alt

উপ-সম্পাদকীয়

শিক্ষা হচ্ছে জগতের আলো

বাবুল রবিদাস

: শনিবার, ১০ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

যে কোন বিষয়ের ওপর ঠিকঠাক বা সঠিক জ্ঞান দিতে পারে একমাত্র শিক্ষা। শিক্ষা দিয়ে অতীত বর্তমান ও ভবিষ্যতের জ্ঞান অর্জিত হয়। মানুষের পঞ্চ ইন্দ্রিয়ের মধ্যে শ্রেষ্ঠ ইন্দ্রিয় চোখ। শিক্ষার মাধ্যমে অর্জিত জ্ঞানে ও চোখে দেখে যাচাই দ্বারা প্রকৃত জিনিস উদঘাটন করা যায়। মিথ্যা খোলস থেকে বেরিয়ে এসে প্রকৃত জিনিস অর্জনে লক্ষ্যে পৌঁছানো যায়। সেজন্য শিক্ষিত ব্যক্তিকে কেউ ঠকাতে বা প্রতারিত করতে পারে না।

আমরা ছোটবেলা থেকেই পঞ্চ ইন্দ্রিয়ের মাধ্যমে জ্ঞান অর্জন করতে থাকি। যেমন- ছোট একটি শিশুর সামনে যদি আগুনের চেরাগ রাখা হলে শিশুটি আগুনের আলোর দিকে চেয়ে থাকবে ও তার আকর্ষণে চেরাগের আগুনকে হাত দিয়ে ধরার চেষ্টায় হাতের ত্বক উত্ত্বপ্ত অনুভব করামাত্র হাত সরিয়ে নেবে। এ ঘটনা থেকে শিশুটি একটি অভিজ্ঞতা অর্জন করলো যে, চেরাগের আগুন উত্তপ্ত জিনিস। পরবর্তীতে আগুন থেকে সতর্কতা অবলম্বন করে চলবে। এভাবে অভিজ্ঞতা থেকে জ্ঞান অর্জন করতে শেখে বা থাকে। জ্ঞান অর্জনের কোন সীমা নাই । মানুষ দোলনা থেকে জ্ঞান অর্জন শুরু হয় এবং মৃত্যর পূর্ব পর্যন্ত জ্ঞান অন্বেষণে থাকে। শিশুটি যখন প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভর্তি হয়। তখন এ পরিবেশটি তার কাজে নতুনত্ব বলে মনে হতে থাকে। আস্তে আস্তে গোটা ক্লাসে ও স্কুলের শিক্ষক, সহপাঠী, বন্ধু-বান্ধব জুটে যায় এবং সুন্দর পরিবেশ অনুভব করে। অতঃপর প্রাইমারি, হাইস্কুল, কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ে হতে উপযুক্ত শিক্ষা অর্জন করে বের হয়।

শিক্ষিত ব্যক্তিকে কেউ দাবিয়ে রাখতে পারে না। শিক্ষিত ব্যক্তিকে সবাই সম্মান করে ও ভয় পায়। তাই শিক্ষাকেই গ্রহণ করতে হবে যেভাবেই হোক। কাজী নজরুল ইসলাম রুটির দোকানে কাজ করে পৃথিবীকে দেখিয়ে দিয়েছেন যে, আমরাও পারি। কিছু সমাজের মধ্যে অসমতা, অর্থনৈতিক, বৈষম্য, ভেদাভেদ ইত্যাদি কারণে সমাজের সব ছেলেমেয়েরা শিক্ষা গ্রহণ করার সুযোগ পায় না; কিন্তু দলিত-বঞ্চিত নেতারা উপদেশ দিয়েছেন যে, পরিবারের কর্তার কাজে সন্তানদের শিক্ষা গ্রহণের প্রতি যতœবান হতে। তার কিছু প্রবাদ হচ্ছে যেমন- খাও বা না খাও তাতে দুঃখ নাই, ছেলেমেয়েদের স্কুলে দাও এই আমি চাই। দিন আনি দিন খাই, তবুও লেখাপড়া শিখতে চাই। প্রতিবেশী নয়কো পর, শিক্ষা দিয়ে আপন কর। চোখ থাকতে অন্ধকে নিরক্ষর থাকে যে।

সরকারের একটি নীতি হচ্ছে- ‘কাউকে পিছনে রেখে উন্নয়ন নয়।’ সমাজে অনেকে বয়সে কম, বয়সে তরুণ ও বয়সে বৃদ্ধ। যদি ছেলে তরুণ এবং বৃদ্ধকে এক লাইনে দ্বার করিয়ে দৌড়ে অংশগ্রহণ করতে বলা হয়, তাহলে দৌড়ে তরুণটি জয়ী হবেই। অথচ সবাইকেই সমান অধিকার দেয়া হয়েছে।

দলিত বঞ্চিত ব্রাত্যজন, ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী , জাতির সন্তানদের শিক্ষাদীক্ষায় আনতে হবে, এ বিষয়ে সরকার, শুভাকাক্সক্ষী, শুভানুধ্যায়ী সমাজ হিতৈষীদের এগিয়ে আসতে হবে ও শিক্ষা বিষয়ে আন্তরিক হতে হবে। তবেই তো সমাজের আনাচে-কানাচে আলো পড়বে। সমাজ থেকে অন্ধকার দূর হয়ে, সূর্যের হাসি প্রতিফলিত হবে। আমাদের সমাজে ড. বিআর আম্বেদকর, হরিচাঁদ-ঠাকুর, গুরুচাঁদ-ঠাকুর, সাবিত্রী বাই ফুলে, ফাতেমা শেখ পিছে পড়া দলিত সন্তানদের শিক্ষা অর্জনে আপ্রাণ চেষ্টা করেছেন।

ইতিহাস পর্যালোচনা করলে দেখা যায় যে, ইতোপূর্বে দলিত-বঞ্চিত সন্তানদের শিক্ষাগ্রহণের কোন অধিকার ছিল না। ইচ্ছাপূর্বক তাদের শাসিয়ে ও দাবিয়ে রাখা হয়েছিল। দলিত-বঞ্চিত, ব্রাত্যজন, ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী, জাতির সন্তানেরা সংবিধান, আইন, সরকারের নীতির কারণে আজকে শিক্ষা অর্জন করে, কিছুটা এগিয়ে আসতে পেয়েছে। অনগ্রসর জাতির সন্তানেরা ভবিষ্যতে আরো এগিয়ে গিয়ে সমাজে গ্রহণযোগ্য নাগরিকরূপে প্রতিষ্ঠা পাবে। তখন সমাজ থেকে বৈষম্য, অস্পৃশ্য, ভেদাভেদ, কুসংস্কার দূর হবে। মেধাভিত্তিক প্রতিযোগিতার সমাজ অর্থাৎ তথ্য-প্রযুক্তি জ্ঞান-বিজ্ঞান সমাজ গড়ে উঠবে।

[লেখক : আইনজীবী, জজকোর্ট, জয়পুরহাট]

উদার-উদ্দাম বৈশাখ চাই

ঈদ নিয়ে আসুক শান্তি ও সমৃদ্ধি, বিস্তৃত হোক সম্প্রীতি ও সৌহার্দ

প্রসঙ্গ: বিদেশি ঋণ

ছাত্ররাজনীতি কি খারাপ?

জাকাত : বিশ্বের প্রথম সামাজিক নিরাপত্তা ব্যবস্থা

বাংলাদেশ স্কাউটস দিবস : শুরুর কথা

ছবি

সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির দৃষ্টান্ত

প্রবাসীর ঈদ-ভাবনা

বিশ্ব স্বাস্থ্য দিবস

ধানের ফলন বাড়াতে ক্লাইমেট স্মার্ট গুটি ইউরিয়া প্রযুক্তি

কমিশন কিংবা ভিজিটে জমি রেজিস্ট্রির আইনি বিধান ও প্রাসঙ্গিকতা

ছবি

ঈদের অর্থনীতি

পশ্চিমবঙ্গে ভোটের রাজনীতিতে ‘পোস্ট পার্টিশন সিনড্রম’

শিক্ষকের বঞ্চনা, শিক্ষকের বেদনা

নিরাপদ সড়ক কেন চাই

রম্যগদ্য : ‘প্রহরীর সাতশ কোটি টাকা...’

ছবি

অবন্তিকাদের আত্মহনন

শিক্ষাবিষয়ক ভাবনা

অপ্রয়োজনে সিজারিয়ান নয়

পণ্য রপ্তানিতে বৈচিত্র্য আনতে হবে

আত্মহত্যা রোধে নৈতিক শিক্ষা

আউশ ধান : পরিবেশ ও কৃষকবান্ধব ফসল

ছবি

বিশ্ব অটিজম সচেতনতা দিবস

জেনেটিক ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের আতুড়ঘর

চেক ডিজঅনার মামলার অধিক্ষেত্র ও প্রাসঙ্গিকতা

বৈশ্বিক জলবায়ু পরিবর্তন ও বাংলাদেশের কৃষি

ছবি

‘হৃৎ কলমের’ পাখি এবং আমাদের জেগে ওঠা

ছবি

ভূগর্ভস্থ পানি সুরক্ষায় বৃষ্টির পানি সংরক্ষণ

প্রসঙ্গ : নিত্যপণ্যের দাম

ছবি

টঙ্ক আন্দোলনের কুমুদিনী হাজং

ঢাকাকে বাসযোগ্য করতে চাই বিকেন্দ্রীকরণ

দূষণমুক্ত পানির বিকল্প নাই

রম্যগদ্য : ‘দুনিয়ার বাঙালি এক হও”

পশ্চিমবঙ্গে ভোটের লড়াই

স্মৃতির জানালা খুলে স্বাধীনতাকে উপভোগ করছি

শিশুর সার্বিক বিকাশে বাবা-মায়ের ভূমিকা

tab

উপ-সম্পাদকীয়

শিক্ষা হচ্ছে জগতের আলো

বাবুল রবিদাস

শনিবার, ১০ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

যে কোন বিষয়ের ওপর ঠিকঠাক বা সঠিক জ্ঞান দিতে পারে একমাত্র শিক্ষা। শিক্ষা দিয়ে অতীত বর্তমান ও ভবিষ্যতের জ্ঞান অর্জিত হয়। মানুষের পঞ্চ ইন্দ্রিয়ের মধ্যে শ্রেষ্ঠ ইন্দ্রিয় চোখ। শিক্ষার মাধ্যমে অর্জিত জ্ঞানে ও চোখে দেখে যাচাই দ্বারা প্রকৃত জিনিস উদঘাটন করা যায়। মিথ্যা খোলস থেকে বেরিয়ে এসে প্রকৃত জিনিস অর্জনে লক্ষ্যে পৌঁছানো যায়। সেজন্য শিক্ষিত ব্যক্তিকে কেউ ঠকাতে বা প্রতারিত করতে পারে না।

আমরা ছোটবেলা থেকেই পঞ্চ ইন্দ্রিয়ের মাধ্যমে জ্ঞান অর্জন করতে থাকি। যেমন- ছোট একটি শিশুর সামনে যদি আগুনের চেরাগ রাখা হলে শিশুটি আগুনের আলোর দিকে চেয়ে থাকবে ও তার আকর্ষণে চেরাগের আগুনকে হাত দিয়ে ধরার চেষ্টায় হাতের ত্বক উত্ত্বপ্ত অনুভব করামাত্র হাত সরিয়ে নেবে। এ ঘটনা থেকে শিশুটি একটি অভিজ্ঞতা অর্জন করলো যে, চেরাগের আগুন উত্তপ্ত জিনিস। পরবর্তীতে আগুন থেকে সতর্কতা অবলম্বন করে চলবে। এভাবে অভিজ্ঞতা থেকে জ্ঞান অর্জন করতে শেখে বা থাকে। জ্ঞান অর্জনের কোন সীমা নাই । মানুষ দোলনা থেকে জ্ঞান অর্জন শুরু হয় এবং মৃত্যর পূর্ব পর্যন্ত জ্ঞান অন্বেষণে থাকে। শিশুটি যখন প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভর্তি হয়। তখন এ পরিবেশটি তার কাজে নতুনত্ব বলে মনে হতে থাকে। আস্তে আস্তে গোটা ক্লাসে ও স্কুলের শিক্ষক, সহপাঠী, বন্ধু-বান্ধব জুটে যায় এবং সুন্দর পরিবেশ অনুভব করে। অতঃপর প্রাইমারি, হাইস্কুল, কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ে হতে উপযুক্ত শিক্ষা অর্জন করে বের হয়।

শিক্ষিত ব্যক্তিকে কেউ দাবিয়ে রাখতে পারে না। শিক্ষিত ব্যক্তিকে সবাই সম্মান করে ও ভয় পায়। তাই শিক্ষাকেই গ্রহণ করতে হবে যেভাবেই হোক। কাজী নজরুল ইসলাম রুটির দোকানে কাজ করে পৃথিবীকে দেখিয়ে দিয়েছেন যে, আমরাও পারি। কিছু সমাজের মধ্যে অসমতা, অর্থনৈতিক, বৈষম্য, ভেদাভেদ ইত্যাদি কারণে সমাজের সব ছেলেমেয়েরা শিক্ষা গ্রহণ করার সুযোগ পায় না; কিন্তু দলিত-বঞ্চিত নেতারা উপদেশ দিয়েছেন যে, পরিবারের কর্তার কাজে সন্তানদের শিক্ষা গ্রহণের প্রতি যতœবান হতে। তার কিছু প্রবাদ হচ্ছে যেমন- খাও বা না খাও তাতে দুঃখ নাই, ছেলেমেয়েদের স্কুলে দাও এই আমি চাই। দিন আনি দিন খাই, তবুও লেখাপড়া শিখতে চাই। প্রতিবেশী নয়কো পর, শিক্ষা দিয়ে আপন কর। চোখ থাকতে অন্ধকে নিরক্ষর থাকে যে।

সরকারের একটি নীতি হচ্ছে- ‘কাউকে পিছনে রেখে উন্নয়ন নয়।’ সমাজে অনেকে বয়সে কম, বয়সে তরুণ ও বয়সে বৃদ্ধ। যদি ছেলে তরুণ এবং বৃদ্ধকে এক লাইনে দ্বার করিয়ে দৌড়ে অংশগ্রহণ করতে বলা হয়, তাহলে দৌড়ে তরুণটি জয়ী হবেই। অথচ সবাইকেই সমান অধিকার দেয়া হয়েছে।

দলিত বঞ্চিত ব্রাত্যজন, ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী , জাতির সন্তানদের শিক্ষাদীক্ষায় আনতে হবে, এ বিষয়ে সরকার, শুভাকাক্সক্ষী, শুভানুধ্যায়ী সমাজ হিতৈষীদের এগিয়ে আসতে হবে ও শিক্ষা বিষয়ে আন্তরিক হতে হবে। তবেই তো সমাজের আনাচে-কানাচে আলো পড়বে। সমাজ থেকে অন্ধকার দূর হয়ে, সূর্যের হাসি প্রতিফলিত হবে। আমাদের সমাজে ড. বিআর আম্বেদকর, হরিচাঁদ-ঠাকুর, গুরুচাঁদ-ঠাকুর, সাবিত্রী বাই ফুলে, ফাতেমা শেখ পিছে পড়া দলিত সন্তানদের শিক্ষা অর্জনে আপ্রাণ চেষ্টা করেছেন।

ইতিহাস পর্যালোচনা করলে দেখা যায় যে, ইতোপূর্বে দলিত-বঞ্চিত সন্তানদের শিক্ষাগ্রহণের কোন অধিকার ছিল না। ইচ্ছাপূর্বক তাদের শাসিয়ে ও দাবিয়ে রাখা হয়েছিল। দলিত-বঞ্চিত, ব্রাত্যজন, ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী, জাতির সন্তানেরা সংবিধান, আইন, সরকারের নীতির কারণে আজকে শিক্ষা অর্জন করে, কিছুটা এগিয়ে আসতে পেয়েছে। অনগ্রসর জাতির সন্তানেরা ভবিষ্যতে আরো এগিয়ে গিয়ে সমাজে গ্রহণযোগ্য নাগরিকরূপে প্রতিষ্ঠা পাবে। তখন সমাজ থেকে বৈষম্য, অস্পৃশ্য, ভেদাভেদ, কুসংস্কার দূর হবে। মেধাভিত্তিক প্রতিযোগিতার সমাজ অর্থাৎ তথ্য-প্রযুক্তি জ্ঞান-বিজ্ঞান সমাজ গড়ে উঠবে।

[লেখক : আইনজীবী, জজকোর্ট, জয়পুরহাট]

back to top