alt

উপ-সম্পাদকীয়

দুর্নীতির বিরুদ্ধে লড়াই চালিয়ে যেতে হবে

শেখ সালাহ্উদ্দিন আহমেদ

: সোমবার, ৩০ জানুয়ারী ২০২৩

দুর্নীতির বিরুদ্ধে তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা নিতে ডিসিদের তাগিদ দিয়েছেন দুর্নীতি দমন কমিশনের চেয়ারম্যান। বলেছেন, জেলা প্রশাসকরা সরকারের প্রতিনিধি। জেলায় কোনো দুর্নীতি হলে তথ্য পাওয়ার অনেক সোর্স তাদের রয়েছে। দুর্নীতির তথ্য পেলে তারা যেন বসে না থেকে সঙ্গে সঙ্গে পদক্ষেপ নেন, যাতে দুর্নীতি বন্ধ হয়। জেলা প্রশাসক সম্মেলনের দ্বিতীয় দিনে মন্ত্রীরা নিত্যপণ্যের বাজার নিয়ন্ত্রণে রাখা, দেশে খাদ্য উৎপাদন বাড়ানো, পরিবেশ সুরক্ষাসহ অন্যান্য বিষয়ে বক্তব্য দেন। বলেন, আসন্ন রমজানে পণ্যের দাম বাড়ানোর সুযোগ কেউ নিলে কঠোর ব্যবস্থা নিতে হবে। কোনো ধরনের ছাড় দেওয়া যাবে না। কৃষিজমি নষ্ট করে অর্থনৈতিক অঞ্চল করা যাবে না। দেশের সব ধরনের অনাবাদি জমি চাষাবাদের আওতায় আনতে হবে। সব জমিতে ফসল ফলাতে পারলে দেশে দুর্ভিক্ষ দেখা দেবে না। সড়কে শৃঙ্খলা ফেরাতে হবে। নতুন রাস্তা নির্মাণের চেয়ে ভাঙাচোরা সড়ক মেরামত করতে হবে। পরিবেশসম্মত ব্যাগ ব্যবহার বাড়ানোর পাশাপাশি প্লাস্টিকের বস্তায় দেশি চাল পাওয়া গেলে জব্দ করার নির্দেশনা দেওয়া হয়।

বলা হয়, দেশকে এগিয়ে নিতে হলে জনপ্রতিনিধিদের সঙ্গে সমন্বয় করে একসঙ্গে কাজ করতে হবে। জেলা প্রশাসকদের সঙ্গে জনপ্রতিনিধিদের সমন্বয়হীনতা থাকলে ধারণাগত দ্বন্দ্ব সৃষ্টি হয়। স্থানীয় সরকারের ক্ষেত্রেও জনপ্রতিনিধিদের সঙ্গে সমন্বয় করে এগোতে হবে। জেলা প্রশাসক সম্মেলনে দুর্নীতির বিরুদ্ধে সক্রিয় হওয়ার যে তাগিদ দেওয়া হয়েছে তা খুবই প্রাসঙ্গিক ও অর্থবহ। দুর্নীতি ১৮ কোটি মানুষের সব অর্জনকে বিপন্ন করে তুলতে চাচ্ছে। স্বাধীনতার পর পাঁচ দশকে বাংলাদেশের উন্নতি নিঃসন্দেহে গর্বের। তবে দুর্নীতি রোধ করতে পারলে উন্নয়নের সুফল আরও বেশি আমজনতার হাতে পৌঁছাত। উন্নয়ন আরও বেশি নিখুঁত এবং ফলপ্রসূ হতো। এ ব্যাপারে শুধু দুর্নীতির বিরুদ্ধে কথা বলা নয়, কার্যক্ষেত্রে সবাইকে দৃঢ় মনোভাবের পরিচয় দিতে হবে। যেখানেই দুর্নীতি সেখানেই গড়ে তুলতে হবে প্রতিরোধ। দেশের সরকারি কোনো অফিসে উৎকোচ ছাড়া সেবা পাওয়া দুষ্কর। এই নোংরা ঐতিহ্যের অবসান ঘটাতে হবে।

দেশে দুর্নীতির সঙ্গে জড়িতদের দৃশ্যমান কঠোর শাস্তি হয় না। রাজনীতিকে টাকা বানানোর হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করা হচ্ছে। অনিয়মের তথ্য প্রকাশের পর অনেক ক্ষেত্রে হয়রানির শিকার হতে হয়। রাঘববোয়ালদের ধরা হয় না। যে কারণে দুর্নীতি বাড়ছে।

দেশে দুই জায়গায় দুর্নীতি বেশি হয়। প্রথমত সরকারি ব্যয়ে এবং দ্বিতীয়ত ব্যাংকের ঋণ নিয়ে। সাম্প্রতিক সময়ে সরকারি ব্যয় অনেক বেড়েছে। এছাড়া ঘুষ না দিলে ঋণ পাওয়া যায় না। যে কারণে দুর্নীতি বেড়েছে। যেভাবে দুর্নীতি চিহ্নিত ও শাস্তি হচ্ছে তা আশাপ্রদ নয়। এগুলো দুর্নীতি প্রতিরোধ করার মতো পর্যায়ে এখনও পৌঁছায়নি। বর্তমান প্রেক্ষাপটে এগুলো প্রতিরোধ খুব সহজ ব্যাপার নয়। তবে এক্ষেত্রে সবার আগে সচেতনতা বাড়াতে হবে। মানুষকে সিদ্ধান্ত নিতে হবে, আমি ঘুষ দেব না। দ্বিতীয়ত, সামাজিক আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে। এর সঙ্গে জড়িতদের সামাজিকভাবে বয়কট করতে হবে। তৃতীয়ত, আইনের ব্যবহার বাড়াতে হবে।

দুর্নীতির সূচকে আমাদের খারাপ অবস্থানের সবচেয়ে বড় কারণ হলো এটা বন্ধে যে রাজনৈতিক সদিচ্ছা, তার সঠিক প্রয়োগ নেই। দুর্নীতির বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স ঘোষণাতেই সীমাবদ্ধ। এর সঠিক বাস্তবায়ন নেই। দ্বিতীয়ত, রাজনীতির সঙ্গে দুর্বৃত্তায়ন এবং কালো টাকার যোগসাজশ রয়েছে। এর সঙ্গে যারা জড়িত সত্যিকার অর্থে তাদের বিচারের আওতায় আনা হয় না। দুদক কিছুটা কাজ করছে, তবে তা একটি সীমারেখার মধ্যে। সেখানে শুধু চুনোপুঁটিদের ধরা হয়। রাঘববোয়ালরা এর বাইরে থেকে যায়। পাশাপাশি দুর্নীতির তথ্য প্রকাশে চাপ রয়েছে। এ সংক্রান্ত তথ্য প্রকাশের ক্ষেত্রে সাংবাদিকসহ বিভিন্ন পেশার মানুষজনকে হয়রানির শিকার হতে হয়েছে। বিভিন্ন জায়গায় মামলা হয়েছে। করোনা মোকাবিলায় যে দুর্নীতি হয়েছে, সেটা সবাই জানে।

এক ধরনের বিচারহীনতার সংস্কৃতি তৈরি করে দুর্নীতিবাজদের পৃষ্ঠপোষকতা দেওয়া হচ্ছে। সরকারের পক্ষ থেকে বিষয়টি অস্বীকার করা হয়। কোনো প্রতিবেদন প্রকাশ করলে নাগরিক সমাজ ও গণমাধ্যমকর্মীদের নাজেহাল হতে হয়। এতে দুর্নীতিবাজরা উৎসাহিত হচ্ছে। বাংলাদেশে আরও কয়েকটি কারণে এগুলো কমানো যাচ্ছে না। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো-রাজনীতিবিদদের প্রতিশ্রুতির ঘাটতি, রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠানগুলোর জবাবহিদিতার অভাব ও রাজনৈতিক দলগুলোর জন্য অবস্থান সংকুচিত করে দেয়া এবং গণমাধ্যম ও সুশীল সমাজের প্রতিনিধিদের কথা বলার সুযোগ সীমিত করে দেয়া।

যতদিন দেশে দুর্নীতি থাকবে ততদিন পর্যন্ত দুদককে কার্যকরী ভূমিকায় দেখতে চাই। আশা করি কমিশনের সঙ্গে যারা জড়িত তারা উচ্চ নৈতিকতার পরিচয় দেবেন। তাহলে জনগণের আস্থা ফিরে আসবে এবং দুর্নীতি প্রতিরোধের সঙ্গে যারা জড়িত তারাও কাজ করতে সাহস পাবে।

[লেখক: অ্যাডভোকেট, সুপ্রীম কোর্ট]

তারুণ্যের শক্তিকে কাজে লাগাতে হবে

ফের চোখ রাঙাচ্ছে ডেঙ্গু : আতঙ্ক নয়, প্রয়োজন জনসচেতনতা

ছবি

রবীন্দ্রনাথ ও গ্রীষ্মের তন্দ্রাচ্ছন্ন স্বপ্ন-দুপুর

ছবি

লোকসভা নির্বাচন : কী হচ্ছে, কী হবে

জমির বায়না দলিল কার্যকর কিংবা বাতিলের আইনি প্রক্রিয়া

জনসেবায় পেশাদারিত্ব

খাদ্য কেবল নিরাপদ হলেই হবে না, পুষ্টিকরও হতে হবে

উচ্চশিক্ষাতেও আদিবাসীদের জন্য সুযোগ সৃষ্টি করতে হবে

ছবি

যুদ্ধটা এখনো শেষ হয়নি রনো ভাই

টাকার অবমূল্যায়ন কি জরুরি ছিল

পরিবার : বিশ্বের প্রাচীন প্রতিষ্ঠান

তাপপ্রবাহে ঝুঁকি এড়াতে করণীয়

ডলারের মূল্যবৃদ্ধি : দীর্ঘমেয়াদে সুফল মিলতে পারে

ছবি

কী আছে ট্রাম্পের ভাগ্যে?

ছবি

বাংলার ‘ভাশুর কথাশিল্পী’ শওকত ওসমান

রাজধানীকে বসবাসযোগ্য করুন

সাধারণ মানুষ যাবে কোথায়

মুখপাত্রদের তৈরি নয়, ‘তলাপাত্র’দের তৈরি জোট প্রসঙ্গে

চেকের মামলায় সাফাই সাক্ষী বনাম আসামি

ছবি

ডারউইনের খোঁজে নিউইয়র্কের জাদুঘরে

আদিবাসী হত্যার বিচার কোন পথে

কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি করুন

রম্যগদ্য : গলায় বেঁধা বড়শি

খেলার চেয়ে ‘ধুলা’ বেশি

জেগে উঠুক সুকুমার বৃত্তি

প্রসঙ্গ : লোকসভা নির্বাচন

ছবি

বারবার পুড়ছে বাংলাদেশের ফুসফুস

শিশুমৃত্যু রোধে দক্ষ মিডওয়াইফদের ভূমিকা

বিসিএস জ্বরে পুড়ছে তারুণ্য

প্রযুক্তির ছোঁয়ায় বদলে যাওয়া পৃথিবী

নমিনির অনুপস্থিতিতে মৃত ব্যক্তির গচ্ছিত টাকা পাবে কে

হিট স্ট্রোকের ঝুঁকি এড়াতে প্রয়োজন সচেতনতা

হিট স্ট্রোকের ঝুঁকি এড়াতে প্রয়োজন সচেতনতা

যদি শুধু বিনোদন সংস্কৃতি হয় তাহলে বাকি সব কী?

নতুন কারিকুলামে ইংরেজি শিক্ষা

বন্ধ হোক প্রশ্ন ফাঁস

tab

উপ-সম্পাদকীয়

দুর্নীতির বিরুদ্ধে লড়াই চালিয়ে যেতে হবে

শেখ সালাহ্উদ্দিন আহমেদ

সোমবার, ৩০ জানুয়ারী ২০২৩

দুর্নীতির বিরুদ্ধে তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা নিতে ডিসিদের তাগিদ দিয়েছেন দুর্নীতি দমন কমিশনের চেয়ারম্যান। বলেছেন, জেলা প্রশাসকরা সরকারের প্রতিনিধি। জেলায় কোনো দুর্নীতি হলে তথ্য পাওয়ার অনেক সোর্স তাদের রয়েছে। দুর্নীতির তথ্য পেলে তারা যেন বসে না থেকে সঙ্গে সঙ্গে পদক্ষেপ নেন, যাতে দুর্নীতি বন্ধ হয়। জেলা প্রশাসক সম্মেলনের দ্বিতীয় দিনে মন্ত্রীরা নিত্যপণ্যের বাজার নিয়ন্ত্রণে রাখা, দেশে খাদ্য উৎপাদন বাড়ানো, পরিবেশ সুরক্ষাসহ অন্যান্য বিষয়ে বক্তব্য দেন। বলেন, আসন্ন রমজানে পণ্যের দাম বাড়ানোর সুযোগ কেউ নিলে কঠোর ব্যবস্থা নিতে হবে। কোনো ধরনের ছাড় দেওয়া যাবে না। কৃষিজমি নষ্ট করে অর্থনৈতিক অঞ্চল করা যাবে না। দেশের সব ধরনের অনাবাদি জমি চাষাবাদের আওতায় আনতে হবে। সব জমিতে ফসল ফলাতে পারলে দেশে দুর্ভিক্ষ দেখা দেবে না। সড়কে শৃঙ্খলা ফেরাতে হবে। নতুন রাস্তা নির্মাণের চেয়ে ভাঙাচোরা সড়ক মেরামত করতে হবে। পরিবেশসম্মত ব্যাগ ব্যবহার বাড়ানোর পাশাপাশি প্লাস্টিকের বস্তায় দেশি চাল পাওয়া গেলে জব্দ করার নির্দেশনা দেওয়া হয়।

বলা হয়, দেশকে এগিয়ে নিতে হলে জনপ্রতিনিধিদের সঙ্গে সমন্বয় করে একসঙ্গে কাজ করতে হবে। জেলা প্রশাসকদের সঙ্গে জনপ্রতিনিধিদের সমন্বয়হীনতা থাকলে ধারণাগত দ্বন্দ্ব সৃষ্টি হয়। স্থানীয় সরকারের ক্ষেত্রেও জনপ্রতিনিধিদের সঙ্গে সমন্বয় করে এগোতে হবে। জেলা প্রশাসক সম্মেলনে দুর্নীতির বিরুদ্ধে সক্রিয় হওয়ার যে তাগিদ দেওয়া হয়েছে তা খুবই প্রাসঙ্গিক ও অর্থবহ। দুর্নীতি ১৮ কোটি মানুষের সব অর্জনকে বিপন্ন করে তুলতে চাচ্ছে। স্বাধীনতার পর পাঁচ দশকে বাংলাদেশের উন্নতি নিঃসন্দেহে গর্বের। তবে দুর্নীতি রোধ করতে পারলে উন্নয়নের সুফল আরও বেশি আমজনতার হাতে পৌঁছাত। উন্নয়ন আরও বেশি নিখুঁত এবং ফলপ্রসূ হতো। এ ব্যাপারে শুধু দুর্নীতির বিরুদ্ধে কথা বলা নয়, কার্যক্ষেত্রে সবাইকে দৃঢ় মনোভাবের পরিচয় দিতে হবে। যেখানেই দুর্নীতি সেখানেই গড়ে তুলতে হবে প্রতিরোধ। দেশের সরকারি কোনো অফিসে উৎকোচ ছাড়া সেবা পাওয়া দুষ্কর। এই নোংরা ঐতিহ্যের অবসান ঘটাতে হবে।

দেশে দুর্নীতির সঙ্গে জড়িতদের দৃশ্যমান কঠোর শাস্তি হয় না। রাজনীতিকে টাকা বানানোর হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করা হচ্ছে। অনিয়মের তথ্য প্রকাশের পর অনেক ক্ষেত্রে হয়রানির শিকার হতে হয়। রাঘববোয়ালদের ধরা হয় না। যে কারণে দুর্নীতি বাড়ছে।

দেশে দুই জায়গায় দুর্নীতি বেশি হয়। প্রথমত সরকারি ব্যয়ে এবং দ্বিতীয়ত ব্যাংকের ঋণ নিয়ে। সাম্প্রতিক সময়ে সরকারি ব্যয় অনেক বেড়েছে। এছাড়া ঘুষ না দিলে ঋণ পাওয়া যায় না। যে কারণে দুর্নীতি বেড়েছে। যেভাবে দুর্নীতি চিহ্নিত ও শাস্তি হচ্ছে তা আশাপ্রদ নয়। এগুলো দুর্নীতি প্রতিরোধ করার মতো পর্যায়ে এখনও পৌঁছায়নি। বর্তমান প্রেক্ষাপটে এগুলো প্রতিরোধ খুব সহজ ব্যাপার নয়। তবে এক্ষেত্রে সবার আগে সচেতনতা বাড়াতে হবে। মানুষকে সিদ্ধান্ত নিতে হবে, আমি ঘুষ দেব না। দ্বিতীয়ত, সামাজিক আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে। এর সঙ্গে জড়িতদের সামাজিকভাবে বয়কট করতে হবে। তৃতীয়ত, আইনের ব্যবহার বাড়াতে হবে।

দুর্নীতির সূচকে আমাদের খারাপ অবস্থানের সবচেয়ে বড় কারণ হলো এটা বন্ধে যে রাজনৈতিক সদিচ্ছা, তার সঠিক প্রয়োগ নেই। দুর্নীতির বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স ঘোষণাতেই সীমাবদ্ধ। এর সঠিক বাস্তবায়ন নেই। দ্বিতীয়ত, রাজনীতির সঙ্গে দুর্বৃত্তায়ন এবং কালো টাকার যোগসাজশ রয়েছে। এর সঙ্গে যারা জড়িত সত্যিকার অর্থে তাদের বিচারের আওতায় আনা হয় না। দুদক কিছুটা কাজ করছে, তবে তা একটি সীমারেখার মধ্যে। সেখানে শুধু চুনোপুঁটিদের ধরা হয়। রাঘববোয়ালরা এর বাইরে থেকে যায়। পাশাপাশি দুর্নীতির তথ্য প্রকাশে চাপ রয়েছে। এ সংক্রান্ত তথ্য প্রকাশের ক্ষেত্রে সাংবাদিকসহ বিভিন্ন পেশার মানুষজনকে হয়রানির শিকার হতে হয়েছে। বিভিন্ন জায়গায় মামলা হয়েছে। করোনা মোকাবিলায় যে দুর্নীতি হয়েছে, সেটা সবাই জানে।

এক ধরনের বিচারহীনতার সংস্কৃতি তৈরি করে দুর্নীতিবাজদের পৃষ্ঠপোষকতা দেওয়া হচ্ছে। সরকারের পক্ষ থেকে বিষয়টি অস্বীকার করা হয়। কোনো প্রতিবেদন প্রকাশ করলে নাগরিক সমাজ ও গণমাধ্যমকর্মীদের নাজেহাল হতে হয়। এতে দুর্নীতিবাজরা উৎসাহিত হচ্ছে। বাংলাদেশে আরও কয়েকটি কারণে এগুলো কমানো যাচ্ছে না। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো-রাজনীতিবিদদের প্রতিশ্রুতির ঘাটতি, রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠানগুলোর জবাবহিদিতার অভাব ও রাজনৈতিক দলগুলোর জন্য অবস্থান সংকুচিত করে দেয়া এবং গণমাধ্যম ও সুশীল সমাজের প্রতিনিধিদের কথা বলার সুযোগ সীমিত করে দেয়া।

যতদিন দেশে দুর্নীতি থাকবে ততদিন পর্যন্ত দুদককে কার্যকরী ভূমিকায় দেখতে চাই। আশা করি কমিশনের সঙ্গে যারা জড়িত তারা উচ্চ নৈতিকতার পরিচয় দেবেন। তাহলে জনগণের আস্থা ফিরে আসবে এবং দুর্নীতি প্রতিরোধের সঙ্গে যারা জড়িত তারাও কাজ করতে সাহস পাবে।

[লেখক: অ্যাডভোকেট, সুপ্রীম কোর্ট]

back to top