alt

রাজনীতি

জাপায় ‘জটিলতা’ কাটছে না, ‘মিরাকলের’ অপেক্ষায় নেতারা

সংবাদ অনলাইন রিপোর্ট : বুধবার, ২৯ নভেম্বর ২০২৩

আসন্ন সংসদ নির্বাচনকে ঘিরে জাতীয় পার্টির (জাপা) অভ্যান্তরীণ ‘জটিলতা’ কাটছে না। নির্বাচনের প্রার্থী ঘোষণায় দলটির চেয়ারম্যান জিএম কাদের ও প্রধান পৃষ্ঠপোষক রওশন এরশাদকে ঘিরে দুই বলয়ের ‘দ্বন্দ্ব’ এখন নতুন মাত্রা পেয়েছে।

জিএম কাদের পক্ষের নেতারা ‘এককভাবে’ নির্বাচনের পথে এগিয়ে যাচ্ছে। শুরুতে নির্বাচনে অংশগ্রহণ প্রশ্নে ‘দ্বিধাদ্বন্দ্ব’ থাকলেও শেষ সময়ে এসে নির্বাচনে যাওয়ার ঘোষণা দেয় দলটি।

কিন্তু দলের ভেতরের ‘বিভেদ’ না মিটিয়েই দলীয় প্রার্থীদের তালিকা প্রকাশ করে দলটি। তালিকায় রওশন এরশাদের আসন ফাঁকা রাখলেও জায়গা হয়নি তার ছেলে রাহগীর আল মাহি সাদ এরশাদের। মনোনয়ন তালিকা থেকে বাদ পড়েছেন রওশনপন্থি হিসেবে পরিচিত নেতারাও।

এমন পরিস্থিতিতে ‘ক্ষুব্ধ’ রওশন এরশাদ ও তার অনুসারীরা। রওশনপন্থি একাধিক নেতা জানিয়েছেন, সাদ এরশাদ ও নিজ অনুসারীদের মনোনয়ন না দিলে নির্বাচনে যাবেন না রওশন।

নির্বাচনের তফসিল অনুযায়ী আজ মনোনয়ন ফরম জমা দেয়ার শেষ দিন। আজকের পর মনোনয়ন ফরম জমা দেয়ার সময় না বাড়লে নির্বাচনে অংশ নেয়াটা অনিশ্চিত হয়ে পড়বে রওশন এরশাদের। সঙ্গে তার ছেলে ও সমর্থিত নেতাদেরও। তবে এখনও নির্বাচনে অংশ নেয়ার ব্যাপরে আশা ছাড়ছেন না রওশনপন্থিরা। যেকোনো মুহূর্তে ‘মিরাকল’ কিছু ঘটতে পারে বলে ধারণা তাদের।

রওশন এরশাদকে নির্বাচনে আনতে এবং সমঝোতার জন্য ‘প্রচেষ্টা’ চলছে বলেও দলীয় সূত্র জানায়। এর মধ্যে জিএম কাদের রওশন এরশাদের সঙ্গে দেখাও করেছেন বলেও সূত্রের খবর। পার্টির সব নেতারা ঐক্যমত পৌঁছতে দফা দফায় বৈঠক হচ্ছে বলেও নেতারা জানিয়েছেন। নেতাদের আশা, সমঝোতার মাধ্যমে ‘দুইপক্ষ একসঙ্গে’ নির্বাচনে লড়বে।

নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করলে শুরুতে দোটানায় থাকলেও পরে নির্বাচনে অংশগ্রহণের ঘোষণা দেয় জাপা। এমন ঘোষণায় কারণ হিসেবে দলের মহাসচিব মো. মুজিবুল হক জানিয়েছেন, নির্বাচন কমিশনসহ সরকারের বিভিন্ন মহল থেকে তাদের ‘আশ্বস্ত’ করা হয়েছে।

তবে একাধিক সূত্র জানায়, দলের কর্তৃত্ব নিয়েই জিএম কাদের-রওশন এরশাদের মধ্যে প্রধান সমস্যা। জিএম কাদের দলীয় মনোনয়নসহ দলীয় সব সিদ্ধান্ত তার হাতে রাখতে চান। অন্যদিকে দলে প্রভাব ধরে রাখতে চান রওশন এরশাদ।

নিজ সব অনুসারীদের মনোনয়নের ব্যাপারেও নিশ্চিত হতে চান তিনি। বিশেষ করে পার্টির প্রতিষ্ঠাতা হুসাইন মোহাম্মদ এরশাদের আসনেই তার ছেলে সাদ এরশাদের মনোনয়ন চেয়েছেন। সেখানে এবার ছাড়তে চান না জিএম কাদের।

নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পর দুই নেতার পক্ষে নির্বাচন কমিশনে (ইসিতে) পৃথক পৃথক চিঠি দিয়ে ‘দ্বিমুখী অবস্থানও’ প্রকাশ পায়। রওশন এরশাদ চিঠিতে ‘জোটগতভাবে’ নির্বাচনে অংশ নিতে আগ্রহের কথা জানান। আর অন্য চিঠিতে জিএম কাদেরকে দলের ক্ষমতাপ্রাপ্ত ব্যক্তি হিসেবে অবগত করা হয়।

এমন পরিস্থিতির মধ্যেই রওশন এরশাদপন্থিদের বাদ রেখে গত সোমবার নির্বাচনের প্রার্থীদের তালিকা প্রকাশ করে জাপা। তাতে রওশন এরশাদের অনুসারী মসিউর রহমান রাঙ্গা, গোলাম মসীহ, কাজী মামুনুর রশিদ, সাবেক প্রতিমন্ত্রী গোলাম সারওয়ার মিলন, সাবেক এমপি জিয়াউল হক মৃধা ও নুরুল ইসলাম, ডা. কে আর ইসলাম, ইকবাল হোসেন রাজুসহ বেশ কয়েকজনকে মনোনয়ন দেয়া হয়নি।

সন্ধ্যায় তালিকা প্রকাশ করে পার্টির মহাসচিব মুজিবুল হক চুন্নু জানিয়েছেন, জাপা ‘এককভাবে’ নির্বাচনে অংশ নেবেন। তবে ওই রাতেই ‘একতরফাভাবে’ প্রার্থী ঘোষণার অভিযোগ আনেন রওশন এরশাদের রাজনৈতিক সচিব গোলাম মসীহ।

এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, ‘এটা আমরা আশা করিনি।’ তিনি আরও বলেন, ‘জাপা এর আগেও চারবার ভেঙেছে। প্রতিটি নির্বাচনের আগেই জাতীয় পার্টিতে ভাঙন দেখা দেয়। এটা আমাদের জন্য খুবই দুর্ভাগ্যজনক।’ গোলাম মসীহ বলেন, ‘এই ভাঙনের অবস্থায় তিনি (রওশন এরশাদ) নির্বাচনে যাবেন না। যতদিন পর্যন্ত এই বিষয়টির মীমাংসা না হবে, উনি নির্বাচনে যাবেন না। জিএম কাদের ইচ্ছাকৃতভাবে আমাদের নির্বাচনের বাইরে রাখার ব্যবস্থা করেছেন। বেগম রওশন এরশাদ নৌকা বা অন্য কোনো প্রতীকে ভোট করবেন না।’

তবে জাপা মহাসচিব মুজিবুল হক চুন্নু জানিয়েছেন, রওশন এরশাদ নির্বাচন করলে তাকে ‘সবধরনের সহযোগিতা’ করা হবে। আর অন্যদের বিষয়ে তিনি বলেন, ‘সাদ এরশাদ তো মনোনয়ন চাননি আমাদের কাছে। কেউ যদি নিজে না আসেন, তাকে তো বাদ বলা যাবে না। দলের সঙ্গে যাদের সংশ্লিষ্টতা নেই, যাদের দল থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে, তাদের মনোনয়ন দেয়া হয়নি। এখানে বলার আর কিছু নেই।’

ছবি

সংসদের বিরোধী দল গঠন হয়েছে আ.লীগের কার্যালয়ে : শমসের মবিন

ছবি

গণতন্ত্র ফেরানোর আন্দোলনে সরকার পরিবর্তন অবশ্যই হবে : নজরুল

ছবি

আ.লীগ কার্যালয়ে বিরোধী দল গঠন সুস্থ রাজনীতি নয় : তৃণমূল বিএনপি

ছবি

আন্দোলন সফল না ব্যর্থ, তা নিয়ে আ.লীগ কথা বলতে পারে না : নজরুল ইসলাম

ছবি

বৈশ্বিক চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করেও দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণে সরকার প্রচেষ্টা চালাচ্ছে : কাদের

ছবি

বিদ্যুতের দাম বৃদ্ধি হবে ‘মড়ার ওপর খাঁড়ার ঘা’: রিজভী

ছবি

সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আলতাফের জামিন, মুক্তি ‘এখনই না’

ছবি

জামিনে মুক্তি পেলেন বিএনপি নেতা মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল

ছবি

সাম্প্রদায়িকতার বিষবৃক্ষকে সমূলে উৎপাটন করা হবে : কাদের

ছবি

আমরা গণতন্ত্র, মানবাধিকার ও ভোটাধিকারহারা: রিজভী

ছবি

ডেমোক্রেসি ইন্টারন্যাশনালের গ্রাজুয়েট হলেন তিন দলের ২৫ তরুণ নেতা

ছবি

‘যত কঠোর হওয়া দরকার আমরা হবো’: কাদের

ছবি

বিএনপি নেতারা নিজেদের মুখ রক্ষায় অসংলগ্ন কথা বলছেন

ছবি

একুশের চেতনা গণতন্ত্র ও খালেদা জিয়ার মুক্তির আন্দোলন তীব্রতর করবে: মির্জা ফখরুল

ছবি

মিউনিখে সাহসী কূটনীতি দেখিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী: ওবায়দুল কাদের

ছবি

আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে বিএনপির কর্মসূচি ঘোষণা আওয়ামী লীগ এখন বন্দুকনির্ভর দলে পরিণত হয়েছে: রিজভী

ছবি

কারাগার থেকে মুক্তি পেলেন মির্জা আব্বাস

ছবি

দ্বাদশ জাতীয় সংসদের নারী আসন ৫০ জনের মনোনয়নপত্র বৈধ

ছবি

সভ্যতার জন্য বৈরী সংগঠন ছাত্রলীগ : রিজভী

ছবি

বিএনপির শীর্ষ ৭ আইনজীবীর আদালত অবমাননার শুনানি দুই মাস পেছাল

ছবি

বিরোধী দল নিষিদ্ধ করতে চায় আওয়ামী লীগ: মঈন খান

ছবি

আরেক মামলায় মির্জা আব্বাসের জামিন

ছবি

জাতি ভাষা আন্দোলনে বঙ্গবন্ধুর অবদান শ্রদ্ধাভরে স্মরণ রাখবে

ছবি

সংরক্ষিত ৪৮ আসনে আ. লীগের মনোনয়নপত্র জমা

ছবি

তারেক রহমান বিএনপিকে ধ্বংস করছে : নানক

ছবি

নির্বাচনে অংশ নিয়ে গণতন্ত্রকে বাঁচিয়েছি: চুন্নু

ছবি

স্বাধীনতার মূল আদর্শে আওয়ামী লীগ আঘাত করেছে : মঈন খান

ছবি

৯ মার্চ জাতীয় পার্টির কাউন্সিল ঘোষণা করলেন রওশন

ছবি

নারায়ণগঞ্জ আ. লীগ : আনোয়ারের কমিটি, অবাঞ্ছিত ঘোষণা আইভীর

ছবি

দেশে বিএনপির চেয়ে বড় উগ্রবাদী কারা, প্রশ্ন ওবায়দুল কাদেরের

ছবি

এ দেশে যে কেউ যা তা করবে, সেটা হতে দেওয়া যায় না : গণফোরাম

ছবি

ক্ষমতা হারানোর ভয়ে বেপরোয়া হয়ে উঠেছে আওয়ামী লীগ : ফখরুল

ছবি

কৌশল পরিবর্তন করে আবার ঘুরে দাড়াতে চায় বিএনপি

ছবি

ইউনূসে সরকারের কোনো হাত নেই : আইনমন্ত্রী

ছবি

রোজায় পণ্যের সংকট হবে না, বেঁধে দেওয়া হবে তেলের দাম: প্রতিমন্ত্রী

ছবি

ফখরুল আবারও দিবাস্বপ্নে বিভোর : কাদের

tab

রাজনীতি

জাপায় ‘জটিলতা’ কাটছে না, ‘মিরাকলের’ অপেক্ষায় নেতারা

সংবাদ অনলাইন রিপোর্ট

বুধবার, ২৯ নভেম্বর ২০২৩

আসন্ন সংসদ নির্বাচনকে ঘিরে জাতীয় পার্টির (জাপা) অভ্যান্তরীণ ‘জটিলতা’ কাটছে না। নির্বাচনের প্রার্থী ঘোষণায় দলটির চেয়ারম্যান জিএম কাদের ও প্রধান পৃষ্ঠপোষক রওশন এরশাদকে ঘিরে দুই বলয়ের ‘দ্বন্দ্ব’ এখন নতুন মাত্রা পেয়েছে।

জিএম কাদের পক্ষের নেতারা ‘এককভাবে’ নির্বাচনের পথে এগিয়ে যাচ্ছে। শুরুতে নির্বাচনে অংশগ্রহণ প্রশ্নে ‘দ্বিধাদ্বন্দ্ব’ থাকলেও শেষ সময়ে এসে নির্বাচনে যাওয়ার ঘোষণা দেয় দলটি।

কিন্তু দলের ভেতরের ‘বিভেদ’ না মিটিয়েই দলীয় প্রার্থীদের তালিকা প্রকাশ করে দলটি। তালিকায় রওশন এরশাদের আসন ফাঁকা রাখলেও জায়গা হয়নি তার ছেলে রাহগীর আল মাহি সাদ এরশাদের। মনোনয়ন তালিকা থেকে বাদ পড়েছেন রওশনপন্থি হিসেবে পরিচিত নেতারাও।

এমন পরিস্থিতিতে ‘ক্ষুব্ধ’ রওশন এরশাদ ও তার অনুসারীরা। রওশনপন্থি একাধিক নেতা জানিয়েছেন, সাদ এরশাদ ও নিজ অনুসারীদের মনোনয়ন না দিলে নির্বাচনে যাবেন না রওশন।

নির্বাচনের তফসিল অনুযায়ী আজ মনোনয়ন ফরম জমা দেয়ার শেষ দিন। আজকের পর মনোনয়ন ফরম জমা দেয়ার সময় না বাড়লে নির্বাচনে অংশ নেয়াটা অনিশ্চিত হয়ে পড়বে রওশন এরশাদের। সঙ্গে তার ছেলে ও সমর্থিত নেতাদেরও। তবে এখনও নির্বাচনে অংশ নেয়ার ব্যাপরে আশা ছাড়ছেন না রওশনপন্থিরা। যেকোনো মুহূর্তে ‘মিরাকল’ কিছু ঘটতে পারে বলে ধারণা তাদের।

রওশন এরশাদকে নির্বাচনে আনতে এবং সমঝোতার জন্য ‘প্রচেষ্টা’ চলছে বলেও দলীয় সূত্র জানায়। এর মধ্যে জিএম কাদের রওশন এরশাদের সঙ্গে দেখাও করেছেন বলেও সূত্রের খবর। পার্টির সব নেতারা ঐক্যমত পৌঁছতে দফা দফায় বৈঠক হচ্ছে বলেও নেতারা জানিয়েছেন। নেতাদের আশা, সমঝোতার মাধ্যমে ‘দুইপক্ষ একসঙ্গে’ নির্বাচনে লড়বে।

নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করলে শুরুতে দোটানায় থাকলেও পরে নির্বাচনে অংশগ্রহণের ঘোষণা দেয় জাপা। এমন ঘোষণায় কারণ হিসেবে দলের মহাসচিব মো. মুজিবুল হক জানিয়েছেন, নির্বাচন কমিশনসহ সরকারের বিভিন্ন মহল থেকে তাদের ‘আশ্বস্ত’ করা হয়েছে।

তবে একাধিক সূত্র জানায়, দলের কর্তৃত্ব নিয়েই জিএম কাদের-রওশন এরশাদের মধ্যে প্রধান সমস্যা। জিএম কাদের দলীয় মনোনয়নসহ দলীয় সব সিদ্ধান্ত তার হাতে রাখতে চান। অন্যদিকে দলে প্রভাব ধরে রাখতে চান রওশন এরশাদ।

নিজ সব অনুসারীদের মনোনয়নের ব্যাপারেও নিশ্চিত হতে চান তিনি। বিশেষ করে পার্টির প্রতিষ্ঠাতা হুসাইন মোহাম্মদ এরশাদের আসনেই তার ছেলে সাদ এরশাদের মনোনয়ন চেয়েছেন। সেখানে এবার ছাড়তে চান না জিএম কাদের।

নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পর দুই নেতার পক্ষে নির্বাচন কমিশনে (ইসিতে) পৃথক পৃথক চিঠি দিয়ে ‘দ্বিমুখী অবস্থানও’ প্রকাশ পায়। রওশন এরশাদ চিঠিতে ‘জোটগতভাবে’ নির্বাচনে অংশ নিতে আগ্রহের কথা জানান। আর অন্য চিঠিতে জিএম কাদেরকে দলের ক্ষমতাপ্রাপ্ত ব্যক্তি হিসেবে অবগত করা হয়।

এমন পরিস্থিতির মধ্যেই রওশন এরশাদপন্থিদের বাদ রেখে গত সোমবার নির্বাচনের প্রার্থীদের তালিকা প্রকাশ করে জাপা। তাতে রওশন এরশাদের অনুসারী মসিউর রহমান রাঙ্গা, গোলাম মসীহ, কাজী মামুনুর রশিদ, সাবেক প্রতিমন্ত্রী গোলাম সারওয়ার মিলন, সাবেক এমপি জিয়াউল হক মৃধা ও নুরুল ইসলাম, ডা. কে আর ইসলাম, ইকবাল হোসেন রাজুসহ বেশ কয়েকজনকে মনোনয়ন দেয়া হয়নি।

সন্ধ্যায় তালিকা প্রকাশ করে পার্টির মহাসচিব মুজিবুল হক চুন্নু জানিয়েছেন, জাপা ‘এককভাবে’ নির্বাচনে অংশ নেবেন। তবে ওই রাতেই ‘একতরফাভাবে’ প্রার্থী ঘোষণার অভিযোগ আনেন রওশন এরশাদের রাজনৈতিক সচিব গোলাম মসীহ।

এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, ‘এটা আমরা আশা করিনি।’ তিনি আরও বলেন, ‘জাপা এর আগেও চারবার ভেঙেছে। প্রতিটি নির্বাচনের আগেই জাতীয় পার্টিতে ভাঙন দেখা দেয়। এটা আমাদের জন্য খুবই দুর্ভাগ্যজনক।’ গোলাম মসীহ বলেন, ‘এই ভাঙনের অবস্থায় তিনি (রওশন এরশাদ) নির্বাচনে যাবেন না। যতদিন পর্যন্ত এই বিষয়টির মীমাংসা না হবে, উনি নির্বাচনে যাবেন না। জিএম কাদের ইচ্ছাকৃতভাবে আমাদের নির্বাচনের বাইরে রাখার ব্যবস্থা করেছেন। বেগম রওশন এরশাদ নৌকা বা অন্য কোনো প্রতীকে ভোট করবেন না।’

তবে জাপা মহাসচিব মুজিবুল হক চুন্নু জানিয়েছেন, রওশন এরশাদ নির্বাচন করলে তাকে ‘সবধরনের সহযোগিতা’ করা হবে। আর অন্যদের বিষয়ে তিনি বলেন, ‘সাদ এরশাদ তো মনোনয়ন চাননি আমাদের কাছে। কেউ যদি নিজে না আসেন, তাকে তো বাদ বলা যাবে না। দলের সঙ্গে যাদের সংশ্লিষ্টতা নেই, যাদের দল থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে, তাদের মনোনয়ন দেয়া হয়নি। এখানে বলার আর কিছু নেই।’

back to top