alt

উপ-সম্পাদকীয়

সেই শব্দের একটা সীমিত মাত্রা থাকে

এম এ কবীর

: রোববার, ২৪ অক্টোবর ২০২১

এক.

ট্রাফিক সিগন্যাল। সেখানে আটকা পড়লে নামিদামি ব্র্যান্ডের ধেয়ে চলা গাড়িগুলো নববধূর মতো বসে থাকে। ছায়ার নিচে চোখ মুদে বসে থাকা ভিক্ষুকরা তখন ধড়ফড় করে উঠে দাঁড়ায়। দু’হাত দিয়ে দুই চোখ কচলাতে কচলাতে দ্রুত পায়ে গাড়িগুলোর দিকে এগিয়ে যায়। হাতের ইশারায় আর আঙুলের উল্টো পিঠ দিয়ে জানালার কাচে অতি সন্তর্পণে ঠকঠক শব্দ করে। সেই শব্দের একটা সীমিত মাত্রা থাকে। প্রতিযোগিতায় অংশ নেয়া এইসব ভিক্ষুকরা কতটা অসহায় আমাদের জানা নেই। জীবনযুদ্ধে টিকে থাকা এই মানুষগুলোকে আর যাই হোক কখনো পরাজিত করা যায় না। এরা জিততে না পারলেও, হার মানে না। হার মানা এদের ধাতে নেই। বাঁচার জন্য নত না হয়ে শিরদাঁড়া উঁচু করে জীবিকা নির্বাহের জন্য পৃথিবীর সঙ্গে যুদ্ধ করে বেঁচে থাকাইবা কম কী!

দুই.

ফেসবুক গণতন্ত্রের জন্য বিরাট হুমকি সৃষ্টি করেছে। আবার কোন দেশ বা অঞ্চলের গণতান্ত্রিক অবস্থা কেমন, তা বিচারের অন্যতম মানদন্ড হিসেবে দেখা হচ্ছে সামাজিক মাধ্যমের প্ল্যাটফর্মগুলোতে প্রবেশ এবং সেখানে নিজের মতো প্রকাশের স্বাধীনতার বিষয়টিকে। সেখানে রাষ্ট্রীয় নিয়ন্ত্রণকে দেখা হচ্ছে গণতন্ত্রের জন্য হুমকি হিসেবে। এই দুইয়ের টানাটানিতে সবচেয়ে করুণ অবস্থা হয়েছে বেচারা গণতন্ত্রের। কীসে যে সে থাকে, এবং কীসে যে থাকে না, তা বোঝা মুশকিল।

তিন.

শান্তিতে নোবেল পুরস্কার ঘোষণা হয়েছে। এই পুরস্কার এবার যৌথভাবে দুই সাংবাদিক পেয়েছেন। একজন রাশিয়ার দিমিত্রি মুরাতভ, অন্যজন ফিলিপাইনের মারিয়া রেসা। একজন ভ্লাদিমির পুতিনের দেশের লোক, অন্যজন রদ্রিগো দুতার্তের দেশের, যে দুই দেশ গোটা বিশ্বে একচেটিয়া শাসনের কারণে বেশ আলোচিত। এ অবস্থার মধ্যেই মারিয়া রেসা সাক্ষাৎকার দিলেন বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে। সেখানে তিনি বললেন, ‘ঘৃণা ও ভুয়া তথ্য ছড়িয়েপড়া ঠেকাতে ব্যর্থ হয়েছে ফেসবুক কর্তৃপক্ষ। এর মধ্য দিয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমটি গণতন্ত্রের জন্য হুমকি তৈরি করছে।’ এমন এক সময় মারিয়া রেসা এ মন্তব্য করলেন, যখন সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমটির ওপর ‘ভীতিকর ও মুসলিমবিদ্বেষী’ কনটেন্ট ছড়ানো ঠেকাতে ব্যর্থতার অভিযোগ এনেছেন প্রতিষ্ঠানটির সাবেক কর্মী ফ্রান্সেস হাউগেন। মার্কিন নির্বাচনে রুশ হস্তক্ষেপ থেকে শুরু করে ক্যাপিটল হিলে হামলা, সব ক্ষেত্রেই ফেসবুকের বিরুদ্ধে এমন অভিযোগ বারবার এসেছে। তবে মানুষের কাছে সংবাদের অন্যতম উৎস হয়ে উঠেছে ফেসবুকের মতো সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমগুলো। এগুলো আবার ওপেন প্ল্যাটফর্ম হওয়ায় যে যেমন পারছে, তেমন করে তথ্য দিচ্ছে। এর একেকটির একেক রকম উদ্দেশ্য থাকছে। ফেসবুকের বিরুদ্ধে মূল অভিযোগ হচ্ছে এই উদ্দেশ্যগুলোর মধ্য থেকে গুটিকয় উদ্দেশ্যকে উদ্দেশ্যমূলকভাবে ব্যবহার করা।

এবার আসা যাক ফ্রিডম হাউসের কাছে। কোন দেশে গণতন্ত্রের অবস্থা কী, তা নিরূপণে যে কয়টি মানদন্ড এই সংস্থার রয়েছে, তার মধ্যে অন্যতম হলো সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম। তাদের সর্বশেষ প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বিশ^জুড়েই ইন্টারনেটে স্বাধীনতা কমেছে। তাও এক-দু বছর ধরে নয়, এগারো বছর ধরে। সবচেয়ে বাজে অবস্থা মিয়ানমার, বেলারুশ ও উগান্ডার। বাংলাদেশের অবস্থানও খুব খারাপ। এ ক্ষেত্রে অনলাইনে প্রবেশযোগ্যতা, সবার জন্য এই সেবার প্রাপ্যতা, সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে নিজের মত প্রকাশের স্বাধীনতা ইত্যাদিকে গুরুত্বপূর্ণ সূচক হিসেবে দেখা হয়েছে। এই সব ক্ষেত্রেই অবনমন হয়েছে বাংলাদেশসহ বিশ্বের বহু দেশের। ফ্রিডম হাউস এই পরিস্থিতিকে গণতন্ত্রের জন্য হুমকি বলে মনে করছে। ফলে গণতন্ত্রের জন্য সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম যেন এক দু-ধারি তলোয়ারে পরিণত হয়েছে। এটি বন্ধ বা নিয়ন্ত্রিত থাকলেও গণতন্ত্র ঝুঁকিতে পড়ছে, আবার ব্যাপক সরব থাকলেও পড়ছে। এই বাস্তবতায় দাঁড়িয়ে একেকজন একেক ধরনের দাওয়াই দিচ্ছে। কেউ কেউ বলছে নিয়ন্ত্রণ করা হোক। খোদ ফেসবুকের ঊর্ধ্বতন এক কর্মকর্তা সম্প্রতি বলেছেন, কিছু ক্ষেত্রে ফেসবুকের অ্যালগরিদমে রাষ্ট্রীয় তদারককারী প্রতিষ্ঠানের প্রবেশাধিকার থাকা দরকার।

নতুন সময়ের এই প্রযুক্তির সঙ্গে দেশে দেশে বিদ্যমান আইনগুলো ঠিক পেরে উঠছে না। মানুষের অধিকারের প্রশ্নের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে এই আইনের যেমন নবায়ন হয়নি, তেমনি নতুন বাস্তবতার জন্য সামাজিক ও রাজনৈতিক চুক্তিটি ঠিক কী হবে, তাও নিশ্চিত নয়। এই অনিশ্চয়তাই এখন সবচেয়ে প্রভাবশালী। তাই, রাজনীতি প্রযুক্তিকে নিয়ন্ত্রণ করছে, নাকি প্রযুক্তি রাজনীতিকে নিয়ন্ত্রণ করছে, করলে মাত্রাটি ঠিক কী, এ দুইয়ের সম্পর্কই-বা কেমন হবে বা হওয়া উচিত, তা এখনো নির্ধারণে হিমশিম খেতে হচ্ছে।

হালের এই আলোচনাগুলো একটি সত্যের দিকেই নিয়ে যাচ্ছে, আর তা হলো সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম আদতে ‘নিমিত্ত মাত্র’। ওই যে ভানু বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিখ্যাত সংলাপ ‘যা করে দাদার খড়ম, আমি তো নিমিত্তমাত্র।’ শাসকের মধ্যে অধিকার খর্বের প্রবণতা বাড়ছে। আন্দোলন হচ্ছে না বললে অবশ্য এখনকার নেটাগরিকেরা একটু চটে যেতে পারেন। কিন্তু ভেবে দেখুন, অনলাইনে হ্যাশট্যাগ আন্দোলন, বা প্রোফাইল ছবি কালো করে ক্ষোভ জানানো, একের পর এক মিম তৈরি করে শাসকের সমালোচনা করা এতে আসলে কার কতটুকু আসে-যায়? বিপরীতে জনা বিশেক লোক রাস্তায় দাঁড়িয়ে অবরোধ করল, রাস্তায় যানজট ইত্যাদি সৃষ্টি হলো, আরও হাজারজন দাবিটি মন দিয়ে বা বিরক্তি নিয়ে শুনল, অর্থনীতির চাকায় একটা মৃদু ধাক্কা লাগল, সাধারণের নিত্যকার জীবনযাপনে একটা অস্বস্তি তৈরি হলো এতে ক’জনের কী এল-গেল?

গণতন্ত্রের জন্য সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম যেন এক দু-ধারি তলোয়ারে পরিণত হয়েছে। এটি বন্ধ বা নিয়ন্ত্রিত থাকলেও গণতন্ত্র ঝুঁকিতে পড়ছে, আবার ব্যাপক সরব থাকলেও পড়ছে

চার.

‘৪৭-উত্তর দৈনিক কাগজগুলোর যে প্রগতিশীল ও পক্ষপাতহীন কমিটমেন্ট ছিল তা স্বাধীনতা-উত্তর বাংলাদেশে ক্রমেই ক্ষয় হতে হতে আজ নির্বাসিত হতে চলেছে। তবে কি সাংবাদিকতার ক্ষেত্রে নীতিহীনতা বাসা বেঁধেছে? জ্বলজ্বল দিবাকরের মতো সত্য এই যে, সর্বত্র ভয়াবহ রাজনীতিকীকরণের ফসল আজকের সংবাদপত্রের মূল চরিত্রটিকে ভুলিয়ে দিতে বসেছে। সেই প্রেক্ষাপটে দাঁড়িয়ে দৈনিক কাগজ তার দায় আর ধরে রাখতে পারছে না। এই দায় শুধু সংবাদ পরিবেশনের ভেতরেই নিহিত নয়, বরং সংবাদ পর্যালোচনা, উপ-সম্পাদকীয়, এমনকি কখনো কখনো ফিচারপাতায়ও লেখকের নিজস্ব মুক্তমত বাধাগ্রস্ত হতে দেখা যায়। এর ফলে লেখকের মুক্তবুদ্ধিও আজ একটি চক্রব্যূহে আবদ্ধ। মূলত একচক্ষু হরিণের মতো পক্ষপাতিত্বের রাজনীতি পক্ষপাতহীন লেখক যেমন সৃষ্টি করতে পারে না, তেমনি সংবাদপত্রও তার নিরপেক্ষ দায়িত্ব পালনেও ব্যর্থ হচ্ছে।

পাঁচ.

‘কইন্যার মায়ে কান্দন কর ওইন উন্দালে বসিয়া/ অত মায়ার রি আমি কেমনে দিতাম বিয়া,/ কইন্যার বাপ অর মনমরা কান্দন দেখিয়া/ ঘরর লক্ষ্মী কিলা দিতাম বিদায় করিয়া...। ’

এটি একটি সিলেটি আঞ্চলিক গান। ইত্যাদিতে প্রচারিত হওয়ার পর এর ভিউ ছিল ১ কোটি ১৫ লাখ ৪৯ হাজার ১০টি। বিপুল জনপ্রিয় হওয়া এ গানটি বিয়ের গান হলেও এর শব্দে শব্দে,বাক্যে বাক্যে বিয়ের কনের জন্য মা-বাবার বেদনার্ত আকুতি। তোশিবা এর আগে আঞ্চলিকতা পেরিয়ে দেশ-বিদেশে ভাইরাল হন ‘আইলারে নয়া দামান’ গানটির রিমিক্স দিয়ে। এ গানটিও সিলেটি বহুল প্রচারিত একটি বিয়ের গান। এ গানটির মাঝে বিয়ের আনন্দময় হাসি-ঠাট্টা-তামাশার বার্তা রয়েছে। গানটির উপস্থাপন রীতিতে আনন্দমুখরতা তাই খুবই প্রাসঙ্গিক। লেখার শুরুতে উল্লিখিত গানটির লিরিক প্রমিত বাংলায় রূপান্তরিত করলে যা দাঁড়ায়, ‘মেয়ের মা চুলার পাশে বসে কান্না করছেন, এত আদরের মেয়ে তিনি কী করে বিয়ে দিয়ে পরের ঘরে পাঠাবেন। মেয়ের বাবারও মন খারাপ ঘরের লক্ষ্মীকে তিনি কী করে বিদায় দেন!’ পুরো গানটিতেই বিয়ের কনেকে ঘিরে কন্যার পিতা-মাতার আহাজারি। কন্যা বিদায়ের গভীর বিষাদ গানটির কথা-সুরে।

অথচ ইত্যাদিতে গানটি যেভাবে প্রচারিত হয়েছে, যে কোরিও গ্রাফি আর আনন্দমুখর প্রকাশভঙ্গিতে প্রকাশ করা হয়েছে, তাতে গানের মূল সুর, মূল বার্তা পুরোই হারিয়ে গেছে; বরং একটা ভুল বার্তা দর্শক- শ্রোতার কাছে পৌছে গেছে যে,এটি একটি মহা আনন্দের গান। কিন্তু ‘আছে দুঃখ আছে মৃত্যু...’ গানটি যদি লাল বেনারসি পরে কেউ নাচতে নাচতে গায়, তা যেমন বেমানান, কন্যা বিদায়ের ঘটনাকে কেন্দ্র করে এই বিষাদময় গানটিও শুধু উপস্থাপন-কৌশলের কারণে ভুল বার্তা ছড়িয়ে দিয়েছে সবখানে। শিল্প কিংবা সাহিত্যের যে কোনো শাখার একটি নিজস্ব ভাষ্য থাকে, বক্তব্য বা বার্তা থাকে। থাকে মানুষের মৌল অনুভূতির প্রকাশ। এই ভাষ্য, বার্তা, বক্তব্য কিংবা অনুভূতি ঠিকঠাক মানুষের কাছে পৌঁছানোও কম গুরুত্বপূর্ণ নয়। যে কোনো কিছু প্রচার ও প্রকাশের আগেই বিষয়টি নিয়ে ভাবা উচিত। নয়তো জন্মের আনন্দময় উদযাপন আর মৃত্যুর বিষাদময় যাত্রার অনুভূতির শৈল্পিক প্রকাশে কোনো পার্থক্য থাকে না।

[লেখক : সভাপতি,

ঝিনাইদহ জেলা রিপোর্টার্স ইউনিটি]

শিক্ষা ও ভবিষ্যৎ প্রজন্ম

ভালোমন্দ বোধ বিভ্রান্ত হয়

খালেদা জিয়ার বিদেশে চিকিৎসা

কলকাতার পুরভোট ও সমকালীন রাজনীতি

ছবি

জেলখানার চিঠি - পিতা-পুত্রের কথোপকথন

ছবি

আন্তর্জাতিক প্রতিবন্ধী দিবস

ছবি

নদী রক্ষার আন্দোলন

ছবি

রাজধানীর বাইরের শিক্ষার্থীরা কেন ‘হাফ পাস’ পাবে না

ছবি

রাজস্ব ও দেশের উন্নয়ন

অনলাইন জন্মনিবন্ধনে সমস্যা

ছবি

করোনার আরেক আতঙ্ক ওমিক্রন

শান্তিচুক্তি ও ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর অধিকার

পাঠ্যপুস্তক এবং আমাদের গোঁড়ামি

জগৎজ্যোতি দাস : ইতিহাসের বীরশ্রেষ্ঠ

শিক্ষা বিস্তারে সরকারিকরণ

জলবায়ু পরিবর্তনের ঝুঁকি

ছবি

বারবার কেন শিক্ষার্থীদের আন্দোলন করতে হচ্ছে

ছবি

প্রাথমিক শিক্ষা বোর্ড আইন বিতর্ক

সহনশীলতা : সৃষ্টির শক্তি

ছবি

ভোগ্যপণ্যের ওপর ডলারের দামের প্রভাব

ছবি

খেলা বনাম রাজনীতি

সুবর্ণ দিনের প্রত্যাশায়

ছবি

শহীদ ডা. মিলন ও স্বৈরাচারবিরোধী আন্দোলন

ভারতের কৃষি আইন, মোদির ঘোষণা এবং রাজনীতি

তামাক নিয়ন্ত্রণ কার্যক্রম বাস্তবায়ন নির্দেশিকা কেন দরকার?

খসড়া আয়কর আইন নিয়ে কিছু কথা

তেল-গ্যাস সংকট : হাত বাড়াতে হবে সমুদ্রে

ইউপি নির্বাচন ও ইসির ভূমিকা

আন্তর্জাতিক নারী নির্যাতন প্রতিরোধ দিবস

রোহিঙ্গা সংকট : নিরাপত্তা পরিষদেও প্রচেষ্টা চালাতে হবে

খেলার মাঠে পাকিস্তানপন্থার উল্লাস

পঞ্চাশের পাওয়া না-পাওয়া

ছবি

স্মরণ : লাল ঝান্ডা ও সম্পাদকের কলম

ছবি

স্মরণ : একজন সাহসী সম্পাদক

গ্লাসগো সম্মেলন থেকে কী মিলল?

জগৎজ্যোতি দাস : ইতিহাসের বীরশ্রেষ্ঠ

tab

উপ-সম্পাদকীয়

সেই শব্দের একটা সীমিত মাত্রা থাকে

এম এ কবীর

রোববার, ২৪ অক্টোবর ২০২১

এক.

ট্রাফিক সিগন্যাল। সেখানে আটকা পড়লে নামিদামি ব্র্যান্ডের ধেয়ে চলা গাড়িগুলো নববধূর মতো বসে থাকে। ছায়ার নিচে চোখ মুদে বসে থাকা ভিক্ষুকরা তখন ধড়ফড় করে উঠে দাঁড়ায়। দু’হাত দিয়ে দুই চোখ কচলাতে কচলাতে দ্রুত পায়ে গাড়িগুলোর দিকে এগিয়ে যায়। হাতের ইশারায় আর আঙুলের উল্টো পিঠ দিয়ে জানালার কাচে অতি সন্তর্পণে ঠকঠক শব্দ করে। সেই শব্দের একটা সীমিত মাত্রা থাকে। প্রতিযোগিতায় অংশ নেয়া এইসব ভিক্ষুকরা কতটা অসহায় আমাদের জানা নেই। জীবনযুদ্ধে টিকে থাকা এই মানুষগুলোকে আর যাই হোক কখনো পরাজিত করা যায় না। এরা জিততে না পারলেও, হার মানে না। হার মানা এদের ধাতে নেই। বাঁচার জন্য নত না হয়ে শিরদাঁড়া উঁচু করে জীবিকা নির্বাহের জন্য পৃথিবীর সঙ্গে যুদ্ধ করে বেঁচে থাকাইবা কম কী!

দুই.

ফেসবুক গণতন্ত্রের জন্য বিরাট হুমকি সৃষ্টি করেছে। আবার কোন দেশ বা অঞ্চলের গণতান্ত্রিক অবস্থা কেমন, তা বিচারের অন্যতম মানদন্ড হিসেবে দেখা হচ্ছে সামাজিক মাধ্যমের প্ল্যাটফর্মগুলোতে প্রবেশ এবং সেখানে নিজের মতো প্রকাশের স্বাধীনতার বিষয়টিকে। সেখানে রাষ্ট্রীয় নিয়ন্ত্রণকে দেখা হচ্ছে গণতন্ত্রের জন্য হুমকি হিসেবে। এই দুইয়ের টানাটানিতে সবচেয়ে করুণ অবস্থা হয়েছে বেচারা গণতন্ত্রের। কীসে যে সে থাকে, এবং কীসে যে থাকে না, তা বোঝা মুশকিল।

তিন.

শান্তিতে নোবেল পুরস্কার ঘোষণা হয়েছে। এই পুরস্কার এবার যৌথভাবে দুই সাংবাদিক পেয়েছেন। একজন রাশিয়ার দিমিত্রি মুরাতভ, অন্যজন ফিলিপাইনের মারিয়া রেসা। একজন ভ্লাদিমির পুতিনের দেশের লোক, অন্যজন রদ্রিগো দুতার্তের দেশের, যে দুই দেশ গোটা বিশ্বে একচেটিয়া শাসনের কারণে বেশ আলোচিত। এ অবস্থার মধ্যেই মারিয়া রেসা সাক্ষাৎকার দিলেন বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে। সেখানে তিনি বললেন, ‘ঘৃণা ও ভুয়া তথ্য ছড়িয়েপড়া ঠেকাতে ব্যর্থ হয়েছে ফেসবুক কর্তৃপক্ষ। এর মধ্য দিয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমটি গণতন্ত্রের জন্য হুমকি তৈরি করছে।’ এমন এক সময় মারিয়া রেসা এ মন্তব্য করলেন, যখন সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমটির ওপর ‘ভীতিকর ও মুসলিমবিদ্বেষী’ কনটেন্ট ছড়ানো ঠেকাতে ব্যর্থতার অভিযোগ এনেছেন প্রতিষ্ঠানটির সাবেক কর্মী ফ্রান্সেস হাউগেন। মার্কিন নির্বাচনে রুশ হস্তক্ষেপ থেকে শুরু করে ক্যাপিটল হিলে হামলা, সব ক্ষেত্রেই ফেসবুকের বিরুদ্ধে এমন অভিযোগ বারবার এসেছে। তবে মানুষের কাছে সংবাদের অন্যতম উৎস হয়ে উঠেছে ফেসবুকের মতো সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমগুলো। এগুলো আবার ওপেন প্ল্যাটফর্ম হওয়ায় যে যেমন পারছে, তেমন করে তথ্য দিচ্ছে। এর একেকটির একেক রকম উদ্দেশ্য থাকছে। ফেসবুকের বিরুদ্ধে মূল অভিযোগ হচ্ছে এই উদ্দেশ্যগুলোর মধ্য থেকে গুটিকয় উদ্দেশ্যকে উদ্দেশ্যমূলকভাবে ব্যবহার করা।

এবার আসা যাক ফ্রিডম হাউসের কাছে। কোন দেশে গণতন্ত্রের অবস্থা কী, তা নিরূপণে যে কয়টি মানদন্ড এই সংস্থার রয়েছে, তার মধ্যে অন্যতম হলো সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম। তাদের সর্বশেষ প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বিশ^জুড়েই ইন্টারনেটে স্বাধীনতা কমেছে। তাও এক-দু বছর ধরে নয়, এগারো বছর ধরে। সবচেয়ে বাজে অবস্থা মিয়ানমার, বেলারুশ ও উগান্ডার। বাংলাদেশের অবস্থানও খুব খারাপ। এ ক্ষেত্রে অনলাইনে প্রবেশযোগ্যতা, সবার জন্য এই সেবার প্রাপ্যতা, সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে নিজের মত প্রকাশের স্বাধীনতা ইত্যাদিকে গুরুত্বপূর্ণ সূচক হিসেবে দেখা হয়েছে। এই সব ক্ষেত্রেই অবনমন হয়েছে বাংলাদেশসহ বিশ্বের বহু দেশের। ফ্রিডম হাউস এই পরিস্থিতিকে গণতন্ত্রের জন্য হুমকি বলে মনে করছে। ফলে গণতন্ত্রের জন্য সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম যেন এক দু-ধারি তলোয়ারে পরিণত হয়েছে। এটি বন্ধ বা নিয়ন্ত্রিত থাকলেও গণতন্ত্র ঝুঁকিতে পড়ছে, আবার ব্যাপক সরব থাকলেও পড়ছে। এই বাস্তবতায় দাঁড়িয়ে একেকজন একেক ধরনের দাওয়াই দিচ্ছে। কেউ কেউ বলছে নিয়ন্ত্রণ করা হোক। খোদ ফেসবুকের ঊর্ধ্বতন এক কর্মকর্তা সম্প্রতি বলেছেন, কিছু ক্ষেত্রে ফেসবুকের অ্যালগরিদমে রাষ্ট্রীয় তদারককারী প্রতিষ্ঠানের প্রবেশাধিকার থাকা দরকার।

নতুন সময়ের এই প্রযুক্তির সঙ্গে দেশে দেশে বিদ্যমান আইনগুলো ঠিক পেরে উঠছে না। মানুষের অধিকারের প্রশ্নের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে এই আইনের যেমন নবায়ন হয়নি, তেমনি নতুন বাস্তবতার জন্য সামাজিক ও রাজনৈতিক চুক্তিটি ঠিক কী হবে, তাও নিশ্চিত নয়। এই অনিশ্চয়তাই এখন সবচেয়ে প্রভাবশালী। তাই, রাজনীতি প্রযুক্তিকে নিয়ন্ত্রণ করছে, নাকি প্রযুক্তি রাজনীতিকে নিয়ন্ত্রণ করছে, করলে মাত্রাটি ঠিক কী, এ দুইয়ের সম্পর্কই-বা কেমন হবে বা হওয়া উচিত, তা এখনো নির্ধারণে হিমশিম খেতে হচ্ছে।

হালের এই আলোচনাগুলো একটি সত্যের দিকেই নিয়ে যাচ্ছে, আর তা হলো সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম আদতে ‘নিমিত্ত মাত্র’। ওই যে ভানু বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিখ্যাত সংলাপ ‘যা করে দাদার খড়ম, আমি তো নিমিত্তমাত্র।’ শাসকের মধ্যে অধিকার খর্বের প্রবণতা বাড়ছে। আন্দোলন হচ্ছে না বললে অবশ্য এখনকার নেটাগরিকেরা একটু চটে যেতে পারেন। কিন্তু ভেবে দেখুন, অনলাইনে হ্যাশট্যাগ আন্দোলন, বা প্রোফাইল ছবি কালো করে ক্ষোভ জানানো, একের পর এক মিম তৈরি করে শাসকের সমালোচনা করা এতে আসলে কার কতটুকু আসে-যায়? বিপরীতে জনা বিশেক লোক রাস্তায় দাঁড়িয়ে অবরোধ করল, রাস্তায় যানজট ইত্যাদি সৃষ্টি হলো, আরও হাজারজন দাবিটি মন দিয়ে বা বিরক্তি নিয়ে শুনল, অর্থনীতির চাকায় একটা মৃদু ধাক্কা লাগল, সাধারণের নিত্যকার জীবনযাপনে একটা অস্বস্তি তৈরি হলো এতে ক’জনের কী এল-গেল?

গণতন্ত্রের জন্য সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম যেন এক দু-ধারি তলোয়ারে পরিণত হয়েছে। এটি বন্ধ বা নিয়ন্ত্রিত থাকলেও গণতন্ত্র ঝুঁকিতে পড়ছে, আবার ব্যাপক সরব থাকলেও পড়ছে

চার.

‘৪৭-উত্তর দৈনিক কাগজগুলোর যে প্রগতিশীল ও পক্ষপাতহীন কমিটমেন্ট ছিল তা স্বাধীনতা-উত্তর বাংলাদেশে ক্রমেই ক্ষয় হতে হতে আজ নির্বাসিত হতে চলেছে। তবে কি সাংবাদিকতার ক্ষেত্রে নীতিহীনতা বাসা বেঁধেছে? জ্বলজ্বল দিবাকরের মতো সত্য এই যে, সর্বত্র ভয়াবহ রাজনীতিকীকরণের ফসল আজকের সংবাদপত্রের মূল চরিত্রটিকে ভুলিয়ে দিতে বসেছে। সেই প্রেক্ষাপটে দাঁড়িয়ে দৈনিক কাগজ তার দায় আর ধরে রাখতে পারছে না। এই দায় শুধু সংবাদ পরিবেশনের ভেতরেই নিহিত নয়, বরং সংবাদ পর্যালোচনা, উপ-সম্পাদকীয়, এমনকি কখনো কখনো ফিচারপাতায়ও লেখকের নিজস্ব মুক্তমত বাধাগ্রস্ত হতে দেখা যায়। এর ফলে লেখকের মুক্তবুদ্ধিও আজ একটি চক্রব্যূহে আবদ্ধ। মূলত একচক্ষু হরিণের মতো পক্ষপাতিত্বের রাজনীতি পক্ষপাতহীন লেখক যেমন সৃষ্টি করতে পারে না, তেমনি সংবাদপত্রও তার নিরপেক্ষ দায়িত্ব পালনেও ব্যর্থ হচ্ছে।

পাঁচ.

‘কইন্যার মায়ে কান্দন কর ওইন উন্দালে বসিয়া/ অত মায়ার রি আমি কেমনে দিতাম বিয়া,/ কইন্যার বাপ অর মনমরা কান্দন দেখিয়া/ ঘরর লক্ষ্মী কিলা দিতাম বিদায় করিয়া...। ’

এটি একটি সিলেটি আঞ্চলিক গান। ইত্যাদিতে প্রচারিত হওয়ার পর এর ভিউ ছিল ১ কোটি ১৫ লাখ ৪৯ হাজার ১০টি। বিপুল জনপ্রিয় হওয়া এ গানটি বিয়ের গান হলেও এর শব্দে শব্দে,বাক্যে বাক্যে বিয়ের কনের জন্য মা-বাবার বেদনার্ত আকুতি। তোশিবা এর আগে আঞ্চলিকতা পেরিয়ে দেশ-বিদেশে ভাইরাল হন ‘আইলারে নয়া দামান’ গানটির রিমিক্স দিয়ে। এ গানটিও সিলেটি বহুল প্রচারিত একটি বিয়ের গান। এ গানটির মাঝে বিয়ের আনন্দময় হাসি-ঠাট্টা-তামাশার বার্তা রয়েছে। গানটির উপস্থাপন রীতিতে আনন্দমুখরতা তাই খুবই প্রাসঙ্গিক। লেখার শুরুতে উল্লিখিত গানটির লিরিক প্রমিত বাংলায় রূপান্তরিত করলে যা দাঁড়ায়, ‘মেয়ের মা চুলার পাশে বসে কান্না করছেন, এত আদরের মেয়ে তিনি কী করে বিয়ে দিয়ে পরের ঘরে পাঠাবেন। মেয়ের বাবারও মন খারাপ ঘরের লক্ষ্মীকে তিনি কী করে বিদায় দেন!’ পুরো গানটিতেই বিয়ের কনেকে ঘিরে কন্যার পিতা-মাতার আহাজারি। কন্যা বিদায়ের গভীর বিষাদ গানটির কথা-সুরে।

অথচ ইত্যাদিতে গানটি যেভাবে প্রচারিত হয়েছে, যে কোরিও গ্রাফি আর আনন্দমুখর প্রকাশভঙ্গিতে প্রকাশ করা হয়েছে, তাতে গানের মূল সুর, মূল বার্তা পুরোই হারিয়ে গেছে; বরং একটা ভুল বার্তা দর্শক- শ্রোতার কাছে পৌছে গেছে যে,এটি একটি মহা আনন্দের গান। কিন্তু ‘আছে দুঃখ আছে মৃত্যু...’ গানটি যদি লাল বেনারসি পরে কেউ নাচতে নাচতে গায়, তা যেমন বেমানান, কন্যা বিদায়ের ঘটনাকে কেন্দ্র করে এই বিষাদময় গানটিও শুধু উপস্থাপন-কৌশলের কারণে ভুল বার্তা ছড়িয়ে দিয়েছে সবখানে। শিল্প কিংবা সাহিত্যের যে কোনো শাখার একটি নিজস্ব ভাষ্য থাকে, বক্তব্য বা বার্তা থাকে। থাকে মানুষের মৌল অনুভূতির প্রকাশ। এই ভাষ্য, বার্তা, বক্তব্য কিংবা অনুভূতি ঠিকঠাক মানুষের কাছে পৌঁছানোও কম গুরুত্বপূর্ণ নয়। যে কোনো কিছু প্রচার ও প্রকাশের আগেই বিষয়টি নিয়ে ভাবা উচিত। নয়তো জন্মের আনন্দময় উদযাপন আর মৃত্যুর বিষাদময় যাত্রার অনুভূতির শৈল্পিক প্রকাশে কোনো পার্থক্য থাকে না।

[লেখক : সভাপতি,

ঝিনাইদহ জেলা রিপোর্টার্স ইউনিটি]

back to top