alt

উপ-সম্পাদকীয়

কংক্রিট : নির্মাণ শক্তিমত্তার যৌগ

ত্রিয়মা রায়

: শুক্রবার, ১৭ নভেম্বর ২০২৩

সমকালীন নগরায়ণ আর অতীতের নগরসভ্যতা গড়ে ওঠার সঙ্গে একটি উপাদান খুব ঘনিষ্ঠভাবে জড়িত। পরম যত্নের সঙ্গে ওতপ্রোতভাবে জড়িয়ে থাকা এই উপাদানটি ‘কংক্রিট’। বর্তমান সময়ে কোনো বিলাসীতার আকর্ষণে নয়, জীবনযাত্রার প্রয়োজনে সচেতন প্রায় সবাই মানুষের মুখস্ত শব্দ ‘কংক্রিট’ এক ঐতিহাসিক বিবর্তনের যৌগ।

প্রাচীন সভ্যতায় নির্মাণযজ্ঞে এর দাপটে ব্যবহারের নিদর্শন পাওয়া যায়। মিশরের পিরামিড, রোমান সা¤্রাজ্যের স্থাপত্যশিল্পের গহিনের কলাকৌশলসমূহে নানা নামে, নানাভাবে কংক্রিট ব্যবহার হতো বলে নির্মাণ বিশেষজ্ঞরা তলিয়ে দেখেছেন।

সময়ের বিবর্তনে বর্তমান প্রেক্ষাপটে কংক্রিটের গুণগতমান আর স্থায়িত্ব নিয়ে ব্যাপক গবেষণা করা হচ্ছে। আবিষ্কারের মাধ্যমে সংযুক্ত হচ্ছে কংক্রিটের অন্দরমহলের কথকতা। এর অন্তর্নিহিত চালচ্চিত্রের গূঢ় গোপন রসায়ন যুক্ত হচ্ছে।

সাধারণভাবে সিমেন্ট, ইটের টুকরো বা খোয়া, কিংবা পাথর, বালি এবং পানির নির্দিষ্ট পরিমাণ সংমিশ্রণকে ব্যবহার উপযোগী করলেই তা কংক্রিটে পরিণত হয়। অতীতে মূল রাসায়নিক উপাদান সম্বন্ধে বিস্তারিতভাবে বিশদ জানা না থাকলেও চুনের পরিমাণগত ব্যবহার করে নির্মাণ মিশ্রণকে কঠিন শিলাতে পরিণত করা হতো।

আধুনিক যুগপরিক্রমায় প্রকৌশলবিদ্যায় ব্যাপক উন্নতির ফলে ‘চুন’ পরিবতর্তিত হয়ে ‘সিমেন্ট’ এবং সর্বশেষ ক্যালসিয়াম সিলিকেট, ট্রাইক্যালসিয়াম অ্যালুমিনেট, ক্যালসিয়াম অ্যালুমিনোফেরেট এবং জিপসাম নামক রাসায়নিক মৌলের প্রাণ-প্রকৃতি খোঁজা হয়। দৈর্ঘ্য-প্রস্থ, তাপ-চাপ, মাপ-পরিমাপ করে মিশ্রণ তৈরির মাধ্যমে কংক্রিটের শক্তিমত্তা স্থির করা হয়।

নির্মাণসামগ্রীর অপরিহার্য অনুসঙ্গ নিত্যদিনের ঘরকন্নার অংশ কংক্রিট প্রস্তুতির মিশ্রণ ‘মসলা’ সাধারণত চার ধরনের। সিভিল প্রকৌশলীরা নির্মাণকাঠামো বিশ্লেষণ করে কংক্রিট মিশ্রণ তৈরি করে থাকেন। মেঝে এবং রিটেইনিং ওয়াল, ব্লক ইত্যাদি কাজে ব্যবহারের জন্য সিমেন্ট বালি আর পানির মিশ্রণে ‘সিমেন্ট কংক্রিট’ তৈরি করেন। বিম, কলাম, স্ল্যাব, সানশেড, রেলিং, সিঁড়ি, পানির ট্যাঙ্ক বা সমপর্যায়ভুক্ত কাজে ব্যবহারের জন্য সিমেন্ট, বালি, ইটের খোয়া, অল্প শক্তির রড এবং পানি ব্যবহার করে ‘আরসিসি কংক্রিট’ তৈরি করেন, সাম্প্রতিককালে স্বল্পমাত্রায় ব্যবহারযোগ্য সাধারণত জল ছাদে ব্যবহার করার জন্য চুন, সুরকি, খোয়া, পানির মিশ্রণে তৈরি করেন ‘লাইম কংক্রিট’। ব্রিজ, স্ল্যাব, বিম, কলামসংশ্লিষ্ট কাজে ব্যবহার উপযোগী প্রি-‘স্ট্রেসড কংক্রিট’ তৈরিতে ব্যবহৃত হয় উন্নতমানের স্টিল, সিমেন্ট, বালি, খোয়া আর পানি।

নগরকেন্দ্রিক নান্দনিকতা আর সময়োপযুক্ত আধুনিক নির্মাণশৈলীর কংক্রিট ব্যবহারের তদারকি, পরামর্শ, গবেষণা, শিক্ষা, প্রশিক্ষণ, প্রযুক্তিসংযোজন, মাননিশ্চিতকরণ এবং নির্মাণ দৃঢ় করণের অঙ্গীকার নিয়ে প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে ‘আমেরিকান কংক্রিট ইনস্টিটিউট’-এসিআই। বিশ্বব্যাপী মানসম্মত নির্মাণ উন্নয়ন চিন্তা করে অলাভজনক প্রযুক্তি সহায়তার এই প্রতিষ্ঠান ১৯০৫ খ্রিস্টাব্দে প্রতিষ্ঠা করা হয়। আমেরিকার মিশিগান অঙ্গরাজ্যে প্রধান কার্যালয়ের মাধ্যমে সারা বিশ্বের সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং এর সমগ্র শাখা-প্রশাখা নির্মাণসামগ্রী, বিশেষ করে কংক্রিট বিষয়ে গবেষণা, মানযাচাই, শিক্ষা ও সনদ দিয়ে অনন্য অবদান রাখছে। ১৯১০ খ্রিস্টাব্দে এসিআই স্ট্যান্ডার্ড বিল্ডিং কোড প্রণয়ন করে। ১৯১২ খ্রিস্টাব্দে তারা ১৪ দফা নীতিমালা তৈরি করে। পুরো নির্মাণব্যবস্থায় বৈপ্লবিক পরিবর্তন সংযোজন করে। আন্তর্জাতিকতাকে ধারণ করে দীর্ঘ এই সময়ে তাদের কাজের পরিধি ও গতির ডালপালা ব্যাপক-বিস্তৃত হয়েছে। সংযুক্ত আরব আমিরাতের দুবাই শহরে আঞ্চলিক কার্যালয় স্থাপন, ক্যালফোর্নিয়া ও শিকাগোতে গবেষণা প্রতিষ্ঠান প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে নির্মাণের বিশ্ববিবেকে পরিণত হয়েছে।

দেশকাল চিহ্নিত করে বর্তমানে বিশ্বের ১২০টি দেশে এসিআই-এর ৯৪টি প্রধান শাখা, ২৪৪টি ছাত্রশাখায় ৩০ হাজারের অধিক সদস্য টেকসই নির্মাণের দ্যুতি ছড়াচ্ছে। মর্যাদাপূর্ণ এই সংগঠনের চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়-চুয়েটের ছাত্রশাখা সরাসরি সমান্তরালভাবে প্রশংসার সঙ্গে এসিআই-এর কার্যক্রমে সৃষ্টিশীল সব ভূমিকা রাখছে। রূপক-প্রতীকের আদলে নয়। নিষ্ঠাপূর্ণ, যুক্তিযুক্ত, পরিশ্রমী, ত্যাগী আর মানসম্মত কাজের মূল্যায়ন করে জানুয়ারি ২০১৯ খ্রিস্টাব্দে ‘চুয়েট ছাত্রশাখা’কে এসিআই তাদের সহযোগী সংস্থা হিসেবে আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি দিয়েছে।

চুয়েট শাখার মৌলিক কর্মকান্ডের ভূয়সী প্রশংসা করে নানাভাবে সহযোগিতা করছে। কংক্রিট নিয়ে আন্তর্জাতিকমানের নির্মাণ জগতে প্রবেশ করতে শিক্ষার্থীদের জ্ঞান, দক্ষতা, দায়িত্ববোধ, মর্যাদাবোধ সর্বপোরি নেতৃত্বের গুণাবলী অর্জনে বাস্তবানুগধর্মী সহযোগিতা করে যাচ্ছে।

[লেখক: শিক্ষার্থী, পানিসম্পদ কৌশল বিভাগ, চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়-চুয়েট]

গণতন্ত্র কি তাহলে বিদায়ের পথে

কাঁঠাল হতে পারে রপ্তানি বাণিজ্যের নতুন দিগন্ত

ছবি

প্রাণের মেলা

গণতন্ত্র কি তাহলে বিদায়ের পথে

সর্বস্তরে বাংলার ব্যবহার নিশ্চিত হোক

সাঁওতালী ভাষা বিতর্ক এবং উত্তরবঙ্গের আদিবাসী

ভাষা আন্দোলনের সূতিকাগার রাজধানীর আজিমপুর

ছবি

ভাষা আন্দোলন ও বাঙালির নবজাগরণ

খুলনায় একুশে বইমেলার মুগ্ধতা

মধুরতম ভাষা ও রক্তাক্ত বাংলা

উৎসব ও প্রথার বিবর্তন

চুরমার ফিলিস্তিন ও খাদ্য রাজনীতি

কুষ্ঠজনিত মানবাধিকার লঙ্ঘন রোধে করণীয়

যুব ক্ষমতায়ন স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণকে ত্বরান্বিত করবে

লাইব্রেরির ভবিষ্যৎ ও ভবিষ্যতের লাইব্রেরি

একজীবনে অনেক বছর বেঁচে থেকেও নিজেকে চেনা হয়ে ওঠে না

“ছুরি-কাঁটা ও নব্যধনী”

পশ্চিমবঙ্গের রাজনীতিতে সন্দেশখালি লাইন

শিশুরও হতে পারে ক্যান্সার, প্রতিরোধে প্রয়োজন সমন্বিত উদ্যোগ

চিকিৎসা নিতে কেন ভারতে গিয়েছিলাম

ইসরায়েলের গণহত্যা, দক্ষিণ আফ্রিকার মামলা

বিজ্ঞানচর্চার কেন্দ্রবিন্দু গণিত

ছবি

সুন্দরবন কি আরেকটু বেশি মনোযোগ পেতে পারে না

নিজেকে বরং নিজেই প্রশ্ন করতে শিখুন

গড়ে উঠুক সুষ্ঠু বর্জ্য ব্যবস্থাপনা

ছবি

বিদ্যা দেবী মা সরস্বতী

বিশ্ব বেতার দিবস ও বাংলাদেশ বেতার

কৃষিবিদ দিবস

ছয় বছরের অর্জন ও প্রত্যাশা

জলবায়ু সম্মেলন এবং নয়া উদারবাদী কর্তৃত্ব

জিআই সনদের সন্ধানে চাঁপাইনবাবগঞ্জ

নির্বাচন ও সামাজিক অস্থিরতা

ছবি

খাদ্যে আমদানিনির্ভরতা থেকে বেরোনোর পথ কী

ছবি

ট্রাম্প দ্রুত এগিয়ে যাচ্ছেন, তবে পথ মসৃণ নয়

দুর্নীতিবাজদের খতম করা যাবে কি?

মূল্যস্ফীতি কমবে কীভাবে

tab

উপ-সম্পাদকীয়

কংক্রিট : নির্মাণ শক্তিমত্তার যৌগ

ত্রিয়মা রায়

শুক্রবার, ১৭ নভেম্বর ২০২৩

সমকালীন নগরায়ণ আর অতীতের নগরসভ্যতা গড়ে ওঠার সঙ্গে একটি উপাদান খুব ঘনিষ্ঠভাবে জড়িত। পরম যত্নের সঙ্গে ওতপ্রোতভাবে জড়িয়ে থাকা এই উপাদানটি ‘কংক্রিট’। বর্তমান সময়ে কোনো বিলাসীতার আকর্ষণে নয়, জীবনযাত্রার প্রয়োজনে সচেতন প্রায় সবাই মানুষের মুখস্ত শব্দ ‘কংক্রিট’ এক ঐতিহাসিক বিবর্তনের যৌগ।

প্রাচীন সভ্যতায় নির্মাণযজ্ঞে এর দাপটে ব্যবহারের নিদর্শন পাওয়া যায়। মিশরের পিরামিড, রোমান সা¤্রাজ্যের স্থাপত্যশিল্পের গহিনের কলাকৌশলসমূহে নানা নামে, নানাভাবে কংক্রিট ব্যবহার হতো বলে নির্মাণ বিশেষজ্ঞরা তলিয়ে দেখেছেন।

সময়ের বিবর্তনে বর্তমান প্রেক্ষাপটে কংক্রিটের গুণগতমান আর স্থায়িত্ব নিয়ে ব্যাপক গবেষণা করা হচ্ছে। আবিষ্কারের মাধ্যমে সংযুক্ত হচ্ছে কংক্রিটের অন্দরমহলের কথকতা। এর অন্তর্নিহিত চালচ্চিত্রের গূঢ় গোপন রসায়ন যুক্ত হচ্ছে।

সাধারণভাবে সিমেন্ট, ইটের টুকরো বা খোয়া, কিংবা পাথর, বালি এবং পানির নির্দিষ্ট পরিমাণ সংমিশ্রণকে ব্যবহার উপযোগী করলেই তা কংক্রিটে পরিণত হয়। অতীতে মূল রাসায়নিক উপাদান সম্বন্ধে বিস্তারিতভাবে বিশদ জানা না থাকলেও চুনের পরিমাণগত ব্যবহার করে নির্মাণ মিশ্রণকে কঠিন শিলাতে পরিণত করা হতো।

আধুনিক যুগপরিক্রমায় প্রকৌশলবিদ্যায় ব্যাপক উন্নতির ফলে ‘চুন’ পরিবতর্তিত হয়ে ‘সিমেন্ট’ এবং সর্বশেষ ক্যালসিয়াম সিলিকেট, ট্রাইক্যালসিয়াম অ্যালুমিনেট, ক্যালসিয়াম অ্যালুমিনোফেরেট এবং জিপসাম নামক রাসায়নিক মৌলের প্রাণ-প্রকৃতি খোঁজা হয়। দৈর্ঘ্য-প্রস্থ, তাপ-চাপ, মাপ-পরিমাপ করে মিশ্রণ তৈরির মাধ্যমে কংক্রিটের শক্তিমত্তা স্থির করা হয়।

নির্মাণসামগ্রীর অপরিহার্য অনুসঙ্গ নিত্যদিনের ঘরকন্নার অংশ কংক্রিট প্রস্তুতির মিশ্রণ ‘মসলা’ সাধারণত চার ধরনের। সিভিল প্রকৌশলীরা নির্মাণকাঠামো বিশ্লেষণ করে কংক্রিট মিশ্রণ তৈরি করে থাকেন। মেঝে এবং রিটেইনিং ওয়াল, ব্লক ইত্যাদি কাজে ব্যবহারের জন্য সিমেন্ট বালি আর পানির মিশ্রণে ‘সিমেন্ট কংক্রিট’ তৈরি করেন। বিম, কলাম, স্ল্যাব, সানশেড, রেলিং, সিঁড়ি, পানির ট্যাঙ্ক বা সমপর্যায়ভুক্ত কাজে ব্যবহারের জন্য সিমেন্ট, বালি, ইটের খোয়া, অল্প শক্তির রড এবং পানি ব্যবহার করে ‘আরসিসি কংক্রিট’ তৈরি করেন, সাম্প্রতিককালে স্বল্পমাত্রায় ব্যবহারযোগ্য সাধারণত জল ছাদে ব্যবহার করার জন্য চুন, সুরকি, খোয়া, পানির মিশ্রণে তৈরি করেন ‘লাইম কংক্রিট’। ব্রিজ, স্ল্যাব, বিম, কলামসংশ্লিষ্ট কাজে ব্যবহার উপযোগী প্রি-‘স্ট্রেসড কংক্রিট’ তৈরিতে ব্যবহৃত হয় উন্নতমানের স্টিল, সিমেন্ট, বালি, খোয়া আর পানি।

নগরকেন্দ্রিক নান্দনিকতা আর সময়োপযুক্ত আধুনিক নির্মাণশৈলীর কংক্রিট ব্যবহারের তদারকি, পরামর্শ, গবেষণা, শিক্ষা, প্রশিক্ষণ, প্রযুক্তিসংযোজন, মাননিশ্চিতকরণ এবং নির্মাণ দৃঢ় করণের অঙ্গীকার নিয়ে প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে ‘আমেরিকান কংক্রিট ইনস্টিটিউট’-এসিআই। বিশ্বব্যাপী মানসম্মত নির্মাণ উন্নয়ন চিন্তা করে অলাভজনক প্রযুক্তি সহায়তার এই প্রতিষ্ঠান ১৯০৫ খ্রিস্টাব্দে প্রতিষ্ঠা করা হয়। আমেরিকার মিশিগান অঙ্গরাজ্যে প্রধান কার্যালয়ের মাধ্যমে সারা বিশ্বের সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং এর সমগ্র শাখা-প্রশাখা নির্মাণসামগ্রী, বিশেষ করে কংক্রিট বিষয়ে গবেষণা, মানযাচাই, শিক্ষা ও সনদ দিয়ে অনন্য অবদান রাখছে। ১৯১০ খ্রিস্টাব্দে এসিআই স্ট্যান্ডার্ড বিল্ডিং কোড প্রণয়ন করে। ১৯১২ খ্রিস্টাব্দে তারা ১৪ দফা নীতিমালা তৈরি করে। পুরো নির্মাণব্যবস্থায় বৈপ্লবিক পরিবর্তন সংযোজন করে। আন্তর্জাতিকতাকে ধারণ করে দীর্ঘ এই সময়ে তাদের কাজের পরিধি ও গতির ডালপালা ব্যাপক-বিস্তৃত হয়েছে। সংযুক্ত আরব আমিরাতের দুবাই শহরে আঞ্চলিক কার্যালয় স্থাপন, ক্যালফোর্নিয়া ও শিকাগোতে গবেষণা প্রতিষ্ঠান প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে নির্মাণের বিশ্ববিবেকে পরিণত হয়েছে।

দেশকাল চিহ্নিত করে বর্তমানে বিশ্বের ১২০টি দেশে এসিআই-এর ৯৪টি প্রধান শাখা, ২৪৪টি ছাত্রশাখায় ৩০ হাজারের অধিক সদস্য টেকসই নির্মাণের দ্যুতি ছড়াচ্ছে। মর্যাদাপূর্ণ এই সংগঠনের চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়-চুয়েটের ছাত্রশাখা সরাসরি সমান্তরালভাবে প্রশংসার সঙ্গে এসিআই-এর কার্যক্রমে সৃষ্টিশীল সব ভূমিকা রাখছে। রূপক-প্রতীকের আদলে নয়। নিষ্ঠাপূর্ণ, যুক্তিযুক্ত, পরিশ্রমী, ত্যাগী আর মানসম্মত কাজের মূল্যায়ন করে জানুয়ারি ২০১৯ খ্রিস্টাব্দে ‘চুয়েট ছাত্রশাখা’কে এসিআই তাদের সহযোগী সংস্থা হিসেবে আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি দিয়েছে।

চুয়েট শাখার মৌলিক কর্মকান্ডের ভূয়সী প্রশংসা করে নানাভাবে সহযোগিতা করছে। কংক্রিট নিয়ে আন্তর্জাতিকমানের নির্মাণ জগতে প্রবেশ করতে শিক্ষার্থীদের জ্ঞান, দক্ষতা, দায়িত্ববোধ, মর্যাদাবোধ সর্বপোরি নেতৃত্বের গুণাবলী অর্জনে বাস্তবানুগধর্মী সহযোগিতা করে যাচ্ছে।

[লেখক: শিক্ষার্থী, পানিসম্পদ কৌশল বিভাগ, চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়-চুয়েট]

back to top