alt

জাতীয়

মরদেহ উদ্ধার হয়নি, তবে হত্যার প্রমাণ পেয়েছে পশ্চিমবঙ্গ পুলিশ

সংবাদ অনলাইন রিপোর্ট : বুধবার, ২২ মে ২০২৪

ভারতের পশ্চিমবঙ্গ পুলিশের মহাপরিদর্শক (সিআইডি) অখিলেশ চতুর্বেদী বলেছেন, বাংলাদেশের সংসদ সদস্য আনোয়ারুল আজিমের মরদেহ এখনো পায়নি পুলিশ। তবে কিছু প্রমাণের ভিত্তিতে তারা মনে করছেন যে তাকে হত্যা করা হয়েছে। বুধবার (২২ মে) বিকেলে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।

পশ্চিমবঙ্গ সিআইডিপ্রধান জানান, পূর্ব কলকাতার নিউটাউন অঞ্চলে যে ফ্ল্যাটে আনোয়ারুল আজিম উঠেছিলেন, সেটি পশ্চিমবঙ্গ সরকারের আবগারি দপ্তরের কর্মকর্তা সন্দীপ কুমার রায়ের। সন্দীপের কাছ থেকে ফ্ল্যাটটি ভাড়া নিয়েছিলেন আখতারুজ্জামান নামের এক ব্যক্তি। আখতারুজ্জামানই ওই ফ্ল্যাটে আনোয়ারুল আজিমের থাকার ব্যবস্থা করেছিলেন কিনা, তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

কলকাতার নিউটাউনের অভিজাত আবাসিক এলাকা সঞ্জীবনী গার্ডেনের ওই ফ্ল্যাটে আজ তল্লাশি চালিয়েছে পুলিশ। সেখানে কী ধরনের জিনিসপত্র পাওয়া গেছে বা রক্তের দাগ পাওয়া গেছে কিনা, সে বিষয়ে নির্দিষ্ট কিছু জানাননি অখিলেশ চতুর্বেদী। তিনি বলেছেন, পুলিশের ফরেনসিক বিভাগ তদন্তের কাজ শুরু করেছে। তদন্তে অগ্রগতি হয়েছে বলেও উল্লেখ করেন তিনি।

আনোয়ারুল আজিমের সঙ্গে কয়েকজন ব্যক্তি এই ফ্ল্যাটে এসেছিলেন জানিয়ে অখিলেশ চতুর্বেদী বলেন, ‘কিন্তু তারা কবে বেরিয়ে গেলেন, সে বিষয়ে আমরা তদন্তের স্বার্থে এখনই কিছু বলতে পারছি না। এটুকু বোঝা যাচ্ছে যে, ১৩ মে উনি এখানে এসেছিলেন। তবে তার আগেও এসেছিলেন কিনা, সেটা আমরা এখনো জানি না।’

আনোয়ারুল আজিমকে হত্যা করে দেহ খণ্ড খণ্ড করে ফেলা হয়েছে কিনা, সে বিষয়েও কিছু বলতে চাননি সিআইডি কর্মকর্তা অখিলেশ চতুর্বেদী।

ঝিনাইদহ-৪ আসনের সংসদ সদস্য আনোয়ারুল চিকিৎসার জন্য ১২ মে কলকাতায় যান। সেখানে গোপাল বিশ্বাস নামের এক পরিচিত ব্যক্তির বাসায় ওঠেন তিনি। পরদিন থেকে তার আর খোঁজ পাওয়া যাচ্ছিল না।

কলকাতা পুলিশ এখন এমপির সঙ্গে গাড়িতে থাকা ব্যক্তির খোঁজ করছে বলে জানা গেছে। পুলিশ সূত্র থেকে জানা যায়, গত ১৩ মে বাড়ি থেকে বেরিয়ে ভাড়া করা গাড়িতে দুপুর ১টা ৪১ মিনিটে বেরিয়েছিলেন তিনি। তারপর থেকে তার আর কোনো খোঁজ পাওয়া যায়নি। পুলিশ জানায়, সিসিটিভি ফুটেজ খতিয়ে দেখা হচ্ছে, কারা সংসদ সদস্য আনোয়ারুলের সঙ্গে দেখা করতে এসেছিলেন।

কলকাতা বিধান নগর পুলিশের ডেপুটি পুলিশ কমিশনার মানব শ্রিংলা বলেছেন, ‘জিজ্ঞাসাবাদে ক্যাবচালক জানিয়েছে, ১৩ মে যে ব্যক্তিকে তিনি গাড়িতে তুলেছিলেন।

পশ্চিমবঙ্গ পুলিশের অ্যান্টি টেরোরিস্ট ইউনিটের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, তদন্তে নেমে তারা প্রথমে এমপি আনোয়ারুল আজিমকে বহনকারী ক্যাবচালককে আটক করেন। সেই ক্যাবচালক তাদের জানিয়েছেন এমপি আজিমকে তার গাড়িতে তোলার পর আরও তিনজন গাড়িতে ওঠেন। তাদের মধ্যে দুজন পুরুষ ও একজন নারী। পরে এই চারজন কলকাতা নিউটাউনের ওই বাড়িতে যান। সিসিটিভি ফুটেজে ওই চারজনকে বাড়িতে প্রবেশ করতে দেখা গেছে। পরে তিনজন বাড়ি থেকে বেরিয়ে এলেও, তাদের মধ্যে এমপি আনোয়ারুলকে আর দেখা যায়নি।’

এটিএফ (অ্যান্টি-টেরোরিজম ফ্রন্ট) কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, ‘এদের মধ্যে পুরুষ দুজন বাংলাদেশে ফিরে যান। বাংলাদেশের গোয়েন্দা বিভাগকে জানানো হলে তারা সেই দুজনকে গ্রেপ্তার করে জিজ্ঞাসাবাদ করছে। তাদের দেয়া তথ্য কলকাতার পুলিশকে জানানো হয়েছে। এরপরেই এমপি আনোয়ারুল আজিমের মৃত্যুর বিষয়ে নিশ্চিত হয় পুলিশ। নিউটাউনের ফ্ল্যাটের ভেতরে রক্তের দাগ রয়েছে বলে পুলিশ জানিয়েছে। স্থানীয় পুলিশের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, যে ফ্ল্যাটে তাকে নিয়ে যাওয়া হয়েছে বলে সিসিটিভি ফুটেজে দেখা গেছে, সেটি পুলিশ ঘিরে রেখেছে। সেখানে কাউকে এখনও ঢুকতে দেয়া হচ্ছে না।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বিধাননগর পুলিশ কমিশনারেটের গোয়েন্দা বিভাগের এক উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা বলেন, আবাসনের সিসিটিভি ফুটেজও খতিয়ে দেখা হচ্ছে। নিরাপত্তা রক্ষীদেরও জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।’

কলকাতায় বাংলাদেশ উপ-দূতাবাস জানিয়েছে, সংসদ সদস্য আনোয়ারুল আজিমের মরদেহ উদ্ধারের বিষয়ে অফিসিয়ালি কোনো তথ্য তাদের জানানো হয়নি। তিনি নিখোঁজ হওয়ার পর তারা (উপ-দূতাবাসের কর্মকর্তা) দুই দেশের পুলিশ ও তদন্তকারীদের মধ্যে যোগাযোগ করিয়ে দেন। তদন্তকারীরা নিজেদের মধ্যে যোগাযোগ রেখে কাজ করছিলেন।

গত ১৮ মে বরাহনগর থানায় একটি মিসিং ডাইরি করেন আনোয়ারুল আজিম আনারের বন্ধু কলকাতার বরাহনগরের বাসিন্দা গোপাল বিশ্বাস।

২০ মে উপ-দূতাবাসের তরফে আনুষ্ঠানিকভাবে প্রেস সচিব রঞ্জন সেন জানান ‘বাংলাদেশ থেকে এমন খবর পেয়েই আমরা ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে যোগাযোগ করি। তারা খোঁজখবর করছেন এমনটাই আমাদের জানানো হয়েছে।’

গত প্রায় দশ দিন নিখোঁজ পাওয়ার পর সূত্র মারফত জানা গেছে, কলকাতার পার্শ্ববর্তী শহরাঞ্চল রাজারহাট নিউটনের বহুতল আভিযাত আবাসন সঞ্জীবা গার্ডেনসে বিইউ ৫৬ নম্বর রুমে ঝিনাইদহ-৪ আসনের সংসদ সদস্য আনোয়ারুল আজিম আনারের ৫৬ নম্বর রুমে ভিতরে রক্তের ছাপ পাওয়া যায়। তবে বিধাননগর পুলিশ কমিশনারেটের তরফ থেকে তার মৃতদেহ উদ্ধারের ব্যাপরে নিশ্চয়তা করেনি।

কঠোর নিরাপত্তা মধ্যে পুরো আবাসন বিধাননগর পুলিশ ঘিরে রেখেছে।

সূত্র মারফত আরও খবর পাওয়া গেছে, আনোয়ারুল আজিম আনার নিখোঁজ হওয়ার পর কলকাতা ও রাজ্য পুলিশের তরফ থেকে একটি স্পেশাল টাস্ক ফোর্স গঠন করে তদন্ত শুরু করে। তদন্তদল বেশ কয়েকজনকে গ্রেপ্তার করে। যাদের গ্রেপ্তার করেছিল তাদের মধ্যে দুইজনকে জিজ্ঞাসাবাদ করে রাজারহাট নিউটনের সঞ্জীবা গার্ডেনসে খোঁজ পায়।

কলকাতার পার্শ্ববর্তী শহরাঞ্চল রাজারহাট নিউটনের সঞ্জীবা গার্ডেনসে আশপাশে পুরোটাই বস্তি অঞ্চল। এই অঞ্চলেই অভিজাত আবাসন।

সূত্রে খবর, ওই আবাসনের সিসিটিভি ফুটেজ খতিয়ে দেখে পুলিশ জানতে পারে, গত ১৩ মে এই আবাসনে উঠেন আনোয়ার। তার সঙ্গে ছিলেন আরো তিন জন ব্যক্তি, যার মধ্যে ছিলেন একজন নারী। এরপর থেকে আনোয়ার আবাসনের বাইরে না বেরোলেও বাকিরা বেশ কয়েকবার বাইরে বের হন। সিসিটিভির ফটেজ সূত্রে ইতোমধ্যেই ওই ঘটনায় তিন জনকে আটক করা হয়েছে।

ছবি

সবুজ বাংলাদেশ গড়ে তোলার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

ছবি

২০ বছরে হেফাজতে মৃত্যুর সংখ্যা জানতে চেয়েছেন হাইকোর্ট

ছবি

খালেদা জিয়া কৃষকের ভাগ্য নিয়েও ছিনিমিনি খেলেছিল

ছবি

ঈদ নিরাপত্তায় যেসব পরামর্শ দিলো পুলিশ

ছবি

সাভার-আশুলিয়া সড়কে কমেছে যানবাহনের চাপ

ছবি

আজ পবিত্র হজ

ছবি

চোরাইপথে আসা চিনি ছিনতাইচেষ্টায় ‘ছাত্রলীগের’ ৫ জন আটক

রঞ্জন সেনের চুক্তিভিত্তিক নিয়োগ ২ বছর বাড়ানো হলো

ছবি

মিঠা পানির মাছ উৎপাদনে চীনকে ছাড়িয়ে দ্বিতীয় বাংলাদেশ

ছবি

ওয়াশিংটন অ্যাকর্ডের সিগনেটরি স্বীকৃতি পেলো আইইবি

ছবি

এ বছরের পর আর টিকিট কালোবাজারি থাকবে না: র‌্যাব

ছবি

সৌদিতে আরও দুই বাংলাদেশি হজযাত্রীর মৃত্যু

ওমানের ভিসা নিষেধাজ্ঞা শিথিলের সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়েছে বাংলাদেশ

ছবি

মাসুমা খান মজলিস ইন্তেকাল করেছেন

মজলিসের স্ত্রী মাসুমা খান মজলিস আজ সকালে ইন্তেকাল করে

ছবি

আরও ৭০ উপজেলা ‘ভূমিহীন ও গৃহহীনমুক্ত’

ছবি

১৫২ কোটি টাকার সুদ মওকুফ করায় সাবেক ভ্যাট কমিশনারের বিরুদ্ধে দুদকের মামলা

ছবি

এয়ার অ্যারাবিয়ার ফ্লাইট ‘জরুরি অবস্থা’ ঘোষণা করে ঢাকায় ফিরল

ছবি

কক্সবাজারকে গৃহহীন ও ভূমিহীন মুক্ত ঘোষণা করলেন প্রধানমন্ত্রী

ছবি

নেপাল থেকে ৪০ মেগাওয়াট জলবিদ্যুৎ কিনবে সরকার

ছবি

প্রতিরক্ষা খাতে বাংলাদেশকে সহযোগিতা করতে চায় ইইউ : রাষ্ট্রদূত

ছবি

ভূমিহীন-গৃহহীনমুক্ত হলো আরও ৭০ উপজেলা

ছবি

এমপি আজিম চোরাচালানে যুক্ত ছিল, কখনোই বলিনি: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

ছবি

ঘূর্ণিঝড়ে ক্ষতিগ্রস্ত ঘরবাড়ি তৈরি করে দেব : প্রধানমন্ত্রী

ছবি

নতুন সেনাপ্রধান ওয়াকার-উজ-জামান

ছবি

আজিজ আহমেদের স্বজনদের পাসপোর্ট অনুসন্ধানে দুদকের চিঠি, ইসির তদন্ত কমিটি গঠন

ছবি

স্কাইডাইভে আশিক চৌধুরীর বিশ্বরেকর্ড উদযাপন করল স্পন্সর ইউসিবি

দেশে ফিরেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

ছবি

জঙ্গি-সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলুন- সিলেটে আইজিপি

ছবি

শেখ হাসিনার কারামুক্তি দিবস আগামী কাল

ছবি

পাকিস্তানে হামলায় সেনাবাহিনীর ক্যাপ্টেনসহ ৭ সৈন্য নিহত

ছবি

চেনা দুর্যোগগুলো অচেনা হয়ে উঠছে : দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ডিজি

ছবি

নরেন্দ্র মোদিকে বাংলাদেশে আমন্ত্রণ জানিয়েছেন শেখ হাসিনা

ছবি

বাজেট ডিব্রিফিং সেশনের উদ্বোধন করলেন স্পীকার

ছবি

রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধানে আন্তর্জাতিক সদিচ্ছার প্রয়োজন- সুইডেনের রাষ্ট্রদূতকে স্পিকার

আপাতত চাঁদপুর জেলায় কোন ভূমিহীন নেই

tab

জাতীয়

মরদেহ উদ্ধার হয়নি, তবে হত্যার প্রমাণ পেয়েছে পশ্চিমবঙ্গ পুলিশ

সংবাদ অনলাইন রিপোর্ট

বুধবার, ২২ মে ২০২৪

ভারতের পশ্চিমবঙ্গ পুলিশের মহাপরিদর্শক (সিআইডি) অখিলেশ চতুর্বেদী বলেছেন, বাংলাদেশের সংসদ সদস্য আনোয়ারুল আজিমের মরদেহ এখনো পায়নি পুলিশ। তবে কিছু প্রমাণের ভিত্তিতে তারা মনে করছেন যে তাকে হত্যা করা হয়েছে। বুধবার (২২ মে) বিকেলে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।

পশ্চিমবঙ্গ সিআইডিপ্রধান জানান, পূর্ব কলকাতার নিউটাউন অঞ্চলে যে ফ্ল্যাটে আনোয়ারুল আজিম উঠেছিলেন, সেটি পশ্চিমবঙ্গ সরকারের আবগারি দপ্তরের কর্মকর্তা সন্দীপ কুমার রায়ের। সন্দীপের কাছ থেকে ফ্ল্যাটটি ভাড়া নিয়েছিলেন আখতারুজ্জামান নামের এক ব্যক্তি। আখতারুজ্জামানই ওই ফ্ল্যাটে আনোয়ারুল আজিমের থাকার ব্যবস্থা করেছিলেন কিনা, তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

কলকাতার নিউটাউনের অভিজাত আবাসিক এলাকা সঞ্জীবনী গার্ডেনের ওই ফ্ল্যাটে আজ তল্লাশি চালিয়েছে পুলিশ। সেখানে কী ধরনের জিনিসপত্র পাওয়া গেছে বা রক্তের দাগ পাওয়া গেছে কিনা, সে বিষয়ে নির্দিষ্ট কিছু জানাননি অখিলেশ চতুর্বেদী। তিনি বলেছেন, পুলিশের ফরেনসিক বিভাগ তদন্তের কাজ শুরু করেছে। তদন্তে অগ্রগতি হয়েছে বলেও উল্লেখ করেন তিনি।

আনোয়ারুল আজিমের সঙ্গে কয়েকজন ব্যক্তি এই ফ্ল্যাটে এসেছিলেন জানিয়ে অখিলেশ চতুর্বেদী বলেন, ‘কিন্তু তারা কবে বেরিয়ে গেলেন, সে বিষয়ে আমরা তদন্তের স্বার্থে এখনই কিছু বলতে পারছি না। এটুকু বোঝা যাচ্ছে যে, ১৩ মে উনি এখানে এসেছিলেন। তবে তার আগেও এসেছিলেন কিনা, সেটা আমরা এখনো জানি না।’

আনোয়ারুল আজিমকে হত্যা করে দেহ খণ্ড খণ্ড করে ফেলা হয়েছে কিনা, সে বিষয়েও কিছু বলতে চাননি সিআইডি কর্মকর্তা অখিলেশ চতুর্বেদী।

ঝিনাইদহ-৪ আসনের সংসদ সদস্য আনোয়ারুল চিকিৎসার জন্য ১২ মে কলকাতায় যান। সেখানে গোপাল বিশ্বাস নামের এক পরিচিত ব্যক্তির বাসায় ওঠেন তিনি। পরদিন থেকে তার আর খোঁজ পাওয়া যাচ্ছিল না।

কলকাতা পুলিশ এখন এমপির সঙ্গে গাড়িতে থাকা ব্যক্তির খোঁজ করছে বলে জানা গেছে। পুলিশ সূত্র থেকে জানা যায়, গত ১৩ মে বাড়ি থেকে বেরিয়ে ভাড়া করা গাড়িতে দুপুর ১টা ৪১ মিনিটে বেরিয়েছিলেন তিনি। তারপর থেকে তার আর কোনো খোঁজ পাওয়া যায়নি। পুলিশ জানায়, সিসিটিভি ফুটেজ খতিয়ে দেখা হচ্ছে, কারা সংসদ সদস্য আনোয়ারুলের সঙ্গে দেখা করতে এসেছিলেন।

কলকাতা বিধান নগর পুলিশের ডেপুটি পুলিশ কমিশনার মানব শ্রিংলা বলেছেন, ‘জিজ্ঞাসাবাদে ক্যাবচালক জানিয়েছে, ১৩ মে যে ব্যক্তিকে তিনি গাড়িতে তুলেছিলেন।

পশ্চিমবঙ্গ পুলিশের অ্যান্টি টেরোরিস্ট ইউনিটের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, তদন্তে নেমে তারা প্রথমে এমপি আনোয়ারুল আজিমকে বহনকারী ক্যাবচালককে আটক করেন। সেই ক্যাবচালক তাদের জানিয়েছেন এমপি আজিমকে তার গাড়িতে তোলার পর আরও তিনজন গাড়িতে ওঠেন। তাদের মধ্যে দুজন পুরুষ ও একজন নারী। পরে এই চারজন কলকাতা নিউটাউনের ওই বাড়িতে যান। সিসিটিভি ফুটেজে ওই চারজনকে বাড়িতে প্রবেশ করতে দেখা গেছে। পরে তিনজন বাড়ি থেকে বেরিয়ে এলেও, তাদের মধ্যে এমপি আনোয়ারুলকে আর দেখা যায়নি।’

এটিএফ (অ্যান্টি-টেরোরিজম ফ্রন্ট) কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, ‘এদের মধ্যে পুরুষ দুজন বাংলাদেশে ফিরে যান। বাংলাদেশের গোয়েন্দা বিভাগকে জানানো হলে তারা সেই দুজনকে গ্রেপ্তার করে জিজ্ঞাসাবাদ করছে। তাদের দেয়া তথ্য কলকাতার পুলিশকে জানানো হয়েছে। এরপরেই এমপি আনোয়ারুল আজিমের মৃত্যুর বিষয়ে নিশ্চিত হয় পুলিশ। নিউটাউনের ফ্ল্যাটের ভেতরে রক্তের দাগ রয়েছে বলে পুলিশ জানিয়েছে। স্থানীয় পুলিশের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, যে ফ্ল্যাটে তাকে নিয়ে যাওয়া হয়েছে বলে সিসিটিভি ফুটেজে দেখা গেছে, সেটি পুলিশ ঘিরে রেখেছে। সেখানে কাউকে এখনও ঢুকতে দেয়া হচ্ছে না।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বিধাননগর পুলিশ কমিশনারেটের গোয়েন্দা বিভাগের এক উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা বলেন, আবাসনের সিসিটিভি ফুটেজও খতিয়ে দেখা হচ্ছে। নিরাপত্তা রক্ষীদেরও জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।’

কলকাতায় বাংলাদেশ উপ-দূতাবাস জানিয়েছে, সংসদ সদস্য আনোয়ারুল আজিমের মরদেহ উদ্ধারের বিষয়ে অফিসিয়ালি কোনো তথ্য তাদের জানানো হয়নি। তিনি নিখোঁজ হওয়ার পর তারা (উপ-দূতাবাসের কর্মকর্তা) দুই দেশের পুলিশ ও তদন্তকারীদের মধ্যে যোগাযোগ করিয়ে দেন। তদন্তকারীরা নিজেদের মধ্যে যোগাযোগ রেখে কাজ করছিলেন।

গত ১৮ মে বরাহনগর থানায় একটি মিসিং ডাইরি করেন আনোয়ারুল আজিম আনারের বন্ধু কলকাতার বরাহনগরের বাসিন্দা গোপাল বিশ্বাস।

২০ মে উপ-দূতাবাসের তরফে আনুষ্ঠানিকভাবে প্রেস সচিব রঞ্জন সেন জানান ‘বাংলাদেশ থেকে এমন খবর পেয়েই আমরা ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে যোগাযোগ করি। তারা খোঁজখবর করছেন এমনটাই আমাদের জানানো হয়েছে।’

গত প্রায় দশ দিন নিখোঁজ পাওয়ার পর সূত্র মারফত জানা গেছে, কলকাতার পার্শ্ববর্তী শহরাঞ্চল রাজারহাট নিউটনের বহুতল আভিযাত আবাসন সঞ্জীবা গার্ডেনসে বিইউ ৫৬ নম্বর রুমে ঝিনাইদহ-৪ আসনের সংসদ সদস্য আনোয়ারুল আজিম আনারের ৫৬ নম্বর রুমে ভিতরে রক্তের ছাপ পাওয়া যায়। তবে বিধাননগর পুলিশ কমিশনারেটের তরফ থেকে তার মৃতদেহ উদ্ধারের ব্যাপরে নিশ্চয়তা করেনি।

কঠোর নিরাপত্তা মধ্যে পুরো আবাসন বিধাননগর পুলিশ ঘিরে রেখেছে।

সূত্র মারফত আরও খবর পাওয়া গেছে, আনোয়ারুল আজিম আনার নিখোঁজ হওয়ার পর কলকাতা ও রাজ্য পুলিশের তরফ থেকে একটি স্পেশাল টাস্ক ফোর্স গঠন করে তদন্ত শুরু করে। তদন্তদল বেশ কয়েকজনকে গ্রেপ্তার করে। যাদের গ্রেপ্তার করেছিল তাদের মধ্যে দুইজনকে জিজ্ঞাসাবাদ করে রাজারহাট নিউটনের সঞ্জীবা গার্ডেনসে খোঁজ পায়।

কলকাতার পার্শ্ববর্তী শহরাঞ্চল রাজারহাট নিউটনের সঞ্জীবা গার্ডেনসে আশপাশে পুরোটাই বস্তি অঞ্চল। এই অঞ্চলেই অভিজাত আবাসন।

সূত্রে খবর, ওই আবাসনের সিসিটিভি ফুটেজ খতিয়ে দেখে পুলিশ জানতে পারে, গত ১৩ মে এই আবাসনে উঠেন আনোয়ার। তার সঙ্গে ছিলেন আরো তিন জন ব্যক্তি, যার মধ্যে ছিলেন একজন নারী। এরপর থেকে আনোয়ার আবাসনের বাইরে না বেরোলেও বাকিরা বেশ কয়েকবার বাইরে বের হন। সিসিটিভির ফটেজ সূত্রে ইতোমধ্যেই ওই ঘটনায় তিন জনকে আটক করা হয়েছে।

back to top