alt

জাতীয়

জ্বালানি সংকট : রাষ্ট্রীয় কোম্পানির গ্যাস উৎপাদন কম

ফয়েজ আহমেদ তুষার : বৃহস্পতিবার, ০৪ আগস্ট ২০২২

দেশের গ্যাসক্ষেত্র থেকে সক্ষমতার ৭৫ শতাংশের বেশি গ্যাস উত্তোলন করতে পারছে না রাষ্ট্রীয় গ্যাস উত্তোলন কোম্পানিগুলো। কিন্তু বিদেশি কোম্পানি শেভরন বিবিয়ানা থেকে শতভাগ বা তার বেশি গ্যাস উত্তোলন করে চলেছে। প্রায় ১১ বছর আগে আন্তর্জাতিক এক কোম্পানি সমীক্ষা পরিচালনা করে বলেছিল ‘বিদ্যমান গ্যাস ফিল্ডগুলোর সংস্কার করে দৈনিক গ্যাস উৎপাদন বাড়ানোর সুযোগ রয়েছে’। কিন্তু এত বছর পেরিয়ে গেলেও সেই রিপোর্ট ‘অন্ধকারেই রয়ে গেছে’ বলে জানিয়েছেন এক বিশেষজ্ঞ। আর দীর্ঘদিন অনুসন্ধানে কার্যকর পদক্ষেপ না থাকায় গ্যাস উৎপাদন চাহিদার তুলানায় বাড়েনি। ফলে আমাদানিনির্ভরতা বেড়েছে।

দেশে বর্তমানে দৈনিক গ্যাসের চাহিদা কমবেশি চার হাজার মিলিয়ন ঘনফুট (এমএমসিএফ)। দেশি-বিদেশি কোম্পানি মিলে উৎপাদন করছে ২ হাজার ২০০ থেকে ৩০০ এমএমসিএফ। গড়ে দৈনিক ৭০০ এমএমসিএফ আমদানিকৃত এলএনজি (তরলীকৃত প্রাকৃতিক গ্যাস) গ্রিডে যুক্ত হচ্ছে। এরপরও দৈনিক এক হাজার ২০০ এমএমসিএফ গ্যাসের ঘাটতি থেকে যাচ্ছে। ফলে সাশ্রয়ী বিদ্যুৎ উৎপাদন ব্যাহত হচ্ছে। কমে গেছে সার উৎপাদন। তাতে বাংলাদেশের অর্থনীতিতে নেতিবাচক প্রভাব পড়ছে।

পেট্রোবাংলার অধীনে রাষ্ট্রীয় ৩টি কোম্পানি- বাংলাদেশ গ্যাস ফিল্ড, সিলেট গ্যাস ফিল্ড ও বাপেক্সের আওতায় মোট ১৮টি গ্যাসক্ষেত্র আছে।

৭০টি কূপের মাধ্যমে এসব গ্যাসক্ষেত্র থেকে দৈনিক মোট এক হাজার ১৪৫ এমএমসিএফ (মিলিয়ন ঘনফুট) গ্যাস উত্তোলন বা উৎপাদন হওয়ার কথা। গড়ে দৈনিক উৎপাদন হচ্ছে ৮৫০ এমএমসিএফ। গড়ে দৈনিক ২৯৫ এমএমসিএফ গ্যাস উৎপাদন কম হচ্ছে।

বিদেশি তেল কোম্পানি শেভরন বিবিয়ানা গ্যাসক্ষেত্রের ২৬টি কূপ দিয়ে প্রতিদিনই সক্ষমতার শতভাগ বা তারও বেশি গ্যাস উৎপাদন করছে। বিবিয়ানা গ্যাসক্ষেত্রের মোট উৎপাদন সক্ষমতা এক হাজার ২০০ এমএমসিএফ। ২৭ জুলাই এই আইওসি (বিদেশি তেল কোম্পানি) বিবিয়ানা থেকে এক হাজার ২১৫ এমএমসিএফ গ্যাস উৎপাদন করেছে।

২০২০ সালের ১২ জানুয়ারি পেট্রোবাংলার তথ্যে দেখা যায়, ওইদিন শেভরন বিবিয়ানা থেকে এক হাজার ৩০১ এমএমসিএফ গ্যাস উৎপাদন করেছিল। সেদিন দেশে কর্মরত দুই আইওসি-শেভরন ও তাল্লো তাদের আওতায় থাকা ৪টি গ্যাসক্ষেত্র থেকে এক হাজার ৬৫৬ এমএমসিএফ গ্যাস উৎপাদন করে। চারটি গ্যাসক্ষেত্রের উৎপাদন ক্ষমতা এক হাজার ৬১৫ এমএমসিএফ। ওই সময় আইওসি দুটি প্রতিদিনই সক্ষমতার চেয়ে বেশি গ্যাস উৎপাদন করত। সম্প্রতি জালালবাদ, মৌলভীবাজার ও বাঙ্গুরা ক্ষেত্র থেকে গ্যাস উৎপাদন কিছুটা কমলেও বিবিয়ানা থেকে সক্ষমতার বেশি গ্যাস উৎপাদন অব্যাহত আছে।

পেট্রোবাংলার চেয়ারম্যান নাজমুল আহসান বৃহস্পতিবার (৪ আগস্ট) বিকেলে সংবাদকে বলেন, ‘প্রযুক্তিগতভাবেই দেশীয় কোম্পানির কূপগুলোর উৎপাদন সক্ষমতা অনেক কম (দৈনিক ১০-২০ এমএমসিএফ)। শেভরনের কূপগুলোর উৎপাদন ক্ষমতা দৈনিক ৬০ থেকে ৭০ এমএমসিএফ পর্যন্ত। প্রযুক্তিগতভাবেই তারা এগিয়ে রয়েছে।’ নাজমুল আহসানের মতে, প্রমাণিত মজুদের হিসাবে দৈনিক কম উৎপাদন হওয়া কূপগুলো অনেকদিন ধরে চলবে। আর বেশি করে উৎপাদন করা হলে তা দ্রুত শেষ হয়ে যাবে।

এদিকে শেভরনের এক কর্মকর্তার দাবি, তাদের কোম্পানি সক্ষমতার চেয়ে বেশি গ্যাস উত্তোলন করছে না। ওই কর্মকর্তা সংবাদকে বলেন, ‘পেট্রোবাংলার ওয়েবসাইটে বিবিয়ানা গ্যাস ফিল্ডের গ্যাস উৎপাদন সক্ষমতা দৈনিক এক হাজার ২০০ এমএমসিএফ দেখানো আছে।’ এই তথ্য ভুল দাবি করে তিনি বলেন, ‘আসলে বিবিয়ানার উৎপাদন সক্ষমতা এক হাজার ৩০০ এমএমসিএফের বেশি। আমরা পেট্রোবাংলাকে বিষয়টি সংশোধন করতে চিঠি দিয়েছি। তবে এখনও তথ্য সংশোধন করা হয়নি।’

এ বিষয়ে পেট্রোবাংলার চেয়ারম্যান সংবাদকে বলেন, ‘বিষয়টি দেখতে হবে। তারা পরবর্তিতে উৎপাদন সক্ষমতা বৃদ্ধি করছে কি না, বিষয়টা নিশ্চিত হয়ে ওয়েবসাইটে আপলোড করা হবে।’

জ্বালানি খাতের বিশেষজ্ঞদের অনেকে বলছেন, দীর্ঘদিন অনুসন্ধানে কার্যকর পদক্ষেপ না থাকায় গ্যাস উৎপাদন চাহিদার তুলানায় বাড়েনি। ফলে আমাদানিনির্ভরতা বাড়ছে। তাদের মতে, জনবহুল বাংলাদেশে নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহ অব্যাহত রাখতে চাইলে প্রাথমিক জ্বালানির জোগান নিশ্চিত করতে হবে। আমদানির ওপর নির্ভর করলে অর্থনীতির ওপর চাপ পড়বে। তাই দেশীয় গ্যাসক্ষেত্রগুলো থেকে গ্যাস উৎপাদন বাড়ানোর পদক্ষেপ নেয়া অতি জরুরি।

একাধিক বিশেষজ্ঞের মতে, অনেক আগেই দেশীয় উৎপাদন বাড়ানো এবং অনুসন্ধানে বিশেষ নজর দেয়া প্রয়োজন ছিল। এক্ষেত্রে সংশ্লিষ্টদের উদাসীনতা রয়েছে বলে মনে করেন তারা। সাগরে গ্যাস অনুসন্ধানেও সরকার যথযথ পরিকল্পনা প্রণয়ন করতে পারেনি বলে মন্তব্য করেন একজন বিশেষজ্ঞ।

জ্বালানি বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক বদরুল ইমাম জানান, দেশীয় গ্যাস ফিল্ডগুলোর ওপর একটি সমীক্ষা পরিচালনা করে আন্তর্জাতিক কোম্পানি স্লামবার্জে। ২০১১ সালে তাদের দাখিলকৃত রিপোর্টে বলা হয়- ‘বিদ্যমান গ্যাস ফিল্ডগুলোর সংস্কার করে দৈনিক ৪০০ থেকে ৮০০ এমএমসিএফ গ্যাস উৎপাদন বাড়ানোর সুযোগ রয়েছে’। এতে খরচ হতে পারে সর্বোচ্চ ১২৫ মিলিয়ন ইউএস ডলার। তিনি বলেন, ১১ বছর পেরিয়ে গেলেও সেই রিপোর্ট অন্ধকারেই রয়ে গেছে। এ বিষয়ে পেট্রোবাংলার এক কর্মকর্তা বলেন, ‘এত আগের বিষয়। সে সময় যারা দায়িত্বে ছিলেন, হয়ত এর বাণিজ্যিক উপযোগিতা খুঁজে পাননি। তাই এটা নিয়ে আর কাজ হয়নি।’

সম্প্রতি রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে বিশ্ববাজারে জ্বালানির দামে অস্থিরতার প্রভাব বাংলাদেশেও এসে পড়েছে। উচ্চমূল্যের ডিজেল দিয়ে বিদ্যুৎ উৎপাদন আপাতত বন্ধ রেখেছে সরকার। শতভাগ বিদ্যুতায়নের পর ফিরে এসেছে লোডশেডিং।

জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগের তথ্য অনুযায়ী, দেশে এখন গ্যাসের যে পরিমাণ ‘প্রমাণিত’ মজুদ আছে, তা ২০৩১ সালে ফুরিয়ে যাবে। এ বিষয়ে পেট্রোবাংলার চেয়রম্যান নাজমুল আহসান জানান, দ্রুত নতুন কিছু কূপ খনন এবং কিছু কূপ সংস্কারের পরিকল্পনা নেয়া হয়েছে। এর মাধ্যমে আগামী এক থেকে চার বছরের মধ্যে দৈনিক প্রায় ৫০০ এমএমসিএফ গ্যাস উৎপাদন বৃদ্ধি পাবে। অনুসন্ধানের মাধ্যমে আগামীতে নতুন গ্যাসক্ষেত্র আবিষ্কার হবে বলেও আশা প্রকাশ করেন তিনি।

আট বছর হাজত বাসে, কাশ্মির থেকে ৮ বাংলাদেশীকে হস্তান্তর

সাপ্তাহিক ছুটি কোন শিল্পাঞ্চলে কবে

ছবি

সুইস ব্যাংকের কাছে অর্থ পাচারকারীদের তথ্য চেয়েছে কিনা জানতে চায় হাইকোর্ট

ছবি

সুইস ব্যাংক নিয়ে রাষ্ট্রদূতের বক্তব্য মিথ্যা: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

ছবি

নৌপথে পণ্য পরিবহনে ভাড়া বাড়ল ১৫-২২ শতাংশ

ছবি

শিল্পাঞ্চলে এলাকাভিত্তিক সাপ্তাহিক ছুটির প্রজ্ঞাপন জারি

ছবি

দুর্যোগে পড়ালেখায় সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত সুনামগঞ্জের শিশুরা

ছবি

করোনা: একজনের মৃত্যু, শনাক্ত ২১৪

ছবি

লঞ্চ ভাড়া বাড়াতে গঠিত ওয়ার্কিং কমিটির প্রস্তাব জমা

ছবি

সংসদের ১৯তম অধিবেশন শুরু ২৮ আগস্ট

ছবি

সরকারি ওষুধ চুরি করে বিক্রি করলে ১০ বছর জেল

ছবি

জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধির ব্যাখ্যা দিতে নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর

ছবি

অনিয়ম-দুর্নীতির কারণে ৮০ শতাংশ পরিবার ‘ফ্যামিলি কার্ড’ থেকে বঞ্চিত হয়েছে: টিআইবির গবেষণা

ছবি

এক সপ্তাহের মধ্যে তেলের দাম সমন্বয় হবে

ছবি

সুইস ব্যাংকে অর্থপাচার : তথ্য না জানার কারণ জানতে চান হাইকোর্ট

ছবি

ফেইসবুক-গুগলে কত টাকার বিজ্ঞাপন, জানতে চায় সরকার

ছবি

বাংলাদেশ-ভারত প্রতিরক্ষা সংলাপ আজ

ছবি

এক কোটি পরিবারে কম দামে খাদ্য বিতরণের উদ্যোগ

ছবি

ডিএন‌সি‌সি ও রোটা‌রি ইন্টারন্যাশনাল যুব সমা‌জের জন্য কাজ কর‌বে

ছবি

প্রাথমিকের ১৬ শিক্ষার্থী পরীক্ষামূলক টিকা পাবে আজ

ছবি

দামবৃদ্ধি : সংকটে পাঠ্যবই মুদ্রণ কাজ

সবক্ষেত্রে ভুর্তকি দেয়া যায় না : মন্ত্রী তাজুল

ছবি

রাজধানীর গণপরিবহনে থাকছে না ওয়েবিল-চেকার

ছবি

আনারকলির বিরুদ্ধে সর্বোচ্চ শাস্তির কথা ভাবছে মন্ত্রণালয়

ছবি

তেলের দাম বাড়লে সবকিছুর দামই বাড়ে: অর্থমন্ত্রী

ছবি

করোনা: একজনের মৃত্যু, শনাক্ত ১৯৮

ছবি

সুইস ব্যাংকের কাছে তথ্য চায়নি বাংলাদেশ: রাষ্ট্রদূত নাথালি

ছবি

হঠাৎ সাগরে লঘুচাপ, জলোচ্ছ্বাসের শঙ্কা ১৫ জেলায়

ছবি

আদিবাসীদের বিলুপ্ত করার চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে বলে অভিযোগ সন্তু লারমার

ডেঙ্গুতে আরও ৫৩ জন আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে

পরিকল্পনামন্ত্রী বললেন, অর্থের ঘাটতিতে কিছুটা অসুবিধায় আছি

ছবি

ঢামেকে ইন্টার্ন চিকিৎসকদের কর্মবিরতির হুমকি

ছবি

হেলিকপ্টার দুর্ঘটনায় আহত লেফটেন্যান্ট কর্নেল ইসমাইল হোসেন মারা গেছেন

ছবি

সরকারের প্রতি টিআইবি : কর ফাঁকি ও অর্থপাচার রোধে ‘কমন রিপোর্টিং স্ট্যান্ডার্ড’ অবলম্বন করুন

ছবি

করোনায় ১ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ২৩৯

ছবি

ফজিলাতুন নেছা মুজিব নারীদের জন্য অনুপ্রেরণা : স্পিকার

tab

জাতীয়

জ্বালানি সংকট : রাষ্ট্রীয় কোম্পানির গ্যাস উৎপাদন কম

ফয়েজ আহমেদ তুষার

বৃহস্পতিবার, ০৪ আগস্ট ২০২২

দেশের গ্যাসক্ষেত্র থেকে সক্ষমতার ৭৫ শতাংশের বেশি গ্যাস উত্তোলন করতে পারছে না রাষ্ট্রীয় গ্যাস উত্তোলন কোম্পানিগুলো। কিন্তু বিদেশি কোম্পানি শেভরন বিবিয়ানা থেকে শতভাগ বা তার বেশি গ্যাস উত্তোলন করে চলেছে। প্রায় ১১ বছর আগে আন্তর্জাতিক এক কোম্পানি সমীক্ষা পরিচালনা করে বলেছিল ‘বিদ্যমান গ্যাস ফিল্ডগুলোর সংস্কার করে দৈনিক গ্যাস উৎপাদন বাড়ানোর সুযোগ রয়েছে’। কিন্তু এত বছর পেরিয়ে গেলেও সেই রিপোর্ট ‘অন্ধকারেই রয়ে গেছে’ বলে জানিয়েছেন এক বিশেষজ্ঞ। আর দীর্ঘদিন অনুসন্ধানে কার্যকর পদক্ষেপ না থাকায় গ্যাস উৎপাদন চাহিদার তুলানায় বাড়েনি। ফলে আমাদানিনির্ভরতা বেড়েছে।

দেশে বর্তমানে দৈনিক গ্যাসের চাহিদা কমবেশি চার হাজার মিলিয়ন ঘনফুট (এমএমসিএফ)। দেশি-বিদেশি কোম্পানি মিলে উৎপাদন করছে ২ হাজার ২০০ থেকে ৩০০ এমএমসিএফ। গড়ে দৈনিক ৭০০ এমএমসিএফ আমদানিকৃত এলএনজি (তরলীকৃত প্রাকৃতিক গ্যাস) গ্রিডে যুক্ত হচ্ছে। এরপরও দৈনিক এক হাজার ২০০ এমএমসিএফ গ্যাসের ঘাটতি থেকে যাচ্ছে। ফলে সাশ্রয়ী বিদ্যুৎ উৎপাদন ব্যাহত হচ্ছে। কমে গেছে সার উৎপাদন। তাতে বাংলাদেশের অর্থনীতিতে নেতিবাচক প্রভাব পড়ছে।

পেট্রোবাংলার অধীনে রাষ্ট্রীয় ৩টি কোম্পানি- বাংলাদেশ গ্যাস ফিল্ড, সিলেট গ্যাস ফিল্ড ও বাপেক্সের আওতায় মোট ১৮টি গ্যাসক্ষেত্র আছে।

৭০টি কূপের মাধ্যমে এসব গ্যাসক্ষেত্র থেকে দৈনিক মোট এক হাজার ১৪৫ এমএমসিএফ (মিলিয়ন ঘনফুট) গ্যাস উত্তোলন বা উৎপাদন হওয়ার কথা। গড়ে দৈনিক উৎপাদন হচ্ছে ৮৫০ এমএমসিএফ। গড়ে দৈনিক ২৯৫ এমএমসিএফ গ্যাস উৎপাদন কম হচ্ছে।

বিদেশি তেল কোম্পানি শেভরন বিবিয়ানা গ্যাসক্ষেত্রের ২৬টি কূপ দিয়ে প্রতিদিনই সক্ষমতার শতভাগ বা তারও বেশি গ্যাস উৎপাদন করছে। বিবিয়ানা গ্যাসক্ষেত্রের মোট উৎপাদন সক্ষমতা এক হাজার ২০০ এমএমসিএফ। ২৭ জুলাই এই আইওসি (বিদেশি তেল কোম্পানি) বিবিয়ানা থেকে এক হাজার ২১৫ এমএমসিএফ গ্যাস উৎপাদন করেছে।

২০২০ সালের ১২ জানুয়ারি পেট্রোবাংলার তথ্যে দেখা যায়, ওইদিন শেভরন বিবিয়ানা থেকে এক হাজার ৩০১ এমএমসিএফ গ্যাস উৎপাদন করেছিল। সেদিন দেশে কর্মরত দুই আইওসি-শেভরন ও তাল্লো তাদের আওতায় থাকা ৪টি গ্যাসক্ষেত্র থেকে এক হাজার ৬৫৬ এমএমসিএফ গ্যাস উৎপাদন করে। চারটি গ্যাসক্ষেত্রের উৎপাদন ক্ষমতা এক হাজার ৬১৫ এমএমসিএফ। ওই সময় আইওসি দুটি প্রতিদিনই সক্ষমতার চেয়ে বেশি গ্যাস উৎপাদন করত। সম্প্রতি জালালবাদ, মৌলভীবাজার ও বাঙ্গুরা ক্ষেত্র থেকে গ্যাস উৎপাদন কিছুটা কমলেও বিবিয়ানা থেকে সক্ষমতার বেশি গ্যাস উৎপাদন অব্যাহত আছে।

পেট্রোবাংলার চেয়ারম্যান নাজমুল আহসান বৃহস্পতিবার (৪ আগস্ট) বিকেলে সংবাদকে বলেন, ‘প্রযুক্তিগতভাবেই দেশীয় কোম্পানির কূপগুলোর উৎপাদন সক্ষমতা অনেক কম (দৈনিক ১০-২০ এমএমসিএফ)। শেভরনের কূপগুলোর উৎপাদন ক্ষমতা দৈনিক ৬০ থেকে ৭০ এমএমসিএফ পর্যন্ত। প্রযুক্তিগতভাবেই তারা এগিয়ে রয়েছে।’ নাজমুল আহসানের মতে, প্রমাণিত মজুদের হিসাবে দৈনিক কম উৎপাদন হওয়া কূপগুলো অনেকদিন ধরে চলবে। আর বেশি করে উৎপাদন করা হলে তা দ্রুত শেষ হয়ে যাবে।

এদিকে শেভরনের এক কর্মকর্তার দাবি, তাদের কোম্পানি সক্ষমতার চেয়ে বেশি গ্যাস উত্তোলন করছে না। ওই কর্মকর্তা সংবাদকে বলেন, ‘পেট্রোবাংলার ওয়েবসাইটে বিবিয়ানা গ্যাস ফিল্ডের গ্যাস উৎপাদন সক্ষমতা দৈনিক এক হাজার ২০০ এমএমসিএফ দেখানো আছে।’ এই তথ্য ভুল দাবি করে তিনি বলেন, ‘আসলে বিবিয়ানার উৎপাদন সক্ষমতা এক হাজার ৩০০ এমএমসিএফের বেশি। আমরা পেট্রোবাংলাকে বিষয়টি সংশোধন করতে চিঠি দিয়েছি। তবে এখনও তথ্য সংশোধন করা হয়নি।’

এ বিষয়ে পেট্রোবাংলার চেয়ারম্যান সংবাদকে বলেন, ‘বিষয়টি দেখতে হবে। তারা পরবর্তিতে উৎপাদন সক্ষমতা বৃদ্ধি করছে কি না, বিষয়টা নিশ্চিত হয়ে ওয়েবসাইটে আপলোড করা হবে।’

জ্বালানি খাতের বিশেষজ্ঞদের অনেকে বলছেন, দীর্ঘদিন অনুসন্ধানে কার্যকর পদক্ষেপ না থাকায় গ্যাস উৎপাদন চাহিদার তুলানায় বাড়েনি। ফলে আমাদানিনির্ভরতা বাড়ছে। তাদের মতে, জনবহুল বাংলাদেশে নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহ অব্যাহত রাখতে চাইলে প্রাথমিক জ্বালানির জোগান নিশ্চিত করতে হবে। আমদানির ওপর নির্ভর করলে অর্থনীতির ওপর চাপ পড়বে। তাই দেশীয় গ্যাসক্ষেত্রগুলো থেকে গ্যাস উৎপাদন বাড়ানোর পদক্ষেপ নেয়া অতি জরুরি।

একাধিক বিশেষজ্ঞের মতে, অনেক আগেই দেশীয় উৎপাদন বাড়ানো এবং অনুসন্ধানে বিশেষ নজর দেয়া প্রয়োজন ছিল। এক্ষেত্রে সংশ্লিষ্টদের উদাসীনতা রয়েছে বলে মনে করেন তারা। সাগরে গ্যাস অনুসন্ধানেও সরকার যথযথ পরিকল্পনা প্রণয়ন করতে পারেনি বলে মন্তব্য করেন একজন বিশেষজ্ঞ।

জ্বালানি বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক বদরুল ইমাম জানান, দেশীয় গ্যাস ফিল্ডগুলোর ওপর একটি সমীক্ষা পরিচালনা করে আন্তর্জাতিক কোম্পানি স্লামবার্জে। ২০১১ সালে তাদের দাখিলকৃত রিপোর্টে বলা হয়- ‘বিদ্যমান গ্যাস ফিল্ডগুলোর সংস্কার করে দৈনিক ৪০০ থেকে ৮০০ এমএমসিএফ গ্যাস উৎপাদন বাড়ানোর সুযোগ রয়েছে’। এতে খরচ হতে পারে সর্বোচ্চ ১২৫ মিলিয়ন ইউএস ডলার। তিনি বলেন, ১১ বছর পেরিয়ে গেলেও সেই রিপোর্ট অন্ধকারেই রয়ে গেছে। এ বিষয়ে পেট্রোবাংলার এক কর্মকর্তা বলেন, ‘এত আগের বিষয়। সে সময় যারা দায়িত্বে ছিলেন, হয়ত এর বাণিজ্যিক উপযোগিতা খুঁজে পাননি। তাই এটা নিয়ে আর কাজ হয়নি।’

সম্প্রতি রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে বিশ্ববাজারে জ্বালানির দামে অস্থিরতার প্রভাব বাংলাদেশেও এসে পড়েছে। উচ্চমূল্যের ডিজেল দিয়ে বিদ্যুৎ উৎপাদন আপাতত বন্ধ রেখেছে সরকার। শতভাগ বিদ্যুতায়নের পর ফিরে এসেছে লোডশেডিং।

জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগের তথ্য অনুযায়ী, দেশে এখন গ্যাসের যে পরিমাণ ‘প্রমাণিত’ মজুদ আছে, তা ২০৩১ সালে ফুরিয়ে যাবে। এ বিষয়ে পেট্রোবাংলার চেয়রম্যান নাজমুল আহসান জানান, দ্রুত নতুন কিছু কূপ খনন এবং কিছু কূপ সংস্কারের পরিকল্পনা নেয়া হয়েছে। এর মাধ্যমে আগামী এক থেকে চার বছরের মধ্যে দৈনিক প্রায় ৫০০ এমএমসিএফ গ্যাস উৎপাদন বৃদ্ধি পাবে। অনুসন্ধানের মাধ্যমে আগামীতে নতুন গ্যাসক্ষেত্র আবিষ্কার হবে বলেও আশা প্রকাশ করেন তিনি।

back to top