alt

জাতীয়

এখনো অস্থির কাঁচাবাজার, আগের অবস্থানে চাল-মাছ-মাংস

সংবাদ অনলাইন ডেস্ক : শুক্রবার, ৩০ অক্টোবর ২০২০
image

কেজি প্রতি দুই-এক টাকা ওঠানামা করলেও মিনিকেটসহ মোটা চালের দাম অনেকটা আগের অবস্থাতেই আছে। তিন সপ্তাহ ধরে চলতে থাকা সবজির বাজারও আছে অস্থির অবস্থানেই। পাইকারি বাজারে দাম কিছুটা কমলেও এর প্রভাব পড়েনি খুচরা বাজারে। পেঁপে ছাড়া ৫০ টাকার কমে মিলছে না কোনো সবজি৷ আবার সরকারের বেঁধে দেওয়া দাম মানা হচ্ছে না আলুর বাজারে। সরবরাহের ঘাটতির অজুহাতে প্রতি কেজি আলুর জন্য নির্ধারিত দামের চেয়ে ১০ টাকা বেশি গুণতে হচ্ছে।

বৃহস্পতিবার দিবাগত রাতে রাজধানীর কারওয়ানবাজারের পাইকারি সবজির বাজার এবং শুক্রবার মোহাম্মদপুর কৃষি মার্কেট, টাউনহল বাজার, শিয়া মসজিদ বাজার, খিলগাঁও বাজার এবং ভ্রাম্যমাণ সবজি বিক্রেতাদের সঙ্গে কথা বলে এসব তথ্য পাওয়া গেছে।

বিক্রেতাদের দাবি, পাইকারি বাজারে সবজির দাম বেশি থাকায় খুচরা বাজারে দাম কমছে না। শীতের সবজি পুরোপুরি বাজারে আসলে দাম কমার সম্ভাবনা রয়েছে জানান বিক্রেতারা।

বাজার ঘুরে দেখা যায়, প্রতি কেজি কাঁচা মরিচ বিক্রি হচ্ছে ২০০ টাকায়, টমেটো ১০০ টাকা, বরবটি ৮০ টাকা কেজি, করোল্লা ৬০ টাকা, ঝিঙা ৫০ টাকা, লাউ ৫০ টাকা প্রতি পিস, পটল ৫০ টাকা কেজি, চিচিঙ্গা ৫০ টাকা, ধুন্দল ৬০ টাকা কেজি।

এছাড়া ঢেড়স ৭০-৮০ টাকা কেজি, বেগুন (লম্বা) ৬০ টাকা কেজি, চাল কুমড়া ৪০ টাকা পিছ, ক্যাপসিকাম ৪০০ টাকা কেজি, কচুর মুখি ৫০ টাকা কেজি, লেবু (কলম্ব) ২০ টাকা হালি, কচু লতি ৬০ টাকা কেজি, মূলা ৬০ টাকা এবং পেঁপে ৪০ টাকা কেজি, ফুলকপি ৫০ টাকা এবং বাঁধাকপি ৪০ থেকে ৫০ টাকা পিস বিক্রি হচ্ছে।

রাজধানীর খুচরা বাজারে বিক্রি হওয়া সবজির পাইকারি বাজার কারওয়ানবাজার এবং কলাতিয়া। কারওয়ান বাজার থেকে রাজধানীর খুচরা বাজারে সবজি আসে। একই জায়গা থেকে সবজি এনে বিক্রি করেন নগরের ভ্রাম্যমাণ সবজি বিক্রেতারা। দোকান ভাড়া, কর্মচারী এবং অন্যান্য খরচ না থাকায় বাজারের তুলনায় এসব ভ্রাম্যমাণ দোকানে সবজির দাম বরাবরই কম।

কয়েকটি ভ্রাম্যমাণ সবজির দোকান ঘুরে দেখা যায়, এসব দোকানে করল্লা প্রতি কেজি ৭৫-৮০ টাকা, গাজর ৯০ টাকা, শসা ৭০ টাকা, বেগুন (গোল) ৭০ টাকা, চাল কুমড়া ৪০ টাকা পিস, ফুলকপি ৩০-৩৫ টাকা পিস, মিষ্টি কুমড়া প্রতি ফালি ২৫ টাকা, কাঁচা মরিচ ২০০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।

এছাড়া কাঁচা কলা ৩৫ টাকা হালি, পেঁপে ৪০ টাকা কেজি, ঝিঙা ৬০ টাকা, পটল ৬০ টাকা, ধনিয়া পাতা ২৫০ টাকা কেজি, লেবু (কলম্ব) হালি ২৫ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।

এদিকে বৃহস্পতিবার দিবাগত রাতে কারওয়ান বাজারের পাইকারি বাজার ঘুরে দেখা যায়, এক পাল্লা (পাঁচ কেজি) করল্লা ৩০০-৩২০ টাকা, গাজর ৩২০ টাকা পাল্লা, শসা ২৬০ টাকা পাল্লা, বেগুন (গোল) ৩০০ টাকা পাল্লা, চাল কুমড়া কুড়ি (২০ পিস) ৭০০ টাকা, ফুলকপি কুড়ি ৫০০-৫২০ টাকা, মিষ্টি কুমড়া প্রতি কেজি ৩০ টাকা, কাঁচা মরিচ ৮০০ টাকা পাল্লা, কাঁচা কলা ১৮-২০ টাকা হালি, পেঁপে ২৮ টাকা কেজি, ঝিঙা ২৩০ টাকা পাল্লা, পটল ২৭০ টাকা পাল্লা, ধনিয়া পাতা ১৮০ টাকা কেজি, লেবু (কলম্ব) শ (১০০ পিস) ৩৫০ টাকা দরে পাইকারি বাজারে বিক্রি হচ্ছে। যা গত সপ্তাহের তুলনায় কিছুটা কম।

গত সপ্তাহে প্রতি কেজি আলুর দাম ৩৫ টাকা দাম নির্ধারণ করে দিয়েছে সরকার। কিন্তু এ সপ্তাহেও ৪৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে আলু। এছাড়া দেশি পেঁয়াজ প্রতি কেজি ৯০ টাকা, ভারতীয় পেঁয়াজ ৮০ টাকা, দেশি আদা ১৪০ টাকা, চায়না আদা প্রতি কেজি ২৮০ টাকা এবং রসুন ১২০ টাকা বিক্রি হতে দেখা গেছে।

মাংসের বাজারে দাম ওঠানামার চিত্র পাওয়া যায়নি। গত সপ্তাহের মতো এ সপ্তাহেও গরুর মাংস প্রতি কেজি ৫৭০ থেকে ৬০০ টাকা কেজি৷ ব্রয়লার মুরগি ১২৫ থেকে ১৩০ টাকা এবং প্রতি কেজি সোনালি মুরগি ২২০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

একই অবস্থা মাছের বাজারেও। বাজার ঘুরে দেখা যায়, প্রতি কেজি রুই মাছ ৩৫০ টাকা, কাতল ৪০০ টাকা, চাষ করা পাঙ্গাস মাছ ১৬০ টাকা কেজি, নদীর পাঙ্গাস ৩৫০ টাকা কেজি, চাষের কৈ ২০০ টাকা, নদীর কৈ ৪০০ টাকা, আইড় মাছ ৭০০ টাকা কেজি, চিংড়ি মাছ ৭০০ টাকা, কাচকি ৩৫০ টাকা, শিং ৪০০ টাকা, রূপচাঁদা মাছ ৭০০ এবং রিটা মাছ ২৫০ থেকে ৩০০ টাকা প্রতি কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।

কেজি প্রতি দুই-এক টাকা ওঠানামা করলেও আগের অবস্থাতেই আছে চালের বাজার। প্রকার ভেদে মিনিকেট বিক্রি হচ্ছে ৫৫ থেকে ৫৬ টাকার মধ্যে, আটাশ চাল ৪৮ টাকা, গুটি চাল ৪৫ থেকে ৪৬ টাকা, নাজিরসাইল প্রকারভেদে ৫২ থেকে ৬০ টাকা এবং আতব চাল প্রতি কেজি ৪৪ থেকে ৪৫ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।

ছবি

মাদক নিলে সরকারি চাকরি হবে না

ছবি

অতি উচ্চ সংক্রমণ ঝুঁকিতে ৪০ জেলা

ছবি

১৪ দিন শাটডাউনের সুপারিশ জাতীয় কমিটির

ছবি

লকডাউনেও ৭ জেলায় বেড়েছে সংক্রমণ

উদ্যানের প্রকল্পে সংশোধনের সুযোগ নেই : মন্ত্রী

ছবি

কর্মচারীদের চাকুরী নিয়োগ ও নিয়মিত করণ সিন্ডিকেটে বাতিল

ছবি

তবুও ঢাকায় ঢুকছে মানুষ

ছবি

যেকোনো সময় শাটডাউনের ঘোষণা আসতে পারে

ছবি

চতুর্থ ধাপে ২৯৭৩ জন মুক্তিযোদ্ধার নামের সমন্বিত তালিকা প্রকাশ

ছবি

দেশজুড়ে ১৪ দিনের শাটডাউনের সুপারিশ কারিগরি পরামর্শক কমিটির

ছবি

দেশে ৭১ দিনের মধ্যে সর্বোচ্চ শনাক্ত, মৃত্যু ৮১

ছবি

অস্তিত্বহীন মামলা: বাদীর পরিচয় নিশ্চিতে ৫ দফা হাইকোর্টের

ছবি

রুট পারমিট ছাড়া ঢাকায় চলবে না কোনো বাস

ওয়াসাকে পানির দাম বাড়ানোর প্রতিবাদে স্মারকলিপি দিল বিএনপি

ছবি

ট্রেনের অগ্রিম টিকিটের মূল্য ফেরত নিয়ে বিড়ম্বনায় যাত্রীরা

ছবি

সেনাপ্রধানের দায়িত্ব নিলেন জেনারেল শফিউদ্দিন

ছবি

পরীক্ষামূলক প্রয়োগের অনুমতি পেল চীনা টিকা

ছবি

সৌদিফেরতদের কোয়ারেন্টাইন খরচ দেয়া শুরু আজ

ছবি

স্বাস্থ্যবিধি না মানলে পরিস্থিতি 'শোচনীয়' হতে পারে, আশঙ্কা অধিদপ্তরের

ছবি

রোহিঙ্গাদের অনির্দিষ্টকালের জন্য আশ্রয় দেওয়া সম্ভব নয়: প্রধানমন্ত্রী

ছবি

দেশে ৫৪ দিন পর সর্বোচ্চ মৃত্যু, শনাক্ত সাড়ে ৫ হাজার ছাড়াল

ছবি

খুলনায় একদিনে রেকর্ড ৩২ জনের মৃত্যু

ছবি

স্বরাস্ট্র মন্ত্রণালয়ে এনআইডি সেবা নিয়ে কোনো জটিলতা হবে না : স্বরাস্ট্রমন্ত্রী

ছবি

ইসি থেকে এনআইডি সরলে ভোট পরিচালনায় অসুবিধা হবে: সিইসি

ছবি

টিকা কিনতে ৯৪ কোটি ডলার ঋণ দিচ্ছে এডিবি

ছবি

শুধু আশ্বাস দিচ্ছে, কবে পাব বলতে পারছি না

ছবি

বন্ধু দুই মন্ত্রী সিলেটের উন্নয়ন এবং ফেইসবুক স্ট্যাটাস

ছবি

বাসের পর ঢাকার সঙ্গে সারা দেশের রেল যোগাযোগও বন্ধ

ছবি

দেশে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বেড়েছে, মৃত্যু ৭৬ জনের

ছবি

প্রবাসী নাগরিকরা নিরাপত্তার জন্য বন্দুক নিয়ে দেশে আসতে চান: ড. মোমেন

ছবি

দেশে মিলেছে করোনার অ্যান্টিবডি

ছবি

দুর্নীতির কারণে বিদ্যুতের দাম আড়াই গুণ বেশি

ছবি

করোনা ও উপসর্গে রামেক হাসপাতালে আরও ১৩ প্রাণহানি

ছবি

ফাইজারের টিকা দেয়া শুরু, তবে পরীক্ষামূলক

ছবি

সাত জেলায় কঠোর বিধিনিষেধ: বিচ্ছিন্ন হচ্ছে ঢাকা

ছবি

দেশে করোনায় আরও ৭৮ জনের মৃত্যু, শনাক্তের হার ১৯.২৭

tab

জাতীয়

এখনো অস্থির কাঁচাবাজার, আগের অবস্থানে চাল-মাছ-মাংস

সংবাদ অনলাইন ডেস্ক
image

শুক্রবার, ৩০ অক্টোবর ২০২০

কেজি প্রতি দুই-এক টাকা ওঠানামা করলেও মিনিকেটসহ মোটা চালের দাম অনেকটা আগের অবস্থাতেই আছে। তিন সপ্তাহ ধরে চলতে থাকা সবজির বাজারও আছে অস্থির অবস্থানেই। পাইকারি বাজারে দাম কিছুটা কমলেও এর প্রভাব পড়েনি খুচরা বাজারে। পেঁপে ছাড়া ৫০ টাকার কমে মিলছে না কোনো সবজি৷ আবার সরকারের বেঁধে দেওয়া দাম মানা হচ্ছে না আলুর বাজারে। সরবরাহের ঘাটতির অজুহাতে প্রতি কেজি আলুর জন্য নির্ধারিত দামের চেয়ে ১০ টাকা বেশি গুণতে হচ্ছে।

বৃহস্পতিবার দিবাগত রাতে রাজধানীর কারওয়ানবাজারের পাইকারি সবজির বাজার এবং শুক্রবার মোহাম্মদপুর কৃষি মার্কেট, টাউনহল বাজার, শিয়া মসজিদ বাজার, খিলগাঁও বাজার এবং ভ্রাম্যমাণ সবজি বিক্রেতাদের সঙ্গে কথা বলে এসব তথ্য পাওয়া গেছে।

বিক্রেতাদের দাবি, পাইকারি বাজারে সবজির দাম বেশি থাকায় খুচরা বাজারে দাম কমছে না। শীতের সবজি পুরোপুরি বাজারে আসলে দাম কমার সম্ভাবনা রয়েছে জানান বিক্রেতারা।

বাজার ঘুরে দেখা যায়, প্রতি কেজি কাঁচা মরিচ বিক্রি হচ্ছে ২০০ টাকায়, টমেটো ১০০ টাকা, বরবটি ৮০ টাকা কেজি, করোল্লা ৬০ টাকা, ঝিঙা ৫০ টাকা, লাউ ৫০ টাকা প্রতি পিস, পটল ৫০ টাকা কেজি, চিচিঙ্গা ৫০ টাকা, ধুন্দল ৬০ টাকা কেজি।

এছাড়া ঢেড়স ৭০-৮০ টাকা কেজি, বেগুন (লম্বা) ৬০ টাকা কেজি, চাল কুমড়া ৪০ টাকা পিছ, ক্যাপসিকাম ৪০০ টাকা কেজি, কচুর মুখি ৫০ টাকা কেজি, লেবু (কলম্ব) ২০ টাকা হালি, কচু লতি ৬০ টাকা কেজি, মূলা ৬০ টাকা এবং পেঁপে ৪০ টাকা কেজি, ফুলকপি ৫০ টাকা এবং বাঁধাকপি ৪০ থেকে ৫০ টাকা পিস বিক্রি হচ্ছে।

রাজধানীর খুচরা বাজারে বিক্রি হওয়া সবজির পাইকারি বাজার কারওয়ানবাজার এবং কলাতিয়া। কারওয়ান বাজার থেকে রাজধানীর খুচরা বাজারে সবজি আসে। একই জায়গা থেকে সবজি এনে বিক্রি করেন নগরের ভ্রাম্যমাণ সবজি বিক্রেতারা। দোকান ভাড়া, কর্মচারী এবং অন্যান্য খরচ না থাকায় বাজারের তুলনায় এসব ভ্রাম্যমাণ দোকানে সবজির দাম বরাবরই কম।

কয়েকটি ভ্রাম্যমাণ সবজির দোকান ঘুরে দেখা যায়, এসব দোকানে করল্লা প্রতি কেজি ৭৫-৮০ টাকা, গাজর ৯০ টাকা, শসা ৭০ টাকা, বেগুন (গোল) ৭০ টাকা, চাল কুমড়া ৪০ টাকা পিস, ফুলকপি ৩০-৩৫ টাকা পিস, মিষ্টি কুমড়া প্রতি ফালি ২৫ টাকা, কাঁচা মরিচ ২০০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।

এছাড়া কাঁচা কলা ৩৫ টাকা হালি, পেঁপে ৪০ টাকা কেজি, ঝিঙা ৬০ টাকা, পটল ৬০ টাকা, ধনিয়া পাতা ২৫০ টাকা কেজি, লেবু (কলম্ব) হালি ২৫ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।

এদিকে বৃহস্পতিবার দিবাগত রাতে কারওয়ান বাজারের পাইকারি বাজার ঘুরে দেখা যায়, এক পাল্লা (পাঁচ কেজি) করল্লা ৩০০-৩২০ টাকা, গাজর ৩২০ টাকা পাল্লা, শসা ২৬০ টাকা পাল্লা, বেগুন (গোল) ৩০০ টাকা পাল্লা, চাল কুমড়া কুড়ি (২০ পিস) ৭০০ টাকা, ফুলকপি কুড়ি ৫০০-৫২০ টাকা, মিষ্টি কুমড়া প্রতি কেজি ৩০ টাকা, কাঁচা মরিচ ৮০০ টাকা পাল্লা, কাঁচা কলা ১৮-২০ টাকা হালি, পেঁপে ২৮ টাকা কেজি, ঝিঙা ২৩০ টাকা পাল্লা, পটল ২৭০ টাকা পাল্লা, ধনিয়া পাতা ১৮০ টাকা কেজি, লেবু (কলম্ব) শ (১০০ পিস) ৩৫০ টাকা দরে পাইকারি বাজারে বিক্রি হচ্ছে। যা গত সপ্তাহের তুলনায় কিছুটা কম।

গত সপ্তাহে প্রতি কেজি আলুর দাম ৩৫ টাকা দাম নির্ধারণ করে দিয়েছে সরকার। কিন্তু এ সপ্তাহেও ৪৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে আলু। এছাড়া দেশি পেঁয়াজ প্রতি কেজি ৯০ টাকা, ভারতীয় পেঁয়াজ ৮০ টাকা, দেশি আদা ১৪০ টাকা, চায়না আদা প্রতি কেজি ২৮০ টাকা এবং রসুন ১২০ টাকা বিক্রি হতে দেখা গেছে।

মাংসের বাজারে দাম ওঠানামার চিত্র পাওয়া যায়নি। গত সপ্তাহের মতো এ সপ্তাহেও গরুর মাংস প্রতি কেজি ৫৭০ থেকে ৬০০ টাকা কেজি৷ ব্রয়লার মুরগি ১২৫ থেকে ১৩০ টাকা এবং প্রতি কেজি সোনালি মুরগি ২২০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

একই অবস্থা মাছের বাজারেও। বাজার ঘুরে দেখা যায়, প্রতি কেজি রুই মাছ ৩৫০ টাকা, কাতল ৪০০ টাকা, চাষ করা পাঙ্গাস মাছ ১৬০ টাকা কেজি, নদীর পাঙ্গাস ৩৫০ টাকা কেজি, চাষের কৈ ২০০ টাকা, নদীর কৈ ৪০০ টাকা, আইড় মাছ ৭০০ টাকা কেজি, চিংড়ি মাছ ৭০০ টাকা, কাচকি ৩৫০ টাকা, শিং ৪০০ টাকা, রূপচাঁদা মাছ ৭০০ এবং রিটা মাছ ২৫০ থেকে ৩০০ টাকা প্রতি কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।

কেজি প্রতি দুই-এক টাকা ওঠানামা করলেও আগের অবস্থাতেই আছে চালের বাজার। প্রকার ভেদে মিনিকেট বিক্রি হচ্ছে ৫৫ থেকে ৫৬ টাকার মধ্যে, আটাশ চাল ৪৮ টাকা, গুটি চাল ৪৫ থেকে ৪৬ টাকা, নাজিরসাইল প্রকারভেদে ৫২ থেকে ৬০ টাকা এবং আতব চাল প্রতি কেজি ৪৪ থেকে ৪৫ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।

back to top