alt

জাতীয়

ডেঙ্গু নিয়ে বড় শঙ্কা : সাড়ে ৫ মাসে আক্রান্ত ২৬শ’ মৃত্যু ৩৩

বাকী বিল্লাহ : সোমবার, ২০ মে ২০২৪

গত ২৪ ঘণ্টায় ডেঙ্গুজ্বরে আক্রান্ত হয়ে ৩৪ জন হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে। এ নিয়ে চলতি বছরের গতকাল পর্যন্ত ডেঙ্গুজ্বরে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে ২ হাজার ৬শ’ ২৮ জন। তার মধ্যে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন ৩৩ জন। এভাবে প্রতিদিন আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে। মহাখালী স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তথ্য।

প্রাপ্ত তথ্য মতে, গত জানুয়ারি মাসে ডেঙ্গুজ্বরে আক্রান্ত হয়েছে এক হাজার ৫৫ জন। তার মধ্যে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছে ১৪ জন। গত ফেব্রুয়ারি মাসে ডেঙ্গুজ্বরে আক্রান্ত হয়েছে ৩৩৯ জন। চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছে ৩ জন। গত মার্চ মাসে আক্রান্ত হয়েছে ৩১১ জন। চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছে ৫ জন। গত এপ্রিল মাসে তীব্র দাবদাহের মধ্যে ডেঙ্গুজ্বরে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে ৫০৪ জন। তার মধ্যে মারা গেছেন ২ জন।

চলতি মে মাসের গতকাল পর্যন্ত ডেঙ্গুজ্বরে আক্রান্ত হয়েছে ৪১৯ জন। তার চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন ৯ জন। এভাবে ভর্তি ও আক্রান্তের সংখ্যা এখন বাড়ছে।

বৃষ্টি ও বর্তমান তাপমাত্রায় ডেঙ্গুজ্বরের বাহক এডিস মশার উপদ্রব আরও বাড়ার আশঙ্কা করছে কীটতত্ত¡ বিশেষজ্ঞরা। তাই এখনই সমন্বিত উদ্যোগ নিয়ে এডিস মশার প্রজননস্থল ধ্বংস না করলে পরিস্থিতির আরও অবনতির আশঙ্কা করা হচ্ছে। এ নিয়ে গতকাল মহাখালী স্বাস্থ্য অধিদপ্তরে পরবর্তী করণীয় নিয়ে বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে। আজও বৈঠক হতে পারে বলে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে বিষয়টি জানিয়েছেন।

কীটতত্ত¡ বিশেষজ্ঞরা সংবাদকে জানান, বর্তমান তাপমাত্রা, আবহাওয়া ও বৃষ্টিতে ডেঙ্গু প্রজননের উপযোগী। এতে ডেঙ্গু ভাইরাস আরও বাড়ার আশঙ্কা করা হচ্ছে। মৃত্যু আগের চেয়ে বাড়তে পারে বলেও আশঙ্কা করা হচ্ছে।

তাদের মতে, ডেঙ্গু পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে যত দ্রুত সম্ভব প্রজনন ক্ষেত্র ধ্বংস করলে পরিস্থিতির উন্নতি হবে। যার যার বাড়ি ও আঙিনা তার তার পরিষ্কার ও পরিচ্ছন্ন রাখতে হবে। এই লক্ষ্যে এখনই কাজ করতে হবে।

এদিকে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের ডেঙ্গু পরিস্থিতি ও করণীয় নিয়ে গতকাল দিনভর বিশেষজ্ঞদের একটি বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে। আজ আবার বৈঠক হবে বলে ওই কর্মকর্তা জানিয়েছেন। বৈঠকে করণীয় নিয়ে আলোচনা শেষে গাইডলাইন তৈরি করতে পারেন।

মহাখালী রোগতত্ত¡, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের সাবেক প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ডা. মোস্তাক হোসেন সংবাদকে জানান, পরিষ্কার ও পরিচ্ছন্নতা ঠিকমত করা হচ্ছে না। যার কারণে নতুন করে ডেঙ্গু পরিস্থিতির আবনতির দিকে যাচ্ছে। তাই এখন জনগণকে আরও সচেতন করে নিজ নিজ বাড়ির আঙ্গিনা (যেখানে পানি জমে থাকে) পরিস্কার-পরিচ্ছন্ন রাখতে হবে। বৃষ্টি ও আদ্রতার কারণে ডেঙ্গুর জীবনচক্র পরিবর্তন হচ্ছে।

একটু বৃষ্টিতে নির্মাণাধীন বাড়ির ছাদে জমে থাকা পানিতে, রাস্তায় জমে থাকা পানিতে, ফুলের টবে পানিতে এডিস মশার প্রজনন ও বংশ বিস্তার ঘটছে। তাই মানব সৃষ্ট জঞ্জাল ও নির্মাণাধীন কনস্ট্রাকশনে যাতে পানি জমে না থাকে তার জন্য এখনই কাজ শুরু করতে হবে। আসছে বর্ষা মৌসুমে পরিস্থিতির আরও অবনতির আশঙ্কা করা হচ্ছে।

বিশেষজ্ঞরা বলেন, পার্শ্ববর্তী দেশ ভারত, নেপাল ও শ্রীলঙ্কায় ডেঙ্গু পরিস্থিতি মোকাবিলায় সুনির্দিষ্ট ভাবে সমন্বয় করে কাজ করছে। অনেক দেশে আলাদা বিভাগ রয়েছে। তারা বছর জুড়ে এডিস মশা দমনে কাজ করছেন।

বাংলাদেশে এডিস মশা ও কিউলেক্স মশা দমনে বছর জুড়ে আলাদা বিভাগ গঠন করে উন্নত মানের ওষুধ প্রয়োগ করলে মশার উপদ্রব কমবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন। মশার উপদ্রব কমলে হাসপাতালে শিশুসহ নানা বয়সের মানুষকে যেতে হবে না। হাসপাতাল প্রস্তুতের দরকার নেই।

দরকার হলে রাজধানীতে থানা ও ওয়ার্ডভিত্তিক জনসচেতনতা সৃষ্টি করে মশার প্রজননস্থল ধ্বংস করতে হবে। আর ডেঙ্গু রোগের প্রাথমিক চিকিৎসা ও গাইডলাইন এলাকায় মেডিকেল ক্যাম্প চালু করে পরীক্ষা নিরীক্ষার মধ্যমে চিকিৎসা করলে পরিস্থিতির আরও উন্নতি হবে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

একজন সরকারি কর্মকর্তা বলেন, বর্তমানে শহরের পরিবেশ ও প্রতিবেশ কিংবা জীববৈচিত্র পরিবর্তন হয়েছে। ড্রেন পরিস্কার ও পরিচ্ছন্ন কমে গেছে। যেখানে সেখানে ময়লা ও বর্জ জমে দূষিত হচ্ছে, মশা জন্মাচ্ছে। এডিস মশা ছাড়াও কিউলেক্স মশার কামড়ে নগরবাসী অতিষ্ঠ।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রো-ভিসি (একাডেমিক) ডা. মোহাম্মদ আতিকুর রহমান সংবাদকে জানান, সরকার ও জনগণের সম্মিলিত প্রচেষ্টায় ডেঙ্গু পরিস্থিতির নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব। বৃষ্টির পরপরই স্কুল, কলেজের আঙ্গিনায় জমে থাকা পানি পরিস্কার করতে হবে। আর ডেঙ্গু আক্রান্ত শিশুকে দ্রুত চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে চিকিৎসা করাতে হবে। আর বয়স্করা আক্রান্ত হলে চিকিৎসকের পরিমর্শ নিয়ে ওষুধ সেবন করতে হবে।

ছবি

সবুজ বাংলাদেশ গড়ে তোলার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

ছবি

২০ বছরে হেফাজতে মৃত্যুর সংখ্যা জানতে চেয়েছেন হাইকোর্ট

ছবি

খালেদা জিয়া কৃষকের ভাগ্য নিয়েও ছিনিমিনি খেলেছিল

ছবি

ঈদ নিরাপত্তায় যেসব পরামর্শ দিলো পুলিশ

ছবি

সাভার-আশুলিয়া সড়কে কমেছে যানবাহনের চাপ

ছবি

আজ পবিত্র হজ

ছবি

চোরাইপথে আসা চিনি ছিনতাইচেষ্টায় ‘ছাত্রলীগের’ ৫ জন আটক

রঞ্জন সেনের চুক্তিভিত্তিক নিয়োগ ২ বছর বাড়ানো হলো

ছবি

মিঠা পানির মাছ উৎপাদনে চীনকে ছাড়িয়ে দ্বিতীয় বাংলাদেশ

ছবি

ওয়াশিংটন অ্যাকর্ডের সিগনেটরি স্বীকৃতি পেলো আইইবি

ছবি

এ বছরের পর আর টিকিট কালোবাজারি থাকবে না: র‌্যাব

ছবি

সৌদিতে আরও দুই বাংলাদেশি হজযাত্রীর মৃত্যু

ওমানের ভিসা নিষেধাজ্ঞা শিথিলের সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়েছে বাংলাদেশ

ছবি

মাসুমা খান মজলিস ইন্তেকাল করেছেন

মজলিসের স্ত্রী মাসুমা খান মজলিস আজ সকালে ইন্তেকাল করে

ছবি

আরও ৭০ উপজেলা ‘ভূমিহীন ও গৃহহীনমুক্ত’

ছবি

১৫২ কোটি টাকার সুদ মওকুফ করায় সাবেক ভ্যাট কমিশনারের বিরুদ্ধে দুদকের মামলা

ছবি

এয়ার অ্যারাবিয়ার ফ্লাইট ‘জরুরি অবস্থা’ ঘোষণা করে ঢাকায় ফিরল

ছবি

কক্সবাজারকে গৃহহীন ও ভূমিহীন মুক্ত ঘোষণা করলেন প্রধানমন্ত্রী

ছবি

নেপাল থেকে ৪০ মেগাওয়াট জলবিদ্যুৎ কিনবে সরকার

ছবি

প্রতিরক্ষা খাতে বাংলাদেশকে সহযোগিতা করতে চায় ইইউ : রাষ্ট্রদূত

ছবি

ভূমিহীন-গৃহহীনমুক্ত হলো আরও ৭০ উপজেলা

ছবি

এমপি আজিম চোরাচালানে যুক্ত ছিল, কখনোই বলিনি: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

ছবি

ঘূর্ণিঝড়ে ক্ষতিগ্রস্ত ঘরবাড়ি তৈরি করে দেব : প্রধানমন্ত্রী

ছবি

নতুন সেনাপ্রধান ওয়াকার-উজ-জামান

ছবি

আজিজ আহমেদের স্বজনদের পাসপোর্ট অনুসন্ধানে দুদকের চিঠি, ইসির তদন্ত কমিটি গঠন

ছবি

স্কাইডাইভে আশিক চৌধুরীর বিশ্বরেকর্ড উদযাপন করল স্পন্সর ইউসিবি

দেশে ফিরেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

ছবি

জঙ্গি-সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলুন- সিলেটে আইজিপি

ছবি

শেখ হাসিনার কারামুক্তি দিবস আগামী কাল

ছবি

পাকিস্তানে হামলায় সেনাবাহিনীর ক্যাপ্টেনসহ ৭ সৈন্য নিহত

ছবি

চেনা দুর্যোগগুলো অচেনা হয়ে উঠছে : দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ডিজি

ছবি

নরেন্দ্র মোদিকে বাংলাদেশে আমন্ত্রণ জানিয়েছেন শেখ হাসিনা

ছবি

বাজেট ডিব্রিফিং সেশনের উদ্বোধন করলেন স্পীকার

ছবি

রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধানে আন্তর্জাতিক সদিচ্ছার প্রয়োজন- সুইডেনের রাষ্ট্রদূতকে স্পিকার

আপাতত চাঁদপুর জেলায় কোন ভূমিহীন নেই

tab

জাতীয়

ডেঙ্গু নিয়ে বড় শঙ্কা : সাড়ে ৫ মাসে আক্রান্ত ২৬শ’ মৃত্যু ৩৩

বাকী বিল্লাহ

সোমবার, ২০ মে ২০২৪

গত ২৪ ঘণ্টায় ডেঙ্গুজ্বরে আক্রান্ত হয়ে ৩৪ জন হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে। এ নিয়ে চলতি বছরের গতকাল পর্যন্ত ডেঙ্গুজ্বরে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে ২ হাজার ৬শ’ ২৮ জন। তার মধ্যে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন ৩৩ জন। এভাবে প্রতিদিন আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে। মহাখালী স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তথ্য।

প্রাপ্ত তথ্য মতে, গত জানুয়ারি মাসে ডেঙ্গুজ্বরে আক্রান্ত হয়েছে এক হাজার ৫৫ জন। তার মধ্যে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছে ১৪ জন। গত ফেব্রুয়ারি মাসে ডেঙ্গুজ্বরে আক্রান্ত হয়েছে ৩৩৯ জন। চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছে ৩ জন। গত মার্চ মাসে আক্রান্ত হয়েছে ৩১১ জন। চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছে ৫ জন। গত এপ্রিল মাসে তীব্র দাবদাহের মধ্যে ডেঙ্গুজ্বরে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে ৫০৪ জন। তার মধ্যে মারা গেছেন ২ জন।

চলতি মে মাসের গতকাল পর্যন্ত ডেঙ্গুজ্বরে আক্রান্ত হয়েছে ৪১৯ জন। তার চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন ৯ জন। এভাবে ভর্তি ও আক্রান্তের সংখ্যা এখন বাড়ছে।

বৃষ্টি ও বর্তমান তাপমাত্রায় ডেঙ্গুজ্বরের বাহক এডিস মশার উপদ্রব আরও বাড়ার আশঙ্কা করছে কীটতত্ত¡ বিশেষজ্ঞরা। তাই এখনই সমন্বিত উদ্যোগ নিয়ে এডিস মশার প্রজননস্থল ধ্বংস না করলে পরিস্থিতির আরও অবনতির আশঙ্কা করা হচ্ছে। এ নিয়ে গতকাল মহাখালী স্বাস্থ্য অধিদপ্তরে পরবর্তী করণীয় নিয়ে বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে। আজও বৈঠক হতে পারে বলে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে বিষয়টি জানিয়েছেন।

কীটতত্ত¡ বিশেষজ্ঞরা সংবাদকে জানান, বর্তমান তাপমাত্রা, আবহাওয়া ও বৃষ্টিতে ডেঙ্গু প্রজননের উপযোগী। এতে ডেঙ্গু ভাইরাস আরও বাড়ার আশঙ্কা করা হচ্ছে। মৃত্যু আগের চেয়ে বাড়তে পারে বলেও আশঙ্কা করা হচ্ছে।

তাদের মতে, ডেঙ্গু পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে যত দ্রুত সম্ভব প্রজনন ক্ষেত্র ধ্বংস করলে পরিস্থিতির উন্নতি হবে। যার যার বাড়ি ও আঙিনা তার তার পরিষ্কার ও পরিচ্ছন্ন রাখতে হবে। এই লক্ষ্যে এখনই কাজ করতে হবে।

এদিকে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের ডেঙ্গু পরিস্থিতি ও করণীয় নিয়ে গতকাল দিনভর বিশেষজ্ঞদের একটি বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে। আজ আবার বৈঠক হবে বলে ওই কর্মকর্তা জানিয়েছেন। বৈঠকে করণীয় নিয়ে আলোচনা শেষে গাইডলাইন তৈরি করতে পারেন।

মহাখালী রোগতত্ত¡, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের সাবেক প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ডা. মোস্তাক হোসেন সংবাদকে জানান, পরিষ্কার ও পরিচ্ছন্নতা ঠিকমত করা হচ্ছে না। যার কারণে নতুন করে ডেঙ্গু পরিস্থিতির আবনতির দিকে যাচ্ছে। তাই এখন জনগণকে আরও সচেতন করে নিজ নিজ বাড়ির আঙ্গিনা (যেখানে পানি জমে থাকে) পরিস্কার-পরিচ্ছন্ন রাখতে হবে। বৃষ্টি ও আদ্রতার কারণে ডেঙ্গুর জীবনচক্র পরিবর্তন হচ্ছে।

একটু বৃষ্টিতে নির্মাণাধীন বাড়ির ছাদে জমে থাকা পানিতে, রাস্তায় জমে থাকা পানিতে, ফুলের টবে পানিতে এডিস মশার প্রজনন ও বংশ বিস্তার ঘটছে। তাই মানব সৃষ্ট জঞ্জাল ও নির্মাণাধীন কনস্ট্রাকশনে যাতে পানি জমে না থাকে তার জন্য এখনই কাজ শুরু করতে হবে। আসছে বর্ষা মৌসুমে পরিস্থিতির আরও অবনতির আশঙ্কা করা হচ্ছে।

বিশেষজ্ঞরা বলেন, পার্শ্ববর্তী দেশ ভারত, নেপাল ও শ্রীলঙ্কায় ডেঙ্গু পরিস্থিতি মোকাবিলায় সুনির্দিষ্ট ভাবে সমন্বয় করে কাজ করছে। অনেক দেশে আলাদা বিভাগ রয়েছে। তারা বছর জুড়ে এডিস মশা দমনে কাজ করছেন।

বাংলাদেশে এডিস মশা ও কিউলেক্স মশা দমনে বছর জুড়ে আলাদা বিভাগ গঠন করে উন্নত মানের ওষুধ প্রয়োগ করলে মশার উপদ্রব কমবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন। মশার উপদ্রব কমলে হাসপাতালে শিশুসহ নানা বয়সের মানুষকে যেতে হবে না। হাসপাতাল প্রস্তুতের দরকার নেই।

দরকার হলে রাজধানীতে থানা ও ওয়ার্ডভিত্তিক জনসচেতনতা সৃষ্টি করে মশার প্রজননস্থল ধ্বংস করতে হবে। আর ডেঙ্গু রোগের প্রাথমিক চিকিৎসা ও গাইডলাইন এলাকায় মেডিকেল ক্যাম্প চালু করে পরীক্ষা নিরীক্ষার মধ্যমে চিকিৎসা করলে পরিস্থিতির আরও উন্নতি হবে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

একজন সরকারি কর্মকর্তা বলেন, বর্তমানে শহরের পরিবেশ ও প্রতিবেশ কিংবা জীববৈচিত্র পরিবর্তন হয়েছে। ড্রেন পরিস্কার ও পরিচ্ছন্ন কমে গেছে। যেখানে সেখানে ময়লা ও বর্জ জমে দূষিত হচ্ছে, মশা জন্মাচ্ছে। এডিস মশা ছাড়াও কিউলেক্স মশার কামড়ে নগরবাসী অতিষ্ঠ।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রো-ভিসি (একাডেমিক) ডা. মোহাম্মদ আতিকুর রহমান সংবাদকে জানান, সরকার ও জনগণের সম্মিলিত প্রচেষ্টায় ডেঙ্গু পরিস্থিতির নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব। বৃষ্টির পরপরই স্কুল, কলেজের আঙ্গিনায় জমে থাকা পানি পরিস্কার করতে হবে। আর ডেঙ্গু আক্রান্ত শিশুকে দ্রুত চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে চিকিৎসা করাতে হবে। আর বয়স্করা আক্রান্ত হলে চিকিৎসকের পরিমর্শ নিয়ে ওষুধ সেবন করতে হবে।

back to top