alt

জাতীয়

টিসিবির তালিকা হালনাগাদ করতে চাই:বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী

সংবাদ অনলাইন রিপোর্ট : মঙ্গলবার, ১৬ এপ্রিল ২০২৪

টিসিবির উপকার ভোগীর তালিকাটাও হালনাগাদ করতে চাই। আমাদের তালিকা হয়েছিল কোভিডের সময়। তখন অনেকে কর্ম হারিয়েছিল, অনেকে অসহায় হয়ে গিয়েছিল। গত ২/৩ বছরে পরিস্থিতি অনেক পরিবর্তন হয়েছে, অনেকে মারা গেছে। এই তালিকা আমরা হালনাগাদ করতে দিয়েছে বলে জানান বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী আহসানুল ইসলাম টিটু।”

মঙ্গলবার (১৬ এপ্রিল) ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে মিট দ্য রিপোর্টার্স অনুষ্ঠানে তিনি বলেন, “আগামী কয়েক মাসের মধ্যে টিসিবির বর্তমান এককোটি উপকার ভোগীর নামের তালিকা হালনাগাদ করা হবে। নিম্ন আয়ের মানুষের পাশাপাশি মধ্য আয়ের মানুষজনের হাতেও টিসিবির ন্যায্য মূল্যের পণ্য তুলে দেওয়া হবে।

“এছাড়া ওএমএসের মতোই স্থায়ী দোকান অবকাঠামো আছে- এমন ব্যক্তিদেরকে টিসিবির ডিলার হিসাবে নিয়োগ দেওয়া হবে।”

দুই বছর আগেও টিসিবির ট্রাক থেকে যেকোনো মানুষ নির্দিষ্ট টাকার বিনিময়ে নির্ধারিত পণ্য কিনতে পারতেন। দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধগতির কারণে এসব ট্রাকের পেছনে মানুষের উপচেপড়া ভিড় শুরু হওয়ায় এক পর্যায়ে বন্ধ হয়ে যায় ট্রাক সেল। পরে এক কোটি উপকার ভোগী নির্বাচন করে তাদের মাঝে পণ্য বিতরণ শুরু হয়।

আহসানুল ইসলাম টিটু বলেন, “২/৩ মাসের মধ্যে টিসিবির ডিলারদের স্থায়ী দোকানের মধ্যে নিয়ে আসার চেষ্টা করছি, মানুষের যাতে সময় নষ্ট না হয়। মানুষ যাতে গিয়ে তার ন্যায্য মূল্যের পণ্যটি নিয়ে চলে আসতে পারে।

কেমন পরিবর্তন আসছে, সে সম্পর্কে বলতে গিয়ে বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী বলেন, “ভর্তুকি মূল্যে নয়, আমরা যেন ন্যায্য মূল্যে পণ্য দিতে পারি- সেই দিকে বেশি নজর দেব। আমরা টিসিবির ক্যাপাসিটি বাড়ানোর চেষ্টা করছি।

“নিজস্ব গুদাম বাড়ানোর চেষ্টা করছি। পর্যাপ্ত পরিমাণে সরবরাহ থাকলে বাজারে কৃত্রিম সংকট তৈরি হবে না।”

অনুষ্ঠানে এক সাংবাদিক বলেন, টিসিবি ফ্যামিলি কার্ডের মাধ্যমে সুলভ মূল্যে পণ্য বিপণন করলেও অনেক জেলা-উপজেলায় সময় মতো সেই পণ্য পৌঁছায় না।

এ বিষয়ে টিটু বলেন, “নিরবচ্ছিন্ন সরবরাহের জন্য একটি বাফার স্টক থাকা জরুরি। সেজন্য গুদাম দরকার। আমরা ইতোমধ্যেই চট্টগ্রামে একটা ৪০ হাজার বর্গফুটের গুদাম তৈরি করেছি। অন্যান্য জেলায় আমরা গুদাম খুঁজছি।

“আমরা চেষ্টা করব, অতি দ্রুত সময়ের মধ্যে দুই মাসের মধ্যে বাফার স্টক তৈরি করার সক্ষমতা অর্জনের চেষ্টা করছি। তাহলে সব পণ্য একসঙ্গে সব দিকে সরবরাহ করা যাবে।”

বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী বলেন, “টিসিবিতে চার থেকে পাঁচ ধরনের পণ্য দেওয়া হয়। অনেক সময় দেখা যায়, একটা পণ্য পৌঁছাতে দেরি হলে জেলা প্রশাসকরা হাতে আসা পণ্যগুলো বিতরণ বন্ধ রাখেন। বাকি পণ্যটার অপেক্ষায় থাকেন।

“এখন থেকে যখন যেই পণ্য হাতে আসবে, বিতরণ শুরু করতে হবে। ডিলারদেরও পনের দিন-এক মাস মাল ধরে রাখার ব্যবস্থা নেই। এসব কারণে হয়তো ৭ থেকে ১০ দিন আগে পিছে হচ্ছে।”

একসময় পণ্য রপ্তানিতেও যুক্ত ছিল টিসিবি। এখন কেবল পণ্য আমদানির মাধ্যমে তা সাধারণ মানুষের মধ্যে বিতরণ করে থাকে প্রতিষ্ঠানটি। ভবিষ্যতে প্রতিটি গ্রাম থেকে স্থানীয় কারুপণ্য ও অন্যান্য পণ্য টিসিবি ও অন্যান্য অনলাইন শপের মাধ্যমে বিতরণ করা হবে বলে জানান প্রতিমন্ত্রী।

বিভিন্ন দেশ থেকে জিটুজি ভিত্তিতে পণ্য সংগ্রহ করার চেষ্টা চলছে বলেও জানান টিটু।

“রাশিয়া, ব্রাজিলসহ অন্যান্য দেশের সঙ্গে আমরা পণ্যভিত্তিক বিভিন্ন চুক্তি করার চেষ্টা করছি, যাতে করে প্রয়োজন মতো আমদানি করে বাজারের চাহিদা পূরণ করতে পারি। যখন যেইটা লাগে তা সোর্সিং করে টিসিবির মাধ্যমে আমরা মানুষের হাতে পৌঁছে দেব।

“কেবল শ্রমিক শ্রেণি নয়, প্রয়োজনে নিম্ন ও মধ্যবিত্ত মানুষের হাতেও যেন ন্যায্য মূল্যের পণ্য পৌঁছে দেওয়া যায়- আমরা চেষ্টা করছি।”

ছবি

কোন দেশে কেন্দ্রীয় ব্যাংকে সাংবাদিক ঢুকতে পারেন, প্রশ্ন মন্ত্রীর

ছবি

ঘূর্ণিঝড় রেমাল : স্কুল বন্ধ থাকা নিয়ে যা জানালেন শিক্ষামন্ত্রী

ছবি

মরদেহ উদ্ধারে কলকাতা পুলিশকে সহযোগিতা করব : ডিবি প্রধান

ছবি

ইউনূসের বিরুদ্ধে সাড়ে ৯ কোটি টাকা অবৈধ ঋণ দেওয়ার অভিযোগ দুদকে

ছবি

সব মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের ছুটি বাতিল

ছবি

উপকূলীয় এলাকায় লঞ্চসহ সব নৌযান চলাচল বন্ধের নির্দেশ

ছবি

ঘূর্ণিঝড় ‘রিমাল’, পায়রা ও মোংলায় ৭ নম্বর বিপদ সংকেত

ছবি

জবির আধুনিক ক্যাম্পাসের কাজ খুব তাড়াতাড়ি শুরু করব : প্রধানমন্ত্রী

ছবি

হারুনের নেতৃত্বে এমপি আনারের খুনের তদন্তে ভারত যাবে ডিবি

ছবি

ঢাকায় কোনো বস্তি থাকবে না, দিনমজুররাও ফ্ল্যাটে থাকবে : প্রধানমন্ত্রী

ছবি

বিএনপির পৃষ্ঠপোষকতায় বাংলাদেশে কিছু সাম্প্রদায়িক শক্তি তৎপর: কাদের

ছবি

১০তলা বঙ্গবাজার মার্কেটসহ ৪ প্রকল্পের উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী

ছবি

নেতানিয়াহুর বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানার দাবি সমর্থন করি: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

ছবি

বিচারপতিদের অপসারণ, ষোড়শ সংশোধনীর রিভিউ শুনানি ১১ জুলাই

ছবি

গভীর সাগরে যেতে মানা, জেলেদের উপকূলে ফেরার নির্দেশ

নদী রক্ষা এবং সুষম পানি নিশ্চিত করার জন্য আঞ্চলিক পদক্ষেপ প্রয়োজন : পররাষ্ট্রমন্ত্রী

ছবি

চট্টগ্রাম-মায়ানমার নিয়ে খ্রিস্টান রাষ্ট্র বানানোর ষড়যন্ত্র চলছে: প্রধানমন্ত্রী

ছবি

ঈদ যাত্রা নিরাপদ করতে ১১ দিন বন্ধ থাকবে বাল্কহেড

ছবি

এমপি আনারের হত্যাকারীদের প্রায় চিহ্নিত করে ফেলেছি: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

ছবি

নৌপথে গোয়েন্দা নজরদারি বাড়ানোর নির্দেশ প্রতিমন্ত্রীর

মরদেহ উদ্ধার হয়নি, তবে হত্যার প্রমাণ পেয়েছে পশ্চিমবঙ্গ পুলিশ

ছবি

কলকাতায় ‘খুন’ ঝিনাইদহের নিখোঁজ এমপি

ছবি

প্রধানমন্ত্রীর প্যারিস সফরে, এয়ারবাসের উড়োজাহাজ কেনার চুক্তি: ফরাসি দূতের

উপজেলা নির্বাচনের দ্বিতীয় ধাপের ভোটের হার ৩৮ শতাংশ

ছবি

দক্ষ মানব সম্পদ তৈরিতে ‘ইউসেফ বাংলাদেশ’ কাজ করে যাচ্ছে : স্পিকার

ছবি

ব্যক্তিগত দায়ে সাবেক সেনাপ্রধান আজিজের নিষেধাজ্ঞা : পররাষ্ট্রমন্ত্রী

ছবি

এমপি আনোয়ারুল আজিমের লাশ পাওয়া গেছে কিনা জানায়নি কলকাতা পুলিশ

মামলার জট কমাতে কাজ হচ্ছে : প্রধান বিচারপতি

ছবি

বিদ্যুতের প্রিপেইড মিটারে বাড়তি চার্জ : সংশ্লিষ্টদের আইনি নোটিশ

ছবি

পশ্চিমবঙ্গের যে ফ্ল্যাটে আনোয়ারুলকে হত্যা করা হয়েছে, সেখানে লাশ পাওয়া যায়নি : পররাষ্ট্রমন্ত্রী

ছবি

শেরেবাংলা নগর থানায় মামলা করবে এমপির মেয়ে: ডিবিপ্রধান

ছবি

বাবার হত্যার বিচার চাই: ডরিন

ছবি

এমপি আনোয়ারুল আজীমের মৃত্যুতে প্রধানমন্ত্রীর শোক

ছবি

বঙ্গোপসাগরে লঘুচাপ

ছবি

আরও ১ হজযাত্রীর মৃত্যু, সৌদি গেলেন ৩৪৭৪১ জন

ছবি

এমপি আনোয়ারুল আজিমের মরদেহ কলকাতায় উদ্ধার

tab

জাতীয়

টিসিবির তালিকা হালনাগাদ করতে চাই:বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী

সংবাদ অনলাইন রিপোর্ট

মঙ্গলবার, ১৬ এপ্রিল ২০২৪

টিসিবির উপকার ভোগীর তালিকাটাও হালনাগাদ করতে চাই। আমাদের তালিকা হয়েছিল কোভিডের সময়। তখন অনেকে কর্ম হারিয়েছিল, অনেকে অসহায় হয়ে গিয়েছিল। গত ২/৩ বছরে পরিস্থিতি অনেক পরিবর্তন হয়েছে, অনেকে মারা গেছে। এই তালিকা আমরা হালনাগাদ করতে দিয়েছে বলে জানান বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী আহসানুল ইসলাম টিটু।”

মঙ্গলবার (১৬ এপ্রিল) ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে মিট দ্য রিপোর্টার্স অনুষ্ঠানে তিনি বলেন, “আগামী কয়েক মাসের মধ্যে টিসিবির বর্তমান এককোটি উপকার ভোগীর নামের তালিকা হালনাগাদ করা হবে। নিম্ন আয়ের মানুষের পাশাপাশি মধ্য আয়ের মানুষজনের হাতেও টিসিবির ন্যায্য মূল্যের পণ্য তুলে দেওয়া হবে।

“এছাড়া ওএমএসের মতোই স্থায়ী দোকান অবকাঠামো আছে- এমন ব্যক্তিদেরকে টিসিবির ডিলার হিসাবে নিয়োগ দেওয়া হবে।”

দুই বছর আগেও টিসিবির ট্রাক থেকে যেকোনো মানুষ নির্দিষ্ট টাকার বিনিময়ে নির্ধারিত পণ্য কিনতে পারতেন। দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধগতির কারণে এসব ট্রাকের পেছনে মানুষের উপচেপড়া ভিড় শুরু হওয়ায় এক পর্যায়ে বন্ধ হয়ে যায় ট্রাক সেল। পরে এক কোটি উপকার ভোগী নির্বাচন করে তাদের মাঝে পণ্য বিতরণ শুরু হয়।

আহসানুল ইসলাম টিটু বলেন, “২/৩ মাসের মধ্যে টিসিবির ডিলারদের স্থায়ী দোকানের মধ্যে নিয়ে আসার চেষ্টা করছি, মানুষের যাতে সময় নষ্ট না হয়। মানুষ যাতে গিয়ে তার ন্যায্য মূল্যের পণ্যটি নিয়ে চলে আসতে পারে।

কেমন পরিবর্তন আসছে, সে সম্পর্কে বলতে গিয়ে বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী বলেন, “ভর্তুকি মূল্যে নয়, আমরা যেন ন্যায্য মূল্যে পণ্য দিতে পারি- সেই দিকে বেশি নজর দেব। আমরা টিসিবির ক্যাপাসিটি বাড়ানোর চেষ্টা করছি।

“নিজস্ব গুদাম বাড়ানোর চেষ্টা করছি। পর্যাপ্ত পরিমাণে সরবরাহ থাকলে বাজারে কৃত্রিম সংকট তৈরি হবে না।”

অনুষ্ঠানে এক সাংবাদিক বলেন, টিসিবি ফ্যামিলি কার্ডের মাধ্যমে সুলভ মূল্যে পণ্য বিপণন করলেও অনেক জেলা-উপজেলায় সময় মতো সেই পণ্য পৌঁছায় না।

এ বিষয়ে টিটু বলেন, “নিরবচ্ছিন্ন সরবরাহের জন্য একটি বাফার স্টক থাকা জরুরি। সেজন্য গুদাম দরকার। আমরা ইতোমধ্যেই চট্টগ্রামে একটা ৪০ হাজার বর্গফুটের গুদাম তৈরি করেছি। অন্যান্য জেলায় আমরা গুদাম খুঁজছি।

“আমরা চেষ্টা করব, অতি দ্রুত সময়ের মধ্যে দুই মাসের মধ্যে বাফার স্টক তৈরি করার সক্ষমতা অর্জনের চেষ্টা করছি। তাহলে সব পণ্য একসঙ্গে সব দিকে সরবরাহ করা যাবে।”

বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী বলেন, “টিসিবিতে চার থেকে পাঁচ ধরনের পণ্য দেওয়া হয়। অনেক সময় দেখা যায়, একটা পণ্য পৌঁছাতে দেরি হলে জেলা প্রশাসকরা হাতে আসা পণ্যগুলো বিতরণ বন্ধ রাখেন। বাকি পণ্যটার অপেক্ষায় থাকেন।

“এখন থেকে যখন যেই পণ্য হাতে আসবে, বিতরণ শুরু করতে হবে। ডিলারদেরও পনের দিন-এক মাস মাল ধরে রাখার ব্যবস্থা নেই। এসব কারণে হয়তো ৭ থেকে ১০ দিন আগে পিছে হচ্ছে।”

একসময় পণ্য রপ্তানিতেও যুক্ত ছিল টিসিবি। এখন কেবল পণ্য আমদানির মাধ্যমে তা সাধারণ মানুষের মধ্যে বিতরণ করে থাকে প্রতিষ্ঠানটি। ভবিষ্যতে প্রতিটি গ্রাম থেকে স্থানীয় কারুপণ্য ও অন্যান্য পণ্য টিসিবি ও অন্যান্য অনলাইন শপের মাধ্যমে বিতরণ করা হবে বলে জানান প্রতিমন্ত্রী।

বিভিন্ন দেশ থেকে জিটুজি ভিত্তিতে পণ্য সংগ্রহ করার চেষ্টা চলছে বলেও জানান টিটু।

“রাশিয়া, ব্রাজিলসহ অন্যান্য দেশের সঙ্গে আমরা পণ্যভিত্তিক বিভিন্ন চুক্তি করার চেষ্টা করছি, যাতে করে প্রয়োজন মতো আমদানি করে বাজারের চাহিদা পূরণ করতে পারি। যখন যেইটা লাগে তা সোর্সিং করে টিসিবির মাধ্যমে আমরা মানুষের হাতে পৌঁছে দেব।

“কেবল শ্রমিক শ্রেণি নয়, প্রয়োজনে নিম্ন ও মধ্যবিত্ত মানুষের হাতেও যেন ন্যায্য মূল্যের পণ্য পৌঁছে দেওয়া যায়- আমরা চেষ্টা করছি।”

back to top