alt

জাতীয়

ঘূর্ণিঝড় রিমাল

এখনো বিদ্যুৎহীন ৬০ লাখের বেশী গ্রাহক

# এদের ৯০ ভাগ বুধবার সকালের মধ্যেই বিদ্যুৎ পাবেন, আশ্বাস বিদ্যুৎ বিভাগের #অবশিষ্টদের বিদ্যুৎ পেতে সময় লাগবে

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক : মঙ্গলবার, ২৮ মে ২০২৪

https://sangbad.net.bd/images/2024/May/28May24/news/Tusar-Sangbad-28.05.2024%20%281%29.jpg

ঘূর্ণিঝড় রিমালের প্রভাবে ৬০ লাখের বেশী গ্রাহক এখনো বিদ্যুৎ-বিচ্ছিন্ন আছেন। দ্রুত এসব সংযোগ চালু করতে কাজ করছে আরইবি, ওজোপাডিকোসহ সরকারের সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠান।

ওই ঝড়ের তাণ্ডবে দেশের তিন কোটির বেশী গ্রাহক বিদ্যুৎ-বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েন। মঙ্গলবার (২৮ মে) সন্ধ্যা ৭টার মধ্যে প্রায় ৮০ শতাংশ গ্রাহককে পুনরায় বিদ্যুৎ সংযোগ দেওয়া হয়েছে বলে এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানিয়েছে বিদ্যুৎ বিভাগ। মঙ্গলবার (২৮ মে) রাত ১০টার মধ্যে ৮৫ শতাংশ এবং বুধবার (২৯ মে) সকাল ১০ টার মধ্যে ৯০ শতাংশ গ্রাহককে পুনঃসংযোগ দেওয়া সম্ভব হবে বলে আশা প্রকাশ করা হয়েছে বিজ্ঞপ্তিতে।

https://sangbad.net.bd/images/2024/May/28May24/news/Tusar-Sangbad-28.05.2024%20%282%29.jpg

সংবাদের স্থানীয় প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর এবং বিদ্যুৎ বিভাগের তথ্য অনুযায়ি, উপকূলীয় জেলাগুলোতে সোমবার (২৭ মে) ঘূর্ণিঝড়ের তাণ্ডবে কোথাও বিদ্যুতের খুঁটি উপড়ে পড়ায়, কোথাও তার (বিতরণ লাইন) ছিঁড়ে যাওয়ায় আবার কোথায় সঞ্চালন লাইনের ওপর গাছপালা ভেঙে পড়ায় বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ হয়ে যায়। বিদ্যুৎহীন হয়ে পড়েন তিন কোটিরও বেশী গ্রাহক। ঝড় চলাকালে ক্ষয়ক্ষতি এড়াতে অনেক এলাকার বিদ্যুৎ সংযোগ বন্ধ রাখা হয়। ঝড়ের গতি কমে আসর পর থেকেই ক্ষতিগ্রস্থ লাইন মেরামতে এরমধ্যে অনেক এলাকায় কাজ শুরু হয়।

বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয় থেকে মঙ্গলবার (২৮ মে) রাত পৌনে ৮টার দিকে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ‘ঘূর্ণিঝড় রিমালের প্রভাবে দেশের সবচেয়ে বড় বিদ্যুৎ বিতরণ সংস্থা আরইবির তিন কোটি তিন লাখের বেশি গ্রাহক বিদ্যুৎ-বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েন। মঙ্গলবার (২৮ মে) সন্ধ্যা ৭টার মধ্যে ২ কোটি ৪২ লাখ গ্রাহকের পুনঃসংযোগ প্রদান করা হয়।’ মঙ্গলবার (২৮ মে) রাতের মধ্যে ৮৫ শতাংশ এবং বুধবার সকালের মধ্যে ৯০ শতাংশ গ্রাহকের পুনঃসংযোগ দেওয়া সম্ভব হবে বলে আশা প্রকাশ করা হয় বিজ্ঞপ্তিতে।

এর আগে বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, আরইবির সংযোগ বিচ্ছিন্ন তিন কোটি তিন লাখের বেশি গ্রাহকের মধ্যে প্রায় ১ কোটি ৭২ লাখ সংযোগ ফিরিয়ে আনা হয়েছে। সে হিসেবে, ১ কোটি ৩১ লাখ গ্রাহকের সংযোগ এখনো বিচ্ছিন্ন।

বুধবার (২৯ মে) পর্যন্ত অন্তত ৮০ শতাংশ গ্রাহককে সংযোগের আওতায় আনা গেলেও অবশিষ্ট গ্রাহকদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে মেরামতের কাজ করতে হবে বলে তাদের বিদ্যুৎ পেতে সময় বেশী লাগবে বলে জানানো হয় বিজ্ঞপ্তিতে।

দেশের অধিকাংশ গ্রামে ৮০টি সমিতির মাধ্যমে বিদ্যুৎ সরবরাহ করে পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ড (আরইবি)। বিদ্যুৎ বিভাগ জানায়, ঘূর্ণিঝড়ে ক্ষতিগ্রস্থ এলাকার সব সংযোগ ফিরিয়ে আনতে আরইবির ঠিকাদার, নিজস্ব জনবলসহ ৩০ হাজারের বেশি কর্মী মাঠে কাজ করছেন।

বিদ্যুৎ বিভাগের দেওয়া প্রাথমিক তথ্যানুসারে, ঘূর্ণিঝড় রিমালের কারণে আরইবির ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ ১০৩ কোটি ৩৩ লাখ টাকা।

খুলনা ও বরিশাল বিভাগের ১৬টি জেলার ২০টি উপজেলায় বিদ্যুৎ সরবরাহ করে ওয়েস্টজোন পাওয়ার ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি (ওজোপাডিকো)।

সরকারি এই বিতরণ কোম্পানির ১৫ লাখ ৪৮ হাজার ১৫৪ হাজার গ্রাহকের মধ্যে ১৪ লাখ ৩ হাজার ৫২৬ জন গ্রাহক এখন বিদ্যুৎ পাচ্ছেন বলে জানিয়েছেন বিদ্যুৎ বিভাগ। ১ লাখ ৪৪ হাজার ৬২৮ জন গ্রাহক এখনো বিদ্যুৎ-বিচ্ছিন্ন অবস্থায় আছেন। এই ঘূর্ণিঝড়ে ওজোপাডিকোর ৫ কোটি ৭ লাখ ৮১ হাজার টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে জানানো হয়েছে বিজ্ঞপ্তিতে।

বিদ্যুৎ বিভাগ থেকে সোমবার (২৭ মে) বিকেলে যে সংবাদ বিজ্ঞপ্তিটি পাঠানো হয় তাতে ঘূর্ণিঝড়ে উপকূলীয় এলাকায় বিদ্যুৎ বিতরণ ব্যবস্থার ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতির চিত্র ফুটে ওঠে। ঝড়ের তাণ্ডবে প্রাথমিক যে ক্ষয়-ক্ষতির পরিমাণ নিরূপণ করা হয়, তাতে দেখা যায় ৩০টি পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির ভৌগলিক এলাকায় ২৩৯২টি পোল ক্ষতিগ্রস্থ হয়। ট্রান্সফরমার বিকল হয় ১৯৮২টি। ইন্সুলেটর ভেঙে যায় ২১৮৪৮টি। ৬২৪৫৪টি স্থানে বিতরণ লাইন (তার) ছিড়ে যায়। মিটার বিকল হয় ৪৬৩১৮টি।

স্থানীয় প্রতিনিধিদের পাঠানো তথ্যে জানা যায়, ঘূর্ণিঝড় রিমালের তাণ্ডবে বাগেরহাটে পল্লী বিদ্যুতের সঞ্চালন লাইনে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতির কারণে দুদিন পরেও গ্রাহকদের কাছে বিদ্যুৎ পৌঁছানো যায়নি। প্রায় পাঁচ লাখ গ্রাহক অন্ধকারে রয়েছে। গত দুইদিন বিদ্যুৎ না থাকায় মানুষ মোবাইল ফোন চার্জ করতে পারছেন না, ফ্রিজে থাকা মাছ-মাংস নষ্ট হয়ে গেছে। কোথাও কোথাও মোবাইল, ইন্টারনেট সেবা ব্যাহত হচ্ছে।

পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির বাগেরহাট কার্যালয়ের মহাব্যবস্থাপক (চলতি দায়িত্ব) সুশান্ত রায় মঙ্গলবার (২৮ মে) দুপুরে সাংবাদিকদের বলেন, ‘ঘূর্ণিঝড়ের তা-বে তারের উপর গাছপালা উপড়ে এবং সঞ্চালন লাইন ছিঁড়ে পল্লী বিদ্যুতের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। দেড় হাজারের বেশি গাছপালা উপড়ে ৭০২টি পয়েন্টে তার ছিঁড়ে পড়েছে। ১৩০টি বিদ্যুতের খুঁটি উপড়ে ও ভেঙে গেছে, ৩৫টি ট্রান্সফরমার নষ্ট হয়েছে, ৩৯৪টি মিটার ভেঙে গেছে।’

সংশ্লিষ্ট এলাকার প্রতিনিধিরা জানান, অনেক এলাকায় সড়কের বিদ্যুতের তারের উপর গাছ পড়ে আছে, তার ছিঁড়ে ঝুলে সড়কের উপর পড়ে রয়েছে। বিদ্যুতের খুঁটি উপড়ে ও ভেঙে পড়েছে। ঝড়ের তাণ্ডবে পল্লী বিদ্যুতের লাইন লণ্ডভণ্ড হয়ে আছে। রাস্তার মোড়ে মোড়ে ঝড়ের ক্ষতচিহ্ন। তাতে পুরো জেলার বিদ্যুৎ পৌঁছতে বেশ কয়েকদিন লাগবে বলে মনে করছেন গ্রাহকরা।

একই অবস্থা উপকূলীয় শরণখোলা, মোরেলগঞ্জ, মোংলা ও রামপাল উপজেলাতে। পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির লোকজন শ্রমিক নিয়ে তারের উপরে পড়ে থাকা গাছপালা কেটে সরাচ্ছেন।

জেলার নয় উপজেলাসহ খুলনার কিছু অংশ নিয়ে পল্লী বিদ্যুতের এই বিভাগের অধীনে চার লাখ ৮৫ হাজার গ্রাহক রয়েছেন।

তারা কবে বিদ্যুৎ পাবেন, সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে সুশান্ত রায় বলেন, ‘শত শত শ্রমিক জেলার বিভিন্ন এলাকায় কাজ করছেন। যেসব এলাকাতে কম ক্ষতি হয়েছে সেসব এলাকায় দ্রুত বিদ্যুৎ দেওয়ার চেষ্টা করছি। পর্যায়ক্রমে সব এলাকায় বিদ্যুৎ চালু করা হবে।’

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, অনেক এলাকায় মোবাইল ফোন চার্জ দিতে জেনারেটর ভাড়া দেয় এমন ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে ভিড় করছেন স্থানীয়রা। প্রতিটি মোবাইল পূর্ণ চার্জ দিতে জেনারেটর মালিক ৩০ থেকে ৫০ টাকা পর্যন্ত নিচ্ছেন বলে জানা গেছে।

ছবি

নেতাদের সঙ্গে ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় করেছেন শেখ হাসিনা

ছবি

আজ পবিত্র ঈদুল আজহা

ছবি

বঙ্গভবনে শুভেচ্ছা বিনিময় করবেন রাষ্ট্রপতি

ছবি

ঈদুল আজহার ত্যাগের চেতনায় দেশ ও মানুষের কল্যাণে কাজ করার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

ছবি

সবুজ বাংলাদেশ গড়ে তোলার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

ছবি

২০ বছরে হেফাজতে মৃত্যুর সংখ্যা জানতে চেয়েছেন হাইকোর্ট

ছবি

খালেদা জিয়া কৃষকের ভাগ্য নিয়েও ছিনিমিনি খেলেছিল

ছবি

ঈদ নিরাপত্তায় যেসব পরামর্শ দিলো পুলিশ

ছবি

সাভার-আশুলিয়া সড়কে কমেছে যানবাহনের চাপ

ছবি

আজ পবিত্র হজ

ছবি

চোরাইপথে আসা চিনি ছিনতাইচেষ্টায় ‘ছাত্রলীগের’ ৫ জন আটক

রঞ্জন সেনের চুক্তিভিত্তিক নিয়োগ ২ বছর বাড়ানো হলো

ছবি

মিঠা পানির মাছ উৎপাদনে চীনকে ছাড়িয়ে দ্বিতীয় বাংলাদেশ

ছবি

ওয়াশিংটন অ্যাকর্ডের সিগনেটরি স্বীকৃতি পেলো আইইবি

ছবি

এ বছরের পর আর টিকিট কালোবাজারি থাকবে না: র‌্যাব

ছবি

সৌদিতে আরও দুই বাংলাদেশি হজযাত্রীর মৃত্যু

ওমানের ভিসা নিষেধাজ্ঞা শিথিলের সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়েছে বাংলাদেশ

ছবি

মাসুমা খান মজলিস ইন্তেকাল করেছেন

মজলিসের স্ত্রী মাসুমা খান মজলিস আজ সকালে ইন্তেকাল করে

ছবি

আরও ৭০ উপজেলা ‘ভূমিহীন ও গৃহহীনমুক্ত’

ছবি

১৫২ কোটি টাকার সুদ মওকুফ করায় সাবেক ভ্যাট কমিশনারের বিরুদ্ধে দুদকের মামলা

ছবি

এয়ার অ্যারাবিয়ার ফ্লাইট ‘জরুরি অবস্থা’ ঘোষণা করে ঢাকায় ফিরল

ছবি

কক্সবাজারকে গৃহহীন ও ভূমিহীন মুক্ত ঘোষণা করলেন প্রধানমন্ত্রী

ছবি

নেপাল থেকে ৪০ মেগাওয়াট জলবিদ্যুৎ কিনবে সরকার

ছবি

প্রতিরক্ষা খাতে বাংলাদেশকে সহযোগিতা করতে চায় ইইউ : রাষ্ট্রদূত

ছবি

ভূমিহীন-গৃহহীনমুক্ত হলো আরও ৭০ উপজেলা

ছবি

এমপি আজিম চোরাচালানে যুক্ত ছিল, কখনোই বলিনি: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

ছবি

ঘূর্ণিঝড়ে ক্ষতিগ্রস্ত ঘরবাড়ি তৈরি করে দেব : প্রধানমন্ত্রী

ছবি

নতুন সেনাপ্রধান ওয়াকার-উজ-জামান

ছবি

আজিজ আহমেদের স্বজনদের পাসপোর্ট অনুসন্ধানে দুদকের চিঠি, ইসির তদন্ত কমিটি গঠন

ছবি

স্কাইডাইভে আশিক চৌধুরীর বিশ্বরেকর্ড উদযাপন করল স্পন্সর ইউসিবি

দেশে ফিরেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

ছবি

জঙ্গি-সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলুন- সিলেটে আইজিপি

ছবি

শেখ হাসিনার কারামুক্তি দিবস আগামী কাল

ছবি

পাকিস্তানে হামলায় সেনাবাহিনীর ক্যাপ্টেনসহ ৭ সৈন্য নিহত

ছবি

চেনা দুর্যোগগুলো অচেনা হয়ে উঠছে : দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ডিজি

tab

জাতীয়

ঘূর্ণিঝড় রিমাল

এখনো বিদ্যুৎহীন ৬০ লাখের বেশী গ্রাহক

# এদের ৯০ ভাগ বুধবার সকালের মধ্যেই বিদ্যুৎ পাবেন, আশ্বাস বিদ্যুৎ বিভাগের #অবশিষ্টদের বিদ্যুৎ পেতে সময় লাগবে

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

মঙ্গলবার, ২৮ মে ২০২৪

https://sangbad.net.bd/images/2024/May/28May24/news/Tusar-Sangbad-28.05.2024%20%281%29.jpg

ঘূর্ণিঝড় রিমালের প্রভাবে ৬০ লাখের বেশী গ্রাহক এখনো বিদ্যুৎ-বিচ্ছিন্ন আছেন। দ্রুত এসব সংযোগ চালু করতে কাজ করছে আরইবি, ওজোপাডিকোসহ সরকারের সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠান।

ওই ঝড়ের তাণ্ডবে দেশের তিন কোটির বেশী গ্রাহক বিদ্যুৎ-বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েন। মঙ্গলবার (২৮ মে) সন্ধ্যা ৭টার মধ্যে প্রায় ৮০ শতাংশ গ্রাহককে পুনরায় বিদ্যুৎ সংযোগ দেওয়া হয়েছে বলে এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানিয়েছে বিদ্যুৎ বিভাগ। মঙ্গলবার (২৮ মে) রাত ১০টার মধ্যে ৮৫ শতাংশ এবং বুধবার (২৯ মে) সকাল ১০ টার মধ্যে ৯০ শতাংশ গ্রাহককে পুনঃসংযোগ দেওয়া সম্ভব হবে বলে আশা প্রকাশ করা হয়েছে বিজ্ঞপ্তিতে।

https://sangbad.net.bd/images/2024/May/28May24/news/Tusar-Sangbad-28.05.2024%20%282%29.jpg

সংবাদের স্থানীয় প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর এবং বিদ্যুৎ বিভাগের তথ্য অনুযায়ি, উপকূলীয় জেলাগুলোতে সোমবার (২৭ মে) ঘূর্ণিঝড়ের তাণ্ডবে কোথাও বিদ্যুতের খুঁটি উপড়ে পড়ায়, কোথাও তার (বিতরণ লাইন) ছিঁড়ে যাওয়ায় আবার কোথায় সঞ্চালন লাইনের ওপর গাছপালা ভেঙে পড়ায় বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ হয়ে যায়। বিদ্যুৎহীন হয়ে পড়েন তিন কোটিরও বেশী গ্রাহক। ঝড় চলাকালে ক্ষয়ক্ষতি এড়াতে অনেক এলাকার বিদ্যুৎ সংযোগ বন্ধ রাখা হয়। ঝড়ের গতি কমে আসর পর থেকেই ক্ষতিগ্রস্থ লাইন মেরামতে এরমধ্যে অনেক এলাকায় কাজ শুরু হয়।

বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয় থেকে মঙ্গলবার (২৮ মে) রাত পৌনে ৮টার দিকে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ‘ঘূর্ণিঝড় রিমালের প্রভাবে দেশের সবচেয়ে বড় বিদ্যুৎ বিতরণ সংস্থা আরইবির তিন কোটি তিন লাখের বেশি গ্রাহক বিদ্যুৎ-বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েন। মঙ্গলবার (২৮ মে) সন্ধ্যা ৭টার মধ্যে ২ কোটি ৪২ লাখ গ্রাহকের পুনঃসংযোগ প্রদান করা হয়।’ মঙ্গলবার (২৮ মে) রাতের মধ্যে ৮৫ শতাংশ এবং বুধবার সকালের মধ্যে ৯০ শতাংশ গ্রাহকের পুনঃসংযোগ দেওয়া সম্ভব হবে বলে আশা প্রকাশ করা হয় বিজ্ঞপ্তিতে।

এর আগে বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, আরইবির সংযোগ বিচ্ছিন্ন তিন কোটি তিন লাখের বেশি গ্রাহকের মধ্যে প্রায় ১ কোটি ৭২ লাখ সংযোগ ফিরিয়ে আনা হয়েছে। সে হিসেবে, ১ কোটি ৩১ লাখ গ্রাহকের সংযোগ এখনো বিচ্ছিন্ন।

বুধবার (২৯ মে) পর্যন্ত অন্তত ৮০ শতাংশ গ্রাহককে সংযোগের আওতায় আনা গেলেও অবশিষ্ট গ্রাহকদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে মেরামতের কাজ করতে হবে বলে তাদের বিদ্যুৎ পেতে সময় বেশী লাগবে বলে জানানো হয় বিজ্ঞপ্তিতে।

দেশের অধিকাংশ গ্রামে ৮০টি সমিতির মাধ্যমে বিদ্যুৎ সরবরাহ করে পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ড (আরইবি)। বিদ্যুৎ বিভাগ জানায়, ঘূর্ণিঝড়ে ক্ষতিগ্রস্থ এলাকার সব সংযোগ ফিরিয়ে আনতে আরইবির ঠিকাদার, নিজস্ব জনবলসহ ৩০ হাজারের বেশি কর্মী মাঠে কাজ করছেন।

বিদ্যুৎ বিভাগের দেওয়া প্রাথমিক তথ্যানুসারে, ঘূর্ণিঝড় রিমালের কারণে আরইবির ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ ১০৩ কোটি ৩৩ লাখ টাকা।

খুলনা ও বরিশাল বিভাগের ১৬টি জেলার ২০টি উপজেলায় বিদ্যুৎ সরবরাহ করে ওয়েস্টজোন পাওয়ার ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি (ওজোপাডিকো)।

সরকারি এই বিতরণ কোম্পানির ১৫ লাখ ৪৮ হাজার ১৫৪ হাজার গ্রাহকের মধ্যে ১৪ লাখ ৩ হাজার ৫২৬ জন গ্রাহক এখন বিদ্যুৎ পাচ্ছেন বলে জানিয়েছেন বিদ্যুৎ বিভাগ। ১ লাখ ৪৪ হাজার ৬২৮ জন গ্রাহক এখনো বিদ্যুৎ-বিচ্ছিন্ন অবস্থায় আছেন। এই ঘূর্ণিঝড়ে ওজোপাডিকোর ৫ কোটি ৭ লাখ ৮১ হাজার টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে জানানো হয়েছে বিজ্ঞপ্তিতে।

বিদ্যুৎ বিভাগ থেকে সোমবার (২৭ মে) বিকেলে যে সংবাদ বিজ্ঞপ্তিটি পাঠানো হয় তাতে ঘূর্ণিঝড়ে উপকূলীয় এলাকায় বিদ্যুৎ বিতরণ ব্যবস্থার ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতির চিত্র ফুটে ওঠে। ঝড়ের তাণ্ডবে প্রাথমিক যে ক্ষয়-ক্ষতির পরিমাণ নিরূপণ করা হয়, তাতে দেখা যায় ৩০টি পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির ভৌগলিক এলাকায় ২৩৯২টি পোল ক্ষতিগ্রস্থ হয়। ট্রান্সফরমার বিকল হয় ১৯৮২টি। ইন্সুলেটর ভেঙে যায় ২১৮৪৮টি। ৬২৪৫৪টি স্থানে বিতরণ লাইন (তার) ছিড়ে যায়। মিটার বিকল হয় ৪৬৩১৮টি।

স্থানীয় প্রতিনিধিদের পাঠানো তথ্যে জানা যায়, ঘূর্ণিঝড় রিমালের তাণ্ডবে বাগেরহাটে পল্লী বিদ্যুতের সঞ্চালন লাইনে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতির কারণে দুদিন পরেও গ্রাহকদের কাছে বিদ্যুৎ পৌঁছানো যায়নি। প্রায় পাঁচ লাখ গ্রাহক অন্ধকারে রয়েছে। গত দুইদিন বিদ্যুৎ না থাকায় মানুষ মোবাইল ফোন চার্জ করতে পারছেন না, ফ্রিজে থাকা মাছ-মাংস নষ্ট হয়ে গেছে। কোথাও কোথাও মোবাইল, ইন্টারনেট সেবা ব্যাহত হচ্ছে।

পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির বাগেরহাট কার্যালয়ের মহাব্যবস্থাপক (চলতি দায়িত্ব) সুশান্ত রায় মঙ্গলবার (২৮ মে) দুপুরে সাংবাদিকদের বলেন, ‘ঘূর্ণিঝড়ের তা-বে তারের উপর গাছপালা উপড়ে এবং সঞ্চালন লাইন ছিঁড়ে পল্লী বিদ্যুতের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। দেড় হাজারের বেশি গাছপালা উপড়ে ৭০২টি পয়েন্টে তার ছিঁড়ে পড়েছে। ১৩০টি বিদ্যুতের খুঁটি উপড়ে ও ভেঙে গেছে, ৩৫টি ট্রান্সফরমার নষ্ট হয়েছে, ৩৯৪টি মিটার ভেঙে গেছে।’

সংশ্লিষ্ট এলাকার প্রতিনিধিরা জানান, অনেক এলাকায় সড়কের বিদ্যুতের তারের উপর গাছ পড়ে আছে, তার ছিঁড়ে ঝুলে সড়কের উপর পড়ে রয়েছে। বিদ্যুতের খুঁটি উপড়ে ও ভেঙে পড়েছে। ঝড়ের তাণ্ডবে পল্লী বিদ্যুতের লাইন লণ্ডভণ্ড হয়ে আছে। রাস্তার মোড়ে মোড়ে ঝড়ের ক্ষতচিহ্ন। তাতে পুরো জেলার বিদ্যুৎ পৌঁছতে বেশ কয়েকদিন লাগবে বলে মনে করছেন গ্রাহকরা।

একই অবস্থা উপকূলীয় শরণখোলা, মোরেলগঞ্জ, মোংলা ও রামপাল উপজেলাতে। পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির লোকজন শ্রমিক নিয়ে তারের উপরে পড়ে থাকা গাছপালা কেটে সরাচ্ছেন।

জেলার নয় উপজেলাসহ খুলনার কিছু অংশ নিয়ে পল্লী বিদ্যুতের এই বিভাগের অধীনে চার লাখ ৮৫ হাজার গ্রাহক রয়েছেন।

তারা কবে বিদ্যুৎ পাবেন, সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে সুশান্ত রায় বলেন, ‘শত শত শ্রমিক জেলার বিভিন্ন এলাকায় কাজ করছেন। যেসব এলাকাতে কম ক্ষতি হয়েছে সেসব এলাকায় দ্রুত বিদ্যুৎ দেওয়ার চেষ্টা করছি। পর্যায়ক্রমে সব এলাকায় বিদ্যুৎ চালু করা হবে।’

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, অনেক এলাকায় মোবাইল ফোন চার্জ দিতে জেনারেটর ভাড়া দেয় এমন ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে ভিড় করছেন স্থানীয়রা। প্রতিটি মোবাইল পূর্ণ চার্জ দিতে জেনারেটর মালিক ৩০ থেকে ৫০ টাকা পর্যন্ত নিচ্ছেন বলে জানা গেছে।

back to top