙ্কিত সাধারণ মানুষ

ছবি

আমেরিকান বিমানবন্দরে পোশাক নিয়ে কর্তৃপক্ষের প্রশ্নের মুখে সাবেক বিশ্বসুন্দরী

ছবি

সড়কপথেও বাংলাদেশের সঙ্গে ভারতের যোগসূত্র স্থাপন করবে ত্রিপুরা

ছবি

কাজাখস্তানে সরকারবিরোধী বিক্ষোভ, নিহত বেড়ে ২২৫

ছবি

ভারতে একদিনে কোভিড শনাক্তের হার ১৬ শতাংশ ছাড়াল

ছবি

সু চির বিরুদ্ধে দুর্নীতির আরও ৫ নতুন অভিযোগ

ছবি

ইউক্রেন সেনাদের গোপনে প্রশিক্ষণ দিচ্ছে আমেরিকান বাহিনী

ছবি

বিশ্বজুড়ে একদিনেই আক্রান্ত ৩১ লাখ, মৃত্যু সাড়ে ৭ হাজার

ছবি

করোনার নতুন দুই চিকিৎসার অনুমোদন দিল ডব্লিউএইচও

ভোটের আগেই ‘চরমে’ ভাঙা-গড়ার খেলা, বদলে যাচ্ছে রাজনৈতিক মেরুকরণ

ছবি

পশ্চিমবঙ্গে রেল দুর্ঘটনায় নিহত বেড়ে ৯

ছবি

জাতিসংঘে ভোটাধিকার হারাল ১১ দেশ

শ্রীলঙ্কায় কারাপ্রধানের ফাঁসির রায়

করোনাভাইরাস সন্দেহভাজনদের ধাতব বাক্সে রাখছে চীন

নিষেধাজ্ঞা দেয়া মায়ানমার থেকে গোপনে কাঠ নিচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র

আফগানিস্তানে পালিয়ে বেড়াচ্ছেন ব্রিটিশ কাউন্সিলের শিক্ষকেরা

ছবি

বিশ্বে করোনা শনাক্তের নতুন রেকর্ড আক্রান্ত ৩২ লাখ, মৃত্যু ৮ হাজার

ছবি

জলপাইগুড়িতে ভয়াবহ ট্রেন দুর্ঘটনা, নিহত ৩

ছবি

লকডাউনের মধ্যে পার্টিতে অংশগ্রহণ, জনসনকে পদত্যাগের আহ্বান

ছবি

উত্তর কোরিয়ার ক্ষেপণাস্ত্র কর্মসূচি নিয়ে প্রথম

ছবি

ভারতে একদিনেই শনাক্ত আড়াই লাখ, সংক্রমণ হার ১৩ শতাংশ

ছবি

বিধিনিষেধ কার্যকর আজ থেকে, মানতে হবে ১১ নির্দেশনা

tab

আন্তর্জাতিক

ওমিক্রন: কতটা মারাত্মক?

সংবাদ অনলাইন ডেস্ক:

বুধবার, ০১ ডিসেম্বর ২০২১

করোনাভাইরাসের নতুন ভ্যারিয়েন্ট বা ধরন ওমিক্রনের তথ্য দেখে বিজ্ঞানীরা হকচকিয়ে গেছেন। কেননা এখন পর্যন্ত যতগুলো ধরন সম্পর্কে জানা গেছে তার মধ্যে এটাই সবচেয়ে “আজব”। বিশৃঙ্খল ঝাঁকে এদের একেকটা একেকরকম। কোনো কোনোটি খুবই সমস্যাজনক – ভাইরাস প্রতিরোধী এন্টিবডি একদম শেষ করে দেয়। এর আগে কোনো করোনাভাইরাসের কোনো ভ্যারিয়েন্টের মধ্যেই এত মিউটেশন বা রূপান্তরশীলতা দেখা যায়নি।

ওমিক্রন নিয়ে নানা ধরনের সংশয় ঘুরপাক খাচ্ছে এখন। এটা কি ডেল্টা ভ্যারিয়েন্টের চেয়ে বেশি সংক্রামক? এর ফলে অসুস্থতার মাত্রা কি বেশি হবে? এটা কি সংক্রমণে বা টিকায় সৃষ্ট রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কমিয়ে দেবে? ইত্যাদি।

এ বিষয়ে টেক্সাসের এএন্ডএম ইউনিভার্সিটির ভাইরোলজিস্ট বেঞ্জামিন নিউম্যান বলেন, ‘এর আগে করোনাভাইরাসের ধরনগুলোর মধ্যে বড় জোর দু-তিনটি মিউটেশন দেখেছি। মিউটেশন হলেই ভাইরাসগুলোকে ধ্বংস করা কঠিন হয়ে দাঁড়ায়। তবে সেগুলো খুব বেশি বিস্তার ঘটাতে পারেনি।কিন্তু এখন যেটা বেরিয়েছে, সেটা ভয়ঙ্কর সবকিছুই ঘটাতে পারে।’

প্রাথমিকভাবে বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থার পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, সামগ্রিকভাবে ওমিক্রনের বৈশ্বিক ঝুঁকি অনেক বেশি।

তারা ওমিক্রন শনাক্ত করা, এবং তাতে কেউ আক্রান্ত হলে সেই তথ্য বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাকে দিতে সব দেশের সরকারের প্রতিই আহবান রেখেছে।

আগের আলফা বা ডেল্টা ভ্যারিয়েন্টগুলো মিউটেশনের মাধ্যমে সংক্রমণ বাড়িয়েছে। তবে বিজ্ঞানীদের এই আশঙ্কা আগে থেকেই ছিল যে, করোনা ভাইরাসের আরো মারাত্মক, অধিক সংক্রমণে সক্ষম ভ্যারিয়েন্টের আবির্ভাব হবে এবং সেগুলো আগের সংক্রমণ বা টিকার মাধ্যমে তৈরি হওয়া রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা আংশিকভাবে হলেও নষ্ট করবে।

এছাড়া টি সেল বলে পরিচিত রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতার আরেকটি উপাদান আছে। সেটি ভয়াবহ ধরনের ভাইরাসের সংক্রমণ থেকে শরীরকে ‍সুরক্ষা দেয়।

এখন ঘটনা হচ্ছে, করোনারভাইরাস মানবশরীরের কোষে যে স্পাইক প্রোটিনের কাঁটা দিয়ে সংক্রমণ ঘটায়,তার রকম ফের হিসেব করলে ওমিক্রন আছে ৩০ প্রকারের। আমাদের শরীরের এন্টিবডি এই স্পাইক প্রোটিনকে আটকে দিয়েই রোগ প্রতিরোধ করে।

কিন্তু ওমিক্রন অ্যামিনো অ্যাসিডের পরিবর্তনের মাধ্যমে এই কাঁটাগুলোর কাঠামো রাসায়নিকভাবে বদলে ফেলে। ফলে তখন শরীরের এন্টিবডি আর স্পাইক প্রোটিনগুলোকে আটকে ফেলতে পারে না।

এই ভ্যারিয়েন্টের মিউটেশন খুব সহজে ধরা যায় না এবং এর প্রতিটি গুচ্ছে বহু ধরনের রূপান্তর ঘটতে থাকে। এটা ডেল্টা ভ্যারিয়েন্টের চেয়ে বেশি বিপদজনক হবে কিনা তা এখনই কেউ বলতে পারছে না।

নিউম্যান বলেন, ‘ওমিক্রনের ব্যাপারটা জনি ক্যাশের “ওয়ান পিস অ্যাট এ টাইম” গানের গাড়ির গল্পের মতো। তাতে একেকটা গাড়ির একেকটি পার্টস দিয়ে একটি গাড়ি বানানো হয়। ওমিক্রনেও যেনবা একেকটা ভ্যারিয়েন্টের একেকটা সক্ষমতার সমাহার ঘটেছে।’

“তবে এ মুহূর্তে ওমিক্রনের বিষয়ে এটুকুই শুধু বলা যায় যে এটা একটা বিদঘুটে ভ্যারিয়েন্ট,” বলেন তিনি।

বিজ্ঞানীরা জানেন না বাস্তবে এই ভ্যারিয়েন্ট কী করতে পারে। তবে এখানেই থেমে যেতে চান না তারা। যদি ওমিক্রন রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতার বিরুদ্ধে বেশি বিধ্বংসী হয়, তাহলে টিকা নিয়ে আবার ভাবতে হবে। ইতোমধ্যেই সেই কাজ শুরু হয়েছে। প্রাথমিক পর্যায়ের কাজ চলছে। তবে যদি সত্যি সত্যিই ওমিক্রনের বিরুদ্ধে টিকা কাজ না করে তাহলে তা হবে মহামারি থেকে উত্তরণের পথে বড় এক ধাক্কা।

আরেকটা সম্ভাবনা হচ্ছে ওমিক্রন হয়তো করোনার ভাইরাসের অন্যান্য ভ্যারিয়েন্ট - যেমন আলফা, বেটা, ডেল্টা, গামা - এগুলোর মতো অল্প সময় রাজত্ব করবে। তারপর ডেল্টার আবির্ভারের মুখে যেভাবে সেগুলো হারিয়ে গেছে, তেমনি শক্তিশালী আরেক ধরনের ভ্যারিয়েন্টের উত্থানে ওমিক্রনও হয়তো হারিয়ে যাবে।

তুলেন ইউনিভার্সিটির ভাইরাসবিশারদ রবার্ট এফ গ্যারি জুনিয়র বলেন, ‘আমরা এখন ডেল্টা মহামারির মধ্যে আছি। ওমিক্রন কি ডেল্টাকে পেছনে ফেলে দেবে?

তার মতে, ডেল্টা বেশ শক্তিশালী একটা ভ্যারিয়েন্ট। এটা খুব বেশি ছড়িয়েছে। ডেল্টার চেয়ে বেশি ছড়ানোর জন্য ওমিক্রনকে তার চেয়েও বেশি বিধ্বংসী হতে হবে।

স্ক্রিপস রিসার্চ ইনস্টিটিউটের রোগ প্রতিরোধ বিষয়ক বিশেষজ্ঞ ক্রিস্টিয়ান কে এন্ডারসেন বলেন, ‘আমার মনে হয় এখন পর্যন্ত যে কয়টি ধরন দেখা গেছে তার মধ্যে এটাই সবচেয়ে বেশি সংক্রমণে সক্ষম। তবে আগেভাগে এর বেশি বলা কঠিন । হয় এটা ১০-এ ৩ পাবে, অথবা ১০-এ ১০। বা এর মাঝামাঝি।’

তবে গবেষেণাগারের পরীক্ষা থেকে বলা যাবে এর মিউটেশন কি ধারাবাহিক নাকি সাধারণ পরিবর্তন। তবে পরীক্ষা সেভাবে শুরু হয়নি এখনো।

লস অ্যালমোস ন্যাশনাল ল্যাবরেটরির তাত্ত্বিক জীববিজ্ঞানী বেট কোরবার বলেন, ‘এটাকে খারাপই মনে হচ্ছে। পরীক্ষা হওয়া দরকার। আমরা তো জানি না এই মিউটেশনগুলো কীভাবে কাজ করবে।’

তাই নিশ্চিত হওয়া যায়নি ওমিক্রন কি ডেল্টার চেয়েও মারাত্মক কিনা।

ডেল্টা এ বছরের শুরেতে ভারতে দেখা দেয়। এই ভ্যারিয়েন্টটা তার দুই বছর আগে উহানে দেখা দেওয়া ভ্যারিয়েন্টটার চেয়ে দ্বিগুণ ভয়াবহ। এরই মধ্যে ডেল্টা মোটামুটি সারা বিশ্বেই ছড়িয়েছে।

এদিকে শনাক্ত হওয়ার আগে দক্ষিণ আফ্রিকায় ওমিক্রনের বিস্তার সীমিতই ছিল। সেখানে এটি নির্দিষ্ট এলাকায় ছড়িয়েছে। সেকারণেই সংশয় দেখা দিয়েছে, ওমিক্রনের সংক্রমনের ক্ষমতা নাকি আক্রান্তদের মধ্যে নৈকট্যের কারণে দক্ষিণ আফ্রিকায় ভ্যারিয়েন্টটা বেশি ছড়িয়েছে।

তবে এন্ডারসন আরেকটি অনুমানকে সমর্থন করেন। তিনি বলেন, ‘ওমিক্রন সম্ভবত অন্য কোনো প্রানী দেহে থেকে এসেছে। কেননা মানুষের শরীরে এ ধরনের মিউটেশন আগে দেখা যায়নি।’

করোনা ভাইরাস মানুষের দেহ থেকে অন্য প্রানীর দেহে এবং অন্য প্রাণীর দেহ থেকে মানুষের দেহে আসতে পারে।

তা ধারাবাহিকভাবে রূপ বদলে চলেছে। এর মধ্যে কোনো কোনোটি শক্তিশালী হয়েছে। তাদের স্পাইক প্রোটিন পোক্ত হয়েছে জীবদেহের কোষে সংক্রমণ ঘটানোর ক্ষেত্রে।

তবে দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে ওমিক্রনের সংক্রমণের যে তথ্য পাওয়া যাচ্ছে, তাতে অত আতঙ্কিত না হওয়ারও বিষয় আছে। কেননা সংক্রমণের যে তথ্য পাওয়া গেছে, তা একটি ইউনিভার্সিটির। সেখানে একসঙ্গে যারা সংক্রমিত হয়েছে তাদের সংখ্যা দিয়ে গোটা জনসংখ্যার ঝুঁকি হিসেব করার যৌক্তিকতা এখনো পরীক্ষা-সাপেক্ষ।

তথ্যের এই অপ্রতুলতার কারণেই বিজ্ঞানীরা এখনও এর স্বাস্থ্যঝুঁকির মাত্রা সঠিক নিরূপণ করতে পারছেন না।

আরেকটি আশার কথা জানিয়েছেন দক্ষিণ আফ্রিকার চিকিৎসকেরা। তারা বলছেন, ওমিক্রন সংক্রমিতদের মধ্যে মারাত্মক অসুস্থতার প্রমাণ তারা পাননি।

সেখানে ওমিক্রন আক্রান্ত রোগী দেখা প্রথম ডাক্তার অ্যাঞ্জেলিক কোয়েৎজি বলেন রোগীদের মধ্যে সামান্য উপসর্গ দেখা যাচ্ছে। আবার অনেকে আছে উপসর্গহীন।

আর আক্রান্তদের মধ্যে কমবয়সী ছেলেমেয়েরাই বেশি। করোনাভাইরাসে যাদের মারাত্মকভাবে সংক্রমিত হওয়ার সম্ভাবনা কম।

back to top