alt

রাজনীতি

দল পুনর্গঠনে নেতৃত্বে রদবদল চান বিএনপির তৃণমূল নেতাকর্মীরা

মহসীন ইসলাম টুটুল : সোমবার, ০৪ মার্চ ২০২৪

২৮ অক্টোবরের মহাসমাবেশের পর থেকে আন্দোলনে নেতৃত্বের ব্যর্থতাই বেশি দেখছেন তৃণমূল নেতাকর্মীরা। তাই বড় আন্দোলনে যাওয়ার আগে নেতৃত্বের রদবদল চান তারা। বিশেষ করে তৃণমূল নেতাকর্মীরা ঢাকার নেতৃত্বের ওপর হতাশ। এক দফা আন্দোলনের ব্যর্থতার পর দলকে ঢেলে সাজাতে শীর্ষ নেতৃত্বকে তাগিদ দিচ্ছেন বিএনপি নেতাকর্মীরা। আন্দোলন এবং দলের সাংগঠনিক এই পরিস্থিতিতে মাঠ পর্যায়ের নেতাদের এমন উপলব্ধি প্রকাশ পেতে শুরু করেছে।

২০১৪ সালের পর থেকে বেশ কয়েকবার ঢাকার নেতৃত্বে রদবদল আনে বিএনপি। কিন্তু সফলতা আসেনি আশানুরূপ। এ কারণে ২০১৭ সালে ঢাকা মহানগরকে উত্তর ও দক্ষিণে ভাগ করে পৃথক দুটি কমিটি করা হয়। তাতেও কাজের কাজ কিছু হয়নি। সর্বশেষ ২০২১ সালের আগস্টে আমান উল্লাহ আমানকে আহ্বায়ক ও আমিনুল হককে সদস্য সচিব করে ঢাকা উত্তর এবং আবদুস সালামকে আহ্বায়ক ও রফিকুল ইসলাম মজনুকে সদস্য সচিব করে দক্ষিণের আহ্বায়ক কমিটি গঠন করা হয়। এরই মধ্যে ঢাকা উত্তরের ৭১টি ওয়ার্ডের সব এবং দক্ষিণের ৮০টির মধ্যে ৫৬টিতে বিএনপির পূর্ণাঙ্গ কমিটি হয়েছে।

গাজীপুর মহানগর বিএনপির একজন নেতা বলেন, ‘বহির্বিশ^ আমাদের শীর্ষ নেতাকে নিয়ে একটু কানাঘুষা করছে। তারা যেভাবে নেতৃত্ব চান হয়তো সেভাবে সাজানো যাচ্ছে না।’ তবে তৃণমূলে কোনো সমস্যা নেই বলে জানান তিনি। তিনি বলেন, ‘কমিটি করতে হলে আগে ঢাকাকে ঢেলে সাজাতে হবে। এই সরকার আসার পর থেকে ঢাকা ধারাবাহিকভাবে ব্যর্থ। তাই ঢাকার নেতৃত্বে রদবদল করা উচিত।’ তিনি আরও বলেন, ‘ঢাকার বাইরের লোক অর্থাৎ জেলার লোকজনকে নিয়ে এসে আমাদের পল্টনের মাঠ ভরতে হয়। আর ঢাকার নেতারা বসে থাকেন মঞ্চে।’

ঢাকা মহানগর বিএনপির উত্তরের যুগ্ম আহ্বায়ক মোস্তফা জামান বলেন, ‘কমিটি পুনর্গঠন করা উচিত। যারা ব্যর্থ তাদের দায়িত্ব থেকে সরিয়ে দিয়ে যোগ্যদের সুযোগ দেওয়া উচিত। বড় আন্দোলনে যাওয়ার আগে নতুন কমিটি গঠন ও শূন্য নেতৃত্ব পূরণের বিকল্প নেই।’ ৩ ফেব্রুয়ারীর সংবাদের সাথে আলাপকালে এসব কথা বলেন তিনি। এরপর তিনি গোয়েন্দা পুলিশের হাতে আটক হন, বর্তমানে তিনি কারাগারে।

ঢাকা দক্ষিণ বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক আ ন ম সাইফুল হক অভিযোগ করেন, ‘মহানগরের অনেক শক্তিধর ইউনিট ২৮ অক্টোবরের পর হঠাৎ ঝিমিয়ে পড়ে। এর কারণ খুঁজে বের করা উচিত সাংগঠনিক নেতাদের। না হলে ভবিষ্যতেও আন্দোলনেও একই চিত্র দেখা যাবে। দায়িত্বশীল নেতাদের কারণ ছাড়া উধাও হয়ে যাওয়া মানে কর্মীদের মনোবল ভেঙে যাওয়া। এখনও সময় আছে সিন্ডিকেট ভেঙে সংগঠনকে গতিশীল করার।’

ঢাকা জেলা বিএনপির একজন নেতা বলেন, ‘গত তিন মাসে একটি বড় পরীক্ষা হয়ে গেল। এতে যারা ফেল করেছে; তাদের বাদ দেওয়া উচিত। আর যারা পাস করেছে তাদের পুরস্কার হিসেবে নেতৃত্বে জায়গা দেওয়া উচিত। বড় একটি আন্দোলনের পর শীর্ষ নেতারা নিশ্চয়ই বিষয়টি নিয়ে ভাবছেন।’ তিনি বলেন, ‘সংগঠন পুনর্গঠন নিয়ে তাগিদ অনুভব করছি। বড় কর্মসূচিতে যাওয়ার আগে এটি অবশ্যই দরকার। হরতাল-অবরোধে ঝুঁকি নিয়ে অনেকে মিছিল করেছে; আর অনেকে পদ নিয়ে ঘরে বসে ফেসবুক দেখেছে। অনেক সভাপতি সাধারণ স¤পাদককে খুঁজেই পাওয়া যায়নি।’

২০১৬ সালের ১৯ মার্চ ঢাকায় ষষ্ঠ জাতীয় সম্মেলন করেছিল বিএনপি। গঠনতান্ত্রিকভাবে তিন বছর পরপর এই সম্মেলন হওয়ার কথা। তবে সাত বছর পার হলেও সপ্তম জাতীয় সম্মেলন হয়নি। এরই মধ্যে কেন্দ্রীয় কমিটির বিভিন্ন পর্যায়ের অনেক নেতা মারা গেছেন। নানা কারণে বাদ পড়েছেন কেউ কেউ। সব মিলিয়ে কেন্দ্রীয় কমিটির ১৩০টির মতো পদ শূন্য হয়ে আছে। শুধু তাই নয়, সাত বছরে কেন্দ্রীয় কমিটির সভা হয়েছে মাত্র একবার। ২০১৮ সালের ৩ ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিত ওই সভার পর কেটে গেছে আরও পাঁচ বছর। শুধু কেন্দ্র নয়, জেলা-উপজেলাসহ সব স্তরেই স্থবির হয়ে আছে বিএনপির সাংগঠনিক কার্যক্রম।

বিএনপির গঠনতন্ত্র অনুযায়ী জেলা, উপজেলা ও পৌর কমিটির মেয়াদ দুই বছর। কিন্তু অধিকাংশ জেলা-উপজেলা কমিটির মেয়াদ ৩ থেকে ১০ বছরে গড়িয়েছে। সাংগঠনিক জেলার সংখ্যা ৮২। সর্বশেষ প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী মাত্র ১০টিতে মূল কমিটি রয়েছে। এর মধ্যে বেশ কয়েকটি আবার আংশিক। ৫২টি জেলা কমিটি চলছে আহ্বায়ক কমিটি দিয়ে। বাকিগুলোর হালনাগাদ তথ্য নেই। সব মিলিয়ে ৫০টির বেশি জেলা কমিটি মেয়াদোত্তীর্ণ।

বিএনপি সূত্রে জানা গেছে, দলের সর্বোচ্চ নীতিনির্ধারণী ফোরাম স্থায়ী কমিটির ১৯ পদের মধ্যে বর্তমানে শূন্য আছে পাঁচটি। এ ছাড়া ভাইস চেয়ারম্যানের ১৩টি, উপদেষ্টা ১৫টি, স¤পাদক ও সহ-স¤পাদকসহ প্রায় একশ’র মতো পদ শূন্য হয়ে আছে।

এ বিষয়ে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আবদুল মঈন খান বলেন, ‘সাংগঠনিক রদবদল কিংবা পুনর্গঠন একটি স্বাভাবিক প্রক্রিয়া। এটি বছরব্যাপী চলে। প্রয়োজন ও পরিস্থিতি বিবেচনায় সব সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।’

বিএনপির কেন্দ্রিয় নেতারা বলছেন, এত বৈরী পরিবেশেও আমাদের সাংগঠনিক কার্যক্রম চলছে। এখনও অনেক নেতা গ্রেফতার হচ্ছেন, কারাগারে আছেন, কেউ মারা গেছেন, কেউ কেউ অসুস্থ, অনেকে নিষ্ক্রিয় আছেন। সব কিছু বিবেচনায় নিয়ে আমরা চেষ্টা করব সংগঠনকে পুনর্গঠন করতে।

সকল ষড়যন্ত্র ব্যর্থ হওয়ায় বিএনপি এখন মনগড়া তথ্য দিয়ে মিথ্যাচার করছে : ওবায়দুল কাদের

আওয়ামী লীগ রাষ্ট্রকে সত্যিকার অর্থে পুলিশি রাষ্ট্রে পরিণত করেছে : মির্জা ফখরুল

ছবি

দেশের অর্থনৈতিক অবস্থা ভালো না, গ্রামের মানুষ কষ্টে দিন কাটাচ্ছে

ছবি

এবারের ঈদ বাংলাদেশের মানুষের জন্য দুঃখ-কষ্ট নিয়ে এসেছে : মির্জা ফখরুল

ছবি

ঈদে মধ্যবিত্তরা মুখ লুকিয়ে কাঁদছে: রিজভী

রংপুরে পুনঃ গননা, জাতীয় পার্টির মনোনীত ইউপি চেয়ারম্যান প্রার্থী মাহফুজার রহমানকে ৩শ ৩ ভোটে বিজয়ী ঘোষনা

ছবি

বিএনপি গণতন্ত্রের শত্রু ও আন্তর্জাতিকভাবে চিহ্নিত একটি সন্ত্রাসী দল : ওবায়দুল কাদের

ছবি

বিএনপিই এ দেশে গণতান্ত্রিক আদর্শ বাস্তবায়নের প্রধান প্রতিবন্ধক : ওবায়দুল কাদের

ছবি

রমজানে দ্রব্যমূল্যে উর্ধ্বগতি সরকারের দোষ নয় , এটা আমাদের রক্তে সমস্যা : এমপি রুমা চক্রবর্তী

ছবি

পাহাড়ে কেএনএফের সশস্ত্র তৎপরতা বিচ্ছিন্ন ঘটনা: ওবায়দুল কাদের

ছবি

সরকার নিজেই দস্যুদের মতো আচরণ করছে: রিজভী

ছবি

সকলের অংশগ্রহণে অন্তর্ভুক্তিমূলক উন্নয়ন নিশ্চিত করাই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার লক্ষ্য- অর্থ প্রতিমন্ত্রী ওয়াসিকা আয়শা খান

ছবি

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অবগত থাকলেও তাদের সম্পর্কে খোঁজখবর রাখেননি: পাহাড় নিয়ে রিজভী

ছবি

বিএনপি ক্ষমতায় গেলে গোটা বাংলাদেশ গিলে খাবে : ওবায়দুল কাদের

ছবি

নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রলীগের বিভাগভিত্তিক কমিটি ঘোষণা

বিভক্ত বিএনপি : দলের সিদ্ধান্ত উপেক্ষা করে আইনজীবী সমিতির সভাপতির দায়িত্ব নিচ্ছেন মাহবুব উদ্দীন খোকন

ছবি

বান্দরবানের বিষয়ে কঠোর অবস্থানে সরকার: সেতুমন্ত্রী

কোন্দলের শঙ্কার মধ্যেই ‘উৎসবমুখর’ উপজেলা ভোটের চ্যালেঞ্জ আ’লীগের

ছবি

ভারতীয় পণ্য বর্জনের ডাক দিয়েও বিএনপি ব্যর্থ: কাদের

আগামীকাল আওয়ামী লীগের খুলনা বিভাগের মতবিনিময় সভা

ছবি

বুয়েটে চলমান আন্দোলনে ছাত্রদলের সংহতি

ছবি

চিকিৎসা শেষে বাসায় ফিরেছেন খালেদা জিয়া

ছবি

সরকার দেশকে পুলিশি রাষ্ট্রে পরিণত করেছে: মির্জা ফখরুল

ছবি

ঈদের আগে গার্মেন্টসসহ সকল সেক্টরের শ্রমিকদের বেতন ভাতা পরিশোধের দাবি:এবি পার্টির

ছবি

উপজেলা নির্বাচনে হস্তক্ষেপ করলে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেওয়া হবে : কাদের

ছবি

সিসিইউতে খালেদা জিয়ার অবস্থা ‘স্থিতিশীল’

রংপুরে আওয়ামী লীগের ৬ থানা কমিটির অনুমোদন দেবার ক্ষমতা খর্ব করলো দলের হাইকমান্ড

ছবি

দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের খরচ পৌনে ৩ কোটি টাকা

ছবি

ছাত্র রাজনীতি অবশ্যই চাই, সমস্যা করছে ছাত্রলীগ: গয়েশ্বর

ছবি

বিএনপি ও তাদের দোসররা জনগণ দ্বারা বারবার প্রত্যাখ্যাত হয়ে বিলুপ্তির পথে : ওবায়দুল কাদের

ছবি

খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা স্থিতিশীল

ছবি

মজুতদার ও সিন্ডিকেট ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়ার দাবি

ছবি

তুরস্কের সেনাবাহিনীতে চাকরির কথা বলে বাবা-ছেলের কোটি টাকা প্রতারণা

ছবি

খালেদা জিয়া এভারকেয়ারের সিসিইউতে ‘নিবিড় পর্যবেক্ষণে’: ডা. জাহিদ

ছবি

বুয়েটকে অপরাজনীতির কারখানা করা হচ্ছে কি না খতিয়ে দেখা হচ্ছে

ছবি

গভীর রাতে হাসপাতালে খালেদা জিয়া

tab

রাজনীতি

দল পুনর্গঠনে নেতৃত্বে রদবদল চান বিএনপির তৃণমূল নেতাকর্মীরা

মহসীন ইসলাম টুটুল

সোমবার, ০৪ মার্চ ২০২৪

২৮ অক্টোবরের মহাসমাবেশের পর থেকে আন্দোলনে নেতৃত্বের ব্যর্থতাই বেশি দেখছেন তৃণমূল নেতাকর্মীরা। তাই বড় আন্দোলনে যাওয়ার আগে নেতৃত্বের রদবদল চান তারা। বিশেষ করে তৃণমূল নেতাকর্মীরা ঢাকার নেতৃত্বের ওপর হতাশ। এক দফা আন্দোলনের ব্যর্থতার পর দলকে ঢেলে সাজাতে শীর্ষ নেতৃত্বকে তাগিদ দিচ্ছেন বিএনপি নেতাকর্মীরা। আন্দোলন এবং দলের সাংগঠনিক এই পরিস্থিতিতে মাঠ পর্যায়ের নেতাদের এমন উপলব্ধি প্রকাশ পেতে শুরু করেছে।

২০১৪ সালের পর থেকে বেশ কয়েকবার ঢাকার নেতৃত্বে রদবদল আনে বিএনপি। কিন্তু সফলতা আসেনি আশানুরূপ। এ কারণে ২০১৭ সালে ঢাকা মহানগরকে উত্তর ও দক্ষিণে ভাগ করে পৃথক দুটি কমিটি করা হয়। তাতেও কাজের কাজ কিছু হয়নি। সর্বশেষ ২০২১ সালের আগস্টে আমান উল্লাহ আমানকে আহ্বায়ক ও আমিনুল হককে সদস্য সচিব করে ঢাকা উত্তর এবং আবদুস সালামকে আহ্বায়ক ও রফিকুল ইসলাম মজনুকে সদস্য সচিব করে দক্ষিণের আহ্বায়ক কমিটি গঠন করা হয়। এরই মধ্যে ঢাকা উত্তরের ৭১টি ওয়ার্ডের সব এবং দক্ষিণের ৮০টির মধ্যে ৫৬টিতে বিএনপির পূর্ণাঙ্গ কমিটি হয়েছে।

গাজীপুর মহানগর বিএনপির একজন নেতা বলেন, ‘বহির্বিশ^ আমাদের শীর্ষ নেতাকে নিয়ে একটু কানাঘুষা করছে। তারা যেভাবে নেতৃত্ব চান হয়তো সেভাবে সাজানো যাচ্ছে না।’ তবে তৃণমূলে কোনো সমস্যা নেই বলে জানান তিনি। তিনি বলেন, ‘কমিটি করতে হলে আগে ঢাকাকে ঢেলে সাজাতে হবে। এই সরকার আসার পর থেকে ঢাকা ধারাবাহিকভাবে ব্যর্থ। তাই ঢাকার নেতৃত্বে রদবদল করা উচিত।’ তিনি আরও বলেন, ‘ঢাকার বাইরের লোক অর্থাৎ জেলার লোকজনকে নিয়ে এসে আমাদের পল্টনের মাঠ ভরতে হয়। আর ঢাকার নেতারা বসে থাকেন মঞ্চে।’

ঢাকা মহানগর বিএনপির উত্তরের যুগ্ম আহ্বায়ক মোস্তফা জামান বলেন, ‘কমিটি পুনর্গঠন করা উচিত। যারা ব্যর্থ তাদের দায়িত্ব থেকে সরিয়ে দিয়ে যোগ্যদের সুযোগ দেওয়া উচিত। বড় আন্দোলনে যাওয়ার আগে নতুন কমিটি গঠন ও শূন্য নেতৃত্ব পূরণের বিকল্প নেই।’ ৩ ফেব্রুয়ারীর সংবাদের সাথে আলাপকালে এসব কথা বলেন তিনি। এরপর তিনি গোয়েন্দা পুলিশের হাতে আটক হন, বর্তমানে তিনি কারাগারে।

ঢাকা দক্ষিণ বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক আ ন ম সাইফুল হক অভিযোগ করেন, ‘মহানগরের অনেক শক্তিধর ইউনিট ২৮ অক্টোবরের পর হঠাৎ ঝিমিয়ে পড়ে। এর কারণ খুঁজে বের করা উচিত সাংগঠনিক নেতাদের। না হলে ভবিষ্যতেও আন্দোলনেও একই চিত্র দেখা যাবে। দায়িত্বশীল নেতাদের কারণ ছাড়া উধাও হয়ে যাওয়া মানে কর্মীদের মনোবল ভেঙে যাওয়া। এখনও সময় আছে সিন্ডিকেট ভেঙে সংগঠনকে গতিশীল করার।’

ঢাকা জেলা বিএনপির একজন নেতা বলেন, ‘গত তিন মাসে একটি বড় পরীক্ষা হয়ে গেল। এতে যারা ফেল করেছে; তাদের বাদ দেওয়া উচিত। আর যারা পাস করেছে তাদের পুরস্কার হিসেবে নেতৃত্বে জায়গা দেওয়া উচিত। বড় একটি আন্দোলনের পর শীর্ষ নেতারা নিশ্চয়ই বিষয়টি নিয়ে ভাবছেন।’ তিনি বলেন, ‘সংগঠন পুনর্গঠন নিয়ে তাগিদ অনুভব করছি। বড় কর্মসূচিতে যাওয়ার আগে এটি অবশ্যই দরকার। হরতাল-অবরোধে ঝুঁকি নিয়ে অনেকে মিছিল করেছে; আর অনেকে পদ নিয়ে ঘরে বসে ফেসবুক দেখেছে। অনেক সভাপতি সাধারণ স¤পাদককে খুঁজেই পাওয়া যায়নি।’

২০১৬ সালের ১৯ মার্চ ঢাকায় ষষ্ঠ জাতীয় সম্মেলন করেছিল বিএনপি। গঠনতান্ত্রিকভাবে তিন বছর পরপর এই সম্মেলন হওয়ার কথা। তবে সাত বছর পার হলেও সপ্তম জাতীয় সম্মেলন হয়নি। এরই মধ্যে কেন্দ্রীয় কমিটির বিভিন্ন পর্যায়ের অনেক নেতা মারা গেছেন। নানা কারণে বাদ পড়েছেন কেউ কেউ। সব মিলিয়ে কেন্দ্রীয় কমিটির ১৩০টির মতো পদ শূন্য হয়ে আছে। শুধু তাই নয়, সাত বছরে কেন্দ্রীয় কমিটির সভা হয়েছে মাত্র একবার। ২০১৮ সালের ৩ ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিত ওই সভার পর কেটে গেছে আরও পাঁচ বছর। শুধু কেন্দ্র নয়, জেলা-উপজেলাসহ সব স্তরেই স্থবির হয়ে আছে বিএনপির সাংগঠনিক কার্যক্রম।

বিএনপির গঠনতন্ত্র অনুযায়ী জেলা, উপজেলা ও পৌর কমিটির মেয়াদ দুই বছর। কিন্তু অধিকাংশ জেলা-উপজেলা কমিটির মেয়াদ ৩ থেকে ১০ বছরে গড়িয়েছে। সাংগঠনিক জেলার সংখ্যা ৮২। সর্বশেষ প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী মাত্র ১০টিতে মূল কমিটি রয়েছে। এর মধ্যে বেশ কয়েকটি আবার আংশিক। ৫২টি জেলা কমিটি চলছে আহ্বায়ক কমিটি দিয়ে। বাকিগুলোর হালনাগাদ তথ্য নেই। সব মিলিয়ে ৫০টির বেশি জেলা কমিটি মেয়াদোত্তীর্ণ।

বিএনপি সূত্রে জানা গেছে, দলের সর্বোচ্চ নীতিনির্ধারণী ফোরাম স্থায়ী কমিটির ১৯ পদের মধ্যে বর্তমানে শূন্য আছে পাঁচটি। এ ছাড়া ভাইস চেয়ারম্যানের ১৩টি, উপদেষ্টা ১৫টি, স¤পাদক ও সহ-স¤পাদকসহ প্রায় একশ’র মতো পদ শূন্য হয়ে আছে।

এ বিষয়ে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আবদুল মঈন খান বলেন, ‘সাংগঠনিক রদবদল কিংবা পুনর্গঠন একটি স্বাভাবিক প্রক্রিয়া। এটি বছরব্যাপী চলে। প্রয়োজন ও পরিস্থিতি বিবেচনায় সব সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।’

বিএনপির কেন্দ্রিয় নেতারা বলছেন, এত বৈরী পরিবেশেও আমাদের সাংগঠনিক কার্যক্রম চলছে। এখনও অনেক নেতা গ্রেফতার হচ্ছেন, কারাগারে আছেন, কেউ মারা গেছেন, কেউ কেউ অসুস্থ, অনেকে নিষ্ক্রিয় আছেন। সব কিছু বিবেচনায় নিয়ে আমরা চেষ্টা করব সংগঠনকে পুনর্গঠন করতে।

back to top