alt

উপ-সম্পাদকীয়

করোনাকালে বোধের রোদন

রাশিদা বেগম

: রোববার, ০২ মে ২০২১

মৃত্যু মানুষের জীবনের অনিবার্য পরিণতি। মৃত্যুকে অস্বীকার করার উপায় নেই। পৃথিবী সৃষ্টির পর থেকেই মানুষ মৃত্যুশোক বহন করে চলেছে। জন্মের পর থেকেই মানুষের বেঁচে থাকার আকাঙ্খা প্রবল। মা-বাবা, ভাই- বোন আর অপূর্ব সৃষ্টি পৃথিবী ছেড়ে পরপারে কেউ যেতে চায় না। মানুষের সবচেয়ে দুর্বল জায়গাটি মমতাময়ী মায়ের কোল। তারপর বাবা, ভাই-বোন, স্বামী-স্ত্রী ও আত্মীয়-স্বজন। এই আত্মিক সম্পর্কের মধ্যদিয়েই গড়ে উঠেছে সমাজ, রাষ্ট্র। সমাজ মূলত সম্পর্কের ওপর ভিত্তি করেই টিকে আছে। আজ এই সমাজের ভিত কাঁপিয়ে দিয়েছে করোনাভাইরাস। বিশ্বজুড়ে চলছে মানুষের ছুটোছুটি। চলছে প্রাণ বাঁচানোর লড়াই। এক অদৃশ্য মারণশক্তির কাছে হেরে যাচ্ছে লাখো প্রাণ। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের মতো সবচেয়ে চ্যালেঞ্জিং সময় পার করছি আমরা।

চীনের হুবেই প্রদেশের উহান রাজধানীতে ২০১৯ সালের ২৭ ডিসেম্বর করোনাভাইরাসের প্রথম অশুভ যাত্রা। তারপর তিন মাসের মধ্যে গোটা বিশ্বে ছড়িয়ে পড়ে এই ভাইরাস। বাংলাদেশে ২০২০ সালের ৮ মার্চ প্রথম করোনা আক্রান্ত রোগীর শনাক্তের ঘোষণা আসে। এক বছরের বেশি সময় ধরে মারা গেছে ১০ হাজারের বেশি মানুষ। ২০২১ সালে ভয়াবহ রূপে এসেছে দ্বিতীয় ঢেউ। এত মৃত্যু, এত লাশ, এত গণকবর, এত শোক আর আর্তনাদ পৃথিবীর ইতিহাসে আর দেখা যায়নি। বাংলাদেশে মৃতের সংখ্যা ১১৫৭৯ জন। আক্রান্ত প্রায় ৮ লাখ। এই সংখ্যা দিন দিন বাড়ছে।

ভালোবাসার বন্ধনে আবদ্ধ প্রতিটি মানুষ। সেই ভালোবাসা স্বামীর সঙ্গে স্ত্রীর, সন্তানের সঙ্গে মা-বাবার কিংবা মা-বাবার সঙ্গে সন্তানের, ভাইয়ের সঙ্গে বোনের এমনকি আত্মীয়-স্বজনের সঙ্গেও। এই বন্ধনে সামান্য আঘাত আসলে আমারা উদ্বিগ্ন হই, কষ্ট পাই। কারো অসুখ, মৃত্যু স্বজনদের কাঁদায়, শোকে ভাসায়। এক সময় শোক স্তিমিত হয়ে আসে।

কিন্তু বর্তমান করোনাভাইরাস তো পদ্মার ঢেউয়ের মতো একটি ঢেউ আরেকটি ঢেউকে অনিবার্য করে তুলেছে। ঢেউ মিলিয়ে যাচ্ছে নাতো! একজন মা পারে না মৃত সন্তানকে শেষবারের মতো স্পর্শ করতে। স্বামী পারে না স্ত্রীকে একবার দেখতে। সন্তান পারে না মা-বাবাকে একটু ছুঁয়ে দিতে। কেউ আবার হাসপাতালে অজ্ঞান অবস্থায় প্রিয়জন হারিয়েছে। অনেকে হাসপাতালে বেড না পেয়ে রাস্তায় মারা গেছে। আর লাশটি সবার অলক্ষ্যে গণকবরে চলে গেছে। এর চেয়ে বড় ট্র্যাজেডি কী হতে পারে? প্রিয়জন হারানোর শোক শেষ হয় না। সময়ের ব্যবধানে হয়তো অন্তরে সুপ্ত অবস্থায় থাকে। তবে কখনও কখনও হৃদয়মূলে নাড়া দিয়ে ওঠে। পুনরায় জেগে ওঠে সেই শোক। কিন্তু করোনায় প্রিয়জন হারানো ভয়াবহরূপে হৃদয়ে ক্ষত তৈরি করছে। হারানোর শূন্যতায় অন্তরে দেখা দিচ্ছে বৃহৎ গহ্বর। এই গহ্বর অপূরণীয়। আমরা পারি না প্রিয়মুখটি কাছে গিয়ে দেখতে। পারি না পরম মমতায় শেষবার ছুঁয়ে দিতে। প্রিয়জন থেকে আজ আমরা বহুদূরে। স্পর্শের বাইরে। বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ছি। এই বিচ্ছন্নতাবোধের যন্ত্রণায় কাতরাচ্ছি যার যার গন্তব্যে। তাই বেঁচে থাকার প্রাণান্ত চেষ্টায় আজ বাবার বিরুদ্ধে মা, সন্তানের বিরুদ্ধে মা-বাবা, স্বামীর বিরুদ্ধে স্ত্রী, ভাইবোনের বিরুদ্ধে ভাই-বোন, আত্মীয়ের বিরুদ্ধে আত্মীয় দাঁড়িয়েছে। বাঁচতে হবে। আত্মিক বন্ধন রক্ষা করতে হবে।

প্রিয়জনের হাত ছেড়ে পৃথিবী থেকে বিদায় নেয়ার মতো সুখটুকুন কেউ পাচ্ছে না। এমন ট্র্যাজেডি পৃথিবীর ইতিহাসে নেই। এত মৃত্যু আর লাশের স্তূপে কারও না কারও প্রিয়মুখ। বেঁচে থেকে জীবনের এই নির্মম ট্র্যাজেডি বহন করার মতো নয়। কেউ জানে না এই ট্র্যাজেডির শেষ কোথায়? তবু ভেঙে পড়লে চলবে না। সৃষ্টিকর্তা নিশ্চয় সহায় হবেন। এই ঘোর অমানিশা দূর হয়ে নতুন ভোর দেখা দেবে। স্বজনহারা ব্যথা ভুলে নতুনভাবে উজ্জীবিত হোক প্রতিটি প্রাণ। প্রকৃতির নির্মল বাতাসে নিশ্বাস ফেলে স্বস্তি ফিরে আসুক সবার জীবনে।

লেখক : প্রভাষক,বাংলা বিভাগ, পাঁচকান্দি ডিগ্রি কলেজ, মনোহরদী, নরসিংদী।

brashida946@gmail.com

বিশ্ব রক্তদাতা দিবস

ভূমিকম্প : প্রস্তুতি থাকলে মোকাবিলা করতে সুবিধা

মাগুরছড়ায় পরিবেশ-প্রতিবেশ হত্যার বিচার কি হবে না

ছবি

টিকা কখন

ছবি

সূর্যডিম

বাজেটে উপেক্ষিত আদিবাসীরা

ছবি

কোভিড-১৯ : ভ্যাকসিন তৈরি ও কর্মকৌশল

বাজেট ২০২১-২২

শিক্ষকদের বোবাকান্না

ছবি

তাদের আমি খুঁজে বেড়াই

ছবি

বাজেট কি সাধারণ মানুষের প্রত্যাশা পূরণ করতে পারবে

প্রান্তিক শিশুর মনোসামাজিক অবস্থা

শিক্ষা বাজেট : সংকট ও সম্ভাবনা

চোখ রাঙাচ্ছে করোনার ডেল্টা ভ্যারিয়েন্ট

উদ্যোক্তা উন্নয়নে চাই সামগ্রিক পরিকল্পনা

মাশরুম প্রকল্প কার জন্য?

হাফিজ হয়তো আগেই চলে গেছে

বনাখলা ও আগার খাসিপুঞ্জির ন্যায়বিচার

খাদেম ভিসা ও কিছু কথা

ব্যাংক ঋণ চাই

বাজেট কি গণমুখী

বঙ্গবন্ধুর দ্বিতীয় বিপ্লব

ছবি

ডায়ানার সাক্ষাৎকার বিতর্ক : ঘটনা ও তদন্ত

পান গাছ না থাকলে খাসিয়ারা বাঁচবে কী করে

ছবি

ছয় দফা : জাতির মুক্তিসনদ

ডায়ানার সাক্ষাৎকার বিতর্ক : ঘটনা ও তদন্ত

মধ্যবিত্তবিহীন ঝুঁকিপূর্ণ উন্নয়ন কৌশল

ছবি

ইসরায়েলে ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা

পরিবেশ নিয়ে সচেতনতা জরুরি

ছবি

ডায়ানার সাক্ষাৎকার বিতর্ক : ঘটনা ও তদন্ত

তিস্তার ডান তীরের মঙ্গা

বাস্তুতন্ত্র পুনরুদ্ধার

ডায়ানার সাক্ষাৎকার বিতর্ক : ঘটনা ও তদন্ত

ছবি

দেশের চা শিল্পে অগ্রযাত্রা

ছবি

কৃষকের চেয়েও বেশি লাভবান হচ্ছে ব্যবসায়ী ও মিলমালিক

ছবি

ডায়ানার সাক্ষাৎকার বিতর্ক : ঘটনা ও তদন্ত

tab

উপ-সম্পাদকীয়

করোনাকালে বোধের রোদন

রাশিদা বেগম

রোববার, ০২ মে ২০২১

মৃত্যু মানুষের জীবনের অনিবার্য পরিণতি। মৃত্যুকে অস্বীকার করার উপায় নেই। পৃথিবী সৃষ্টির পর থেকেই মানুষ মৃত্যুশোক বহন করে চলেছে। জন্মের পর থেকেই মানুষের বেঁচে থাকার আকাঙ্খা প্রবল। মা-বাবা, ভাই- বোন আর অপূর্ব সৃষ্টি পৃথিবী ছেড়ে পরপারে কেউ যেতে চায় না। মানুষের সবচেয়ে দুর্বল জায়গাটি মমতাময়ী মায়ের কোল। তারপর বাবা, ভাই-বোন, স্বামী-স্ত্রী ও আত্মীয়-স্বজন। এই আত্মিক সম্পর্কের মধ্যদিয়েই গড়ে উঠেছে সমাজ, রাষ্ট্র। সমাজ মূলত সম্পর্কের ওপর ভিত্তি করেই টিকে আছে। আজ এই সমাজের ভিত কাঁপিয়ে দিয়েছে করোনাভাইরাস। বিশ্বজুড়ে চলছে মানুষের ছুটোছুটি। চলছে প্রাণ বাঁচানোর লড়াই। এক অদৃশ্য মারণশক্তির কাছে হেরে যাচ্ছে লাখো প্রাণ। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের মতো সবচেয়ে চ্যালেঞ্জিং সময় পার করছি আমরা।

চীনের হুবেই প্রদেশের উহান রাজধানীতে ২০১৯ সালের ২৭ ডিসেম্বর করোনাভাইরাসের প্রথম অশুভ যাত্রা। তারপর তিন মাসের মধ্যে গোটা বিশ্বে ছড়িয়ে পড়ে এই ভাইরাস। বাংলাদেশে ২০২০ সালের ৮ মার্চ প্রথম করোনা আক্রান্ত রোগীর শনাক্তের ঘোষণা আসে। এক বছরের বেশি সময় ধরে মারা গেছে ১০ হাজারের বেশি মানুষ। ২০২১ সালে ভয়াবহ রূপে এসেছে দ্বিতীয় ঢেউ। এত মৃত্যু, এত লাশ, এত গণকবর, এত শোক আর আর্তনাদ পৃথিবীর ইতিহাসে আর দেখা যায়নি। বাংলাদেশে মৃতের সংখ্যা ১১৫৭৯ জন। আক্রান্ত প্রায় ৮ লাখ। এই সংখ্যা দিন দিন বাড়ছে।

ভালোবাসার বন্ধনে আবদ্ধ প্রতিটি মানুষ। সেই ভালোবাসা স্বামীর সঙ্গে স্ত্রীর, সন্তানের সঙ্গে মা-বাবার কিংবা মা-বাবার সঙ্গে সন্তানের, ভাইয়ের সঙ্গে বোনের এমনকি আত্মীয়-স্বজনের সঙ্গেও। এই বন্ধনে সামান্য আঘাত আসলে আমারা উদ্বিগ্ন হই, কষ্ট পাই। কারো অসুখ, মৃত্যু স্বজনদের কাঁদায়, শোকে ভাসায়। এক সময় শোক স্তিমিত হয়ে আসে।

কিন্তু বর্তমান করোনাভাইরাস তো পদ্মার ঢেউয়ের মতো একটি ঢেউ আরেকটি ঢেউকে অনিবার্য করে তুলেছে। ঢেউ মিলিয়ে যাচ্ছে নাতো! একজন মা পারে না মৃত সন্তানকে শেষবারের মতো স্পর্শ করতে। স্বামী পারে না স্ত্রীকে একবার দেখতে। সন্তান পারে না মা-বাবাকে একটু ছুঁয়ে দিতে। কেউ আবার হাসপাতালে অজ্ঞান অবস্থায় প্রিয়জন হারিয়েছে। অনেকে হাসপাতালে বেড না পেয়ে রাস্তায় মারা গেছে। আর লাশটি সবার অলক্ষ্যে গণকবরে চলে গেছে। এর চেয়ে বড় ট্র্যাজেডি কী হতে পারে? প্রিয়জন হারানোর শোক শেষ হয় না। সময়ের ব্যবধানে হয়তো অন্তরে সুপ্ত অবস্থায় থাকে। তবে কখনও কখনও হৃদয়মূলে নাড়া দিয়ে ওঠে। পুনরায় জেগে ওঠে সেই শোক। কিন্তু করোনায় প্রিয়জন হারানো ভয়াবহরূপে হৃদয়ে ক্ষত তৈরি করছে। হারানোর শূন্যতায় অন্তরে দেখা দিচ্ছে বৃহৎ গহ্বর। এই গহ্বর অপূরণীয়। আমরা পারি না প্রিয়মুখটি কাছে গিয়ে দেখতে। পারি না পরম মমতায় শেষবার ছুঁয়ে দিতে। প্রিয়জন থেকে আজ আমরা বহুদূরে। স্পর্শের বাইরে। বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ছি। এই বিচ্ছন্নতাবোধের যন্ত্রণায় কাতরাচ্ছি যার যার গন্তব্যে। তাই বেঁচে থাকার প্রাণান্ত চেষ্টায় আজ বাবার বিরুদ্ধে মা, সন্তানের বিরুদ্ধে মা-বাবা, স্বামীর বিরুদ্ধে স্ত্রী, ভাইবোনের বিরুদ্ধে ভাই-বোন, আত্মীয়ের বিরুদ্ধে আত্মীয় দাঁড়িয়েছে। বাঁচতে হবে। আত্মিক বন্ধন রক্ষা করতে হবে।

প্রিয়জনের হাত ছেড়ে পৃথিবী থেকে বিদায় নেয়ার মতো সুখটুকুন কেউ পাচ্ছে না। এমন ট্র্যাজেডি পৃথিবীর ইতিহাসে নেই। এত মৃত্যু আর লাশের স্তূপে কারও না কারও প্রিয়মুখ। বেঁচে থেকে জীবনের এই নির্মম ট্র্যাজেডি বহন করার মতো নয়। কেউ জানে না এই ট্র্যাজেডির শেষ কোথায়? তবু ভেঙে পড়লে চলবে না। সৃষ্টিকর্তা নিশ্চয় সহায় হবেন। এই ঘোর অমানিশা দূর হয়ে নতুন ভোর দেখা দেবে। স্বজনহারা ব্যথা ভুলে নতুনভাবে উজ্জীবিত হোক প্রতিটি প্রাণ। প্রকৃতির নির্মল বাতাসে নিশ্বাস ফেলে স্বস্তি ফিরে আসুক সবার জীবনে।

লেখক : প্রভাষক,বাংলা বিভাগ, পাঁচকান্দি ডিগ্রি কলেজ, মনোহরদী, নরসিংদী।

brashida946@gmail.com

back to top