alt

উপ-সম্পাদকীয়

“অনাকাঙ্ক্ষিত মৃত্যু”

সাঈদ চৌধুরী

: রোববার, ১৬ জানুয়ারী ২০২২

দিন কয়েক আগে গাজীপুরের শ্রীপুরের মাওনা চৌরাস্তায় একজন রংমিস্ত্রি রং করতে গিয়ে বিদ্যুতের তারে আটকে গিয়ে প্রাণ হারালেন। ঝুলে পড়লেন বিদ্যুতের তারে, আগুন লেগে শরীর ঝলসে ধোঁয়া বের হয়ে প্রাণ পাখি আকাশের দিকে ভয়ে ছুটে পালালো!

তিনি একজন মানুষ ছিলেন! আমরা বাস্তবিক জীবনে তাকে মানুষ হিসেবে মনে করতেও ভুলে গেছি। অপমৃত্যুর দায় নিয়ে তিনি বেঁচে থাকলে শাস্তিও দেয়া যেতে পারতো হয়ত!পল্লী বিদ্যুৎ ব্যাখ্যা দিল আগে জানালে তারা বিদ্যুতের লাইন বন্ধ করে দিত, যে বাড়ির হয়ে কাজ করছিলেন সে বাড়ির মালিক বললেন অসাবধানবসতই বিষয়টি ঘটে গেছে! মানে কেউ দোষী নয়! সবাই যার যার মতো দায় এড়াতে গিয়ে নিজের যে সামান্য কিছু দায়িত্ব ছিল তাও হয়ত ভুলে গিয়েছেন। কেউ আইনে তাদেও শাস্তির ব্যাপারে প্রয়োনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের কথাও তুলল না।

ঠিক এই কিছু আগের একটি কথা। ফুটফুটে একটি শিশু বাড়িতে মায়ের হাতে নাস্তা কওে বাবার হাত ধরে রাস্তা দিয়ে হেঁটে আনন্দে স্কুলে যাচ্চিল।

ঠিক এমন সময় পুরো অনাকাঙ্ক্ষিতভাবে পাশে থাকা একটি পুরোনো দেয়াল ধসে বাবার আঙ্গুল ধরে হাঁটা শিশুটি মারা গিয়েছিল! কি নির্মম! কারও বিরুদ্ধেই এ দোষ প্রমাণ করা গেল না! দায়িত্বরত সবাই আগে থেকেই অনেক অনেক ডকুমেন্ট তৈরি করে রেখেছেন। সুতরাং সবাই নির্দোষ! শুধু নির্দোষই নয় যেন শিশুটি মরেই তাদের ঝামেলা শুরু হয়েছে এমন একটা অসহ্য যন্ত্রণাময় ভাব তাদেন চোখে-মুখে!

কোন সংবাদমাধ্যমেই বিদ্যুতে নিহত এ মানুষটির পরিবারের কথা প্রকাশ করল না! এখানে কেউ অনিরাপদে মারা গেলে কারও কোন দোষ নেই। আমরা যখন বায়ারদের চাপে বলি ফ্যাক্টরি কমপ্লায়েন্স করে চালাই তখন বড্ড অপরাধ বোধ হয় এই ভেবে যে যদি কোন চাপ না থাকত তবে হয়ত আমাদের শ্রমিকদের জীবনও এমনই অনিরাপদভাবেই দেখতো মালিকরা!

একটি সিটি করপোরেশন অথবা পৌরসভা বা ইউনিয়নের সামগ্রিক প্রশাসনিক ক্ষমতা এবং এর বিপরীতে নিরাপত্তার দায় কতটুকু মেনে চলেন আমাদের প্রশাসকেরা? তারা কি তবে এ বিষয়গুলো নিয়ে কোন জবাব দিতে প্রস্তুত নয়! যখন বক্তব্যে পুরোপুরি অস্পষ্ট এবং এবারই শুধু আইনের আওতায় আনা হলো যে পরিবারে একজন মানুষ আয় করেন সে পরিবারে এমন দুর্ঘটনা মানে হচ্ছে পুরো পরিবারটিই ছিটকে পড়া। প্রতিদিনই এমন মৃত্যু ঘটছে। সড়কে মরছে, কাজ করতে গিয়ে মরছে, অনাকাঙ্ক্ষিতভাবে এক্সিডেন্টের কারণে মৃত্যু ঘটেই যাচ্ছে প্রতিনিয়ত!

সেদিন থার্টি ফাস্ট নাইটে যা হলো! পটকা ফুটছে, ফানুস উড়ছে আর কান্নার শব্দ, হইহুল্লোরে মিশে একার হয়ে কত ক্ষতিই না হলো! পটকার শব্দে ছোট্ট একজন শিশু মারা গেল। শিশুটির বাবার মুখের দিকে তাকিয়ে তার ঠোঁট কাঁপা কান্না দেখে মনে হচ্ছিল আমরা যেন আর সভ্য নই। টেলিভিশনে একজন ডাক্তারের গম্ভিরভাবে বলতে শুনলাম বিকট শব্দ শিশুর মস্তিষ্ক এবং হার্টকে ক্ষতিগ্রস্ত করতে পারে। শহর কি নিষিদ্ধ করতে পারল বিকট শব্দ? আমাদের মাওনায় বাড়ির দেয়াল ঘেঁষে যে বিদ্যুতের তার তা কি উঠিয়ে দিতে পারবে কর্তৃপক্ষ? কেউ কি এমন কিছু ভেবেছে ?

আনসার রোড হতে গড়গড়িয়া মাস্টার বাড়ির এখানে রাস্তার পাশে আট থেকে ১০ ফিট গর্ত করে ড্রেনের কাজ চালানো হচ্ছে। সারা বাংলাদেশের অনেক জায়গায়ই এমন অবস্থা! কবে শেষ হবে, কবে গর্ত বন্ধ হবে তার কোন ঠিক ঠিকানা নেই। ঠিকাদার বলে এক ধরনের কথা আর প্রকৌশলী বলে আরেক ধরনের কথা! এই গর্তের ওপর দিয়ে খুব ভয়ে স্কুলের বাচ্চারা পাড় হয়! ছোট্ট ছোট্ট পাগুলো হঠাৎ ফসকে গেলেই চূড়ান্ত মৃত্যু, আরেকটি ফুলের পতন! দেয়ালগুলো খুব ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে আছে। যে কোন সময় ভেঙে পড়তে পারে পাশে দেয়ালগুলোও। অথচ কেউ দেখে না! তবে কি এখানেও বড় দুর্ঘটনার পর আরেকটি ব্যাখ্যা শুনব আমরা?

আমাদের বৈশিষ্ট্য হলো আমরা যত তাড়াতাড়ি ভুলে যেতে পারি! কিন্তু শিশুটির পরিবার অথবা যে লোকটি বিদ্যুতের তারে ঝুলেছিল প্রায় ঘণ্টা দেড়েক তার সন্তান?

কি ভাবনা রেখে গেল তারা? তারাও তো শিখল এ সমাজে নিরাপত্তার জায়গাটি শুধুই ভাগ্য নামক পরিহাস দখল করে আছে!

আমরা কি আদৌ সভ্য মানুষ হতে পারব? কেউই কি দেখাবে কোন সুষ্ঠু নিয়মের পথ?

[লেখক : রসায়নবিদ]

প্রসঙ্গ : উন্নয়ন

শিক্ষা খাত ও বাজেট

ছবি

বহুমাত্রিক কলমযোদ্ধা

পশ্চিমবঙ্গের দলবদলের রাজনীতি প্রসঙ্গে

ছবি

শিরিন : নিপীড়িত ফিলিস্তিনের স্বর

জলবায়ু পরিবর্তনজনিত বিপর্যয় মোকাবিলায় ব্যর্থ বিশ্ব

সয়াবিন তেলের ইতিবৃত্ত

শ্রীলঙ্কার মতোই কি পরিণতি হতে চলেছে বাংলাদেশের

সুশীল সমাজের বিকাশ কেন জরুরি

নতুন ভাইরাস মাঙ্কিপক্স

মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণে আসবে কীভাবে

ছবি

বন্যায় হাওরের ক্ষয়ক্ষতি এড়াতে করণীয়

সমাজের নির্লিপ্ততা এবং ন্যায়ের দাবি

পদ্মা সেতুর টোল

আলু উৎপাদনে যন্ত্রের ব্যবহার

বাংলাদেশ বার কাউন্সিল : ‘নেই কাজ তো খই ভাজ’

ডিজিটাল যুগের ডিজিটাল প্রকাশ মাধ্যম

সাম্প্রতিক সংকট মোকাবিলায় বিবেচ্য বিষয়

ই-কমার্সের জবাবদিহিতা

ইভিএমে আস্থার সংকট

মোটরসাইকেল দুর্ঘটনা : কাড়ছে প্রাণ, বাড়ছে পঙ্গুত্ব

চাকরিতে প্রবেশের বয়স নিয়ে বিতর্ক

ছবি

পূর্ণাঙ্গ আম গবেষণা প্রতিষ্ঠান কেন নেই?

দুর্নীতি ও দোষারোপের রাজনীতি

মমতা এবং আরএসএসের সম্পর্ক প্রসঙ্গে

ভূমি অপরাধ আইন এবং আদিবাসী

ঝুঁকিতে অর্থনীতি : করণীয় কী

চুকনগর : বিশ্বের স্বাধীনতা ইতিহাসে অন্যতম গণহত্যা

পিকের মেধা-প্রতিভা

পেশার অর্জন

প্রসঙ্গ : ধর্মীয় অনুভূতি

নির্বাচনই কি একমাত্র লক্ষ্য?

ছবি

হরপ্রাসাদের ‘তৈল’ এবং উন্নয়নের পথরেখা

নদী রক্ষায় চাই কার্যকর ব্যবস্থা

ডিজিটাল যুগের ডিজিটাল প্রকাশমাধ্যম

সংবাদ ও বাংলাদেশ

tab

উপ-সম্পাদকীয়

“অনাকাঙ্ক্ষিত মৃত্যু”

সাঈদ চৌধুরী

রোববার, ১৬ জানুয়ারী ২০২২

দিন কয়েক আগে গাজীপুরের শ্রীপুরের মাওনা চৌরাস্তায় একজন রংমিস্ত্রি রং করতে গিয়ে বিদ্যুতের তারে আটকে গিয়ে প্রাণ হারালেন। ঝুলে পড়লেন বিদ্যুতের তারে, আগুন লেগে শরীর ঝলসে ধোঁয়া বের হয়ে প্রাণ পাখি আকাশের দিকে ভয়ে ছুটে পালালো!

তিনি একজন মানুষ ছিলেন! আমরা বাস্তবিক জীবনে তাকে মানুষ হিসেবে মনে করতেও ভুলে গেছি। অপমৃত্যুর দায় নিয়ে তিনি বেঁচে থাকলে শাস্তিও দেয়া যেতে পারতো হয়ত!পল্লী বিদ্যুৎ ব্যাখ্যা দিল আগে জানালে তারা বিদ্যুতের লাইন বন্ধ করে দিত, যে বাড়ির হয়ে কাজ করছিলেন সে বাড়ির মালিক বললেন অসাবধানবসতই বিষয়টি ঘটে গেছে! মানে কেউ দোষী নয়! সবাই যার যার মতো দায় এড়াতে গিয়ে নিজের যে সামান্য কিছু দায়িত্ব ছিল তাও হয়ত ভুলে গিয়েছেন। কেউ আইনে তাদেও শাস্তির ব্যাপারে প্রয়োনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের কথাও তুলল না।

ঠিক এই কিছু আগের একটি কথা। ফুটফুটে একটি শিশু বাড়িতে মায়ের হাতে নাস্তা কওে বাবার হাত ধরে রাস্তা দিয়ে হেঁটে আনন্দে স্কুলে যাচ্চিল।

ঠিক এমন সময় পুরো অনাকাঙ্ক্ষিতভাবে পাশে থাকা একটি পুরোনো দেয়াল ধসে বাবার আঙ্গুল ধরে হাঁটা শিশুটি মারা গিয়েছিল! কি নির্মম! কারও বিরুদ্ধেই এ দোষ প্রমাণ করা গেল না! দায়িত্বরত সবাই আগে থেকেই অনেক অনেক ডকুমেন্ট তৈরি করে রেখেছেন। সুতরাং সবাই নির্দোষ! শুধু নির্দোষই নয় যেন শিশুটি মরেই তাদের ঝামেলা শুরু হয়েছে এমন একটা অসহ্য যন্ত্রণাময় ভাব তাদেন চোখে-মুখে!

কোন সংবাদমাধ্যমেই বিদ্যুতে নিহত এ মানুষটির পরিবারের কথা প্রকাশ করল না! এখানে কেউ অনিরাপদে মারা গেলে কারও কোন দোষ নেই। আমরা যখন বায়ারদের চাপে বলি ফ্যাক্টরি কমপ্লায়েন্স করে চালাই তখন বড্ড অপরাধ বোধ হয় এই ভেবে যে যদি কোন চাপ না থাকত তবে হয়ত আমাদের শ্রমিকদের জীবনও এমনই অনিরাপদভাবেই দেখতো মালিকরা!

একটি সিটি করপোরেশন অথবা পৌরসভা বা ইউনিয়নের সামগ্রিক প্রশাসনিক ক্ষমতা এবং এর বিপরীতে নিরাপত্তার দায় কতটুকু মেনে চলেন আমাদের প্রশাসকেরা? তারা কি তবে এ বিষয়গুলো নিয়ে কোন জবাব দিতে প্রস্তুত নয়! যখন বক্তব্যে পুরোপুরি অস্পষ্ট এবং এবারই শুধু আইনের আওতায় আনা হলো যে পরিবারে একজন মানুষ আয় করেন সে পরিবারে এমন দুর্ঘটনা মানে হচ্ছে পুরো পরিবারটিই ছিটকে পড়া। প্রতিদিনই এমন মৃত্যু ঘটছে। সড়কে মরছে, কাজ করতে গিয়ে মরছে, অনাকাঙ্ক্ষিতভাবে এক্সিডেন্টের কারণে মৃত্যু ঘটেই যাচ্ছে প্রতিনিয়ত!

সেদিন থার্টি ফাস্ট নাইটে যা হলো! পটকা ফুটছে, ফানুস উড়ছে আর কান্নার শব্দ, হইহুল্লোরে মিশে একার হয়ে কত ক্ষতিই না হলো! পটকার শব্দে ছোট্ট একজন শিশু মারা গেল। শিশুটির বাবার মুখের দিকে তাকিয়ে তার ঠোঁট কাঁপা কান্না দেখে মনে হচ্ছিল আমরা যেন আর সভ্য নই। টেলিভিশনে একজন ডাক্তারের গম্ভিরভাবে বলতে শুনলাম বিকট শব্দ শিশুর মস্তিষ্ক এবং হার্টকে ক্ষতিগ্রস্ত করতে পারে। শহর কি নিষিদ্ধ করতে পারল বিকট শব্দ? আমাদের মাওনায় বাড়ির দেয়াল ঘেঁষে যে বিদ্যুতের তার তা কি উঠিয়ে দিতে পারবে কর্তৃপক্ষ? কেউ কি এমন কিছু ভেবেছে ?

আনসার রোড হতে গড়গড়িয়া মাস্টার বাড়ির এখানে রাস্তার পাশে আট থেকে ১০ ফিট গর্ত করে ড্রেনের কাজ চালানো হচ্ছে। সারা বাংলাদেশের অনেক জায়গায়ই এমন অবস্থা! কবে শেষ হবে, কবে গর্ত বন্ধ হবে তার কোন ঠিক ঠিকানা নেই। ঠিকাদার বলে এক ধরনের কথা আর প্রকৌশলী বলে আরেক ধরনের কথা! এই গর্তের ওপর দিয়ে খুব ভয়ে স্কুলের বাচ্চারা পাড় হয়! ছোট্ট ছোট্ট পাগুলো হঠাৎ ফসকে গেলেই চূড়ান্ত মৃত্যু, আরেকটি ফুলের পতন! দেয়ালগুলো খুব ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে আছে। যে কোন সময় ভেঙে পড়তে পারে পাশে দেয়ালগুলোও। অথচ কেউ দেখে না! তবে কি এখানেও বড় দুর্ঘটনার পর আরেকটি ব্যাখ্যা শুনব আমরা?

আমাদের বৈশিষ্ট্য হলো আমরা যত তাড়াতাড়ি ভুলে যেতে পারি! কিন্তু শিশুটির পরিবার অথবা যে লোকটি বিদ্যুতের তারে ঝুলেছিল প্রায় ঘণ্টা দেড়েক তার সন্তান?

কি ভাবনা রেখে গেল তারা? তারাও তো শিখল এ সমাজে নিরাপত্তার জায়গাটি শুধুই ভাগ্য নামক পরিহাস দখল করে আছে!

আমরা কি আদৌ সভ্য মানুষ হতে পারব? কেউই কি দেখাবে কোন সুষ্ঠু নিয়মের পথ?

[লেখক : রসায়নবিদ]

back to top