alt

জাতীয়

এলপি গ্যাস : আট মাসে ৮ দফা বাড়লো দাম

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক : সোমবার, ০৪ মার্চ ২০২৪

ভোক্তা পর্যায়ে বেসরকারি খাতের তরলীকৃত পেট্রোলিয়াম গ্যাসের দাম (এলপি গ্যাস) দাম টানা আট মাসে ৮ দফা বেড়েছে। রান্নায় বহুল ব্যবহৃত ১২ কেজি সিলিন্ডারের জন্য মার্চ মাসে ভোক্তাকে দিতে হবে ১ হাজার ৪৮২ টাকা, ফেব্রুয়ারিতে যা ছিল ১ হাজার ৪৭৪ টাকা; বেড়েছে ৮ টাকা। নতুন দর গতকাল সন্ধ্যা ৬টা থেকেই কার্যকর করা হয়েছে।

বিশ্ববাজারে এলপিজির কাঁচামালের দাম বাড়েনি, ডলারের বিনিময় হারও কিছুটা কমেছে; তবে এলপিজি (এলপি গ্যাস) পরিবহন ভাড়া বেড়ে যাওয়ার কারণে দেশের বাজারে দাম বেড়েছে বলে জানিয়েছে বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন (বিইআরসি)।

গতকাল বিকেলে ঢাকার কাওরান বাজারে কমিশনের নিজস্ব কার্যালয়ে এলপিজির নতুন দর ঘোষণা করেন বিইআরসির চেয়ারম্যান মো. নূরুল আমিন। নতুন দর গতকাল সন্ধ্যা ছয়টা থেকেই কার্যকর করার কথা জানান তিনি।

এলপিজি তৈরির মূল উপাদান প্রোপেন ও বিউটেন বিভিন্ন দেশ থেকে আমদানি করা হয়। প্রতি মাসে এলপিজির এই দুই উপাদানের মূল্য প্রকাশ করে সৌদি আরবের প্রতিষ্ঠান আরামকো। এটি সৌদি কার্গো মূল্য (সিপি) নামে পরিচিত। এই সৌদি সিপিকে ভিত্তিমূল্য ধরে দেশে এলপিজির দাম সমন্বয় করে বিইআরসি।

বিইআরসির মার্চের মূল্য ঘোষণা দেখা যায়, সৌদি আরামকোর মূল্য অনুযায়ী এলপিজির মূল কাঁচামাল প্রোপেন ও বিউটেনের গড় মূল্য মার্চের জন্য ধরা হয়েছে ৬৩৬.৫০ মার্কিন ডলার; ফেব্রুয়ারি মাসেও তাই ছিল।

আমদানিকারক কোম্পানির চালান (ইনভয়েস) মূল্য থেকে গড় করে পুরো মাসের জন্য ডলারের দামও হিসাব করে বিইআরসি। ফেব্রুয়ারি মাসে প্রতি ডলারের দাম ধরা হয়েছিল ১২০ টাকা ৫২ পয়সা। মার্চে সেটা আরেকটু কমিয়ে ১১৯ টাকা ৮৯ পয়সা ধরা হয়েছে। অর্থাৎ ফেব্রুয়ারির তুলনায় মার্চে ডলারের দাম ৬৩ পয়সা কমেছে।

কাঁচামালের দাম বাড়েনি, ডলারের দরও কমেছে। এরপরেও দেশে এলপিজির দাম বাড়ার কারণ জানতে চাইলে বিইআরসির চেয়ারম্যান বলেন, ‘এলপিজি অপারেটরা জানিয়েছেন জাহাজ ভাড়া বেড়েছে। সে কারণে দাম একটু বাড়াতে হয়েছে।’

বিইআরসির নতুন দর অনুযায়ী, বেসরকারি এলপিজির মূল্য সংযোজন করসহ (মূসক/ভ্যাটসহ) দাম নির্ধারণ করা হয়েছে প্রতি কেজি প্রায় ১২৩ টাকা ৫২ পয়সা, যা গত মাসে ছিল ১২২ টাকা ৮৬ পয়সা। প্রতি কেজিতে বেড়েছে ৬৬ পয়সা।

বাজারে সাড়ে ৫ কেজি থেকে শুরু করে ৪৫ কেজি পর্যন্ত বিভিন্ন আকারের এলপিজি সিলিন্ডার পাওয়া যায়। মার্চে প্রতি কেজি এলপিজির দাম ১২৩ টাকা ৫২ পয়সা ধরে এসব সিলিন্ডারের দাম নির্ধারিত হবে।

বহুতল ভবনের জন্য রেটিকুলেটেড পদ্ধতিতে তরল অবস্থায় সরবরাহ করা বেসরকারি এলপিজির মূসকসহ দাম প্রতি কেজি ১১৯.৬৯ টাকায় এবং গ্যাসীয় অবস্থায় সরবরাহকৃত এলপিজির মূসকসহ দাম প্রতি লিটার ০.২৬৬০ টাকায় বা প্রতি ঘনমিটার ২৬৬ টাকায় সমন্বয় করা হয়েছে। ফেব্রুয়ারিতে এই দর ছিল যথাক্রমে- ১১৯.০৪ টাকা, ০.২৬৪৫ টাকা এবং ২৬৪.৫০ টাকা।

সরকারি কোম্পানির সরবরাহ করা সাড়ে ১২ কেজি এলপিজির দাম ৫৯১ টাকা থেকে বাড়িয়ে মূসকসহ ৬৯০ টাকা করা হয়েছে। আর গাড়িতে ব্যবহৃত এলপিজির (অটো গ্যাস) নতুন দাম নির্ধারণ করা হয়েছে প্রতি লিটার প্রায় ৬৮ টাকা ৫ পয়সা, যা এত দিন ছিল ৬৭ টাকা ৬৮ পয়সা। প্রতি লিটারে বেড়েছে ৩৭ পয়সা।

বেসরকারি খাতের এলপিজির ১২ কেজি সিলিন্ডারে গত জানুয়ারি মাসের তুলনায় ফেব্রুয়ারিতে দাম ৪১ টাকা বেড়েছিল। একই পরিমাণ সিলিন্ডারে ডিসেম্বর মাসের তুলনায় জানুয়ারিতে দাম বেড়েছিল ২৯ টাকা। এরআগে, নভেম্বরের তুলনায় ডিসেম্বরে ২৩ টাকা, অক্টোবরের তুলনায় নভেম্বরে ১৮ টাকা, সেপ্টেম্বরের তুলনায় অক্টোবরে ৭৯ টাকা, আগস্টের তুলনায় সেপ্টেম্বরে ১৪৪ টাকা এবং জুলাইয়ের তুলনায় আগস্টে ১৪১ টাকা দাম বেড়েছিল।

এই হিসেবে, ১২ কেজি এলপিজি (এলপি গ্যাস) সিলিন্ডারে গত বছরের জুলাই থেকে এ বছর মার্চ পর্যন্ত আট মাসে দাম বেড়েছে ৪৮৩ টাকা। দাম বৃদ্ধির হার ৪৮ দশমিক ৩৪ শতাংশ। আন্তর্জাতিক বাজারে কাঁচামালের দর বৃদ্ধি এবং মার্কিন ডলারের বিপরীতে টাকার অবমূল্যায়নের কারণে বেশিরভাগ সময় দেশে এলপিজির দাম বেড়েছে।

এলপিজির দাম সর্বশেষ কমেছিল গত বছর জুলাইয়ে। ওই বছর জুনে ১২ কেজি এলপিজি সিলিন্ডারে ভোক্তাকে দিতে হতো ১ হাজার ৭৪ টাকা। জুলাইয়ে সমপরিমাণ সিলিন্ডারে ৭৫ টাকা কমে দাম হয় ৯৯৯ টাকা।

এক দশক আগে সরকার যখন আবাসিক খাতে নতুন গ্যাস সংযোগ বন্ধ করে দেয় তারপর থেকে এলপি গ্যাসের ব্যবহার বাড়তে থাকে। বাসাবাড়ি, রেস্তোরাঁ গ্যাস সংযোগ না পেয়ে এলপিজি ব্যবহার শুরু করে। ওই সময় সরকারি খাত থেকে মাত্র ২ শতাংশ এলপিজি সরবরাহ আসায় তখন থেকেই বাজার ব্যবসায়ীদের নিয়ন্ত্রণে। ইচ্ছেমত দাম বাড়িয়ে ভোক্তা স্বার্থ ক্ষণœœ করে চলছিল এলপিজির বেসরকারি খাত।

ভোক্তা অধিকার নিশ্চিত করতে উচ্চ আদালতের নির্দেশে ২০২১ সালের ১২ এপ্রিল দেশে প্রথমবারের মতো এলপিজির দাম নির্ধারণ করে বিইআরসি। এরপর থেকে প্রতি মাসে একবার দাম সমন্বয় করা হচ্ছে।

বর্তমানে এলপিজির চাহিদা অনেক বেড়েছে। বাসাবাড়ি ও রেস্তোরাঁয় রান্নার পাশাপাশি পরিবহন, ছোট-বড় শিল্পকারখানায়ও এলপিজি ব্যবহার করা হচ্ছে। এখন এলপিজির সরকারি উৎপাদন প্রায় এক শতাংশ, আর প্রায় ৯৯ শতাংশই বেসরকারি খাতের দখলে।

বসুন্ধরা, যমুনা, বেক্সিমকো, ওরিয়নসহ বর্তমানে ২৯টি সরকারি-বেসরকারি কোম্পানি এলপিজি আমদানি, মজুতকরণ, বিতরণ, সরবরাহের কাজে নিয়োজিত। এলপিজির ডিলার প্রায় ৩ হাজার, আমদানিকারী অপারেটর ২০টি এবং এলপিজি আমদানি টার্মিনাল রয়েছে ১৪টি।

তবে বাজারে বিইআরসি নির্ধারিত দামে এলপি গ্যাস পাওয়া যায় না, এমন অভিযোগ অধিকাংশ ভোক্তার।

জ্বালানি বিশ্লেষজ্ঞ ও খাত সংশ্লিষ্ট অনেকের মতে, দীর্ঘদিন ধরে আবাসিকে রান্নার কাজে রাষ্ট্রীয় প্রাকৃতিক গ্যাসের নতুন সংযোগ বন্ধ রাখেছে সরকার। অথচ রাষ্ট্রীয় এলপিজি সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠান এলপি গ্যাস লিমিটেডের সরবরাহ সক্ষমতা সেভাবে বাড়ানো হয়নি, যা পক্ষান্তরে এলপিজির খাতের বেসরকারি ব্যবসায়ীদের সুবিধা দেয়ার সামিল।

সরকার নির্ধারিত মূল্যে এলপিজি না পাওয়ার বিষয়ে ভোক্তাদের অভিযোগ প্রসঙ্গে বিইআরসির বক্তব্য হলো- ভোক্তাদের অভিযোগ খুব একটা তাদের কাছে পৌঁছায় না। লিখিতভাবে সুনির্দিষ্ট অভিযোগ পেলে কমিশন তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেয়। সারাদেশে এই খাতের মূল্য নির্ধারণে লোকবল সক্ষমতা নেই কমিশনের। এরপরও মূল্য নিয়ন্ত্রণে স্থানীয় প্রশাসনকে নানা সময় বিভিন্ন নির্দেশনা দেয়া হয়ে থাকে।

ছবি

তাপপ্রবাহের সতর্কবার্তা বাড়লো আরও ৩ দিন, দুর্ভোগে সাধারণ মানুষ

ছবি

বাংলাদেশ সেনাবাহিনী ও যুক্তরাষ্ট্রের প্যাসিফিক আর্মি কমান্ড এর যৌথ অংশগ্রহণে টিএল-২০২৪ উদ্বোধন

ছবি

শিশু অধিকার বিষয়ক সচেতনতা সৃষ্টিতে মিডিয়ার ভূমিকা গুরুত্বপূর্ণ--স্পীকার

ছবি

দু’দিনের সফরে কাতারের আমির ঢাকায়

ছবি

পাঁচ দিনের সফরে বুধবার থাইল্যান্ড যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী

ছবি

৪ মে থেকে বাড়ছে ট্রেনের ভাড়া

ছবি

আনু মুহাম্মদের পায়ে ‌‘কম্বাইন্ড অপারেশন’ দরকার: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

ছবি

আমরা জীবাশ্ম জ্বালানির ব্যবহার হ্রাস করেছি : শেখ হাসিনা

ছবি

তাপপ্রবাহের সতর্কবার্তা, বাড়লো আরও ৩ দিন

ছবি

জলবায়ু পরিবর্তনের কারণেই কি এত তাপ?

ছবি

ভারতের উজানে পানি প্রত্যাহার করে নেয়ায় তিস্তা মরা খালে পরিনত হয়েছে

ছবি

তাপদাহ : হাসপাতাল প্রস্তুত রাখার নির্দেশ স্বাস্থ্যমন্ত্রীর

ছবি

পিছিয়ে নেই নারীরাও তামিলনাড়ু থেকে ট্রাক নিয়ে বেনাপোল এলেন অন্নপূর্ণা

ছবি

দুই দিনের রাষ্ট্রীয় সফরে ঢাকা আসছেন কাতারের আমির, ১১ টি চুক্তি-সমঝোতা

ছবি

অন্যায় আবদারের কাছে মাথানত করবো না: ইসি আলমগীর

ছবি

তীব্র গরম : হাসপাতালগুলো প্রস্তুত রাখতে স্বাস্থ্যমন্ত্রীর নির্দেশ

ছবি

দাবদাহ : হাসপাতালগুলোকে প্রস্তুত রাখার নির্দেশ স্বাস্থ্যমন্ত্রীর

ছবি

বোরো মৌসুমে ৩২ টাকা কেজি দরে ধান কিনবে সরকার

ছবি

ব্যারিস্টার খোকনকে জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরাম থেকে অব্যাহতি

ছবি

‘মুজিব ব্যাটারি’ কমপ্লেক্স উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী

ছবি

দীর্ঘ ছুটি শেষে খুলেছে সুপ্রিম কোর্ট

ছবি

হিট অ্যালার্টের মধ্যেই ৬০ কি.মি. বেগে ঝড় বয়ে যেতে পারে

দাবদাহে ‘কপাল পোড়ার’ শঙ্কায় কৃষক, শুকিয়ে যাচ্ছে ধান ক্ষেত, মরছে সবজির গাছ

ছবি

সোমবার থেকে ৪ দিনব্যাপী ন্যাপ এক্সপো, উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী

ছবি

অনিবন্ধিত অনলাইন নিউজ পোর্টাল বন্ধ করে দেয়া হবে:প্রতিমন্ত্রী

ছবি

গরমের কারণে সব সরকারি স্কুল, কলেজ আরও ৭ দিন বন্ধ

ছবি

ট্রাফিক সদস্যদের ছাতা-স্যালাইন-জুস-শরবত দিলেন আইজিপি

ছবি

ঈদযাত্রায় ৪১৯ দুর্ঘটনায় নিহত ৪৩৮ : যাত্রী কল্যাণ সমিতি

ছবি

ফুলেল শ্রদ্ধায় শিব নারায়ণ দাশকে বিদায়

ছবি

দেশে ইন্টারনেট সেবায় ব্যাঘাত

ছবি

তীব্র দাবদাহ : প্রাথমিক স্কুলে অ্যাসেম্বলি বন্ধ রাখার নির্দেশ

ছবি

শিব নারায়ণের কর্নিয়ায় আলো ফুটবে দুই অন্ধের চোখে

ছবি

একদিনে করোনায় আক্রান্ত ১৬ জন

ছবি

তাপপ্রবাহ নিয়ে ৭২ ঘণ্টার সতর্ক বার্তা আবহাওয়া অধিদপ্তরের

ছবি

বঙ্গবন্ধু টানেলে টোল ফ্রি সুবিধা পেল যেসব গাড়ি

ছবি

সারাদেশে তিন দিনের হিট অ্যালার্ট জারি

tab

জাতীয়

এলপি গ্যাস : আট মাসে ৮ দফা বাড়লো দাম

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

সোমবার, ০৪ মার্চ ২০২৪

ভোক্তা পর্যায়ে বেসরকারি খাতের তরলীকৃত পেট্রোলিয়াম গ্যাসের দাম (এলপি গ্যাস) দাম টানা আট মাসে ৮ দফা বেড়েছে। রান্নায় বহুল ব্যবহৃত ১২ কেজি সিলিন্ডারের জন্য মার্চ মাসে ভোক্তাকে দিতে হবে ১ হাজার ৪৮২ টাকা, ফেব্রুয়ারিতে যা ছিল ১ হাজার ৪৭৪ টাকা; বেড়েছে ৮ টাকা। নতুন দর গতকাল সন্ধ্যা ৬টা থেকেই কার্যকর করা হয়েছে।

বিশ্ববাজারে এলপিজির কাঁচামালের দাম বাড়েনি, ডলারের বিনিময় হারও কিছুটা কমেছে; তবে এলপিজি (এলপি গ্যাস) পরিবহন ভাড়া বেড়ে যাওয়ার কারণে দেশের বাজারে দাম বেড়েছে বলে জানিয়েছে বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন (বিইআরসি)।

গতকাল বিকেলে ঢাকার কাওরান বাজারে কমিশনের নিজস্ব কার্যালয়ে এলপিজির নতুন দর ঘোষণা করেন বিইআরসির চেয়ারম্যান মো. নূরুল আমিন। নতুন দর গতকাল সন্ধ্যা ছয়টা থেকেই কার্যকর করার কথা জানান তিনি।

এলপিজি তৈরির মূল উপাদান প্রোপেন ও বিউটেন বিভিন্ন দেশ থেকে আমদানি করা হয়। প্রতি মাসে এলপিজির এই দুই উপাদানের মূল্য প্রকাশ করে সৌদি আরবের প্রতিষ্ঠান আরামকো। এটি সৌদি কার্গো মূল্য (সিপি) নামে পরিচিত। এই সৌদি সিপিকে ভিত্তিমূল্য ধরে দেশে এলপিজির দাম সমন্বয় করে বিইআরসি।

বিইআরসির মার্চের মূল্য ঘোষণা দেখা যায়, সৌদি আরামকোর মূল্য অনুযায়ী এলপিজির মূল কাঁচামাল প্রোপেন ও বিউটেনের গড় মূল্য মার্চের জন্য ধরা হয়েছে ৬৩৬.৫০ মার্কিন ডলার; ফেব্রুয়ারি মাসেও তাই ছিল।

আমদানিকারক কোম্পানির চালান (ইনভয়েস) মূল্য থেকে গড় করে পুরো মাসের জন্য ডলারের দামও হিসাব করে বিইআরসি। ফেব্রুয়ারি মাসে প্রতি ডলারের দাম ধরা হয়েছিল ১২০ টাকা ৫২ পয়সা। মার্চে সেটা আরেকটু কমিয়ে ১১৯ টাকা ৮৯ পয়সা ধরা হয়েছে। অর্থাৎ ফেব্রুয়ারির তুলনায় মার্চে ডলারের দাম ৬৩ পয়সা কমেছে।

কাঁচামালের দাম বাড়েনি, ডলারের দরও কমেছে। এরপরেও দেশে এলপিজির দাম বাড়ার কারণ জানতে চাইলে বিইআরসির চেয়ারম্যান বলেন, ‘এলপিজি অপারেটরা জানিয়েছেন জাহাজ ভাড়া বেড়েছে। সে কারণে দাম একটু বাড়াতে হয়েছে।’

বিইআরসির নতুন দর অনুযায়ী, বেসরকারি এলপিজির মূল্য সংযোজন করসহ (মূসক/ভ্যাটসহ) দাম নির্ধারণ করা হয়েছে প্রতি কেজি প্রায় ১২৩ টাকা ৫২ পয়সা, যা গত মাসে ছিল ১২২ টাকা ৮৬ পয়সা। প্রতি কেজিতে বেড়েছে ৬৬ পয়সা।

বাজারে সাড়ে ৫ কেজি থেকে শুরু করে ৪৫ কেজি পর্যন্ত বিভিন্ন আকারের এলপিজি সিলিন্ডার পাওয়া যায়। মার্চে প্রতি কেজি এলপিজির দাম ১২৩ টাকা ৫২ পয়সা ধরে এসব সিলিন্ডারের দাম নির্ধারিত হবে।

বহুতল ভবনের জন্য রেটিকুলেটেড পদ্ধতিতে তরল অবস্থায় সরবরাহ করা বেসরকারি এলপিজির মূসকসহ দাম প্রতি কেজি ১১৯.৬৯ টাকায় এবং গ্যাসীয় অবস্থায় সরবরাহকৃত এলপিজির মূসকসহ দাম প্রতি লিটার ০.২৬৬০ টাকায় বা প্রতি ঘনমিটার ২৬৬ টাকায় সমন্বয় করা হয়েছে। ফেব্রুয়ারিতে এই দর ছিল যথাক্রমে- ১১৯.০৪ টাকা, ০.২৬৪৫ টাকা এবং ২৬৪.৫০ টাকা।

সরকারি কোম্পানির সরবরাহ করা সাড়ে ১২ কেজি এলপিজির দাম ৫৯১ টাকা থেকে বাড়িয়ে মূসকসহ ৬৯০ টাকা করা হয়েছে। আর গাড়িতে ব্যবহৃত এলপিজির (অটো গ্যাস) নতুন দাম নির্ধারণ করা হয়েছে প্রতি লিটার প্রায় ৬৮ টাকা ৫ পয়সা, যা এত দিন ছিল ৬৭ টাকা ৬৮ পয়সা। প্রতি লিটারে বেড়েছে ৩৭ পয়সা।

বেসরকারি খাতের এলপিজির ১২ কেজি সিলিন্ডারে গত জানুয়ারি মাসের তুলনায় ফেব্রুয়ারিতে দাম ৪১ টাকা বেড়েছিল। একই পরিমাণ সিলিন্ডারে ডিসেম্বর মাসের তুলনায় জানুয়ারিতে দাম বেড়েছিল ২৯ টাকা। এরআগে, নভেম্বরের তুলনায় ডিসেম্বরে ২৩ টাকা, অক্টোবরের তুলনায় নভেম্বরে ১৮ টাকা, সেপ্টেম্বরের তুলনায় অক্টোবরে ৭৯ টাকা, আগস্টের তুলনায় সেপ্টেম্বরে ১৪৪ টাকা এবং জুলাইয়ের তুলনায় আগস্টে ১৪১ টাকা দাম বেড়েছিল।

এই হিসেবে, ১২ কেজি এলপিজি (এলপি গ্যাস) সিলিন্ডারে গত বছরের জুলাই থেকে এ বছর মার্চ পর্যন্ত আট মাসে দাম বেড়েছে ৪৮৩ টাকা। দাম বৃদ্ধির হার ৪৮ দশমিক ৩৪ শতাংশ। আন্তর্জাতিক বাজারে কাঁচামালের দর বৃদ্ধি এবং মার্কিন ডলারের বিপরীতে টাকার অবমূল্যায়নের কারণে বেশিরভাগ সময় দেশে এলপিজির দাম বেড়েছে।

এলপিজির দাম সর্বশেষ কমেছিল গত বছর জুলাইয়ে। ওই বছর জুনে ১২ কেজি এলপিজি সিলিন্ডারে ভোক্তাকে দিতে হতো ১ হাজার ৭৪ টাকা। জুলাইয়ে সমপরিমাণ সিলিন্ডারে ৭৫ টাকা কমে দাম হয় ৯৯৯ টাকা।

এক দশক আগে সরকার যখন আবাসিক খাতে নতুন গ্যাস সংযোগ বন্ধ করে দেয় তারপর থেকে এলপি গ্যাসের ব্যবহার বাড়তে থাকে। বাসাবাড়ি, রেস্তোরাঁ গ্যাস সংযোগ না পেয়ে এলপিজি ব্যবহার শুরু করে। ওই সময় সরকারি খাত থেকে মাত্র ২ শতাংশ এলপিজি সরবরাহ আসায় তখন থেকেই বাজার ব্যবসায়ীদের নিয়ন্ত্রণে। ইচ্ছেমত দাম বাড়িয়ে ভোক্তা স্বার্থ ক্ষণœœ করে চলছিল এলপিজির বেসরকারি খাত।

ভোক্তা অধিকার নিশ্চিত করতে উচ্চ আদালতের নির্দেশে ২০২১ সালের ১২ এপ্রিল দেশে প্রথমবারের মতো এলপিজির দাম নির্ধারণ করে বিইআরসি। এরপর থেকে প্রতি মাসে একবার দাম সমন্বয় করা হচ্ছে।

বর্তমানে এলপিজির চাহিদা অনেক বেড়েছে। বাসাবাড়ি ও রেস্তোরাঁয় রান্নার পাশাপাশি পরিবহন, ছোট-বড় শিল্পকারখানায়ও এলপিজি ব্যবহার করা হচ্ছে। এখন এলপিজির সরকারি উৎপাদন প্রায় এক শতাংশ, আর প্রায় ৯৯ শতাংশই বেসরকারি খাতের দখলে।

বসুন্ধরা, যমুনা, বেক্সিমকো, ওরিয়নসহ বর্তমানে ২৯টি সরকারি-বেসরকারি কোম্পানি এলপিজি আমদানি, মজুতকরণ, বিতরণ, সরবরাহের কাজে নিয়োজিত। এলপিজির ডিলার প্রায় ৩ হাজার, আমদানিকারী অপারেটর ২০টি এবং এলপিজি আমদানি টার্মিনাল রয়েছে ১৪টি।

তবে বাজারে বিইআরসি নির্ধারিত দামে এলপি গ্যাস পাওয়া যায় না, এমন অভিযোগ অধিকাংশ ভোক্তার।

জ্বালানি বিশ্লেষজ্ঞ ও খাত সংশ্লিষ্ট অনেকের মতে, দীর্ঘদিন ধরে আবাসিকে রান্নার কাজে রাষ্ট্রীয় প্রাকৃতিক গ্যাসের নতুন সংযোগ বন্ধ রাখেছে সরকার। অথচ রাষ্ট্রীয় এলপিজি সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠান এলপি গ্যাস লিমিটেডের সরবরাহ সক্ষমতা সেভাবে বাড়ানো হয়নি, যা পক্ষান্তরে এলপিজির খাতের বেসরকারি ব্যবসায়ীদের সুবিধা দেয়ার সামিল।

সরকার নির্ধারিত মূল্যে এলপিজি না পাওয়ার বিষয়ে ভোক্তাদের অভিযোগ প্রসঙ্গে বিইআরসির বক্তব্য হলো- ভোক্তাদের অভিযোগ খুব একটা তাদের কাছে পৌঁছায় না। লিখিতভাবে সুনির্দিষ্ট অভিযোগ পেলে কমিশন তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেয়। সারাদেশে এই খাতের মূল্য নির্ধারণে লোকবল সক্ষমতা নেই কমিশনের। এরপরও মূল্য নিয়ন্ত্রণে স্থানীয় প্রশাসনকে নানা সময় বিভিন্ন নির্দেশনা দেয়া হয়ে থাকে।

back to top