alt

শোক ও স্মরন

একুশে পদকপ্রাপ্ত বিচারপতি কাজী এবাদুল হক মারা গেছেন

সংবাদ অনলাইন রিপোর্ট : শুক্রবার, ১৫ জুলাই ২০২২

সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগের সাবেক বিচারপতি ও একুশে পদকপ্রাপ্ত ভাষা সৈনিক বিচারপতি কাজী এবাদুল হক মারা গেছেন। (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাহির রাজিউন)। বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত ১২টা ১০ মিনিটে রাজধানীর শমরিতা হাসপাতালে তিনি মৃত্যুবরণ করেন।

সুপ্রিম কোর্টের মুখপাত্র মুহাম্মদ সাইফুর রহমান তার মৃত্যের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

বিচারপতি কাজী এবাদুল হকের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন প্রধান বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী। তিনি মরহুমের বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা এবং শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করেন।

বিচারপতি কাজী এবাদুল হক ২০১৬ সালে একুশে পদকে ভূষিত হন। তার স্ত্রী অধ্যাপক শরীফা খাতুনও ২০১৭ সালে একুশে পদক অর্জন করেন। তার মেয়ে বিচারপতি কাজী জিনাত হক হাইকোর্ট বিভাগের বিচারপতি।

১৯৩৬ সালে ফেনীতে জন্ম নেওয়া বিচারপতি কাজী এবাদুল হক ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ছিলেন। বিচারপতি কাজী এবাদুল হক ১৯৫২ সালে ফেনীতে ভাষা আন্দোলনে অগ্রণী ভূমিকা পালন করেন। ১৯৫৪-৫৫ সালে তিনি ফেনী ভাষা সংগ্রাম পরিষদের আহ্বায়ক ছিলেন। অধ্যাপক শরিফা খাতুনও ভাষা আন্দোলনে সাহসী ভূমিকা রাখেন। বিভিন্ন স্কুলে গিয়ে বাংলা ভাষার পক্ষে প্রচারণা চালান। স্কুলের ছাত্রীদের সংগঠিত করেন।

ছবি

শিল্পী কাইয়ুম চৌধুরীর ৮ম মৃত্যুবার্ষিকী আজ

মানসম্পন্ন সাংবাদিকতার চর্চা করলে সাংবাদিক জগলুলের প্রতি শ্রদ্ধা জানানো সার্থক হবে: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

ছবি

‘আহমদুল কবির ছিলেন ক্ষণজন্মা, নির্লোভ মানবপ্রেমিক’

ছবি

রাজনীতি ও সাংবাদিকতায় প্রতিভাদীপ্ত ব্যক্তিত্ব আহমদুল কবির

ছবি

সাংবাদিক খন্দকার মুনীরুজ্জামানের ২য় মৃত্যুবার্ষিকী আজ

ছবি

সাংবাদিক আসাদুজ্জামান বাচ্চু আর নেই

শহীদ সার্জেন্ট জহুরুল হক স্মরণে নওগাঁয় বক্তৃতা প্রতিযোগিতা

হাতিয়া উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদকের মৃত্যু

ছবি

রংপুরের সাংবাদিক আফতাব হোসেন মারা গেছেন

ছবি

মাসুম আজিজের মৃত্যুতে প্রধানমন্ত্রীর শোক

ছবি

সাংবাদিক রণেশ মৈত্র আর নেই

ছবি

নাট্যনির্মাতা সাখাওয়াত মানিক আর নেই

বাসের ধাক্কায় প্রেসক্লাব সভাপতির মৃত্যু

ছবি

প্রধানমন্ত্রীর উপ-প্রেস সচিব তুষারের বাবার মৃত্যুবার্ষিকী আজ

ছবি

সড়ক দুর্ঘটনায় মারা গেছেন চিত্রগ্রাহক জাহিদ হোসেন

ছবি

অভিনেতা আনিসুর রহমান মিলনের স্ত্রী আর নেই

ছবি

লরি চাপায় ট্রাফিক পুলিশ কনস্টেবল নিহত

ছবি

উত্তরায় গার্ডার ধসে নিহতের ঘটনায় প্রধানমন্ত্রীর শোক

ছবি

হুমায়ুন আজাদের ১৮তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ

ছবি

রাজনীতিতে ফজলে রাব্বি মিয়ার মতো জনদরদী মানুষ বিরল: ড. আতিউর

ছবি

সাংবাদিক অমিত হাবিব মারা গেছেন

ছবি

চলচ্চিত্র ব্যক্তিত্ব মোহাম্মদ সালাহউদ্দিনের ৩০তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ

ছবি

শাবিপ্রবিতে ছুরিকাঘাতে নিহত বুলবুলের বাড়ি নরসিংদীতে শোকের মাতম

ছবি

জয়পুরহাটের সাবেক এমপি আব্বাস আলী মণ্ডলের মৃত্যু

ছবি

চিরনিদ্রায় শায়িত হলেন ডেপুটি স্পিকার ফজলে রাব্বী মিয়া

ছবি

ডেপুটি স্পিকারের লাশ দেশে আসবে সোমবার

ছবি

বেতারের মহাপরিচালক আহম্মদ কামরুজ্জামান আর নেই

ছবি

ডা. শাহাদাৎ হোসেনের মৃত্যুবার্ষিকী কাল

ছবি

কথা সাহিত্যিক হুমায়ূন আহমেদের মৃত্যুবার্ষিকী আজ

চারঘাট প্রেসক্লাব সভাপতি মোজাম্মেল হক মারা গেছেন

ড. এনামুল হক চির নিদ্রায় শায়িত হলেন তার প্রতিষ্ঠিত মসজিদ প্রাঙ্গনে

ছবি

জাকারিয়া খান মজলিশ মারা গেছেন

ছবি

কিংবদন্তি সংগীত পরিচালক আলম খান আর নেই

ছবি

চলচ্চিত্র নির্মাতা তরুণ মজুমদারের প্রয়াণ

ছবি

সাবেক অর্থমন্ত্রী মরহুম আবুল মাল আবদুল মুহিতের স্মরণসভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত

ছবি

সিনিয়র সাংবাদিক গিয়াস উদ্দিন আহমেদ মারা গেছেন

tab

শোক ও স্মরন

একুশে পদকপ্রাপ্ত বিচারপতি কাজী এবাদুল হক মারা গেছেন

সংবাদ অনলাইন রিপোর্ট

শুক্রবার, ১৫ জুলাই ২০২২

সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগের সাবেক বিচারপতি ও একুশে পদকপ্রাপ্ত ভাষা সৈনিক বিচারপতি কাজী এবাদুল হক মারা গেছেন। (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাহির রাজিউন)। বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত ১২টা ১০ মিনিটে রাজধানীর শমরিতা হাসপাতালে তিনি মৃত্যুবরণ করেন।

সুপ্রিম কোর্টের মুখপাত্র মুহাম্মদ সাইফুর রহমান তার মৃত্যের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

বিচারপতি কাজী এবাদুল হকের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন প্রধান বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী। তিনি মরহুমের বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা এবং শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করেন।

বিচারপতি কাজী এবাদুল হক ২০১৬ সালে একুশে পদকে ভূষিত হন। তার স্ত্রী অধ্যাপক শরীফা খাতুনও ২০১৭ সালে একুশে পদক অর্জন করেন। তার মেয়ে বিচারপতি কাজী জিনাত হক হাইকোর্ট বিভাগের বিচারপতি।

১৯৩৬ সালে ফেনীতে জন্ম নেওয়া বিচারপতি কাজী এবাদুল হক ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ছিলেন। বিচারপতি কাজী এবাদুল হক ১৯৫২ সালে ফেনীতে ভাষা আন্দোলনে অগ্রণী ভূমিকা পালন করেন। ১৯৫৪-৫৫ সালে তিনি ফেনী ভাষা সংগ্রাম পরিষদের আহ্বায়ক ছিলেন। অধ্যাপক শরিফা খাতুনও ভাষা আন্দোলনে সাহসী ভূমিকা রাখেন। বিভিন্ন স্কুলে গিয়ে বাংলা ভাষার পক্ষে প্রচারণা চালান। স্কুলের ছাত্রীদের সংগঠিত করেন।

back to top