alt

রাজনীতি

গ্রহণযোগ্য নির্বাচন : ইইউ ‘আশ্বস্ত’, ‘বিশ্বাস’ সিইসির

ফয়েজ আহমেদ তুষার : বুধবার, ২৯ নভেম্বর ২০২৩

বৈঠকের পর সিইসি ও ইইউ প্রতিনিধি দলের প্রধান সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য রাখেন

বিএনপি-জামায়াত ও সমমনা দলগুলোর ভোট বর্জনের ডাকের মধ্যে ‘গ্রহণযোগ্য ও অংশগ্রহণমূলক’ নির্বাচনের প্রত্যাশার কথা আবারও নির্বাচন কমিশনকে জানিয়েছে ইউরোপিয় ইউনিয়ন (ইইউ)। এ ক্ষেত্রে কমিশনের ‘সর্বোচ্চ পর্যায়ের চেষ্টা’ এবং ‘সাংবিধানিক সীমাবদ্ধতার’ কথা শুনে ইইউ প্রতিনিধিরা আশ্বস্ত হয়েছেন বলে ধারণার পাশপাশি বিশ্বাসও করছেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী হাবিবুল আউয়াল।

বুধবার (২৯ নভেম্বর) রাজধানীর আগারগাঁয়ে নির্বাচন ভবনে যান ঢাকায় ইইউভুক্ত দেশগুলোর রাষ্ট্রদূতরা। বেলা তিনটায় শুরু হওয়া দুই পক্ষে বৈঠক চলে দেড় ঘণ্টার বেশি। বৈঠকে ঢাকায় ইইউ রাষ্ট্রদূত চার্লস হোয়াইটলির নেতৃত্বে সুইডেন, স্পেন, ইতালি, নেদারল্যান্ডস, ডেনমার্ক, ফ্রান্স ও জার্মানির মিশন প্রধানরা উপস্থিত ছিলেন।

বৈঠক শেষে ইইউ রাষ্ট্রদূত সাংবাদিকদের বলেন, ‘আমরা একটি গণতান্ত্রিক, বিশ্বাসযোগ্য, শান্তিপূর্ণ ও অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন দেখার অপেক্ষায় আছি।’

দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনে ‘বাইরের থাবা’র কথা দুদিন আগেই বলেছিলেন সিইসি। নির্বাচনের আগে মার্কিনিদের বিভিন্ন বিবৃতির আঙ্গিকে ‘আদেশ’, প্রতিক্রিয়ায় ‘পাল্টা হুমকি’ না দিতে পারার কথাও অকপটে স্বীকার করেছেন তিনি।

বুধবার ইইউ প্রতিনিধি দলের সঙ্গে বৈঠক শেষে সিইসিও সাংবাদিকদের ব্রিফ করেন।

ইইউ প্রতিনিধিরা এর আগেও একাধিকবার এসেছেন উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘এর মধ্যে নির্বাচন কমিশনের প্রস্তুতি আরও এগিয়ে গেছে। এবার যারা এলেন, তারা তো জানেন না, আমাদের কী কী অগ্রগতি হয়েছে... তা জানিয়েছি।’ ইইউ প্রতিনিধিরা যে গ্রহণযোগ্য ও অংশগ্রহণমূলক নির্বাচনের প্রত্যাশার কথা বলেছে, সেটা সিইসিও জানান।

তবে বিরোধীদের ভোট বর্জনের আহ্বান, তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবিতে আন্দোলন, তফসিল পুনঃনির্ধারণ নিয়ে যে গুঞ্জন, এসব নিয়ে কোনো প্রশ্নে নেয়নি ইসি বা ইইউ।

আগামী ৭ জানুয়ারি ভোটগ্রণের তারিখ রেখে কাজী হাবিবুল আউয়াল কমিশন যে তফসিল ঘোষণা করেছে, তাতে মনোনয়নপত্র জমার সময় শেষ হচ্ছে আজ। তফসিল প্রত্যাখ্যান করে মঙ্গলবার ও সাপ্তাহিক ছুটির দুটি দিন বিরতি রেখে বিএনপি ও সমমনা দলগুলো টানা অবরোধ ও হরতাল চালিয়ে যাচ্ছে। কয়েকটি রাজনৈতিক দল তফসিল পেছানোর দাবি তুলেছে।

‘বিএনপি ভোটে এলে আইন অনুযয়ী তফসিল পেছানোর সুযোগ আছে’, এমনটা একাধিক নির্বাচন কমিশনারও বলেছেন।

তবে ক্ষমতাসিন আওয়ামী লীগের জ্যেষ্ঠ নেতারা তফসিল পেছানোর বিপক্ষে অবস্থান নিয়েছেন। তাদের মতে, বিএনপিকে নির্বাচনে আসতে চাইলে নির্ধারিত সময়ের মধ্যেই আসা উচিত। তারা বলছেন, ‘একটি দলের জন্য নির্বাচন পেছানোর কোনো অর্থ নেই। সাংবিধানিক ধারা অব্যাহত রাখতে হলে কমিশন ঘোষিত তফসিলেই সবাইকে নির্বাচনে আসতে হবে।’

কমিশনের সঙ্গে বৈঠকের বিষয়ে ইইউ রাষ্ট্রদূত চার্লস হোয়াইটলি বলেন, ‘নির্বাচনের সার্বিক প্রস্তুতি সম্পর্কে আমরা সামগ্রিক বিষয় জেনেছি। বাংলাদেশের আন্তর্জাতিক অংশীদার হিসেবে গুরুত্বপূর্ণ এই নির্বাচনের খুঁটিনাটি জানতে পেরে আমরা আনন্দিত। প্রধান নির্বাচন কমিশনার ও তার দল খোলামেলা আলোচনায় অংশ নিয়েছেন।’

সিইসি কাজী হাবিবুল আউয়াল সাংবাদিকদের বলেন, ‘সহসাই তাদের একটা এক্সপার্ট ইলেকশন টিম আসবে জানিয়েছেন। ইতোমধ্যে তাদের চার জনের এক্সপার্ট (ইলেকশন অবজারভার টিম) এসে গেছেন। তারা দীর্ঘ সময় ধরে আমাদের প্রস্তুতি সম্পর্কে জেনেছেন।’

বুধবারের বৈঠক প্রসঙ্গে সিইসি বলেন, ‘আমরা আগের মতোই স্পষ্ট করে বলেছি, ফ্রি, ফেয়ার, পিসফুল অ্যান্ড ক্রেডিবল নির্বাচন যাতে হয় সেটা নিশ্চিত করতে আমরা সর্বোচ্চ পর্যায়ের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। আমরা তাদের (ইইউ রাষ্ট্রদূত) জানিয়েছি- আমাদের নির্বাচন কমিশনাররা দুই সপ্তাহ ধরে জেলা, বিভাগীয় পর্যায়ে গেছেন। তারা প্রশাসন, জনগণকে এই বিষয়গুলো অবহিত করছেন, যাতে প্রশাসন স্থানীয়ভাবে তাদের সব শক্তিতে সমন্বিত করে; যাতে অবাধ, নিরপেক্ষ ও অংশগ্রহণমূলক নির্বাচনটা নিশ্চিত হয়।’

হাবিবুল আউয়াল বলেন, ‘তারা আমাদের বক্তব্যে যতদূর বুঝেছি সন্তুষ্ট হয়েছেন। একটা নির্ধারিত সময়ের মধ্যে নির্বাচন করতে আমরা আইনত ও সাংবিধানিকভাবে বাধ্য, সেটা আমরা খুব স্পষ্ট করে তাদের বুঝিয়েছি। আমার বিশ্বাস আমাদের এ সাংবিধানিক সীমাবদ্ধতা তারা বুঝতে পেরেছেন।’

তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবিতে বিরোধীদের যে আন্দোলন সেই প্রসঙ্গে সিইসি বলেন, ‘আমরা বলেছি- রাজনৈতিক অঙ্গনে যদি কোনো মতবিরোধ, বিভেদ, বিভাজন থাকে, সেখানে কোনোভাবেই আমরা হস্তক্ষেপ করতে পারি না। আমরা নিজেদের সেখানে এনগেজ করতে পারি না।’

সিইসি ছাড়াও নির্বাচন কমিশনার আহসান হাবিব খান, রাশেদা সুলতানা, মো. আলমগীর, মো. আনিছুর রহমান এবং ইসি সচিব মো. জাহাংগীর আলম বৈঠকে অংশ নেন।

বিরোধী জোটের আন্দোলনের মধ্যে অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন নিয়ে অনিশ্চয়তার মধ্যে গত জুলাইয়ে ইইউর একটি প্রাক-নির্বাচনী অনুসন্ধানী দল বাংলাদেশে আসে। দলটি নির্বাচন কমিশনসহ অংশীজনের সঙ্গে বৈঠকও করে।

ছবি

সংসদের বিরোধী দল গঠন হয়েছে আ.লীগের কার্যালয়ে : শমসের মবিন

ছবি

গণতন্ত্র ফেরানোর আন্দোলনে সরকার পরিবর্তন অবশ্যই হবে : নজরুল

ছবি

আ.লীগ কার্যালয়ে বিরোধী দল গঠন সুস্থ রাজনীতি নয় : তৃণমূল বিএনপি

ছবি

আন্দোলন সফল না ব্যর্থ, তা নিয়ে আ.লীগ কথা বলতে পারে না : নজরুল ইসলাম

ছবি

বৈশ্বিক চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করেও দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণে সরকার প্রচেষ্টা চালাচ্ছে : কাদের

ছবি

বিদ্যুতের দাম বৃদ্ধি হবে ‘মড়ার ওপর খাঁড়ার ঘা’: রিজভী

ছবি

সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আলতাফের জামিন, মুক্তি ‘এখনই না’

ছবি

জামিনে মুক্তি পেলেন বিএনপি নেতা মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল

ছবি

সাম্প্রদায়িকতার বিষবৃক্ষকে সমূলে উৎপাটন করা হবে : কাদের

ছবি

আমরা গণতন্ত্র, মানবাধিকার ও ভোটাধিকারহারা: রিজভী

ছবি

ডেমোক্রেসি ইন্টারন্যাশনালের গ্রাজুয়েট হলেন তিন দলের ২৫ তরুণ নেতা

ছবি

‘যত কঠোর হওয়া দরকার আমরা হবো’: কাদের

ছবি

বিএনপি নেতারা নিজেদের মুখ রক্ষায় অসংলগ্ন কথা বলছেন

ছবি

একুশের চেতনা গণতন্ত্র ও খালেদা জিয়ার মুক্তির আন্দোলন তীব্রতর করবে: মির্জা ফখরুল

ছবি

মিউনিখে সাহসী কূটনীতি দেখিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী: ওবায়দুল কাদের

ছবি

আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে বিএনপির কর্মসূচি ঘোষণা আওয়ামী লীগ এখন বন্দুকনির্ভর দলে পরিণত হয়েছে: রিজভী

ছবি

কারাগার থেকে মুক্তি পেলেন মির্জা আব্বাস

ছবি

দ্বাদশ জাতীয় সংসদের নারী আসন ৫০ জনের মনোনয়নপত্র বৈধ

ছবি

সভ্যতার জন্য বৈরী সংগঠন ছাত্রলীগ : রিজভী

ছবি

বিএনপির শীর্ষ ৭ আইনজীবীর আদালত অবমাননার শুনানি দুই মাস পেছাল

ছবি

বিরোধী দল নিষিদ্ধ করতে চায় আওয়ামী লীগ: মঈন খান

ছবি

আরেক মামলায় মির্জা আব্বাসের জামিন

ছবি

জাতি ভাষা আন্দোলনে বঙ্গবন্ধুর অবদান শ্রদ্ধাভরে স্মরণ রাখবে

ছবি

সংরক্ষিত ৪৮ আসনে আ. লীগের মনোনয়নপত্র জমা

ছবি

তারেক রহমান বিএনপিকে ধ্বংস করছে : নানক

ছবি

নির্বাচনে অংশ নিয়ে গণতন্ত্রকে বাঁচিয়েছি: চুন্নু

ছবি

স্বাধীনতার মূল আদর্শে আওয়ামী লীগ আঘাত করেছে : মঈন খান

ছবি

৯ মার্চ জাতীয় পার্টির কাউন্সিল ঘোষণা করলেন রওশন

ছবি

নারায়ণগঞ্জ আ. লীগ : আনোয়ারের কমিটি, অবাঞ্ছিত ঘোষণা আইভীর

ছবি

দেশে বিএনপির চেয়ে বড় উগ্রবাদী কারা, প্রশ্ন ওবায়দুল কাদেরের

ছবি

এ দেশে যে কেউ যা তা করবে, সেটা হতে দেওয়া যায় না : গণফোরাম

ছবি

ক্ষমতা হারানোর ভয়ে বেপরোয়া হয়ে উঠেছে আওয়ামী লীগ : ফখরুল

ছবি

কৌশল পরিবর্তন করে আবার ঘুরে দাড়াতে চায় বিএনপি

ছবি

ইউনূসে সরকারের কোনো হাত নেই : আইনমন্ত্রী

ছবি

রোজায় পণ্যের সংকট হবে না, বেঁধে দেওয়া হবে তেলের দাম: প্রতিমন্ত্রী

ছবি

ফখরুল আবারও দিবাস্বপ্নে বিভোর : কাদের

tab

রাজনীতি

গ্রহণযোগ্য নির্বাচন : ইইউ ‘আশ্বস্ত’, ‘বিশ্বাস’ সিইসির

ফয়েজ আহমেদ তুষার

বৈঠকের পর সিইসি ও ইইউ প্রতিনিধি দলের প্রধান সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য রাখেন

বুধবার, ২৯ নভেম্বর ২০২৩

বিএনপি-জামায়াত ও সমমনা দলগুলোর ভোট বর্জনের ডাকের মধ্যে ‘গ্রহণযোগ্য ও অংশগ্রহণমূলক’ নির্বাচনের প্রত্যাশার কথা আবারও নির্বাচন কমিশনকে জানিয়েছে ইউরোপিয় ইউনিয়ন (ইইউ)। এ ক্ষেত্রে কমিশনের ‘সর্বোচ্চ পর্যায়ের চেষ্টা’ এবং ‘সাংবিধানিক সীমাবদ্ধতার’ কথা শুনে ইইউ প্রতিনিধিরা আশ্বস্ত হয়েছেন বলে ধারণার পাশপাশি বিশ্বাসও করছেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী হাবিবুল আউয়াল।

বুধবার (২৯ নভেম্বর) রাজধানীর আগারগাঁয়ে নির্বাচন ভবনে যান ঢাকায় ইইউভুক্ত দেশগুলোর রাষ্ট্রদূতরা। বেলা তিনটায় শুরু হওয়া দুই পক্ষে বৈঠক চলে দেড় ঘণ্টার বেশি। বৈঠকে ঢাকায় ইইউ রাষ্ট্রদূত চার্লস হোয়াইটলির নেতৃত্বে সুইডেন, স্পেন, ইতালি, নেদারল্যান্ডস, ডেনমার্ক, ফ্রান্স ও জার্মানির মিশন প্রধানরা উপস্থিত ছিলেন।

বৈঠক শেষে ইইউ রাষ্ট্রদূত সাংবাদিকদের বলেন, ‘আমরা একটি গণতান্ত্রিক, বিশ্বাসযোগ্য, শান্তিপূর্ণ ও অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন দেখার অপেক্ষায় আছি।’

দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনে ‘বাইরের থাবা’র কথা দুদিন আগেই বলেছিলেন সিইসি। নির্বাচনের আগে মার্কিনিদের বিভিন্ন বিবৃতির আঙ্গিকে ‘আদেশ’, প্রতিক্রিয়ায় ‘পাল্টা হুমকি’ না দিতে পারার কথাও অকপটে স্বীকার করেছেন তিনি।

বুধবার ইইউ প্রতিনিধি দলের সঙ্গে বৈঠক শেষে সিইসিও সাংবাদিকদের ব্রিফ করেন।

ইইউ প্রতিনিধিরা এর আগেও একাধিকবার এসেছেন উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘এর মধ্যে নির্বাচন কমিশনের প্রস্তুতি আরও এগিয়ে গেছে। এবার যারা এলেন, তারা তো জানেন না, আমাদের কী কী অগ্রগতি হয়েছে... তা জানিয়েছি।’ ইইউ প্রতিনিধিরা যে গ্রহণযোগ্য ও অংশগ্রহণমূলক নির্বাচনের প্রত্যাশার কথা বলেছে, সেটা সিইসিও জানান।

তবে বিরোধীদের ভোট বর্জনের আহ্বান, তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবিতে আন্দোলন, তফসিল পুনঃনির্ধারণ নিয়ে যে গুঞ্জন, এসব নিয়ে কোনো প্রশ্নে নেয়নি ইসি বা ইইউ।

আগামী ৭ জানুয়ারি ভোটগ্রণের তারিখ রেখে কাজী হাবিবুল আউয়াল কমিশন যে তফসিল ঘোষণা করেছে, তাতে মনোনয়নপত্র জমার সময় শেষ হচ্ছে আজ। তফসিল প্রত্যাখ্যান করে মঙ্গলবার ও সাপ্তাহিক ছুটির দুটি দিন বিরতি রেখে বিএনপি ও সমমনা দলগুলো টানা অবরোধ ও হরতাল চালিয়ে যাচ্ছে। কয়েকটি রাজনৈতিক দল তফসিল পেছানোর দাবি তুলেছে।

‘বিএনপি ভোটে এলে আইন অনুযয়ী তফসিল পেছানোর সুযোগ আছে’, এমনটা একাধিক নির্বাচন কমিশনারও বলেছেন।

তবে ক্ষমতাসিন আওয়ামী লীগের জ্যেষ্ঠ নেতারা তফসিল পেছানোর বিপক্ষে অবস্থান নিয়েছেন। তাদের মতে, বিএনপিকে নির্বাচনে আসতে চাইলে নির্ধারিত সময়ের মধ্যেই আসা উচিত। তারা বলছেন, ‘একটি দলের জন্য নির্বাচন পেছানোর কোনো অর্থ নেই। সাংবিধানিক ধারা অব্যাহত রাখতে হলে কমিশন ঘোষিত তফসিলেই সবাইকে নির্বাচনে আসতে হবে।’

কমিশনের সঙ্গে বৈঠকের বিষয়ে ইইউ রাষ্ট্রদূত চার্লস হোয়াইটলি বলেন, ‘নির্বাচনের সার্বিক প্রস্তুতি সম্পর্কে আমরা সামগ্রিক বিষয় জেনেছি। বাংলাদেশের আন্তর্জাতিক অংশীদার হিসেবে গুরুত্বপূর্ণ এই নির্বাচনের খুঁটিনাটি জানতে পেরে আমরা আনন্দিত। প্রধান নির্বাচন কমিশনার ও তার দল খোলামেলা আলোচনায় অংশ নিয়েছেন।’

সিইসি কাজী হাবিবুল আউয়াল সাংবাদিকদের বলেন, ‘সহসাই তাদের একটা এক্সপার্ট ইলেকশন টিম আসবে জানিয়েছেন। ইতোমধ্যে তাদের চার জনের এক্সপার্ট (ইলেকশন অবজারভার টিম) এসে গেছেন। তারা দীর্ঘ সময় ধরে আমাদের প্রস্তুতি সম্পর্কে জেনেছেন।’

বুধবারের বৈঠক প্রসঙ্গে সিইসি বলেন, ‘আমরা আগের মতোই স্পষ্ট করে বলেছি, ফ্রি, ফেয়ার, পিসফুল অ্যান্ড ক্রেডিবল নির্বাচন যাতে হয় সেটা নিশ্চিত করতে আমরা সর্বোচ্চ পর্যায়ের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। আমরা তাদের (ইইউ রাষ্ট্রদূত) জানিয়েছি- আমাদের নির্বাচন কমিশনাররা দুই সপ্তাহ ধরে জেলা, বিভাগীয় পর্যায়ে গেছেন। তারা প্রশাসন, জনগণকে এই বিষয়গুলো অবহিত করছেন, যাতে প্রশাসন স্থানীয়ভাবে তাদের সব শক্তিতে সমন্বিত করে; যাতে অবাধ, নিরপেক্ষ ও অংশগ্রহণমূলক নির্বাচনটা নিশ্চিত হয়।’

হাবিবুল আউয়াল বলেন, ‘তারা আমাদের বক্তব্যে যতদূর বুঝেছি সন্তুষ্ট হয়েছেন। একটা নির্ধারিত সময়ের মধ্যে নির্বাচন করতে আমরা আইনত ও সাংবিধানিকভাবে বাধ্য, সেটা আমরা খুব স্পষ্ট করে তাদের বুঝিয়েছি। আমার বিশ্বাস আমাদের এ সাংবিধানিক সীমাবদ্ধতা তারা বুঝতে পেরেছেন।’

তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবিতে বিরোধীদের যে আন্দোলন সেই প্রসঙ্গে সিইসি বলেন, ‘আমরা বলেছি- রাজনৈতিক অঙ্গনে যদি কোনো মতবিরোধ, বিভেদ, বিভাজন থাকে, সেখানে কোনোভাবেই আমরা হস্তক্ষেপ করতে পারি না। আমরা নিজেদের সেখানে এনগেজ করতে পারি না।’

সিইসি ছাড়াও নির্বাচন কমিশনার আহসান হাবিব খান, রাশেদা সুলতানা, মো. আলমগীর, মো. আনিছুর রহমান এবং ইসি সচিব মো. জাহাংগীর আলম বৈঠকে অংশ নেন।

বিরোধী জোটের আন্দোলনের মধ্যে অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন নিয়ে অনিশ্চয়তার মধ্যে গত জুলাইয়ে ইইউর একটি প্রাক-নির্বাচনী অনুসন্ধানী দল বাংলাদেশে আসে। দলটি নির্বাচন কমিশনসহ অংশীজনের সঙ্গে বৈঠকও করে।

back to top