alt

উপ-সম্পাদকীয়

অনগ্রসর আদিবাসী জাতি

বাবুল রবি দাস

: রোববার, ০৭ আগস্ট ২০২২

সমাজ-বিজ্ঞান ও নৃ-তত্ত্বের ইতিহাস প্রায় একশ থেকে একশত পঞ্চাশ বছরের হবে। নৃ-বিজ্ঞানীদের মতে, মানবসমাজ কতগুলো পরিবর্তনের স্তর বা ধাপের মধ্য দিয়ে বর্তমান অবস্থায় এসে পৌঁছেছে। পরিবর্তনের প্রত্যেকটি ধাপ; বলাবাহুল্য, বহু হাজার বছর স্থায়ী হয়েছে। নৃ-বিজ্ঞানীরা বিশেষ করে মর্গান দীর্ঘদিনের গবেষণা ও বৈজ্ঞানিক বিশ্লেষণ করে দেখালেন যে, মানুষের বিভিন্ন স্তরের অর্থনৈতিক অবস্থার মধ্যে তাদের সামাজিক রীতিনীতি, আচারবিধি এবং চিন্তাধারাও বিভিন্ন প্রকার ছিল এবং অধিকন্তু মানুষ যখন এক প্রকার অর্থনৈতিক জীবনধারণ থেকে পরবর্তী অর্থনৈতিক জীবনধারণের স্তরে এসেছে, তখন তার সামাজিক আচারবিধি, রীতিনীতি, চিন্তাধারাও পরিবর্তন হয়েছে।

পৃথিবীর অধিকাংশ আদিম অধিবাসী নানা পরিবর্তনের স্তরের মধ্য দিয়ে অগ্রসর হয়ে বর্তমান সভ্য অবস্থায় এসে পৌঁছেছে। কিন্তু কিছু সংখ্যক অধিবাসী পৃথিবীর বিভিন্ন অঞ্চলে তাদের আদিম অবস্থায় রয়ে গেল, বা তাদের খুব সামান্যই পরিবর্তন হলো। এসব আদিম মানুষের অস্তিত্বের খবর যখন সভ্য মানুষ পেল, তখন নৃ-বিজ্ঞানীরা তাদের দেশে গিয়ে তাদের মতোই বাস করে আদিম মানুষের সমাজব্যবস্থা ও রীতিনীতি সম্পর্কে ওয়াকিবহাল হলেন। এসব আদিম মানুষের জীবনধারণ, সমাজব্যবস্থা, ধর্মীয় বিশ্বাস ইত্যাদি সম্পর্কে যথার্থ খবর সংগ্রহ করা সহজ ছিল না। প্রধান অন্তরায় ছিল যাতায়াতের অসুবিধে, আদিম মানুষের দুর্বোধ্য ভাষা ও সভ্য মানুষের প্রতি তাদের ভয়। দুর্গম ও নিবিড় অরণ্যে অথবা ভয়সঙ্কুল মহাসাগরের বুকে ছোট দ্বীপে আদিম মানুষ নৃ-বিজ্ঞানীকে সাদরে গ্রহণ করেনি-আদিম মানুষের সমাজ ব্যবস্থা জানতে গিয়ে অনেকে জীবন পর্যন্ত হারিয়েছেন; তবু মানুষ জ্ঞানের সাধনায় নিরস্ত হয়নি। বহু নৃ-বিজ্ঞানীর অমানুষিক কষ্ট স্বীকার, অপূর্ব ত্যাগ এবং এমনকি কারও কারও জীবনদানের ফলে আজ আমরা আমাদের পূর্বপুরুষ আদিম মানুষের কথা জানতে পেরেছি।

পৃথিবীর আদিম অধিবাসীদের জীবনযাত্রা, সমাজব্যবস্থা ও চিন্তাধারাকে নীচ বা খাটো করে দেখা অত্যন্ত অন্যায় হবে। আদিম মানুষের সামাজিক রীতিনীতি, আচারবিধি ও চিন্তাধারা সভ্য মানুষের মতো নয়, তার জন্য সময়ের ব্যবধান ও প্রাকৃতিক পরিবেশ ইত্যাদি নানা কারণ দায়ী; অধিকন্তু এই বিভিন্নতা মানবজাতির ইতিহাসে এক এক স্তরের এক একটা অবস্থা মাত্র-তার সঙ্গে ভালো বা মন্দের কোন সমন্ধ নেই। এ সত্যটি বর্তমান সমাজবিজ্ঞানী ও নৃ-বিজ্ঞানীদের মধ্যে স্বীকৃত। মানুষের ইতিহাসের বিভিন্ন সময় মানুষের প্রয়োজন ও প্রাকৃতিক পরিবেশের গুরুত্ব স্পষ্ট করে বলতে হলে কয়েকটি উদাহরণ দিতে হয়। শীতের দেশের মানুষ গরম কাপড় পরিধান করে, গরম দেশের মানুষ পাতলা সুতির কাপড় গায়ে দেয়, আবার যেসব সুতার বা কাপড়ের আবিষ্কার হয়নি তখন মানুষ উলঙ্গ থাকত। এই উলঙ্গ থাকা অবস্থাটি মানুষের দোষ নয়, মানব জাতির পরিবর্তনের ইতিহাসের সভ্যতার বিভিন্ন স্তরের একটি স্তর বা অবস্থা মাত্র।

তেমনি খাদ্য বা সামাজিক আচারবিধির ক্ষেত্রে এ কথা প্রযোজ্য। শীতের দেশের এস্কিমোরা কাঁচা মাংস খায়, আমরা সেদ্ধ মাংস খাই; সাপ, ব্যাঙ, ফড়িং সব কিছুই এক অঞ্চলের মানুষের খাদ্য, অন্য অঞ্চলের বা অন্য সমাজের মানুষের অখাদ্য। এ ধরনের বহুবিধ উদাহরণ রয়েছে।

মানুষের সমাজে পরিবর্তন এসেছে ঠিকই, তবে আদিম মানুষের ছিটেফোঁটা আচার বিধি ও রীতিনীতির কোথাও একটু বা পরিবর্তিত হয়ে, কোথাও বা পূর্বে অবস্থাই এখনো সভ্য মানুষের মধ্যে দেখা যায়। আমাদের আজকের সমাজেও তা রয়েছে। পৃথিবী পরিবর্তনশীল ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী বা উপজাতি বা আদিবাসী যে নামেই তাদের ডাকিনা কেন? সুযোগ সুবিধা বা শিক্ষা-দিক্ষার অনগ্রসর বলেই তাদের প্রান্তিক জনগোষ্ঠী আদিম মানুষ বলা হয়। তাদের প্রতি সব প্রকার সাহায্য সহযোগিতা প্রদানের মাধ্যমে জ্ঞান বিজ্ঞানে অগ্রগামী করা হোক। বর্তমান সরকার নীতি হচ্ছে কাউকে পেছনে রেখে উন্নয়ন নয়। সব আদিবাসী বা দলিত বঞ্চিত, ব্রাত্যজন বা অন্ত্যজনগোষ্ঠী দারিদ্র্য থেকে মুক্তি পাক ও শিক্ষা-দীক্ষা, জ্ঞান গড়িমায় এগিয়ে আসুক এই প্রত্যাশা কামনা করি।

[লেখক : আইনজীবী]

কৃষি ও কম্পিউটার শিক্ষা বাস্তবমুখী হওয়া প্রয়োজন

জনপ্রিয়তা, সম্মান এবং সৃষ্টি সুখের গোপন তরিকা

ছবি

বছরে ১০ বিলিয়ন ডলার চামড়া রপ্তানি করা সম্ভব

ছবি

স্বপ্নছোঁয়া জয় ও এগিয়ে যাওয়ার পথনকশা

সড়ক দুর্ঘটনার মূল্য কত

ছবি

হার না মানা লাল-সবুজের মেয়েরা

ছবি

জাতিসংঘে বঙ্গবন্ধু

নারী ফুটবল দলকে অভিনন্দন

সেলিম : ভারতে বামপন্থার পুনর্জাগরণের ঋত্ত্বিক

ছবি

পোলট্রি শিল্পের সংকট

ছবি

বিদায় রানী এলিজাবেথ

সর্প দংশনের কার্যকর চিকিৎসা পেতে চ্যালেঞ্জ এবং বাধা

খেলনা শিল্পের সম্ভাবনা

অভিযোজন সক্ষমতা বাড়াতে গাছ লাগানোর গুরুত্ব

ছবি

যানজট : অর্থনীতির নীরব ঘাতক

বিপজ্জনক বর্জ্য এবং এর ব্যবস্থাপনা

কৃষি খাতের উন্নয়ন ধরে রাখার চ্যালেঞ্জ

নতুন শিক্ষাক্রম ও বিষয়ভিত্তিক শিক্ষক

বসবাসের অযোগ্য হয়ে পড়ছে ঢাকা

প্রাথমিক শিক্ষা ও প্রাসঙ্গিক বিষয়

ডিজিটাল শিল্পযুগ ও অন্যান্য প্রসঙ্গ

রেলওয়ের অব্যবস্থাপনা

বিশ্বে সাম্রাজ্যবাদী শক্তির আগ্রাসন

সুন্দরবনের সুরক্ষায় সমন্বিত ও টেকসই পদক্ষেপ নিতে হবে

মানসম্মত প্রাথমিক শিক্ষার জন্য রিডিং কম্পিটিশন

দুগ্ধশিল্পের সম্ভাবনা ও সংকট

বাণিজ্য ঘাটতি কমবে কীভাবে

সেন্টার বেইজড বিশ্বমানের হাসপাতাল

ডিজিটাল বৈষম্য দূর করা জরুরি

নারী নিগ্রহ : প্রশ্নবিদ্ধ সামাজিক সুস্থতা

ছবি

শেখ হাসিনা ভারত থেকে কী কী এনেছেন

দেশভাগ ঘিরে চর্চার পণ্যায়ন

বাষট্টির শিক্ষা আন্দোলন ও আজকের শিক্ষা

দুর্নীতি কি অন্যায়

প্রশিক্ষিত নার্স ও মিডওয়াইফের প্রয়োজনীয়তা

বৈশ্বিক অস্থিরতা ও কৃষি ভাবনা

tab

উপ-সম্পাদকীয়

অনগ্রসর আদিবাসী জাতি

বাবুল রবি দাস

রোববার, ০৭ আগস্ট ২০২২

সমাজ-বিজ্ঞান ও নৃ-তত্ত্বের ইতিহাস প্রায় একশ থেকে একশত পঞ্চাশ বছরের হবে। নৃ-বিজ্ঞানীদের মতে, মানবসমাজ কতগুলো পরিবর্তনের স্তর বা ধাপের মধ্য দিয়ে বর্তমান অবস্থায় এসে পৌঁছেছে। পরিবর্তনের প্রত্যেকটি ধাপ; বলাবাহুল্য, বহু হাজার বছর স্থায়ী হয়েছে। নৃ-বিজ্ঞানীরা বিশেষ করে মর্গান দীর্ঘদিনের গবেষণা ও বৈজ্ঞানিক বিশ্লেষণ করে দেখালেন যে, মানুষের বিভিন্ন স্তরের অর্থনৈতিক অবস্থার মধ্যে তাদের সামাজিক রীতিনীতি, আচারবিধি এবং চিন্তাধারাও বিভিন্ন প্রকার ছিল এবং অধিকন্তু মানুষ যখন এক প্রকার অর্থনৈতিক জীবনধারণ থেকে পরবর্তী অর্থনৈতিক জীবনধারণের স্তরে এসেছে, তখন তার সামাজিক আচারবিধি, রীতিনীতি, চিন্তাধারাও পরিবর্তন হয়েছে।

পৃথিবীর অধিকাংশ আদিম অধিবাসী নানা পরিবর্তনের স্তরের মধ্য দিয়ে অগ্রসর হয়ে বর্তমান সভ্য অবস্থায় এসে পৌঁছেছে। কিন্তু কিছু সংখ্যক অধিবাসী পৃথিবীর বিভিন্ন অঞ্চলে তাদের আদিম অবস্থায় রয়ে গেল, বা তাদের খুব সামান্যই পরিবর্তন হলো। এসব আদিম মানুষের অস্তিত্বের খবর যখন সভ্য মানুষ পেল, তখন নৃ-বিজ্ঞানীরা তাদের দেশে গিয়ে তাদের মতোই বাস করে আদিম মানুষের সমাজব্যবস্থা ও রীতিনীতি সম্পর্কে ওয়াকিবহাল হলেন। এসব আদিম মানুষের জীবনধারণ, সমাজব্যবস্থা, ধর্মীয় বিশ্বাস ইত্যাদি সম্পর্কে যথার্থ খবর সংগ্রহ করা সহজ ছিল না। প্রধান অন্তরায় ছিল যাতায়াতের অসুবিধে, আদিম মানুষের দুর্বোধ্য ভাষা ও সভ্য মানুষের প্রতি তাদের ভয়। দুর্গম ও নিবিড় অরণ্যে অথবা ভয়সঙ্কুল মহাসাগরের বুকে ছোট দ্বীপে আদিম মানুষ নৃ-বিজ্ঞানীকে সাদরে গ্রহণ করেনি-আদিম মানুষের সমাজ ব্যবস্থা জানতে গিয়ে অনেকে জীবন পর্যন্ত হারিয়েছেন; তবু মানুষ জ্ঞানের সাধনায় নিরস্ত হয়নি। বহু নৃ-বিজ্ঞানীর অমানুষিক কষ্ট স্বীকার, অপূর্ব ত্যাগ এবং এমনকি কারও কারও জীবনদানের ফলে আজ আমরা আমাদের পূর্বপুরুষ আদিম মানুষের কথা জানতে পেরেছি।

পৃথিবীর আদিম অধিবাসীদের জীবনযাত্রা, সমাজব্যবস্থা ও চিন্তাধারাকে নীচ বা খাটো করে দেখা অত্যন্ত অন্যায় হবে। আদিম মানুষের সামাজিক রীতিনীতি, আচারবিধি ও চিন্তাধারা সভ্য মানুষের মতো নয়, তার জন্য সময়ের ব্যবধান ও প্রাকৃতিক পরিবেশ ইত্যাদি নানা কারণ দায়ী; অধিকন্তু এই বিভিন্নতা মানবজাতির ইতিহাসে এক এক স্তরের এক একটা অবস্থা মাত্র-তার সঙ্গে ভালো বা মন্দের কোন সমন্ধ নেই। এ সত্যটি বর্তমান সমাজবিজ্ঞানী ও নৃ-বিজ্ঞানীদের মধ্যে স্বীকৃত। মানুষের ইতিহাসের বিভিন্ন সময় মানুষের প্রয়োজন ও প্রাকৃতিক পরিবেশের গুরুত্ব স্পষ্ট করে বলতে হলে কয়েকটি উদাহরণ দিতে হয়। শীতের দেশের মানুষ গরম কাপড় পরিধান করে, গরম দেশের মানুষ পাতলা সুতির কাপড় গায়ে দেয়, আবার যেসব সুতার বা কাপড়ের আবিষ্কার হয়নি তখন মানুষ উলঙ্গ থাকত। এই উলঙ্গ থাকা অবস্থাটি মানুষের দোষ নয়, মানব জাতির পরিবর্তনের ইতিহাসের সভ্যতার বিভিন্ন স্তরের একটি স্তর বা অবস্থা মাত্র।

তেমনি খাদ্য বা সামাজিক আচারবিধির ক্ষেত্রে এ কথা প্রযোজ্য। শীতের দেশের এস্কিমোরা কাঁচা মাংস খায়, আমরা সেদ্ধ মাংস খাই; সাপ, ব্যাঙ, ফড়িং সব কিছুই এক অঞ্চলের মানুষের খাদ্য, অন্য অঞ্চলের বা অন্য সমাজের মানুষের অখাদ্য। এ ধরনের বহুবিধ উদাহরণ রয়েছে।

মানুষের সমাজে পরিবর্তন এসেছে ঠিকই, তবে আদিম মানুষের ছিটেফোঁটা আচার বিধি ও রীতিনীতির কোথাও একটু বা পরিবর্তিত হয়ে, কোথাও বা পূর্বে অবস্থাই এখনো সভ্য মানুষের মধ্যে দেখা যায়। আমাদের আজকের সমাজেও তা রয়েছে। পৃথিবী পরিবর্তনশীল ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী বা উপজাতি বা আদিবাসী যে নামেই তাদের ডাকিনা কেন? সুযোগ সুবিধা বা শিক্ষা-দিক্ষার অনগ্রসর বলেই তাদের প্রান্তিক জনগোষ্ঠী আদিম মানুষ বলা হয়। তাদের প্রতি সব প্রকার সাহায্য সহযোগিতা প্রদানের মাধ্যমে জ্ঞান বিজ্ঞানে অগ্রগামী করা হোক। বর্তমান সরকার নীতি হচ্ছে কাউকে পেছনে রেখে উন্নয়ন নয়। সব আদিবাসী বা দলিত বঞ্চিত, ব্রাত্যজন বা অন্ত্যজনগোষ্ঠী দারিদ্র্য থেকে মুক্তি পাক ও শিক্ষা-দীক্ষা, জ্ঞান গড়িমায় এগিয়ে আসুক এই প্রত্যাশা কামনা করি।

[লেখক : আইনজীবী]

back to top