alt

রাজনীতি

মনোনয়ন দিতে বিএনপি নেতার নাম কেন্দ্রে

বিএনপি নেতা হচ্ছেন আওয়ামী লীগের নির্বাচন প্রার্থী

প্রতিনিধি, নারায়ণগঞ্জ : বৃহস্পতিবার, ০৭ অক্টোবর ২০২১

নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লা থানা বিএনপির সহসভাপতি ছিলেন কুতুবপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মনিরুল আলম সেন্টু। গত একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থীর প্রচারণায় অংশ নেওয়ায় ২০১৮ সালের ২৪ ডিসেম্বর দল থেকে তাকে বহিষ্কার করে বিএনপি। বিএনপির বহিষ্কৃত এই নেতাই এবার আওয়ামী লীগের সমর্থনে ইউপি নির্বাচনে অংশ নিচ্ছেন। আওয়ামী লীগের মনোনয়নের জন্য তার নামই কেন্দ্রে পাঠিয়েছে স্থানীয় আওয়ামী লীগ। গতকাল বৃহস্পতিবার (৭ অক্টোবর) বিকেলে তার পক্ষে জেলা নির্বাচন অফিস থেকে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতিসহ স্থানীয় নেতারা।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন কুতুবপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি জসিম উদ্দিন। তিনি বলেন, কুতুবপুর বিএনপি অধ্যুষিত এলাকা। এখানে গত তিনবারই আওয়ামী লীগের প্রার্থী হেরেছে। নৌকার প্রার্থী মাত্র ৫-১০ হাজার ভোট পায় এইখানে। এবার তৃণমূল সিদ্ধান্ত নিয়েছে বর্তমান চেয়ারম্যান মনিরুল আলম সেন্টুকেই নৌকার মনোনয়ন দেওয়ার জন্য। দলীয় সিদ্ধান্তে একমাত্র তার নামই মনোনয়নের জন্য কেন্দ্রে পাঠানো হয়েছে।

২০১৮ সালের ডিসেম্বরে বহিষ্কার হওয়ার পর ২০১৯ সালে অনুষ্ঠানিকভাবে আওয়ামী লীগে যোগ দেন বলে জানান মনিরুল আলম সেন্টু। তিনি আওয়ামী লীগের প্রাথমিক সদস্য হয়েছেন। এর আগে তিনবার কুতুবপুর ইউনিয়নে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছিলেন। গতবার দলীয় প্রতীক থাকা সত্ত্বেও স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়েছিলেন মনিরুল আলম সেন্টু। ওই নির্বাচনে তিনি পেয়েছিলেন ৪৩ হাজার ভোট। তার বিপরীতে আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীকের প্রার্থী পেয়েছিলেন মাত্র ৯ হাজার ভোট। মনিরুল আলম সেন্টু বলেন, বিএনপিতে তিনি অবমূল্যায়নের শিকার হয়েছেন। সেই খেদ থেকেই আওয়ামী লীগে যোগদান করেছেন।

তবে স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীদের সাথে কথা বলে জানা যায় ভিন্ন কথা। আওয়ামী লীগের সাংসদ শামীম ওসমানের সংসদীয় এলাকায় বিএনপির সাবেক নেতাকে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন দেওয়ার সুপারিশ করায় নেতাদের উপর চরম ক্ষোভ রয়েছে তৃণমূলের। তবে এই ক্ষোভ প্রকাশের সুযোগ বা সাহস নেই তাদের। স্থানীয় সূত্র বলছে, সাবেক বিএনপি নেতা মনিরুল আলম সেন্টুর উপর নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের আওয়ামী লীগের সাংসদ একেএম শামীম ওসমানের আশীর্বাদ রয়েছে।

বিএনপির রাজনীতির সাথে যুক্ত থাকলেও বরাবরই শামীম ওসমানকে নেতা মেনেছেন সেন্টু। গত সংসদ নির্বাচনের পূর্বে শামীম ওসমানের কর্মীসভাতেও তার সরব উপস্থিতি ছিল। অভিযোগ রয়েছে, সাংসদের আশীর্বাদপুষ্ট বিএনপি নেতাকে জেতাতেই গত নির্বাচনগুলোতে আওয়ামী লীগের প্রার্থীকে বিসর্জন দেওয়া হয়েছে। আওয়ামী লীগ হটিয়ে বিএনপির প্রার্থীকে সুযোগ দেওয়ার এই কার্যক্রম বিগত নির্বাচনগুলোতে গোপনে হলেও এবার তা হচ্ছে প্রকাশ্য।

স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতাদের বঞ্চিত করে বিএনপি নেতাকে আওয়ামী লীগের নৌকা দেওয়া হচ্ছে। কেননা কুতুবপুরে এবার মনোনয়ন প্রত্যাশী ছিলেন জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি ও সাবেক চেয়ারম্যান গোলাম রসুল শিকদার, ফতুল্লা থানা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি মোস্তফা কামাল, সদস্য শাহ্ আলম গাজী টেনুসহ অনেকেই।

এদিকে কুতুবপুরে আওয়ামী লীগের দৈন্যদশায় উপহাস করছে বিএনপির নেতারাও। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক জেলা বিএনপির এক নেতা বলেন, এক যুগেরও বেশি সময় আওয়ামী লীগ ক্ষমতায়। অথচ কুতুবপুরে তাদের নিজস্ব কোনো প্রার্থী নেই। বিএনপির দলছুট নেতাকে নৌকার মনোনয়ন দিয়ে নিজেদের ব্যর্থতা ঢাকতে চাচ্ছে আওয়ামী লীগ।

এই বিষয়ে কথা বলতে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল হাই ও সাধারণ সম্পাদক আবু হাসনাত মো. শহীদ বাদলের মুঠোফোনে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তারা কল রিসিভ করেননি। তবে ফতুল্লা থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শওকত আলী সংবাদকে বলেন, ‘ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ থেকে মনিরুল আলম সেন্টুর একক নাম এসেছে। ওই নাম আমরা জেলা আওয়ামী লীগের কাছে পাঠিয়েছি। তবে এই নামের বিপরীতে জেলা আওয়ামী লীগ আপত্তি জানিয়েছিল। পরে তারা নাম কেন্দ্রে পাঠিয়েছেন কিনা জানি না।’

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি আরও বলেন, ‘কুতুবপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের বেশ কয়েকজন মনোনয়ন প্রত্যাশী ছিলেন বলে শুনেছি। তবে তারা কেউই নাকি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাথে যোগাযোগ করেনি। তবে আমার মনে হয়, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ এই ক্ষেত্রে ব্যর্থতার প্রমাণ দিয়েছে। চেয়ারম্যান প্রার্থীদের তারা উদ্বুদ্ধ করতে পারে নাই।’

এ বিষয়ে জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম বলেন, আওয়ামী লীগের মনোনয়ন দলীয় লোক পাবে। বিএনপির নেতাকে নৌকার প্রার্থী দেওয়ার কোনো মানে নেই। স্থানীয় সাংসদের সমর্থন থাকায় বিএনপির নেতাকে নৌকার প্রার্থী বানানোর চেষ্টা চলছে। #

ছবি

শিক্ষার্থীরা রাজনৈতিক দলের উস্কানিতে রাস্তায়: কাদের

ছবি

জনগণই আমার শক্তির উৎস: আইভী

ছবি

ছাত্র আন্দোলনে হয়রানি হলে রাজপথে জবাব দেব: নুর

ছবি

খালেদা জিয়াকে তিলে তিলে হত্যার ষড়যন্ত্র চলছে : ফখরুল

ছবি

দেশে ভালো ডাক্তার আছেন, খালেদা জিয়া সুস্থ হয়ে উঠবেন: তথ্যমন্ত্রী

ছবি

‘খালেদার বিদেশে যেতে বাধা আইন নয়, সরকার’

ছবি

খালেদার বিদেশে চিকিৎসার জটিলতার জন্য আ’লীগ দায়ী নয়: সেতুমন্ত্রী

ছবি

ইউপি নির্বাচন দিয়ে আ’লীগের পতন শুরু হয়ে গেছে: ফখরুল

ছবি

ইউপি নির্বাচনে চর দখলের মতোই কেন্দ্র দখল হচ্ছে: জিএম কাদের

ছবি

হেফাজতের ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব সাজিদুর রহমান

ছবি

খালেদা জিয়ার অসুস্থতার জন্য বিএনপিই দায়ী: কাদের

ছবি

কে হচ্ছে হেফাজতের মহাসচিব

ছবি

মারা গেছেন হেফাজতের মহাসচিব নুরুল ইসলাম

ছবি

এমপিরা বেক্কলের মতো ঘোরেন: সংসদে জাপা মহাসচিব

ছবি

কেন্দ্রে গিয়ে শোনেন তার ভোট হয়ে গেছে

ছবি

বিএনপি দেশে অস্থিরতা সৃষ্টির চেষ্টা করছে: কৃষিমন্ত্রী

ছবি

খালেদার পরিপাকতন্ত্রে রক্তক্ষরণ হচ্ছে: মির্জা ফখরুল

ছবি

পাবলিক আমাদের আ.লীগের দালাল বলে: জাপা মহাসচিব

রাজাকার পুত্র হাইমচরে নৌকার প্রার্থী

ছবি

আমি টাকা পাচার করি না, কারা করে কীভাবে জানবো : অর্থমন্ত্রী

ছবি

সংসদে পাকিস্তান ক্রিকেট দলের পক্ষে কথা বলে তোপে সাংসদ হারুন

ছবি

রাষ্ট্রপতি ক্ষমা করলেই খালেদার দণ্ড মওকুফ: হানিফ

ছবি

খালেদাকে স্লো পয়জনিং করলে ফখরুলরা করছেন: ওবায়দুল কাদের

ছবি

খালেদার চিকিৎসায় বিদেশ থেকে চিকিৎসক আনছেন না কেন: আইনমন্ত্রী

শিবচরে ইউপি নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থীতা উন্মুক্ত: ১৪৬ প্রার্থীর মনোনয়নপত্র দাখিল, ৫ প্রার্থীকে জরিমানা

ছবি

খালেদা জিয়াকে ‘স্লো পয়জনিং’ করা হয়েছিল কি না, প্রশ্ন ফখরুলের

ছবি

গাজীপুর আ.লীগে জাহাঙ্গীরের হারানো পদে আতাউল্লাহ

ছবি

দেশে খালেদা জিয়ার সর্বোচ্চ চিকিৎসা হচ্ছে: তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী

ছবি

‘অবস্থা ক্রিটিক্যাল’ খালেদাকে আজই বিদেশে পাঠান: ডা. জাফরুল্লাহ

ছবি

সুকৌশলে গুজব ছড়ানো হচ্ছে: ফখরুল

ছবি

খালেদার চিকিৎসা-মুক্তির দাবিতে বিএনপির গুচ্ছ কর্মসূচি

ছবি

স্মারকলিপি পর্যালোচনা করে পরবর্তী সিদ্ধান্ত: আইনমন্ত্রী

ছবি

খালেদা জিয়ার মুক্তি দাবিতে মিরপুরে বিক্ষোভ মিছিল

ছবি

খালেদা জিয়াকে বিদেশে নেয়ার দাবি রাজনৈতিক উদ্দেশ্য প্রণোদিত: তথ্যমন্ত্রী

ছবি

নারায়ণগঞ্জে বিএনপির বিক্ষোভ সমাবেশ

ছবি

শেখ হাসিনা সরকার কখনোই বিএনপির হাতে ইস্যু তুলে দেবে না

tab

রাজনীতি

মনোনয়ন দিতে বিএনপি নেতার নাম কেন্দ্রে

বিএনপি নেতা হচ্ছেন আওয়ামী লীগের নির্বাচন প্রার্থী

প্রতিনিধি, নারায়ণগঞ্জ

বৃহস্পতিবার, ০৭ অক্টোবর ২০২১

নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লা থানা বিএনপির সহসভাপতি ছিলেন কুতুবপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মনিরুল আলম সেন্টু। গত একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থীর প্রচারণায় অংশ নেওয়ায় ২০১৮ সালের ২৪ ডিসেম্বর দল থেকে তাকে বহিষ্কার করে বিএনপি। বিএনপির বহিষ্কৃত এই নেতাই এবার আওয়ামী লীগের সমর্থনে ইউপি নির্বাচনে অংশ নিচ্ছেন। আওয়ামী লীগের মনোনয়নের জন্য তার নামই কেন্দ্রে পাঠিয়েছে স্থানীয় আওয়ামী লীগ। গতকাল বৃহস্পতিবার (৭ অক্টোবর) বিকেলে তার পক্ষে জেলা নির্বাচন অফিস থেকে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতিসহ স্থানীয় নেতারা।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন কুতুবপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি জসিম উদ্দিন। তিনি বলেন, কুতুবপুর বিএনপি অধ্যুষিত এলাকা। এখানে গত তিনবারই আওয়ামী লীগের প্রার্থী হেরেছে। নৌকার প্রার্থী মাত্র ৫-১০ হাজার ভোট পায় এইখানে। এবার তৃণমূল সিদ্ধান্ত নিয়েছে বর্তমান চেয়ারম্যান মনিরুল আলম সেন্টুকেই নৌকার মনোনয়ন দেওয়ার জন্য। দলীয় সিদ্ধান্তে একমাত্র তার নামই মনোনয়নের জন্য কেন্দ্রে পাঠানো হয়েছে।

২০১৮ সালের ডিসেম্বরে বহিষ্কার হওয়ার পর ২০১৯ সালে অনুষ্ঠানিকভাবে আওয়ামী লীগে যোগ দেন বলে জানান মনিরুল আলম সেন্টু। তিনি আওয়ামী লীগের প্রাথমিক সদস্য হয়েছেন। এর আগে তিনবার কুতুবপুর ইউনিয়নে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছিলেন। গতবার দলীয় প্রতীক থাকা সত্ত্বেও স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়েছিলেন মনিরুল আলম সেন্টু। ওই নির্বাচনে তিনি পেয়েছিলেন ৪৩ হাজার ভোট। তার বিপরীতে আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীকের প্রার্থী পেয়েছিলেন মাত্র ৯ হাজার ভোট। মনিরুল আলম সেন্টু বলেন, বিএনপিতে তিনি অবমূল্যায়নের শিকার হয়েছেন। সেই খেদ থেকেই আওয়ামী লীগে যোগদান করেছেন।

তবে স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীদের সাথে কথা বলে জানা যায় ভিন্ন কথা। আওয়ামী লীগের সাংসদ শামীম ওসমানের সংসদীয় এলাকায় বিএনপির সাবেক নেতাকে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন দেওয়ার সুপারিশ করায় নেতাদের উপর চরম ক্ষোভ রয়েছে তৃণমূলের। তবে এই ক্ষোভ প্রকাশের সুযোগ বা সাহস নেই তাদের। স্থানীয় সূত্র বলছে, সাবেক বিএনপি নেতা মনিরুল আলম সেন্টুর উপর নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের আওয়ামী লীগের সাংসদ একেএম শামীম ওসমানের আশীর্বাদ রয়েছে।

বিএনপির রাজনীতির সাথে যুক্ত থাকলেও বরাবরই শামীম ওসমানকে নেতা মেনেছেন সেন্টু। গত সংসদ নির্বাচনের পূর্বে শামীম ওসমানের কর্মীসভাতেও তার সরব উপস্থিতি ছিল। অভিযোগ রয়েছে, সাংসদের আশীর্বাদপুষ্ট বিএনপি নেতাকে জেতাতেই গত নির্বাচনগুলোতে আওয়ামী লীগের প্রার্থীকে বিসর্জন দেওয়া হয়েছে। আওয়ামী লীগ হটিয়ে বিএনপির প্রার্থীকে সুযোগ দেওয়ার এই কার্যক্রম বিগত নির্বাচনগুলোতে গোপনে হলেও এবার তা হচ্ছে প্রকাশ্য।

স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতাদের বঞ্চিত করে বিএনপি নেতাকে আওয়ামী লীগের নৌকা দেওয়া হচ্ছে। কেননা কুতুবপুরে এবার মনোনয়ন প্রত্যাশী ছিলেন জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি ও সাবেক চেয়ারম্যান গোলাম রসুল শিকদার, ফতুল্লা থানা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি মোস্তফা কামাল, সদস্য শাহ্ আলম গাজী টেনুসহ অনেকেই।

এদিকে কুতুবপুরে আওয়ামী লীগের দৈন্যদশায় উপহাস করছে বিএনপির নেতারাও। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক জেলা বিএনপির এক নেতা বলেন, এক যুগেরও বেশি সময় আওয়ামী লীগ ক্ষমতায়। অথচ কুতুবপুরে তাদের নিজস্ব কোনো প্রার্থী নেই। বিএনপির দলছুট নেতাকে নৌকার মনোনয়ন দিয়ে নিজেদের ব্যর্থতা ঢাকতে চাচ্ছে আওয়ামী লীগ।

এই বিষয়ে কথা বলতে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল হাই ও সাধারণ সম্পাদক আবু হাসনাত মো. শহীদ বাদলের মুঠোফোনে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তারা কল রিসিভ করেননি। তবে ফতুল্লা থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শওকত আলী সংবাদকে বলেন, ‘ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ থেকে মনিরুল আলম সেন্টুর একক নাম এসেছে। ওই নাম আমরা জেলা আওয়ামী লীগের কাছে পাঠিয়েছি। তবে এই নামের বিপরীতে জেলা আওয়ামী লীগ আপত্তি জানিয়েছিল। পরে তারা নাম কেন্দ্রে পাঠিয়েছেন কিনা জানি না।’

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি আরও বলেন, ‘কুতুবপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের বেশ কয়েকজন মনোনয়ন প্রত্যাশী ছিলেন বলে শুনেছি। তবে তারা কেউই নাকি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাথে যোগাযোগ করেনি। তবে আমার মনে হয়, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ এই ক্ষেত্রে ব্যর্থতার প্রমাণ দিয়েছে। চেয়ারম্যান প্রার্থীদের তারা উদ্বুদ্ধ করতে পারে নাই।’

এ বিষয়ে জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম বলেন, আওয়ামী লীগের মনোনয়ন দলীয় লোক পাবে। বিএনপির নেতাকে নৌকার প্রার্থী দেওয়ার কোনো মানে নেই। স্থানীয় সাংসদের সমর্থন থাকায় বিএনপির নেতাকে নৌকার প্রার্থী বানানোর চেষ্টা চলছে। #

back to top