alt

বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি

মোবাইল নেটওয়ার্ক ও ইন্টারনেটের ধীরগতি বিটিআরসিকে টিক্যাবের চিঠি

সংবাদ অনলাইন রিপোর্ট : মঙ্গলবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০২২

মোবাইল নেটওয়ার্কের দুর্বলতা ও ইন্টারনেটের ধীরগতি সমস্যার সমাধানে যথাযথ ব্যবস্থা নিতে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি) চেয়ারম্যানকে চিঠি দিয়েছে টেলি কনজ্যুমারস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (টিক্যাব)।

মঙ্গলবার (২০ সেপ্টেম্বর) সকালে টিক্যাবের আহ্বায়ক মুর্শিদুল হক স্বাক্ষরিত এ সম্পর্কিত একটি চিঠি বিটিআরসি চেয়ারম্যান শ্যাম সুন্দর সিকদারের ইমেইলে প্রেরণ করা হয়। এ চিঠির একটি অনুলিপি প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণে ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রী মোস্তফা জব্বারের ইমেইলেও প্রেরণ করে সংগঠনটি। টেলি কনজ্যুমারস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (টিক্যাব) এর পক্ষ থেকে গণমাধ্যমে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এই তথ্য জানানো হয়েছে।

চিঠিতে টিক্যাবের পক্ষ থেকে বলা হয়, ২০২১ সালের ডিসেম্বরে ওকলা প্রকাশিত ‘স্পিড টেস্ট গ্লোবাল ইনডেক্স’ প্রতিবেদনে মোবাইল ইন্টারনেটের গতির যে চিত্র উঠে এসেছে, তা বাংলাদেশের গ্রাহকদের জন্য সত্যিই হতাশাজনক। প্রতিবেদনে ১৩৮টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান ১২৮তম। সরকার বিগত বছরগুলোয় ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার যে প্রতিশ্রুতি দিয়েছে তার সঙ্গে এ প্রতিবেদন সাংঘর্ষিক। এ সময়ে মোবাইল ইন্টারনেট, ই—কমার্স, ই—পেপার, ই—এডুকেশন, ই—ব্যাংকিং, ই—বুক, ই—হেলথ সার্ভিস, ই—ফাইলিং, ই—ভোটিং ইত্যাদি ক্ষেত্রে কিছু অগ্রগতি হলেও অন্যান্য দেশের তুলনায় এখনো আমরা অনেকটাই পিছিয়ে আছি। অপরদিকে মোবাইল নেটওয়ার্কের দুর্বলতা নিয়ে গ্রাহক অভিযোগের শেষ নেই। অনেক ভবনে, চলন্ত গাড়িতে কিংবা প্রত্যন্ত অঞ্চলে নেটওয়ার্ক দুর্বলতা এখন ওপেন সিক্রেট। অনেক ক্ষেত্রে ৪জি—৩জি তো দূর, ২জি সেবা পান না গ্রাহকরা। টুজি গ্রাহক বিড়ম্বনায় এর সঙ্গে যোগ হয়েছে কলড্রপ ও কথোপকথনে অস্পষ্টতা। অথচ প্রতিটি সেকেন্ডের জন্য অপারেটরগুলো ঠিকই গ্রাহকদের ব্যালেন্স কেটে নিচ্ছে।

চিঠিতে আরও বলা হয়, তথ্যপ্রযুক্তির এ যুগে স্মার্টফোন ও ইন্টারনেট এখন কোনো বিলাসিতা নয়। বিশ্বের উন্মুক্ত জ্ঞানভাণ্ডারে প্রবেশের চাবিকাঠি হলো ইন্টারনেট। আর ইন্টারনেটের গতির সঙ্গে ওতপ্রোতভাবে জড়িত ডিজিটাল প্রযুক্তিনির্ভর সব কর্মকাণ্ড। বর্তমানে ব্যবসা—বাণিজ্য, শিক্ষা, স্বাস্থ্য, প্রশাসন, কৃষি, ব্যাংকিং ব্যবস্থা অনেক বেশি ডিজিটাল প্রযুক্তিনির্ভর। অনলাইনে পাঠদান, এমনকি টেলিমেডিসিন সেবা গ্রহণেও অনলাইন নির্ভরতা বেড়েছে। প্রযুক্তির সঙ্গে তাল মিলিয়ে মানবসম্পদ তৈরিতে উচ্চগতির ইন্টারনেট এখন একটি মৌলিক অনুষঙ্গ। বাংলাদেশে ইন্টারনেট সেবার মান নিয়ে গ্রাহকদের প্রশ্ন রয়েছে। নিরবচ্ছিন্ন গতিসম্পন্ন মোবাইল ইন্টারনেট সেবা অধিকাংশ ক্ষেত্রেই মেলে না। এজন্য মোবাইল অপারেটরদের পাশাপাশি বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনেরও (বিটিআরসি) দায়িত্ব রয়েছে। টিক্যাবের পক্ষ থেকে দাবি জানানো হলেও এখনো মোবাইল ইন্টারনেটের দাম বেঁধে দিতে পারেনি বিটিআরসি। গ্রাহকরা প্রতিনিয়তই মোবাইল নেটওয়ার্কের দুর্বলতা ও ধীরগতির ইন্টারনেট সেবা অনুভব করছেন। এ অবস্থা সরকারের ‘ডিজিটাল বাংলাদেশ’ নীতির সঙ্গে কোনোভাবেই সামঞ্জস্যপূর্ণ নয় বলে আমরা মনে করি।

টিক্যাব জানায়, গত ৫ বছরেও মোবাইল নেটওয়ার্ক ও ইন্টারনেটের মান ও গতির ক্ষেত্রে তেমন কোন পরিবর্তন আসেনি। অথচ অপারেটরগুলো উচ্চগতি ও উন্নত সেবার বিজ্ঞাপন প্রচার করে গ্রাহকদের বিভ্রান্ত করছে। মোবাইল অপারেটরগুলো তাদের বিভিন্ন প্যাকেজ ও সেবার লোভনীয় বিজ্ঞাপন প্রচারের ক্ষেত্রে প্রতি বছর শত শত কোটি টাকা খরচ করছে। অপারেটরগুলো যদি বিজ্ঞাপনের অর্থ মোবাইল নেটওয়ার্ক, ইন্টারনেটের গতি ও সেবার মান উন্নয়নে খরচ করতো, তাতে বরং গ্রাহকরা কিছুটা প্রতিকার পেত। মোবাইল অপারেটরগুলোর, ইন্টারনেটের গতি ও সেবার মান বাড়াতে যে পরিমাণ বেতার তরঙ্গ (স্পেকট্রাম) প্রয়োজন সেটি তাদের নেই। এ নিয়ে মোবাইল অপারেটর, ইন্টারনেট সার্ভিস প্রোভাইডার ও বিটিআরসির মধ্যে টানাপড়েন রয়েছে। বাংলাদেশে শহর এলাকায় জনঘনত্ব অত্যন্ত বেশি। গ্রাহক অনুপাতে অপারেটরদের কাছে যে পরিমাণ তরঙ্গ থাকা প্রয়োজন তা বাংলাদেশের অপারেটরদের কাছে নেই। ভালো সেবা দেওয়ার জন্য একেকটি অপারেটরের কাছে অন্তত ১০০ মেগাহার্টজ তরঙ্গ প্রয়োজন।

স্বল্প ব্যান্ডউইডথ দিয়ে সেবা দেওয়ায় নিরবচ্ছিন্ন সেবায় বিঘ্ন ঘটছে। সেবার মান বেঁধে দিয়ে বিটিআরসির দেওয়া বিধিমালা অপারেটর যথাযথভাবে অনুসরণ করে গ্রাহকদের সেবা দিচ্ছে কিনা, সেটা নিশ্চিত করা প্রয়োজন। পাশাপাশি বিটিআরসিকে ব্যবহারকারী বান্ধব ভূমিকাও পালন করতে অনুরোধ করছি। বিটিআরসি ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট সেবার দাম (ঊর্ধ্বসীমা) বেঁধে দিয়েছে। সিদ্ধান্ত অনুযায়ী সারাদেশে এক রেটে ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট সেবা পাবেন গ্রাহকরা। কিন্তু মোবাইল ইন্টারনেট গ্রাহকদের জন্য উদ্যোগটি নেওয়া হয়নি। বিটিআরসি ইন্টারনেটের কস্ট মডেলিংয়ের জন্য পরামর্শক নিয়োগ করলেও তা এখনো আলোর মুখ দেখেনি।

চিঠিতে মোবাইল নেটওয়ার্কের দুর্বলতা ও ইন্টারনেটের ধীরগতি সমস্যার সমাধানকল্পে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করতে বিটিআরসি চেয়ারম্যানকে গ্রাহকদের পক্ষ থেকে টিক্যাব বিশেষ ভাবে অনুরোধ জানায়।

ছবি

ঢাকা ও রংপুরে রবির ৫-জি পরীক্ষা

ছবি

বাংলাদেশের আকাশে অপরূপ সূর্যবলয়ের মোহনীয় দৃশ্য

ছবি

বেসিস এর উদ্যোগে নাসা স্পেস অ্যাপস চ্যালেঞ্জ ২০২২

ছবি

ইন্টার‌্যাক্টিভ গেমিং প্ল্যাটফর্ম “হাসিনা এন্ড ফ্রেন্ডস” উদ্বোধন

ছবি

শিশু-কিশোরদের জন্য ‘হাসিনা অ্যান্ড ফ্রেন্ডস’ প্ল্যাটফর্ম চালু

ছবি

শুরু হল ৫ম বাংলাদেশ রোবট অলিম্পিয়াডের রেজিস্ট্রেশন কার্যক্রম

ছবি

হুয়াওয়ে আইসিটি ইনকিউবেটরের চূড়ান্ত পর্বে ২০টি স্টার্টআপ

ছবি

নওগাঁ সরকারি কলেজে বিজ্ঞান মেলা, শিক্ষার্থীদের তৈরি উদ্ভাবনী যন্ত্র

ছবি

নতুন ১৫ ধরণের ক্লাউড সেবা নিয়ে আসছে হুয়াওয়ে

ছবি

বয়স মাত্র ২২, এক ভিডিওতে আয় ৮ কোটি টাকা

ছবি

বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির উন্নয়নে বঙ্গবন্ধুর ভাবনা বাস্তবায়ন করছেন শেখ হাসিনা: স্থপতি ইয়াফেস ওসমান

ছবি

৭১ মিলিয়ন ডলার জরিমানা গুগল-ফেসবুককে

ছবি

গোপনে কেউ আপনার হোয়াটসঅ্যাপ চ্যাট পড়ছে কিনা

ছবি

চতুর্থ শিল্প বিপ্লবঃ আওয়ামী লীগের আয়োজনে দুদিনের আন্তর্জাতিক সম্মেলন

ছবি

মঙ্গলবার থেকে মালয়েশিয়ার পেনাং এ শুরু হচ্ছে ডব্লিউসিআইটি ২০২২

ছবি

‘সাইবার সেন্টার ফর এক্সিলেন্স’ উন্নয়নে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিচ্ছে বাংলাদেশ: আইসিটি প্রতিমন্ত্রী

ছবি

টিকটক ব্যবহারকারীদের জন্যে দারুণ সুখবর

ছবি

উদীয়মান প্রযুক্তির উদ্যোগ নিয়ে ‘স্টার্ট করো’ শীর্ষক প্রতিযোগিতা

ছবি

ডিজিটাল ফিন্যান্সিয়াল ইকোসিস্টেম জোরদার করতে একসাথে কাজ করবে ইউএনডিপি ও ইউএনসিডিএফ

ছবি

দেশে ‘ডি ডস’ সাইবার হামলার বিষয়ে সতর্কতা জারি

ছবি

দেশের সেরা ডাটা সায়েন্টিস্ট ও ডাটা ইঞ্জিনিয়ারদের খুঁজে বের করল ডাটাথন ২.০

ছবি

আইক্যান বোর্ডে প্রথম বাংলাদেশি

পদ্মা সেতুর টোল প্লাজায় পিটিজেড ক্যামেরা, নজরদারি চলবে ৩ কিলোমিটার পর্যন্ত

ছবি

‘স্মার্ট সোসাইটি’ প্রকল্প বিষয়ে মতবিনিময়

ছবি

গ্রুপে ফোন নম্বর লুকিয়ে রাখতে দেবে হোয়াটসঅ্যাপ

ছবি

সাইবার দুনিয়ায় সুরক্ষিত রাখতে নারীদের ডিজিটাল লিটারেসি বিষয়ে প্রাথমিক ধারণা দিতে হবে: আইসিটি প্রতিমন্ত্রী পলক

ছবি

সিক্স-জি নিয়ে ভিভোর উদ্যোগ

ছবি

হুয়াওয়ে ক্লাউড ও ডিজিটাল পাওয়ার টিমে ৬০ জন তরুন বাংলাদেশী

ছবি

বাজারে গিগাবাইটের নকল পন্যের ব্যাপারে সচেতন হওয়ার আহ্বান

ছবি

ডিজিটাইলাইজেশনের আওতায় রুয়েট

ছবি

তথ্যপ্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান উইডেভস এ হঠাৎ করে ‘গণহারে‘ কর্মী ছাটাই

ছবি

বেড়ে গিয়েছে পৃথিবীর গতি! ২৪ ঘণ্টার কমেই সম্পূর্ণ হচ্ছে এক দিন

ছবি

টেলিটকের ফাইভ জি : ঢাকায় ২০২৫ এর শুরুতে মিলতে পারে সেবা

ছবি

বাংলা গবেষণা চৌর্যবৃত্তি নির্ণয়ে সহযোগী সফটওয়্যার উদ্ভাবন করলো ঢাবি

ছবি

তীব্র সমালোচনার মুখে পিছু হটলো ইনস্টাগ্রাম

ছবি

ডিজিটাল বাংলাদেশ বিষয়ক বেষ্ট রিপোর্টিং অ্যাওয়ার্ড প্রদান

tab

বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি

মোবাইল নেটওয়ার্ক ও ইন্টারনেটের ধীরগতি বিটিআরসিকে টিক্যাবের চিঠি

সংবাদ অনলাইন রিপোর্ট

মঙ্গলবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০২২

মোবাইল নেটওয়ার্কের দুর্বলতা ও ইন্টারনেটের ধীরগতি সমস্যার সমাধানে যথাযথ ব্যবস্থা নিতে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি) চেয়ারম্যানকে চিঠি দিয়েছে টেলি কনজ্যুমারস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (টিক্যাব)।

মঙ্গলবার (২০ সেপ্টেম্বর) সকালে টিক্যাবের আহ্বায়ক মুর্শিদুল হক স্বাক্ষরিত এ সম্পর্কিত একটি চিঠি বিটিআরসি চেয়ারম্যান শ্যাম সুন্দর সিকদারের ইমেইলে প্রেরণ করা হয়। এ চিঠির একটি অনুলিপি প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণে ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রী মোস্তফা জব্বারের ইমেইলেও প্রেরণ করে সংগঠনটি। টেলি কনজ্যুমারস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (টিক্যাব) এর পক্ষ থেকে গণমাধ্যমে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এই তথ্য জানানো হয়েছে।

চিঠিতে টিক্যাবের পক্ষ থেকে বলা হয়, ২০২১ সালের ডিসেম্বরে ওকলা প্রকাশিত ‘স্পিড টেস্ট গ্লোবাল ইনডেক্স’ প্রতিবেদনে মোবাইল ইন্টারনেটের গতির যে চিত্র উঠে এসেছে, তা বাংলাদেশের গ্রাহকদের জন্য সত্যিই হতাশাজনক। প্রতিবেদনে ১৩৮টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান ১২৮তম। সরকার বিগত বছরগুলোয় ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার যে প্রতিশ্রুতি দিয়েছে তার সঙ্গে এ প্রতিবেদন সাংঘর্ষিক। এ সময়ে মোবাইল ইন্টারনেট, ই—কমার্স, ই—পেপার, ই—এডুকেশন, ই—ব্যাংকিং, ই—বুক, ই—হেলথ সার্ভিস, ই—ফাইলিং, ই—ভোটিং ইত্যাদি ক্ষেত্রে কিছু অগ্রগতি হলেও অন্যান্য দেশের তুলনায় এখনো আমরা অনেকটাই পিছিয়ে আছি। অপরদিকে মোবাইল নেটওয়ার্কের দুর্বলতা নিয়ে গ্রাহক অভিযোগের শেষ নেই। অনেক ভবনে, চলন্ত গাড়িতে কিংবা প্রত্যন্ত অঞ্চলে নেটওয়ার্ক দুর্বলতা এখন ওপেন সিক্রেট। অনেক ক্ষেত্রে ৪জি—৩জি তো দূর, ২জি সেবা পান না গ্রাহকরা। টুজি গ্রাহক বিড়ম্বনায় এর সঙ্গে যোগ হয়েছে কলড্রপ ও কথোপকথনে অস্পষ্টতা। অথচ প্রতিটি সেকেন্ডের জন্য অপারেটরগুলো ঠিকই গ্রাহকদের ব্যালেন্স কেটে নিচ্ছে।

চিঠিতে আরও বলা হয়, তথ্যপ্রযুক্তির এ যুগে স্মার্টফোন ও ইন্টারনেট এখন কোনো বিলাসিতা নয়। বিশ্বের উন্মুক্ত জ্ঞানভাণ্ডারে প্রবেশের চাবিকাঠি হলো ইন্টারনেট। আর ইন্টারনেটের গতির সঙ্গে ওতপ্রোতভাবে জড়িত ডিজিটাল প্রযুক্তিনির্ভর সব কর্মকাণ্ড। বর্তমানে ব্যবসা—বাণিজ্য, শিক্ষা, স্বাস্থ্য, প্রশাসন, কৃষি, ব্যাংকিং ব্যবস্থা অনেক বেশি ডিজিটাল প্রযুক্তিনির্ভর। অনলাইনে পাঠদান, এমনকি টেলিমেডিসিন সেবা গ্রহণেও অনলাইন নির্ভরতা বেড়েছে। প্রযুক্তির সঙ্গে তাল মিলিয়ে মানবসম্পদ তৈরিতে উচ্চগতির ইন্টারনেট এখন একটি মৌলিক অনুষঙ্গ। বাংলাদেশে ইন্টারনেট সেবার মান নিয়ে গ্রাহকদের প্রশ্ন রয়েছে। নিরবচ্ছিন্ন গতিসম্পন্ন মোবাইল ইন্টারনেট সেবা অধিকাংশ ক্ষেত্রেই মেলে না। এজন্য মোবাইল অপারেটরদের পাশাপাশি বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনেরও (বিটিআরসি) দায়িত্ব রয়েছে। টিক্যাবের পক্ষ থেকে দাবি জানানো হলেও এখনো মোবাইল ইন্টারনেটের দাম বেঁধে দিতে পারেনি বিটিআরসি। গ্রাহকরা প্রতিনিয়তই মোবাইল নেটওয়ার্কের দুর্বলতা ও ধীরগতির ইন্টারনেট সেবা অনুভব করছেন। এ অবস্থা সরকারের ‘ডিজিটাল বাংলাদেশ’ নীতির সঙ্গে কোনোভাবেই সামঞ্জস্যপূর্ণ নয় বলে আমরা মনে করি।

টিক্যাব জানায়, গত ৫ বছরেও মোবাইল নেটওয়ার্ক ও ইন্টারনেটের মান ও গতির ক্ষেত্রে তেমন কোন পরিবর্তন আসেনি। অথচ অপারেটরগুলো উচ্চগতি ও উন্নত সেবার বিজ্ঞাপন প্রচার করে গ্রাহকদের বিভ্রান্ত করছে। মোবাইল অপারেটরগুলো তাদের বিভিন্ন প্যাকেজ ও সেবার লোভনীয় বিজ্ঞাপন প্রচারের ক্ষেত্রে প্রতি বছর শত শত কোটি টাকা খরচ করছে। অপারেটরগুলো যদি বিজ্ঞাপনের অর্থ মোবাইল নেটওয়ার্ক, ইন্টারনেটের গতি ও সেবার মান উন্নয়নে খরচ করতো, তাতে বরং গ্রাহকরা কিছুটা প্রতিকার পেত। মোবাইল অপারেটরগুলোর, ইন্টারনেটের গতি ও সেবার মান বাড়াতে যে পরিমাণ বেতার তরঙ্গ (স্পেকট্রাম) প্রয়োজন সেটি তাদের নেই। এ নিয়ে মোবাইল অপারেটর, ইন্টারনেট সার্ভিস প্রোভাইডার ও বিটিআরসির মধ্যে টানাপড়েন রয়েছে। বাংলাদেশে শহর এলাকায় জনঘনত্ব অত্যন্ত বেশি। গ্রাহক অনুপাতে অপারেটরদের কাছে যে পরিমাণ তরঙ্গ থাকা প্রয়োজন তা বাংলাদেশের অপারেটরদের কাছে নেই। ভালো সেবা দেওয়ার জন্য একেকটি অপারেটরের কাছে অন্তত ১০০ মেগাহার্টজ তরঙ্গ প্রয়োজন।

স্বল্প ব্যান্ডউইডথ দিয়ে সেবা দেওয়ায় নিরবচ্ছিন্ন সেবায় বিঘ্ন ঘটছে। সেবার মান বেঁধে দিয়ে বিটিআরসির দেওয়া বিধিমালা অপারেটর যথাযথভাবে অনুসরণ করে গ্রাহকদের সেবা দিচ্ছে কিনা, সেটা নিশ্চিত করা প্রয়োজন। পাশাপাশি বিটিআরসিকে ব্যবহারকারী বান্ধব ভূমিকাও পালন করতে অনুরোধ করছি। বিটিআরসি ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট সেবার দাম (ঊর্ধ্বসীমা) বেঁধে দিয়েছে। সিদ্ধান্ত অনুযায়ী সারাদেশে এক রেটে ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট সেবা পাবেন গ্রাহকরা। কিন্তু মোবাইল ইন্টারনেট গ্রাহকদের জন্য উদ্যোগটি নেওয়া হয়নি। বিটিআরসি ইন্টারনেটের কস্ট মডেলিংয়ের জন্য পরামর্শক নিয়োগ করলেও তা এখনো আলোর মুখ দেখেনি।

চিঠিতে মোবাইল নেটওয়ার্কের দুর্বলতা ও ইন্টারনেটের ধীরগতি সমস্যার সমাধানকল্পে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করতে বিটিআরসি চেয়ারম্যানকে গ্রাহকদের পক্ষ থেকে টিক্যাব বিশেষ ভাবে অনুরোধ জানায়।

back to top