alt

উপ-সম্পাদকীয়

ভারতের কৃষি আইন, মোদির ঘোষণা এবং রাজনীতি

গৌতম রায়

: শুক্রবার, ২৬ নভেম্বর ২০২১

সংশোধিত কৃষি আইনগুলো প্রত্যাহারের কথা ঘোষণা করেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। যদি এই প্রত্যাহারের আইনি পদক্ষেপ করে কীভাবে শুরু হবে তা প্রধানমন্ত্রী জানাননি। মন্ত্রিসভার বৈঠক ছাড়া একক সিদ্ধান্তে আইন প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত সংসদের বাইরে খোদ প্রধানমন্ত্রী জানাচ্ছেন-এমন দৃষ্টান্ত সম্ভবত এর আগে দেখা যায়নি। নরেন্দ্র মোদির রাজনৈতিক অভিসন্ধি যাই-ই থাকুক না কেন, প্রধানমন্ত্রী পদে অধিষ্ঠিত থেকে যখন তিনি আইনগুলো প্রত্যাহারের কথা প্রকাশ্যে ঘোষণা করেছেন, সেই অঙ্গীকারের বাস্তবায়নের বিধিবদ্ধ ব্যবস্থা প্রধানমন্ত্রী করবেন-এইটুকু প্রত্যাশা অন্তত দেশবাসী তার কাছে করতে পারে।

সমস্ত অবিজেপি রাজনৈতিক দলগুলোই প্রধানমন্ত্রী তিনটি কৃষি আইন বাতিলের সিদ্ধান্তকে শুধু নিজেদের রাজনৈতিক দলের সাফল্য হিসেবেই তুলে ধরতে চাইছেন। সেভাবেই তারা বিজয় মিছিল করছেন। বিবৃতি দিচ্ছেন। ফেসবুকে তাদের ভক্তবৃন্দেরা দেওয়াল ভরাচ্ছেন। কিন্তু একটি অবিজেপি রাজনৈতিক দলই বলছেন না যে, কোনরকম দলীয় পতাকা না নিয়ে কেবলমাত্র কৃষি এবং কৃষকের স্বার্থকে প্রাধান্য দিয়ে আন্দোলন করলেন। গোবলয়ের সমস্ত স্তরের অবিজেপি রাজনীতিতে বিশ্বাসী সাধারণ মানুষ এই কোভিডকালের যাবতীয় আশঙ্কাকে উপেক্ষা করে এই ধারাবাহিক আন্দোলনের ভেতর দিয়ে রাজনীতির দুনিয়ায় যে একটা নতুন ধারার সংযোগ করলেন। এটা আগামী ভারতকে একটা নতুন রাজনৈতিক প্রেক্ষাপটের দিকে হয়তো প্রতিষ্ঠিত করবে।

এমন আন্দোলন আমরা দেখেছিলাম, এনআরসির বিরুদ্ধে দিল্লির শাহিনবাগে। সেই আন্দোলনকে ভেস্তে দিতে কেন্দ্রের বিজেপি সরকার কম মেহনত করেনি। খোদ দেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ, শাহিদবাগের এনআরসিবিরোধী আন্দোলনকে ভাঙার বিষয়টি তার ব্যক্তিগত মর্যাদার প্রশ্ন হিসেবে নিয়েছিলেন। কোভিড সংক্রমণের ভয়াবহকতা সর্বোচ্চ স্তরে না পৌঁছলে শাহিনবাগ ও হয়তো কৃষি আন্দোলনের মতোই সাফল্য পেতো।

শাহিনবাগ এই কোভিডকালের প্রাদুর্ভাবের একদম প্রথম দিকে দিল্লি বিধানসভার ভোটকে অনেকটাই প্রভাবিত করেছিল। দিল্লি বিধানসভায় জেতাটাকে মোদি-শাহ জুটি একদম নিজেদের ব্যক্তিগত মর্যাদার বিষয় হিসেবে নিয়েছিলেন। অমিত শাহ নিজে যেভাবে দিল্লি বিধানসভার ভোট ঘিরে প্রচার করেছিলেন, দেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর তেমন তৎপরতা এর আগে নিছক ভোটে জেতার তাগিদে আমরা দেখিনি।

এত কিছু সত্ত্বেও বিজেপি কিন্তু দিল্লিতে জেতেনি। কেজরিওয়াল বা তার দল আম আদমি পার্টি যে নিজের জোরে দিল্লি বিধানসভায় জিতেছে, তাও নয়। দিল্লি তে আম আদমি পার্টিকে জেতানোর থেকেও মানুষ বিজেপিকে হারানোর বিষয়টিকে বেশি গুরুত্ব দিয়েছিল। দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধি, বেকারি, আইনশৃঙ্খলার বিষয়গুলোর বাইরেও দিল্লিতে মানুষ বিজেপি হারাতে দৃঢ় সংকল্প ছিল এনআরসির প্রশ্নে। সিএএর প্রশ্নে। আর সে ক্ষেত্রে শাহিনবাগের ভূমিকা এবং অবদান ছিল ঐতিহাসিক। কেজরিওয়াল নানা অঙ্ক কষে একদিনের জন্যেও শাহিনবাগের অবস্থানে যাননি। ওই আন্দোলনকে ভেস্তে দিতে বিজেপি আর খোদ অমিত শাহ যেসব অরাজনৈতিক, প্রতিহিংসামূলক কাজ করে গিয়েছেন, সেই প্রশ্নেও কেজরিওয়াল যে খুব দৃঢ় প্রতিবাদী ভূমিকা পালন করেছিলেন, তাও কিন্তু নয়।

শাহিনবাগ এবং কৃষি আইনবিরোধী আন্দোলন স্বাধীন ভারতে রাজনৈতিক আন্দোলনের ক্ষেত্রে একটা মাইলফলক। দলীয় রাজনীতির আবর্তের বাইরে থেকে শাসকের ঘুম কেড়ে নেয়া এরকম ঘটনাক্রম এর আগে স্বাধীন ভারতে আর হয়নি

বিজেপি এবং রাষ্ট্রশক্তির প্রবল বিরোধিতা সত্ত্বেও দিল্লিতে কেজরিওয়ালের জয়ের পেছনে সামগ্রিকভাবে গোটা ভারতব্যাপী এনআরসিবিরোধী আন্দোলনের যে প্রভাব- তা না বোঝার মতো রাজনৈতিক প্রজ্ঞার মানুষ কেজরিওয়াল নন। কিন্তু তিনি না বোঝার ভান করে থেকেছেন গোটা বিষয়টিতে। আর যখন কোভিড-লকডাউন ইত্যাদিকে ব্যবহার করে শাহিনবাগের আন্দোলনকে ধ্বংস করতে বিজেপি গোটা রাষ্ট্রশক্তিকে ব্যবহার করেছে, মমতা থেকে কেজরিওয়াল, যাদের একাংশের প্রচার মাধ্যম মোদিবিরোধী আইকন হিসেবে তুলে ধরবার চেষ্টা করছে, তারা কিন্তু একটি শব্দ ও উচ্চারণ করেননি। বরংচ মমতার প্রতিযোগিতামূলক সাম্প্রদায়িকতার আদলেই নরম সাম্প্রদায়িকতার পথে হেঁটেছেন কেজরিওয়াল। উত্তরপ্রদেশে স্বঘোষিত ‘যোগী’ আদিত্যনাথ যেভাবে ঐতিহাসিক বাবরি মসজিদের ওপর নির্মীয়মাণ তথাকথিত রামমন্দির দেখার জন্যে সরকারি কোষাগার থেকে অর্থ বরাদ্দ করেছেন, কেজরিওয়াল ও তেমনটাই করেছেন। ওই বিতর্কিত ধর্মীয় সৌধ দেখার জন্য তিনি দিল্লির প্রবীণ নাগরিকদের উদ্দেশে আলাদা করে আর্থিক প্যাকেজ ঘোষণা করেছেন।

শাহিনবাগ এবং কৃষি আইনবিরোধী আন্দোলন স্বাধীন ভারতে রাজনৈতিক আন্দোলনের ক্ষেত্রে একটা মাইলফলক। দলীয় রাজনীতির আবর্তের বাইরে থেকে শাসকের ঘুম কেড়ে নেয়া এরকম ঘটনাক্রম এর আগে স্বাধীন ভারতে আর হয়নি। জরুরি অবস্থাবিরোধী আন্দোলনকে জয়প্রকাশ নারায়ণ দলীয় আবর্তের বাইরে রাখার একটা লোকদেখানো ঘোষণা করেছিলেন। তবে সেই আন্দোলনকে আরএসএস যেভাবে কব্জা করে ফেলেছিল, তাতে সেটি দলীয় রাজনীতির আবর্তের বাইরে ছিল-এটা জোর গলায় দাবি করা যায় না।

শাহিনবাগ বা কৃষি আইনবিরোধী আন্দোলনকে দলীয় ঘেরাটোপের ভেতরে নিয়ে আসতে সমস্ত অবিজেপি দলগুলোই চেষ্টার কসুর করেনি। কিন্তু আন্দোলনের মেজাজটাই ছিল এমন যে, দলের ঝান্ডা ছাড়া যে কোনো দলের সাধারণ কর্মী থেকে শীর্ষ নেতা, সকলকেই এই আন্দোলনগুলো অতি কাছের মানুষ হিসেবে মেনে নিয়েছে, কিন্তু আন্দোলনের গায়ে দলীয় তকমাকে কিছুতেই সাঁটতে দেয়নি।

আরএসএসের রাজনৈতিক সংগঠন বিজেপির গোটা ভারতের প্রবাহমান চরিত্র বদলে দিয়ে ভারতকে মুসলমান শূন্য, রাজনৈতিক হিন্দুদের দেশে পরিণত করবার যে হিশহিশে তোড়জোর, তার বিরুদ্ধে লড়াইয়ের প্রশ্নে ভোট রাজনীতিকেই সব থেকে বেশি অগ্রাধিকার দিয়ে চলেছে সমস্ত অবিজেপি দলগুলো। বামপন্থি দলগুলোও যে এর থেকে ব্যতিক্রম- তেমন দাবি করা যায় না। হিন্দু ভোট ঘিরে অত্যন্ত সাবধানী পদচারণা কংগ্রেসের। উত্তরপ্রদেশের সমাজবাদী পার্টি, বিহারে লালুর দল, উড়িষ্যাতে বিজু জনতা দল, পশ্চিমবঙ্গে তৃণমূল কংগ্রেস বা অন্ধ্র-তেলেঙ্গানায় তেলেগু দেশম, দিল্লিতে আম আদমি পার্টি, কর্ণাটকে জনতা পার্টি, তামিলনাডুতে এ ডিএমকে বা এআইএডিএমকে— প্রত্যেকেই ধর্মনিরপেক্ষতার বুলি কপচালেও ভোট রাজনীতির তাগিদে একশো শতাংশ ধর্মনিরপেক্ষ অবস্থান নিচ্ছেন না। ভাবতে অবাক লাগে বামেরাও কেরল- পশ্চিমবঙ্গ- বিহার- ত্রিপুরাতে নির্বাচনী সংগ্রামকেই একমাত্র মোক্ষ ঠাওড়েছেন। ফলে এক এক রাজ্যে , সেই সেই রাজ্যের বিন্যাসের ওপরে তারা নীতি স্থির করেছেন। যে কংগ্রেসের সঙ্গে কেরলে বামেদের সাপে নেউলে সম্পর্ক, সেই কংগ্রেসই পশ্চিমবঙ্গে এই মুহূর্তে বামেদের বন্ধু। আবার যে তৃণমূল কংগ্রেস পশ্চিমবঙ্গে মেছোহাটার রাজনীতি করছে, সেই তৃণমূলেরই এক দল বদলু নেত্রীর ওপর বিজেপি সরকারের প্রতিহিংসামূলক আচরণ ঘিরে প্রাদেশিক স্তরের সর্বোচ্চ পর্যায়ে সক্রিয় বামেরা ত্রিপুরায়। অথচ, তৃণমূল অমন কান্ড প্রায় প্রতিদিনই করছে পশ্চিমবঙ্গে সবস্তরের বামকর্মীদের প্রতি।

এই যে নীতি ও কৌশলগত বিভ্রান্তি, তাকে সুবিধাবাদ বলে ধরে নিচ্ছেন একটা বড় অংশের বামকর্মী- সমর্থকেরা। বিজেপিকে রোখার প্রশ্নে অতিবাম শীর্ষ ব্যক্তিত্ব দীপঙ্কর ভট্টাচার্য মমতার প্রতি যে ইতিবাচক মনোভাব দেখিয়েছেন, তা দলমতের ঊর্ধ্বে গোটা ধর্ম নিরপেক্ষ শিবির কে বিভ্রান্ত করেছে। কিন্তু ভোট বড়ো বালাই। দীপঙ্কর আরএসএসের অতি বিশ্বস্ত, নির্ভরযোগ্য ব্যক্তিত্ব মমতার সামাজিক গ্রহণযোগ্যতা বাড়াতে রাজনৈতিক উদ্যোগ নিয়েছেন- দুবছর পরের দিল্লি ভোটের দিকে তাকিয়ে জোর গলায় বামেরা বলছেন না।

ধর্মনিরপেক্ষতার বিষয়টি যখন ভোট রাজনীতির দায়ে পড়ে ব্যাকফুটে চলে যায়- তখন আগামী রাজনীতির যে অশনিসংকেত বয়ে আনে তা বোঝার মতো রাজনৈতিক প্রজ্ঞা জ্যোতি বসু, ইএমএস নাম্বুদ্রিপাদ, হরকিষাণসিং সুরজিত, সৈফুদ্দিন চৌধুরী, গীতা মুখোপাধ্যায় দের ছিল। আজ আছে মহঃ সেলিমের । কারণ, যুবকর্মী হিসেবে তার ভারতদর্শনের সূচনা। আরএস ওয়াজেদ আলীর সেই ট্রাডিশনের ভারত আত্মাকে অন্তর দিয়ে অনুভব করবার মতো সার্বিক প্রজ্ঞা, ধীশক্তি, মননশীলতা এবং সর্বোপরি পরমতসহিষ্ণু, সর্বজনগ্রাহ্য রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব আজকের বাংলা তো বটেই , গোটা ভারতেও প্রায় দুর্লভ হয়ে পড়ছে।

[লেখক : ভারতীয় ইতিহাসবিদ]

প্রিয়জন হারানোর বেদনা

পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর হয়েছেটা কী

ক্ষমতার অপব্যবহার দুর্নীতির অন্যতম কারণ

রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকগুলোর স্বতন্ত্র বেতন কাঠামোর বাস্তবায়ন চাই

বাংলাদেশ-রাশিয়া বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক

মুজিববর্ষে আদিবাসীদের প্রতি ভালোবাসা

রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থা হতে হবে মূল লক্ষ্য

ডিজিটাল বাংলাদেশ : প্রত্যাশা ও প্রাপ্তি

খাদ্য ও পুষ্টি নিরাপত্তা : এখনও অনেক কাজ বাকি

ছবি

নাসিক নির্বাচন কি বার্তা দিচ্ছে?

ছবি

ঊনসত্তরের অগ্নিঝরা দিনগুলো

ছবি

আমার প্রিয় বিশ্ববিদ্যালয়টি ভালো নেই

আমাদের জীবন, আমাদের সন্তান

সমাজে বিভক্তির ফাটল

ভারতে মুসলমানের আর্থিক নিরাপত্তার প্রশ্নে ধারাবাহিক অবহেলা

প্রসঙ্গ তালাকের নোটিশ

কীভাবে অজান্তেই ধনী হয়ে উঠছি

নির্বাচন ব্যবস্থাকে অবাধ, সুষ্ঠু ও কার্যকর করা ছাড়া রাষ্ট্রের প্রকৃত কল্যাণ হবে না

ননএমপিও : অবসান হোক এ অসহ রাত্রির

ছবি

কখন ও কেমন হবে করোনার শেষটা

ছবি

‘বিদ্রোহী’ ও সমতাভিত্তিক সমাজ বিনির্মাণ

আস্থাহীনতা কেন চিন্তাহীনতার জন্ম দেয়?

কৃষির রূপান্তর : প্রাপ্তির মধ্যে অপ্রাপ্তিও আছে

ভূমি মন্ত্রণালয়ের আধুনিকায়ন ও প্রত্যাশা

ডিজিটাল বাংলাদেশ : প্রত্যাশা ও প্রাপ্তি

“অনাকাঙ্ক্ষিত মৃত্যু”

নতুন কপিরাইট আইনের খসড়া

ছবি

গ্রামীণ অর্থনীতির বিকাশে নারীর অংশগ্রহণ

গণমাধ্যমের শিরদাঁড়া

এনসিটিবিতে হচ্ছেটা কী?

করোনায় সৃষ্ট মনোজগতের বিচ্ছিন্নতা

কৃষিপণ্যের ন্যায্য মূল্য

ছবি

মানিক সাহা হত্যাকাণ্ড ও বিচারহীনতার অপসংস্কৃতি

আগামীতে ধর্মনিরপেক্ষ ভারত কি বেঁচে থাকবে?

ছবি

উড়বে ঘুড়ি, পুড়বে আতশবাজি

স্বজন হত্যার বিচারের অপেক্ষায় এক মানুষ

tab

উপ-সম্পাদকীয়

ভারতের কৃষি আইন, মোদির ঘোষণা এবং রাজনীতি

গৌতম রায়

শুক্রবার, ২৬ নভেম্বর ২০২১

সংশোধিত কৃষি আইনগুলো প্রত্যাহারের কথা ঘোষণা করেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। যদি এই প্রত্যাহারের আইনি পদক্ষেপ করে কীভাবে শুরু হবে তা প্রধানমন্ত্রী জানাননি। মন্ত্রিসভার বৈঠক ছাড়া একক সিদ্ধান্তে আইন প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত সংসদের বাইরে খোদ প্রধানমন্ত্রী জানাচ্ছেন-এমন দৃষ্টান্ত সম্ভবত এর আগে দেখা যায়নি। নরেন্দ্র মোদির রাজনৈতিক অভিসন্ধি যাই-ই থাকুক না কেন, প্রধানমন্ত্রী পদে অধিষ্ঠিত থেকে যখন তিনি আইনগুলো প্রত্যাহারের কথা প্রকাশ্যে ঘোষণা করেছেন, সেই অঙ্গীকারের বাস্তবায়নের বিধিবদ্ধ ব্যবস্থা প্রধানমন্ত্রী করবেন-এইটুকু প্রত্যাশা অন্তত দেশবাসী তার কাছে করতে পারে।

সমস্ত অবিজেপি রাজনৈতিক দলগুলোই প্রধানমন্ত্রী তিনটি কৃষি আইন বাতিলের সিদ্ধান্তকে শুধু নিজেদের রাজনৈতিক দলের সাফল্য হিসেবেই তুলে ধরতে চাইছেন। সেভাবেই তারা বিজয় মিছিল করছেন। বিবৃতি দিচ্ছেন। ফেসবুকে তাদের ভক্তবৃন্দেরা দেওয়াল ভরাচ্ছেন। কিন্তু একটি অবিজেপি রাজনৈতিক দলই বলছেন না যে, কোনরকম দলীয় পতাকা না নিয়ে কেবলমাত্র কৃষি এবং কৃষকের স্বার্থকে প্রাধান্য দিয়ে আন্দোলন করলেন। গোবলয়ের সমস্ত স্তরের অবিজেপি রাজনীতিতে বিশ্বাসী সাধারণ মানুষ এই কোভিডকালের যাবতীয় আশঙ্কাকে উপেক্ষা করে এই ধারাবাহিক আন্দোলনের ভেতর দিয়ে রাজনীতির দুনিয়ায় যে একটা নতুন ধারার সংযোগ করলেন। এটা আগামী ভারতকে একটা নতুন রাজনৈতিক প্রেক্ষাপটের দিকে হয়তো প্রতিষ্ঠিত করবে।

এমন আন্দোলন আমরা দেখেছিলাম, এনআরসির বিরুদ্ধে দিল্লির শাহিনবাগে। সেই আন্দোলনকে ভেস্তে দিতে কেন্দ্রের বিজেপি সরকার কম মেহনত করেনি। খোদ দেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ, শাহিদবাগের এনআরসিবিরোধী আন্দোলনকে ভাঙার বিষয়টি তার ব্যক্তিগত মর্যাদার প্রশ্ন হিসেবে নিয়েছিলেন। কোভিড সংক্রমণের ভয়াবহকতা সর্বোচ্চ স্তরে না পৌঁছলে শাহিনবাগ ও হয়তো কৃষি আন্দোলনের মতোই সাফল্য পেতো।

শাহিনবাগ এই কোভিডকালের প্রাদুর্ভাবের একদম প্রথম দিকে দিল্লি বিধানসভার ভোটকে অনেকটাই প্রভাবিত করেছিল। দিল্লি বিধানসভায় জেতাটাকে মোদি-শাহ জুটি একদম নিজেদের ব্যক্তিগত মর্যাদার বিষয় হিসেবে নিয়েছিলেন। অমিত শাহ নিজে যেভাবে দিল্লি বিধানসভার ভোট ঘিরে প্রচার করেছিলেন, দেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর তেমন তৎপরতা এর আগে নিছক ভোটে জেতার তাগিদে আমরা দেখিনি।

এত কিছু সত্ত্বেও বিজেপি কিন্তু দিল্লিতে জেতেনি। কেজরিওয়াল বা তার দল আম আদমি পার্টি যে নিজের জোরে দিল্লি বিধানসভায় জিতেছে, তাও নয়। দিল্লি তে আম আদমি পার্টিকে জেতানোর থেকেও মানুষ বিজেপিকে হারানোর বিষয়টিকে বেশি গুরুত্ব দিয়েছিল। দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধি, বেকারি, আইনশৃঙ্খলার বিষয়গুলোর বাইরেও দিল্লিতে মানুষ বিজেপি হারাতে দৃঢ় সংকল্প ছিল এনআরসির প্রশ্নে। সিএএর প্রশ্নে। আর সে ক্ষেত্রে শাহিনবাগের ভূমিকা এবং অবদান ছিল ঐতিহাসিক। কেজরিওয়াল নানা অঙ্ক কষে একদিনের জন্যেও শাহিনবাগের অবস্থানে যাননি। ওই আন্দোলনকে ভেস্তে দিতে বিজেপি আর খোদ অমিত শাহ যেসব অরাজনৈতিক, প্রতিহিংসামূলক কাজ করে গিয়েছেন, সেই প্রশ্নেও কেজরিওয়াল যে খুব দৃঢ় প্রতিবাদী ভূমিকা পালন করেছিলেন, তাও কিন্তু নয়।

শাহিনবাগ এবং কৃষি আইনবিরোধী আন্দোলন স্বাধীন ভারতে রাজনৈতিক আন্দোলনের ক্ষেত্রে একটা মাইলফলক। দলীয় রাজনীতির আবর্তের বাইরে থেকে শাসকের ঘুম কেড়ে নেয়া এরকম ঘটনাক্রম এর আগে স্বাধীন ভারতে আর হয়নি

বিজেপি এবং রাষ্ট্রশক্তির প্রবল বিরোধিতা সত্ত্বেও দিল্লিতে কেজরিওয়ালের জয়ের পেছনে সামগ্রিকভাবে গোটা ভারতব্যাপী এনআরসিবিরোধী আন্দোলনের যে প্রভাব- তা না বোঝার মতো রাজনৈতিক প্রজ্ঞার মানুষ কেজরিওয়াল নন। কিন্তু তিনি না বোঝার ভান করে থেকেছেন গোটা বিষয়টিতে। আর যখন কোভিড-লকডাউন ইত্যাদিকে ব্যবহার করে শাহিনবাগের আন্দোলনকে ধ্বংস করতে বিজেপি গোটা রাষ্ট্রশক্তিকে ব্যবহার করেছে, মমতা থেকে কেজরিওয়াল, যাদের একাংশের প্রচার মাধ্যম মোদিবিরোধী আইকন হিসেবে তুলে ধরবার চেষ্টা করছে, তারা কিন্তু একটি শব্দ ও উচ্চারণ করেননি। বরংচ মমতার প্রতিযোগিতামূলক সাম্প্রদায়িকতার আদলেই নরম সাম্প্রদায়িকতার পথে হেঁটেছেন কেজরিওয়াল। উত্তরপ্রদেশে স্বঘোষিত ‘যোগী’ আদিত্যনাথ যেভাবে ঐতিহাসিক বাবরি মসজিদের ওপর নির্মীয়মাণ তথাকথিত রামমন্দির দেখার জন্যে সরকারি কোষাগার থেকে অর্থ বরাদ্দ করেছেন, কেজরিওয়াল ও তেমনটাই করেছেন। ওই বিতর্কিত ধর্মীয় সৌধ দেখার জন্য তিনি দিল্লির প্রবীণ নাগরিকদের উদ্দেশে আলাদা করে আর্থিক প্যাকেজ ঘোষণা করেছেন।

শাহিনবাগ এবং কৃষি আইনবিরোধী আন্দোলন স্বাধীন ভারতে রাজনৈতিক আন্দোলনের ক্ষেত্রে একটা মাইলফলক। দলীয় রাজনীতির আবর্তের বাইরে থেকে শাসকের ঘুম কেড়ে নেয়া এরকম ঘটনাক্রম এর আগে স্বাধীন ভারতে আর হয়নি। জরুরি অবস্থাবিরোধী আন্দোলনকে জয়প্রকাশ নারায়ণ দলীয় আবর্তের বাইরে রাখার একটা লোকদেখানো ঘোষণা করেছিলেন। তবে সেই আন্দোলনকে আরএসএস যেভাবে কব্জা করে ফেলেছিল, তাতে সেটি দলীয় রাজনীতির আবর্তের বাইরে ছিল-এটা জোর গলায় দাবি করা যায় না।

শাহিনবাগ বা কৃষি আইনবিরোধী আন্দোলনকে দলীয় ঘেরাটোপের ভেতরে নিয়ে আসতে সমস্ত অবিজেপি দলগুলোই চেষ্টার কসুর করেনি। কিন্তু আন্দোলনের মেজাজটাই ছিল এমন যে, দলের ঝান্ডা ছাড়া যে কোনো দলের সাধারণ কর্মী থেকে শীর্ষ নেতা, সকলকেই এই আন্দোলনগুলো অতি কাছের মানুষ হিসেবে মেনে নিয়েছে, কিন্তু আন্দোলনের গায়ে দলীয় তকমাকে কিছুতেই সাঁটতে দেয়নি।

আরএসএসের রাজনৈতিক সংগঠন বিজেপির গোটা ভারতের প্রবাহমান চরিত্র বদলে দিয়ে ভারতকে মুসলমান শূন্য, রাজনৈতিক হিন্দুদের দেশে পরিণত করবার যে হিশহিশে তোড়জোর, তার বিরুদ্ধে লড়াইয়ের প্রশ্নে ভোট রাজনীতিকেই সব থেকে বেশি অগ্রাধিকার দিয়ে চলেছে সমস্ত অবিজেপি দলগুলো। বামপন্থি দলগুলোও যে এর থেকে ব্যতিক্রম- তেমন দাবি করা যায় না। হিন্দু ভোট ঘিরে অত্যন্ত সাবধানী পদচারণা কংগ্রেসের। উত্তরপ্রদেশের সমাজবাদী পার্টি, বিহারে লালুর দল, উড়িষ্যাতে বিজু জনতা দল, পশ্চিমবঙ্গে তৃণমূল কংগ্রেস বা অন্ধ্র-তেলেঙ্গানায় তেলেগু দেশম, দিল্লিতে আম আদমি পার্টি, কর্ণাটকে জনতা পার্টি, তামিলনাডুতে এ ডিএমকে বা এআইএডিএমকে— প্রত্যেকেই ধর্মনিরপেক্ষতার বুলি কপচালেও ভোট রাজনীতির তাগিদে একশো শতাংশ ধর্মনিরপেক্ষ অবস্থান নিচ্ছেন না। ভাবতে অবাক লাগে বামেরাও কেরল- পশ্চিমবঙ্গ- বিহার- ত্রিপুরাতে নির্বাচনী সংগ্রামকেই একমাত্র মোক্ষ ঠাওড়েছেন। ফলে এক এক রাজ্যে , সেই সেই রাজ্যের বিন্যাসের ওপরে তারা নীতি স্থির করেছেন। যে কংগ্রেসের সঙ্গে কেরলে বামেদের সাপে নেউলে সম্পর্ক, সেই কংগ্রেসই পশ্চিমবঙ্গে এই মুহূর্তে বামেদের বন্ধু। আবার যে তৃণমূল কংগ্রেস পশ্চিমবঙ্গে মেছোহাটার রাজনীতি করছে, সেই তৃণমূলেরই এক দল বদলু নেত্রীর ওপর বিজেপি সরকারের প্রতিহিংসামূলক আচরণ ঘিরে প্রাদেশিক স্তরের সর্বোচ্চ পর্যায়ে সক্রিয় বামেরা ত্রিপুরায়। অথচ, তৃণমূল অমন কান্ড প্রায় প্রতিদিনই করছে পশ্চিমবঙ্গে সবস্তরের বামকর্মীদের প্রতি।

এই যে নীতি ও কৌশলগত বিভ্রান্তি, তাকে সুবিধাবাদ বলে ধরে নিচ্ছেন একটা বড় অংশের বামকর্মী- সমর্থকেরা। বিজেপিকে রোখার প্রশ্নে অতিবাম শীর্ষ ব্যক্তিত্ব দীপঙ্কর ভট্টাচার্য মমতার প্রতি যে ইতিবাচক মনোভাব দেখিয়েছেন, তা দলমতের ঊর্ধ্বে গোটা ধর্ম নিরপেক্ষ শিবির কে বিভ্রান্ত করেছে। কিন্তু ভোট বড়ো বালাই। দীপঙ্কর আরএসএসের অতি বিশ্বস্ত, নির্ভরযোগ্য ব্যক্তিত্ব মমতার সামাজিক গ্রহণযোগ্যতা বাড়াতে রাজনৈতিক উদ্যোগ নিয়েছেন- দুবছর পরের দিল্লি ভোটের দিকে তাকিয়ে জোর গলায় বামেরা বলছেন না।

ধর্মনিরপেক্ষতার বিষয়টি যখন ভোট রাজনীতির দায়ে পড়ে ব্যাকফুটে চলে যায়- তখন আগামী রাজনীতির যে অশনিসংকেত বয়ে আনে তা বোঝার মতো রাজনৈতিক প্রজ্ঞা জ্যোতি বসু, ইএমএস নাম্বুদ্রিপাদ, হরকিষাণসিং সুরজিত, সৈফুদ্দিন চৌধুরী, গীতা মুখোপাধ্যায় দের ছিল। আজ আছে মহঃ সেলিমের । কারণ, যুবকর্মী হিসেবে তার ভারতদর্শনের সূচনা। আরএস ওয়াজেদ আলীর সেই ট্রাডিশনের ভারত আত্মাকে অন্তর দিয়ে অনুভব করবার মতো সার্বিক প্রজ্ঞা, ধীশক্তি, মননশীলতা এবং সর্বোপরি পরমতসহিষ্ণু, সর্বজনগ্রাহ্য রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব আজকের বাংলা তো বটেই , গোটা ভারতেও প্রায় দুর্লভ হয়ে পড়ছে।

[লেখক : ভারতীয় ইতিহাসবিদ]

back to top