alt

উপ-সম্পাদকীয়

রোজিনার মুক্তি : যেতে হবে আরও অনেক পথ

রণেশ মৈত্র

: সোমবার, ৩১ মে ২০২১

গত ২৩ মে অপরাহ্ণে কারাগার থেকে শর্তাধীন জামিনে মুক্তি পেলেন গাজীপুরের কাশিমপুর মহিলা কারাগার থেকে। এখন তার বিরুদ্ধে দায়েরকৃত মামলা প্রত্যাহার এবং স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাসহ দায়ী সব ব্যক্তির কঠোর শাস্তি প্রদানের লক্ষ্যে তাদের বিরুদ্ধে অবিলম্বে মামলা দায়ের ও গ্রেপ্তার করা হোক। এই মৌলিক দাবিগুলোর সঙ্গে আর একটি গুরুত্বপূর্ণ দাবি হলো ঔপনিবেশিক যুগের কাল আইন অফিসিয়াল সিক্রেটস অ্যাক্ট ও সাংবাদিকতার স্বাধীনতা হরণকারী ডিজিট্যাল নিরাপত্তা আইন বাতিল। সংবাদপত্র ও সাংবাদিকতার স্বাধীনতা এগুলো ছাড়া নিশ্চিত হতে পারে না।

রোজিনা ইসলাম সত্য উদ্ঘাটন করতে গিয়ে কারারুদ্ধ হলেন মহান মুক্তিযুদ্ধের সুবর্ণজয়ন্তীর এই বছরে। বস্তুত: শুধু রোজিনা নন, আক্রান্ত হয়েছে গণতন্ত্র, গণতান্ত্রিক অধিকার, যা প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যই ছিল মহান মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ লক্ষ্য। পাকিস্তান আমলে এই লক্ষ্য অর্জনে বছরের পর বছর ধরে ক্লান্তিহীনভাবে লড়াই করেছেন কিংবদন্তি জননেতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমান, মওলানা আবদুল হামিদ খান ভাসানী, কমরেড মণি সিংহ, স্বনামধন্য সাংবাদিক তফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়া, জহুর হোসেন চৌধরী, কেজি মুস্তফা, নির্মল সেন, কামাল লোহানী প্রমুখই নন শুধ, সংবাদপত্রের স্বাধীনতা ও আটক সাংবাদিকদের মুক্তির দাবি ঢাকার সাংবাদিকদের আয়োজিত মিছিলে খোদ মওলানা আকরাম খানকেও বার্ধক্য উপেক্ষা করে অংশ নিতে দেখেছি। ওই মিছিলের একটি ব্যানারে আমার নামও লেখা ছিল আটককৃত সাংবাদিকদের মধ্যে অন্যতম হিসেবে যদিও বরাবরই আমার কর্মক্ষেত্র ছির ছোট জেলা শহর পাবনা। একটানা আড়াই বছর আটক থাকার পর ওই মিছিলের দিনই সকালে ঢাকা জেলা থেকে মুক্তি পেয়ে ঢাকা প্রেস ক্লাবে গেলে ঠাট্টা করে কেজি মুস্তফা বলেছিলেন, এই রণেশ বাবু, মুক্তি পেলেন কখন? বললাম, ঘণ্টা খানেক আগে। বেরিয়ে ‘সংবাদ’ অফিসে যেতেই তোয়াব ভাই বলেনে, আটক সাংবাদিকদের মুক্তি দাবিতে অল্পক্ষণ পরেই মিছিল বেরুবে। চাইলে মিছিলে যেতে পারেন। অমনি পোটলা-পুটলি সংবাদ অফিসে রেখে দে ছুট। গিয়ে দেখি প্রেস ক্লাবে সবাই প্রস্তুতি নিচ্ছেন মিছিল বের করার। হেসে কেজি ভাই বললেন, ‘এসেই যখন গেছেন-তখন সবার সঙ্গে নিজের মুক্তির দাবিতেও মিছিলে অংশ নিন। এই বলে একটা ব্যানার দেখালেন, যাতে আমার নাম লাল কালি দিয়ে বড় বড় অক্ষরে লেখা ছিল। বললাম, ওটা তা হলে রেখে দিন। অন্যেরা রাজি হলেন না। তাই ওটা সহই মিছিল বেরুলো। আমিও ছিলাম সঙ্গে। ঢাকার সব পত্রিকার প্রায় সব সাংবাদিকের সঙ্গে মিছিলে পা মেলানোর সুযোগ ওই একবারই জুটেছিল ষাটর অগ্নিঝরা দশকে। আজও তা স্মৃতিতে অম্লান।

যা হোক, পাকিস্তান আমলজুড়েই এমন মিছিল-ধর্মঘট করেছেন সাংবাদিকেরা-রাজনৈতিক দলগুলিও। আর তার পরিণতিতেই মুক্তিযুদ্ধ পেলাম, পেলাম স্বাধীনতা সার্বভৌম গণতান্ত্রিক বাংলাদেশ। পেলাম বাহাত্তরের সংবিধান যাতে নাগরিকদের মৌলিক অধিকার, সর্বজননীত মতোপ্রকাশের অধিকার, সাংবাদিকতার অধিকার, সংবাদপত্রের স্বাধীনতার অধিকারের পরিপূর্ণ স্বীকৃতি।

বাহাত্তরের ওই সংবিধান অনেক কাটাছেঁড়া করার পরেও মৌলিক অধিকার সংক্রান্ত ধারাগুলো অক্ষতই আছে। কিন্তু যা দেখা যায়। সেগুলো অমান্য করাই যেন এ আমলের কর্তৃপক্ষের রীতি ও নীতি। তবে কি আবারও দীর্ঘমেয়াদি আন্দোলনে নামতে হবে স্বাধীন দেশের সাংবাদিকদের?

আন্দোলন কোন সৌখিন ব্যাপার না। তাই দায়ে না ঠেকলে অধিকার হরণ করা হলে আন্দোলনে নামা ছাড়া গত্যন্তর থাকে না।

সাংবাদিক ও সাংবাদিকতা প্রসঙ্গে বলছি। বলছি দুর্নীতি প্রসঙ্গে। রোজিনা তার পত্রিকায় দায়িত্ব সহকারে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সীমাহীন দুর্নীতি নিয়ে লিখে মন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের বিরাগ ভাজন হয়েছিলেন। সেই কর্মকর্তারা রোজিনাকে উচিত শিক্ষা দিতেই সুযোগ পেয়ে সচিবালয়ে পাঁচ ঘণ্টা আটকে রাখলেন, গলা টিপে ধরলেন কিল ঘুঁষি মারলেন এবং অবশেষে তার বিরুদ্ধে মোকর্দমা দিলেন। যে যে আইনে এই মামলা দায়ের হলো-তা জনস্বার্থের বিরোধী, সংবাদপত্রের স্বাধীনতারও বিরোধী। সুতরাং দেশে সুষ্ঠু সাংবাদিকতার স্বার্থে, গণতন্ত্রের স্বার্থে, দুর্নীতিমুক্ত সমাজ গড়ার কাজে নিয়োজিত সাংবাদিকদের, তাদের পেশাগত নৈতিকতা সম্পন্ন দেশপ্রেমিক কাজে বাধা এলে, তা সে যে কোন মহল থেকেই বা যে কোন শক্তিশারী মহল থেকেই আসুক না কেন-তা প্রতিরোধে আন্দোলনে নামতেই হবে।

রোজিনার মুক্তি দাবিতে দেশে-বিদেশে যে বিশাল আন্দোলন গড়ে উঠলো-তা না হলে তার মুক্তি হতো কিনা-নিশ্চিত করে বলা যায় না। এখন জামিনে মুক্তি হলেও-সর্বাধিক গুরুত্বপূর্ণ ইস্যুগুলো এখনও অমীমাংসিত। যেমন?

এক. রোজিনা ইসলামের বিরুদ্ধে আনীত মোকর্দমা অবিলম্বে প্রত্যাহার করতে হবে;

দুই. যে ঔপনিবেশিক এবং সংবাদপত্রের স্বাধীনতা, সাংবাদিকদের স্বাধীনতা হরণকারী আইনগুলো-যেমন “অফিশিয়াল সিক্রেটস অ্যাক্ট”, “ডিজিটাল সিকিউরিটি অ্যাক্ট অবিলম্বে বাতিল করে সংবাদপত্র-সাংবাদিকদের নিশ্চিত করতে হবে;

তিন. সচিবালয়ের যে সব কর্মকর্তা-কর্মচারী রোজিনা ইসলামকে শারীরিক ও মানসিকভাবে হেনস্তা করেছেন অবৈধভাবে রোজিনাকে সচিবালয়ের একটি কক্ষে আটকে রেখে-তাদের সবাইকে চাকরিচ্যুত করে তাদের বিরুদ্ধে রোজিনাকে হত্যা প্রচেষ্টা ও অপরাপর অভিযোগে মামলা দায়ের করে কঠোর শাস্তির ব্যবস্থা করতে হবে।

এ দাবিগুলো সহজে আদায় হবে বলে মনে হয় না। আর তা না হলে সংবাদপত্র বা গণমাধ্যম ও সাংবাদিকতার স্বাধীনতা ও গণতান্ত্রিক অধিকার সুনিশ্চিত করা যাবে না।

তাই কর্তৃপক্ষকে সংসদের বাজেট অধিবেশনেই আইনগুলো বাতিল, তার আগেই রোজিনার বিরুদ্ধে বিচারাধীন মামলা প্রত্যাহার ও নির্যাতনকারীকে চাকরিচ্যুত ও তাদের বিরুদ্ধে মামলা দায়েরের আল্টিমেটাম দিয়ে, নির্ধারিত সময়ের মধ্যে দাবিসমূহ অর্জিত না হলে দীর্ঘমেয়াদি আন্দোলনে নামার বিকল্প নেই।

[লেখক : সভাপতিমন্ডলীর সদস্য, ঐক্য ন্যাপ]

পাহাড়ধস : পার্বত্য অঞ্চলের শোক মিছিল

করোনায় বেড়েছে অভিশপ্ত বাল্যবিয়ে : প্রসঙ্গ জন্মনিবন্ধন

মৃত্যুর ক্রন্দন নয়, ধ্বনিত হোক জীবনের স্পন্দন

বুকের দুধই হোক নবজাতকের প্রথম খাবার

সম্পদে হিন্দু নারীর অধিকার প্রসঙ্গে

ছবি

কোভিড-১৯ সচেতনতা ও সাঁওতাল স্বেচ্ছাসেবী

মুক্তিযুদ্ধ ও মুজিব বাহিনী

বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বনাম উদ্ভাবন ও উন্নতি

পদ্মার ভয়াবহ ভাঙন

ছবি

লকডাউন, না বাঁশের নিচে হেডডাউন?

প্রাণের মাঝে আয়

সরকারি চাকরিজীবীদের সম্পদের হিসাব মিলবে কি?

প্রধানমন্ত্রীর আশ্রয়ণ প্রকল্প

শেয়ারবাজারে বিনিয়োগ : সম্ভাবনা ও শঙ্কা

ছবি

চীন এবং আফগানিস্তানে তালেবান : সম্পর্ক ও নতুন সমীকরণ

এ তুফান ভারি, দিতে হবে পাড়ি, নিতে হবে তরী পার

ছবি

দেশের প্রথম সবাক চলচ্চিত্রের অভিনেত্রী

ছবি

পার্বত্য চট্টগ্রামে ধর্মীয় সম্প্রীতি বিনষ্টের নেপথ্যে কী

জনতার সংগ্রাম কখনও ব্যর্থ হয় না

বাঁচতে হলে মানতে হবে

এমপিওভুক্ত বেসরকারি শিক্ষকদের দাবি

ছবি

স্মরণ : বোধিপাল মহাথেরো

সংকটে জীবন ও জীবিকা

মুক্তিযুদ্ধ ও মুজিব বাহিনী

টিকাদান কর্মসূচির গতি বাড়াতে হবে

কৃষিতে জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব

ছবি

শিক্ষার্থীদের ডিজিটাল আসক্তি

ছবি

উদ্বাস্তু শিশুদের শিক্ষা

ক্ষমতায় ফিরছে তালেবান?

ন্যাপ : বাম ধারার উন্মেষ

ছবি

জনতার বিক্ষোভে অশান্ত কিউবা

রাষ্ট্র বনাম জনগণ, নাকি রাষ্ট্র ও জনগণ?

ছবি

করোনা যুদ্ধে মাস্কই প্রধান অস্ত্র

হাসপাতালের সেবা ও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের তালা

কাজুবাদাম সংগ্রহ ও সংগ্রহোত্তর ব্যবস্থাপনা

টানেলের ওপারে যাওয়ার রোডম্যাপ চাই

tab

উপ-সম্পাদকীয়

রোজিনার মুক্তি : যেতে হবে আরও অনেক পথ

রণেশ মৈত্র

সোমবার, ৩১ মে ২০২১

গত ২৩ মে অপরাহ্ণে কারাগার থেকে শর্তাধীন জামিনে মুক্তি পেলেন গাজীপুরের কাশিমপুর মহিলা কারাগার থেকে। এখন তার বিরুদ্ধে দায়েরকৃত মামলা প্রত্যাহার এবং স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাসহ দায়ী সব ব্যক্তির কঠোর শাস্তি প্রদানের লক্ষ্যে তাদের বিরুদ্ধে অবিলম্বে মামলা দায়ের ও গ্রেপ্তার করা হোক। এই মৌলিক দাবিগুলোর সঙ্গে আর একটি গুরুত্বপূর্ণ দাবি হলো ঔপনিবেশিক যুগের কাল আইন অফিসিয়াল সিক্রেটস অ্যাক্ট ও সাংবাদিকতার স্বাধীনতা হরণকারী ডিজিট্যাল নিরাপত্তা আইন বাতিল। সংবাদপত্র ও সাংবাদিকতার স্বাধীনতা এগুলো ছাড়া নিশ্চিত হতে পারে না।

রোজিনা ইসলাম সত্য উদ্ঘাটন করতে গিয়ে কারারুদ্ধ হলেন মহান মুক্তিযুদ্ধের সুবর্ণজয়ন্তীর এই বছরে। বস্তুত: শুধু রোজিনা নন, আক্রান্ত হয়েছে গণতন্ত্র, গণতান্ত্রিক অধিকার, যা প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যই ছিল মহান মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ লক্ষ্য। পাকিস্তান আমলে এই লক্ষ্য অর্জনে বছরের পর বছর ধরে ক্লান্তিহীনভাবে লড়াই করেছেন কিংবদন্তি জননেতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমান, মওলানা আবদুল হামিদ খান ভাসানী, কমরেড মণি সিংহ, স্বনামধন্য সাংবাদিক তফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়া, জহুর হোসেন চৌধরী, কেজি মুস্তফা, নির্মল সেন, কামাল লোহানী প্রমুখই নন শুধ, সংবাদপত্রের স্বাধীনতা ও আটক সাংবাদিকদের মুক্তির দাবি ঢাকার সাংবাদিকদের আয়োজিত মিছিলে খোদ মওলানা আকরাম খানকেও বার্ধক্য উপেক্ষা করে অংশ নিতে দেখেছি। ওই মিছিলের একটি ব্যানারে আমার নামও লেখা ছিল আটককৃত সাংবাদিকদের মধ্যে অন্যতম হিসেবে যদিও বরাবরই আমার কর্মক্ষেত্র ছির ছোট জেলা শহর পাবনা। একটানা আড়াই বছর আটক থাকার পর ওই মিছিলের দিনই সকালে ঢাকা জেলা থেকে মুক্তি পেয়ে ঢাকা প্রেস ক্লাবে গেলে ঠাট্টা করে কেজি মুস্তফা বলেছিলেন, এই রণেশ বাবু, মুক্তি পেলেন কখন? বললাম, ঘণ্টা খানেক আগে। বেরিয়ে ‘সংবাদ’ অফিসে যেতেই তোয়াব ভাই বলেনে, আটক সাংবাদিকদের মুক্তি দাবিতে অল্পক্ষণ পরেই মিছিল বেরুবে। চাইলে মিছিলে যেতে পারেন। অমনি পোটলা-পুটলি সংবাদ অফিসে রেখে দে ছুট। গিয়ে দেখি প্রেস ক্লাবে সবাই প্রস্তুতি নিচ্ছেন মিছিল বের করার। হেসে কেজি ভাই বললেন, ‘এসেই যখন গেছেন-তখন সবার সঙ্গে নিজের মুক্তির দাবিতেও মিছিলে অংশ নিন। এই বলে একটা ব্যানার দেখালেন, যাতে আমার নাম লাল কালি দিয়ে বড় বড় অক্ষরে লেখা ছিল। বললাম, ওটা তা হলে রেখে দিন। অন্যেরা রাজি হলেন না। তাই ওটা সহই মিছিল বেরুলো। আমিও ছিলাম সঙ্গে। ঢাকার সব পত্রিকার প্রায় সব সাংবাদিকের সঙ্গে মিছিলে পা মেলানোর সুযোগ ওই একবারই জুটেছিল ষাটর অগ্নিঝরা দশকে। আজও তা স্মৃতিতে অম্লান।

যা হোক, পাকিস্তান আমলজুড়েই এমন মিছিল-ধর্মঘট করেছেন সাংবাদিকেরা-রাজনৈতিক দলগুলিও। আর তার পরিণতিতেই মুক্তিযুদ্ধ পেলাম, পেলাম স্বাধীনতা সার্বভৌম গণতান্ত্রিক বাংলাদেশ। পেলাম বাহাত্তরের সংবিধান যাতে নাগরিকদের মৌলিক অধিকার, সর্বজননীত মতোপ্রকাশের অধিকার, সাংবাদিকতার অধিকার, সংবাদপত্রের স্বাধীনতার অধিকারের পরিপূর্ণ স্বীকৃতি।

বাহাত্তরের ওই সংবিধান অনেক কাটাছেঁড়া করার পরেও মৌলিক অধিকার সংক্রান্ত ধারাগুলো অক্ষতই আছে। কিন্তু যা দেখা যায়। সেগুলো অমান্য করাই যেন এ আমলের কর্তৃপক্ষের রীতি ও নীতি। তবে কি আবারও দীর্ঘমেয়াদি আন্দোলনে নামতে হবে স্বাধীন দেশের সাংবাদিকদের?

আন্দোলন কোন সৌখিন ব্যাপার না। তাই দায়ে না ঠেকলে অধিকার হরণ করা হলে আন্দোলনে নামা ছাড়া গত্যন্তর থাকে না।

সাংবাদিক ও সাংবাদিকতা প্রসঙ্গে বলছি। বলছি দুর্নীতি প্রসঙ্গে। রোজিনা তার পত্রিকায় দায়িত্ব সহকারে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সীমাহীন দুর্নীতি নিয়ে লিখে মন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের বিরাগ ভাজন হয়েছিলেন। সেই কর্মকর্তারা রোজিনাকে উচিত শিক্ষা দিতেই সুযোগ পেয়ে সচিবালয়ে পাঁচ ঘণ্টা আটকে রাখলেন, গলা টিপে ধরলেন কিল ঘুঁষি মারলেন এবং অবশেষে তার বিরুদ্ধে মোকর্দমা দিলেন। যে যে আইনে এই মামলা দায়ের হলো-তা জনস্বার্থের বিরোধী, সংবাদপত্রের স্বাধীনতারও বিরোধী। সুতরাং দেশে সুষ্ঠু সাংবাদিকতার স্বার্থে, গণতন্ত্রের স্বার্থে, দুর্নীতিমুক্ত সমাজ গড়ার কাজে নিয়োজিত সাংবাদিকদের, তাদের পেশাগত নৈতিকতা সম্পন্ন দেশপ্রেমিক কাজে বাধা এলে, তা সে যে কোন মহল থেকেই বা যে কোন শক্তিশারী মহল থেকেই আসুক না কেন-তা প্রতিরোধে আন্দোলনে নামতেই হবে।

রোজিনার মুক্তি দাবিতে দেশে-বিদেশে যে বিশাল আন্দোলন গড়ে উঠলো-তা না হলে তার মুক্তি হতো কিনা-নিশ্চিত করে বলা যায় না। এখন জামিনে মুক্তি হলেও-সর্বাধিক গুরুত্বপূর্ণ ইস্যুগুলো এখনও অমীমাংসিত। যেমন?

এক. রোজিনা ইসলামের বিরুদ্ধে আনীত মোকর্দমা অবিলম্বে প্রত্যাহার করতে হবে;

দুই. যে ঔপনিবেশিক এবং সংবাদপত্রের স্বাধীনতা, সাংবাদিকদের স্বাধীনতা হরণকারী আইনগুলো-যেমন “অফিশিয়াল সিক্রেটস অ্যাক্ট”, “ডিজিটাল সিকিউরিটি অ্যাক্ট অবিলম্বে বাতিল করে সংবাদপত্র-সাংবাদিকদের নিশ্চিত করতে হবে;

তিন. সচিবালয়ের যে সব কর্মকর্তা-কর্মচারী রোজিনা ইসলামকে শারীরিক ও মানসিকভাবে হেনস্তা করেছেন অবৈধভাবে রোজিনাকে সচিবালয়ের একটি কক্ষে আটকে রেখে-তাদের সবাইকে চাকরিচ্যুত করে তাদের বিরুদ্ধে রোজিনাকে হত্যা প্রচেষ্টা ও অপরাপর অভিযোগে মামলা দায়ের করে কঠোর শাস্তির ব্যবস্থা করতে হবে।

এ দাবিগুলো সহজে আদায় হবে বলে মনে হয় না। আর তা না হলে সংবাদপত্র বা গণমাধ্যম ও সাংবাদিকতার স্বাধীনতা ও গণতান্ত্রিক অধিকার সুনিশ্চিত করা যাবে না।

তাই কর্তৃপক্ষকে সংসদের বাজেট অধিবেশনেই আইনগুলো বাতিল, তার আগেই রোজিনার বিরুদ্ধে বিচারাধীন মামলা প্রত্যাহার ও নির্যাতনকারীকে চাকরিচ্যুত ও তাদের বিরুদ্ধে মামলা দায়েরের আল্টিমেটাম দিয়ে, নির্ধারিত সময়ের মধ্যে দাবিসমূহ অর্জিত না হলে দীর্ঘমেয়াদি আন্দোলনে নামার বিকল্প নেই।

[লেখক : সভাপতিমন্ডলীর সদস্য, ঐক্য ন্যাপ]

back to top