alt

উপ-সম্পাদকীয়

সাম্প্রদায়িকতার বিষবৃক্ষ

শুভ্রেন্দু ভট্টাচার্য

: বৃহস্পতিবার, ১১ আগস্ট ২০২২

সাম্প্রতিক কালে ঘটে যাওয়া বেশ কিছু ঘটনায় সমাজের ভিত কেঁপে উঠেছে। নড়াইল ইউনাইটেড ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ স্বপন কুমার বিশ্বাসকে জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারের উপস্থিতিতে পুলিশের সামনে শত শত ছাত্র-জনতার উল্লসিত দর্শকের ডামাডোলে হ্যান্ডমাইকে ঘোষণা দিয়ে কলেজ ক্যাম্পাসে জুতার মালা পরিয়ে শোভাযাত্রা করানো হয়। এই ঘটনার ভিডিও করে ভাইরাল করা হয়। এ ছাড়া আশুলিয়া হাজি ইউনুস আলী কলেজের শিক্ষক উৎপল কুমার সরকারকে তারই ছাত্র আশরাফুল ইসলাম জিতু কলেজ ক্যাম্পাসে শত শত ছাত্র-শিক্ষকের সামনে স্টাম্প দিয়ে পিটিয়ে হত্যা করে। পূর্বে মুন্সীগঞ্জে বিজ্ঞান শিক্ষক হৃদয় কৃষ্ণ মন্ডলকে ছাত্রদের বিজ্ঞানের বিভিন্ন তাত্ত্বিক ও ব্যবহারিক দিক নিয়ে পড়ানোর সময় ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাতের মিথ্যা অভিযোগে কারাগারে প্রেরণ করা হয়। অতীতে নারায়নগঞ্জে পিয়ার সাত্তার উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শ্যামল কান্তি ভক্তকে স্থানীয় এমপি সেলিম ওসমান মিথ্যা অভিযোগে হাজার ছাত্র-জনতার সামনে কান ধরে উঠবস করান। আর লক্ষ্য করলে দেখা যায় অধিকাংস ঘটনাই একটি বিশেষ সম্প্রদায়ের মানুষকে লক্ষ্য করে সংঘটিত হচ্ছে। সার্বিক ভাবে সাম্প্রদায়িক সহিংসতার ঘটনা ঘটেই চলছে। অনেক ঘটনা হয়তো লোক-লজ্জা বা প্রভাবশালী মহলের চাপে গণমাধ্যমে প্রকাশ পায় না।

শিক্ষক হত্যা, লাঞ্ছনা ইত্যাদির প্রতিবাদে গতানুগতিকভাবে দেশব্যাপী প্রতিবাদ মানববন্ধন, বিক্ষোভ মিছিলে মনে হয় জাতির বিবেক জেগে উঠেছে। অপরাধীদের বিচার না হওয়া পর্যন্ত প্রতিবাদ মুখর মানুষ ঘরে ফিরে যাবে না। প্রশাসনও ঘটনা খতিয়ে দেখছে বলে বার বার আশ্বস্ত করছে। সমানে ধরপাকড় শুরু হয়েছে। কিন্তু নিহত শিক্ষক উৎপল সরকার তো আর ফিরে আসবেন না। চিরকালে জন্যে বৃদ্ধা মায়ের বুক খালি করে তিনি না ফেরার দেশে চলে গেছেন। যে শিক্ষককে জনসমক্ষে জুতার মালা পরানো হলো, বিনা অপরাধে মিথ্যা অভিযোগে যে হৃদয় মন্ডলকে জেলে পাঠানো হল, যে বেচারা প্রধান শিক্ষককে এমপি সাহেব ছাত্রদের সামনে কান ধরিয়ে উঠবস করালেন তিনি কোন মুখে ক্লাসরুমে গিয়ে ছাত্রদের নীতি শিক্ষা দেবেন।

নিয়তির কি পরিহাস! কালের বিবর্তনে শিক্ষক তার ছাত্রের হাতে খুন হচ্ছেন, জুতার মালা দিয়ে ছাত্ররা শিক্ষককে বরণ করছে। এখন ম্যানেজিং কমিটির নির্দেশ মতো শিক্ষককে চলতে হয়। ক্ষেত্র বিশেষে ছাত্ররা শিক্ষকদের শিক্ষা দিচ্ছে। উৎপল স্যার মরে মুক্তি পেয়ে গেছেন; কিন্তু অপমানিত শিক্ষক যতদিন বেঁচে থাকবেন জীবন্মৃত হয়ে তাদের দিন গুজরান করতে হবে।

মুক্তিযুদ্ধের চেতনার বাস্তবায়ন, বাংলাদেশ অসাম্প্রদায়িকতার এক উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত, এ সমস্ত কথা বিভিন্ন মহল থেকে প্রায়ই উচ্চারিত হয়। কিন্তু বাস্তব ক্ষেত্রে উপর্যুপরি সাম্প্রদায়িক সহিংসতার যে সব ঘটনা ঘটে চলছে তাতে বাস্তবতার সঙ্গে সমাজপতিদের এসব কথার কোন মিল খুঁজে পাওয়া যায় না। সাম্প্রদায়িক সহিংসতার এ ধরনের ঘটনায় ন্যায় বিচারের মাধ্যমে প্রকৃত অপরাধীদের যদি দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দিয়ে নজির সৃষ্টি হতো তাহলে সম্প্রীতি নষ্টকারী অপশক্তি এ সব অপতৎপরতায় লিপ্ত হওয়ার উদ্যম হারাত। পরিতাপের সঙ্গে বলতে হয় আজ পর্যন্ত এ ধরনের একটি ঘটনারও বিচার হয়নি। এই বিচারহীনতার সংস্কৃতির কারণে অপরাধীরা আরও বেপরোয়া হয়ে উঠেছে এবং স্বাধীনতা বিরোধী চক্র একের পর এক ষড়যন্ত্রে উৎসাহিত হচ্ছে।

মুক্তিযুদ্ধের পিছনে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি তথা অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ গড়ার চেতনা মূল সঞ্জীবনী শক্তি হিসেবে কাজ করছিল। কিন্তু ১৯৭৫ সালে জাতির পিতাকে হত্যা করার পর স্বাধীনতা বিরোধী চক্র মুক্তিযুদ্ধের চেতনা নস্যাত করতে সংবিধান সংশোধনীর মাধ্যমে একের পর এক চক্রান্তে লিপ্ত হয়। এর ফলে দেশ সাম্প্রদায়িকতার এক উর্বর ক্ষেত্রে পরিণত হয়।

পরে মুক্তিযুদ্ধে নেতৃত্বকারী দল ক্ষমতায় আসলেও রাষ্ট্র ধর্মসহ স্বৈরাচারী সরকার সমূহের প্রবর্তিত ধারা থেকে খুব একটা সরে আসতে পারেনি। এ অবস্থায় স্বাধীনতার পক্ষের সরকার ক্ষমতায় থাকা সত্ত্বেও স্বাধীনতা বিরোধী চক্রের তৎপরতায় মুক্তচিন্তার মানুষ হত্যা, শিক্ষক হত্যা নির্যাতনসহ সাম্প্রদায়িক সহিংসতার ঘটনা অব্যাহত থাকে।

২০১১ সালে আওয়ামী লীগ সরকার পঞ্চদশ সংশোধনীর মাধ্যমে ধর্ম নিরপেক্ষতা ও ধর্মীয় স্বাধীনতাসহ ১৯৭২ সালের সংবিধানের রাষ্ট্রীয় মূল চার নীতি সংবিধানে সংযোজন করে। কিন্তু একই সঙ্গে স্বৈরাচারী এরশাদ সরকারের ৮ম সংশোধনীর মাধ্যমে রাষ্ট্র ধর্ম ইসলাম ধারাটি বহাল রাখা হয়। রাষ্ট্রীয় আদর্শের এই স্ববিরোধিতার কারণে স্বাধীনতা বিরোধী ধর্মান্ধ গোষ্ঠী তাদের এজেন্ডা বাস্তবায়নে আরও তৎপর হয়ে উঠে। ফলত মুক্তিযুদ্ধের চেতনার ধারক ও বাহক মুক্ত চিন্তার মানুষ হত্যা,সাম্প্রদায়িক সহিংসতা ইত্যাদি অপতৎপরতার পথ আরও প্রশস্ত হয়। হেফাজতে ইসলামসহ ধর্মান্ধ গোষ্ঠীগুলো অধিকতর উজ্জীবিত হয়ে অপতৎপরতায় লিপ্ত হয় যা প্রকারান্তরে স্বাধীনতার পক্ষের শক্তিকে দুর্বল করে। মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বিরোধী এজেন্ডা বাস্তবায়নে পরিকল্পিতভাবে সাম্প্রদায়িক সহিংসতার পাশাপাশি অনেক মুক্ত চিন্তার মানুষকে হত্যার তান্ডব চালায়।

শিক্ষক লাঞ্ছনা, খুন, মুক্তচিন্তার মানুষের ওপর হামলা, হত্যা, নির্যাতন, সিরিজ সাম্প্রদায়িক সহিংসতা, পাঠ্যসূচি পরিবর্তনে সরকারকে প্ররোচিতকরণ ইত্যাদি কার্যকলাপ বিরোধী চক্রের এজেন্ডা বাস্তবায়নেরই অংশ বিশেষ। জাতি গঠনের কারিগর শিক্ষক হত্যা, লাঞ্ছনা জাতিকে অভিভাবকশূন্য ও মেরুদন্ডহীন করারই ষড়যন্ত্র যা ১৯৭১ এ বুদ্ধিজীবী হত্যার পরিকল্পনায় অসম্পূর্ণ থেকেছিল। ১৯৭৫ পরবর্তী সময়ে মৌলবাদী শক্তির তৎপরতায় যে বিষবৃক্ষের জন্ম হয়েছে তার গোড়া এখনই উপড়ে না ফেলতে না পারলে অচিরেই তা মহীরুহে পরিণত হয়ে জাতিকে কালো ছায়ায় আচ্ছন্ন করে ফেলবে।

[লেখক : সাবেক পরিচালক, বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা কল্যাণ ট্রাস্ট, মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয়]

উত্তরবঙ্গের পর্যটন ও সম্ভাবনা : একটি অনুভাবনা

জাগো বহ্নিশিখা

মাঠ প্রশাসনের কর্মকর্তাদের আচরণ প্রসঙ্গে

ছবি

শাকিব খান, দুষ্মন্ত-শকুন্তলা এবং নায়িকা সমাচার

ছোটদের লেখাপড়ায় নিতে হবে মেগা প্রকল্প

ছবি

সার্বজনীন দুর্গাৎসব

বেদিয়া ও কুর্মি জাতিসত্তার হোক স্বতন্ত্র পরিচয়

ডিজিটাল শিল্পযুগ ও অন্যান্য প্রসঙ্গ

ছবি

সর্বজনীন থেকে বিশ্বজনীন হয়ে ওঠা দুর্গোৎসব

যে কারণে শিক্ষাব্যবস্থার জাতীয়করণ প্রয়োজন

সীমান্তে উত্তেজনা, কী চায় মায়ানমার

সত্যি ওরা পেরেছে

শিশু নির্যাতনের প্রতিকারের পথে বাধা কী

আত্মগোপন, নিখোঁজ আর গুম

আন্তর্জাতিক প্রবীণ দিবস

বাঁচো, বাঁচো এবং বাঁচো

কন্যাশিশুকে শিক্ষায়ও এগিয়ে থাকতে হবে 

বুদ্ধিজীবিতার দায়

আদিবাসীর তালিকা নিয়ে বিতর্ক কেন

সত্য কাজে কেউ নয় রাজি

মেগা প্রকল্প ঘিরে পর্যটনের সম্ভাবনা

বিশ্বব্যাপী ক্ষুধার্ত মানুষের সংখ্যা বাড়ছে

শেষ আফ্রিকান টিক ওক গাছটি কি মারা গেছে?

তথ্যপ্রযুক্তির যুগে জনগণের তথ্য অধিকার নিশ্চিত হোক

ছবি

সময়মতো শিক্ষার্থীদের হাতে পৌঁছাক পাঠ্যবই

ডিজিটাল শিল্পযুগ ও অন্যান্য প্রসঙ্গ

আঞ্চলিক যোগাযোগের গুরুত্ব

কৃষি ও কম্পিউটার শিক্ষা বাস্তবমুখী হওয়া প্রয়োজন

জনপ্রিয়তা, সম্মান এবং সৃষ্টি সুখের গোপন তরিকা

ছবি

বছরে ১০ বিলিয়ন ডলার চামড়া রপ্তানি করা সম্ভব

ছবি

স্বপ্নছোঁয়া জয় ও এগিয়ে যাওয়ার পথনকশা

সড়ক দুর্ঘটনার মূল্য কত

ছবি

হার না মানা লাল-সবুজের মেয়েরা

ছবি

জাতিসংঘে বঙ্গবন্ধু

নারী ফুটবল দলকে অভিনন্দন

সেলিম : ভারতে বামপন্থার পুনর্জাগরণের ঋত্ত্বিক

tab

উপ-সম্পাদকীয়

সাম্প্রদায়িকতার বিষবৃক্ষ

শুভ্রেন্দু ভট্টাচার্য

বৃহস্পতিবার, ১১ আগস্ট ২০২২

সাম্প্রতিক কালে ঘটে যাওয়া বেশ কিছু ঘটনায় সমাজের ভিত কেঁপে উঠেছে। নড়াইল ইউনাইটেড ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ স্বপন কুমার বিশ্বাসকে জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারের উপস্থিতিতে পুলিশের সামনে শত শত ছাত্র-জনতার উল্লসিত দর্শকের ডামাডোলে হ্যান্ডমাইকে ঘোষণা দিয়ে কলেজ ক্যাম্পাসে জুতার মালা পরিয়ে শোভাযাত্রা করানো হয়। এই ঘটনার ভিডিও করে ভাইরাল করা হয়। এ ছাড়া আশুলিয়া হাজি ইউনুস আলী কলেজের শিক্ষক উৎপল কুমার সরকারকে তারই ছাত্র আশরাফুল ইসলাম জিতু কলেজ ক্যাম্পাসে শত শত ছাত্র-শিক্ষকের সামনে স্টাম্প দিয়ে পিটিয়ে হত্যা করে। পূর্বে মুন্সীগঞ্জে বিজ্ঞান শিক্ষক হৃদয় কৃষ্ণ মন্ডলকে ছাত্রদের বিজ্ঞানের বিভিন্ন তাত্ত্বিক ও ব্যবহারিক দিক নিয়ে পড়ানোর সময় ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাতের মিথ্যা অভিযোগে কারাগারে প্রেরণ করা হয়। অতীতে নারায়নগঞ্জে পিয়ার সাত্তার উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শ্যামল কান্তি ভক্তকে স্থানীয় এমপি সেলিম ওসমান মিথ্যা অভিযোগে হাজার ছাত্র-জনতার সামনে কান ধরে উঠবস করান। আর লক্ষ্য করলে দেখা যায় অধিকাংস ঘটনাই একটি বিশেষ সম্প্রদায়ের মানুষকে লক্ষ্য করে সংঘটিত হচ্ছে। সার্বিক ভাবে সাম্প্রদায়িক সহিংসতার ঘটনা ঘটেই চলছে। অনেক ঘটনা হয়তো লোক-লজ্জা বা প্রভাবশালী মহলের চাপে গণমাধ্যমে প্রকাশ পায় না।

শিক্ষক হত্যা, লাঞ্ছনা ইত্যাদির প্রতিবাদে গতানুগতিকভাবে দেশব্যাপী প্রতিবাদ মানববন্ধন, বিক্ষোভ মিছিলে মনে হয় জাতির বিবেক জেগে উঠেছে। অপরাধীদের বিচার না হওয়া পর্যন্ত প্রতিবাদ মুখর মানুষ ঘরে ফিরে যাবে না। প্রশাসনও ঘটনা খতিয়ে দেখছে বলে বার বার আশ্বস্ত করছে। সমানে ধরপাকড় শুরু হয়েছে। কিন্তু নিহত শিক্ষক উৎপল সরকার তো আর ফিরে আসবেন না। চিরকালে জন্যে বৃদ্ধা মায়ের বুক খালি করে তিনি না ফেরার দেশে চলে গেছেন। যে শিক্ষককে জনসমক্ষে জুতার মালা পরানো হলো, বিনা অপরাধে মিথ্যা অভিযোগে যে হৃদয় মন্ডলকে জেলে পাঠানো হল, যে বেচারা প্রধান শিক্ষককে এমপি সাহেব ছাত্রদের সামনে কান ধরিয়ে উঠবস করালেন তিনি কোন মুখে ক্লাসরুমে গিয়ে ছাত্রদের নীতি শিক্ষা দেবেন।

নিয়তির কি পরিহাস! কালের বিবর্তনে শিক্ষক তার ছাত্রের হাতে খুন হচ্ছেন, জুতার মালা দিয়ে ছাত্ররা শিক্ষককে বরণ করছে। এখন ম্যানেজিং কমিটির নির্দেশ মতো শিক্ষককে চলতে হয়। ক্ষেত্র বিশেষে ছাত্ররা শিক্ষকদের শিক্ষা দিচ্ছে। উৎপল স্যার মরে মুক্তি পেয়ে গেছেন; কিন্তু অপমানিত শিক্ষক যতদিন বেঁচে থাকবেন জীবন্মৃত হয়ে তাদের দিন গুজরান করতে হবে।

মুক্তিযুদ্ধের চেতনার বাস্তবায়ন, বাংলাদেশ অসাম্প্রদায়িকতার এক উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত, এ সমস্ত কথা বিভিন্ন মহল থেকে প্রায়ই উচ্চারিত হয়। কিন্তু বাস্তব ক্ষেত্রে উপর্যুপরি সাম্প্রদায়িক সহিংসতার যে সব ঘটনা ঘটে চলছে তাতে বাস্তবতার সঙ্গে সমাজপতিদের এসব কথার কোন মিল খুঁজে পাওয়া যায় না। সাম্প্রদায়িক সহিংসতার এ ধরনের ঘটনায় ন্যায় বিচারের মাধ্যমে প্রকৃত অপরাধীদের যদি দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দিয়ে নজির সৃষ্টি হতো তাহলে সম্প্রীতি নষ্টকারী অপশক্তি এ সব অপতৎপরতায় লিপ্ত হওয়ার উদ্যম হারাত। পরিতাপের সঙ্গে বলতে হয় আজ পর্যন্ত এ ধরনের একটি ঘটনারও বিচার হয়নি। এই বিচারহীনতার সংস্কৃতির কারণে অপরাধীরা আরও বেপরোয়া হয়ে উঠেছে এবং স্বাধীনতা বিরোধী চক্র একের পর এক ষড়যন্ত্রে উৎসাহিত হচ্ছে।

মুক্তিযুদ্ধের পিছনে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি তথা অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ গড়ার চেতনা মূল সঞ্জীবনী শক্তি হিসেবে কাজ করছিল। কিন্তু ১৯৭৫ সালে জাতির পিতাকে হত্যা করার পর স্বাধীনতা বিরোধী চক্র মুক্তিযুদ্ধের চেতনা নস্যাত করতে সংবিধান সংশোধনীর মাধ্যমে একের পর এক চক্রান্তে লিপ্ত হয়। এর ফলে দেশ সাম্প্রদায়িকতার এক উর্বর ক্ষেত্রে পরিণত হয়।

পরে মুক্তিযুদ্ধে নেতৃত্বকারী দল ক্ষমতায় আসলেও রাষ্ট্র ধর্মসহ স্বৈরাচারী সরকার সমূহের প্রবর্তিত ধারা থেকে খুব একটা সরে আসতে পারেনি। এ অবস্থায় স্বাধীনতার পক্ষের সরকার ক্ষমতায় থাকা সত্ত্বেও স্বাধীনতা বিরোধী চক্রের তৎপরতায় মুক্তচিন্তার মানুষ হত্যা, শিক্ষক হত্যা নির্যাতনসহ সাম্প্রদায়িক সহিংসতার ঘটনা অব্যাহত থাকে।

২০১১ সালে আওয়ামী লীগ সরকার পঞ্চদশ সংশোধনীর মাধ্যমে ধর্ম নিরপেক্ষতা ও ধর্মীয় স্বাধীনতাসহ ১৯৭২ সালের সংবিধানের রাষ্ট্রীয় মূল চার নীতি সংবিধানে সংযোজন করে। কিন্তু একই সঙ্গে স্বৈরাচারী এরশাদ সরকারের ৮ম সংশোধনীর মাধ্যমে রাষ্ট্র ধর্ম ইসলাম ধারাটি বহাল রাখা হয়। রাষ্ট্রীয় আদর্শের এই স্ববিরোধিতার কারণে স্বাধীনতা বিরোধী ধর্মান্ধ গোষ্ঠী তাদের এজেন্ডা বাস্তবায়নে আরও তৎপর হয়ে উঠে। ফলত মুক্তিযুদ্ধের চেতনার ধারক ও বাহক মুক্ত চিন্তার মানুষ হত্যা,সাম্প্রদায়িক সহিংসতা ইত্যাদি অপতৎপরতার পথ আরও প্রশস্ত হয়। হেফাজতে ইসলামসহ ধর্মান্ধ গোষ্ঠীগুলো অধিকতর উজ্জীবিত হয়ে অপতৎপরতায় লিপ্ত হয় যা প্রকারান্তরে স্বাধীনতার পক্ষের শক্তিকে দুর্বল করে। মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বিরোধী এজেন্ডা বাস্তবায়নে পরিকল্পিতভাবে সাম্প্রদায়িক সহিংসতার পাশাপাশি অনেক মুক্ত চিন্তার মানুষকে হত্যার তান্ডব চালায়।

শিক্ষক লাঞ্ছনা, খুন, মুক্তচিন্তার মানুষের ওপর হামলা, হত্যা, নির্যাতন, সিরিজ সাম্প্রদায়িক সহিংসতা, পাঠ্যসূচি পরিবর্তনে সরকারকে প্ররোচিতকরণ ইত্যাদি কার্যকলাপ বিরোধী চক্রের এজেন্ডা বাস্তবায়নেরই অংশ বিশেষ। জাতি গঠনের কারিগর শিক্ষক হত্যা, লাঞ্ছনা জাতিকে অভিভাবকশূন্য ও মেরুদন্ডহীন করারই ষড়যন্ত্র যা ১৯৭১ এ বুদ্ধিজীবী হত্যার পরিকল্পনায় অসম্পূর্ণ থেকেছিল। ১৯৭৫ পরবর্তী সময়ে মৌলবাদী শক্তির তৎপরতায় যে বিষবৃক্ষের জন্ম হয়েছে তার গোড়া এখনই উপড়ে না ফেলতে না পারলে অচিরেই তা মহীরুহে পরিণত হয়ে জাতিকে কালো ছায়ায় আচ্ছন্ন করে ফেলবে।

[লেখক : সাবেক পরিচালক, বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা কল্যাণ ট্রাস্ট, মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয়]

back to top