alt

জাতীয়

চেম্বার ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারে অ্যানেসথেসিয়া দেয়া যাবে না

মাসুদ রানা : বৃহস্পতিবার, ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

কোনো অবস্থাতেই নিবন্ধিত হাসপাতাল ও ক্লিনিক ছাড়া চেম্বারে অথবা ডায়াগনস্টিক সেন্টারে অ্যানেসথেসিয়া দেয়া যাবে না। বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যান্ড ডেন্টাল কাউন্সিল (বিএমডিসি) স্বীকৃত বিশেষজ্ঞ অবেদনবিদ (অ্যানেসথেটিস্ট) ছাড়া যেকোনো ধরনের অস্ত্রোপচার করা যাবে না। বৃহস্পতিবার (২২ ফেব্রুয়ারি) স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের জারি করা এক অফিস আদেশে এসব বিষয় উল্লেখ করা হয়েছে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হাসপাতাল ও ক্লিনিক শাখার পরিচালক (অতিরিক্ত দায়িত্ব) আবু হোসেন মো. মঈনুল আহসান সেই অফিস আদেশ সই করেন। তাতে মোট ১০টি নির্দেশনা বা শর্ত জারি করা হয়েছে। এর ব্যত্যয় হলে লাইসেন্স বাতিলসহ কঠোর শাস্তির মুখোমুখি হতে হবে। অফিস আদেশে বলা হয়েছে, ‘বেসরকারি হাসপাতাল, ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টার পরিচালনার ক্ষেত্রে এসব শর্তাবলি আবশ্যিকভাবে প্রতিপালনের জন্য নির্দেশ প্রদান করা হলো।’

এদিকে বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এর প্রধান কারণ অ্যানেসথেসিওলজিস্টদের দক্ষতার অভাব। এছাড়া অ্যানেসথেসিয়ার আগে ঠিকমতো রোগীর স্বাস্থ্য পরীক্ষা না করা এবং অপারেশন পরবর্তী জটিলতা মোকাবিলার সক্ষমতা না থাকাও মৃত্যুর অন্যতম কারণ বলছেন তারা।

বেসরকারি হাসপাতাল, ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টার পরিচালনার ক্ষেত্রে ১০টি শর্ত আবশ্যিকভাবে প্রতিপালনের নির্দেশনা জারি করেছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর।

সেগুলো হচ্ছে : বেসরকারি ক্লিনিক/হাসপাতাল ও ডায়াগনস্টিকের লাইসেন্সের কপি ওই প্রতিষ্ঠানের মূল প্রবেশপথের সামনে দৃশ্যমান স্থানে অবশ্যই স্থায়ীভাবে প্রদর্শন করতে হবে।

সব বেসরকারি স্বাস্থ্যসেবা প্রতিষ্ঠানের ক্ষেত্রে ওই প্রতিষ্ঠানের যাবতীয় তথ্য সংরক্ষণ ও সরবরাহের জন্য একজন নির্ধারিত দায়িত্বপ্রাপ্ত তথ্য কর্মকর্তা বা কর্মচারী থাকতে হবে এবং তার ছবি ও মোবাইল নম্বর দৃশ্যমান স্থানে প্রদর্শন করতে হবে।

যেসব প্রতিষ্ঠানের নাম ডায়াগনস্টিক ও হাসপাতাল হিসেবে আছে কিন্তু শুধু ডায়াগনস্টিক অথবা হাসপাতালের লাইসেন্স রয়েছে, তারা লাইসেন্সপ্রাপ্ত ছাড়া কোনোভাবেই নামে উল্লেখিত সেবা দিতে পারবে না।

ডায়াগনস্টিক সেন্টার/প্যাথলজিক্যাল ল্যাবরেটরির ক্ষেত্রে যে ক্যাটারগরিতে লাইসেন্সপ্রাপ্ত, শুধু সে ক্যাটাগরিতে নির্ধারিত পরীক্ষা-নিরীক্ষা ব্যতীত কোনোভাবেই অন্যান্য পরীক্ষা-নিরীক্ষা করা যাবে না। ক্যাটাগরি অনুযায়ী প্যাথলজি/মাইক্রোবায়োলজি, বায়োকেমিস্ট্রি ও রেডিওলজি বিশেষজ্ঞ নিয়োগ করতে হবে। ৫. বেসরকারি ক্লিনিক/হাসপাতালের ক্ষেত্রে লাইসেন্সের প্রকারভেদ ও শয্যাসংখ্যা অনুযায়ী সব শর্ত বাধ্যতামূলকভাবে বাস্তবায়ন করতে হবে।

হাসপাতাল/ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারে নিয়োজিত সব চিকিৎসকের পেশাগত ডিগ্রির সনদগুলো, বিএমডিসির হালনাগাদ নিবন্ধন ও নিয়োগপত্রের কপি অবশ্যই সংরক্ষণ করতে হবে।

হাসপাতাল/ক্লিনিকের ক্ষেত্রে যেকোনো ধরনের অপারেশন/সার্জারি/প্রসিডিউরের জন্য অবশ্যই রেজিস্টার্ড চিকিৎসককে সার্জনের সহকারী হিসেবে রাখতে হবে।

কোনো অবস্থাতেই লাইসেন্সপ্রাপ্ত/নিবন্ধিত হাসপাতাল ও ক্লিনিক ছাড়া চেম্বারে অথবা ডায়াগনস্টিক সেন্টারে অ্যানেসথেসিয়া দেয়া যাবে না। বিএমডিসি (বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যান্ড ডেন্টাল কাউন্সিল) স্বীকৃত বিশেষজ্ঞ অবেদনবিদ ছাড়া যেকোনো ধরনের অপারেশন/সার্জারি সব বেসরকারি নিবন্ধিত লাইসেন্সপ্রাপ্ত হাসপাতাল/ক্লিনিকে লেবার রুম প্রটোকল অবশ্যই মেনে চলতে হবে।

নিবন্ধিত/লাইসেন্সপ্রাপ্ত হাসপাতাল/ক্লিনিকে অপারেশন থিয়েটারে অবশ্যই অপারেশন থিয়েটার এটিকেট (শিষ্টাচার) মেনে চলতে হবে।

এদিকে গত বছরের নভেম্বরে রাজধানীর নয়াবাজার এলাকায় মেডিপ্যাথ হাসপাতালে মেয়ে ফাতেমার (১২) নাকের পলিপ অপারেশন করাতে নিয়ে যান তার মা। কিন্তু পলিপ অপারেশন করতে গিয়ে মৃত্যু হয় ফাতেমার। ফাতেমার মায়ের অভিযোগ, মেয়েকে সুস্থ, স্বাভাবিকভাবে তিনি হাসপাতালে নিয়ে যান। তার মেয়ে কোনো অসুস্থ রোগী ছিল না। ফাতেমা তার সঙ্গে হেঁটে হাসপাতালে যায়।

এরপর গত ৩১ ডিসেম্বর খৎনার জন্য রাজধানীর বাড্ডার ইউনাইটেড মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে শিশু আয়ানকে নিয়ে যায় তার অভিভাবক। সকাল ৯টার দিকে শিশুটিকে অ্যানেসথেসিয়া দেয়া হয়। তবে অনুমতি ছাড়াই ‘ফুল অ্যানেসথেসিয়া’ (জেনারেল) দিয়ে চিকিৎসক আয়ানের খৎনা করান বলে অভিযোগ করা হয়। পরে জ্ঞান না ফেরায় তাকে গুলশানে ইউনাইটেড হাসপাতালে পাঠানো হয়। সেখানে তাকে লাইফ সাপোর্টে রাখা হয়। এরপর ৭ জানুয়ারি মধ্যরাতে চিকিৎসক আয়ানকে মৃত ঘোষণা করে।

গত ১৫ ফেব্রুয়ারি রাজধানীর ধানমন্ডির বেসরকারি ল্যাব এইড হাসপাতালে পেটে গ্যাসের সমস্যায় এন্ডোস্কপি করাতে গিয়ে কার্ডিয়াক অ্যারেস্টে রাহিব রেজা নামে এক যুবকের মৃত্যু হয়েছে। স্বজনদের অভিযোগ, ল্যাব এইড হাসপাতালে পরীক্ষার রিপোর্ট না দেখেই রাহিব রেজাকে অ্যানেসথেসিয়া প্রয়োগ করা হয়। শারীরিক জটিলতার মধ্যেই এন্ডোস্কপি করা হয়। যে কারণে তার কার্ডিয়াক অ্যারেস্ট হয় এবং একপর্যায়ে শারীরিক অবস্থা আরও জটিল হয়। তিন দিন চিকিৎসাধীন থাকার পর ১৯ ফেব্রুয়ারি তিনি মারা যান।

সর্বশেষ গত মঙ্গলবার মালিবাগের জেএস ডায়াগনস্টিক সেন্টারে খৎনা করাতে গিয়ে প্রাণ যায় আরেক শিশু আয়হামের। এ তিন ঘটনাতেই অ্যানেসথেসিয়া দেয়ার পর আর জ্ঞান ফেরেনি শিশুদের। খৎনা বা নাকের পলিপ অপারেশনের মতো ছোট সার্জারিতেও রোগীর মৃত্যু থামছেই না।

সোসাইটি অব অ্যানেসথিওলজিস্ট ক্রিটিক্যাল কেয়ার অ্যান্ড পেইন মেডিসিনের মহাসচিব অধ্যাপক ডা. কাওছার সরদার বলেন, ‘কতটুকু ঝুঁকি আছে সেটি নির্ণয়ের জন্য হার্ট, ফুসফুসসহ শরীরের অন্য অবস্থা কী সেটি অ্যাসেস করে একটি প্রি-অ্যানেস্থেটিক চেকআপ করাতে হয়। কিন্তু পেরিফেরাল যেসব ক্লিনিক আছে সেগুলোতে এই হার শূন্য।’ ওয়ার্ল্ড ফেডারেশন অব সোসাইটিস অব অ্যানেসথেসিওলজিস্টের মতে, প্রতি লাখ মানুষের জন্য অ্যানেসথিওলজিস্ট প্রয়োজন ৫ জন। কিন্তু দেশে অ্যানেসথিওলজিস্ট আছে দুই হাজারের কিছু বেশি, যা খুবই অপ্রতুল। ডা. কাওছার সরদার বলেন, ‘প্রায়ই দেখা যায়, এসব অঘটনগুলো যেখানে ঘটে সেখানে অ্যানেসথিওলজিস্ট নয় এই রকম ফিজিশিয়ান বা সে কোনো চিকিৎসকও না সে অ্যানেসথেসিয়া দিয়ে দিচ্ছে।’ দেশে প্রতি বছর অ্যানেসথেসিয়া জটিলতায় কত মৃত্যু হয় তারও কোনো হিসাব নেই কারো কাছে।

শিশু আহনাফের মৃত্যু : তিন চিকিৎসকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে বিএমডিসিকে নির্দেশ

মালিবাগের জেএস ডায়াগনস্টিক অ্যান্ড মেডিকেল চেকআপ সেন্টারে (জেএস হাসপাতাল) সুন্নতে খৎনা করাতে এসে শিশু আহনাফ তাহমিন আয়হামের মৃত্যুর ঘটনায় তদন্ত করে তিন চিকিৎসকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যান্ড ডেন্টাল কাউন্সিলকে (বিএমডিসি) নির্দেশ দিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। বৃহস্পতিবার অধিদপ্তরের হাসপাতাল ও ক্লিনিকসমূহ বিভাগের পরিচালক ডা. আবু হোসেন মো. মঈনুল আহসানের সই করা এক চিঠিতে এ নির্দেশ দেয়া হয়।

এতে বলা হয়েছে, সম্প্রতি জেএস ডায়াগনস্টিক অ্যান্ড মেডিকেল চেক-আপ সেন্টারে সুন্নতে খৎনার সময় শিশু আহনাফ তাহমিন আয়হাম এর মৃত্যুতে সুন্নতে খৎনার সঙ্গে পত্রিকায় প্রকাশিত সংবাদের আলোকে সংশ্লিষ্ট চিকিৎসক ডা. ইশতিয়াক আজাদ, ডা. মাহবুব মোর্শেদ ও ডা. এসএম মোক্তাদিরের বিষয়ে তদন্তপূর্বক প্রয়োজনীয় ব্যবস্থাগ্রহণ করে অত্র দপ্তরকে অবহিত করার জন্য অনুরোধ করা হলো। এতে মহাপরিচালক মহোদয়ের অনুমোদন রয়েছে।

গত মঙ্গলবার জেএস হাসপাতাল খৎনার সময় শিশু আহনাফ তাহমিন আয়হামের মৃত্যু হয়। ওই দিন রাতেই শিশুটির বাবা মোহাম্মদ ফখরুল আলম বাদী হয়ে রাজধানীর হাতিরঝিল থানায় মামলা করেন। মামলায় জে এস হাসপাতালের ডা. এস এম মুক্তাদিরসহ তিনজনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত আরও ৫ জনকে আসামি করা হয়। পরে পুলিশ জেএস ডায়াগনস্টিক সেন্টারের পরিচালক ডা. এস এম মোক্তাদির হোসেন ও চিকিৎসক মাহাবুব মোরশেদকে গ্রেপ্তার করে।

ঘটনার পরদিন জেএস হাসপাতালে তালা ঝুলিয়ে সিলগালা করে দেয় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়। এ ঘটনায় গ্রেপ্তার হওয়া দুজন চিকিৎসককে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন আদালত। একই সঙ্গে দেয়া হয়েছে দুজনকে জেলগেটে জিজ্ঞাসাবাদের নির্দেশও দেয়া হয়। মামলার এজাহারে বলা হয়েছে, গত সোমবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে আয়হামকে সুন্নতে খৎনা করানোর জন্য বাবা ফখরুল আলম হাতিরঝিল থানার জেএস ডায়াগনস্টিক সেন্টারে চিকিৎসক এস এম মুক্তাদিরের কাছে নিয়ে যান। তিনি ওই সময় আয়হামের কিছু শারীরিক পরীক্ষা করাতে বলেন। পরে ওই হাসপাতালেই টেস্টগুলো করে ছেলেকে নিয়ে বাসায় চলে যান ফখরুল। রাতে চিকিৎসক ফোন করে জানান, রিপোর্টগুলো ভালো আছে। সুন্নতে খৎনা করতে কোনো সমস্যা নেই।

পরে মঙ্গলবার রাত পৌনে ৮টায় ছেলের সুন্নতে খৎনা করানোর জন্য স্ত্রীকে সঙ্গে নিয়ে ওই হাসপাতালে যান ফখরুল। ছেলেকে অপারেশন থিয়েটার নিয়ে যাওয়া হয়। ২০-২৫ মিনিট সময় লাগবে বলে জানিয়েছিল চিকিৎসকেরা। তবে ঘণ্টাখানেকের বেশি সময় লাগায় ফখরুল ওটি রুমে প্রবেশ করতে চাইলে তাকে নিষেধ করে আরও কিছু সময় অপেক্ষা করতে বলা হয়। পরে ফখরুল জোর করে ওটি রুমে প্রবেশ করে দেখেন, তার ছেলে অচেতন অবস্থায় পড়ে আছে। তার বুকে হাত দিয়ে চাপাচাপি করছে এবং নাকে ও মুখে নল দিয়ে রক্ত বের হচ্ছে। তখন চিকিৎসক এস এম মোক্তাদিরকে জিজ্ঞাসা করলে তিনি সঠিক উত্তর দেননি। এরপর তাকে তখন জোর করে ওটি থেকে বের করে দেওয়া হয়। ঘণ্টা দুয়েক পর ফখরুল জোর করে ওটিতে প্রবেশ করে জানতে পারেন তার ছেলে মারা গেছে।

আহনাফের বাবা ফখরুল আলম সাংবাদিকদের বলেন, ‘আমরা চিকিৎসককে বলেছিলাম যেন, ফুল অ্যানেসথেসিয়া যেন না দেয়া হয়। তারপরও আমার ছেলের শরীরে সেটি পুশ করেন ডা. মোক্তাদির। আমি বারবার তাদের পায়ে ধরেছি। আমার ছেলেকে যেন ফুল অ্যানেসথেসিয়া না দেয়া হয়।’ ফখরুল বলেন, ‘আমার সন্তানকে অ্যানেসথেসিয়া দিয়ে হত্যা করা হয়েছে। এই মৃত্যুর দায় মোক্তাদিরসহ হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ সবারই। আমি তাদের কঠোর শাস্তি চাই।’

ছবি

দুই দিনের রাষ্ট্রীয় সফরে ঢাকা আসছেন কাতারের আমির, ১১ টি চুক্তি-সমঝোতা

ছবি

অন্যায় আবদারের কাছে মাথানত করবো না: ইসি আলমগীর

ছবি

তীব্র গরম : হাসপাতালগুলো প্রস্তুত রাখতে স্বাস্থ্যমন্ত্রীর নির্দেশ

ছবি

দাবদাহ : হাসপাতালগুলোকে প্রস্তুত রাখার নির্দেশ স্বাস্থ্যমন্ত্রীর

ছবি

নাফ নদীতে মায়ানমার নৌবাহিনীর গুলি, ২ বাংলাদেশি গুলিবিদ্ধ

ছবি

বোরো মৌসুমে ৩২ টাকা কেজি দরে ধান কিনবে সরকার

ছবি

ব্যারিস্টার খোকনকে জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরাম থেকে অব্যাহতি

ছবি

‘মুজিব ব্যাটারি’ কমপ্লেক্স উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী

ছবি

দীর্ঘ ছুটি শেষে খুলেছে সুপ্রিম কোর্ট

ছবি

হিট অ্যালার্টের মধ্যেই ৬০ কি.মি. বেগে ঝড় বয়ে যেতে পারে

দাবদাহে ‘কপাল পোড়ার’ শঙ্কায় কৃষক, শুকিয়ে যাচ্ছে ধান ক্ষেত, মরছে সবজির গাছ

ছবি

সোমবার থেকে ৪ দিনব্যাপী ন্যাপ এক্সপো, উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী

ছবি

অনিবন্ধিত অনলাইন নিউজ পোর্টাল বন্ধ করে দেয়া হবে:প্রতিমন্ত্রী

ছবি

গরমের কারণে সব সরকারি স্কুল, কলেজ আরও ৭ দিন বন্ধ

ছবি

ট্রাফিক সদস্যদের ছাতা-স্যালাইন-জুস-শরবত দিলেন আইজিপি

ছবি

ঈদযাত্রায় ৪১৯ দুর্ঘটনায় নিহত ৪৩৮ : যাত্রী কল্যাণ সমিতি

ছবি

ফুলেল শ্রদ্ধায় শিব নারায়ণ দাশকে বিদায়

ছবি

দেশে ইন্টারনেট সেবায় ব্যাঘাত

ছবি

তীব্র দাবদাহ : প্রাথমিক স্কুলে অ্যাসেম্বলি বন্ধ রাখার নির্দেশ

ছবি

শিব নারায়ণের কর্নিয়ায় আলো ফুটবে দুই অন্ধের চোখে

ছবি

একদিনে করোনায় আক্রান্ত ১৬ জন

ছবি

তাপপ্রবাহ নিয়ে ৭২ ঘণ্টার সতর্ক বার্তা আবহাওয়া অধিদপ্তরের

ছবি

বঙ্গবন্ধু টানেলে টোল ফ্রি সুবিধা পেল যেসব গাড়ি

ছবি

সারাদেশে তিন দিনের হিট অ্যালার্ট জারি

ছবি

জাতীয় পতাকার নকশাকার শিবনারায়ণ দাস আর নেই

ছবি

বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে পারস্পরিক সহযোগিতা ও অভিজ্ঞতা বিনিময় করা হবে : আরাফাত

স্বাধীনতার ঘোষণাপত্র এবং মুজিবনগর দিবস সম্পর্কে নতুন প্রজন্মেকে জানাতে হবে

ছবি

স্থানীয় সরকার নির্বাচ‌নে ভোটার উপ‌স্থি‌তি সংসদ নির্বাচ‌নের ‌চে‌য়ে বে‌শি থাকবে

ছবি

প্রাণিসম্পদ সেবা সপ্তাহ ও প্রদর্শনীর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী

ছবি

থাইল্যান্ড সফরে যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী

জুন-জুলাইয়ে দেশে ইনফ্লুয়েঞ্জার হার বেশি

মধ্যপ্রাচ্য পরিস্থিতির ওপর নজর রাখতে বললেন প্রধানমন্ত্রী

এথেন্স সম্মেলনে দায়িত্বশীল ও টেকসই সমুদ্র ব্যবস্থাপনায় সম্মিলিত প্রয়াসের আহ্বান পররাষ্ট্রমন্ত্রীর

ছবি

কৃষকরাই অর্থনীতির মূল চালিকাশক্তি: স্পিকার

ছবি

মধ্যপ্রাচ্য পরিস্থিতির ওপর নজর রাখার তাগিদ প্রধানমন্ত্রীর

ছবি

লালমনিরহাট সীমান্তে বিএসএফের গুলিতে সাবেক ইউপি সদস্য গুলিবিদ্ধ

tab

জাতীয়

চেম্বার ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারে অ্যানেসথেসিয়া দেয়া যাবে না

মাসুদ রানা

বৃহস্পতিবার, ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

কোনো অবস্থাতেই নিবন্ধিত হাসপাতাল ও ক্লিনিক ছাড়া চেম্বারে অথবা ডায়াগনস্টিক সেন্টারে অ্যানেসথেসিয়া দেয়া যাবে না। বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যান্ড ডেন্টাল কাউন্সিল (বিএমডিসি) স্বীকৃত বিশেষজ্ঞ অবেদনবিদ (অ্যানেসথেটিস্ট) ছাড়া যেকোনো ধরনের অস্ত্রোপচার করা যাবে না। বৃহস্পতিবার (২২ ফেব্রুয়ারি) স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের জারি করা এক অফিস আদেশে এসব বিষয় উল্লেখ করা হয়েছে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হাসপাতাল ও ক্লিনিক শাখার পরিচালক (অতিরিক্ত দায়িত্ব) আবু হোসেন মো. মঈনুল আহসান সেই অফিস আদেশ সই করেন। তাতে মোট ১০টি নির্দেশনা বা শর্ত জারি করা হয়েছে। এর ব্যত্যয় হলে লাইসেন্স বাতিলসহ কঠোর শাস্তির মুখোমুখি হতে হবে। অফিস আদেশে বলা হয়েছে, ‘বেসরকারি হাসপাতাল, ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টার পরিচালনার ক্ষেত্রে এসব শর্তাবলি আবশ্যিকভাবে প্রতিপালনের জন্য নির্দেশ প্রদান করা হলো।’

এদিকে বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এর প্রধান কারণ অ্যানেসথেসিওলজিস্টদের দক্ষতার অভাব। এছাড়া অ্যানেসথেসিয়ার আগে ঠিকমতো রোগীর স্বাস্থ্য পরীক্ষা না করা এবং অপারেশন পরবর্তী জটিলতা মোকাবিলার সক্ষমতা না থাকাও মৃত্যুর অন্যতম কারণ বলছেন তারা।

বেসরকারি হাসপাতাল, ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টার পরিচালনার ক্ষেত্রে ১০টি শর্ত আবশ্যিকভাবে প্রতিপালনের নির্দেশনা জারি করেছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর।

সেগুলো হচ্ছে : বেসরকারি ক্লিনিক/হাসপাতাল ও ডায়াগনস্টিকের লাইসেন্সের কপি ওই প্রতিষ্ঠানের মূল প্রবেশপথের সামনে দৃশ্যমান স্থানে অবশ্যই স্থায়ীভাবে প্রদর্শন করতে হবে।

সব বেসরকারি স্বাস্থ্যসেবা প্রতিষ্ঠানের ক্ষেত্রে ওই প্রতিষ্ঠানের যাবতীয় তথ্য সংরক্ষণ ও সরবরাহের জন্য একজন নির্ধারিত দায়িত্বপ্রাপ্ত তথ্য কর্মকর্তা বা কর্মচারী থাকতে হবে এবং তার ছবি ও মোবাইল নম্বর দৃশ্যমান স্থানে প্রদর্শন করতে হবে।

যেসব প্রতিষ্ঠানের নাম ডায়াগনস্টিক ও হাসপাতাল হিসেবে আছে কিন্তু শুধু ডায়াগনস্টিক অথবা হাসপাতালের লাইসেন্স রয়েছে, তারা লাইসেন্সপ্রাপ্ত ছাড়া কোনোভাবেই নামে উল্লেখিত সেবা দিতে পারবে না।

ডায়াগনস্টিক সেন্টার/প্যাথলজিক্যাল ল্যাবরেটরির ক্ষেত্রে যে ক্যাটারগরিতে লাইসেন্সপ্রাপ্ত, শুধু সে ক্যাটাগরিতে নির্ধারিত পরীক্ষা-নিরীক্ষা ব্যতীত কোনোভাবেই অন্যান্য পরীক্ষা-নিরীক্ষা করা যাবে না। ক্যাটাগরি অনুযায়ী প্যাথলজি/মাইক্রোবায়োলজি, বায়োকেমিস্ট্রি ও রেডিওলজি বিশেষজ্ঞ নিয়োগ করতে হবে। ৫. বেসরকারি ক্লিনিক/হাসপাতালের ক্ষেত্রে লাইসেন্সের প্রকারভেদ ও শয্যাসংখ্যা অনুযায়ী সব শর্ত বাধ্যতামূলকভাবে বাস্তবায়ন করতে হবে।

হাসপাতাল/ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারে নিয়োজিত সব চিকিৎসকের পেশাগত ডিগ্রির সনদগুলো, বিএমডিসির হালনাগাদ নিবন্ধন ও নিয়োগপত্রের কপি অবশ্যই সংরক্ষণ করতে হবে।

হাসপাতাল/ক্লিনিকের ক্ষেত্রে যেকোনো ধরনের অপারেশন/সার্জারি/প্রসিডিউরের জন্য অবশ্যই রেজিস্টার্ড চিকিৎসককে সার্জনের সহকারী হিসেবে রাখতে হবে।

কোনো অবস্থাতেই লাইসেন্সপ্রাপ্ত/নিবন্ধিত হাসপাতাল ও ক্লিনিক ছাড়া চেম্বারে অথবা ডায়াগনস্টিক সেন্টারে অ্যানেসথেসিয়া দেয়া যাবে না। বিএমডিসি (বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যান্ড ডেন্টাল কাউন্সিল) স্বীকৃত বিশেষজ্ঞ অবেদনবিদ ছাড়া যেকোনো ধরনের অপারেশন/সার্জারি সব বেসরকারি নিবন্ধিত লাইসেন্সপ্রাপ্ত হাসপাতাল/ক্লিনিকে লেবার রুম প্রটোকল অবশ্যই মেনে চলতে হবে।

নিবন্ধিত/লাইসেন্সপ্রাপ্ত হাসপাতাল/ক্লিনিকে অপারেশন থিয়েটারে অবশ্যই অপারেশন থিয়েটার এটিকেট (শিষ্টাচার) মেনে চলতে হবে।

এদিকে গত বছরের নভেম্বরে রাজধানীর নয়াবাজার এলাকায় মেডিপ্যাথ হাসপাতালে মেয়ে ফাতেমার (১২) নাকের পলিপ অপারেশন করাতে নিয়ে যান তার মা। কিন্তু পলিপ অপারেশন করতে গিয়ে মৃত্যু হয় ফাতেমার। ফাতেমার মায়ের অভিযোগ, মেয়েকে সুস্থ, স্বাভাবিকভাবে তিনি হাসপাতালে নিয়ে যান। তার মেয়ে কোনো অসুস্থ রোগী ছিল না। ফাতেমা তার সঙ্গে হেঁটে হাসপাতালে যায়।

এরপর গত ৩১ ডিসেম্বর খৎনার জন্য রাজধানীর বাড্ডার ইউনাইটেড মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে শিশু আয়ানকে নিয়ে যায় তার অভিভাবক। সকাল ৯টার দিকে শিশুটিকে অ্যানেসথেসিয়া দেয়া হয়। তবে অনুমতি ছাড়াই ‘ফুল অ্যানেসথেসিয়া’ (জেনারেল) দিয়ে চিকিৎসক আয়ানের খৎনা করান বলে অভিযোগ করা হয়। পরে জ্ঞান না ফেরায় তাকে গুলশানে ইউনাইটেড হাসপাতালে পাঠানো হয়। সেখানে তাকে লাইফ সাপোর্টে রাখা হয়। এরপর ৭ জানুয়ারি মধ্যরাতে চিকিৎসক আয়ানকে মৃত ঘোষণা করে।

গত ১৫ ফেব্রুয়ারি রাজধানীর ধানমন্ডির বেসরকারি ল্যাব এইড হাসপাতালে পেটে গ্যাসের সমস্যায় এন্ডোস্কপি করাতে গিয়ে কার্ডিয়াক অ্যারেস্টে রাহিব রেজা নামে এক যুবকের মৃত্যু হয়েছে। স্বজনদের অভিযোগ, ল্যাব এইড হাসপাতালে পরীক্ষার রিপোর্ট না দেখেই রাহিব রেজাকে অ্যানেসথেসিয়া প্রয়োগ করা হয়। শারীরিক জটিলতার মধ্যেই এন্ডোস্কপি করা হয়। যে কারণে তার কার্ডিয়াক অ্যারেস্ট হয় এবং একপর্যায়ে শারীরিক অবস্থা আরও জটিল হয়। তিন দিন চিকিৎসাধীন থাকার পর ১৯ ফেব্রুয়ারি তিনি মারা যান।

সর্বশেষ গত মঙ্গলবার মালিবাগের জেএস ডায়াগনস্টিক সেন্টারে খৎনা করাতে গিয়ে প্রাণ যায় আরেক শিশু আয়হামের। এ তিন ঘটনাতেই অ্যানেসথেসিয়া দেয়ার পর আর জ্ঞান ফেরেনি শিশুদের। খৎনা বা নাকের পলিপ অপারেশনের মতো ছোট সার্জারিতেও রোগীর মৃত্যু থামছেই না।

সোসাইটি অব অ্যানেসথিওলজিস্ট ক্রিটিক্যাল কেয়ার অ্যান্ড পেইন মেডিসিনের মহাসচিব অধ্যাপক ডা. কাওছার সরদার বলেন, ‘কতটুকু ঝুঁকি আছে সেটি নির্ণয়ের জন্য হার্ট, ফুসফুসসহ শরীরের অন্য অবস্থা কী সেটি অ্যাসেস করে একটি প্রি-অ্যানেস্থেটিক চেকআপ করাতে হয়। কিন্তু পেরিফেরাল যেসব ক্লিনিক আছে সেগুলোতে এই হার শূন্য।’ ওয়ার্ল্ড ফেডারেশন অব সোসাইটিস অব অ্যানেসথেসিওলজিস্টের মতে, প্রতি লাখ মানুষের জন্য অ্যানেসথিওলজিস্ট প্রয়োজন ৫ জন। কিন্তু দেশে অ্যানেসথিওলজিস্ট আছে দুই হাজারের কিছু বেশি, যা খুবই অপ্রতুল। ডা. কাওছার সরদার বলেন, ‘প্রায়ই দেখা যায়, এসব অঘটনগুলো যেখানে ঘটে সেখানে অ্যানেসথিওলজিস্ট নয় এই রকম ফিজিশিয়ান বা সে কোনো চিকিৎসকও না সে অ্যানেসথেসিয়া দিয়ে দিচ্ছে।’ দেশে প্রতি বছর অ্যানেসথেসিয়া জটিলতায় কত মৃত্যু হয় তারও কোনো হিসাব নেই কারো কাছে।

শিশু আহনাফের মৃত্যু : তিন চিকিৎসকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে বিএমডিসিকে নির্দেশ

মালিবাগের জেএস ডায়াগনস্টিক অ্যান্ড মেডিকেল চেকআপ সেন্টারে (জেএস হাসপাতাল) সুন্নতে খৎনা করাতে এসে শিশু আহনাফ তাহমিন আয়হামের মৃত্যুর ঘটনায় তদন্ত করে তিন চিকিৎসকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যান্ড ডেন্টাল কাউন্সিলকে (বিএমডিসি) নির্দেশ দিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। বৃহস্পতিবার অধিদপ্তরের হাসপাতাল ও ক্লিনিকসমূহ বিভাগের পরিচালক ডা. আবু হোসেন মো. মঈনুল আহসানের সই করা এক চিঠিতে এ নির্দেশ দেয়া হয়।

এতে বলা হয়েছে, সম্প্রতি জেএস ডায়াগনস্টিক অ্যান্ড মেডিকেল চেক-আপ সেন্টারে সুন্নতে খৎনার সময় শিশু আহনাফ তাহমিন আয়হাম এর মৃত্যুতে সুন্নতে খৎনার সঙ্গে পত্রিকায় প্রকাশিত সংবাদের আলোকে সংশ্লিষ্ট চিকিৎসক ডা. ইশতিয়াক আজাদ, ডা. মাহবুব মোর্শেদ ও ডা. এসএম মোক্তাদিরের বিষয়ে তদন্তপূর্বক প্রয়োজনীয় ব্যবস্থাগ্রহণ করে অত্র দপ্তরকে অবহিত করার জন্য অনুরোধ করা হলো। এতে মহাপরিচালক মহোদয়ের অনুমোদন রয়েছে।

গত মঙ্গলবার জেএস হাসপাতাল খৎনার সময় শিশু আহনাফ তাহমিন আয়হামের মৃত্যু হয়। ওই দিন রাতেই শিশুটির বাবা মোহাম্মদ ফখরুল আলম বাদী হয়ে রাজধানীর হাতিরঝিল থানায় মামলা করেন। মামলায় জে এস হাসপাতালের ডা. এস এম মুক্তাদিরসহ তিনজনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত আরও ৫ জনকে আসামি করা হয়। পরে পুলিশ জেএস ডায়াগনস্টিক সেন্টারের পরিচালক ডা. এস এম মোক্তাদির হোসেন ও চিকিৎসক মাহাবুব মোরশেদকে গ্রেপ্তার করে।

ঘটনার পরদিন জেএস হাসপাতালে তালা ঝুলিয়ে সিলগালা করে দেয় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়। এ ঘটনায় গ্রেপ্তার হওয়া দুজন চিকিৎসককে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন আদালত। একই সঙ্গে দেয়া হয়েছে দুজনকে জেলগেটে জিজ্ঞাসাবাদের নির্দেশও দেয়া হয়। মামলার এজাহারে বলা হয়েছে, গত সোমবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে আয়হামকে সুন্নতে খৎনা করানোর জন্য বাবা ফখরুল আলম হাতিরঝিল থানার জেএস ডায়াগনস্টিক সেন্টারে চিকিৎসক এস এম মুক্তাদিরের কাছে নিয়ে যান। তিনি ওই সময় আয়হামের কিছু শারীরিক পরীক্ষা করাতে বলেন। পরে ওই হাসপাতালেই টেস্টগুলো করে ছেলেকে নিয়ে বাসায় চলে যান ফখরুল। রাতে চিকিৎসক ফোন করে জানান, রিপোর্টগুলো ভালো আছে। সুন্নতে খৎনা করতে কোনো সমস্যা নেই।

পরে মঙ্গলবার রাত পৌনে ৮টায় ছেলের সুন্নতে খৎনা করানোর জন্য স্ত্রীকে সঙ্গে নিয়ে ওই হাসপাতালে যান ফখরুল। ছেলেকে অপারেশন থিয়েটার নিয়ে যাওয়া হয়। ২০-২৫ মিনিট সময় লাগবে বলে জানিয়েছিল চিকিৎসকেরা। তবে ঘণ্টাখানেকের বেশি সময় লাগায় ফখরুল ওটি রুমে প্রবেশ করতে চাইলে তাকে নিষেধ করে আরও কিছু সময় অপেক্ষা করতে বলা হয়। পরে ফখরুল জোর করে ওটি রুমে প্রবেশ করে দেখেন, তার ছেলে অচেতন অবস্থায় পড়ে আছে। তার বুকে হাত দিয়ে চাপাচাপি করছে এবং নাকে ও মুখে নল দিয়ে রক্ত বের হচ্ছে। তখন চিকিৎসক এস এম মোক্তাদিরকে জিজ্ঞাসা করলে তিনি সঠিক উত্তর দেননি। এরপর তাকে তখন জোর করে ওটি থেকে বের করে দেওয়া হয়। ঘণ্টা দুয়েক পর ফখরুল জোর করে ওটিতে প্রবেশ করে জানতে পারেন তার ছেলে মারা গেছে।

আহনাফের বাবা ফখরুল আলম সাংবাদিকদের বলেন, ‘আমরা চিকিৎসককে বলেছিলাম যেন, ফুল অ্যানেসথেসিয়া যেন না দেয়া হয়। তারপরও আমার ছেলের শরীরে সেটি পুশ করেন ডা. মোক্তাদির। আমি বারবার তাদের পায়ে ধরেছি। আমার ছেলেকে যেন ফুল অ্যানেসথেসিয়া না দেয়া হয়।’ ফখরুল বলেন, ‘আমার সন্তানকে অ্যানেসথেসিয়া দিয়ে হত্যা করা হয়েছে। এই মৃত্যুর দায় মোক্তাদিরসহ হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ সবারই। আমি তাদের কঠোর শাস্তি চাই।’

back to top