alt

খেলা

পাকিস্তানের স্বপ্ন গুড়িয়ে ‘বিশ্বচ্যাম্পিয়ন’ ইংল্যান্ড

সংবাদ স্পোর্টস ডেস্ক: : রোববার, ১৩ নভেম্বর ২০২২

পাকিস্তানের স্বপ্ন ভেঙ্গে দ্বিতীয়বারের মত আইসিসি টি-২০ বিশ্বকাপের শিরোপা ঘরে তুলেছে ইংলিশরা। এ জয়ে ভারতের পর পাকিস্তানকেও ইংল্যান্ডের কাছে নতি স্বীকার করে আরও একবার আশাহত হয়ে ফিরতে হচ্ছে দেশে। পাকিস্তানকে ৫ উইকেটে হারিয়ে ১২ বছর পর চ্যাম্পিয়ন হলো ইংল্যান্ড।

রোববার মেলবোর্ন ক্রিকেট গ্রাউন্ডে আগে ব্যাটে করে ৮ উইকেটে পাকিস্তানের ইনিংস থামে ১৩৭ রানে। জবাবে বেন স্টোকসের অপরাজিত হাফ সেঞ্চুরিতে ৫ উইকেট ও ৬ বল হাতে রেখে জয় তুলে নেয় ইংলিশরা। স্টোকস ৪৯ বলে ৫ চার ও ১ ছক্কায় ৫২ রানে অপরাজিত থাকেন। তার সঙ্গে মঈন আলি করেন ১৩ বলে ১৯ রান।

টি-২০ বিশ্বকাপের অষ্টম আসরের ফাইনাল ম্যাচে পাকিস্তানকে তুলনা করা হচ্ছিল ইমরান খানের ১৯৯২ বিশ্বকাপ জেতা দলটির সঙ্গে। কিন্তু ২০১৯ ওয়ানডে বিশ্বকাপ জয়ী ইংল্যান্ড তা হতে দিলে তো? কঠিন করে হলেও ম্যাচটা ৫ উইকেট জিতে সংক্ষিপ্ততম ফরম্যাটের দ্বিতীয় ট্রফি ঘরে তুলেছে ইংলিশ দল।

এদিন মেলবোর্ন ক্রিকেট গ্রাউন্ডে টস জিতে পাকিস্তানকে ব্যাটিংয়ে পাঠায় ইংল্যান্ড। এরপর পাওয়ার প্লেতে পুরো সময়ই দাপট দেখায় ইংল্যান্ড। এর মধ্যে পঞ্চম ওভারে রিজওয়ানকে হারায় পাকিস্তান। স্যাম কারানের অফ স্টাম্পের অনেক বাইরে বলে ব্যাট চালিয়ে দেন রিজওয়ান। কিন্তু টাইমিং ঠিক ছিল না তার। ব্যাটের কানায় লেগে বল আঘাত হানে লেগ স্টাম্পে। এক ছক্কায় ১৪ বলে ১৫ রান করে বিদায় নেন পাকিস্তান ওপেনার। ১ উইকেট হারিয়ে পাওয়ার প্লেতে মাত্র ৩৯ রান তোলে পাকিস্তান।

পাওয়ার প্লের পর আরেকটি ধাক্কা খায় পাকিস্তান। অষ্টম ওভারে আক্রমণে এসেই মোহাম্মদ হারিসকে নিজের শিকার বানান আদিল রশিদ। ইংলিশ তারকার ঝুলিয়ে দেওয়া বলে উইকেট থেকে বেরিয়ে এসে উড়িয়ে মারেন হারিস। কিন্তু ঠিকঠাক মারতে পারেননি। বল চলে যায় লং অনে। সেখানে থাকা বেন স্টোকস সেটা লুফে নেন। ১২ বলে ৮ করে ফেরেন হারিস।

মাঝে বাবর আজমের সঙ্গে আশা জাগান শান মাসুদ। কিন্তু এই জুটিও ভেঙে দিলেন রশিদ। ১২তম ওভারে পাকিস্তান অধিনায়ককে ফাঁদে ফেলেন তিনি। উইকেটে রান নিতে ভুগতে থাকা বাবর চেষ্টা করছিলেন ইনিংস মেরামতের। উইকেটে থিতুও হয়ে গিয়েছিলেন। আদিল রশিদ তাকে ইনিংস বড় করতে দিলেন না। ১২তম ওভারে মেডেন উইকেট নিয়ে পাকিস্তান তারকাকে বিদায় করেন তিনি। ২৮ বলে ৩২ রান করে সাজঘরের পথে হাঁটেন বাবর।

উইকেটে আসা ইফতেখার প্রথম ৫ বলেই রান নিতে ব্যর্থ হন। ষষ্ঠ বলে তিনিও উইকেট উপহার দেন। শূন্যতে তাকে বিদায় করে উৎসবে মাতেন স্টোকস।

একের পর এক উইকেট হারিয়ে মেলবোর্নে শুধু হতাশাই দেখছিল পাকিস্তান। এই হতাশার মাঝে আশার আলো হয়ে লড়াই করেন শান মাসুদ। জুটি গড়ার চেষ্টা করে দলকে পথ দেখান তিনি। কিন্তু আশাও মিলিয়ে দেন কারান। নিজের দ্বিতীয় স্পেলে বল হাতে এসেই থামান শানকে। তরুণ পেসারের বলে মিডউইকেটে ক্যাচ তুলে দেন শান। সেখান থেকা লিয়াম ভুল করেননি ক্যাচ ধরতে। এরপর বাকি সময় আর রানে ফেরার পথ পায় পাকিস্তান। ফরে শেষ পর্যন্ত অল্প পুঁজি নিয়েই সন্তুষ্ট থাকতে হলো বাবরকে।

বল হাতে ইংল্যান্ডের হয়ে মাত্র ১২ রান খরচায় তিনটি উইকেট নেন স্যাম কারান। ২২ রান খরচায় দুটি উইকেট নেন আদিল রশিদ। সমান দুটি নেন ক্রিস জর্ডান। একটি নেন বেন স্টোকস।

শুরুতে ১৩৮ রানের লক্ষ্যটা মামুলী মনে হচ্ছিল। কিন্তু পাকিস্তানের বোলিং লাইন আপে সেটাই কঠিন হয়ে দাঁড়ায় ইংলিশদের সামনে। প্রথম ওভারেই অ্যালেক্স হেলসের (১) উইকেট নিয়ে ইংল্যান্ডকে কাঁপিয়ে দেন শাহীন। তাতেও ঝামেলা ছিল না। ফিল সল্ট আর বাটলার মিলে সেই ধাক্কা সামাল দিচ্ছিলেন। কিন্তু পাওয়ার প্লের মাঝেই এই ব্যাটারদের বিদায় দিয়ে ম্যাচের নিয়ন্ত্রণ নিতে পেরেছিল পাকিস্তান দল। যার পুরো কৃতিত্ব হারিস রউফের। শুরুতে সল্টকে (১০) ফিরিয়েছেন। তার পর বিপজ্জনক বাটলারকেও গ্লাভসবন্দী করালে অন্যরকম ইঙ্গিত মিলতে থাকে।

কঠিন চাপে পড়ে যাওয়া দলটিকে তখন থেকেই সামলে নিয়েছেন বেন স্টোকস। হ্যারি ব্রুককে নিয়ে শুরুতে ৩৯ রান যোগ করেছেন। শাদাব খান ২৩ বলে ২০ রান করা ব্রুককে ফিরিয়ে জুটি ভাঙলে ইংলিশদের চাপ বাড়ে আরও। কিন্তু ওয়ানডে বিশ্বকাপ জেতানো স্টোকস কক্ষপথচ্যুত হতে দেননি দলকে। মঈন আলীকে নিয়ে ৪৭ রানের গুরুত্বপূর্ণ জুটিতেই জয়টাকে নিয়ে আসেন দৃষ্টিসীমানায়।

১৮.২ ওভারে মঈন যখন আউট হন, তখন ১১ বলে ৬ রান প্রয়োজন ইংল্যান্ডের। মঈন দলকে জয়ের দুয়ারে পৌঁছে দিয়ে ১২ বলে ১৯ রানে ফিরেছেন। তার পর তো ওভারের ষষ্ঠ বলেই স্টোকসের ব্যাটে জয়ের আনন্দে ভাসে ইংল্যান্ড।

সংক্ষিপ্ত স্কোর

পাকিস্তান : ২০ ওভারে ১৩৭/৮ (রিজওয়ান ১৫, বাবর ৩২, হারিস ৮, ইফতেখার ০, শান ৩৮, শাদাব ২০, নওয়াজ ৫, ওয়াসিম ৪, আফ্রিদি ৫, রউফ ১ ; কারান ৪-০-১২-৩, রশিদ ৪-১-২২-২, স্টোকস ৪-০-৩২-১, লিয়াম ১-০-১৬-০, জর্ডান ৪-০-২৭-২ , ওকস ৩-০-২৬-০)।

ইংল্যান্ড : ১৯ ওভারে ১৩৮/৫ (হেলস ১, বাটলার ২৬, সল্ট ১০, ব্রুক ২০, স্টোকস ৫২, মঈন ১৯, লিয়াম ১; আফ্রিদি ২.১-০-১৩-১, নাসিম ৪-০-৩০-০, রউফ ৪-০-২৩-২, ইফতেখার ০.৫-০-১৩-০, শাদাব ৪-০-২০-১, ওয়াসিম ৪-০-৩৮-১)।

ফল : ৫ উইকেটে জয়ী ইংল্যান্ড।

বিশ্বকাপ চ্যাম্পিয়ন : ইংল্যান্ড।

ছবি

রোহিত-কোহলিকে ফেরালেন সাকিব

ছবি

কোরিয়ার বিপক্ষেই ফিরছেন নেইমার ও দানিলো

টিভিতে আজকের খেলার সূচি

ছবি

অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে প্রত্যাশিত জয়ে শেষ আটে আর্জেন্টিনা

ছবি

সেনেগালকে হারিয়ে এগিয়ে যাওয়া লক্ষ্য ইংল্যান্ডের

ছবি

ইনজুরিতে ব্রাজিলের আরও দুই ফুটবলার

ছবি

গোল পার্থক্যে ছিটকে যাওয়ায় হতাশ সুয়ারেজ

ছবি

মাঠে মেজাজ হারালেন রোনালদো

ছবি

আমেরিকাকে বিদায় করে শেষ আটে নেদারল্যান্ডস

ছবি

শুরু হচ্ছে নকআউট পর্ব, কে কার প্রতিপক্ষ

ছবি

ক্যামেরুনের কাছে হেরেও গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন ব্রাজিল

টিভিতে আজকের খেলার সূচি

ছবি

পর্তুগালকে হারিয়ে শেষ ষোলতে কোরিয়া

ছবি

‘নকআউট পর্বে’ নেইমারকে পাওয়ার আশায় ব্রাজিল

ছবি

বাংলাদেশের মানুষ ‘আমাদের মতই পাগল’, আর্জেন্টিনা দলের টুইট

ছবি

বিশ্বকাপ ব্যর্থতায় পদত্যাগ করলেন বেলজিয়ামের কোচ

টিভিতে আজকের খেলার সূচি

ছবি

কোস্টারিকাকে হারিয়েও জার্মানির বিদায়

ছবি

স্পেনকে হারিয়ে নক আউটে জাপান

ছবি

রোনালদোদের হারিয়ে নক-আউটে পৌঁছানোর লক্ষ্য কোরিয়ার

ছবি

পোলিশ দুর্গ গুঁড়িয়ে মেসির স্বপ্ন অটুট, শেষ ষোলোয় আর্জেন্টিনা

ছবি

মেসির কথায় ফল পেয়েছি : অ্যালিস্টার

ছবি

মেক্সিকো জিতেও বিদায়

ছবি

বেলজিয়ামকে বিদায় দিয়ে ক্রোয়েশিয়া নক আউট পর্বে

ছবি

শেষ ষোলোতে কে হচ্ছে ব্রাজিলের প্রতিপক্ষ

ছবি

দলকে জিতিয়ে হাসপাতালে পুলিচিস

ছবি

ম্যারাডোনাকে ছাড়িয়ে মেসির নতুন রেকর্ড

ছবি

সন্ধ্যায় বাংলাদেশে আসছে কোহলি-রোহিতরা

টিভিতে আজকের খেলার সূচি

ছবি

ম্যাচ জিতে আর্জেন্টিনা এবং হেরেও পোল্যান্ড নক আউটে

ছবি

তিউনিসিয়ার কাছে হেরেও গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন ফ্রান্স

ছবি

বেলজিয়ামের তেমন সম্ভাবনা দেখছেন না : ব্রুইন

ছবি

‘স্টেডিয়ামের এসি ব্যবস্থায় কাশি ও গলার সমস্যা’

ছবি

বিশ্বকাপের ইতিহাসে সবচেয়ে বাজে স্বাগতিক কাতারের বিদায়

ছবি

জার্মানি-কোস্টারিকা ম্যাচ চালাবেন নারী রেফারি

ছবি

‘লিও এবার বিশ্বকাপ জিতবে’

tab

খেলা

পাকিস্তানের স্বপ্ন গুড়িয়ে ‘বিশ্বচ্যাম্পিয়ন’ ইংল্যান্ড

সংবাদ স্পোর্টস ডেস্ক:

রোববার, ১৩ নভেম্বর ২০২২

পাকিস্তানের স্বপ্ন ভেঙ্গে দ্বিতীয়বারের মত আইসিসি টি-২০ বিশ্বকাপের শিরোপা ঘরে তুলেছে ইংলিশরা। এ জয়ে ভারতের পর পাকিস্তানকেও ইংল্যান্ডের কাছে নতি স্বীকার করে আরও একবার আশাহত হয়ে ফিরতে হচ্ছে দেশে। পাকিস্তানকে ৫ উইকেটে হারিয়ে ১২ বছর পর চ্যাম্পিয়ন হলো ইংল্যান্ড।

রোববার মেলবোর্ন ক্রিকেট গ্রাউন্ডে আগে ব্যাটে করে ৮ উইকেটে পাকিস্তানের ইনিংস থামে ১৩৭ রানে। জবাবে বেন স্টোকসের অপরাজিত হাফ সেঞ্চুরিতে ৫ উইকেট ও ৬ বল হাতে রেখে জয় তুলে নেয় ইংলিশরা। স্টোকস ৪৯ বলে ৫ চার ও ১ ছক্কায় ৫২ রানে অপরাজিত থাকেন। তার সঙ্গে মঈন আলি করেন ১৩ বলে ১৯ রান।

টি-২০ বিশ্বকাপের অষ্টম আসরের ফাইনাল ম্যাচে পাকিস্তানকে তুলনা করা হচ্ছিল ইমরান খানের ১৯৯২ বিশ্বকাপ জেতা দলটির সঙ্গে। কিন্তু ২০১৯ ওয়ানডে বিশ্বকাপ জয়ী ইংল্যান্ড তা হতে দিলে তো? কঠিন করে হলেও ম্যাচটা ৫ উইকেট জিতে সংক্ষিপ্ততম ফরম্যাটের দ্বিতীয় ট্রফি ঘরে তুলেছে ইংলিশ দল।

এদিন মেলবোর্ন ক্রিকেট গ্রাউন্ডে টস জিতে পাকিস্তানকে ব্যাটিংয়ে পাঠায় ইংল্যান্ড। এরপর পাওয়ার প্লেতে পুরো সময়ই দাপট দেখায় ইংল্যান্ড। এর মধ্যে পঞ্চম ওভারে রিজওয়ানকে হারায় পাকিস্তান। স্যাম কারানের অফ স্টাম্পের অনেক বাইরে বলে ব্যাট চালিয়ে দেন রিজওয়ান। কিন্তু টাইমিং ঠিক ছিল না তার। ব্যাটের কানায় লেগে বল আঘাত হানে লেগ স্টাম্পে। এক ছক্কায় ১৪ বলে ১৫ রান করে বিদায় নেন পাকিস্তান ওপেনার। ১ উইকেট হারিয়ে পাওয়ার প্লেতে মাত্র ৩৯ রান তোলে পাকিস্তান।

পাওয়ার প্লের পর আরেকটি ধাক্কা খায় পাকিস্তান। অষ্টম ওভারে আক্রমণে এসেই মোহাম্মদ হারিসকে নিজের শিকার বানান আদিল রশিদ। ইংলিশ তারকার ঝুলিয়ে দেওয়া বলে উইকেট থেকে বেরিয়ে এসে উড়িয়ে মারেন হারিস। কিন্তু ঠিকঠাক মারতে পারেননি। বল চলে যায় লং অনে। সেখানে থাকা বেন স্টোকস সেটা লুফে নেন। ১২ বলে ৮ করে ফেরেন হারিস।

মাঝে বাবর আজমের সঙ্গে আশা জাগান শান মাসুদ। কিন্তু এই জুটিও ভেঙে দিলেন রশিদ। ১২তম ওভারে পাকিস্তান অধিনায়ককে ফাঁদে ফেলেন তিনি। উইকেটে রান নিতে ভুগতে থাকা বাবর চেষ্টা করছিলেন ইনিংস মেরামতের। উইকেটে থিতুও হয়ে গিয়েছিলেন। আদিল রশিদ তাকে ইনিংস বড় করতে দিলেন না। ১২তম ওভারে মেডেন উইকেট নিয়ে পাকিস্তান তারকাকে বিদায় করেন তিনি। ২৮ বলে ৩২ রান করে সাজঘরের পথে হাঁটেন বাবর।

উইকেটে আসা ইফতেখার প্রথম ৫ বলেই রান নিতে ব্যর্থ হন। ষষ্ঠ বলে তিনিও উইকেট উপহার দেন। শূন্যতে তাকে বিদায় করে উৎসবে মাতেন স্টোকস।

একের পর এক উইকেট হারিয়ে মেলবোর্নে শুধু হতাশাই দেখছিল পাকিস্তান। এই হতাশার মাঝে আশার আলো হয়ে লড়াই করেন শান মাসুদ। জুটি গড়ার চেষ্টা করে দলকে পথ দেখান তিনি। কিন্তু আশাও মিলিয়ে দেন কারান। নিজের দ্বিতীয় স্পেলে বল হাতে এসেই থামান শানকে। তরুণ পেসারের বলে মিডউইকেটে ক্যাচ তুলে দেন শান। সেখান থেকা লিয়াম ভুল করেননি ক্যাচ ধরতে। এরপর বাকি সময় আর রানে ফেরার পথ পায় পাকিস্তান। ফরে শেষ পর্যন্ত অল্প পুঁজি নিয়েই সন্তুষ্ট থাকতে হলো বাবরকে।

বল হাতে ইংল্যান্ডের হয়ে মাত্র ১২ রান খরচায় তিনটি উইকেট নেন স্যাম কারান। ২২ রান খরচায় দুটি উইকেট নেন আদিল রশিদ। সমান দুটি নেন ক্রিস জর্ডান। একটি নেন বেন স্টোকস।

শুরুতে ১৩৮ রানের লক্ষ্যটা মামুলী মনে হচ্ছিল। কিন্তু পাকিস্তানের বোলিং লাইন আপে সেটাই কঠিন হয়ে দাঁড়ায় ইংলিশদের সামনে। প্রথম ওভারেই অ্যালেক্স হেলসের (১) উইকেট নিয়ে ইংল্যান্ডকে কাঁপিয়ে দেন শাহীন। তাতেও ঝামেলা ছিল না। ফিল সল্ট আর বাটলার মিলে সেই ধাক্কা সামাল দিচ্ছিলেন। কিন্তু পাওয়ার প্লের মাঝেই এই ব্যাটারদের বিদায় দিয়ে ম্যাচের নিয়ন্ত্রণ নিতে পেরেছিল পাকিস্তান দল। যার পুরো কৃতিত্ব হারিস রউফের। শুরুতে সল্টকে (১০) ফিরিয়েছেন। তার পর বিপজ্জনক বাটলারকেও গ্লাভসবন্দী করালে অন্যরকম ইঙ্গিত মিলতে থাকে।

কঠিন চাপে পড়ে যাওয়া দলটিকে তখন থেকেই সামলে নিয়েছেন বেন স্টোকস। হ্যারি ব্রুককে নিয়ে শুরুতে ৩৯ রান যোগ করেছেন। শাদাব খান ২৩ বলে ২০ রান করা ব্রুককে ফিরিয়ে জুটি ভাঙলে ইংলিশদের চাপ বাড়ে আরও। কিন্তু ওয়ানডে বিশ্বকাপ জেতানো স্টোকস কক্ষপথচ্যুত হতে দেননি দলকে। মঈন আলীকে নিয়ে ৪৭ রানের গুরুত্বপূর্ণ জুটিতেই জয়টাকে নিয়ে আসেন দৃষ্টিসীমানায়।

১৮.২ ওভারে মঈন যখন আউট হন, তখন ১১ বলে ৬ রান প্রয়োজন ইংল্যান্ডের। মঈন দলকে জয়ের দুয়ারে পৌঁছে দিয়ে ১২ বলে ১৯ রানে ফিরেছেন। তার পর তো ওভারের ষষ্ঠ বলেই স্টোকসের ব্যাটে জয়ের আনন্দে ভাসে ইংল্যান্ড।

সংক্ষিপ্ত স্কোর

পাকিস্তান : ২০ ওভারে ১৩৭/৮ (রিজওয়ান ১৫, বাবর ৩২, হারিস ৮, ইফতেখার ০, শান ৩৮, শাদাব ২০, নওয়াজ ৫, ওয়াসিম ৪, আফ্রিদি ৫, রউফ ১ ; কারান ৪-০-১২-৩, রশিদ ৪-১-২২-২, স্টোকস ৪-০-৩২-১, লিয়াম ১-০-১৬-০, জর্ডান ৪-০-২৭-২ , ওকস ৩-০-২৬-০)।

ইংল্যান্ড : ১৯ ওভারে ১৩৮/৫ (হেলস ১, বাটলার ২৬, সল্ট ১০, ব্রুক ২০, স্টোকস ৫২, মঈন ১৯, লিয়াম ১; আফ্রিদি ২.১-০-১৩-১, নাসিম ৪-০-৩০-০, রউফ ৪-০-২৩-২, ইফতেখার ০.৫-০-১৩-০, শাদাব ৪-০-২০-১, ওয়াসিম ৪-০-৩৮-১)।

ফল : ৫ উইকেটে জয়ী ইংল্যান্ড।

বিশ্বকাপ চ্যাম্পিয়ন : ইংল্যান্ড।

back to top