alt

উপ-সম্পাদকীয়

নতুন কারিকুলামে ইংরেজি শিক্ষা

তরিকুল ইসলাম

: রোববার, ০৫ মে ২০২৪

ইংরেজি শিক্ষার গুরুত্ব দিন দিন বাড়ছে। দেশের অভিভাবকরা তাদের সন্তানদের শিক্ষা ব্যয়ের একটা বড় অংশ ইংরেজি শিক্ষার পেছনে ব্যয় করেন কিন্তু খরচের অনুপাতিক হারের সঙ্গে তুলনা করলে শিক্ষার্থীরা ইংরেজি ভাষা কতটুকু শিখছে? এই প্রশ্ন শিক্ষার্থী, অভিভাবক, নিয়োগকর্তা, শিক্ষক এবং সরকারের সব মহলের। নিয়োগকর্তাদের প্রায়ই আক্ষেপ করতে দেখা যায় এই বলে যে, আজকাল লেখাপড়ার কোন মান নেই। উচ্চ শিক্ষা সম্পন্ন একজন যুবক নিজের পরিচয়টুকু বা কাজ চালিয়ে নেয়ার মত ইংরেজিটুকু জানে না (আসলে তাকে জানানো হয়নি)। অনেক সময় বলতে শোনা যায়Ñ কোন প্রতিষ্ঠান, কোন শিক্ষক পড়িয়েছে?

আগের কারিকুলাম ছিল ইংরেজি শিক্ষার জন্য এক অন্ধকার যুগের মতো। যেখানে শিক্ষার্থীদের বিভিন্নভাবে চাপের মধ্যে রেখে কিছু নির্দিষ্ট বিষয় মুখস্থ করানো হতো। যার সঙ্গে বাস্তবতার খুব সামান্যই মিল ছিল। শিক্ষার্থীরা শুধু অ+ বা পাস করার জন্যই কিছু নির্দিষ্ট টপিক মুখস্থ করত। আর তাদের ইংরেজি শিক্ষার মূল উদ্দেশ্য ছিল যথা সম্ভব গ্রামারের নিয়ম-কানুন মুখস্থ করা এবং হাস্যকরভাবে এগুলো শনাক্ত করা এবং গঠনগত কিছু পার্থক্য করা। তারা কখনোই ভাষা শিক্ষার জন্য নিবেদিত ছিল না। এই শিক্ষার্থীরা ইংরেজি বলতে লজ্জাবোধ করত, পরিস্থিতি যতই ভয়ংকর হোক মুখ ফুটবে না কিন্তু কলম চলবে। শিক্ষা বোর্ডগুলো এমনভাবে প্রশ্নপত্র প্রণয়ন করত যে, শিক্ষার্থী, অভিভাবক এবং শিক্ষার্থীরা এই প্রক্রিয়ার বাহিরে গিয়ে ভাবার আদৌ কোন সুযোগ পেত না, এক্ষেত্রে তারা অনৈতিক পথ অবলম্বনে পিছ-পা হতো না, বইয়ের নাম ছিল কামিউনিকেশন ইংলিশ বাস্তবে কামিউনিকেশনের কোন অস্তিত্ব ছিল না। একজন শিক্ষক হিসেবে অবাক হই, এই ভ্রান্ত পদ্ধতি কীভাবে এত বছর ধরে চলল এবং এর সপক্ষে একটা প্রজন্মকে দাঁড় করানো হলো। বিস্ময়ের শেষ থাকে না যখন দেখি বিভিন্ন পর্যায়ের কিছু শিক্ষক এই ব্যর্থ কালিকুলামের পক্ষে কথা বলে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ঝড় সৃৃষ্টি করে কিছুটা ভাইরাল হওয়ার আশায়।

এবার নতুন কারিকুলামে ইংরেজি শিক্ষার পদ্ধতি ও উপযোগিতা নিয়ে কিছু আলোচনা করা যাক। ভাষা শিক্ষার মৌলিক চারটি দিকÑ শোনা-বলা-পড়া ও লেখা; নতুন কারিকুলামে এই চারটি মৌলিক দিকের প্রতি সমান গুরুত্ব দিয়ে পাশাপাশি ভাষার নান্দনিকতার ওপর আলাদা জোর দেয়া হয়েছে। বাস্তব জীবনে কোন পরিস্থিতিতে একজন শিক্ষার্থী কোন ধরনের সমস্যায় পড়তে পারে এবং বিভিন্ন পর্যায়ে ভাষার প্রয়োগ সম্পর্কে তাদের ধারণা সৃষ্টি হচ্ছে। শ্রেণীকক্ষ ও শ্রেণীকক্ষের বাইরে শিক্ষার্থীরা এখন ইংরেজি ভাষা ব্যবহারে উৎসাহিত হচ্ছে। দলগত প্রতিটি কাজের শেষে তাদের উপস্থাপনা করতে হয়। এতে তাদের যোগাযোগের দক্ষতা বৃদ্ধি পাচ্ছে এবং বলার ক্ষেত্রে ভয় ও জড়তা দূর হচ্ছে।

৬ষ্ঠ থেকে ৭ম পর্যন্ত বইয়ে বিখ্যাত লেখকদের লেখাগুলো আকর্ষণীয় ও মজাদার ফলে শিক্ষার্থীরা আনন্দের মধ্য দিয়ে শিখছে। প্রতিটি অভিজ্ঞতার শেষে তাদের ধারাবাহিক মূল্যায়ন করা হচ্ছে ফলে স্বল্প সময়ের মধ্যে শিখন ঘাটতি চিহ্নিত ও পূরণ করা সম্ভব হচ্ছে। শিক্ষার্থীদের বাক্য তৈরির দক্ষতা বৃদ্ধি পাচ্ছে ফলে তাদের মধ্যে লাইন বাই লাইন বাক্য মুখস্থ করার প্রবণতা কমছে। বাক্য তৈরি করাতে না পারা ইংরেজি ভাষা শেখার ক্ষেত্রে বড় অন্তরায়।

শিক্ষার উদ্দেশ্য কখনো প্রথম বা দ্বিতীয় হওয়া বা ৮০% এর উপায় নম্বর পাওয়া নয়। শিক্ষার উদ্দেশ্য অবশ্যই নৈতিক গুণ সম্পন্ন ব্যক্তি সৃষ্টি করা। সাহিত্য সব সময়ই একটা পজেটিভ বার্তা বহন করে যা শিক্ষার্থীদের মনোজগৎকে আলোড়িত করে এবং তাদের নৈতিক গুণাবলী অর্জনে অন্যতম সহায়ক ভূমিকা পালন করে। নতুন কারিকুলামের ইংরেজি বইগুলোতে উল্লেখযোগ্য হারে সাহিত্য (নাটক, কবিতা, গল্প, রচনা ও উপন্যাস) সংযোজিত হয়েছে ফলে তারা ভাষা শিক্ষার পাশাপাশি অধিক মানবিক গুণসম্পন্ন হচ্ছে।

নতুন কারিকুলাম নিঃসন্দেহে অন্ধকার গ্রামার শিক্ষার যুগকে বিদায় জনাবে কেননা গ্রামার শিক্ষা মানেই ভাষা শিক্ষা নয় এবং জীবনভিত্তিক ইংরেজি শেখার পথ সুগম করে দিবে। তবে আশাবাদী হওয়ার পাশাপাশি কিছু ঝুঁকিও আছে। অন্ধকার সব সময় আলোর চার পাশেই থাকে। ধারাবাহিক মূল্যায়ন সঠিকভাবে পরিচালিত হচ্ছে কিনা এগুলো দেখার জন্য আরো অধিক দক্ষ জনবল দরকার এবং ঢালাও মূল্যায়নের সুযোগ সৃষ্টি হতে না দেয়া, শিক্ষকদের পেশাদারত্ব বৃদ্ধিতে আরও প্রশিক্ষণ ও তার বাস্তবায়নের লক্ষে মনিটরিং হওয়া জরুরি। পাশাপাশি শিক্ষকদের সম্মান, আর্থিক সচ্ছলতা ও সামাজিক মর্যাদা নিশ্চিত করা নতুন কারিকুলাম বিশেষ করে ইংরেজি শিক্ষার পরিবর্তনের ধারা অব্যহত রাখার জন্য অত্যন্ত আবশ্যক।

[লেখক : সহকারী শিক্ষক (ইংরেজি), তাসলিমা মেমোরিয়াল একাডেমি, পাথরঘাটা, বরগুনা]

গাছে গাছে সবুজ হোক দেশ

কত বিষে আমাদের বসবাস

ছবি

তিস্তার দুই নয়নে দুই অশ্রুধারা

বন্যার্তদের পাশে দাঁড়ান

আদিবাসীরা বৈষম্যের শিকার

ছবি

নারীর অগ্রযাত্রা

ছবি

সিলেট-সুনামগঞ্জের ‘জলাবদ্ধ বন্যার’ দায় কার?

ছবি

বুড়িতিস্তা রিজার্ভার খনন : কৃষক কি উপকৃত হবে?

সেন্টমার্টিন দ্বীপ নিয়ে কী হচ্ছে?

উচ্ছেদকৃত দলিতদের পুনর্বাসন করুন

রম্যগদ্য : অভিযোগ ‘অভিযোগ’ নয়

কেন হেরে গেলেন সেলিম

নীরবে-নিভৃতে কাজ করা এক কৃষিবিজ্ঞানীর কথা

অর্থনীতি কী অবস্থায় আছে?

কোরবানির চামড়ার হকদার

যোগাযোগ অধ্যয়ন কেন গুরুত্বপূর্ণ

এমপি আনারকে নিয়ে যত আইনি জটিলতা

অর্থনৈতিক উন্নয়ন ও আইনের শাসন

দূর হোক মনের পশুত্ব

মনের পশুত্বের প্রতীকী ত্যাগের আরেক নাম কোরবানি

ঈদে সুস্থ খাদ্যাভ্যাস

এমআইটি : প্রযুক্তির সৃষ্টি রহস্যের খোঁজ

কবিগুরুর বাণী ‘প্রমাণিত মিথ্যা’

কিশোর গ্যাং কালচার বন্ধ হবে কিভাবে

কানিহাটি সিরিজ এবং পঞ্চব্রীহি নিয়ে আরও কিছু কথা

কলকাতায় হিজাব বিতর্ক

বাংলাদেশ ব্যাংকে সাংবাদিকদের প্রবেশ নিয়ে বিতর্ক

হাতের শক্তি ও মহিমা

বাজেট বাস্তবায়নই আসল চ্যালেঞ্জ

ছবি

কেন মেঘ আসে হৃদয় আকাশে

সংখ্যালঘুদের সম্পদ লুটেরাদের বিচার কি হবে

বাজেট ভাবনায় শঙ্কিত যারা

মাথাপিছু আয় বৃদ্ধি ও বৈষম্যে

জ্ঞানই শক্তি

পরিবেশ নিয়ে কিছু কথা

অগ্নিমূল্যের বাজার : সাধারণ মানুষের স্বস্তি মিলবে কি?

tab

উপ-সম্পাদকীয়

নতুন কারিকুলামে ইংরেজি শিক্ষা

তরিকুল ইসলাম

রোববার, ০৫ মে ২০২৪

ইংরেজি শিক্ষার গুরুত্ব দিন দিন বাড়ছে। দেশের অভিভাবকরা তাদের সন্তানদের শিক্ষা ব্যয়ের একটা বড় অংশ ইংরেজি শিক্ষার পেছনে ব্যয় করেন কিন্তু খরচের অনুপাতিক হারের সঙ্গে তুলনা করলে শিক্ষার্থীরা ইংরেজি ভাষা কতটুকু শিখছে? এই প্রশ্ন শিক্ষার্থী, অভিভাবক, নিয়োগকর্তা, শিক্ষক এবং সরকারের সব মহলের। নিয়োগকর্তাদের প্রায়ই আক্ষেপ করতে দেখা যায় এই বলে যে, আজকাল লেখাপড়ার কোন মান নেই। উচ্চ শিক্ষা সম্পন্ন একজন যুবক নিজের পরিচয়টুকু বা কাজ চালিয়ে নেয়ার মত ইংরেজিটুকু জানে না (আসলে তাকে জানানো হয়নি)। অনেক সময় বলতে শোনা যায়Ñ কোন প্রতিষ্ঠান, কোন শিক্ষক পড়িয়েছে?

আগের কারিকুলাম ছিল ইংরেজি শিক্ষার জন্য এক অন্ধকার যুগের মতো। যেখানে শিক্ষার্থীদের বিভিন্নভাবে চাপের মধ্যে রেখে কিছু নির্দিষ্ট বিষয় মুখস্থ করানো হতো। যার সঙ্গে বাস্তবতার খুব সামান্যই মিল ছিল। শিক্ষার্থীরা শুধু অ+ বা পাস করার জন্যই কিছু নির্দিষ্ট টপিক মুখস্থ করত। আর তাদের ইংরেজি শিক্ষার মূল উদ্দেশ্য ছিল যথা সম্ভব গ্রামারের নিয়ম-কানুন মুখস্থ করা এবং হাস্যকরভাবে এগুলো শনাক্ত করা এবং গঠনগত কিছু পার্থক্য করা। তারা কখনোই ভাষা শিক্ষার জন্য নিবেদিত ছিল না। এই শিক্ষার্থীরা ইংরেজি বলতে লজ্জাবোধ করত, পরিস্থিতি যতই ভয়ংকর হোক মুখ ফুটবে না কিন্তু কলম চলবে। শিক্ষা বোর্ডগুলো এমনভাবে প্রশ্নপত্র প্রণয়ন করত যে, শিক্ষার্থী, অভিভাবক এবং শিক্ষার্থীরা এই প্রক্রিয়ার বাহিরে গিয়ে ভাবার আদৌ কোন সুযোগ পেত না, এক্ষেত্রে তারা অনৈতিক পথ অবলম্বনে পিছ-পা হতো না, বইয়ের নাম ছিল কামিউনিকেশন ইংলিশ বাস্তবে কামিউনিকেশনের কোন অস্তিত্ব ছিল না। একজন শিক্ষক হিসেবে অবাক হই, এই ভ্রান্ত পদ্ধতি কীভাবে এত বছর ধরে চলল এবং এর সপক্ষে একটা প্রজন্মকে দাঁড় করানো হলো। বিস্ময়ের শেষ থাকে না যখন দেখি বিভিন্ন পর্যায়ের কিছু শিক্ষক এই ব্যর্থ কালিকুলামের পক্ষে কথা বলে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ঝড় সৃৃষ্টি করে কিছুটা ভাইরাল হওয়ার আশায়।

এবার নতুন কারিকুলামে ইংরেজি শিক্ষার পদ্ধতি ও উপযোগিতা নিয়ে কিছু আলোচনা করা যাক। ভাষা শিক্ষার মৌলিক চারটি দিকÑ শোনা-বলা-পড়া ও লেখা; নতুন কারিকুলামে এই চারটি মৌলিক দিকের প্রতি সমান গুরুত্ব দিয়ে পাশাপাশি ভাষার নান্দনিকতার ওপর আলাদা জোর দেয়া হয়েছে। বাস্তব জীবনে কোন পরিস্থিতিতে একজন শিক্ষার্থী কোন ধরনের সমস্যায় পড়তে পারে এবং বিভিন্ন পর্যায়ে ভাষার প্রয়োগ সম্পর্কে তাদের ধারণা সৃষ্টি হচ্ছে। শ্রেণীকক্ষ ও শ্রেণীকক্ষের বাইরে শিক্ষার্থীরা এখন ইংরেজি ভাষা ব্যবহারে উৎসাহিত হচ্ছে। দলগত প্রতিটি কাজের শেষে তাদের উপস্থাপনা করতে হয়। এতে তাদের যোগাযোগের দক্ষতা বৃদ্ধি পাচ্ছে এবং বলার ক্ষেত্রে ভয় ও জড়তা দূর হচ্ছে।

৬ষ্ঠ থেকে ৭ম পর্যন্ত বইয়ে বিখ্যাত লেখকদের লেখাগুলো আকর্ষণীয় ও মজাদার ফলে শিক্ষার্থীরা আনন্দের মধ্য দিয়ে শিখছে। প্রতিটি অভিজ্ঞতার শেষে তাদের ধারাবাহিক মূল্যায়ন করা হচ্ছে ফলে স্বল্প সময়ের মধ্যে শিখন ঘাটতি চিহ্নিত ও পূরণ করা সম্ভব হচ্ছে। শিক্ষার্থীদের বাক্য তৈরির দক্ষতা বৃদ্ধি পাচ্ছে ফলে তাদের মধ্যে লাইন বাই লাইন বাক্য মুখস্থ করার প্রবণতা কমছে। বাক্য তৈরি করাতে না পারা ইংরেজি ভাষা শেখার ক্ষেত্রে বড় অন্তরায়।

শিক্ষার উদ্দেশ্য কখনো প্রথম বা দ্বিতীয় হওয়া বা ৮০% এর উপায় নম্বর পাওয়া নয়। শিক্ষার উদ্দেশ্য অবশ্যই নৈতিক গুণ সম্পন্ন ব্যক্তি সৃষ্টি করা। সাহিত্য সব সময়ই একটা পজেটিভ বার্তা বহন করে যা শিক্ষার্থীদের মনোজগৎকে আলোড়িত করে এবং তাদের নৈতিক গুণাবলী অর্জনে অন্যতম সহায়ক ভূমিকা পালন করে। নতুন কারিকুলামের ইংরেজি বইগুলোতে উল্লেখযোগ্য হারে সাহিত্য (নাটক, কবিতা, গল্প, রচনা ও উপন্যাস) সংযোজিত হয়েছে ফলে তারা ভাষা শিক্ষার পাশাপাশি অধিক মানবিক গুণসম্পন্ন হচ্ছে।

নতুন কারিকুলাম নিঃসন্দেহে অন্ধকার গ্রামার শিক্ষার যুগকে বিদায় জনাবে কেননা গ্রামার শিক্ষা মানেই ভাষা শিক্ষা নয় এবং জীবনভিত্তিক ইংরেজি শেখার পথ সুগম করে দিবে। তবে আশাবাদী হওয়ার পাশাপাশি কিছু ঝুঁকিও আছে। অন্ধকার সব সময় আলোর চার পাশেই থাকে। ধারাবাহিক মূল্যায়ন সঠিকভাবে পরিচালিত হচ্ছে কিনা এগুলো দেখার জন্য আরো অধিক দক্ষ জনবল দরকার এবং ঢালাও মূল্যায়নের সুযোগ সৃষ্টি হতে না দেয়া, শিক্ষকদের পেশাদারত্ব বৃদ্ধিতে আরও প্রশিক্ষণ ও তার বাস্তবায়নের লক্ষে মনিটরিং হওয়া জরুরি। পাশাপাশি শিক্ষকদের সম্মান, আর্থিক সচ্ছলতা ও সামাজিক মর্যাদা নিশ্চিত করা নতুন কারিকুলাম বিশেষ করে ইংরেজি শিক্ষার পরিবর্তনের ধারা অব্যহত রাখার জন্য অত্যন্ত আবশ্যক।

[লেখক : সহকারী শিক্ষক (ইংরেজি), তাসলিমা মেমোরিয়াল একাডেমি, পাথরঘাটা, বরগুনা]

back to top