alt

জাতীয়

৯ সরকারি হাইস্কুল প্রকল্পে অনিয়ম, অগ্রিম বিল পরিশোধের পর নির্মাণ কাজে স্থবিরতা

রাকিব উদ্দিন : শনিবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০২২

শিক্ষার গুরুত্বপূর্ণ নয়টি সরকারি হাইস্কুল স্থাপন প্রকল্পের নথিপত্রে অগ্রগতি ৩৫ শতাংশ। তবে বাস্তবে এই প্রকল্প পরিদর্শনে ভিন্ন তথ্য পাওয়া গেছে। কাজ না হলেও অবকাঠামো নির্মাণে নিয়মিত অর্থও ছাড় হচ্ছে। ঠিকাদারের নামে কোটি টাকার বিল পরিশোধ দেখানো হয়েছে। অথচ উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা সরেজমিনে পরিদর্শনে গিয়ে জানতে পায় নির্মাণ কাজ এখনও শুরুই হয়নি।

এ তথ্য পাওয়া গেছে বিভাগীয় পর্যায়ে নতুন ‘৯টি সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয় স্থাপন’ প্রকল্পের কার্যক্রম পরিদর্শনে। সম্প্রতি শিক্ষা প্রকৌশল অধিদফতরের (মাউশি) উচ্চ পর্যায়ের কর্মকর্তাদের একটি টিম এ প্রকল্পের আওতায় রংপুরে একটি বিদ্যালয় নির্মাণের প্রস্তাবিত স্থান পরিদর্শনে গিয়ে এ তথ্য জানতে পায়।

কিন্তু টাকা ছাড়ের সঙ্গে সম্পৃক্ত প্রকল্প কর্মকর্তা এবং নির্মাণ কাজের দায়িত্বে থাকা প্রকৌশলীরা প্রভাবশালী হওয়ায় এ অনিয়ম ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা হচ্ছে। ইইডির পরিদর্শন দলের সদস্যরা এ বিষয়ে লিখিত প্রতিবেদন দেয়ার জন্য সংস্থার শীর্ষ কর্মকর্তার সম্মতি চাইলে তা মেলেনি বলে সংশ্লিষ্ট একাধিক কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে সংবাদকে জানিয়েছেন।

রংপুর সদরে নতুন ‘কামাল কাছলা মৌজা সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়’ স্থাপন হচ্ছে। এ জন্য ১০তলা ভিত্তি বিশিষ্ট ১০তলা একাডেমিক ভবন নির্মাণ হচ্ছে। এ অবমাঠামো নির্মাণের জন্য ঢাকার একটি ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানকে গত ২৮ এপ্রিল কার্যাদেশ দেয়া হয়। এ নির্মাণ কাজের মোট দরপত্র মূল্য ধরা হয়েছে ২৩ কোটি দশ লাখ টাকার মতো। মোট ৩৬ মাসে নির্মাণ কাজ শেষ করার কথা।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, প্রকল্প কার্যালয় থেকে গত ২৬ জুন রংপুর অফিসের অনুকূলে (ইইডি) এক কোটি টাকা ছাড় করা হয়। পরবর্তীতে আরও প্রায় পাঁচ কোটি টাকা ছাড় হয় প্রকল্প অফিস থেকে। তবে প্রকল্পের পরিচালক (পিডি) টাকা ছাড়ের বিষয়টি অস্বীকার করেছেন। ইইডির প্রধান কার্যালয়ের সংশ্লিষ্ট প্রকৌশলীরাও এই অনিয়মের সঙ্গে জড়িত বলে কর্মকর্তারা জানিয়েছেন।

কাজ না হওয়া সত্ত্বেও টাকা ছাড়ের বিষয়ে জানতে চাইলে ৯টি সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয় স্থাপন প্রকল্পের পিডি অধ্যাপক রায়হানা তসলিম সংবাদকে বলেন, রংপুরের ওই স্কুলটির জন্য ‘আমরা টাকা ছাড় করিনি।’

কিন্তু ইইডি কর্মকর্তারা টাকা ছাড়ের প্রমাণ পেয়েছে-এ বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করলে পিডি বলেন, ‘অল্প কিছু টাকা দেয়া হয়েছে; কাজও এখন চলমান।’

এ বিষয়ে ইইডির রংপুর আঞ্চলিক অফিসের নির্বাহী প্রকৌশলী আবুল কালাম মো. আকতারুজ্জামান সংবাদকে বলেন, তিনি এখন প্রায় পাঁচ কোটি টাকা পেয়েছেন প্রকল্প অফিস থেকে। এর মধ্যে ঠিকাদারকে এক কোটি টাকার মতো দেয়া হয়েছে। বাকি টাকা ‘ইইডির ট্রেজারি’তে রাখা হয়েছে।

ইইডির দুই কর্মকর্তা জানিয়েছেন, রংপুরে একটি স্কুল স্থাপনে ‘ভুল ডিজাইনে ভুল ফাইলিং’ হয়েছে। যদিও এ প্রকল্পের ডিজাইনের দায়িত্বে থাকা সংস্থার নির্বাহী প্রকৌশলী ও ‘বিশেষজ্ঞ’ ডিজাইনার জয়নাল আবেদীন সংবাদকে বলেন, ‘আমি কোনো ভুল ডিজাইন করি না। সেখানে (রংপুর) ফাইলিংয়ে ভুল হয়েছে। এখন নতুন করে ফাইলিং করতে হবে।’

অগ্রিম বিল পরিশোধের পরও নির্মাণ কাজ এগুচ্ছে না বিভাগীয় পর্যায়ে নতুন ৯টি সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয় স্থান প্রকল্পে। এ প্রকল্পের আওতায় রংপুরে দুটি স্কুল নির্মাণের কথা রয়েছে। তবে ছয় মাসে কাজ হয়নি ১০ লাখ টাকারও। এমন অভিযোগের ভিত্তিতে সম্প্রতি ওই বিদ্যালয় স্থল পরিদর্শনে যান শিক্ষা প্রকৌশল অধিদফতরের (ইইডি) কয়েকজন প্রকৌশলী ও কর্মকর্তা। তারা সেখানে গিয়ে জানতে পান আগাম টাকা-পয়সা দেয়া হলেও নির্মাণ কাজ শুরু হয়নি।

এরপর তারা বিষয়টি সংস্থার প্রধান প্রকৌশলীকে অবহিত করলে তিনি প্রকৌশলীদের ওপর ‘ক্ষোভ’ প্রকাশ করেন। ‘পরিদর্শনের এজেন্ডায়’ এই স্কুলের নাম না থাকায় ‘ক্ষোভ’ প্রকাশ করেন প্রধান প্রকৌশলী। কারণ ইইডির ওই জোন অফিসের প্রধান এবং ওই কাজের ঠিকাদার-দুজনই ‘প্রভাবশালী’। এ অনিয়মের’ সঙ্গে প্রকল্প কর্মকর্তাদেরও সম্পৃক্ততা থাকতে পারে বলে ইইডি কর্মকর্তাদের ধারণা।

২০১৮ সালের অক্টোবরে শুরু হওয়া ‘৯ স্কুল’ প্রকল্পটির প্রথম দফায় মেয়াদ ছিল ২০২১ সালের জুন পর্যন্ত। পরে মেয়াদ দুই বছর বাড়িয়ে ২০২৩ সালের জুন পর্যন্ত করা হয়। এ হিসেবে আগামী সাত মাসে প্রকল্পের বাস্তবায়ন শেষ করতে হবে।

৪৬৪ কোটি টাকার এ প্রকল্পে গত জুন নাগাদ প্রায় ১৬২ কোটি টাকা ব্যয় দেখানো হয়েছে। এ হিসেবে আর্থিক অগ্রগতি দাঁড়ায় ৩৫ শতাংশের মতো। মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদফতরের (মাউশি) অধীনে বাস্তবায়ন হওয়া এ প্রকল্পের প্রকৃত অগ্রগতি নিয়ে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন।

প্রকৌশলী ও প্রকল্প কর্মকর্তারা সংবাদকে জানিয়েছেন, ৯টি বিদ্যালয়ের মধ্যে অন্তত পাঁচটির অবকাঠামো নির্মাণ কাজই ‘সন্তোষজনক’ নয়। এগুলোতে কখনো কাজ হচ্ছে, কখনো বন্ধ থাকছে। ‘মনিটরিং’ হচ্ছে দায়সারাগোচের। এ কারণে আগাম বিল পরিশোধের পরও কাজ এগুচ্ছে না।

প্রকল্পটির অধীনে চট্টগ্রাম, রাজশাহী ও রংপুর বিভাগীয় শহরে দুটি করে, ময়মনসিংহ বিভাগীয় শহর ও জয়পুরহাটে একটি করে এবং সিলেট বিভাগের মৌলভীবাজার জেলার শ্রীমঙ্গলে একটি সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয় নির্মাণের কথা রয়েছে।

এর মধ্যে চট্টগ্রাম বিভাগীয় শহরের দুটি বিদ্যালয়ের জমি নির্ধারণ করতেই দুই বছর চলে যায়। একটি বিদ্যালয় নির্মাণের জন্য অন্তত দুই একর জমির প্রয়োজন। একসঙ্গে জমি না পাওয়ায় শহরের দক্ষিণের দিকে পতেঙ্গায় দুটি বিদ্যালয় নির্মাণের জমি নির্ধারণ করা হয়। দুটি বিদ্যালয়ের মধ্যে একটির নির্মাণ কাজ শুরু হলে কাজ এগুচ্ছে ধীরগতিতে; আরেকটি কাজ শুরু হয়নি।

রাজশাহী শহরে দুটি সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের জন্য বোয়ালিয়ার ছোট বনগ্রাম এবং বড় বনগ্রাম নির্ধারণ করা হয়েছে। এর মধ্যে একটির কাজ শুরু হলেও অপরটির কাজ শুরু হয়নি।

এছাড়া জয়পুরহাটের বিদ্যালয়টির নির্মাণ কাজ চলমান রয়েছে। রংপুর শহরের কামালকাস্তা এবং উত্তম এলাকায় সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয় দুটি স্থাপনের স্থান নির্ধারণ করা হয়েছে। এর মধ্যে উত্তম এলাকায় স্কুলের দরপত্র প্রক্রিয়া সম্পন্ন হয়নি।

ময়মনসিংহ শহরের ঢাকা বাইপাস এলাকায় জমি নির্ধারণ করা হয়েছে। নির্মাণ কাজ শুরু হয়েছে মাত্র। আর শ্রীমঙ্গলের বাংলাদেশ চা গবেষণা ইনস্টিটিউটের ভেতরে সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয় নির্মাণ করা হলেও কাজ এগুচ্ছে ধীর গতিতে।

৯টি বিদ্যালয়ের মধ্যে বিভাগীয় শহরের ৭টি বিদ্যালয় হবে ১০ তলাবিশিষ্ট এবং জেলা-উপজেলা শহরের দুটি হবে ৬ তলাবিশিষ্ট। বিদ্যালয়গুলোতে পর্যাপ্ত সংখ্যক শ্রেণিকক্ষের পাশাপাশি আইসিটি ল্যাব, বিজ্ঞানাগার, লাইব্রেরি, মাল্টিপারপাস হল রুম, প্রধান শিক্ষকের কক্ষ, সহকারী প্রধান শিক্ষকের কক্ষ, অফিস কক্ষ, শিক্ষক কমনরুম, দর্শনার্থী কক্ষ ও মিড ডে মিল কক্ষ ও সেমিনার কক্ষ থাকবে।

এছাড়া বিএনসিসি, গার্লস গাইড কক্ষ, প্রাথমিক চিকিৎসা কক্ষ এবং ইন্টানেট সুবিধাসহ ল্যাপটপ, কম্পিউটার ও কম্পিউটার সামগ্রী, মাল্টিমিডিয়া প্রজেক্টর, বই-পুস্তক, খেলাধুলার সরঞ্জাম, বৈজ্ঞানিক যন্ত্রপাতি ও আসবাবপত্র সুবিধাও রাখার কথা রয়েছে প্রকল্প দলিলে।

ছবি

সিলেটে আন্তর্জাতিক কাস্টমস দিবস উদযাপন

ছবি

সুষ্ঠু নির্বাচন করতে ডিসিদের প্রস্তুত থাকার নির্দেশ

বাংলাদেশে ভিসা বিধিনিষেধ আরোপ করতে চায় ইইউ

ছবি

ক্ষমতার অপপ্রয়োগ না করতে ডিসিদের নির্দেশ রাষ্ট্রপতির

ছবি

রূপপুরের সরঞ্জাম : রাশিয়া থেকে এবার দুটি জাহাজ মোংলা বন্দরে

বিসিপিএস নির্বাচন: শীর্ষ কর্মকর্তাদের অংশগ্রহণে জুনিয়ররা প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে ভয় পাচ্ছেন

ছবি

সত্য ও ন্যায়ের পথে থেকে তরুণ সমাজকে জ্ঞানার্জনে আত্মনিয়োগ করতে হবে: স্পিকার

ছবি

র‍্যাবের ওপর নিষেধাজ্ঞা রাজনৈতিক বিষয়: সংসদে পররাষ্ট্রমন্ত্রী

ছবি

৩০ শতাংশ সরকারি কৌঁসুলি নিয়োগ দেবে জুডিশিয়াল সার্ভিস কমিশন: আইনমন্ত্রী

ছবি

অনিবন্ধিত অনলাইন, আইপিটিভি ও ইউটিউব চ্যানেল নিয়ে ডিসিদের সতর্ক করলেন তথ্যমন্ত্রী

বিআইডব্লিওটিএ-এর ছাড়পত্র ছাড়া কোনো ব্রিজ নয়: নৌ প্রতিমন্ত্রী

ছবি

রোহিঙ্গাদের ফেরতের ইতিবাচক কোন খবর নেই: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

ছবি

প্রবাসীদের দিকে নজর দিতে ডিসিদের তাগিদ

ছবি

স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ার মূল চাবিকাঠি ডিজিটাল সংযোগ : প্রধানমন্ত্রী

ছবি

ডিজিটাল সিকিউরিটি আইনে আগের মতো হয়রানির সুযোগ নেই: আইনমন্ত্রী

ছবি

রাজনৈতিক মামলা বলতে কিছু নেই, অপরাধ করলে মামলা হয় : আইনমন্ত্রী

ছবি

সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সরস্বতী পূজা আজ

ছবি

কোরআন অবমাননার ঘটনায় বাংলাদেশের নিন্দা

ছবি

ট্রেনে চড়ে পদ্মা পার হতে অপেক্ষা বাড়ছে

ছবি

মানব পাচার বেশি হয় সুন্দরবন অঞ্চল থেকে : ইউএনওডিসির প্রতিবেদন

ছবি

‘সিভিল প্রশাসন আগের চেয়ে সেনাবাহিনীর সঙ্গে অনেক বন্ধুত্বপূর্ণ’

দেশে শ্রমে নিয়োজিত ১৭ লাখ শিশু ঝুঁকিপূর্ণ কাজে নিয়োজিত ১২ লাখ

ছবি

ব্যর্থতা থাকলে খুঁজে বের করে দিন : সংসদে প্রধানমন্ত্রী

সমীক্ষায় কোনো তথ্য মুছে ফেলা হয়নি: নদী কমিশন চেয়ারম্যান

ছবি

করোনায় একদিনে আক্রান্ত ৯

ছবি

পুলিশের ৬ কর্মকর্তা নতুন অতিরিক্ত আইজিপি

ছবি

সব শিশুকে সুনাগরিক হিসেবে গড়ে তুলতে চায় সরকার: প্রধানমন্ত্রী

ছবি

রাষ্ট্রপতি নির্বাচন ১৯ ফেব্রুয়ারি

ছবি

আল্লাহ নিজ হাতে গজব না দিলে দুর্ভিক্ষ হবে না: খাদ্যমন্ত্রী

ছবি

রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা আজ

ছবি

বায়ুদূষণে ফের শীর্ষে ঢাকা

ছবি

বিদ্যুৎ ও জ্বালানি সাশ্রয়ের ব্যবস্থা গ্রহণসহ ২৫ নির্দেশনা প্রধানমন্ত্রীর

ছবি

সংসদে শীর্ষ ২০ ঋণ খেলাপির তালিকা দিলেন অর্থমন্ত্রী

দেশের উন্নয়ন ও বাণিজ্য প্রসারে সুইজারল্যান্ডের সহযোগিতা চাইলেন স্পিকার

৬৬ শিক্ষককে ৪র্থ গণবিজ্ঞপ্তিতে আবেদনের সুযোগ দেয়ার নির্দেশ

ছবি

২০৩০ সাল নাগাদ বিমানযাত্রী ‘দ্বিগুণ’ করার লক্ষ্যে কাজ চলছে: প্রতিমন্ত্রী

tab

জাতীয়

৯ সরকারি হাইস্কুল প্রকল্পে অনিয়ম, অগ্রিম বিল পরিশোধের পর নির্মাণ কাজে স্থবিরতা

রাকিব উদ্দিন

শনিবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০২২

শিক্ষার গুরুত্বপূর্ণ নয়টি সরকারি হাইস্কুল স্থাপন প্রকল্পের নথিপত্রে অগ্রগতি ৩৫ শতাংশ। তবে বাস্তবে এই প্রকল্প পরিদর্শনে ভিন্ন তথ্য পাওয়া গেছে। কাজ না হলেও অবকাঠামো নির্মাণে নিয়মিত অর্থও ছাড় হচ্ছে। ঠিকাদারের নামে কোটি টাকার বিল পরিশোধ দেখানো হয়েছে। অথচ উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা সরেজমিনে পরিদর্শনে গিয়ে জানতে পায় নির্মাণ কাজ এখনও শুরুই হয়নি।

এ তথ্য পাওয়া গেছে বিভাগীয় পর্যায়ে নতুন ‘৯টি সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয় স্থাপন’ প্রকল্পের কার্যক্রম পরিদর্শনে। সম্প্রতি শিক্ষা প্রকৌশল অধিদফতরের (মাউশি) উচ্চ পর্যায়ের কর্মকর্তাদের একটি টিম এ প্রকল্পের আওতায় রংপুরে একটি বিদ্যালয় নির্মাণের প্রস্তাবিত স্থান পরিদর্শনে গিয়ে এ তথ্য জানতে পায়।

কিন্তু টাকা ছাড়ের সঙ্গে সম্পৃক্ত প্রকল্প কর্মকর্তা এবং নির্মাণ কাজের দায়িত্বে থাকা প্রকৌশলীরা প্রভাবশালী হওয়ায় এ অনিয়ম ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা হচ্ছে। ইইডির পরিদর্শন দলের সদস্যরা এ বিষয়ে লিখিত প্রতিবেদন দেয়ার জন্য সংস্থার শীর্ষ কর্মকর্তার সম্মতি চাইলে তা মেলেনি বলে সংশ্লিষ্ট একাধিক কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে সংবাদকে জানিয়েছেন।

রংপুর সদরে নতুন ‘কামাল কাছলা মৌজা সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়’ স্থাপন হচ্ছে। এ জন্য ১০তলা ভিত্তি বিশিষ্ট ১০তলা একাডেমিক ভবন নির্মাণ হচ্ছে। এ অবমাঠামো নির্মাণের জন্য ঢাকার একটি ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানকে গত ২৮ এপ্রিল কার্যাদেশ দেয়া হয়। এ নির্মাণ কাজের মোট দরপত্র মূল্য ধরা হয়েছে ২৩ কোটি দশ লাখ টাকার মতো। মোট ৩৬ মাসে নির্মাণ কাজ শেষ করার কথা।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, প্রকল্প কার্যালয় থেকে গত ২৬ জুন রংপুর অফিসের অনুকূলে (ইইডি) এক কোটি টাকা ছাড় করা হয়। পরবর্তীতে আরও প্রায় পাঁচ কোটি টাকা ছাড় হয় প্রকল্প অফিস থেকে। তবে প্রকল্পের পরিচালক (পিডি) টাকা ছাড়ের বিষয়টি অস্বীকার করেছেন। ইইডির প্রধান কার্যালয়ের সংশ্লিষ্ট প্রকৌশলীরাও এই অনিয়মের সঙ্গে জড়িত বলে কর্মকর্তারা জানিয়েছেন।

কাজ না হওয়া সত্ত্বেও টাকা ছাড়ের বিষয়ে জানতে চাইলে ৯টি সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয় স্থাপন প্রকল্পের পিডি অধ্যাপক রায়হানা তসলিম সংবাদকে বলেন, রংপুরের ওই স্কুলটির জন্য ‘আমরা টাকা ছাড় করিনি।’

কিন্তু ইইডি কর্মকর্তারা টাকা ছাড়ের প্রমাণ পেয়েছে-এ বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করলে পিডি বলেন, ‘অল্প কিছু টাকা দেয়া হয়েছে; কাজও এখন চলমান।’

এ বিষয়ে ইইডির রংপুর আঞ্চলিক অফিসের নির্বাহী প্রকৌশলী আবুল কালাম মো. আকতারুজ্জামান সংবাদকে বলেন, তিনি এখন প্রায় পাঁচ কোটি টাকা পেয়েছেন প্রকল্প অফিস থেকে। এর মধ্যে ঠিকাদারকে এক কোটি টাকার মতো দেয়া হয়েছে। বাকি টাকা ‘ইইডির ট্রেজারি’তে রাখা হয়েছে।

ইইডির দুই কর্মকর্তা জানিয়েছেন, রংপুরে একটি স্কুল স্থাপনে ‘ভুল ডিজাইনে ভুল ফাইলিং’ হয়েছে। যদিও এ প্রকল্পের ডিজাইনের দায়িত্বে থাকা সংস্থার নির্বাহী প্রকৌশলী ও ‘বিশেষজ্ঞ’ ডিজাইনার জয়নাল আবেদীন সংবাদকে বলেন, ‘আমি কোনো ভুল ডিজাইন করি না। সেখানে (রংপুর) ফাইলিংয়ে ভুল হয়েছে। এখন নতুন করে ফাইলিং করতে হবে।’

অগ্রিম বিল পরিশোধের পরও নির্মাণ কাজ এগুচ্ছে না বিভাগীয় পর্যায়ে নতুন ৯টি সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয় স্থান প্রকল্পে। এ প্রকল্পের আওতায় রংপুরে দুটি স্কুল নির্মাণের কথা রয়েছে। তবে ছয় মাসে কাজ হয়নি ১০ লাখ টাকারও। এমন অভিযোগের ভিত্তিতে সম্প্রতি ওই বিদ্যালয় স্থল পরিদর্শনে যান শিক্ষা প্রকৌশল অধিদফতরের (ইইডি) কয়েকজন প্রকৌশলী ও কর্মকর্তা। তারা সেখানে গিয়ে জানতে পান আগাম টাকা-পয়সা দেয়া হলেও নির্মাণ কাজ শুরু হয়নি।

এরপর তারা বিষয়টি সংস্থার প্রধান প্রকৌশলীকে অবহিত করলে তিনি প্রকৌশলীদের ওপর ‘ক্ষোভ’ প্রকাশ করেন। ‘পরিদর্শনের এজেন্ডায়’ এই স্কুলের নাম না থাকায় ‘ক্ষোভ’ প্রকাশ করেন প্রধান প্রকৌশলী। কারণ ইইডির ওই জোন অফিসের প্রধান এবং ওই কাজের ঠিকাদার-দুজনই ‘প্রভাবশালী’। এ অনিয়মের’ সঙ্গে প্রকল্প কর্মকর্তাদেরও সম্পৃক্ততা থাকতে পারে বলে ইইডি কর্মকর্তাদের ধারণা।

২০১৮ সালের অক্টোবরে শুরু হওয়া ‘৯ স্কুল’ প্রকল্পটির প্রথম দফায় মেয়াদ ছিল ২০২১ সালের জুন পর্যন্ত। পরে মেয়াদ দুই বছর বাড়িয়ে ২০২৩ সালের জুন পর্যন্ত করা হয়। এ হিসেবে আগামী সাত মাসে প্রকল্পের বাস্তবায়ন শেষ করতে হবে।

৪৬৪ কোটি টাকার এ প্রকল্পে গত জুন নাগাদ প্রায় ১৬২ কোটি টাকা ব্যয় দেখানো হয়েছে। এ হিসেবে আর্থিক অগ্রগতি দাঁড়ায় ৩৫ শতাংশের মতো। মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদফতরের (মাউশি) অধীনে বাস্তবায়ন হওয়া এ প্রকল্পের প্রকৃত অগ্রগতি নিয়ে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন।

প্রকৌশলী ও প্রকল্প কর্মকর্তারা সংবাদকে জানিয়েছেন, ৯টি বিদ্যালয়ের মধ্যে অন্তত পাঁচটির অবকাঠামো নির্মাণ কাজই ‘সন্তোষজনক’ নয়। এগুলোতে কখনো কাজ হচ্ছে, কখনো বন্ধ থাকছে। ‘মনিটরিং’ হচ্ছে দায়সারাগোচের। এ কারণে আগাম বিল পরিশোধের পরও কাজ এগুচ্ছে না।

প্রকল্পটির অধীনে চট্টগ্রাম, রাজশাহী ও রংপুর বিভাগীয় শহরে দুটি করে, ময়মনসিংহ বিভাগীয় শহর ও জয়পুরহাটে একটি করে এবং সিলেট বিভাগের মৌলভীবাজার জেলার শ্রীমঙ্গলে একটি সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয় নির্মাণের কথা রয়েছে।

এর মধ্যে চট্টগ্রাম বিভাগীয় শহরের দুটি বিদ্যালয়ের জমি নির্ধারণ করতেই দুই বছর চলে যায়। একটি বিদ্যালয় নির্মাণের জন্য অন্তত দুই একর জমির প্রয়োজন। একসঙ্গে জমি না পাওয়ায় শহরের দক্ষিণের দিকে পতেঙ্গায় দুটি বিদ্যালয় নির্মাণের জমি নির্ধারণ করা হয়। দুটি বিদ্যালয়ের মধ্যে একটির নির্মাণ কাজ শুরু হলে কাজ এগুচ্ছে ধীরগতিতে; আরেকটি কাজ শুরু হয়নি।

রাজশাহী শহরে দুটি সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের জন্য বোয়ালিয়ার ছোট বনগ্রাম এবং বড় বনগ্রাম নির্ধারণ করা হয়েছে। এর মধ্যে একটির কাজ শুরু হলেও অপরটির কাজ শুরু হয়নি।

এছাড়া জয়পুরহাটের বিদ্যালয়টির নির্মাণ কাজ চলমান রয়েছে। রংপুর শহরের কামালকাস্তা এবং উত্তম এলাকায় সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয় দুটি স্থাপনের স্থান নির্ধারণ করা হয়েছে। এর মধ্যে উত্তম এলাকায় স্কুলের দরপত্র প্রক্রিয়া সম্পন্ন হয়নি।

ময়মনসিংহ শহরের ঢাকা বাইপাস এলাকায় জমি নির্ধারণ করা হয়েছে। নির্মাণ কাজ শুরু হয়েছে মাত্র। আর শ্রীমঙ্গলের বাংলাদেশ চা গবেষণা ইনস্টিটিউটের ভেতরে সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয় নির্মাণ করা হলেও কাজ এগুচ্ছে ধীর গতিতে।

৯টি বিদ্যালয়ের মধ্যে বিভাগীয় শহরের ৭টি বিদ্যালয় হবে ১০ তলাবিশিষ্ট এবং জেলা-উপজেলা শহরের দুটি হবে ৬ তলাবিশিষ্ট। বিদ্যালয়গুলোতে পর্যাপ্ত সংখ্যক শ্রেণিকক্ষের পাশাপাশি আইসিটি ল্যাব, বিজ্ঞানাগার, লাইব্রেরি, মাল্টিপারপাস হল রুম, প্রধান শিক্ষকের কক্ষ, সহকারী প্রধান শিক্ষকের কক্ষ, অফিস কক্ষ, শিক্ষক কমনরুম, দর্শনার্থী কক্ষ ও মিড ডে মিল কক্ষ ও সেমিনার কক্ষ থাকবে।

এছাড়া বিএনসিসি, গার্লস গাইড কক্ষ, প্রাথমিক চিকিৎসা কক্ষ এবং ইন্টানেট সুবিধাসহ ল্যাপটপ, কম্পিউটার ও কম্পিউটার সামগ্রী, মাল্টিমিডিয়া প্রজেক্টর, বই-পুস্তক, খেলাধুলার সরঞ্জাম, বৈজ্ঞানিক যন্ত্রপাতি ও আসবাবপত্র সুবিধাও রাখার কথা রয়েছে প্রকল্প দলিলে।

back to top