alt

বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি

৩৮ বছর পর পৃথিবীতে ‘আছড়ে পড়ছে’ নাসার স্যাটেলাইট

সংবাদ অনলাইন রিপোর্ট : রোববার, ০৮ জানুয়ারী ২০২৩

কৃত্রিম উপগ্রহটি ‘আর্থ রেডিয়েশন বাজেট স্যাটেলাইট (ইআরবিএস)’নামে পরিচিত। স্পেস শাটল চ্যালেঞ্জারের মাধ্যমে ১৯৮৪ সালে এটি মহাকাশে পাঠানো হয়েছিল। প্রাথমিকভাবে ঠিক ছিল যে এটি মাত্র ২ বছর কাজ করবে। কিন্তু ২০০৫ সাল পর্যন্ত এটি ব্যবহার করতে সক্ষম হন বিজ্ঞানীরা।

৩৮ বছরের দীর্ঘ জীবন শেষ। অবশেষে পৃথিবীর বায়ুমণ্ডলে মিলিয়ে যেতে চলেছে নাসার এক কৃত্রিম উপগ্রহ। এতে ভয়ের কিছু নেই বলে জানিয়েছে, নাসা । এর বেশিরভাগটাই বায়ুমণ্ডলে পুনঃপ্রবেশের সময়েই পুড়ে যাবে। সামান্য কিছু টুকরো পড়ে থাকতে পারে। তবে তাই নিয়ে বিশেষ চিন্তার কিছু নেই। কৃত্রিম উপগ্রহটির মোট ওজন প্রায় ২,৪৫০ কিলোগ্রামবলে উঠে এসেছে ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম স্কাই নিউজের প্রতিবেদনে।

১৯৮৪ সালে ‘চ্যালেঞ্জার’ স্পেস শাটলের মাধ্যমে এটি মহাকাশে উৎক্ষেপিত হয়েছিল। প্রাথমিকভাবে, পৃথিবী কীভাবে সূর্য থেকে শক্তি শোষণ ও বিকিরণ করে তা নিয়ে গবেষণার উদ্দেশ্যে কেবল দুই বছরের জন্য নাসা একে মহাকাশে পাঠিয়েছিল।

নাসা বলেছে, পড়ন্ত এই স্যাটেলাইটের ধ্বংসাবশেষ কারও ওপর পড়ার সম্ভাবনা ‘খুবই কম’। এইসব ধ্বংসস্তুপ ভূপৃষ্ঠের কোনো জনগোষ্ঠির ওপর সরাসরি এসে পড়লেও এতে শারীরিক আঘাতের ঝুঁকি প্রায় ১০ হাজার ভাগের এক ভাগ।

তবে, পৃথিবীর আনুমানিক জনসংখ্যা আটশ কোটি হওয়ায় ১০ হাজার ভাগের এক ভাগও ছোট কোনো সংখ্যা নয়।

মার্কিন প্রতিরক্ষা বিভাগের তথ্য অনুযায়ী, ভূপৃষ্ঠে এটি আছড়ে পড়বে রোববার রাতে বা এর ১৭ ঘণ্টার মধ্যে।

তবে, ক্যালিফোর্নিয়া-ভিত্তিক অলাভজনক সংস্থা ‘অ্যারোস্পেস কর্পোরেশনের’ অনুমান বলছে, এটি ভূপৃষ্ঠে আছড়ে পড়তে পারে সোমবার সকালে বা এর ১৩ ঘণ্টার মধ্যে।

স্যাটেলাইটটি আফ্রিকা, এশিয়া, মধ্যপ্রাচ্য এবং উত্তর ও দক্ষিণ আমেরিকা মহাদেশের সবচেয়ে পশ্চিমাংশের ওপর দিয়ে অতিক্রম করতে পারে বলে প্রতিবেদনে উল্লেখ করেছে স্কাই।

মহাকাশযান চ্যালেঞ্জারের রোবটিক বাহুর সহায়তায় ‘ইআরবিএস’কে কক্ষপথে পাঠিয়েছিলেন মহাকাশে যাওয়া প্রথম মার্কিন নারী স্যালি রাইড।

রাইডের দ্বিতীয় ও সর্বশেষ মহাকাশ অভিযান ছিল এটি। ২০১২ সালে তিনি মারা যান। একই মিশনের অংশ ছিলেন ‘মহাকাশে হাটা’ প্রথম মার্কিন নারী নভোচারী ক্যাথরিন সালিভান।

ছবি

হুয়াওয়ের কাছে প্রযুক্তি রপ্তানি ‘পুরোপুরি বন্ধ’ যুক্তরাষ্ট্রের

ছবি

স্মার্ট সমাজ বিনির্মাণের বার্তা দিয়ে শেষ হলো ‘ডিজিটাল বাংলাদেশ মেলা’

ছবি

বিকাশের বিজ্ঞান উৎসবে ৩ হাজার শিক্ষার্থীর অংশগ্রহণ

ছবি

বাংলাদেশের অগ্রযাত্রা হলো একটি মহাসড়ক: মোস্তাফা জব্বার

ছবি

বিজয় কি-বোর্ড ব্যবহারকারীদের জন্য বাধ্যতামূলক নয়: মোস্তাফা জব্বার

ছবি

অর্থের বিনিময়ে বিজ্ঞাপনমুক্ত টুইটার অ্যাকাউন্টের ঘোষণা মাস্কের

ছবি

ছাঁটাই হওয়া কর্মীদের আবেগী চিঠি দিলেন পিচাই

ছবি

২৪তম আন্তর্জাতিক রোবট অলিম্পিয়াডে ১টি গোল্ডসহ বাংলাদেশের ১৩টি মেডেল অর্জন

ছবি

দেশে প্রথমবার দাগবিহীন থাইরয়েড সার্জারি করলেন ডা. মাহবুব

ছবি

মহামারির আশঙ্কা সবসময়, প্রস্তুত থাকতে হবে: অ্যাস্ট্রাজেনেকার সারাহ গিলবার্ট

ছবি

ঢাকায় ন্যাচারাল ল্যাঙ্গুয়েজ প্রসেসিং হ্যাকাথনের রেজিস্ট্রেশন চলছে

ছবি

টুইটারে প্রকাশ করা যাবে এক ঘন্টার ভিডিও

ছবি

টুইটারের সিইও পদ ছাড়ার ঘোষণা ইলন মাস্কের, তবে...

ছবি

ডাক্তারদের বাজে হাতের লেখা ‘পড়ে দেবে’ গুগল

ছবি

শিক্ষা-তথ্য-বিনোদন ভিত্তিক ওটিটি প্ল্যাটফর্ম তৈরিতে প্রতিযোগিতা

ছবি

নিউক্লিয়ার ফিউশনে শক্তি তৈরিতে যুক্তরাষ্ট্রে সাফল্য

ছবি

টুইটারে আজ ফিরছে নীল টিক, আবারও গুনতে হবে টাকা

ছবি

গুগল গাইডিং স্টার স্বীকৃতি পেলেন ৭ বাংলাদেশী

ছবি

নিরাপত্তা ঝুঁকিতে অ্যান্ড্রয়েডভিত্তিক স্মার্টফোন

ছবি

আইএসপিএবি-নিক্স এর আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু

ছবি

আলঝেইমার্সের নতুন ওষুধ জাগাচ্ছে আশার আলো

ছবি

কলম্বিয়ায় ১৯তম আন্তর্জাতিক জুনিয়র সায়েন্স অলিম্পিয়াডে যাচ্ছে বাংলাদেশ

ছবি

যুব প্রতিবন্ধীদের গ্লোবাল আইটি চ্যালেঞ্জ প্রতিযোগিতায় বাংলাদেশ থেকে তিন জন বিজয়ী

ছবি

বিশ্বব্যাংকের ‘গভটেক লিডারস’ তালিকায় বাংলাদেশ

ছবি

ওয়ার্ল্ড রোবট অলিম্পিয়াড এ বাংলাদেশের চমক

ছবি

টুইটারের ছাঁটাই হওয়া কর্মীদের চাকরি দিতে চায় ভারতের যে কোম্পানি

ছবি

ফেইসবুক প্রোফাইল থেকে বাদ পড়ছে ধর্ম ও রাজনৈতিক বিশ্বাস

ছবি

টুইটারের অফিস বন্ধ

ছবি

খনির কাজ সহজ করতে হুয়াওয়ের বিশেষ অপারেটিং সিস্টেম

ছবি

স্মার্টফোনের ইতিহাসে স্যামসাংয়ের ১০টি উদ্ভাবনী প্রযুক্তি

ছবি

মানবশরীরে ল্যাবে উৎপাদিত লোহিত রক্ত কণিকার যাত্রা শুরু, মেলেনি পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া

ছবি

টুইটারের পর ১১ হাজার কর্মী ছাঁটাই করছে ‘মেটা’

ছবি

৪৫তম আইসিপিসি ওয়ার্ল্ড ফাইনালে চারশ’রও বেশি প্রোগ্রামারের অংশগ্রহণ

ছবি

পূর্ণ চন্দ্রগ্রহণ আজ

ছবি

টেলিকম সেবা ‘নিশ্চিতে’ বিটিআরসিতে কোয়ালিটি অব সার্ভিস সিস্টেম উদ্বোধন

ছবি

টুইটারের বিকল্প হিসেবে মাস্টোডন’র দিকে ঝুঁকছেন গ্রাহকরা

tab

বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি

৩৮ বছর পর পৃথিবীতে ‘আছড়ে পড়ছে’ নাসার স্যাটেলাইট

সংবাদ অনলাইন রিপোর্ট

রোববার, ০৮ জানুয়ারী ২০২৩

কৃত্রিম উপগ্রহটি ‘আর্থ রেডিয়েশন বাজেট স্যাটেলাইট (ইআরবিএস)’নামে পরিচিত। স্পেস শাটল চ্যালেঞ্জারের মাধ্যমে ১৯৮৪ সালে এটি মহাকাশে পাঠানো হয়েছিল। প্রাথমিকভাবে ঠিক ছিল যে এটি মাত্র ২ বছর কাজ করবে। কিন্তু ২০০৫ সাল পর্যন্ত এটি ব্যবহার করতে সক্ষম হন বিজ্ঞানীরা।

৩৮ বছরের দীর্ঘ জীবন শেষ। অবশেষে পৃথিবীর বায়ুমণ্ডলে মিলিয়ে যেতে চলেছে নাসার এক কৃত্রিম উপগ্রহ। এতে ভয়ের কিছু নেই বলে জানিয়েছে, নাসা । এর বেশিরভাগটাই বায়ুমণ্ডলে পুনঃপ্রবেশের সময়েই পুড়ে যাবে। সামান্য কিছু টুকরো পড়ে থাকতে পারে। তবে তাই নিয়ে বিশেষ চিন্তার কিছু নেই। কৃত্রিম উপগ্রহটির মোট ওজন প্রায় ২,৪৫০ কিলোগ্রামবলে উঠে এসেছে ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম স্কাই নিউজের প্রতিবেদনে।

১৯৮৪ সালে ‘চ্যালেঞ্জার’ স্পেস শাটলের মাধ্যমে এটি মহাকাশে উৎক্ষেপিত হয়েছিল। প্রাথমিকভাবে, পৃথিবী কীভাবে সূর্য থেকে শক্তি শোষণ ও বিকিরণ করে তা নিয়ে গবেষণার উদ্দেশ্যে কেবল দুই বছরের জন্য নাসা একে মহাকাশে পাঠিয়েছিল।

নাসা বলেছে, পড়ন্ত এই স্যাটেলাইটের ধ্বংসাবশেষ কারও ওপর পড়ার সম্ভাবনা ‘খুবই কম’। এইসব ধ্বংসস্তুপ ভূপৃষ্ঠের কোনো জনগোষ্ঠির ওপর সরাসরি এসে পড়লেও এতে শারীরিক আঘাতের ঝুঁকি প্রায় ১০ হাজার ভাগের এক ভাগ।

তবে, পৃথিবীর আনুমানিক জনসংখ্যা আটশ কোটি হওয়ায় ১০ হাজার ভাগের এক ভাগও ছোট কোনো সংখ্যা নয়।

মার্কিন প্রতিরক্ষা বিভাগের তথ্য অনুযায়ী, ভূপৃষ্ঠে এটি আছড়ে পড়বে রোববার রাতে বা এর ১৭ ঘণ্টার মধ্যে।

তবে, ক্যালিফোর্নিয়া-ভিত্তিক অলাভজনক সংস্থা ‘অ্যারোস্পেস কর্পোরেশনের’ অনুমান বলছে, এটি ভূপৃষ্ঠে আছড়ে পড়তে পারে সোমবার সকালে বা এর ১৩ ঘণ্টার মধ্যে।

স্যাটেলাইটটি আফ্রিকা, এশিয়া, মধ্যপ্রাচ্য এবং উত্তর ও দক্ষিণ আমেরিকা মহাদেশের সবচেয়ে পশ্চিমাংশের ওপর দিয়ে অতিক্রম করতে পারে বলে প্রতিবেদনে উল্লেখ করেছে স্কাই।

মহাকাশযান চ্যালেঞ্জারের রোবটিক বাহুর সহায়তায় ‘ইআরবিএস’কে কক্ষপথে পাঠিয়েছিলেন মহাকাশে যাওয়া প্রথম মার্কিন নারী স্যালি রাইড।

রাইডের দ্বিতীয় ও সর্বশেষ মহাকাশ অভিযান ছিল এটি। ২০১২ সালে তিনি মারা যান। একই মিশনের অংশ ছিলেন ‘মহাকাশে হাটা’ প্রথম মার্কিন নারী নভোচারী ক্যাথরিন সালিভান।

back to top