alt

জাতীয়

আশি শতাংশ মানুষের টিকার কী হবে?

পরিকল্পনা তিন মাসেই আটকে গেছে

সংবাদ অনলাইন ডেস্ক : সোমবার, ১৭ মে ২০২১
image

প্রতিমাসে ২৫ লাখ করে প্রথম ছয়মাসে দেড় কোটি মানুষকে (১৮ বছরের নিচে নয়) করোনার টিকাদানের পরিকল্পনা ছিল স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের। এভাবে দুই বছরে পাঁচ ধাপে দেশের মোট জনসংখ্যার ৮০ শতাংশকে টিকাদানের পরিকল্পনা রয়েছে কিন্তু টিকা স্বল্পতায় সেই পরিকল্পনা তিনমাসেই আটকে গেছে। গত ২৭ জানুয়ারি দেশে করোনার টিকা কর্মসূচির উদ্বোধন হয়। এর তিন মাসের মাথায় গত ২৬ এপ্রিল থেকে প্রথম ডোজের টিকাদান বন্ধ হয়ে যায়।

জনস্বাস্থ্যবিদরা বলছেন, নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে মোট জনগোষ্ঠীর ৮০ শতাংশকে টিকা কর্মসূচির আওতায় নিতে না পারলে এর মূল লক্ষ্য বাধাগ্রস্ত হতে পারে। কারণ এই টিকার কার্যকারিতা মানবদেহে কতদিন থাকতে পারে সে সম্পর্কে এখনও নিশ্চিত নন বিজ্ঞানীরা। বিজ্ঞানীদের মতে, টিকার কার্যক্ষমতা ক্ষেত্রভেদে তিন মাস থেকে এক বছর হতে পারে; কারও কারও ক্ষেত্রে ‘লাইফটাইম’ও হতে পারে। এ কারণে নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে সবাইকে টিকার আওতায় নিতে না পারলে এবং করোনা সংক্রমণ পুরোপুরি নিয়ন্ত্রণে না এলে পুনরায় একটি বড় জনগোষ্ঠীকে টিকার আওতায় নিতে হতে পারে।

টিকার কার্যকারিতার বিষয়ে জানতে চাইলে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের রোগ নিয়ন্ত্রণ শাখার সাবেক পরিচালক ও খ্যাতিমান জনস্বাস্থ্যবিদ প্রফেসর ডা. বেনজির আহমেদ সংবাদকে বলেন, ‘অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকা’র টিকার কার্যকারিতার মেয়াদ ছয়মাস থেকে এক বছর হতে পারে বলে বলা হচ্ছে; এর বেশি হবে কিনা সেটি নিশ্চিত নয়... গবেষণা শেষ হয়নি। এক বছর পর কার্যকারিতা কমতে থাকবে। এ জন্য নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে সবাইকে টিকার আওতায় নিতে না পারলে ‘তৃতীয়’ আরেকটি ‘বুস্টার ডোজ’ দিতে হতে পারে; যদি এতদিন করোনাভাইরাস থাকে। সেক্ষেত্রে বাংলাদেশের নাগরিকদের বিদেশে প্রবেশের ক্ষেত্রেও দীর্ঘদিন বিধিনিষেধের আওতায় থাকতে হতে পারে।’

এসব বিষয়ে জানার জন্য স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের একাধিক ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তার সঙ্গে সেলফোনে যোগাযোগ করা হলে তারা কথা বলতে অপারগতা প্রকাশ করেন।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে সরকারের রোগতত্ত্ব ও রোগ নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠানের (আইইডিসিআর) উপদেষ্টা ও সাবেক প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ডা. মুশতাক হোসেন সংবাদকে বলেন, ‘প্রথম ডোজ দেয়ার দুই থেকে তিনমাসের মধ্যে দ্বিতীয় ডোজ দিলেই হয়। প্রথম ডোজ নেয়ার পর অ্যান্টিবডি অনেকদিন থাকে।’

নির্দিষ্ট সময়ে ৮০ শতাংশ জনগোষ্ঠীর সবাইকে টিকার আওতায় নিতে না পারলে মূল পরিকল্পনা ব্যাহত হতে পারে কিনা জানতে চাইলে বিশিষ্ট এই রোগতত্ত্ববিদ বলেন, ‘আকস্মিক টিকার সংকট হয়েছে।’

ভারতের পাশাপাশি প্রথমদিকে বিকল্প উপায়ে টিকা পাওয়ার চেষ্টা করলে সংকট কেটে যেত কিনা জানতে চাইলে ডা. মুশতাক হোসেন বলেন, ‘আর্থিক সীমাবদ্ধতার কারণে তা হয়তো করা যায়নি।’

চুক্তি অনুযায়ী ছয়মাসে ভারতের সেরাম ইনস্টিটিউট থেকে তিন কোটি ডোজ টিকা পাওয়ার কথা ছিল বাংলাদেশের কিন্তু সেরাম কর্তৃপক্ষ তিন ধাপে মাত্র ৭০ লাখ ডোজ টিকা সরবরাহ করেছে বাংলাদেশকে। চুক্তি অনুযায়ী টিকা না পাওয়ায় প্রথম ডোজের টিকাদান বন্ধ রয়েছে। দ্বিতীয় ডোজের টিকাদানও ৫/৬ দিন পর বন্ধ হয়ে যাচ্ছে।

এই পরিস্থিতিতে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক সোমবার (১৭ মে) সচিবালয়ে এক প্রেস ব্রিফিংয়ে বলেন, ‘দ্বিতীয় ডোজ নিয়ে আমরা চিন্তিত। দ্বিতীয় ডোজের জন্য ভারত, যুক্তরাজ্যের সঙ্গে কথা বলেছি। প্রধানমন্ত্রী নিজেও চেষ্টা করেছেন। ভারতের কাছে অর্ডার আছে তিন কোটি, পেয়েছি ৭০ লাখ।’

এদিকে টিকা সংকট কাটিয়ে উঠতে যুক্তরাষ্ট্রের কাছেও করোনার টিকা চেয়েছে বাংলাদেশ। এ বিষয়ে আগামী দু’একদিনের মধ্যে জবাব দেবে দেশটি। সোমবার ঢাকায় নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত আর্ল মিলারের সঙ্গে বৈঠকের পর পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম সাংবাদিকদের এ কথা জানান। প্রতিমন্ত্রী বলেন, মার্কিন রাষ্ট্রদূত তাকে জানিয়েছেন, বিষয়টি তাদের সক্রিয় বিবেচনায় রয়েছে। ইতোমধ্যে তারা স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে যোগাযোগ করেছে বলেও জানান তিনি।

দেশে ভারতের সেরাম ইনস্টিটিউটে উৎপাদিত অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার তৈরি করোনার টিকা দেয়া হচ্ছে। সেরাম দুই ধাপে বাংলাদেশকে ৭০ লাখ ডোজ টিকা সরবরাহ করেছে আর ভারত সরকার উপহার হিসেবে ৩৩ লাখ ডোজ টিকা দিয়েছে বাংলাদেশকে। এ হিসেবে স্বাস্থ্য বিভাগ মোট এক কোটি তিন লাখ ডোজ টিকা পেয়েছে।

মোট টিকার মধ্যে সোমবার পর্যন্ত দেশে প্রথম ও দ্বিতীয় ডোজ হিসেবে ৯৫ লাখ ৭৬ হাজার ৯৩৫ ডোজ টিকা প্রয়োগ হয়েছে। এর মধ্যে প্রথম ডোজ নিয়েছেন ৫৮ লাখ ১৯ হাজার ৯১২ জন (৮০ শতাংশের মধ্যে ৪ শতাংশ); আর দ্বিতীয় ডোজ নিয়েছেন ৩৭ লাখ ৫৭ হাজার ২৩ জন (৮০ শতাংশের মধ্যে ২ শতাংশ)। এ হিসেবে স্বাস্থ্য বিভাগের কাছে এই মুহূর্তে মাত্র সাত লাখ ২৩ হাজার ৬৫ ডোজ টিকা রয়েছে।

কিন্তু টিকা পরিবহন, স্থানান্তর ও কর্মসূচি চলাকালে যদি ১ শতাংশ টিকাও নষ্ট বা অপচয় হয়ে থাকে সেক্ষেত্রে মজুদ আরও এক লাখ ডোজ কমে যাবে। পাশর্^বর্তী দেশ ভারতে টিকা কর্মসূচি বাস্তবায়নের সময় ৫ থেকে ৬ শতাংশ টিকা নষ্ট হয়েছে দেশটির সংবাদ মাধ্যমে খবর প্রকাশ হয়েছে। বর্তমানে দেশে যে পরিমাণ টিকার মজুদ রয়েছে তাতে প্রথম ডোজ নেয়া প্রায় সাড়ে ১৪ লাখ মানুষের দ্বিতীয় ডোজ টিকা অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে। দ্বিতীয় ডোজ হিসেবে তাদের ‘অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকা’র ‘কোভিশিল্ড’ টিকাই দিতে হবে বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের রোগ নিয়ন্ত্রণ শাখার পরিচালক অধ্যাপক নাজমুল ইসলাম ১৬ মে এক স্বাস্থ্য বুলেটিনে বলেন, ‘আমাদের ভ্যাকসিনের দ্বিতীয় ডোজ দেয়া চলছে। এখন পর্যন্ত যা মজুদ আছে দ্বিতীয় ডোজ যাদের পাওয়ার কথা তাদের শতভাগকে আমরা দিতে পারবো না।’

টিকা পেতে বিভিন্ন কূটনৈতিক মাধ্যমসহ অন্যান্য চ্যানেলে যোগাযোগ চলছে- জানিয়ে ডা. নাজমুল ইসলাম বলেন, ‘আমরা আশা করছি, অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকার যে ঘাটতি আছে, ভিন্ন উৎস থেকে সংগ্রহ করতে পারব। আমরা ৮ সপ্তাহের ব্যবধানে টিকা দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম, সেটি কোন কোন দেশে ১৬ সপ্তাহ পর্যন্ত দীর্ঘায়িত করা হয়েছে। কাজেই সেক্ষেত্রে কিছু সময় আমরা পাচ্ছি।’

স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক সোমবার সাংবাদিকদের বলেন, ‘চীনের যে ভ্যাকসিন এসেছে সেটির প্রথম ডোজ আগামী ২৫ মে থেকে দেয়া শুরু হবে। এ ছাড়া আমরা রাশিয়া, চীন, যুক্তরাজ্য, যুক্তরাষ্ট্রসহ বিভিন্ন দেশের সঙ্গে কথা বলেছি ভ্যাকসিনের জন্য। ফাইনাল কিছু হলে জানতে পারবেন।’

টিকা পরিকল্পনায় যা ছিল

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর গত ডিসেম্বরেই করোনার টিকাদানের পরিকল্পনা চূড়ান্ত করে। পরিকল্পনা অনুযায়ী দুই বছরে পাঁচ ধাপে দেশের ৮০ শতাংশ মানুষকে করোনার টিকা দেয়ার কথা। বাকি ২০ শতাংশ শিশু ও নানা জটিল রোগে আক্রান্ত, তাদের টিকা দেয়ার পরিকল্পনা নেই।

এ হিসেবে টিকা পাওয়ার উপযুক্ত নাগরিকের সংখ্যা দাঁড়ায় ১৩ কোটি ৮২ লাখ ৪৭ হাজার ৫০৮ জন। মোট তিন পর্বে (ফেজ) পাঁচ ধাপে তাদের করোনা টিকা দেয়া হবে। টিকায় অগ্রাধিকার পাবে করোনা প্রতিরোধে সামনের কাতারে থাকা মানুষ। জাতীয়ভাবে কোভিড-১৯ টিকা বিতরণ ও প্রস্তুতি পরিকল্পনা অনুযায়ী, জনপ্রতি দুটি করে মোট ২৭ কোটি ৬৪ লাখ ৯৫ হাজার ১৬ ডোজ টিকা দেয়া হবে।

পরিকল্পনায় প্রথম ফেজের টিকা দুই দুই ধাপে দেয়ার কথা বলা হয়েছে। প্রথম পর্যায়ের প্রথম ধাপে ৫১ লাখ ৮৪ হাজার ২৮২ জন টিকা পাবে, যা মোট জনসংখ্যার তিন শতাংশ। দ্বিতীয় ধাপে মোট জনসংখ্যার সাত শতাংশ অর্থাৎ এক কোটি ২০ লাখ ৯৬ হাজার ৬৫৭ জন টিকার আওতায় নেয়ার কথা।

প্রথম পর্যায়ে দুই ধাপে বিতরণ শেষে দ্বিতীয় পর্যায়ে টিকা দেয়া শুরু করার পরিকল্পনা রয়েছে। এ পর্যায়ে ১০ শতাংশ অর্থাৎ এক কোটি ৭২ লাখ ৮০ হাজার ৯৩৮ জন (মোট জনসংখ্যার ১১ থেকে ২০ শতাংশ) টিকা পাওয়ার কথা।

তৃতীয় পর্যায়েও দুই ধাপে করোনা টিকা দেয়া হবে। এ পর্যায়ের প্রথম ধাপে জনসংখ্যার আরও ২০ শতাংশ অর্থাৎ তিন কোটি ৪৫ লাখ ৬১ হাজার ৮৭৭ জনকে টিকা দেয়া হবে। শেষ ধাপে জনসংখ্যার ৪০ শতাংশ অর্থাৎ ছয় কোটি ৯১ লাখ ২৩ হাজার ৭৫৪ জনকে টিকার আওতায় আনার পরিকল্পনা নিয়েছে স্বাস্থ্য বিভাগ।

ছবি

চীনের উপহারের আরও ৬ লাখ ডোজ ভ্যাকসিন ঢাকায়

ছবি

দেশে করোনায় ৪৭ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ২৪৩৬

ছবি

লিবিয়ায় ভূমধ্যসাগর থেকে ১৬৪ বাংলাদেশিকে উদ্ধার

ছবি

‌এসএসসি, এইচএসসি পরীক্ষা না হলে বিকল্প চিন্তা : শিক্ষামন্ত্রী

ছবি

বইয়ের জগৎ থেকে হারিয়ে যাচ্ছে শিক্ষার্থীরা

ছবি

বইয়ের জগৎ থেকে হারিয়ে যাচ্ছে শিক্ষার্থীরা

ছবি

‘করোনার চেয়ে নির্বাচন বেশি গুরুত্বপূর্ণ’

ছবি

‘সিনোফার্মের টিকা কিনতে চীনের সঙ্গে চুক্তি সম্পন্ন’

ছবি

এবারও বাংলাদেশ থেকে হজে যাওয়া হচ্ছে না

ছবি

দেশে করোনায় আরও ৩৯ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ১৬৩৭

ছবি

উত্তাল সাগর, চার সমুদ্র বন্দরে ৩ নম্বর সতর্কতা

ছবি

তিন আসনের উপনির্বাচনে আ’লীগের মনোনয়ন পেলেন যারা

ছবি

এ বছর চার মাসে বজ্রপাতে ১৭৭ জনের মৃত্যু

ছবি

চাঁদ দেখা যায়নি, রোববার থেকে জিলকদ মাস শুরু

ছবি

দেশে করোনায় মৃত্যু ১৩ হাজার ছাড়াল

ছবি

রাজধানীসহ সারাদেশে দিনভর থেমে থেমে বৃষ্টির সম্ভাবনা

ছবি

১০ লাখের বেশি টিকা দিচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র: ড. মোমেন

ছবি

করোনার ভুয়া রিপোর্ট ঠেকাতে বিদেশগামীদের নতুন নির্দেশনা

ছবি

স্টিমকার গেমিং অ্যাপে জুয়া, আড্ডা ও টাকা পাচার

ছবি

স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীতে ঘুরবে ‘বিশ্ব’ বাংলাদেশ

ছবি

বিদ্যুৎ ও জ্বালানি বিভাগের ২২ কোটি ২৫ লাখ টাকা অনুদান

ছবি

নতুন সেনাপ্রধান এস এম শফিউদ্দিন আহমেদ

ছবি

অগ্নিকাণ্ডে দক্ষিণ আফ্রিকায় দুই বাংলাদেশি পরিবারের ৬ জন নিহত

ছবি

দেশে করোনায় মৃত্যু ৪০, শনাক্ত আড়াই হাজারের বেশি

ছবি

সবাই বলে টিকা দেবে, কবে দেবে বলে না : পররাষ্ট্রমন্ত্রী

ছবি

সরকারি তথ্যে গোপনীয়তায় গণমাধ্যমকে সম্মান দেখানোর আহ্বান

ছবি

সন্ত্রাস,জঙ্গিবাদ, ও মানুষ হত্যা করে কেউ বেহেশতে যাবে না :প্রধানমন্ত্রী

ছবি

একযোগে ৫০টি মডেল মসজিদ উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী

ছবি

১৪০টি দেশের মধ্যে অবস্থান ১৩৭

ছবি

বেঁধে দেয়া দামে এলপি গ্যাস বিক্রিতে অনাগ্রহী ব্যবসায়ীরা

ছবি

দেশে করোনায় আরও ৩৬ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ২৫৩৭

ছবি

করোনায় বাহরাইনে ৭০ বাংলাদেশির মৃত্যু

ছবি

আবেদনের এক সপ্তাহের মধ্যে কোয়ারেন্টিন ভর্তুকির টাকা হাতে পাবেন সৌদি প্রবাসীরা

যুক্তরাষ্ট্র যাচ্ছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী

ছবি

অর্ধশত মডেল মসজিদের উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী

ছবি

নৌবাহিনী প্রধানের সাথে বিমান বাহিনীর প্রধানের বিদায়ী সাক্ষাৎ

tab

জাতীয়

আশি শতাংশ মানুষের টিকার কী হবে?

পরিকল্পনা তিন মাসেই আটকে গেছে

সংবাদ অনলাইন ডেস্ক
image

সোমবার, ১৭ মে ২০২১

প্রতিমাসে ২৫ লাখ করে প্রথম ছয়মাসে দেড় কোটি মানুষকে (১৮ বছরের নিচে নয়) করোনার টিকাদানের পরিকল্পনা ছিল স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের। এভাবে দুই বছরে পাঁচ ধাপে দেশের মোট জনসংখ্যার ৮০ শতাংশকে টিকাদানের পরিকল্পনা রয়েছে কিন্তু টিকা স্বল্পতায় সেই পরিকল্পনা তিনমাসেই আটকে গেছে। গত ২৭ জানুয়ারি দেশে করোনার টিকা কর্মসূচির উদ্বোধন হয়। এর তিন মাসের মাথায় গত ২৬ এপ্রিল থেকে প্রথম ডোজের টিকাদান বন্ধ হয়ে যায়।

জনস্বাস্থ্যবিদরা বলছেন, নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে মোট জনগোষ্ঠীর ৮০ শতাংশকে টিকা কর্মসূচির আওতায় নিতে না পারলে এর মূল লক্ষ্য বাধাগ্রস্ত হতে পারে। কারণ এই টিকার কার্যকারিতা মানবদেহে কতদিন থাকতে পারে সে সম্পর্কে এখনও নিশ্চিত নন বিজ্ঞানীরা। বিজ্ঞানীদের মতে, টিকার কার্যক্ষমতা ক্ষেত্রভেদে তিন মাস থেকে এক বছর হতে পারে; কারও কারও ক্ষেত্রে ‘লাইফটাইম’ও হতে পারে। এ কারণে নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে সবাইকে টিকার আওতায় নিতে না পারলে এবং করোনা সংক্রমণ পুরোপুরি নিয়ন্ত্রণে না এলে পুনরায় একটি বড় জনগোষ্ঠীকে টিকার আওতায় নিতে হতে পারে।

টিকার কার্যকারিতার বিষয়ে জানতে চাইলে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের রোগ নিয়ন্ত্রণ শাখার সাবেক পরিচালক ও খ্যাতিমান জনস্বাস্থ্যবিদ প্রফেসর ডা. বেনজির আহমেদ সংবাদকে বলেন, ‘অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকা’র টিকার কার্যকারিতার মেয়াদ ছয়মাস থেকে এক বছর হতে পারে বলে বলা হচ্ছে; এর বেশি হবে কিনা সেটি নিশ্চিত নয়... গবেষণা শেষ হয়নি। এক বছর পর কার্যকারিতা কমতে থাকবে। এ জন্য নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে সবাইকে টিকার আওতায় নিতে না পারলে ‘তৃতীয়’ আরেকটি ‘বুস্টার ডোজ’ দিতে হতে পারে; যদি এতদিন করোনাভাইরাস থাকে। সেক্ষেত্রে বাংলাদেশের নাগরিকদের বিদেশে প্রবেশের ক্ষেত্রেও দীর্ঘদিন বিধিনিষেধের আওতায় থাকতে হতে পারে।’

এসব বিষয়ে জানার জন্য স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের একাধিক ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তার সঙ্গে সেলফোনে যোগাযোগ করা হলে তারা কথা বলতে অপারগতা প্রকাশ করেন।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে সরকারের রোগতত্ত্ব ও রোগ নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠানের (আইইডিসিআর) উপদেষ্টা ও সাবেক প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ডা. মুশতাক হোসেন সংবাদকে বলেন, ‘প্রথম ডোজ দেয়ার দুই থেকে তিনমাসের মধ্যে দ্বিতীয় ডোজ দিলেই হয়। প্রথম ডোজ নেয়ার পর অ্যান্টিবডি অনেকদিন থাকে।’

নির্দিষ্ট সময়ে ৮০ শতাংশ জনগোষ্ঠীর সবাইকে টিকার আওতায় নিতে না পারলে মূল পরিকল্পনা ব্যাহত হতে পারে কিনা জানতে চাইলে বিশিষ্ট এই রোগতত্ত্ববিদ বলেন, ‘আকস্মিক টিকার সংকট হয়েছে।’

ভারতের পাশাপাশি প্রথমদিকে বিকল্প উপায়ে টিকা পাওয়ার চেষ্টা করলে সংকট কেটে যেত কিনা জানতে চাইলে ডা. মুশতাক হোসেন বলেন, ‘আর্থিক সীমাবদ্ধতার কারণে তা হয়তো করা যায়নি।’

চুক্তি অনুযায়ী ছয়মাসে ভারতের সেরাম ইনস্টিটিউট থেকে তিন কোটি ডোজ টিকা পাওয়ার কথা ছিল বাংলাদেশের কিন্তু সেরাম কর্তৃপক্ষ তিন ধাপে মাত্র ৭০ লাখ ডোজ টিকা সরবরাহ করেছে বাংলাদেশকে। চুক্তি অনুযায়ী টিকা না পাওয়ায় প্রথম ডোজের টিকাদান বন্ধ রয়েছে। দ্বিতীয় ডোজের টিকাদানও ৫/৬ দিন পর বন্ধ হয়ে যাচ্ছে।

এই পরিস্থিতিতে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক সোমবার (১৭ মে) সচিবালয়ে এক প্রেস ব্রিফিংয়ে বলেন, ‘দ্বিতীয় ডোজ নিয়ে আমরা চিন্তিত। দ্বিতীয় ডোজের জন্য ভারত, যুক্তরাজ্যের সঙ্গে কথা বলেছি। প্রধানমন্ত্রী নিজেও চেষ্টা করেছেন। ভারতের কাছে অর্ডার আছে তিন কোটি, পেয়েছি ৭০ লাখ।’

এদিকে টিকা সংকট কাটিয়ে উঠতে যুক্তরাষ্ট্রের কাছেও করোনার টিকা চেয়েছে বাংলাদেশ। এ বিষয়ে আগামী দু’একদিনের মধ্যে জবাব দেবে দেশটি। সোমবার ঢাকায় নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত আর্ল মিলারের সঙ্গে বৈঠকের পর পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম সাংবাদিকদের এ কথা জানান। প্রতিমন্ত্রী বলেন, মার্কিন রাষ্ট্রদূত তাকে জানিয়েছেন, বিষয়টি তাদের সক্রিয় বিবেচনায় রয়েছে। ইতোমধ্যে তারা স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে যোগাযোগ করেছে বলেও জানান তিনি।

দেশে ভারতের সেরাম ইনস্টিটিউটে উৎপাদিত অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার তৈরি করোনার টিকা দেয়া হচ্ছে। সেরাম দুই ধাপে বাংলাদেশকে ৭০ লাখ ডোজ টিকা সরবরাহ করেছে আর ভারত সরকার উপহার হিসেবে ৩৩ লাখ ডোজ টিকা দিয়েছে বাংলাদেশকে। এ হিসেবে স্বাস্থ্য বিভাগ মোট এক কোটি তিন লাখ ডোজ টিকা পেয়েছে।

মোট টিকার মধ্যে সোমবার পর্যন্ত দেশে প্রথম ও দ্বিতীয় ডোজ হিসেবে ৯৫ লাখ ৭৬ হাজার ৯৩৫ ডোজ টিকা প্রয়োগ হয়েছে। এর মধ্যে প্রথম ডোজ নিয়েছেন ৫৮ লাখ ১৯ হাজার ৯১২ জন (৮০ শতাংশের মধ্যে ৪ শতাংশ); আর দ্বিতীয় ডোজ নিয়েছেন ৩৭ লাখ ৫৭ হাজার ২৩ জন (৮০ শতাংশের মধ্যে ২ শতাংশ)। এ হিসেবে স্বাস্থ্য বিভাগের কাছে এই মুহূর্তে মাত্র সাত লাখ ২৩ হাজার ৬৫ ডোজ টিকা রয়েছে।

কিন্তু টিকা পরিবহন, স্থানান্তর ও কর্মসূচি চলাকালে যদি ১ শতাংশ টিকাও নষ্ট বা অপচয় হয়ে থাকে সেক্ষেত্রে মজুদ আরও এক লাখ ডোজ কমে যাবে। পাশর্^বর্তী দেশ ভারতে টিকা কর্মসূচি বাস্তবায়নের সময় ৫ থেকে ৬ শতাংশ টিকা নষ্ট হয়েছে দেশটির সংবাদ মাধ্যমে খবর প্রকাশ হয়েছে। বর্তমানে দেশে যে পরিমাণ টিকার মজুদ রয়েছে তাতে প্রথম ডোজ নেয়া প্রায় সাড়ে ১৪ লাখ মানুষের দ্বিতীয় ডোজ টিকা অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে। দ্বিতীয় ডোজ হিসেবে তাদের ‘অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকা’র ‘কোভিশিল্ড’ টিকাই দিতে হবে বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের রোগ নিয়ন্ত্রণ শাখার পরিচালক অধ্যাপক নাজমুল ইসলাম ১৬ মে এক স্বাস্থ্য বুলেটিনে বলেন, ‘আমাদের ভ্যাকসিনের দ্বিতীয় ডোজ দেয়া চলছে। এখন পর্যন্ত যা মজুদ আছে দ্বিতীয় ডোজ যাদের পাওয়ার কথা তাদের শতভাগকে আমরা দিতে পারবো না।’

টিকা পেতে বিভিন্ন কূটনৈতিক মাধ্যমসহ অন্যান্য চ্যানেলে যোগাযোগ চলছে- জানিয়ে ডা. নাজমুল ইসলাম বলেন, ‘আমরা আশা করছি, অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকার যে ঘাটতি আছে, ভিন্ন উৎস থেকে সংগ্রহ করতে পারব। আমরা ৮ সপ্তাহের ব্যবধানে টিকা দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম, সেটি কোন কোন দেশে ১৬ সপ্তাহ পর্যন্ত দীর্ঘায়িত করা হয়েছে। কাজেই সেক্ষেত্রে কিছু সময় আমরা পাচ্ছি।’

স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক সোমবার সাংবাদিকদের বলেন, ‘চীনের যে ভ্যাকসিন এসেছে সেটির প্রথম ডোজ আগামী ২৫ মে থেকে দেয়া শুরু হবে। এ ছাড়া আমরা রাশিয়া, চীন, যুক্তরাজ্য, যুক্তরাষ্ট্রসহ বিভিন্ন দেশের সঙ্গে কথা বলেছি ভ্যাকসিনের জন্য। ফাইনাল কিছু হলে জানতে পারবেন।’

টিকা পরিকল্পনায় যা ছিল

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর গত ডিসেম্বরেই করোনার টিকাদানের পরিকল্পনা চূড়ান্ত করে। পরিকল্পনা অনুযায়ী দুই বছরে পাঁচ ধাপে দেশের ৮০ শতাংশ মানুষকে করোনার টিকা দেয়ার কথা। বাকি ২০ শতাংশ শিশু ও নানা জটিল রোগে আক্রান্ত, তাদের টিকা দেয়ার পরিকল্পনা নেই।

এ হিসেবে টিকা পাওয়ার উপযুক্ত নাগরিকের সংখ্যা দাঁড়ায় ১৩ কোটি ৮২ লাখ ৪৭ হাজার ৫০৮ জন। মোট তিন পর্বে (ফেজ) পাঁচ ধাপে তাদের করোনা টিকা দেয়া হবে। টিকায় অগ্রাধিকার পাবে করোনা প্রতিরোধে সামনের কাতারে থাকা মানুষ। জাতীয়ভাবে কোভিড-১৯ টিকা বিতরণ ও প্রস্তুতি পরিকল্পনা অনুযায়ী, জনপ্রতি দুটি করে মোট ২৭ কোটি ৬৪ লাখ ৯৫ হাজার ১৬ ডোজ টিকা দেয়া হবে।

পরিকল্পনায় প্রথম ফেজের টিকা দুই দুই ধাপে দেয়ার কথা বলা হয়েছে। প্রথম পর্যায়ের প্রথম ধাপে ৫১ লাখ ৮৪ হাজার ২৮২ জন টিকা পাবে, যা মোট জনসংখ্যার তিন শতাংশ। দ্বিতীয় ধাপে মোট জনসংখ্যার সাত শতাংশ অর্থাৎ এক কোটি ২০ লাখ ৯৬ হাজার ৬৫৭ জন টিকার আওতায় নেয়ার কথা।

প্রথম পর্যায়ে দুই ধাপে বিতরণ শেষে দ্বিতীয় পর্যায়ে টিকা দেয়া শুরু করার পরিকল্পনা রয়েছে। এ পর্যায়ে ১০ শতাংশ অর্থাৎ এক কোটি ৭২ লাখ ৮০ হাজার ৯৩৮ জন (মোট জনসংখ্যার ১১ থেকে ২০ শতাংশ) টিকা পাওয়ার কথা।

তৃতীয় পর্যায়েও দুই ধাপে করোনা টিকা দেয়া হবে। এ পর্যায়ের প্রথম ধাপে জনসংখ্যার আরও ২০ শতাংশ অর্থাৎ তিন কোটি ৪৫ লাখ ৬১ হাজার ৮৭৭ জনকে টিকা দেয়া হবে। শেষ ধাপে জনসংখ্যার ৪০ শতাংশ অর্থাৎ ছয় কোটি ৯১ লাখ ২৩ হাজার ৭৫৪ জনকে টিকার আওতায় আনার পরিকল্পনা নিয়েছে স্বাস্থ্য বিভাগ।

back to top