alt

খেলা

ভারতের স্বপ্ন ভেঙে ষষ্ঠবার চ্যাম্পিয়ন অস্ট্রেলিয়া

স্পোর্টস ডেস্ক : রোববার, ১৯ নভেম্বর ২০২৩

ট্রফি হাতে উল্লসিত চ্যাম্পিয়ন অস্ট্রেলিয়া

ভারতকে ৬ উইকেটে হারিয়ে বিশ্বকাপের ষষ্ঠ শিরোপা জিতে নিয়েছে অস্ট্রেলিয়া। লক্ষ্য খুব বড় ছিল না, ২৪১ রানের। তবে ছোট লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে শুরুতেই বিপদে পড়েছিল অস্ট্রেলিয়া। মোহাম্মদ শামি-জাসপ্রিত বুমরাহদের বোলিং তোপে ৪৭ রান তুলতেই তারা হারিয়ে বসে ৩ উইকেট।

তবে সেখান থেকে ঘুরে দাঁড়ায় অজিরা। ট্রাভিস হেড আর মার্নাস লাবুশেনের অবিচ্ছিন্ন শতরানের জুটিতে সহজেই জয়ের বন্দরে পৌঁছে যায় অস্ট্রেলিয়া। বিশ্বকাপ ফাইনালের রান তাড়ায় সর্বোচ্চ জুটি এখন হেড ও লাবুশেনের ১৭২ রান, সব মিলিয়ে ফাইনালে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ। বিশ্বকাপ ফাইনালে রান তাড়ায় দ্বিতীয় সেঞ্চুরি এটি। প্রথমটি ১৯৯৬ সালে করেছিলেন অরবিন্দ ডি সিলভা, অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষেই।

সিরাজের শর্ট বলে ডিপ মিডউইকেটে শুবমান গিলের হাতে ধরা পড়েন হেড। অস্ট্রেলিয়ার দরকার ছিল ২ রান। ৪৩তম ওভারের শেষ বলে সিরাজের বলে পুল করে জয়সুচক দুই রান নেন গ্লেন ম্যাক্সওয়েল।

দলীয় ১৬ রানের মাথায় প্রথম উইকেট হারায় অস্ট্রেলিয়া। ৩ বলে ৭ করে মোহাম্মদ শামির বলে খোঁচা দিতে গিয়ে স্লিপে ক্যাচ হন ডেভিড ওয়ার্নার। ১৫ বলে ১৫ করে মিচেল মার্শ হন জাসপ্রিত বুমরাহর শিকার। উইকেটরক্ষক নেন ক্যাচ।

এরপর মাত্র ৪ রান করে স্টিভেন স্মিথও বুমরাহর বলে এলবিডব্লিউ হলে চাপে পড়ে অস্ট্রেলিয়া। যদিও স্মিথ আউট ছিলেন না। বল বাইরে পিচ করেছিল। কিন্তু আম্পায়ার আউট দিলে আর রিভিউ নেননি স্মিথ।

এর আগে বিরাট কোহলি আর লোকেশ রাহুলের লড়াকু ফিফটির পরও পুরো ৫০ ওভার খেললে ২৪০ রানে গুটিয়ে গেছে ভারতের ইনিংস।

এবারের বিশ্বকাপে প্রথমে ব্যাটিং করতে নামা মানেই ভারতের ঝোড়ো সূচনা। ব্যত্যয় ঘটেনি ফাইনালেও। শুরুতে ওপেনার শুভমান গিলের (৭ বলে ৪) উইকেট হারিয়ে ফেললেও ঝোড়ো গতিতে রান তুলেছে ভারত।

রোহিত মারকুটে ভঙ্গিমায় এগিয়ে যাচ্ছিলেন। ছিলেন হাফ-সেঞ্চুরির দোরগোড়ায়। তবে ৩১ বলে ৪৭ করার পর গ্লেন ম্যাক্সওয়েলের বলে ট্রাভিস হেডের দুর্দান্ত এক ক্যাচ হয়ে সাজঘরে ফিরতে হয় ভারতীয় অধিনায়ককে। এরপরই ভারতকে চেপে ধরে অস্ট্রেলিয়া।

১০ ওভারে ২ উইকেটে ৮০ রান ছিল। এরপর টানা ১৬ ওভার কোনো বাউন্ডারি পায়নি ভারত। অবশেষে ২৭তম ওভারে এসে সেই বাউন্ডারিখরা কাটান লোকেশ রাহুল।

এর আগে নরেন্দ্র মোদী স্টেডিয়ামে টস জিতে বোলিং বেছে নেন অজি অধিনায়ক প্যাট কামিন্স। দলীয় ৩০ রানের মাথায় মিচেল স্টার্ক ফেরান শুভমান গিলকে (৭ বলে ৪)। এরপর কামিন্স দ্রুতই বোলিংয়ে নিয়ে আসেন গ্লেন ম্যাক্সওয়েলকে। তিনি এসেই সাফল্য উপহার দেন অস্ট্রেলিয়াকে। নিজের দ্বিতীয় এবং দলের ১০ম ওভারেই দ্বিতীয় উইকেট তুলে নেন ম্যাক্সওয়েল। সাজঘরে ফেরান রোহিত শর্মাকে।

ওভারের চতুর্থ বলে ম্যাক্সওয়েলকে ভালোভাবে খেলতে পারেননি রোহিত। শট খেলতে গেলেন তিনি। কিন্তু বল ব্যাটের কানায় লেগে উঠে যায় অফসাইডে। ট্রাভিস হেড কভার অঞ্চল থেকে পেছনে গিয়ে অসাধারণ একটি ক্যাচ ধরলেন। আউট হয়ে গেলেন রোহিত শর্মা। ৩১ বলে ৪৭ রান করলেন তিনি। দলীয় ৭৬ রানের মাথায় পড়লো দ্বিতীয় উইকেট।

এরপর ব্যাট করতে নামেন শ্রেয়াস আয়ার। আগের ম্যাচে সেঞ্চুরি করেছিলেন তিনি। কিন্তু একটি বাউন্ডারি মেরে তিনিও ফিরে গেলেন। প্যাট কামিন্সের বলে ব্যাটের কানায় লাগিয়ে উইকেটের পেছনে ক্যাচ দেন আয়ার। ৮১ রানের মাথায় পড়ে তৃতীয় উইকেট।

৮১ রানে ৩ উইকেট হারানোর পর বিরাট কোহলি আর লোকেশ রাহুল খোলসে ঢুকে পড়েন। দলকে এগিয়ে নিতে দাঁতে দাঁত চেপে ক্রিজে পড়ে থাকার চেষ্টা করেন তারা। চতুর্থ উইকেটে ১০৯ বল খেলে তারা ধীরগতিতে যোগ করেন ৬৭ রান।

অবশেষে এই জুটিটি ভেঙে দেন প্যাট কামিন্স। ভারতীয় দলের ব্যাটিং ভরসা বিরাট কোহলি তার দুর্দান্ত ডেলিভারিতে ইনসাইডেজ হয়ে বোল্ড হয়েছেন। ৬৩ বলে ৪ বাউন্ডারিতে কোহলির দায়িত্বশীল ইনিংসটি ছিল ৫৪ রানের।

রবীন্দ্র জাদেজা সুবিধা করতে পারেননি। ২২ বলে ৯ রান করে হ্যাজেলউডের বলে উইকেটরক্ষককে ক্যাচ দেন তিনি। ১৭৮ রানে ৫ উইকেট হারায় ভারত।

সেখান থেকে দলকে টেনে তোলার চেষ্টা করেছেন লোকেশ রাহুল। বেশ ধীরগতিতে ব্যাটিং করেছেন তিনি। অবশেষে ধীরগতির রাহুলকে সাজঘরের পথ দেখান মিচেল স্টার্ক।

৬৬ রান করে উইকেটরক্ষকের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন রাহুল। ১০৭ বলের ইনিংসে মাত্র একটি বাউন্ডারি হাকান তিনি। এরপর মোহাম্মদ শামিকেও (৬) সাজঘরে ফেরান স্টার্ক। ২১১ রানে ৭ উইকেট হারায় ভারত।

এরপর আর বেশিদূর এগোতে পারেনি ভারত। শেষ স্বীকৃত ব্যাটার সূর্যকুমারের ওপর ভরসা ছিল। তিনিও ২৮ বলে ১৮ রান করে সাজঘরে ফিরে যান।

ইনিংসের শেষ বলে মোহাম্মদ সিরাজ দুই নিতে গেলে রানআউটের কবলে পড়েন কুলদ্বীপ যাদব। তাতেই ২৪০ রানে অলআউট হয়ে যায় ভারত।

অস্ট্রেলিয়ার মিচেল স্টার্ক ৩টি, প্যাট কামিন্স আর জস হ্যাজেলউড নেন ২টি করে উইকেট।

ভারত জিতে এসেছিল টানা ১০ ম্যাচ, টুর্নামেন্টে অপরাজিত ছিল তারা, যে জয়ের ধারা শুরু হয়েছিল ৮ অক্টোবর চেন্নাইয়ে অস্ট্রেলিয়াকে হারিয়েই। ভারতের পর দক্ষিণ আফ্রিকার কাছে হেরে পয়েন্ট তালিকার তলানীতে চলে গিয়েছিল অস্ট্রেলিয়া। ভারতের জয়রথ ছুটেছে, অস্ট্রেলিয়া খাদের কিনার থেকে ঘুরে দাঁড়িয়ে পেরিয়ে এসেছে একের পর এক বাধা। সর্বশেষ সেমিফাইনালেও দক্ষিণ আফ্রিকার সঙ্গে কঠিন লড়াই করে আসতে হয়েছে তাদের।

কিন্তু অস্ট্রেলিয়া বিশ্বকাপের সবচেয়ে সফল দল। সেই অস্ট্রেলিয়ার কাছে থমকে গেল ভারত। এবারের বিশ্বকাপে ১১তম ম্যাচে এসে প্রথম হারের স্বাদ পেল রোহিত শর্মার ভারত। সেটিও ঘরের মাঠে ১ লাখ ৩০ হাজার সমর্থকের সামনে।

ছবি

সাকিবকে বাদ দিয়ে ৪ ম্যাচ পর জয় পেল লস অ্যাঞ্জেলস

ছবি

নারী এশিয়া কাপ : সেমিফাইনালে যেতে চায় বাংলাদেশ

ছবি

মেসিদের বিপক্ষে ফিফায় বর্ণবাদের অভিযোগ করবে ফ্রান্স!

ছবি

আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে অবসর প্রসঙ্গে যা বললেন রোহিত

ছবি

রদ্রিঃ শারীরিক শক্তির ঘাটতির অজুহাতে ছাড়তে হয়েছিলো ক্লাব

ছবি

কোপায় নিজেদের আধিপত্য বজায় রাখলো আর্জেন্টিনা

ছবি

বিদায়ী ম্যাচে সেরা খেলোয়াড় দি মারিয়া

ছবি

কলম্বিয়াকে হারিয়ে টানা দ্বিতীয়বার চ্যাম্পিয়ন আর্জেন্টিনা

ছবি

অবশেষে আর্জেন্টিনাকে গোল উপহার দিলেন লাউতারো

ছবি

শিরোপা স্পেনের, ইংলিশদের ইউরো জয়ের স্বপ্ন অধরা

ছবি

আর্জেন্টিনা-কলম্বিয়া কোপা ফাইনাল কাল

ছবি

ইউরো ফাইনাল আজ, শিরোপা খরা কাটাতে মুখিয়ে আছে ইংল্যান্ড-স্পেন

ছবি

উইম্বলডনের নতুন চ্যাম্পিয়ন ক্রেজসিকোভা

টিভিতে আজকের খেলা

ছবি

ইউরো ফাইনালে ইতিহাস গড়ার সুযোগ ‘নতুন’ ইংরেজদের

ছবি

সতর্ক থেকে শিরোপার ঘ্রাণ নিচ্ছে স্পেন

ছবি

বাংলাদেশের প্রথম লক্ষ্য সেমিফাইনাল : জাহানারা

ছবি

সৌভাগ্যের আকাশী-সাদা জার্সি পরেই ফাইনাল খেলবে আর্জেন্টিনা

ছবি

সাকিব-আফ্রিদিদের এলিট ক্লাবে নাম লেখালেন স্টোকস

ছবি

‘কঠিন’ ফাইনাল, আগের রাতে আরামে ঘুমোতে চান মেসি

ছবি

কোপায় আর্জেন্টিনা-কলম্বিয়া দ্বৈরথের ইতিহাস

টিভিতে আজকের খেলা

ছবি

শ্রীলঙ্কার টি-২০’র অধিনায়কত্ব ছাড়লেন হাসারাঙ্গা

ছবি

চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির ম্যাচ পাকিস্তানে খেলবে না ভারত

ছবি

মেয়েদের এশিয়া কাপ ক্রিকেট : ভালো কিছু করার আসা বাংলাদেশি পেসার মারুফার

ছবি

১৫ বারের চ্যাম্পিয়ন উরুগুয়ের বিদায়, ফাইনালে আর্জেন্টিনার সামনে কলম্বিয়া

টিভিতে আজকের খেলা

ছবি

২০২৬ বিশ্বকাপে খেলার স্বপ্ন মেসির

ছবি

ভারতীয় ক্রিকেট দলের প্রধান কোচ গৌতম গম্ভীর

ছবি

ফুটবল বিশ্বে আলো ছড়ানো শুরু ‘উদ্বাস্তু’ ইয়ামালের

ছবি

অস্ট্রেলিয়া সফরের এইচপি দল ঘোষণা

টিভিতে আজকের খেলা

ছবি

ডাচদের হারিয়ে শিরোপার মঞ্চে ইংলিশরা

ছবি

শেষ হলো ইনফিনিক্স ভিআর ক্রিকেট ক্যাম্পেইন

ছবি

টফিতে কোপা আমেরিকার সেমিফাইনাল ও ফাইনাল খেলা

ছবি

‘ব্রাজিল গ্রহের সবচেয়ে সফল দল, পরাজয়ও ইতিহাসের অংশ’

tab

খেলা

ভারতের স্বপ্ন ভেঙে ষষ্ঠবার চ্যাম্পিয়ন অস্ট্রেলিয়া

স্পোর্টস ডেস্ক

ট্রফি হাতে উল্লসিত চ্যাম্পিয়ন অস্ট্রেলিয়া

রোববার, ১৯ নভেম্বর ২০২৩

ভারতকে ৬ উইকেটে হারিয়ে বিশ্বকাপের ষষ্ঠ শিরোপা জিতে নিয়েছে অস্ট্রেলিয়া। লক্ষ্য খুব বড় ছিল না, ২৪১ রানের। তবে ছোট লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে শুরুতেই বিপদে পড়েছিল অস্ট্রেলিয়া। মোহাম্মদ শামি-জাসপ্রিত বুমরাহদের বোলিং তোপে ৪৭ রান তুলতেই তারা হারিয়ে বসে ৩ উইকেট।

তবে সেখান থেকে ঘুরে দাঁড়ায় অজিরা। ট্রাভিস হেড আর মার্নাস লাবুশেনের অবিচ্ছিন্ন শতরানের জুটিতে সহজেই জয়ের বন্দরে পৌঁছে যায় অস্ট্রেলিয়া। বিশ্বকাপ ফাইনালের রান তাড়ায় সর্বোচ্চ জুটি এখন হেড ও লাবুশেনের ১৭২ রান, সব মিলিয়ে ফাইনালে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ। বিশ্বকাপ ফাইনালে রান তাড়ায় দ্বিতীয় সেঞ্চুরি এটি। প্রথমটি ১৯৯৬ সালে করেছিলেন অরবিন্দ ডি সিলভা, অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষেই।

সিরাজের শর্ট বলে ডিপ মিডউইকেটে শুবমান গিলের হাতে ধরা পড়েন হেড। অস্ট্রেলিয়ার দরকার ছিল ২ রান। ৪৩তম ওভারের শেষ বলে সিরাজের বলে পুল করে জয়সুচক দুই রান নেন গ্লেন ম্যাক্সওয়েল।

দলীয় ১৬ রানের মাথায় প্রথম উইকেট হারায় অস্ট্রেলিয়া। ৩ বলে ৭ করে মোহাম্মদ শামির বলে খোঁচা দিতে গিয়ে স্লিপে ক্যাচ হন ডেভিড ওয়ার্নার। ১৫ বলে ১৫ করে মিচেল মার্শ হন জাসপ্রিত বুমরাহর শিকার। উইকেটরক্ষক নেন ক্যাচ।

এরপর মাত্র ৪ রান করে স্টিভেন স্মিথও বুমরাহর বলে এলবিডব্লিউ হলে চাপে পড়ে অস্ট্রেলিয়া। যদিও স্মিথ আউট ছিলেন না। বল বাইরে পিচ করেছিল। কিন্তু আম্পায়ার আউট দিলে আর রিভিউ নেননি স্মিথ।

এর আগে বিরাট কোহলি আর লোকেশ রাহুলের লড়াকু ফিফটির পরও পুরো ৫০ ওভার খেললে ২৪০ রানে গুটিয়ে গেছে ভারতের ইনিংস।

এবারের বিশ্বকাপে প্রথমে ব্যাটিং করতে নামা মানেই ভারতের ঝোড়ো সূচনা। ব্যত্যয় ঘটেনি ফাইনালেও। শুরুতে ওপেনার শুভমান গিলের (৭ বলে ৪) উইকেট হারিয়ে ফেললেও ঝোড়ো গতিতে রান তুলেছে ভারত।

রোহিত মারকুটে ভঙ্গিমায় এগিয়ে যাচ্ছিলেন। ছিলেন হাফ-সেঞ্চুরির দোরগোড়ায়। তবে ৩১ বলে ৪৭ করার পর গ্লেন ম্যাক্সওয়েলের বলে ট্রাভিস হেডের দুর্দান্ত এক ক্যাচ হয়ে সাজঘরে ফিরতে হয় ভারতীয় অধিনায়ককে। এরপরই ভারতকে চেপে ধরে অস্ট্রেলিয়া।

১০ ওভারে ২ উইকেটে ৮০ রান ছিল। এরপর টানা ১৬ ওভার কোনো বাউন্ডারি পায়নি ভারত। অবশেষে ২৭তম ওভারে এসে সেই বাউন্ডারিখরা কাটান লোকেশ রাহুল।

এর আগে নরেন্দ্র মোদী স্টেডিয়ামে টস জিতে বোলিং বেছে নেন অজি অধিনায়ক প্যাট কামিন্স। দলীয় ৩০ রানের মাথায় মিচেল স্টার্ক ফেরান শুভমান গিলকে (৭ বলে ৪)। এরপর কামিন্স দ্রুতই বোলিংয়ে নিয়ে আসেন গ্লেন ম্যাক্সওয়েলকে। তিনি এসেই সাফল্য উপহার দেন অস্ট্রেলিয়াকে। নিজের দ্বিতীয় এবং দলের ১০ম ওভারেই দ্বিতীয় উইকেট তুলে নেন ম্যাক্সওয়েল। সাজঘরে ফেরান রোহিত শর্মাকে।

ওভারের চতুর্থ বলে ম্যাক্সওয়েলকে ভালোভাবে খেলতে পারেননি রোহিত। শট খেলতে গেলেন তিনি। কিন্তু বল ব্যাটের কানায় লেগে উঠে যায় অফসাইডে। ট্রাভিস হেড কভার অঞ্চল থেকে পেছনে গিয়ে অসাধারণ একটি ক্যাচ ধরলেন। আউট হয়ে গেলেন রোহিত শর্মা। ৩১ বলে ৪৭ রান করলেন তিনি। দলীয় ৭৬ রানের মাথায় পড়লো দ্বিতীয় উইকেট।

এরপর ব্যাট করতে নামেন শ্রেয়াস আয়ার। আগের ম্যাচে সেঞ্চুরি করেছিলেন তিনি। কিন্তু একটি বাউন্ডারি মেরে তিনিও ফিরে গেলেন। প্যাট কামিন্সের বলে ব্যাটের কানায় লাগিয়ে উইকেটের পেছনে ক্যাচ দেন আয়ার। ৮১ রানের মাথায় পড়ে তৃতীয় উইকেট।

৮১ রানে ৩ উইকেট হারানোর পর বিরাট কোহলি আর লোকেশ রাহুল খোলসে ঢুকে পড়েন। দলকে এগিয়ে নিতে দাঁতে দাঁত চেপে ক্রিজে পড়ে থাকার চেষ্টা করেন তারা। চতুর্থ উইকেটে ১০৯ বল খেলে তারা ধীরগতিতে যোগ করেন ৬৭ রান।

অবশেষে এই জুটিটি ভেঙে দেন প্যাট কামিন্স। ভারতীয় দলের ব্যাটিং ভরসা বিরাট কোহলি তার দুর্দান্ত ডেলিভারিতে ইনসাইডেজ হয়ে বোল্ড হয়েছেন। ৬৩ বলে ৪ বাউন্ডারিতে কোহলির দায়িত্বশীল ইনিংসটি ছিল ৫৪ রানের।

রবীন্দ্র জাদেজা সুবিধা করতে পারেননি। ২২ বলে ৯ রান করে হ্যাজেলউডের বলে উইকেটরক্ষককে ক্যাচ দেন তিনি। ১৭৮ রানে ৫ উইকেট হারায় ভারত।

সেখান থেকে দলকে টেনে তোলার চেষ্টা করেছেন লোকেশ রাহুল। বেশ ধীরগতিতে ব্যাটিং করেছেন তিনি। অবশেষে ধীরগতির রাহুলকে সাজঘরের পথ দেখান মিচেল স্টার্ক।

৬৬ রান করে উইকেটরক্ষকের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন রাহুল। ১০৭ বলের ইনিংসে মাত্র একটি বাউন্ডারি হাকান তিনি। এরপর মোহাম্মদ শামিকেও (৬) সাজঘরে ফেরান স্টার্ক। ২১১ রানে ৭ উইকেট হারায় ভারত।

এরপর আর বেশিদূর এগোতে পারেনি ভারত। শেষ স্বীকৃত ব্যাটার সূর্যকুমারের ওপর ভরসা ছিল। তিনিও ২৮ বলে ১৮ রান করে সাজঘরে ফিরে যান।

ইনিংসের শেষ বলে মোহাম্মদ সিরাজ দুই নিতে গেলে রানআউটের কবলে পড়েন কুলদ্বীপ যাদব। তাতেই ২৪০ রানে অলআউট হয়ে যায় ভারত।

অস্ট্রেলিয়ার মিচেল স্টার্ক ৩টি, প্যাট কামিন্স আর জস হ্যাজেলউড নেন ২টি করে উইকেট।

ভারত জিতে এসেছিল টানা ১০ ম্যাচ, টুর্নামেন্টে অপরাজিত ছিল তারা, যে জয়ের ধারা শুরু হয়েছিল ৮ অক্টোবর চেন্নাইয়ে অস্ট্রেলিয়াকে হারিয়েই। ভারতের পর দক্ষিণ আফ্রিকার কাছে হেরে পয়েন্ট তালিকার তলানীতে চলে গিয়েছিল অস্ট্রেলিয়া। ভারতের জয়রথ ছুটেছে, অস্ট্রেলিয়া খাদের কিনার থেকে ঘুরে দাঁড়িয়ে পেরিয়ে এসেছে একের পর এক বাধা। সর্বশেষ সেমিফাইনালেও দক্ষিণ আফ্রিকার সঙ্গে কঠিন লড়াই করে আসতে হয়েছে তাদের।

কিন্তু অস্ট্রেলিয়া বিশ্বকাপের সবচেয়ে সফল দল। সেই অস্ট্রেলিয়ার কাছে থমকে গেল ভারত। এবারের বিশ্বকাপে ১১তম ম্যাচে এসে প্রথম হারের স্বাদ পেল রোহিত শর্মার ভারত। সেটিও ঘরের মাঠে ১ লাখ ৩০ হাজার সমর্থকের সামনে।

back to top