alt

উপ-সম্পাদকীয়

দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন

জিয়াউদ্দীন আহমেদ

: শনিবার, ২৫ নভেম্বর ২০২৩

আগামী ৭ জানুয়ারি দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। আওয়ামী লীগ নির্বাচনের তপশিল ঘোষণাকে স্বাগত জানিয়েছে, বিএনপি প্রত্যাখ্যান করেছে। আমেরিকা নির্বাচনের পূর্বে শর্তহীন আলাপ-আলোচনার সূত্রপাত ঘটাতে আওয়ামী লীগ, বিএনপি এবং জাতীয় পার্টিকে আহ্বান জানিয়ে চিঠি দিয়েছিল। আলাপ-আলোচনার জন্য পর্যাপ্ত সময় না থাকায় আওয়ামী লীগ আমেরিকার প্রস্তাব নাকচ করে প্রত্যুত্তর দিয়ে দিয়েছে।

আওয়ামী লীগ বা সরকারের সঙ্গে বিএনপি কখনো আলাপ-আলোচনা করতে চায়নি। শুধু তাই নয়, বিএনপি নির্বাচন কমিশনের ডাকেও সাড়া দেয়নি। বিএনপি ঠিকই করেছে; কারণ বিএনপি আওয়ামী লীগ সরকার এবং বর্তমান নির্বাচন কমিশনকে অবৈধ মনে করে, অবৈধ সরকার এবং নির্বাচন কমিশনের সঙ্গে বৈঠক করলে বিএনপির নৈতিক পতন হতো। তাদের একটা দাবিই ছিল, অবৈধ সরকারের পদত্যাগ এবং তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচন। বিএনপির কোন দাবি আপাতত পূরণ হচ্ছে না। ২০১১ সালে সুপ্রিমকোর্ট কর্তৃক তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা বাতিল হওয়ার পর আওয়ামী লীগ সংবিধান সংশোধন করে আদালতের আদেশের বাস্তবায়ন করে। অথচ নব্বইয়ের দশকে আওয়ামী লীগ ছিল তত্ত্বাবধায়ক সরকারের প্রধান দাবিদার। সুপ্রিমকোর্টের রায়ে আওয়ামী লীগ খুশি। কারণ ক্ষমতায় থেকে নির্বাচন করার মজা আলাদা। ক্ষমতায় থাকলে সুপ্রিমকোর্টের রায়ে বিএনপিও খুশি হতো। ক্ষমতায় থাকাকালীন ১৯৯৫ সালে হাইকোর্ট তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা অবৈধ বলে রায় দিলে বিএনপিও খুশি হয়েছিল। খুশি হয়েছিল বলেই বিএনপি ১৯৯১-৯৫ মেয়াদে তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা প্রবর্তন সংক্রান্ত বিল সংসদে উত্থাপন করেনি। এই অবস্থায় আওয়ামী লীগ ও জামায়াত ১৯৯৩ সালে তত্ত্বাবধায়ক সরকারসংক্রান্ত দুটি বিল সংসদে উপস্থাপন করে। বিএনপি তখন তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থাকে অসাংবিধানিক ও অবাস্তব বলে ঘোষণা করে।

খালেদা জিয়া বলতে থাকেন, একমাত্র পাগল ও শিশু ছাড়া আর কোন মানুষের পক্ষে নিরপেক্ষ হওয়া সম্ভব নয়। অথচ এখন বিএনপি বলছে তত্ত্বাবধায়ক সরকার ছাড়া তারা নির্বাচনে যাবেই না। বিএনপি তত্ত্বাবধায়ক সরকারের ব্যবস্থা না করেই তাদের পাঁচ বছরের শাসনামল শেষ করে এবং বিরোধী দলগুলোর অংশগ্রহণ ব্যতিরেকেই ১৯৯৬ সালের ফেব্রুয়ারির জাতীয় সংসদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। সংসদে বিরোধীদলীয় উপনেতা হন বঙ্গবন্ধুর খুনি কর্নেল আবদুর রশীদ। অবশ্য ২০১৪ সালেও অনুরূপ একটি নির্বাচন করেছে আওয়ামী লীগ। এই উভয় নির্বাচনেই বহু প্রার্থী বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়ে সংসদ সদস্য হন। নির্বাচনের পরও বিরোধী দলগুলোর আন্দোলন চলতে থাকে, তীব্র আন্দোলনের মুখে বিএনপি ১৯৯৬ সালেই ত্রয়োদশ সংশোধনীর মাধ্যমে তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা সংবিধানে যোগ করতে বাধ্য হয়।

নিয়মতান্ত্রিক রাজনীতির গুরুত্ব কোন সরকারই দেয় না। জাতীয় ও আন্তর্জাতিক মনোযোগ আকর্ষণের জন্য তাই আগুন লাগাতে হয়, ভাঙচুর করা অপরিহার্য হয়ে দাঁড়ায়। সরকারও চায় কিছু ভাঙচুর হোক যাতে মামলা দিয়ে হয়রানি করা সম্ভব হয়। বিএনপি এখন এই ফাঁদে পড়ে দিশেহারা

যে সরকার ব্যবস্থাকে বিএনপি তাদের ১৯৯১-৯৫ মেয়াদে অসাংবিধানিক বলে আখ্যায়িত করেছিল, সেই তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থাকে সুপ্রিমকোর্ট ২০১১ সালে অবৈধ ও অসাংবিধানিক বলে রায় প্রদান করে বিএনপির কথার সমর্থন দিয়েছে। বিএনপি আওয়ামী লীগ আমলের বিচার ব্যবস্থার বিরুদ্ধে পক্ষপাতিত্বের অভিযোগ উত্থাপন করলেও আওয়ামী লীগ আমলের প্রধান বিচারপতি এসকে সিনহার প্রশংসায় পঞ্চমুখ। অথচ বিচারপতি এসকে সিনহা তত্ত্বাবধায়ক সরকার বাতিলের পক্ষে রায় দিয়েছিলেন। সংবিধানের মূল চেতনার সঙ্গে সাংঘর্ষিক উল্লেখ করে সুপ্রিমকোর্টের আপিল বিভাগ ৪:৩ ভোটে তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা অবৈধ ও অসাংবিধানিক ঘোষণা করে।

বিচারপতি এসকে সিনহা বাতিলের পক্ষে না থাকলে তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা বাতিল হতো না। এই মামলায় কয়েকজন আইনবিদ আদালতে উল্লেখ করেছিলেন যে, তত্ত্বাবধায়ক সরকার না থাকলে একটি বড় রাজনৈতিক দল নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবে না। জবাবে বিচারপতি এসকে সিনহা বলেন, সংবিধানের মৌলিক কাঠামোর সঙ্গে অসামঞ্জস্য কোন বিধান দিয়ে রাজনৈতিক দলগুলোর পছন্দ-অপছন্দের হিসাব করে আদালত রায় দিতে পারে না। তিনি আরও বলেন, রাজনৈতিক দলগুলো সমর্থন করলেই অসংবিধানিক কোন কিছু সংবিধানিক হয়ে যায় না।

২০০১ সালে ক্ষমতায় এসে বিএনপি বিচারকদের অবসর গ্রহণের বয়স বৃদ্ধি করায় বঙ্গবন্ধুর হত্যাকারী লেফট্যানেন্ট কর্নেল সৈয়দ ফারুক রহমানের ভায়রা ভাই বিচারপতি কেএম হাসানের প্রধান উপদেষ্টা হওয়া নিশ্চিত হয়। তীব্র আন্দোলনের মুখে বিএনপির পছন্দের বিচারপতি কেএম হাসান তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দায়িত্ব নিতে অপারগতা প্রকাশ করলে বিএনপি সঙ্গে সঙ্গে আরেকটি অপকর্ম করে বসে। বিচারপতি কেএম হাসানের অপরাগতায় সংবিধান অনুযায়ী তার আগের অবসরপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতিকে দায়িত্ব নেয়ার জন্য আমন্ত্রণ জানানোর কথা এবং এভাবে চারটি বিকল্পে কেউ দায়িত্ব না নিলে সর্বশেষ ধাপে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের প্রধান হিসেবে দায়িত্ব নেযার কথা রাষ্ট্রপতির।

কিন্তু বিচারপতি কেএম হাসানের অপরাগতা প্রকাশ করার পর তৎকালীন রাষ্ট্রপতি ইয়াজউদ্দিন আহমেদ বাকি বিকল্পে প্রধান উপদেষ্টা না খুঁজে নিজেই তত্ত্বাবধায়ক সরকারের প্রধান হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণ করে বসেন। বিএনপির দলীয় রাষ্ট্রপতি প্রধান উপদেষ্টার দায়িত্ব নেয়ার পরও আওয়ামী লীগ ও অন্যান্য বিরোধী দল আপত্তি করেনি, কিন্তু রাষ্ট্রপতির সব কর্মকান্ড যখন বিএনপির দ্বারা পরিচালিত হতে থাকে তখন তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা পরিষদ থেকে চারজন সদস্য পদত্যাগ করেন। শুরু হয় নতুন সংকট। এভাবে বিএনপি বারবার তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থাকে প্রশ্নবিদ্ধ করেছে। আমাদের মতো দেশে সরকার যেমন বিরোধী দল সহ্য করতে পারে না, তদ্রুপ বিরোধী দলও রাস্তায় নেমে ভাঙচুর করা ছাড়া থাকতে পারে না।

অবশ্য নিয়মতান্ত্রিক রাজনীতির গুরুত্ব কোন সরকারই দেয় না। জাতীয় ও আন্তর্জাতিক মনোযোগ আকর্ষণের জন্য তাই আগুন লাগাতে হয়, ভাঙচুর করা অপরিহার্য হয়ে দাঁড়ায়। সরকারও চায় কিছু ভাঙচুর হোক যাতে মামলা দিয়ে হয়রানি করা সম্ভব হয়। বিএনপি এখন এই ফাঁদে পড়ে দিশেহারা। বিএনপির দাবি, বর্তমান সরকারকে পদত্যাগ করতে হবে, নতুবা পালানোর পথ পাবে না। পদত্যাগ করলে বা দেশ থাকে পালালে শূন্যতা পূরণ হবে কিভাবে? বিএনপি দখল করে নেবে? নির্বাচনকালীন সরকারের কোন ফর্মুলা বিএনপি আজ পর্যন্ত দেয়নি। সুপ্রিমকোর্টের বাতিল করা অনির্বাচিত তত্ত্বাবধায়ক সরকার আর কখনো ফিরে আসবে না, সুপ্রিমকোর্ট ইতোমধ্যে যা যা বাতিল করেছে তা কখনো ফেরত আসেনি এবং ভবিষ্যতেও আসবে না। বিএনপির সংসদ সদস্যরা পদত্যাগ না করলে নির্বাচিত সংসদ সদস্যদের নিয়ে একটা সাংবিধানিক অন্তর্র্বর্তীকালীন সরকার গঠনের সুযোগ ছিল।

বিএনপি মনে হয় আমেরিকার ওপর পরিপূর্ণ নির্ভরশীল; আমেরিকার কাছ থেকে কী ধরনের আশ্বাস পেয়েছে তা আমাদের জানা নেই। আমেরিকা এবং ইউরোপের চাপে এবারের নির্বাচন সুষ্ঠু হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। কিন্তু নির্বাচন সুষ্ঠু হলে আওয়ামী লীগ বিপদে পড়বে। কারণ বিএনপি ছাড়া আওয়ামী লীগের প্রতিদ্বন্দ্বী কোন দল নেই, সুষ্ঠু নির্বাচনে অধিকাংশ আসন পেয়ে যাবে আওয়ামী লীগ। নির্বাচনের ফলাফলে হতাশ হয়ে নির্বাচনে অংশগ্রহণকারী দলগুলো তখন একজোট হয়ে বলবে, নির্বাচন সুষ্ঠু হয়নি। এই সমস্যা সমাধানের কোন পথ নেই। নির্বাচন যে সুষ্ঠু হয়েছে তা প্রমাণ করতে আওয়ামী লীগের কিছু প্রার্থীকে অবশ্যই হারতে হবে। নির্বাচনকে বিশ্বাসযোগ্য করতে এরশাদ তার প্রধানমন্ত্রী আতাউর রহমান খানের ছেলে জাতীয় পার্টির মনোনীত প্রার্থী ব্যারিস্টার জিয়াউর রহমান খানের পরাজয় নিশ্চিত করেছিলেন।

আওয়ামী লীগকে আরেকটি কাজ করতে হবে এবং তা হচ্ছে বৃহদাংশ ভোটারের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করা। তাই বলে বুথ দখলপূর্বক ব্যালট পেপারে সিল মেরে বাক্স ভর্তি করা চলবে না। উৎসাহী কর্মীদের এমন অপকর্ম রোধ করতে ব্যর্থ হলে আওয়ামী লীগ নিজের বিপদ নিজেই ডেকে আনবে। বিগত নির্বাচনগুলোতে আওয়ামী লীগের একচেটিয়া বিজয় তাদের কর্মীদের অলস করে দিয়েছে। ভোটের দিন ঘরে বসে তারা আরাম-আয়েশ করে টিভি দেখে আর মোবাইল ঘেঁটে দিন কাটায়, ভোট কেন্দ্রে যাওয়ার সামান্যতম তাগিদও অনুভব করে না। কারণ তাদের বিশ্বাস আওয়ামী লীগ জিতবেই। কর্মীদের এমন ধারণা থাকলে আওয়ামী লীগ জিতেও হারবে, নির্বাচন প্রশ্নবিদ্ধ হবে। বিএনপি বহির্র্বিশ্বের মনোযোগ আকর্ষণ করতে সমর্থ হবে, পিটার হাসের দৌড়ঝাঁপ বেড়ে যাবে, আন্তর্জাতিক চাপ আওয়ামী লীগের জন্য অসহনীয় হয়ে ওঠবে, আমেরিকার বদান্যতায় বিএনপি সর্বশক্তি নিয়ে আন্দোলনে নামবে, ক্রমাগত সংঘাতে দেশের উন্নয়ন ও অগ্রগতি বিধ্বস্ত হবে।

[ লেখক : সাবেক নির্বাহী পরিচালক, বাংলাদেশ ব্যাংক ও সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক, টাকশাল ]

গণতন্ত্র কি তাহলে বিদায়ের পথে

কাঁঠাল হতে পারে রপ্তানি বাণিজ্যের নতুন দিগন্ত

ছবি

প্রাণের মেলা

গণতন্ত্র কি তাহলে বিদায়ের পথে

সর্বস্তরে বাংলার ব্যবহার নিশ্চিত হোক

সাঁওতালী ভাষা বিতর্ক এবং উত্তরবঙ্গের আদিবাসী

ভাষা আন্দোলনের সূতিকাগার রাজধানীর আজিমপুর

ছবি

ভাষা আন্দোলন ও বাঙালির নবজাগরণ

খুলনায় একুশে বইমেলার মুগ্ধতা

মধুরতম ভাষা ও রক্তাক্ত বাংলা

উৎসব ও প্রথার বিবর্তন

চুরমার ফিলিস্তিন ও খাদ্য রাজনীতি

কুষ্ঠজনিত মানবাধিকার লঙ্ঘন রোধে করণীয়

যুব ক্ষমতায়ন স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণকে ত্বরান্বিত করবে

লাইব্রেরির ভবিষ্যৎ ও ভবিষ্যতের লাইব্রেরি

একজীবনে অনেক বছর বেঁচে থেকেও নিজেকে চেনা হয়ে ওঠে না

“ছুরি-কাঁটা ও নব্যধনী”

পশ্চিমবঙ্গের রাজনীতিতে সন্দেশখালি লাইন

শিশুরও হতে পারে ক্যান্সার, প্রতিরোধে প্রয়োজন সমন্বিত উদ্যোগ

চিকিৎসা নিতে কেন ভারতে গিয়েছিলাম

ইসরায়েলের গণহত্যা, দক্ষিণ আফ্রিকার মামলা

বিজ্ঞানচর্চার কেন্দ্রবিন্দু গণিত

ছবি

সুন্দরবন কি আরেকটু বেশি মনোযোগ পেতে পারে না

নিজেকে বরং নিজেই প্রশ্ন করতে শিখুন

গড়ে উঠুক সুষ্ঠু বর্জ্য ব্যবস্থাপনা

ছবি

বিদ্যা দেবী মা সরস্বতী

বিশ্ব বেতার দিবস ও বাংলাদেশ বেতার

কৃষিবিদ দিবস

ছয় বছরের অর্জন ও প্রত্যাশা

জলবায়ু সম্মেলন এবং নয়া উদারবাদী কর্তৃত্ব

জিআই সনদের সন্ধানে চাঁপাইনবাবগঞ্জ

নির্বাচন ও সামাজিক অস্থিরতা

ছবি

খাদ্যে আমদানিনির্ভরতা থেকে বেরোনোর পথ কী

ছবি

ট্রাম্প দ্রুত এগিয়ে যাচ্ছেন, তবে পথ মসৃণ নয়

দুর্নীতিবাজদের খতম করা যাবে কি?

মূল্যস্ফীতি কমবে কীভাবে

tab

উপ-সম্পাদকীয়

দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন

জিয়াউদ্দীন আহমেদ

শনিবার, ২৫ নভেম্বর ২০২৩

আগামী ৭ জানুয়ারি দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। আওয়ামী লীগ নির্বাচনের তপশিল ঘোষণাকে স্বাগত জানিয়েছে, বিএনপি প্রত্যাখ্যান করেছে। আমেরিকা নির্বাচনের পূর্বে শর্তহীন আলাপ-আলোচনার সূত্রপাত ঘটাতে আওয়ামী লীগ, বিএনপি এবং জাতীয় পার্টিকে আহ্বান জানিয়ে চিঠি দিয়েছিল। আলাপ-আলোচনার জন্য পর্যাপ্ত সময় না থাকায় আওয়ামী লীগ আমেরিকার প্রস্তাব নাকচ করে প্রত্যুত্তর দিয়ে দিয়েছে।

আওয়ামী লীগ বা সরকারের সঙ্গে বিএনপি কখনো আলাপ-আলোচনা করতে চায়নি। শুধু তাই নয়, বিএনপি নির্বাচন কমিশনের ডাকেও সাড়া দেয়নি। বিএনপি ঠিকই করেছে; কারণ বিএনপি আওয়ামী লীগ সরকার এবং বর্তমান নির্বাচন কমিশনকে অবৈধ মনে করে, অবৈধ সরকার এবং নির্বাচন কমিশনের সঙ্গে বৈঠক করলে বিএনপির নৈতিক পতন হতো। তাদের একটা দাবিই ছিল, অবৈধ সরকারের পদত্যাগ এবং তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচন। বিএনপির কোন দাবি আপাতত পূরণ হচ্ছে না। ২০১১ সালে সুপ্রিমকোর্ট কর্তৃক তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা বাতিল হওয়ার পর আওয়ামী লীগ সংবিধান সংশোধন করে আদালতের আদেশের বাস্তবায়ন করে। অথচ নব্বইয়ের দশকে আওয়ামী লীগ ছিল তত্ত্বাবধায়ক সরকারের প্রধান দাবিদার। সুপ্রিমকোর্টের রায়ে আওয়ামী লীগ খুশি। কারণ ক্ষমতায় থেকে নির্বাচন করার মজা আলাদা। ক্ষমতায় থাকলে সুপ্রিমকোর্টের রায়ে বিএনপিও খুশি হতো। ক্ষমতায় থাকাকালীন ১৯৯৫ সালে হাইকোর্ট তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা অবৈধ বলে রায় দিলে বিএনপিও খুশি হয়েছিল। খুশি হয়েছিল বলেই বিএনপি ১৯৯১-৯৫ মেয়াদে তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা প্রবর্তন সংক্রান্ত বিল সংসদে উত্থাপন করেনি। এই অবস্থায় আওয়ামী লীগ ও জামায়াত ১৯৯৩ সালে তত্ত্বাবধায়ক সরকারসংক্রান্ত দুটি বিল সংসদে উপস্থাপন করে। বিএনপি তখন তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থাকে অসাংবিধানিক ও অবাস্তব বলে ঘোষণা করে।

খালেদা জিয়া বলতে থাকেন, একমাত্র পাগল ও শিশু ছাড়া আর কোন মানুষের পক্ষে নিরপেক্ষ হওয়া সম্ভব নয়। অথচ এখন বিএনপি বলছে তত্ত্বাবধায়ক সরকার ছাড়া তারা নির্বাচনে যাবেই না। বিএনপি তত্ত্বাবধায়ক সরকারের ব্যবস্থা না করেই তাদের পাঁচ বছরের শাসনামল শেষ করে এবং বিরোধী দলগুলোর অংশগ্রহণ ব্যতিরেকেই ১৯৯৬ সালের ফেব্রুয়ারির জাতীয় সংসদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। সংসদে বিরোধীদলীয় উপনেতা হন বঙ্গবন্ধুর খুনি কর্নেল আবদুর রশীদ। অবশ্য ২০১৪ সালেও অনুরূপ একটি নির্বাচন করেছে আওয়ামী লীগ। এই উভয় নির্বাচনেই বহু প্রার্থী বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়ে সংসদ সদস্য হন। নির্বাচনের পরও বিরোধী দলগুলোর আন্দোলন চলতে থাকে, তীব্র আন্দোলনের মুখে বিএনপি ১৯৯৬ সালেই ত্রয়োদশ সংশোধনীর মাধ্যমে তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা সংবিধানে যোগ করতে বাধ্য হয়।

নিয়মতান্ত্রিক রাজনীতির গুরুত্ব কোন সরকারই দেয় না। জাতীয় ও আন্তর্জাতিক মনোযোগ আকর্ষণের জন্য তাই আগুন লাগাতে হয়, ভাঙচুর করা অপরিহার্য হয়ে দাঁড়ায়। সরকারও চায় কিছু ভাঙচুর হোক যাতে মামলা দিয়ে হয়রানি করা সম্ভব হয়। বিএনপি এখন এই ফাঁদে পড়ে দিশেহারা

যে সরকার ব্যবস্থাকে বিএনপি তাদের ১৯৯১-৯৫ মেয়াদে অসাংবিধানিক বলে আখ্যায়িত করেছিল, সেই তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থাকে সুপ্রিমকোর্ট ২০১১ সালে অবৈধ ও অসাংবিধানিক বলে রায় প্রদান করে বিএনপির কথার সমর্থন দিয়েছে। বিএনপি আওয়ামী লীগ আমলের বিচার ব্যবস্থার বিরুদ্ধে পক্ষপাতিত্বের অভিযোগ উত্থাপন করলেও আওয়ামী লীগ আমলের প্রধান বিচারপতি এসকে সিনহার প্রশংসায় পঞ্চমুখ। অথচ বিচারপতি এসকে সিনহা তত্ত্বাবধায়ক সরকার বাতিলের পক্ষে রায় দিয়েছিলেন। সংবিধানের মূল চেতনার সঙ্গে সাংঘর্ষিক উল্লেখ করে সুপ্রিমকোর্টের আপিল বিভাগ ৪:৩ ভোটে তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা অবৈধ ও অসাংবিধানিক ঘোষণা করে।

বিচারপতি এসকে সিনহা বাতিলের পক্ষে না থাকলে তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা বাতিল হতো না। এই মামলায় কয়েকজন আইনবিদ আদালতে উল্লেখ করেছিলেন যে, তত্ত্বাবধায়ক সরকার না থাকলে একটি বড় রাজনৈতিক দল নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবে না। জবাবে বিচারপতি এসকে সিনহা বলেন, সংবিধানের মৌলিক কাঠামোর সঙ্গে অসামঞ্জস্য কোন বিধান দিয়ে রাজনৈতিক দলগুলোর পছন্দ-অপছন্দের হিসাব করে আদালত রায় দিতে পারে না। তিনি আরও বলেন, রাজনৈতিক দলগুলো সমর্থন করলেই অসংবিধানিক কোন কিছু সংবিধানিক হয়ে যায় না।

২০০১ সালে ক্ষমতায় এসে বিএনপি বিচারকদের অবসর গ্রহণের বয়স বৃদ্ধি করায় বঙ্গবন্ধুর হত্যাকারী লেফট্যানেন্ট কর্নেল সৈয়দ ফারুক রহমানের ভায়রা ভাই বিচারপতি কেএম হাসানের প্রধান উপদেষ্টা হওয়া নিশ্চিত হয়। তীব্র আন্দোলনের মুখে বিএনপির পছন্দের বিচারপতি কেএম হাসান তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দায়িত্ব নিতে অপারগতা প্রকাশ করলে বিএনপি সঙ্গে সঙ্গে আরেকটি অপকর্ম করে বসে। বিচারপতি কেএম হাসানের অপরাগতায় সংবিধান অনুযায়ী তার আগের অবসরপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতিকে দায়িত্ব নেয়ার জন্য আমন্ত্রণ জানানোর কথা এবং এভাবে চারটি বিকল্পে কেউ দায়িত্ব না নিলে সর্বশেষ ধাপে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের প্রধান হিসেবে দায়িত্ব নেযার কথা রাষ্ট্রপতির।

কিন্তু বিচারপতি কেএম হাসানের অপরাগতা প্রকাশ করার পর তৎকালীন রাষ্ট্রপতি ইয়াজউদ্দিন আহমেদ বাকি বিকল্পে প্রধান উপদেষ্টা না খুঁজে নিজেই তত্ত্বাবধায়ক সরকারের প্রধান হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণ করে বসেন। বিএনপির দলীয় রাষ্ট্রপতি প্রধান উপদেষ্টার দায়িত্ব নেয়ার পরও আওয়ামী লীগ ও অন্যান্য বিরোধী দল আপত্তি করেনি, কিন্তু রাষ্ট্রপতির সব কর্মকান্ড যখন বিএনপির দ্বারা পরিচালিত হতে থাকে তখন তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা পরিষদ থেকে চারজন সদস্য পদত্যাগ করেন। শুরু হয় নতুন সংকট। এভাবে বিএনপি বারবার তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থাকে প্রশ্নবিদ্ধ করেছে। আমাদের মতো দেশে সরকার যেমন বিরোধী দল সহ্য করতে পারে না, তদ্রুপ বিরোধী দলও রাস্তায় নেমে ভাঙচুর করা ছাড়া থাকতে পারে না।

অবশ্য নিয়মতান্ত্রিক রাজনীতির গুরুত্ব কোন সরকারই দেয় না। জাতীয় ও আন্তর্জাতিক মনোযোগ আকর্ষণের জন্য তাই আগুন লাগাতে হয়, ভাঙচুর করা অপরিহার্য হয়ে দাঁড়ায়। সরকারও চায় কিছু ভাঙচুর হোক যাতে মামলা দিয়ে হয়রানি করা সম্ভব হয়। বিএনপি এখন এই ফাঁদে পড়ে দিশেহারা। বিএনপির দাবি, বর্তমান সরকারকে পদত্যাগ করতে হবে, নতুবা পালানোর পথ পাবে না। পদত্যাগ করলে বা দেশ থাকে পালালে শূন্যতা পূরণ হবে কিভাবে? বিএনপি দখল করে নেবে? নির্বাচনকালীন সরকারের কোন ফর্মুলা বিএনপি আজ পর্যন্ত দেয়নি। সুপ্রিমকোর্টের বাতিল করা অনির্বাচিত তত্ত্বাবধায়ক সরকার আর কখনো ফিরে আসবে না, সুপ্রিমকোর্ট ইতোমধ্যে যা যা বাতিল করেছে তা কখনো ফেরত আসেনি এবং ভবিষ্যতেও আসবে না। বিএনপির সংসদ সদস্যরা পদত্যাগ না করলে নির্বাচিত সংসদ সদস্যদের নিয়ে একটা সাংবিধানিক অন্তর্র্বর্তীকালীন সরকার গঠনের সুযোগ ছিল।

বিএনপি মনে হয় আমেরিকার ওপর পরিপূর্ণ নির্ভরশীল; আমেরিকার কাছ থেকে কী ধরনের আশ্বাস পেয়েছে তা আমাদের জানা নেই। আমেরিকা এবং ইউরোপের চাপে এবারের নির্বাচন সুষ্ঠু হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। কিন্তু নির্বাচন সুষ্ঠু হলে আওয়ামী লীগ বিপদে পড়বে। কারণ বিএনপি ছাড়া আওয়ামী লীগের প্রতিদ্বন্দ্বী কোন দল নেই, সুষ্ঠু নির্বাচনে অধিকাংশ আসন পেয়ে যাবে আওয়ামী লীগ। নির্বাচনের ফলাফলে হতাশ হয়ে নির্বাচনে অংশগ্রহণকারী দলগুলো তখন একজোট হয়ে বলবে, নির্বাচন সুষ্ঠু হয়নি। এই সমস্যা সমাধানের কোন পথ নেই। নির্বাচন যে সুষ্ঠু হয়েছে তা প্রমাণ করতে আওয়ামী লীগের কিছু প্রার্থীকে অবশ্যই হারতে হবে। নির্বাচনকে বিশ্বাসযোগ্য করতে এরশাদ তার প্রধানমন্ত্রী আতাউর রহমান খানের ছেলে জাতীয় পার্টির মনোনীত প্রার্থী ব্যারিস্টার জিয়াউর রহমান খানের পরাজয় নিশ্চিত করেছিলেন।

আওয়ামী লীগকে আরেকটি কাজ করতে হবে এবং তা হচ্ছে বৃহদাংশ ভোটারের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করা। তাই বলে বুথ দখলপূর্বক ব্যালট পেপারে সিল মেরে বাক্স ভর্তি করা চলবে না। উৎসাহী কর্মীদের এমন অপকর্ম রোধ করতে ব্যর্থ হলে আওয়ামী লীগ নিজের বিপদ নিজেই ডেকে আনবে। বিগত নির্বাচনগুলোতে আওয়ামী লীগের একচেটিয়া বিজয় তাদের কর্মীদের অলস করে দিয়েছে। ভোটের দিন ঘরে বসে তারা আরাম-আয়েশ করে টিভি দেখে আর মোবাইল ঘেঁটে দিন কাটায়, ভোট কেন্দ্রে যাওয়ার সামান্যতম তাগিদও অনুভব করে না। কারণ তাদের বিশ্বাস আওয়ামী লীগ জিতবেই। কর্মীদের এমন ধারণা থাকলে আওয়ামী লীগ জিতেও হারবে, নির্বাচন প্রশ্নবিদ্ধ হবে। বিএনপি বহির্র্বিশ্বের মনোযোগ আকর্ষণ করতে সমর্থ হবে, পিটার হাসের দৌড়ঝাঁপ বেড়ে যাবে, আন্তর্জাতিক চাপ আওয়ামী লীগের জন্য অসহনীয় হয়ে ওঠবে, আমেরিকার বদান্যতায় বিএনপি সর্বশক্তি নিয়ে আন্দোলনে নামবে, ক্রমাগত সংঘাতে দেশের উন্নয়ন ও অগ্রগতি বিধ্বস্ত হবে।

[ লেখক : সাবেক নির্বাহী পরিচালক, বাংলাদেশ ব্যাংক ও সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক, টাকশাল ]

back to top