alt

উপ-সম্পাদকীয়

তাদের আমি খুঁজে বেড়াই

জ্যোর্তিময় ধর

: শুক্রবার, ১১ জুন ২০২১
image

‘১৯৭১ সালে তোমাদের দেশে যে ভয়ঙ্কর গণহত্যা, ধর্ষণ, ধ্বংসযজ্ঞ, দেশত্যাগ, গ্রামের পর গ্রাম পুড়িয়ে দেয়ার মতো ঘটনা ঘটেছে সেটা এত অবিশ্বাস্য যে আজ থেকে ১০-২০ বছর পর পৃথিবীর কেউ এটি বিশ্বাস করবে না’ জনৈক মার্কিন গবেষকের উক্তি। মুক্তিযুদ্ধের চার যুগ পার হওয়ার আগেই ওই গবেষকের ভবিষ্যদ্বাণী অক্ষরে অক্ষরে সত্যি প্রমাণিত হয়েছে। তাই এখনও তিন লাখ তা ৩০ লাখ নিয়ে এখানকার বুদ্ধিজীবীরা তর্কে লিপ্ত। এই ব্যাপারে আমাদের সুশীল সমাজের সবচেয়ে বড় ভূমিকা রাখার কথা। কিন্তু আমাদের দুর্ভাগ্য এই দেশের সব বুদ্ধিজীবীরা সেই দায়িত্ব পালন করতে রাজি নন। ‘নিরপেক্ষতা’, ‘বাকস্বাধীনতা’ এ রকম বড় বড় শব্দ ব্যবহার করে তারা মুক্তিযুদ্ধের প্রতিষ্ঠিত সত্যগুলোর মূল ধরে টানাটানি শুরু করেছেন। আপনারা কি জানেন চট্টগ্রামের পাহাড়তলী বধ্যভূমির শুধু একটা গর্ত থেকে ১ হাজার ১০০টা মাথার খুলি পাওয়া গিয়েছিল। সেই বধ্যভূমিতে এরকম প্রায় ১০০টি গর্ত ছিল। আর WCFC-র হিসাব অনুসারে সারাদেশে এখন পর্যন্ত আবিষ্কৃত হয়েছে ৯৪২টি। যে বুদ্ধিজীবীরা এই দেশের তরুণ প্রজন্মকে দিক নির্দেশনা দেবেন তারাই যদি উল্টো তাদের বিভ্রান্ত করতে শুরু করেন তাহলে আমার হতাশা অনুভব করা উচিত ছিল। কিন্তু আমি বিন্দুমাত্র হতাশ নই।

যাই হোক মূল প্রসঙ্গে ফিরে আসি। বেশ কিছুদিন আগে আমার স্যার কিংশুক দাশ চৌধুরী সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম দুজন অপরিচিত মহান মুক্তিযুদ্ধে শহীদের ব্যাপারে একটা লেখা পোস্ট দিয়েছিল, তা চোখে পড়ে। আমি উৎসাহিত হয়ে, সেই শহীদের একজনের সমাধি পরিদর্শনে যাই এবং আরও তথ্য সংগ্রহে কমিউনিস্ট পার্টির অশোক সাহা এবং কমরেড শাহ আলমের সঙ্গে যোগাযোগ করি। পরে যা জানলাম, সে ঘটনা রীতিমতো অবিশ্বাস্য। মুক্তিযুদ্ধের এ রকম নাম না জানা শহীদদের মতো তারাও হয়তো একদিন হারিয়ে যাবেন। সেই শহীদ দুজন পিসি বর্মন এবং তার সন্তান রতন বর্মন।

শ্রী প্রবোধ চন্দ্র বর্মন, যিনি শহরে পিসি বর্মন নামেই বেশি পরিচিত ছিলেন। তিনি ছিলেন তৎকালীন চট্টগ্রাম ইউনিয়ন ব্যাংকের ডাইরেক্টর যেটা এখন জনতা ব্যাংক। পাকিস্তানিরা এই ব্যাংক হস্তগত করতে ১৯৬৮ সালে কৌশলে উনাকে মিথ্যা মামলায় জড়িয়ে জেলে দিয়েছিল। জেলে থাকা অবস্থায় তার সঙ্গে ছিলেন চট্টগ্রামের ওই সময়কার তুখোড় নেতারা, তাদের মধ্যে অন্যতম কমরেড পূর্ণেন্দু দস্তিদার, কমরেড শাহ আলম, এসএম ইউসুফ প্রমুখ।

কমরেড শাহ আলমের স্মৃতিচারণ থেকে জানা যায়, পিসি বর্মন দেখতে শুনতে সুপুরুষ ছিলেন, কবিগুরু রবীন্দ্রনাথের মতো দাড়ি। তিনি নির্বিরোধ, মার্জিত এবং সংস্কৃতমনা মানুষ ছিলেন। জেলে বসে কমিউনিস্ট পার্টির লোকজনের সান্নিধ্যে আসার কারণে তিনি ধীরে ধীরে বাংলার স্বাধিকার আন্দোলনে জড়িয়ে পড়েন। জেলে বসে তিনি নিজে কবিতা লিখে রাজবন্দীদের পড়ে শোনাতেন। ১৯৭১ সালের ৭ এপ্রিল তার কর্মস্থল ইউনিয়ন ব্যাংক কার্যালয় থেকে পাকিস্তান আর্মি তাকে তুলে নিলেও তার অতি মার্জিত ও ভদ্র ব্যাবহারে তাকে আবার ছেড়ে দেয়। পরের দিন ৮ এপ্রিল সন্ধ্যার দিকে পাকিস্তান আর্মি, রাজাকারদের সহায়তায় নন্দন কানন ১ নং গলির বাসা ঘেরাও করে এবং এলোপাতাড়ি গুলি ছুড়তে থাকে, যে গুলির দাগ এখনও তার বাসভবনে ইতিহাসের সাক্ষী হয়ে আছে। তাকে টেনে-হিঁচড়ে বাইরে নিয়ে এসে নন্দনকানন পুকুরপাড়ে গুলি করা হয় এবং মৃতদেহ ওখানেই পুঁতে ফেলা হয়। তার সমাধি এখনও অযত্নে-অবহেলায় আমাদের চট্টগ্রাম শহরে নন্দন কানন ১নং গলিতে পড়ে আছে। এটা শুধু সমাধি নয়- এগুলো একটি জাতির ইতিহাসের একটি গুরুত্বপূর্ণ অধ্যায়, যা সংরক্ষণ এখন অতিব জরুরি।

অন্যদিকে রতন কুমার বর্মন চট্টগ্রামে ছাত্র ইউনিয়নের নেতা ছিলেন। মুক্তিযুদ্ধের শুরুতে তিনি সংগঠক হিসেবে শহর ত্যাগ করেন। তিনি তার বাবা শ্রী প্রবোধ চন্দ্র বর্মনকে বার বার শহর ত্যাগের অনুরোধ করেছিলেন। কিন্তু তার বাবা চট্টগ্রাম শহর ছেড়ে কোথাও যাননি। গোপন সূত্রে খবর পেয়েছিলেন যে তার বাবার জীবন বিপন্ন। তাই বাবাকে শহর থেকে নিয়ে যেতে তিনি কর্ণফুলীর ওপাড় থেকে আসার প্রাক্কালে চাক্তাই ঘাটে তিনি রাজাকারদের হাতে সন্ধ্যায় ধরা পড়েন। পাকিস্তান আর্মিদের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রের অভিযোগে তাকে গুলি করে মারা হয় এবং লাশ ছুড়ে ফেলা হয় কর্ণফুলীতে। ভরা পূর্ণিমায় রক্তস্নাত হলো প্রবল প্রমত্তা কর্ণফুলী। সবশেষে আমাদের মনে রাখতে হবে, মুক্তিযুদ্ধ আমাদের শ্রেষ্ঠ অর্জন। মুক্তিযুদ্ধের গল্প, প্রসব যন্ত্রণায় কাতর মায়ের এক একটা আর্তনাদ। অনেকের অজানা এই দুই শহীদের কথা, বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের তথ্য ও দলিল এ উল্লেখ নেই। পিসি বর্মন এর সমাধিটা নন্দন কানন ১নং গলিতে অযত্নে আর অবহেলায় পড়ে আছে। আমাদের বীর চট্টলার এই দুই শহীদের জন্য কি আমাদের কিছুই করার নেই?

[লেখক : প্রকৌশলী, জার্মান ইনস্টিটিউট অব অলটারনেটিভ এনার্জির বাংলাদেশ প্রতিনিধি]

বুকের দুধই হোক নবজাতকের প্রথম খাবার

সম্পদে হিন্দু নারীর অধিকার প্রসঙ্গে

ছবি

কোভিড-১৯ সচেতনতা ও সাঁওতাল স্বেচ্ছাসেবী

মুক্তিযুদ্ধ ও মুজিব বাহিনী

বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বনাম উদ্ভাবন ও উন্নতি

পদ্মার ভয়াবহ ভাঙন

ছবি

লকডাউন, না বাঁশের নিচে হেডডাউন?

প্রাণের মাঝে আয়

সরকারি চাকরিজীবীদের সম্পদের হিসাব মিলবে কি?

প্রধানমন্ত্রীর আশ্রয়ণ প্রকল্প

শেয়ারবাজারে বিনিয়োগ : সম্ভাবনা ও শঙ্কা

ছবি

চীন এবং আফগানিস্তানে তালেবান : সম্পর্ক ও নতুন সমীকরণ

এ তুফান ভারি, দিতে হবে পাড়ি, নিতে হবে তরী পার

ছবি

দেশের প্রথম সবাক চলচ্চিত্রের অভিনেত্রী

ছবি

পার্বত্য চট্টগ্রামে ধর্মীয় সম্প্রীতি বিনষ্টের নেপথ্যে কী

জনতার সংগ্রাম কখনও ব্যর্থ হয় না

বাঁচতে হলে মানতে হবে

এমপিওভুক্ত বেসরকারি শিক্ষকদের দাবি

ছবি

স্মরণ : বোধিপাল মহাথেরো

সংকটে জীবন ও জীবিকা

মুক্তিযুদ্ধ ও মুজিব বাহিনী

টিকাদান কর্মসূচির গতি বাড়াতে হবে

কৃষিতে জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব

ছবি

শিক্ষার্থীদের ডিজিটাল আসক্তি

ছবি

উদ্বাস্তু শিশুদের শিক্ষা

ক্ষমতায় ফিরছে তালেবান?

ন্যাপ : বাম ধারার উন্মেষ

ছবি

জনতার বিক্ষোভে অশান্ত কিউবা

রাষ্ট্র বনাম জনগণ, নাকি রাষ্ট্র ও জনগণ?

ছবি

করোনা যুদ্ধে মাস্কই প্রধান অস্ত্র

হাসপাতালের সেবা ও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের তালা

কাজুবাদাম সংগ্রহ ও সংগ্রহোত্তর ব্যবস্থাপনা

টানেলের ওপারে যাওয়ার রোডম্যাপ চাই

মুক্তিযুদ্ধ ও মুজিব বাহিনী

করোনাকালে সামাজিকীকরণ প্রক্রিয়ার চ্যালেঞ্জ

উন্নয়ন প্রকল্পে দুর্নীতি

tab

উপ-সম্পাদকীয়

তাদের আমি খুঁজে বেড়াই

জ্যোর্তিময় ধর

image

শুক্রবার, ১১ জুন ২০২১

‘১৯৭১ সালে তোমাদের দেশে যে ভয়ঙ্কর গণহত্যা, ধর্ষণ, ধ্বংসযজ্ঞ, দেশত্যাগ, গ্রামের পর গ্রাম পুড়িয়ে দেয়ার মতো ঘটনা ঘটেছে সেটা এত অবিশ্বাস্য যে আজ থেকে ১০-২০ বছর পর পৃথিবীর কেউ এটি বিশ্বাস করবে না’ জনৈক মার্কিন গবেষকের উক্তি। মুক্তিযুদ্ধের চার যুগ পার হওয়ার আগেই ওই গবেষকের ভবিষ্যদ্বাণী অক্ষরে অক্ষরে সত্যি প্রমাণিত হয়েছে। তাই এখনও তিন লাখ তা ৩০ লাখ নিয়ে এখানকার বুদ্ধিজীবীরা তর্কে লিপ্ত। এই ব্যাপারে আমাদের সুশীল সমাজের সবচেয়ে বড় ভূমিকা রাখার কথা। কিন্তু আমাদের দুর্ভাগ্য এই দেশের সব বুদ্ধিজীবীরা সেই দায়িত্ব পালন করতে রাজি নন। ‘নিরপেক্ষতা’, ‘বাকস্বাধীনতা’ এ রকম বড় বড় শব্দ ব্যবহার করে তারা মুক্তিযুদ্ধের প্রতিষ্ঠিত সত্যগুলোর মূল ধরে টানাটানি শুরু করেছেন। আপনারা কি জানেন চট্টগ্রামের পাহাড়তলী বধ্যভূমির শুধু একটা গর্ত থেকে ১ হাজার ১০০টা মাথার খুলি পাওয়া গিয়েছিল। সেই বধ্যভূমিতে এরকম প্রায় ১০০টি গর্ত ছিল। আর WCFC-র হিসাব অনুসারে সারাদেশে এখন পর্যন্ত আবিষ্কৃত হয়েছে ৯৪২টি। যে বুদ্ধিজীবীরা এই দেশের তরুণ প্রজন্মকে দিক নির্দেশনা দেবেন তারাই যদি উল্টো তাদের বিভ্রান্ত করতে শুরু করেন তাহলে আমার হতাশা অনুভব করা উচিত ছিল। কিন্তু আমি বিন্দুমাত্র হতাশ নই।

যাই হোক মূল প্রসঙ্গে ফিরে আসি। বেশ কিছুদিন আগে আমার স্যার কিংশুক দাশ চৌধুরী সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম দুজন অপরিচিত মহান মুক্তিযুদ্ধে শহীদের ব্যাপারে একটা লেখা পোস্ট দিয়েছিল, তা চোখে পড়ে। আমি উৎসাহিত হয়ে, সেই শহীদের একজনের সমাধি পরিদর্শনে যাই এবং আরও তথ্য সংগ্রহে কমিউনিস্ট পার্টির অশোক সাহা এবং কমরেড শাহ আলমের সঙ্গে যোগাযোগ করি। পরে যা জানলাম, সে ঘটনা রীতিমতো অবিশ্বাস্য। মুক্তিযুদ্ধের এ রকম নাম না জানা শহীদদের মতো তারাও হয়তো একদিন হারিয়ে যাবেন। সেই শহীদ দুজন পিসি বর্মন এবং তার সন্তান রতন বর্মন।

শ্রী প্রবোধ চন্দ্র বর্মন, যিনি শহরে পিসি বর্মন নামেই বেশি পরিচিত ছিলেন। তিনি ছিলেন তৎকালীন চট্টগ্রাম ইউনিয়ন ব্যাংকের ডাইরেক্টর যেটা এখন জনতা ব্যাংক। পাকিস্তানিরা এই ব্যাংক হস্তগত করতে ১৯৬৮ সালে কৌশলে উনাকে মিথ্যা মামলায় জড়িয়ে জেলে দিয়েছিল। জেলে থাকা অবস্থায় তার সঙ্গে ছিলেন চট্টগ্রামের ওই সময়কার তুখোড় নেতারা, তাদের মধ্যে অন্যতম কমরেড পূর্ণেন্দু দস্তিদার, কমরেড শাহ আলম, এসএম ইউসুফ প্রমুখ।

কমরেড শাহ আলমের স্মৃতিচারণ থেকে জানা যায়, পিসি বর্মন দেখতে শুনতে সুপুরুষ ছিলেন, কবিগুরু রবীন্দ্রনাথের মতো দাড়ি। তিনি নির্বিরোধ, মার্জিত এবং সংস্কৃতমনা মানুষ ছিলেন। জেলে বসে কমিউনিস্ট পার্টির লোকজনের সান্নিধ্যে আসার কারণে তিনি ধীরে ধীরে বাংলার স্বাধিকার আন্দোলনে জড়িয়ে পড়েন। জেলে বসে তিনি নিজে কবিতা লিখে রাজবন্দীদের পড়ে শোনাতেন। ১৯৭১ সালের ৭ এপ্রিল তার কর্মস্থল ইউনিয়ন ব্যাংক কার্যালয় থেকে পাকিস্তান আর্মি তাকে তুলে নিলেও তার অতি মার্জিত ও ভদ্র ব্যাবহারে তাকে আবার ছেড়ে দেয়। পরের দিন ৮ এপ্রিল সন্ধ্যার দিকে পাকিস্তান আর্মি, রাজাকারদের সহায়তায় নন্দন কানন ১ নং গলির বাসা ঘেরাও করে এবং এলোপাতাড়ি গুলি ছুড়তে থাকে, যে গুলির দাগ এখনও তার বাসভবনে ইতিহাসের সাক্ষী হয়ে আছে। তাকে টেনে-হিঁচড়ে বাইরে নিয়ে এসে নন্দনকানন পুকুরপাড়ে গুলি করা হয় এবং মৃতদেহ ওখানেই পুঁতে ফেলা হয়। তার সমাধি এখনও অযত্নে-অবহেলায় আমাদের চট্টগ্রাম শহরে নন্দন কানন ১নং গলিতে পড়ে আছে। এটা শুধু সমাধি নয়- এগুলো একটি জাতির ইতিহাসের একটি গুরুত্বপূর্ণ অধ্যায়, যা সংরক্ষণ এখন অতিব জরুরি।

অন্যদিকে রতন কুমার বর্মন চট্টগ্রামে ছাত্র ইউনিয়নের নেতা ছিলেন। মুক্তিযুদ্ধের শুরুতে তিনি সংগঠক হিসেবে শহর ত্যাগ করেন। তিনি তার বাবা শ্রী প্রবোধ চন্দ্র বর্মনকে বার বার শহর ত্যাগের অনুরোধ করেছিলেন। কিন্তু তার বাবা চট্টগ্রাম শহর ছেড়ে কোথাও যাননি। গোপন সূত্রে খবর পেয়েছিলেন যে তার বাবার জীবন বিপন্ন। তাই বাবাকে শহর থেকে নিয়ে যেতে তিনি কর্ণফুলীর ওপাড় থেকে আসার প্রাক্কালে চাক্তাই ঘাটে তিনি রাজাকারদের হাতে সন্ধ্যায় ধরা পড়েন। পাকিস্তান আর্মিদের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রের অভিযোগে তাকে গুলি করে মারা হয় এবং লাশ ছুড়ে ফেলা হয় কর্ণফুলীতে। ভরা পূর্ণিমায় রক্তস্নাত হলো প্রবল প্রমত্তা কর্ণফুলী। সবশেষে আমাদের মনে রাখতে হবে, মুক্তিযুদ্ধ আমাদের শ্রেষ্ঠ অর্জন। মুক্তিযুদ্ধের গল্প, প্রসব যন্ত্রণায় কাতর মায়ের এক একটা আর্তনাদ। অনেকের অজানা এই দুই শহীদের কথা, বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের তথ্য ও দলিল এ উল্লেখ নেই। পিসি বর্মন এর সমাধিটা নন্দন কানন ১নং গলিতে অযত্নে আর অবহেলায় পড়ে আছে। আমাদের বীর চট্টলার এই দুই শহীদের জন্য কি আমাদের কিছুই করার নেই?

[লেখক : প্রকৌশলী, জার্মান ইনস্টিটিউট অব অলটারনেটিভ এনার্জির বাংলাদেশ প্রতিনিধি]

back to top