alt

আন্তর্জাতিক

অশ্লীল ভিডিও কলে ফাঁসিয়ে ব্ল্যাকমেইল করা হচ্ছে যেভাবে

সংবাদ অনলাইন রিপোর্ট : বৃহস্পতিবার, ০১ ডিসেম্বর ২০২২

https://sangbad.net.bd/images/2022/December/01Dec22/news/az-18.JPG

কলকাতার বাসিন্দা এক মধ্যবয়সী ভদ্রলোকের বাড়িতে সেদিন কয়েকজন অতিথি এসেছিলেন। রাত ৯টা ৩৯ থেকে দু মিনিটের মধ্যে একটা অচেনা নম্বর থেকে পর পর ভিডিও কল আসছিল ভদ্রলোকের হোয়াটস্অ্যাপ নম্বরে।অতিথিদের নিয়ে ব্যস্ত থাকায় প্রথমে খেয়াল করেন নি তিনি, তাই ফোন ধরতেও পারেন নি।খবর-বিবিসি

আবার ৯টা ৪২ মিনিটে ‘হাই’ বলে একটা মেসেজ আসে ভদ্রলোকের হোয়াটস্অ্যাপে। কল আসছিল যে নম্বর থেকে, এই মেসেজটাও একই নম্বর থেকে আসা। এবারে খেয়াল করেন তিনি। উত্তরে লেখেন, ‘আমি কি আপনাকে চিনি?’

ফাঁদে পড়তে চলেছিলেন এক নেতা। কলকাতার বাসিন্দা সুপ্রতিষ্ঠিত ওই ব্যক্তির বুঝতে অসুবিধা হয় নি, যে অশ্লীল চ্যাটের প্রলোভন দেখানো হচ্ছে তাকে। তিনি সেই প্রলোভনে অবশ্য পা দেন নি।

তবে ভারতের বহু মানুষ যে ভুলটা করছেন, তা হল অচেনা নম্বর থেকে আসা হোয়াটস্অ্যাপ বা ফেসবুক মেসেঞ্জারের ভিডিও কলটা রিসিভ করে ফেলে। যে ভুলটা করেছিলেন পশ্চিমবঙ্গের ক্ষমতাসীন তৃণমূল কংগ্রেস দলের বর্ষীয়ান নেতা ও হুগলী জেলার চুঁচুড়া থেকে ১৫ বছরের বিধায়ক অসিত মজুমদার।

https://sangbad.net.bd/images/2022/December/01Dec22/news/az-a.JPG

সেপ্টেম্বর মাসের ১২ তারিখে তার মোবাইলে একটা অচেনা নম্বর থেকে ভিডিও কল আসে। তিনি কলটা রিসিভ করে নিয়েছিলেন। মজুমদার সংবাদ মাধ্যমকে জানিয়েছিলেন, ‘কলটা রিসিভ করতেই অপর প্রান্তে এক নারীর ভিডিও দেখা যায় যিনি তার পোশাক খুলছিলেন। মুহূর্তেই বুঝে যাই যে এটা একটা ফাঁদ। কলটা কেটে দিই।’

সেদিন পর পর বেশ কয়েকবার ওই একই নম্বর থেকে ভিডিও কল আসে, আর ধরেননি তিনি। পরের দিন অন্য একটা নম্বর থেকে ফোন আসে। বলা হয় দিল্লি পুলিশ থেকে ফোন করা হচ্ছে এবং তাদের কাছে মজুমদারেরর সেক্স চ্যাটের ভিডিও আছে, যেটা তারা ভাইরাল করে দেবেন।

‘আমি তাদের নম্রভাবেই বলি যে হোয়াটস্অ্যাপে কল না করে সাধারণ কল করুন। তারা বারে বারে একই হুমকি দিতে থাকে। তখন আমি বলি, যিনি ফোনটা করছেন, তিনি যে পুলিশ অফিসার নন, সেটা আমি বুঝে গেছি, আমাকে ব্ল্যাকমেইল করার চেষ্টা করে লাভ হবে না,’ সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছিলেন মজুমদার। কল ডিটেল তিনি পুলিশের কাছে জমা দিয়েছেন।

‘যেহেতু আপনি ভিডিও কল রিসিভ করেছেন, তাই আপনার মুখটাও অপর প্রান্তে দেখা যাচ্ছে। কয়েক সেকেন্ডের মধ্যেও আপনি যদি কলটা কেটে দেন, অন্য প্রান্তে কাজ হাসিল হয়ে গেছে,’ বলছিলেন পশ্চিমবঙ্গের সাইবার অপরাধ সংক্রান্ত বিশেষ সরকারী কৌঁসুলি বিভাস চ্যাটার্জী।

চ্যাটার্জী জানান, ‘যিনি কলটা রিসিভ করলেন, তার মুখ তো চলে এলো। আর অন্যদিকে তো পর্ন ভিডিওর অভিনেত্রী আছেন। এই দুইটিকে এডিট করে একটা এমএমএস বানাচ্ছে যা দেখে মনে হবে সত্যিই ওই ব্যক্তি অশ্লীল ভিডিও চ্যাট করছিলেন। তারপর সেটা এই ব্যক্তিকে পাঠিয়ে হুমকি দেওয়া হচ্ছে যে টাকা না দিলে এই ভিডিও পরিবার, বন্ধু, অফিসের সহকর্মীদের পাঠিয়ে দেওয়া হবে।’

https://sangbad.net.bd/images/2022/December/01Dec22/news/az-b.JPG

সামাজিক দুর্নামের ভয়ে বহু মানুষ টাকা দিতে শুরু করছেন ওই ব্ল্যাকমেইলারদের। আর একবার যদি তাদের কথায় টাকা দিয়ে ফেলেন কেউ, তার কবল থেকে বেরিয়ে আসা খুব কঠিন বলে মন্তব্য করেছেন সাইবার সুরক্ষা বিশেষজ্ঞ সন্দীপ সেনগুপ্তর।

বিশেষজ্ঞরা এই সাইবার অপরাধের নাম দিয়েছেন সেক্সটরশান বা সেক্স চ্যাটের নাম করে এক্সটরশান, অর্থাৎ ব্ল্যাকমেইল করা। এই অপরাধের শিকার হচ্ছেন মূলত মধ্যবয়সী প্রতিষ্ঠিত পুরুষরা। রাজস্থানের ভরতপুর জেলা থেকে বছর তিনেক আগে এই অপরাধের সূচনা হয়। তাই পুলিশ আর সাইবার বিশেষজ্ঞদের ভাষায় এটা ‘ভরতপুর গ্যাং’ অপারেশন।

যেমনটা সাইবার অপরাধের জগতে একটা অতি পরিচিত নাম হয়ে গেছে জামতাড়া গ্যাং। কলকাতার এই সময় পত্রিকার সহকারী সম্পাদক চিত্রদীপ চক্রবর্তী একটা গবেষণাধর্মী বই লিখছেন এই সাইবার অপরাধ নিয়ে। তিনি ভরতপুরেও গেছেন।

তার কথায়, ‘দুই গ্রাম বুদলি আর ঝাঞ্জর থেকে এই অপারেশন শুরু হয় ২০১৯ সালে। আমি গিয়েছিলাম ওখানে। যারা এই কাজটা শুরু করে, তারা কিন্তু বেশি শিক্ষিত নয়। অনেকে তো এই অপরাধটা পারিবারিক কাজ হিসাবেই চালায়। আর ওরা কাজটা শুরু করেছিল একটু অন্য ভাবে। তখনও এটাকে সেক্সটরশান বলা হত না।’

চিত্রদীপ চক্রবর্তী জানান, প্রথমে ওরা নানা কায়দায় হোয়াটস্অ্যাপ নম্বর যোগাড় করত। সেখান থেকে ডিপিটা (প্রোফাইল ছবি) নিয়ে ওরা কোনও পর্ন ছবিতে সেটা সেট করে ব্ল্যাকমেইলটা করত তখন। ওরা দুইটি সফটওয়্যার ব্যবহার করত। পরে যখন বহু মানুষ এভাবে প্রতারিত হয়ে ডিপি বদলে ফুল, গাছ, প্রাকৃতিক দৃশ্য লাগাতে শুরু করেন, তখন ওরাও কৌশল পাল্টায় আর এই এখন যেটা চলছে, সেভাবে ভিডিও কল করে প্রতারণাটা করছে।

তবে এখন আর শুধু ভরতপুর থেকেই যে অপরাধটা চলে ,তা নয়। দেশের বিভিন্ন প্রান্তে ছড়িয়ে পড়েছে এরা। ভরতপুর গ্যাঙের বেশ কয়েকজন সদস্য ধরাও পড়েছেন।

চক্রবর্তী বলেন, ‘এরকমই একজন ধৃত পুলিশকে জানিয়েছিল, সে একাই ১১ কোটি টাকা ব্ল্যাকমেইল করে রোজগার করেছে। তাহলে চিন্তা করুন কত কোটি টাকা এই ভরতপুর গ্যাং তুলছে! ’

সাইবার অপরাধ সংক্রান্ত বিশেষ সরকারী কৌঁসুলি বিভাস চ্যাটার্জী বলেন, ‘এরা যে বিষয়টার জেরে অপরাধটা চালিয়ে যেতে পারছে, তা হলো মানুষের সম্মানহানির ভয়। এরা শিকার খোঁজে সমাজে কিছুটা প্রতিষ্ঠিত ব্যক্তিদের মধ্যে থেকে, যে অংশটা সামাজিক সম্মান বাঁচানোর জন্য পরিবার বা পুলিশকে জানাতে হয়তো ভয় পাবেন। তাই খুব কম সংখ্যায় সেক্সটরশানের ঘটনা পুলিশের কাছে রিপোর্টেড হচ্ছে।’

অপরাধীরা টর ব্রাউজার ব্যবহার করে, যার আইপি অ্যাড্রেস যোগাড় করা একরকম দু:সাধ্য।

চ্যাটার্জীর ব্যাখ্যা অনুযায়ী, যদি বা অনেক কাঠখড় পুড়িয়ে অপরাধীদের ধরা গেল, এরা জানে প্রমাণ যোগাড় করে চার্জশীট সময় মতো দেওয়া সম্ভব নয় এই অপরাধের ক্ষেত্রে। তাই কয়েকমাস পরেই জামিন হয়ে যায়।

তিনি বলছেন, এইজন্যই ব্ল্যাকমেইলের শিকার হয়ে টাকা না দিয়ে পুলিশকে জানাতে, যাতে যে অ্যাকাউন্টে টাকা দেওয়ার কথা বলা হচ্ছে, সেটার সূত্র ধরে অপরাধীদের খোঁজ পাওয়া যায়। পুলিশের কাছে না যাওয়ার ফলে ঠিক কতজন সেক্সটরশানের শিকার হয়েছেন, তার সংখ্যা কারও কাছেই নেই।

তবে সাইবার সুরক্ষা বিশেষজ্ঞ সন্দীপ সেনগুপ্ত জানিয়েছেন, কলকাতায় সংখ্যাটা মোটামুটিভাবে হাজার খানেক ছিল ২০২১ সালের আগস্ট পর্যন্ত। কিন্তু এখন সেটা হাজার দশেকের কাছাকাছি পৌঁছে গেলে অবাক হব না। পুলিশকে জানানো তো অত্যন্ত প্রয়োজনীয়, কিন্তু কিছু সাবধানতা নিজেদেরও নেওয়া দরকার।

সাইবার সুরক্ষা বিশেষজ্ঞ সেনগুপ্ত পরামর্শ দিয়েছেন, ‘এক তো অচেনা নম্বর থেকে আসা কোনও রকম হোয়াটস্অ্যাপ ভিডিও কল অথবা অপরিচিত ফেসবুক অ্যাকাউন্ট থেকে আসা মেসেঞ্জার কল রিসিভ করবেন না। তবে অনেক সময়েই কাজের মধ্যে অন্যমনস্ক থাকি আমরা, তাই হয়তো খেয়াল না করেই কলটা রিসিভ করে ফেলি। সেই সুযোগে যাতে অপরাধ না করতে পারে ভরতপুর গ্যাং, তাই মোবাইলের সেলফি ক্যামেরার ওপরে একটা স্টিকার লাগিয়ে রাখুন। কোনোভাবেই যাতে আপনার মুখ না দেখা যায়।’

নিরীহ মানুষদের কাছ থেকে যে কোটি কোটি টাকা লুট করছে এই সেক্সটরশান গ্যাঙ, তা নয়। এরা অনেককে আত্মহত্যা করতেও বাধ্য করেছে। টাকা দিতে গিয়ে ধারকর্জ করা, বা পরিবার, সমাজের সামনে সম্মানহানি থেকে বাঁচতে পশ্চিমবঙ্গেই গত দুইবছরে অন্তত ছয়জন এই গ্যাঙের শিকার হয়ে আত্মহত্যা করেছেন, এমনটা জানা যাচ্ছে সংবাদপত্রগুলির প্রতিবেদন বিশ্লেষণ করে।

ছবি

তুরস্ক-সিরিয়ায় ভয়াবহ ভূমিকম্প, নিহত অগণন

ছবি

আদানি বিতর্ক: সোমবারও অচল ভারতের পার্লামেন্ট

ছবি

তুরস্ক ও সিরিয়ায় ভূমিকম্পে মৃতের সংখ্যা ২৩শ ছাড়িয়েছে

ছবি

ল্যাটিন আমেরিকার আকাশে দ্বিতীয় বেলুনটিও নিজেদের দাবি করল চীন

ছবি

দ্বিতীয়বার ভূমিকম্পে কেঁপেছে তুরস্ক

ছবি

ভূমিকম্পে সিরিয়ার বিদ্রোহী নিয়ন্ত্রিত এলাকায় ১৪৭ জনের মৃত্যু

ছবি

তুরস্ক ও সিরিয়ায় ভূমিকম্প: দেশ দুটিকে সহায়তার প্রস্তাব পুতিনের

ছবি

তুরস্কে ভূমিকম্পের ভয়াবহ বর্ণনা দিলেন এক তরুণ

ছবি

তুরস্কে ৮০ বছরের ইতিহাসে সবচেয়ে বড় ভূমিকম্প, দুই দেশে নিহত বেড়ে ১৩ শতাধিক

ছবি

শক্তিশালী ভূমিকম্পে তুরস্ক ও সিরিয়ায় নিহত ৫ শতাধিক

ছবি

ইউটিউবার মেয়েকে ঘুমের মধ্যে হত্যা, থানায় গেলেন বাবা

ছবি

তুরস্ক-সিরিয়া সীমান্তে ৭.৮ মাত্রার ভূমিকম্পে নিহত ৫২৯

ছবি

ধর্ষণ মামলায় ফাঁসানোর হুমকি পেয়ে গলায় ফাঁস নিলেন যুবক

ছবি

তুরস্ক, সিরিয়ায় ভূমিকম্পঃ শতাধিক নিহত, বাড়ছে মৃতের সংখ্যা

ছবি

তুষারধসে অস্ট্রিয়া ও সুইজারল্যান্ডে ১০ জনের মৃত্যু

ছবি

গৃহকর্মীকে ধর্ষণের পর হত্যা করে পুড়িয়ে দেয় চাকরিদাতার কিশোর ছেলে

ছবি

দুই ছিনতাইকারীকে জীবন্ত পুড়িয়ে দিলেন স্থানীয় বাসিন্দারা

ছবি

তুরস্কে ৭.৮ মাত্রার ভূমিকম্প

ছবি

ইউক্রেন-ইইউ সম্মেলন পশ্চিমা আধিপত্যবাদের প্রতি সমর্থন: রাশিয়া

ছবি

তুরস্কের ২৩৮ ফ্লাইট বাতিল

ছবি

বেলুন ধ্বংসের ঘটনায় যুক্তরাষ্ট্রের ওপর চটেছে চীন

ছবি

নেতানিয়াহুর পদত্যাগের দাবিতে বিক্ষোভ, টালমাটাল ইসরায়েল

ছবি

যুদ্ধের বর্ষপূর্তিতে রাশিয়ার বিরুদ্ধে আসছে বড় নিষেধাজ্ঞা

ছবি

পাকিস্তানের সাবেক প্রেসিডেন্ট পারভেজ মোশাররফ মারা গেছেন

ছবি

অস্ট্রেলিয়ায় হাঙরের আক্রমণে প্রাণ গেল কিশোরীর

ছবি

যেভাবে চীনের বেলুন ভূপাতিত করল যুক্তরাষ্ট্র

ছবি

চিলিতে শতাধিক দাবানলে নিহত ২৩, আহত ৯৭৯

ছবি

যুক্তরাষ্ট্র আরও অস্ত্র দিলে পরিস্থিতি পরমাণু যুদ্ধ পর্যন্ত গড়াতে পারে: রাশিয়ার সাবেক প্রেসিডেন্ট মেদভেদেভ

ছবি

আপত্তিকর কনটেন্ট না সরানোয় পাকিস্তানে উইকিপিডিয়া নিষিদ্ধ

ছবি

রাশিয়ার অর্থ জব্দ করে ইউক্রেনকে দিতে অনুমতি যুক্তরাষ্ট্রের

ছবি

ভূমধ্যসাগরে নারী-শিশুসহ ১০ অভিবাসন প্রত্যাশীর মৃত্যু

ছবি

নাইজেরিয়ায় ডাকাত-রক্ষীবাহিনীর সংঘর্ষে নিহত ৫১

ছবি

চিলিতে দাবানলে ১৩ মৃত্যু

ছবি

আকাশে বেলুন : ব্লিনকেনের চীন সফর বন্ধ করল যুক্তরাষ্ট্র

ছবি

বাখমুতে আত্মসমর্পণ না করার ঘোষণা জেলেনস্কির

ছবি

পাকিস্তানের রিজার্ভ তলানীতে, মিটবে না তিন সপ্তাহ আমদানি ব্যয়ও

tab

আন্তর্জাতিক

অশ্লীল ভিডিও কলে ফাঁসিয়ে ব্ল্যাকমেইল করা হচ্ছে যেভাবে

সংবাদ অনলাইন রিপোর্ট

বৃহস্পতিবার, ০১ ডিসেম্বর ২০২২

https://sangbad.net.bd/images/2022/December/01Dec22/news/az-18.JPG

কলকাতার বাসিন্দা এক মধ্যবয়সী ভদ্রলোকের বাড়িতে সেদিন কয়েকজন অতিথি এসেছিলেন। রাত ৯টা ৩৯ থেকে দু মিনিটের মধ্যে একটা অচেনা নম্বর থেকে পর পর ভিডিও কল আসছিল ভদ্রলোকের হোয়াটস্অ্যাপ নম্বরে।অতিথিদের নিয়ে ব্যস্ত থাকায় প্রথমে খেয়াল করেন নি তিনি, তাই ফোন ধরতেও পারেন নি।খবর-বিবিসি

আবার ৯টা ৪২ মিনিটে ‘হাই’ বলে একটা মেসেজ আসে ভদ্রলোকের হোয়াটস্অ্যাপে। কল আসছিল যে নম্বর থেকে, এই মেসেজটাও একই নম্বর থেকে আসা। এবারে খেয়াল করেন তিনি। উত্তরে লেখেন, ‘আমি কি আপনাকে চিনি?’

ফাঁদে পড়তে চলেছিলেন এক নেতা। কলকাতার বাসিন্দা সুপ্রতিষ্ঠিত ওই ব্যক্তির বুঝতে অসুবিধা হয় নি, যে অশ্লীল চ্যাটের প্রলোভন দেখানো হচ্ছে তাকে। তিনি সেই প্রলোভনে অবশ্য পা দেন নি।

তবে ভারতের বহু মানুষ যে ভুলটা করছেন, তা হল অচেনা নম্বর থেকে আসা হোয়াটস্অ্যাপ বা ফেসবুক মেসেঞ্জারের ভিডিও কলটা রিসিভ করে ফেলে। যে ভুলটা করেছিলেন পশ্চিমবঙ্গের ক্ষমতাসীন তৃণমূল কংগ্রেস দলের বর্ষীয়ান নেতা ও হুগলী জেলার চুঁচুড়া থেকে ১৫ বছরের বিধায়ক অসিত মজুমদার।

https://sangbad.net.bd/images/2022/December/01Dec22/news/az-a.JPG

সেপ্টেম্বর মাসের ১২ তারিখে তার মোবাইলে একটা অচেনা নম্বর থেকে ভিডিও কল আসে। তিনি কলটা রিসিভ করে নিয়েছিলেন। মজুমদার সংবাদ মাধ্যমকে জানিয়েছিলেন, ‘কলটা রিসিভ করতেই অপর প্রান্তে এক নারীর ভিডিও দেখা যায় যিনি তার পোশাক খুলছিলেন। মুহূর্তেই বুঝে যাই যে এটা একটা ফাঁদ। কলটা কেটে দিই।’

সেদিন পর পর বেশ কয়েকবার ওই একই নম্বর থেকে ভিডিও কল আসে, আর ধরেননি তিনি। পরের দিন অন্য একটা নম্বর থেকে ফোন আসে। বলা হয় দিল্লি পুলিশ থেকে ফোন করা হচ্ছে এবং তাদের কাছে মজুমদারেরর সেক্স চ্যাটের ভিডিও আছে, যেটা তারা ভাইরাল করে দেবেন।

‘আমি তাদের নম্রভাবেই বলি যে হোয়াটস্অ্যাপে কল না করে সাধারণ কল করুন। তারা বারে বারে একই হুমকি দিতে থাকে। তখন আমি বলি, যিনি ফোনটা করছেন, তিনি যে পুলিশ অফিসার নন, সেটা আমি বুঝে গেছি, আমাকে ব্ল্যাকমেইল করার চেষ্টা করে লাভ হবে না,’ সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছিলেন মজুমদার। কল ডিটেল তিনি পুলিশের কাছে জমা দিয়েছেন।

‘যেহেতু আপনি ভিডিও কল রিসিভ করেছেন, তাই আপনার মুখটাও অপর প্রান্তে দেখা যাচ্ছে। কয়েক সেকেন্ডের মধ্যেও আপনি যদি কলটা কেটে দেন, অন্য প্রান্তে কাজ হাসিল হয়ে গেছে,’ বলছিলেন পশ্চিমবঙ্গের সাইবার অপরাধ সংক্রান্ত বিশেষ সরকারী কৌঁসুলি বিভাস চ্যাটার্জী।

চ্যাটার্জী জানান, ‘যিনি কলটা রিসিভ করলেন, তার মুখ তো চলে এলো। আর অন্যদিকে তো পর্ন ভিডিওর অভিনেত্রী আছেন। এই দুইটিকে এডিট করে একটা এমএমএস বানাচ্ছে যা দেখে মনে হবে সত্যিই ওই ব্যক্তি অশ্লীল ভিডিও চ্যাট করছিলেন। তারপর সেটা এই ব্যক্তিকে পাঠিয়ে হুমকি দেওয়া হচ্ছে যে টাকা না দিলে এই ভিডিও পরিবার, বন্ধু, অফিসের সহকর্মীদের পাঠিয়ে দেওয়া হবে।’

https://sangbad.net.bd/images/2022/December/01Dec22/news/az-b.JPG

সামাজিক দুর্নামের ভয়ে বহু মানুষ টাকা দিতে শুরু করছেন ওই ব্ল্যাকমেইলারদের। আর একবার যদি তাদের কথায় টাকা দিয়ে ফেলেন কেউ, তার কবল থেকে বেরিয়ে আসা খুব কঠিন বলে মন্তব্য করেছেন সাইবার সুরক্ষা বিশেষজ্ঞ সন্দীপ সেনগুপ্তর।

বিশেষজ্ঞরা এই সাইবার অপরাধের নাম দিয়েছেন সেক্সটরশান বা সেক্স চ্যাটের নাম করে এক্সটরশান, অর্থাৎ ব্ল্যাকমেইল করা। এই অপরাধের শিকার হচ্ছেন মূলত মধ্যবয়সী প্রতিষ্ঠিত পুরুষরা। রাজস্থানের ভরতপুর জেলা থেকে বছর তিনেক আগে এই অপরাধের সূচনা হয়। তাই পুলিশ আর সাইবার বিশেষজ্ঞদের ভাষায় এটা ‘ভরতপুর গ্যাং’ অপারেশন।

যেমনটা সাইবার অপরাধের জগতে একটা অতি পরিচিত নাম হয়ে গেছে জামতাড়া গ্যাং। কলকাতার এই সময় পত্রিকার সহকারী সম্পাদক চিত্রদীপ চক্রবর্তী একটা গবেষণাধর্মী বই লিখছেন এই সাইবার অপরাধ নিয়ে। তিনি ভরতপুরেও গেছেন।

তার কথায়, ‘দুই গ্রাম বুদলি আর ঝাঞ্জর থেকে এই অপারেশন শুরু হয় ২০১৯ সালে। আমি গিয়েছিলাম ওখানে। যারা এই কাজটা শুরু করে, তারা কিন্তু বেশি শিক্ষিত নয়। অনেকে তো এই অপরাধটা পারিবারিক কাজ হিসাবেই চালায়। আর ওরা কাজটা শুরু করেছিল একটু অন্য ভাবে। তখনও এটাকে সেক্সটরশান বলা হত না।’

চিত্রদীপ চক্রবর্তী জানান, প্রথমে ওরা নানা কায়দায় হোয়াটস্অ্যাপ নম্বর যোগাড় করত। সেখান থেকে ডিপিটা (প্রোফাইল ছবি) নিয়ে ওরা কোনও পর্ন ছবিতে সেটা সেট করে ব্ল্যাকমেইলটা করত তখন। ওরা দুইটি সফটওয়্যার ব্যবহার করত। পরে যখন বহু মানুষ এভাবে প্রতারিত হয়ে ডিপি বদলে ফুল, গাছ, প্রাকৃতিক দৃশ্য লাগাতে শুরু করেন, তখন ওরাও কৌশল পাল্টায় আর এই এখন যেটা চলছে, সেভাবে ভিডিও কল করে প্রতারণাটা করছে।

তবে এখন আর শুধু ভরতপুর থেকেই যে অপরাধটা চলে ,তা নয়। দেশের বিভিন্ন প্রান্তে ছড়িয়ে পড়েছে এরা। ভরতপুর গ্যাঙের বেশ কয়েকজন সদস্য ধরাও পড়েছেন।

চক্রবর্তী বলেন, ‘এরকমই একজন ধৃত পুলিশকে জানিয়েছিল, সে একাই ১১ কোটি টাকা ব্ল্যাকমেইল করে রোজগার করেছে। তাহলে চিন্তা করুন কত কোটি টাকা এই ভরতপুর গ্যাং তুলছে! ’

সাইবার অপরাধ সংক্রান্ত বিশেষ সরকারী কৌঁসুলি বিভাস চ্যাটার্জী বলেন, ‘এরা যে বিষয়টার জেরে অপরাধটা চালিয়ে যেতে পারছে, তা হলো মানুষের সম্মানহানির ভয়। এরা শিকার খোঁজে সমাজে কিছুটা প্রতিষ্ঠিত ব্যক্তিদের মধ্যে থেকে, যে অংশটা সামাজিক সম্মান বাঁচানোর জন্য পরিবার বা পুলিশকে জানাতে হয়তো ভয় পাবেন। তাই খুব কম সংখ্যায় সেক্সটরশানের ঘটনা পুলিশের কাছে রিপোর্টেড হচ্ছে।’

অপরাধীরা টর ব্রাউজার ব্যবহার করে, যার আইপি অ্যাড্রেস যোগাড় করা একরকম দু:সাধ্য।

চ্যাটার্জীর ব্যাখ্যা অনুযায়ী, যদি বা অনেক কাঠখড় পুড়িয়ে অপরাধীদের ধরা গেল, এরা জানে প্রমাণ যোগাড় করে চার্জশীট সময় মতো দেওয়া সম্ভব নয় এই অপরাধের ক্ষেত্রে। তাই কয়েকমাস পরেই জামিন হয়ে যায়।

তিনি বলছেন, এইজন্যই ব্ল্যাকমেইলের শিকার হয়ে টাকা না দিয়ে পুলিশকে জানাতে, যাতে যে অ্যাকাউন্টে টাকা দেওয়ার কথা বলা হচ্ছে, সেটার সূত্র ধরে অপরাধীদের খোঁজ পাওয়া যায়। পুলিশের কাছে না যাওয়ার ফলে ঠিক কতজন সেক্সটরশানের শিকার হয়েছেন, তার সংখ্যা কারও কাছেই নেই।

তবে সাইবার সুরক্ষা বিশেষজ্ঞ সন্দীপ সেনগুপ্ত জানিয়েছেন, কলকাতায় সংখ্যাটা মোটামুটিভাবে হাজার খানেক ছিল ২০২১ সালের আগস্ট পর্যন্ত। কিন্তু এখন সেটা হাজার দশেকের কাছাকাছি পৌঁছে গেলে অবাক হব না। পুলিশকে জানানো তো অত্যন্ত প্রয়োজনীয়, কিন্তু কিছু সাবধানতা নিজেদেরও নেওয়া দরকার।

সাইবার সুরক্ষা বিশেষজ্ঞ সেনগুপ্ত পরামর্শ দিয়েছেন, ‘এক তো অচেনা নম্বর থেকে আসা কোনও রকম হোয়াটস্অ্যাপ ভিডিও কল অথবা অপরিচিত ফেসবুক অ্যাকাউন্ট থেকে আসা মেসেঞ্জার কল রিসিভ করবেন না। তবে অনেক সময়েই কাজের মধ্যে অন্যমনস্ক থাকি আমরা, তাই হয়তো খেয়াল না করেই কলটা রিসিভ করে ফেলি। সেই সুযোগে যাতে অপরাধ না করতে পারে ভরতপুর গ্যাং, তাই মোবাইলের সেলফি ক্যামেরার ওপরে একটা স্টিকার লাগিয়ে রাখুন। কোনোভাবেই যাতে আপনার মুখ না দেখা যায়।’

নিরীহ মানুষদের কাছ থেকে যে কোটি কোটি টাকা লুট করছে এই সেক্সটরশান গ্যাঙ, তা নয়। এরা অনেককে আত্মহত্যা করতেও বাধ্য করেছে। টাকা দিতে গিয়ে ধারকর্জ করা, বা পরিবার, সমাজের সামনে সম্মানহানি থেকে বাঁচতে পশ্চিমবঙ্গেই গত দুইবছরে অন্তত ছয়জন এই গ্যাঙের শিকার হয়ে আত্মহত্যা করেছেন, এমনটা জানা যাচ্ছে সংবাদপত্রগুলির প্রতিবেদন বিশ্লেষণ করে।

back to top