alt

জাতীয়

আগুনের পর জানা যায় নানা অনিয়ম

মাসুদ রানা : রোববার, ০৩ মার্চ ২০২৪

ধানমন্ডির সাতমসজিদ রোডের বিভিন্ন ভবনে অসংখ্য রেস্তোরাঁ, যাকে অনেকেই বলছেন মৃত্যুকূপ। এই ভবনগুলোতে এসব রেস্তোরাঁ নিয়ম মেনে হয়েছে কিনা তা কেউ জানে না-সংবাদ

নিমতলী বা চুড়িহাট্টার আগুনে শতাধিক মৃত্যুর পর কর্তৃপক্ষ জানিয়েছিল, সেখানে অবৈধভাবে গড়ে ওঠা রাসায়নিকের মজুদ প্রাণ কেড়েছে। রাজধানীর বনানীতে এফ আর টাওয়ারে আগুন লেগে ২৭ জনের মৃত্যুর পরেই প্রকাশ্যে আসে ভবনের নানা গুরুতর অনিয়মের কথা। কর্তৃপক্ষ ‘জাগ্রত হয়ে’ জানায় নকশা বহির্ভূত অতিরিক্ত তলাসহ নিরাপত্তার ঘাটতির কথা।

এভাবে প্রতি বছরই আগুনে মানুষ হতাহত হওয়ার পর জানা যায় ভবনের অনুমোদন সংক্রান্ত নানা অনিয়মের কথা। প্রতিবারই প্রশ্ন উঠে, মানুষ মরলেই কেন কর্তৃপক্ষের ‘ঘুম ভাঙে’, স্বাভাবিক সময়ে এত বড় বড় ভবনে দৃশ্যমান অনিয়মগুলো কেনো চোখে পড়ে না? ধানমন্ডি, মোহাম্মদপুর, খিলগাঁওসহ ঢাকার বিভিন্ন এলাকায় এক ভবনে অনেকগুলো রেস্তোরাঁ খুলে বসা নিয়ে এখন প্রশ্ন উঠেছে। ধানমন্ডির একটি ভবনের স্থপতি তার নকশা করা ভবনটিকে ‘ঝুঁকিপূর্ণ’ বলছেন, কারণ সেটি জুড়ে গড়ে উঠেছে অনেকগুলো রেস্তোরাঁ, যেখানে অগ্নিনিরাপত্তার বালাই নেই।

সাবেক মন্ত্রীর অসহায়ত্ব, অভিযোগ
সাবেক গৃহায়ণ ও গণপূর্তমন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম বলেছেন, ২০১৯ সালে বনানীর এফআর টাওয়ারে আগুনের ঘটনা তদন্ত করে ৬২ জনের বিরুদ্ধে প্রতিবেদন দেয়া হয়েছিল। কিন্তু সবার বিরুদ্ধে মামলা হয়নি। সে সময় অননুমোদিত ১ হাজার ৩০০ ভবন চিহ্নিত করা হয়েছিল। সেগুলো ভাঙা সম্ভব হয়নি। নারায়ণগঞ্জে একটি ফুড ফ্যাক্টরিতে আগুনের ঘটনায় রোববার (৪ মার্চ) পর্যন্ত বিচার শুরু হয়নি। এসব ঘটনাকে একধরনের দায়মুক্তি উল্লেখ করে শ ম রেজাউল করিম এ ধরনের অপরাধের সঙ্গে জড়িত ব্যক্তিদের বিচারে প্রয়োজনে আইন পরিবর্তন করে স্পেশাল ট্রাইব্যুনাল গঠনের দাবি জানান।

অগ্নিকাণ্ডে নিরীহ মানুষের প্রাণহানিতে অবহেলাজনিত হত্যাকাণ্ডের অভিযোগে মামলা করা হয়। এসব মামলাও থেকে যাচ্ছে অবহেলায়ই। দীর্ঘদিনেও শেষ হয় না বিচার। বিচার শেষ না হওয়ায় পার পেয়ে যাচ্ছেন অপরাধীরা। আর প্রকৃত অপরাধীরা থেকে যাচ্ছেন ধরা-ছোঁয়ার বাইরে। গত এক যুগে ঢাকায় অসংখ্য অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। এর মধ্যে বেশ কয়েকটি বড়োসড়ো অগ্নিদুর্ঘটনা। এসব দুর্ঘটনায় প্রাণহানি যেমন হয়েছে, তেমনি স্বজন হারিয়ে পথে নেমেছে অনেক পরিবার।

ঢাকা মহানগর পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) আবদুল্লাহ আবু বলেন, ‘অগ্নিকাণ্ডে করা মামলাগুলোর মধ্যে এখনও কোনো মামলার রায় হয়নি। এসব মামলায় সাক্ষীরা সাক্ষ্য দিতে আদালতে হাজির হন না। রাষ্ট্রপক্ষের উচিত সাক্ষীদের আদালতে হাজির করে মামলাগুলো দ্রুত শেষ করা।’

জাতীয় পার্টির মহাসচিব মুজিবুল হক বলেন, ‘ধানমন্ডির সাতমসজিদ এলাকায় একটা ভবনে ১৫টি রেস্টুরেন্ট। সেগুলোর কোনো অনুমতি নেই। ধানমন্ডির ২৭ নম্বর রোডের রাস্তার পাশে ভবনে কয়েকশত রেস্টুরেন্ট, কিন্তু সেগুলোর অনুমতি নেই। খিলগাঁওয়ের তালতলায় বহুতল ভবনে একই অবস্থা। আরও এ রকম ঘটনা ঘটবে। যদি সরকার এ বিষয়ে সচেতন না হয়, সরকারকে বলব, দায়দায়িত্ব নিয়ে এগুলোর জন্য কারা কারা দায়ী, সেটা রাজউক হোক, ফায়ার সার্ভিস হোক, পরিবেশ অধিদপ্তর হোক, তাদের বিরুদ্ধে কড়া ব্যবস্থা নেয়া হোক। যাতে ভবিষ্যতে এ ধরনের ঘটনা না ঘটে, তার ব্যবস্থা করা।’

বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলনের সহ-সভাপতি স্থপতি ইকবাল হাবিব বলছেন, ‘গ্রিন কোজি কটেজের মত একটা বাণিজ্যিক ভবন পরিচালনার জন্য সরকারের যে ৮টি সংস্থার অনুমোদন লাগে, এসব সংস্থার প্রত্যেকটিকেই এই অবহেলাজনিত হত্যার আসামি হওয়ার উচিত।’

তদারকি নেই, যথেচ্ছ ব্যবহার

গত বছরের ৭ মার্চ গুলিস্তানে ক্যাফে কুইন ভবনে বিস্ফোরণেও প্রাণ যায় ২৩ জনের। ওই ঘটনায় তিনজনকে গ্রেপ্তারের পর ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের অতিরিক্ত কমিশনার হারুন অর রশীদ বলেছিলেন, ‘ভবনটিতে কোনো সংস্কার হত না, পয়ঃনিস্কাশন নিয়মিত তদারকি হত না, পার্কিং এলাকায় গুদাম ভাড়া দেয়ার নিষেধ থাকার পরেও দেয়া হয়েছে, ব্যবসায়ীরা জেনেও নিয়েছেন। সংশ্লিষ্ট সংস্থার তদারকিরও অভাব পরিলক্ষিত হয়েছে।’ সেই ঘটনার পরও তদন্ত কমিটি গঠন হয়েছে, সরকারি সেবা সংস্থাগুলোর সমন্বয় নিয়ে কথা হয়েছে। জানানো হয়, সেই ভবন মালিককে নোটিসও দেয়া হয়েছিল। কিন্তু কাজের কাজ আর কিছুই করা হয়নি। বেইলি রোডের এই ভবনটিতে এতগুলো রেস্তোরাঁ বসানোর বৈধতা ছিল না, ফায়ার সার্ভিস তাদেরকে নোটিসও দিয়েছিল, কিন্তু আর কোনো ব্যবস্থাই নেয়নি।

বেইলি রোডের ওই ভবনে আগুনে ৪৬ জনের মৃত্যুর পর ফায়ার সার্ভিসের মহাপরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. মাইন উদ্দিন জানান, ‘ভবনটিতে কোনো ফায়ার সেফটি প্ল্যান ছিল না। আমরা দু-একটি ফায়ার এক্সটিংগুইশার দেখেছি। কিন্তু সবচেয়ে বড় কথা একটি মাত্র সিঁড়ি, একটাই পথ।’ তিনি জানান, যে কক্ষে মানুষ আশ্রয় নিয়েছিল সেখানে কোনো ভেন্টিলেশনের ব্যবস্থা নেই, একটি জানলাও নেই। প্রায় প্রতিটি ফ্লোরে খাবারে দোকান, গ্যাস সিলিন্ডারগুলো রাখা ছিল অপরিকল্পিতভাবে।

গত বৃহস্পতিবার রাতের অগ্নিকাণ্ডের পর প্রকাশ পায় বেইলি রোডের গ্রিন কোজি কটেজে রেস্টুরেন্ট বসানোর অনুমোদনই ছিল না। ফায়ার সার্ভিসের মহাপরিচালক বলছেন, ভবনের অগ্নি নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে ভবন কর্তৃপক্ষকে তারা একাধিকবার নোটিস দিয়েছিলেন। তবে তাদের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেয়া হয়েছিল কিনা তা জানাননি তিনি।

ফায়ার সার্ভিসের ঢাকা বিভাগের সাবেক উপপরিচালক সেলিম নেওয়াজ ভুঁইয়া এখন অগ্নি নিরাপত্তা উপদেষ্টা হিসেবে কাজ করছেন। তিনি বলেন, ‘আইনগতভাবে কোনো ব্যত্যয় ঘটলে ফায়ার সার্ভিস একটা নোটিস দেবে। তা না মানলে সেই ভবন ব্যবহারযোগ্য নয় বলে ঘোষণা করতে হবে।’

বারবার নোটিস দেয়ার বিধান কোনো আইনে আছে সে প্রশ্ন তুলে তিনি বলেন, ‘আইনে বলা আছে তারা যদি সেইফটি প্ল্যান বাস্তবায়ন না করে আপনি তখন অ্যাকশনে যাবেন। আপনার (ফায়ার সার্ভিসের) মামলা করার এখতিয়ার না থাকলে সিটি করপোরেশন বা জেলা প্রশাসনসহ যেসব কর্তৃপক্ষ মামলা করতে পারে আপনি তাদেরকে চিঠি দিয়ে জানান।’

ভবনের অনিয়ম দেখার কর্তৃপক্ষ আসলে কার?

প্রথমত, যে কোনো ভবনের নকশা অনুমোদন দেয়ার এখতিয়ার রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ-রাজউকের। নকশা অনুমোদনের সময়ই নির্ধারণ করে দেয়া হয় সেটি আবাসিক না বাণিজ্যিক কাজে ব্যবহার করা হবে। বাণিজ্যিক ভবন হলে ফায়ার সার্ভিসের কর্মকর্তারা এর নিরাপত্তা পর্যবেক্ষণ করে নিরাপত্তা পরিকল্পনা দেয়ার কথা। কিন্তু ভবনগুলোতে মানুষ মরার পর অনুমোদন নিয়ে প্রশ্ন ওঠে।

রাজধানীতে কোনো ভবন বা বাণিজ্যিক স্থাপনা তৈরিতে রাজউক, সিটি করপোরেশন, ফায়ার সার্ভিসসহ বিভিন্ন সেবা সংস্থার অনুমোদন লাগে, কিন্তু যেসব শর্তে সেসব অনুমোদন দেয়া হয়, সেগুলো পালন হয় কিনা, তা নিয়ে প্রশ্ন আছে।

রাজউকের প্রধান নগর পরিকল্পনাবিদ আশরাফুল ইসলাম বলেন, ‘ভবনটির এক থেকে ৭ তলা পর্যন্ত বাণিজ্যিক ভবন হিসেবে অনুমোদন নেয়া ছিল। তবে সেখানে রেস্তোরাঁ বা দোকানের জন্য অনুমোদন ছিল না। ওই অনুমোদনে সেখানে অফিস হতে পারত।’ আইনি বাধ্যবাধকতা না থাকলেও ভবনটি যেহেতু বাণিজ্যিক, সেহেতু আলাদা অগ্নি নির্গমন পথ রাখা দরকার ছিল বলে মনে করেন আশরাফুল।

ভবন নির্মাণের সময় এবং নির্মাণের পরে রাজউক ও সিটি করপোরেশনের কর্মকর্তাদের ভবনের নিরাপত্তা যাচাই করে সেখানে স্থাপিত বাণিজ্যিক সংস্থাগুলোর অনুমোদন দেয়ার কথা। কিন্তু কেউ সেগুলো করছেন না বলে জানান ইকবাল হাবিবের। বেইলি রোডে পুড়ে যাওয়া গ্রিন কোজি কটেজ ঘুরে এসে তিনি বলেন, ‘ভবনটির প্রবেশদ্বার থেকে শুরু করে ফায়ার এক্সিট, তার মূল যে সিঁড়ি, প্রত্যেকটি আইনের ব্যত্যয় করে অত্যন্ত সরু। পুরো ভবনটি আবদ্ধ, তার কোনো নরমাল ভেন্টিলেশনের ব্যবস্থা নেই।

প্রাণঘাতী আগ্নিকাণ্ডের পর ফায়ার সার্ভিস জানিয়েছে, গ্রিন কোজি কটেজের ঝুঁকির বিষয়ে ভবন কর্তৃপক্ষকে তারা তিনবার নোটিস দিয়েছেন। কিন্তু পরোয়া করেননি মালিক পক্ষ। ‘ভবনের যে জায়গাগুলোতে সবচেয়ে বেশি লাশ পাওয়ার কথা ফায়ার সার্ভিসের মহাপরিচালক দেখাচ্ছিলেন, সেই কক্ষগুলোতে কোনো ধরনের আলো-বাতাস ঢোকার জায়গা ছিল না। মানুষগুলো দম বন্ধ হয়ে, ধোঁয়ায় আচ্ছন্ন হয়ে মারা গেছেন।’

কমপ্লায়েন্সের বিষয়গুলোর কারণে কোনোভাবেই রাজউকের এই ভবনের অনুমোদন দেয়ার সুযোগ ছিল না বলেও মত এই প্রকৌশলীর। বাণিজ্যিক ভবন হিসেবে অনুমোদন নিয়ে রেস্তোরাঁ কীভাবে হয়- সে প্রশ্ন তুলে তিনি বলেন, ‘রেস্তরাঁর রান্নাঘরগুলো হচ্ছে বাণিজ্যিক রান্নাঘর। এর নকশা অত্যন্ত জটিল। সেটি এখানে অনুমোদন পেতে পারে না।’ এসব অনুমোদন ছাড়া সিটি করপোরেশন ট্রেড লাইসেন্স দিতে পারে না মন্তব্য করে তিনি বলেন, ‘সেবা সংস্থাগুলো যারা এর অনুমোদন দিয়েছে তারা কোনো না কোনোভাবে এই মৃত্যুর জন্য দায়ী। যারা যারা অনুমোদন দিয়েছেন কিন্তু সরেজমিনে দেখেন নাই, এই কমপ্লায়েন্স ইস্যুগুলো নিশ্চিত করেন নাই, তাদের প্রত্যেককে আসামি দেখতে চাই।’

ধানমণ্ডির সাতমসজিদ রোড়ে ‘মৃত্যুকূপ’
পুরো ঢাকাজুড়ে এখন বহুতল ঝাঁ চকচকে ভবনে রেস্তোরাঁ করার চল গড়ে উঠেছে। ধানমণ্ডির সাতমসজিদ সড়কের দুপাশে এ রকম অন্তত এক ডজন ভবন গড়ে উঠেছে যেগুলোর একেকটিতে ২০টি পর্যন্ত রেস্তোরাঁ ও খাবারের দোকান রয়েছে। সেগুলো আদৌ নিরাপদ কিনা তা নিয়ে প্রশ্ন আগেও ছিল, বেইলি রোডের ঘটনার পর তা আরও বড় হয়েছে। স্থপতি তরিকুল লাভলু সাতমসজিদ রোডের ১৪ তলা ‘গাউসিয়া টুইন পিক’ ভবনের ছবি দিয়ে এ রকম প্রশ্ন তোলার পর এই ভবনটির স্থপতি মুস্তফা খালিদ পলাশ তার ফেইসবুক পাতায় লিখেছেন, ওই ভবনটি ঝুঁকিপূর্ণ এবং তিনি প্রতিনিয়ত সেটি নিয়ে উৎকণ্ঠায় থাকেন। গাউসিয়া টুইন পিক ভবনে দশটির বেশি রেস্তোরাঁ ও খাবারের দোকান রয়েছে।

স্থপতি খালিদ লিখেছেন, ‘নকশা এবং অনুমোদন বাণিজ্যিক ভবন হিসেবে হলেও এর ব্যবহারে বড় রকমের ব্যত্যয় ঘটিয়ে সার্বিকভাবে একে সমূহ অগ্নিঝুঁকিপূর্ণ রেস্তোরাঁ ভবনে রূপান্তর করা হয়েছে। স্থপতি হিসেবে শেষ যে ক্ষমতাটুকু রাজউক দিয়েছে অকুপেন্সি সার্টিফিকেটের জন্য রিপোর্ট স্বাক্ষর করার, তার তোয়াক্কাও এখানে করা হয়নি। অকুপেন্সি সার্টিফিকেট না নিয়েই চলছে দেদার ব্যবসা।’ স্থপতি হিসেবে রিপোর্ট ও এজবিল্ট ড্রইং প্রদান থেকে বিরত থেকে জমির মালিক, ডেভেলপারকে বার বার লিখিত বার্তায় সতর্ক করেছেন খালিদ। তিনি লেখেন, ‘কোনো ফলপ্রসূ অগ্রগতি হয়নি। ডেভেলপারকে জিজ্ঞেস করলে উত্তর আসে, তাদের নাকি ফায়ার লাইসেন্স আছে।’

ভবনটি বানিয়েছে গাউসিয়া ডেভেলপারস লিমিটেড। তাদের ওয়েবসাইট ও ফেইসবুক পাতা থেকে ফোন নম্বর নিয়ে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও কেউ ফোন ধরেননি। ওই এলাকাটি ফায়ার সার্ভিসের মোহাম্মদপুর ফায়ার স্টেশনের অধীনে। মোহাম্মদপুর ফায়ার স্টেশনের দায়িত্বপ্রাপ্ত সিনিয়র স্টেশন কর্মকর্তা মো. ফখরুদ্দীন বলছেন, তিনি স্থপতি মুস্তফা খালিদ পলাশের কোনো চিঠি পাননি। তবে তার আপত্তির বিষয়টি মৌখিকভাবে শুনেছেন। ফখরুদ্দীন বলেন, ‘আমি এখানে নতুন এসেছি। আমাদের ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখতে হবে অভিযোগের সত্যতা কতখানি, সেটা কতখানি ঝুঁকিপূর্ণ, ভবনের সেইফটি-সিকিউরিটির কী অবস্থা। তার আগে আসলে হুট করে কিছু বলা ঠিক হবে না।’

বেইলি রোডে ‘দাহ্য অন্দরসজ্জা’
বেইলি রোডের ওই ভবনে আগুন নেভাতে যাওয়া ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা জানিয়েছেন, ভবনটির ভেতরে ঠাসা ছিল দাহ্য অন্দরসজ্জার নানা উপকরণে। সেগুলোই দাউ দাউ করে জ্বলেছে আর ধোঁয়া উৎপন্ন করেছে প্রচুর। ফায়ার সার্ভিসের একজন লিডার বলছেন, তারা এখন যে কোনো বাসা-বাড়িতে আগুন নেভাতে গেলেই দেখেন ভেতরে প্রচুর দাহ্য সামগ্রী ব্যবহার করা হয়।

ভবনের নকশা ও অন্দরসজ্জার কাজে নিয়োজিত কোম্পানি ‘ডট ফাইভ’ এর কর্ণধার মাহফুজ খান বলেন, ‘এটা সত্যি যে ভবনের অভ্যন্তরীণ সজ্জায় প্রচুর দাহ্য বস্তু ব্যবহার করা হয়। ৮০ ভাগ ক্ষেত্রে ভবনের অন্দরসজ্জা করা হয় পার্টিকেল বোর্ড দিয়ে, যেটা অতি দাহ্য। ‘ভবনের সিলিংয়ের ডিজাইন, ওয়্যাল প্যানেলিং, পার্টিশন ওয়াল সবকিছুতেই এই বোর্ড ব্যবহার করা হয়, যার কারণে আগুন লাগার পর দ্রুত ছড়িয়ে পড়তে পারে।’

সোমবার থেকে ৪ দিনব্যাপী ন্যাপ এক্সপো, উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী

ছবি

অনিবন্ধিত অনলাইন নিউজ পোর্টাল বন্ধ করে দেয়া হবে:প্রতিমন্ত্রী

ছবি

গরমের কারণে সব সরকারি স্কুল, কলেজ আরও ৭ দিন বন্ধ

ছবি

ট্রাফিক সদস্যদের ছাতা-স্যালাইন-জুস-শরবত দিলেন আইজিপি

ছবি

ঈদযাত্রায় ৪১৯ দুর্ঘটনায় নিহত ৪৩৮ : যাত্রী কল্যাণ সমিতি

ছবি

ফুলেল শ্রদ্ধায় শিব নারায়ণ দাশকে বিদায়

ছবি

দেশে ইন্টারনেট সেবায় ব্যাঘাত

ছবি

তীব্র দাবদাহ : প্রাথমিক স্কুলে অ্যাসেম্বলি বন্ধ রাখার নির্দেশ

ছবি

শিব নারায়ণের কর্নিয়ায় আলো ফুটবে দুই অন্ধের চোখে

ছবি

একদিনে করোনায় আক্রান্ত ১৬ জন

ছবি

তাপপ্রবাহ নিয়ে ৭২ ঘণ্টার সতর্ক বার্তা আবহাওয়া অধিদপ্তরের

ছবি

বঙ্গবন্ধু টানেলে টোল ফ্রি সুবিধা পেল যেসব গাড়ি

ছবি

সারাদেশে তিন দিনের হিট অ্যালার্ট জারি

ছবি

জাতীয় পতাকার নকশাকার শিবনারায়ণ দাস আর নেই

ছবি

বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে পারস্পরিক সহযোগিতা ও অভিজ্ঞতা বিনিময় করা হবে : আরাফাত

স্বাধীনতার ঘোষণাপত্র এবং মুজিবনগর দিবস সম্পর্কে নতুন প্রজন্মেকে জানাতে হবে

ছবি

স্থানীয় সরকার নির্বাচ‌নে ভোটার উপ‌স্থি‌তি সংসদ নির্বাচ‌নের ‌চে‌য়ে বে‌শি থাকবে

ছবি

প্রাণিসম্পদ সেবা সপ্তাহ ও প্রদর্শনীর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী

ছবি

থাইল্যান্ড সফরে যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী

জুন-জুলাইয়ে দেশে ইনফ্লুয়েঞ্জার হার বেশি

মধ্যপ্রাচ্য পরিস্থিতির ওপর নজর রাখতে বললেন প্রধানমন্ত্রী

এথেন্স সম্মেলনে দায়িত্বশীল ও টেকসই সমুদ্র ব্যবস্থাপনায় সম্মিলিত প্রয়াসের আহ্বান পররাষ্ট্রমন্ত্রীর

ছবি

কৃষকরাই অর্থনীতির মূল চালিকাশক্তি: স্পিকার

ছবি

মধ্যপ্রাচ্য পরিস্থিতির ওপর নজর রাখার তাগিদ প্রধানমন্ত্রীর

ছবি

লালমনিরহাট সীমান্তে বিএসএফের গুলিতে সাবেক ইউপি সদস্য গুলিবিদ্ধ

ছবি

তৃতীয় ধাপে ১১২ উপজেলায় ভোট ২৯ মে

ছবি

এমভি আবদুল্লাহ : ২১ নাবিক দেশে ফিরবেন জাহাজে, বাকি দুজন বিমানে

ছবি

৯৬ হাজার ৭৩৬ শিক্ষক নিয়োগে প্রক্রিয়া শুরু, আবেদনের নিয়ম

ছবি

ঢাকায় গ্রিসের দূতাবাস স্থাপন ও জনশক্তি রপ্তানি বৃদ্ধি নিয়ে আলোচনা

ছবি

টিসিবির তালিকা হালনাগাদ করতে চাই:বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী

ছবি

লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে গমের আবাদ কম

ছবি

ভোজ্য তেলের দাম বাড়াতে চায় ব্যবসায়ীরা আপত্তি বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রীর

ছবি

অনিবন্ধিত অনলাইনের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নেবো : তথ্য প্রতিমন্ত্রী

ছবি

জলবায়ু পরিবর্তনে দেশে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে কৃষিখাত : মন্ত্রী

ছবি

দেশে ফিরতে আরও ১০ দিন সময় লাগবে নাবিকদের

ছবি

মুক্ত এমভি আবদুল্লাহর ৩ ছবি প্রকাশ

tab

জাতীয়

আগুনের পর জানা যায় নানা অনিয়ম

মাসুদ রানা

ধানমন্ডির সাতমসজিদ রোডের বিভিন্ন ভবনে অসংখ্য রেস্তোরাঁ, যাকে অনেকেই বলছেন মৃত্যুকূপ। এই ভবনগুলোতে এসব রেস্তোরাঁ নিয়ম মেনে হয়েছে কিনা তা কেউ জানে না-সংবাদ

রোববার, ০৩ মার্চ ২০২৪

নিমতলী বা চুড়িহাট্টার আগুনে শতাধিক মৃত্যুর পর কর্তৃপক্ষ জানিয়েছিল, সেখানে অবৈধভাবে গড়ে ওঠা রাসায়নিকের মজুদ প্রাণ কেড়েছে। রাজধানীর বনানীতে এফ আর টাওয়ারে আগুন লেগে ২৭ জনের মৃত্যুর পরেই প্রকাশ্যে আসে ভবনের নানা গুরুতর অনিয়মের কথা। কর্তৃপক্ষ ‘জাগ্রত হয়ে’ জানায় নকশা বহির্ভূত অতিরিক্ত তলাসহ নিরাপত্তার ঘাটতির কথা।

এভাবে প্রতি বছরই আগুনে মানুষ হতাহত হওয়ার পর জানা যায় ভবনের অনুমোদন সংক্রান্ত নানা অনিয়মের কথা। প্রতিবারই প্রশ্ন উঠে, মানুষ মরলেই কেন কর্তৃপক্ষের ‘ঘুম ভাঙে’, স্বাভাবিক সময়ে এত বড় বড় ভবনে দৃশ্যমান অনিয়মগুলো কেনো চোখে পড়ে না? ধানমন্ডি, মোহাম্মদপুর, খিলগাঁওসহ ঢাকার বিভিন্ন এলাকায় এক ভবনে অনেকগুলো রেস্তোরাঁ খুলে বসা নিয়ে এখন প্রশ্ন উঠেছে। ধানমন্ডির একটি ভবনের স্থপতি তার নকশা করা ভবনটিকে ‘ঝুঁকিপূর্ণ’ বলছেন, কারণ সেটি জুড়ে গড়ে উঠেছে অনেকগুলো রেস্তোরাঁ, যেখানে অগ্নিনিরাপত্তার বালাই নেই।

সাবেক মন্ত্রীর অসহায়ত্ব, অভিযোগ
সাবেক গৃহায়ণ ও গণপূর্তমন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম বলেছেন, ২০১৯ সালে বনানীর এফআর টাওয়ারে আগুনের ঘটনা তদন্ত করে ৬২ জনের বিরুদ্ধে প্রতিবেদন দেয়া হয়েছিল। কিন্তু সবার বিরুদ্ধে মামলা হয়নি। সে সময় অননুমোদিত ১ হাজার ৩০০ ভবন চিহ্নিত করা হয়েছিল। সেগুলো ভাঙা সম্ভব হয়নি। নারায়ণগঞ্জে একটি ফুড ফ্যাক্টরিতে আগুনের ঘটনায় রোববার (৪ মার্চ) পর্যন্ত বিচার শুরু হয়নি। এসব ঘটনাকে একধরনের দায়মুক্তি উল্লেখ করে শ ম রেজাউল করিম এ ধরনের অপরাধের সঙ্গে জড়িত ব্যক্তিদের বিচারে প্রয়োজনে আইন পরিবর্তন করে স্পেশাল ট্রাইব্যুনাল গঠনের দাবি জানান।

অগ্নিকাণ্ডে নিরীহ মানুষের প্রাণহানিতে অবহেলাজনিত হত্যাকাণ্ডের অভিযোগে মামলা করা হয়। এসব মামলাও থেকে যাচ্ছে অবহেলায়ই। দীর্ঘদিনেও শেষ হয় না বিচার। বিচার শেষ না হওয়ায় পার পেয়ে যাচ্ছেন অপরাধীরা। আর প্রকৃত অপরাধীরা থেকে যাচ্ছেন ধরা-ছোঁয়ার বাইরে। গত এক যুগে ঢাকায় অসংখ্য অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। এর মধ্যে বেশ কয়েকটি বড়োসড়ো অগ্নিদুর্ঘটনা। এসব দুর্ঘটনায় প্রাণহানি যেমন হয়েছে, তেমনি স্বজন হারিয়ে পথে নেমেছে অনেক পরিবার।

ঢাকা মহানগর পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) আবদুল্লাহ আবু বলেন, ‘অগ্নিকাণ্ডে করা মামলাগুলোর মধ্যে এখনও কোনো মামলার রায় হয়নি। এসব মামলায় সাক্ষীরা সাক্ষ্য দিতে আদালতে হাজির হন না। রাষ্ট্রপক্ষের উচিত সাক্ষীদের আদালতে হাজির করে মামলাগুলো দ্রুত শেষ করা।’

জাতীয় পার্টির মহাসচিব মুজিবুল হক বলেন, ‘ধানমন্ডির সাতমসজিদ এলাকায় একটা ভবনে ১৫টি রেস্টুরেন্ট। সেগুলোর কোনো অনুমতি নেই। ধানমন্ডির ২৭ নম্বর রোডের রাস্তার পাশে ভবনে কয়েকশত রেস্টুরেন্ট, কিন্তু সেগুলোর অনুমতি নেই। খিলগাঁওয়ের তালতলায় বহুতল ভবনে একই অবস্থা। আরও এ রকম ঘটনা ঘটবে। যদি সরকার এ বিষয়ে সচেতন না হয়, সরকারকে বলব, দায়দায়িত্ব নিয়ে এগুলোর জন্য কারা কারা দায়ী, সেটা রাজউক হোক, ফায়ার সার্ভিস হোক, পরিবেশ অধিদপ্তর হোক, তাদের বিরুদ্ধে কড়া ব্যবস্থা নেয়া হোক। যাতে ভবিষ্যতে এ ধরনের ঘটনা না ঘটে, তার ব্যবস্থা করা।’

বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলনের সহ-সভাপতি স্থপতি ইকবাল হাবিব বলছেন, ‘গ্রিন কোজি কটেজের মত একটা বাণিজ্যিক ভবন পরিচালনার জন্য সরকারের যে ৮টি সংস্থার অনুমোদন লাগে, এসব সংস্থার প্রত্যেকটিকেই এই অবহেলাজনিত হত্যার আসামি হওয়ার উচিত।’

তদারকি নেই, যথেচ্ছ ব্যবহার

গত বছরের ৭ মার্চ গুলিস্তানে ক্যাফে কুইন ভবনে বিস্ফোরণেও প্রাণ যায় ২৩ জনের। ওই ঘটনায় তিনজনকে গ্রেপ্তারের পর ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের অতিরিক্ত কমিশনার হারুন অর রশীদ বলেছিলেন, ‘ভবনটিতে কোনো সংস্কার হত না, পয়ঃনিস্কাশন নিয়মিত তদারকি হত না, পার্কিং এলাকায় গুদাম ভাড়া দেয়ার নিষেধ থাকার পরেও দেয়া হয়েছে, ব্যবসায়ীরা জেনেও নিয়েছেন। সংশ্লিষ্ট সংস্থার তদারকিরও অভাব পরিলক্ষিত হয়েছে।’ সেই ঘটনার পরও তদন্ত কমিটি গঠন হয়েছে, সরকারি সেবা সংস্থাগুলোর সমন্বয় নিয়ে কথা হয়েছে। জানানো হয়, সেই ভবন মালিককে নোটিসও দেয়া হয়েছিল। কিন্তু কাজের কাজ আর কিছুই করা হয়নি। বেইলি রোডের এই ভবনটিতে এতগুলো রেস্তোরাঁ বসানোর বৈধতা ছিল না, ফায়ার সার্ভিস তাদেরকে নোটিসও দিয়েছিল, কিন্তু আর কোনো ব্যবস্থাই নেয়নি।

বেইলি রোডের ওই ভবনে আগুনে ৪৬ জনের মৃত্যুর পর ফায়ার সার্ভিসের মহাপরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. মাইন উদ্দিন জানান, ‘ভবনটিতে কোনো ফায়ার সেফটি প্ল্যান ছিল না। আমরা দু-একটি ফায়ার এক্সটিংগুইশার দেখেছি। কিন্তু সবচেয়ে বড় কথা একটি মাত্র সিঁড়ি, একটাই পথ।’ তিনি জানান, যে কক্ষে মানুষ আশ্রয় নিয়েছিল সেখানে কোনো ভেন্টিলেশনের ব্যবস্থা নেই, একটি জানলাও নেই। প্রায় প্রতিটি ফ্লোরে খাবারে দোকান, গ্যাস সিলিন্ডারগুলো রাখা ছিল অপরিকল্পিতভাবে।

গত বৃহস্পতিবার রাতের অগ্নিকাণ্ডের পর প্রকাশ পায় বেইলি রোডের গ্রিন কোজি কটেজে রেস্টুরেন্ট বসানোর অনুমোদনই ছিল না। ফায়ার সার্ভিসের মহাপরিচালক বলছেন, ভবনের অগ্নি নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে ভবন কর্তৃপক্ষকে তারা একাধিকবার নোটিস দিয়েছিলেন। তবে তাদের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেয়া হয়েছিল কিনা তা জানাননি তিনি।

ফায়ার সার্ভিসের ঢাকা বিভাগের সাবেক উপপরিচালক সেলিম নেওয়াজ ভুঁইয়া এখন অগ্নি নিরাপত্তা উপদেষ্টা হিসেবে কাজ করছেন। তিনি বলেন, ‘আইনগতভাবে কোনো ব্যত্যয় ঘটলে ফায়ার সার্ভিস একটা নোটিস দেবে। তা না মানলে সেই ভবন ব্যবহারযোগ্য নয় বলে ঘোষণা করতে হবে।’

বারবার নোটিস দেয়ার বিধান কোনো আইনে আছে সে প্রশ্ন তুলে তিনি বলেন, ‘আইনে বলা আছে তারা যদি সেইফটি প্ল্যান বাস্তবায়ন না করে আপনি তখন অ্যাকশনে যাবেন। আপনার (ফায়ার সার্ভিসের) মামলা করার এখতিয়ার না থাকলে সিটি করপোরেশন বা জেলা প্রশাসনসহ যেসব কর্তৃপক্ষ মামলা করতে পারে আপনি তাদেরকে চিঠি দিয়ে জানান।’

ভবনের অনিয়ম দেখার কর্তৃপক্ষ আসলে কার?

প্রথমত, যে কোনো ভবনের নকশা অনুমোদন দেয়ার এখতিয়ার রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ-রাজউকের। নকশা অনুমোদনের সময়ই নির্ধারণ করে দেয়া হয় সেটি আবাসিক না বাণিজ্যিক কাজে ব্যবহার করা হবে। বাণিজ্যিক ভবন হলে ফায়ার সার্ভিসের কর্মকর্তারা এর নিরাপত্তা পর্যবেক্ষণ করে নিরাপত্তা পরিকল্পনা দেয়ার কথা। কিন্তু ভবনগুলোতে মানুষ মরার পর অনুমোদন নিয়ে প্রশ্ন ওঠে।

রাজধানীতে কোনো ভবন বা বাণিজ্যিক স্থাপনা তৈরিতে রাজউক, সিটি করপোরেশন, ফায়ার সার্ভিসসহ বিভিন্ন সেবা সংস্থার অনুমোদন লাগে, কিন্তু যেসব শর্তে সেসব অনুমোদন দেয়া হয়, সেগুলো পালন হয় কিনা, তা নিয়ে প্রশ্ন আছে।

রাজউকের প্রধান নগর পরিকল্পনাবিদ আশরাফুল ইসলাম বলেন, ‘ভবনটির এক থেকে ৭ তলা পর্যন্ত বাণিজ্যিক ভবন হিসেবে অনুমোদন নেয়া ছিল। তবে সেখানে রেস্তোরাঁ বা দোকানের জন্য অনুমোদন ছিল না। ওই অনুমোদনে সেখানে অফিস হতে পারত।’ আইনি বাধ্যবাধকতা না থাকলেও ভবনটি যেহেতু বাণিজ্যিক, সেহেতু আলাদা অগ্নি নির্গমন পথ রাখা দরকার ছিল বলে মনে করেন আশরাফুল।

ভবন নির্মাণের সময় এবং নির্মাণের পরে রাজউক ও সিটি করপোরেশনের কর্মকর্তাদের ভবনের নিরাপত্তা যাচাই করে সেখানে স্থাপিত বাণিজ্যিক সংস্থাগুলোর অনুমোদন দেয়ার কথা। কিন্তু কেউ সেগুলো করছেন না বলে জানান ইকবাল হাবিবের। বেইলি রোডে পুড়ে যাওয়া গ্রিন কোজি কটেজ ঘুরে এসে তিনি বলেন, ‘ভবনটির প্রবেশদ্বার থেকে শুরু করে ফায়ার এক্সিট, তার মূল যে সিঁড়ি, প্রত্যেকটি আইনের ব্যত্যয় করে অত্যন্ত সরু। পুরো ভবনটি আবদ্ধ, তার কোনো নরমাল ভেন্টিলেশনের ব্যবস্থা নেই।

প্রাণঘাতী আগ্নিকাণ্ডের পর ফায়ার সার্ভিস জানিয়েছে, গ্রিন কোজি কটেজের ঝুঁকির বিষয়ে ভবন কর্তৃপক্ষকে তারা তিনবার নোটিস দিয়েছেন। কিন্তু পরোয়া করেননি মালিক পক্ষ। ‘ভবনের যে জায়গাগুলোতে সবচেয়ে বেশি লাশ পাওয়ার কথা ফায়ার সার্ভিসের মহাপরিচালক দেখাচ্ছিলেন, সেই কক্ষগুলোতে কোনো ধরনের আলো-বাতাস ঢোকার জায়গা ছিল না। মানুষগুলো দম বন্ধ হয়ে, ধোঁয়ায় আচ্ছন্ন হয়ে মারা গেছেন।’

কমপ্লায়েন্সের বিষয়গুলোর কারণে কোনোভাবেই রাজউকের এই ভবনের অনুমোদন দেয়ার সুযোগ ছিল না বলেও মত এই প্রকৌশলীর। বাণিজ্যিক ভবন হিসেবে অনুমোদন নিয়ে রেস্তোরাঁ কীভাবে হয়- সে প্রশ্ন তুলে তিনি বলেন, ‘রেস্তরাঁর রান্নাঘরগুলো হচ্ছে বাণিজ্যিক রান্নাঘর। এর নকশা অত্যন্ত জটিল। সেটি এখানে অনুমোদন পেতে পারে না।’ এসব অনুমোদন ছাড়া সিটি করপোরেশন ট্রেড লাইসেন্স দিতে পারে না মন্তব্য করে তিনি বলেন, ‘সেবা সংস্থাগুলো যারা এর অনুমোদন দিয়েছে তারা কোনো না কোনোভাবে এই মৃত্যুর জন্য দায়ী। যারা যারা অনুমোদন দিয়েছেন কিন্তু সরেজমিনে দেখেন নাই, এই কমপ্লায়েন্স ইস্যুগুলো নিশ্চিত করেন নাই, তাদের প্রত্যেককে আসামি দেখতে চাই।’

ধানমণ্ডির সাতমসজিদ রোড়ে ‘মৃত্যুকূপ’
পুরো ঢাকাজুড়ে এখন বহুতল ঝাঁ চকচকে ভবনে রেস্তোরাঁ করার চল গড়ে উঠেছে। ধানমণ্ডির সাতমসজিদ সড়কের দুপাশে এ রকম অন্তত এক ডজন ভবন গড়ে উঠেছে যেগুলোর একেকটিতে ২০টি পর্যন্ত রেস্তোরাঁ ও খাবারের দোকান রয়েছে। সেগুলো আদৌ নিরাপদ কিনা তা নিয়ে প্রশ্ন আগেও ছিল, বেইলি রোডের ঘটনার পর তা আরও বড় হয়েছে। স্থপতি তরিকুল লাভলু সাতমসজিদ রোডের ১৪ তলা ‘গাউসিয়া টুইন পিক’ ভবনের ছবি দিয়ে এ রকম প্রশ্ন তোলার পর এই ভবনটির স্থপতি মুস্তফা খালিদ পলাশ তার ফেইসবুক পাতায় লিখেছেন, ওই ভবনটি ঝুঁকিপূর্ণ এবং তিনি প্রতিনিয়ত সেটি নিয়ে উৎকণ্ঠায় থাকেন। গাউসিয়া টুইন পিক ভবনে দশটির বেশি রেস্তোরাঁ ও খাবারের দোকান রয়েছে।

স্থপতি খালিদ লিখেছেন, ‘নকশা এবং অনুমোদন বাণিজ্যিক ভবন হিসেবে হলেও এর ব্যবহারে বড় রকমের ব্যত্যয় ঘটিয়ে সার্বিকভাবে একে সমূহ অগ্নিঝুঁকিপূর্ণ রেস্তোরাঁ ভবনে রূপান্তর করা হয়েছে। স্থপতি হিসেবে শেষ যে ক্ষমতাটুকু রাজউক দিয়েছে অকুপেন্সি সার্টিফিকেটের জন্য রিপোর্ট স্বাক্ষর করার, তার তোয়াক্কাও এখানে করা হয়নি। অকুপেন্সি সার্টিফিকেট না নিয়েই চলছে দেদার ব্যবসা।’ স্থপতি হিসেবে রিপোর্ট ও এজবিল্ট ড্রইং প্রদান থেকে বিরত থেকে জমির মালিক, ডেভেলপারকে বার বার লিখিত বার্তায় সতর্ক করেছেন খালিদ। তিনি লেখেন, ‘কোনো ফলপ্রসূ অগ্রগতি হয়নি। ডেভেলপারকে জিজ্ঞেস করলে উত্তর আসে, তাদের নাকি ফায়ার লাইসেন্স আছে।’

ভবনটি বানিয়েছে গাউসিয়া ডেভেলপারস লিমিটেড। তাদের ওয়েবসাইট ও ফেইসবুক পাতা থেকে ফোন নম্বর নিয়ে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও কেউ ফোন ধরেননি। ওই এলাকাটি ফায়ার সার্ভিসের মোহাম্মদপুর ফায়ার স্টেশনের অধীনে। মোহাম্মদপুর ফায়ার স্টেশনের দায়িত্বপ্রাপ্ত সিনিয়র স্টেশন কর্মকর্তা মো. ফখরুদ্দীন বলছেন, তিনি স্থপতি মুস্তফা খালিদ পলাশের কোনো চিঠি পাননি। তবে তার আপত্তির বিষয়টি মৌখিকভাবে শুনেছেন। ফখরুদ্দীন বলেন, ‘আমি এখানে নতুন এসেছি। আমাদের ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখতে হবে অভিযোগের সত্যতা কতখানি, সেটা কতখানি ঝুঁকিপূর্ণ, ভবনের সেইফটি-সিকিউরিটির কী অবস্থা। তার আগে আসলে হুট করে কিছু বলা ঠিক হবে না।’

বেইলি রোডে ‘দাহ্য অন্দরসজ্জা’
বেইলি রোডের ওই ভবনে আগুন নেভাতে যাওয়া ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা জানিয়েছেন, ভবনটির ভেতরে ঠাসা ছিল দাহ্য অন্দরসজ্জার নানা উপকরণে। সেগুলোই দাউ দাউ করে জ্বলেছে আর ধোঁয়া উৎপন্ন করেছে প্রচুর। ফায়ার সার্ভিসের একজন লিডার বলছেন, তারা এখন যে কোনো বাসা-বাড়িতে আগুন নেভাতে গেলেই দেখেন ভেতরে প্রচুর দাহ্য সামগ্রী ব্যবহার করা হয়।

ভবনের নকশা ও অন্দরসজ্জার কাজে নিয়োজিত কোম্পানি ‘ডট ফাইভ’ এর কর্ণধার মাহফুজ খান বলেন, ‘এটা সত্যি যে ভবনের অভ্যন্তরীণ সজ্জায় প্রচুর দাহ্য বস্তু ব্যবহার করা হয়। ৮০ ভাগ ক্ষেত্রে ভবনের অন্দরসজ্জা করা হয় পার্টিকেল বোর্ড দিয়ে, যেটা অতি দাহ্য। ‘ভবনের সিলিংয়ের ডিজাইন, ওয়্যাল প্যানেলিং, পার্টিশন ওয়াল সবকিছুতেই এই বোর্ড ব্যবহার করা হয়, যার কারণে আগুন লাগার পর দ্রুত ছড়িয়ে পড়তে পারে।’

back to top