alt

আন্তর্জাতিক

ইতিহাসের সর্বোচ্চ অভিবাসী আগমন যুক্তরাজ্যে, চাপে ঋষি সুনাক

সংবাদ অনলাইন রিপোর্ট : শুক্রবার, ২৬ মে ২০২৩

ব্রিটেনে প্রধানমন্ত্রী ঋষি সুনাকের নির্বচনী ইশতেহারে বছরপ্রতি অভিবাসীদের আগমন ১ লাখে নামিয়ে আনার প্রতিশ্রুতি ছিল। কিন্তু ঘটে গেছে তার উল্টো। দেশটির ইতিহাসে গত বছরে বৈধ অভিবাসীর সংখ্যা সর্বোচ্চ। এতে করে চাপের মুখে পড়েছেন নতুন এ প্রধানমন্ত্রী। দেশটির সরকারি পরিসংখ্যান দপ্তরের (ওএনএস) তথ্য অনুযায়ী, ২০২২ সালের জানুয়ারি থেকে ডিসেম্বর পর্যন্ত ইউরোপ ও বিশ্বের অন্যান্য দেশ থেকে ব্রিটেনে এসেছেন ৬ লাখ ৬ শ’রও বেশি মানুষ।

এরা সবাই যুক্তরাজ্যে বসবাসের বৈধতা নিয়ে এসেছেন, অর্থাৎ বৈধ অভিবাসী। দেশটির ইতিহাসে এর আগে এক বছরে এত সংখ্যক অভিবাসী আগমনের তথ্য নেই বলে বৃহস্পতিবার এক বিবৃতিতে জানিয়েছে ওএনএস।

কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আলজাজিরাকে ওএনএসের পরিচালক জে লিনডপ বলেন, ২০২০ সালের পর থেকেই যুক্তরাজ্যে অভিবাসীদের আগমনের হার বাড়ছিল, তবে তাতে উল্লম্ফন শুরু হয়েছে রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের পর। ২০২২ সালের ফেব্রুয়ারি রুশ বাহিনী ইউক্রেনে বিশেষ সামরিক অভিযান শুরুর পর থেকে ইউক্রেন থেকে বিপুল সংখ্যক মানুষ অভিবাসন বৈধতা নিয়ে যুক্তরাজ্যে এসেছেন বা যুক্তরাজ্যে আসার পর থাকার অনুমতি নিয়েছেন।

এছাড়া গত বছর হংকংয়ের গণতন্ত্রপন্থী ও চীনে ক্ষমতাসীন কমিউনিস্ট সরকারেরর বিরোধীদের জন্য ভিসানীতি সহজ করেছিল যুক্তরাজ্যের সরকার। ফলে হংকং থেকেও দেশটিতে গিয়েছেন প্রচুর অভিবাসী।

এদিকে, পরিসংখ্যান দপ্তরের সাম্প্রতিক এই তথ্যে স্বাভাবিকভাবেই চাপে পড়েছেন ব্রিটেনে ক্ষমতাসীন কনজারভেটিভ সরকারের প্রধানমন্ত্রী ঋষি সুনাক। বৃহস্পতিবার ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম আইটিভিকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘বৈধ অভিবাসনের হার অতিরিক্তমাত্রায় বৃদ্ধি পেয়েছে। আমি এটা কমাতে চাই এবং এ মুহূর্তে এটাই আমার জন্য জরুরি কাজ।’

ব্রিটেনের অভ্যন্তরীন রাজনীতিতে ২০১১ সাল থেকে গুরুত্ব পাওয়া শুরু করে অভিবাসন ইস্যুটি। ব্রিটেনের জনগণদের একাংশের অভিযোগ ছিল, বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে আসা অভিবাসীদের কারণে তারা নানাভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন।

এই অভিযোগটিকে মূল নির্বাচনী ইস্যু আকারে হাজির করেই ২০১১ সালের নির্বাচনে জয়ী হয়েছিল কনজারভেটিভ পার্টি। ২০১৬ সালে ইউরোপের দেশগুলোর জোট ইউরোপীয় ইউনিয়ন থেকে বের হয়ে আসে ব্রিটেন, তার পেছনেও কাজ করেছে এই অভিবাসন ইস্যু। কনজারভেটিভ পার্টির অভিযোগ ছিল, আন্তরাষ্ট্রীয় এই জোটের সুবিধা নিয়ে ইউরোপের বিভিন্ন দেশ থেকে যুক্তরাজ্যে আসা মানুষের সংখ্যা বাড়ছে।

তারপর ২০১৯ সালের নির্বচনী ইশতেহারে অভিবাসীদের বাৎসারিক আগমন ১ লাখে নামিয়ে আনার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল কনজারভেটিভ পার্টি। যুক্তরাজ্যের অভিবাসনমন্ত্রী রবার্ট জেনেরিক বৃহস্পতিবার এক সাক্ষাৎকারে জানিয়েছেন, আপাতত অভিবাসীদের আগমনের হার মহামারিপূর্ব পরিস্থিতির মতো করার দিকেই মনযোগ দিচ্ছে বর্তমান সরকার।

রুয়ান্ডা বিল পাস: কয়েক ঘণ্টার মধ্যে ইংলিশ চ্যানেলে ডুবে নিহত ৫

ছবি

পাকিস্তানকে নিষেধাজ্ঞার হুমকি যুক্তরাষ্ট্রের

ছবি

বাংলাদেশে মানবাধিকার পরিস্থিতির উল্লেখযোগ্য কোনো পরিবর্তন হয়নি

ছবি

মালয়েশিয়ায় সামরিক মহড়ার সময় ২ হেলিকপ্টারের সংঘর্ষ, নিহত ১০

ছবি

দফায় দফায় ভূমিকম্পে কেঁপে উঠলো তাইওয়ান

ছবি

যুক্তরাষ্ট্রে সড়ক দুর্ঘটনায় ভারতীয় ২ শিক্ষার্থীর মৃত্যু

ছবি

পাকিস্তান সফরে ইরানি প্রেসিডেন্ট

ছবি

ফের শক্তিশালী ভূমিকম্পে কাঁপল তাইওয়ান

ছবি

ইসরায়েলের সামরিক গোয়েন্দা প্রধানের পদত্যাগ

ছবি

সরিয়ে নেওয়া হলো হাজার হাজার মানুষকে

ছবি

ফের ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র উৎক্ষেপণ করেছে উত্তর কোরিয়া

ছবি

মালদ্বীপের পার্লামেন্ট নির্বাচনে মইজ্জুর দলের বড় জয়

ছবি

মার্কিন নিষেধাজ্ঞার বিরুদ্ধে সর্বশক্তি দিয়ে লড়াই করবেন নেতানিয়াহু

ছবি

রাফাহতে ইসরায়েলি বিমান হামলায় নিহত ১০, বেশিরভাগই শিশু

ছবি

সোমালি দস্যুদের মুক্তিপণ দেওয়ায় ইইউর উদ্বেগ, হুঁশিয়ারি

ছবি

মধ্য আফ্রিকান প্রজাতন্ত্রে যাত্রীবাহী ফেরিডুবি, নিহত অন্তত ৫৮

ছবি

সিরিয়ায় আইএসের হামলায় ২৮ সেনা নিহত

ছবি

মায়ানমার-থাই সীমান্তে আবারও বিদ্রোহীদের হামলা

ছবি

ইরাকে ইরানপন্থি মিলিশিয়া বাহিনীর ঘাঁটিতে বোমা হামলা

ছবি

মুখোমুখি ইরান-ইসরায়েল, পরীক্ষার মুখে মার্কিন সামরিক কৌশল

ছবি

কাতার ছাড়তে চায় হামাস!

ছবি

বিমান হামলায় ৮ জন নিহতের পর রাশিয়ার বোম্বার নামানোর দাবি কিইভের

আদালতের ভেতরে ট্রাম্প, বাইরে নিজ দেহে আগুন দিলেন যুবক

ছবি

জাতিসংঘে ফিলিস্তিনের পূর্ণ সদস্যপদের বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রের ভেটো

ছবি

হামলার পর ইসরায়েলকে যে হুমকি দিল ইরান

ছবি

ইরানের পারমাণবিক স্থাপনার কোনো ক্ষতি হয়নি : আইএইএ

ছবি

৩টি ড্রোন ধ্বংস করল ইরান, নিরাপদে আছে ইসফাহানের পারমাণবিক স্থাপনা

ছবি

ইরানে বড় শহরগুলোতে বিমান চলাচল বন্ধ, সিরিয়া-ইরাকে ব্যাপক বিস্ফোরণ

ছবি

কাল ভারতে লোকসভার প্রথম দফার ভোট

ছবি

বিরোধিতা করায় চাকরি গেল ২৮ কর্মীর

ছবি

পানির নিচে দুবাই বিমানবন্দর, ব্যাপক বিশৃঙ্খলা

ছবি

হিজবুল্লাহর হামলায় ১৪ ইসরায়েলি সেনা আহত

ছবি

ইউক্রেনে রুশ ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় নিহত ১৭

ছবি

ঈদ উদযাপনে এক সপ্তাহে সৌদিবাসীর ব্যয় ৩৩ হাজার কোটি টাকা

ছবি

‘ইউক্রেন হারলে তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধ শুরু হয়ে যাবে’

ছবি

নতুন অনলাইন ভিসা পদ্ধতি চালু করেছে শ্রীলঙ্কা, দেওয়া হয়েছে নতুন লিঙ্ক

tab

আন্তর্জাতিক

ইতিহাসের সর্বোচ্চ অভিবাসী আগমন যুক্তরাজ্যে, চাপে ঋষি সুনাক

সংবাদ অনলাইন রিপোর্ট

শুক্রবার, ২৬ মে ২০২৩

ব্রিটেনে প্রধানমন্ত্রী ঋষি সুনাকের নির্বচনী ইশতেহারে বছরপ্রতি অভিবাসীদের আগমন ১ লাখে নামিয়ে আনার প্রতিশ্রুতি ছিল। কিন্তু ঘটে গেছে তার উল্টো। দেশটির ইতিহাসে গত বছরে বৈধ অভিবাসীর সংখ্যা সর্বোচ্চ। এতে করে চাপের মুখে পড়েছেন নতুন এ প্রধানমন্ত্রী। দেশটির সরকারি পরিসংখ্যান দপ্তরের (ওএনএস) তথ্য অনুযায়ী, ২০২২ সালের জানুয়ারি থেকে ডিসেম্বর পর্যন্ত ইউরোপ ও বিশ্বের অন্যান্য দেশ থেকে ব্রিটেনে এসেছেন ৬ লাখ ৬ শ’রও বেশি মানুষ।

এরা সবাই যুক্তরাজ্যে বসবাসের বৈধতা নিয়ে এসেছেন, অর্থাৎ বৈধ অভিবাসী। দেশটির ইতিহাসে এর আগে এক বছরে এত সংখ্যক অভিবাসী আগমনের তথ্য নেই বলে বৃহস্পতিবার এক বিবৃতিতে জানিয়েছে ওএনএস।

কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আলজাজিরাকে ওএনএসের পরিচালক জে লিনডপ বলেন, ২০২০ সালের পর থেকেই যুক্তরাজ্যে অভিবাসীদের আগমনের হার বাড়ছিল, তবে তাতে উল্লম্ফন শুরু হয়েছে রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের পর। ২০২২ সালের ফেব্রুয়ারি রুশ বাহিনী ইউক্রেনে বিশেষ সামরিক অভিযান শুরুর পর থেকে ইউক্রেন থেকে বিপুল সংখ্যক মানুষ অভিবাসন বৈধতা নিয়ে যুক্তরাজ্যে এসেছেন বা যুক্তরাজ্যে আসার পর থাকার অনুমতি নিয়েছেন।

এছাড়া গত বছর হংকংয়ের গণতন্ত্রপন্থী ও চীনে ক্ষমতাসীন কমিউনিস্ট সরকারেরর বিরোধীদের জন্য ভিসানীতি সহজ করেছিল যুক্তরাজ্যের সরকার। ফলে হংকং থেকেও দেশটিতে গিয়েছেন প্রচুর অভিবাসী।

এদিকে, পরিসংখ্যান দপ্তরের সাম্প্রতিক এই তথ্যে স্বাভাবিকভাবেই চাপে পড়েছেন ব্রিটেনে ক্ষমতাসীন কনজারভেটিভ সরকারের প্রধানমন্ত্রী ঋষি সুনাক। বৃহস্পতিবার ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম আইটিভিকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘বৈধ অভিবাসনের হার অতিরিক্তমাত্রায় বৃদ্ধি পেয়েছে। আমি এটা কমাতে চাই এবং এ মুহূর্তে এটাই আমার জন্য জরুরি কাজ।’

ব্রিটেনের অভ্যন্তরীন রাজনীতিতে ২০১১ সাল থেকে গুরুত্ব পাওয়া শুরু করে অভিবাসন ইস্যুটি। ব্রিটেনের জনগণদের একাংশের অভিযোগ ছিল, বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে আসা অভিবাসীদের কারণে তারা নানাভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন।

এই অভিযোগটিকে মূল নির্বাচনী ইস্যু আকারে হাজির করেই ২০১১ সালের নির্বাচনে জয়ী হয়েছিল কনজারভেটিভ পার্টি। ২০১৬ সালে ইউরোপের দেশগুলোর জোট ইউরোপীয় ইউনিয়ন থেকে বের হয়ে আসে ব্রিটেন, তার পেছনেও কাজ করেছে এই অভিবাসন ইস্যু। কনজারভেটিভ পার্টির অভিযোগ ছিল, আন্তরাষ্ট্রীয় এই জোটের সুবিধা নিয়ে ইউরোপের বিভিন্ন দেশ থেকে যুক্তরাজ্যে আসা মানুষের সংখ্যা বাড়ছে।

তারপর ২০১৯ সালের নির্বচনী ইশতেহারে অভিবাসীদের বাৎসারিক আগমন ১ লাখে নামিয়ে আনার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল কনজারভেটিভ পার্টি। যুক্তরাজ্যের অভিবাসনমন্ত্রী রবার্ট জেনেরিক বৃহস্পতিবার এক সাক্ষাৎকারে জানিয়েছেন, আপাতত অভিবাসীদের আগমনের হার মহামারিপূর্ব পরিস্থিতির মতো করার দিকেই মনযোগ দিচ্ছে বর্তমান সরকার।

back to top