alt

উপ-সম্পাদকীয়

নতুন কারিকুলামের মূল্যায়ন পদ্ধতি

মাছুম বিল্লাহ

: রোববার, ১২ মার্চ ২০২৩

মূল্যায়ন শিখন-শেখানো কার্যক্রমের একটি গুরুত্বপূর্ণ উপাদান ও বিষয়। আমরা এত বছর যে প্রক্রিয়ায় শিক্ষার্থীদের মূল্যায়ন করে এসেছি সেটি নিয়ে অনেক প্রশ্ন ছিল। তাই নতুন কারিকুলামে এখানে অনেক পরিবর্তন নিয়ে আসা হয়েছে। কিন্তু এটি নিয়ে বিপাকে প্রায় সবাই। প্রাক-প্রাথমিক থেকে উচ্চ মাধ্যমিক স্তর পর্যন্ত বিদ্যমান পরীক্ষার চেয়ে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ধারাবাহিক মূল্যায়ন বেশি হবে। এর মধ্যে তৃতীয় শ্রেণী পর্যন্ত কোন পরীক্ষা হবে না, পুরোটাই মূল্যায়ন হবে সারা বছর ধরে চলা বিভিন্ন রকমের শিখন কার্যক্রমের ভিত্তিতে। পরবর্তী শ্রেণীগুলোর মূল্যায়নের পদ্ধতি হিসেবে পরীক্ষা ও ধারাবাহিক শিখন কার্যক্রম-দুটোই থাকছে। চতুর্থ ও পঞ্চম শ্রেণীতে বাংলা, ইংরেজি, গণিত, বিজ্ঞান ও সামাজিক বিজ্ঞান বিষয়ের ৬০ শতাংশ মূল্যায়ন হবে ‘শিখনকালীন’ এবং বাকি ৪০ শতাংশ হবে পরীক্ষার ভিত্তিতে। নবম দশম শ্রেণীতে এটি ৫০ শতাংশ, ৫০ শতাংশ আর উচ্চ মাধ্যমিকে শিখনকালীন মূল্যায়ন ৩০ শতাংশ এবং সামস্টিক মূল্যায়ন ৭০ শতাংশ।

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে কার্যক্রমের ভিত্তিতে শারীরিক ও মানসিক স্বাস্থ্য ও সুরক্ষা, ধর্মশিক্ষা এবং শিল্পকলা বিষয়ের পুরোটাই শিখনকালীন মূল্যায়ন হবে। এখানেই বেধেছে বিপত্তি। ঠিকমতো বই পৌঁছায়নি সব শিশুদের কাছে, ইতোমধ্যে দুটো বই তুলে নেওয়া হয়েছে, যেসব বই শিশুদের কাছে এসেছে সেগুলোর মধ্যে বিভিন্ন ধরনের ভুল-ভ্রান্তি ধরা পড়ছে। সব মিলিয়ে শিক্ষার্থীরা বিপাকে পড়েছে। আমি দেখছি শিক্ষার্থীদের চেয়ে শিক্ষকরা বেশি বিপাকে পড়েছেন।

কারণ তাদের বলা হয়েছেÑ ৬০ শতাংশ মূল্যায়ন হবে শিখনকালীন এবং বাকি ৪০ শতাংশ পরীক্ষার ভিত্তিতে অর্থাৎ সামস্টিক মূল্যায়ন। এখন এই ৬০ শতাংশ মূল্যায়ন কিভাবে হবে সেটি কারুর কাছেই স্পষ্ট নয়। অনেক শিক্ষক কথা বলছেন, ফোন দিচ্ছেন, মেইল দিচ্ছেন বিষয়টি আরও খোলাসা করার জন্য। আমি তাদের জিজ্ঞেস করেছি আপনারা প্রশিক্ষনে এর উত্তর পাননি।

উত্তরে সবাই যেটি বলেছেন তার সারমর্ম হচ্ছে ‘বারবার জিজ্ঞেস করা সত্ত্বেও প্রশিক্ষকরা বিষয়টি এড়িয়ে গেছেন। বুঝা যাচ্ছে বিষয়টি সম্পর্কে তাদেরও স্বচ্ছ ধারণা নেই।’ আসলেও তাই। কোন বিষয়ের বইয়ে কোন ধরনের মডেল প্রশ্ন সরবরাহ করা হয়নি। সম্ভবত শিক্ষার্থীদের অধিকমাত্রায় সৃজনশীল করার জন্যই এই প্রচেষ্টা। কিন্তু আমাদের ভুলে গেলে চলবে না যে, আইইএলটিএসের মতো আন্তর্জাতিক পরীক্ষায়ও খুব সন্দরভাবে সিলেবাস, মডেল প্রশ্ন দেওয়া থাকে। পরীক্ষার চারটি অংশের কোন অংশে কত সময়, কয়টি প্রশ্ন থাকবে, ওই ধরনের প্রশ্নের উদ্দেশ্য কি অর্থাৎ শিক্ষার্থীদের কি টেস্ট করা হচ্ছে সব কিছুই সুন্দরভাবে উল্লেখ করা থাকে। আর আমাদের কি হলো, আমরা হঠাৎ করে এত সৃজনশীল বানানোর চেষ্টা কেন করছি-এতো তো দেখছি ‘আম’ ও ‘আমের ছালা’ সবই যাচ্ছে। শিক্ষকরা বিভ্রান্তিতে, অভিভাবকরা বিভ্রান্তিতে, শিক্ষার্থীরা ক্লাসে আসছে না বহু জায়গায়, আসলেও কিছু করতে চাচ্ছে না। এই অবস্থা নিয়ে আমাদের চিন্তা করতে হবে।

শিখনকালীন কোন লেসনে বা চ্যাপ্টারে কিভাবে নিতে হবে, প্রতি সপ্তাহে না মাসে নিতে হবে, যেহেতু নম্বর দেওয়ার পদ্ধতি নেই তাহলে সেগুলোর গড় কিভাবে হবে ইত্যাদি বিষয়গুলো এখনও ঘোলাটে। তারপর সে ফলগুলো মূল ফলকে, মূল মূল্যায়নে কিভাবে সংযুক্ত হবে এবং সার্বিক মূল্যায়নে সেটি কিভাবে মূল্যায়িত হবে সে সব বিষয় পুরোপুরি অনুপস্থিত। কাজেই শুধু শিক্ষার্থীরা নয়, শিক্ষকরাও বিপাকে। প্রশিক্ষণে এ ধরনের কোন আলোচনা হয়নি। কেউ কেউ করতে চেয়েছেন, প্রশিক্ষকরা এড়িয়ে গেছেন। বিষয়টি প্রশিক্ষকদের কাছেও স্পষ্ট নয়। যে অ্যাপসের মাধ্যমে এটি করার কথা, সেই অ্যাপসের খবর নেই। কবে হবে তারও কোন দিকনির্দেশনা নেই।

শিক্ষকদের মধ্য থেকেই বিষয়টি নিয়ে বেশি বেশি আলোচনা ও প্রশ্ন আসার কথা ছিল সেভাবে কিন্তু আসেনি বা আসছে না। শুধুমাত্র আগ্রহী ও সিরিয়াস কিছু টিচার বিষয়টি নিয়ে ভেবেছেন। আমাদের পূর্ববর্তী মূল্যায়ন ব্যবস্থায় শিক্ষকদের দায়িত্বই শতভাগ যা প্রাইভেট কোচিং, শিক্ষার্থীদের মুখস্থ-নির্ভরতা, শিক্ষকদের নোট প্রদান ইত্যাদি বিষয়গুলোকে প্রভাবিত করতো। দীর্ঘদিন ধরে এটা ছিল আমাদের শতভাগ মূল্যায়নের ধরন। এখন যে প্রক্রিয়াটি আসছে, সেখানে শিক্ষার্থীর স্বমূল্যায়ন ব্যবস্থা রয়েছে। সে হাতে কলমে একটা কাজ করে এসে তারপর তাকে একটা রুবরিক্স পূরণ করতে হবে। ছকটা পূরণ করে ওই জায়গাগুলোতে তার যে পর্যবেক্ষণগুলো সে দেখেছে বা শুনেছে বা হাতেকলমে করেছে তার এভিডেন্সগুলোর রেফারেন্স লিখতে হবে।

দ্বিতীয়ত, সহপাঠী মূল্যায়ন গ্রুপ, একটা গ্রুপ আরেকটা গ্রপকে মূল্যায়ন করবে। আবার অভিজ্ঞতা অর্জন করতে গিয়ে অভিভাবক বা অন্যান্য অংশীজনের সঙ্গে তার যে ইন্টার অ্যাকশন হচ্ছে তারাও এখানে বিভিন্ন উপায়ে অংশগ্রহণ করবে। এগুলোর এভিডেন্সগুলো থাকছে, এসবের ভিত্তিতে শিক্ষককে একটি কালেক্টিভ রেজাল্ট তৈরি করতে হবে। আগে যে মূল্যায়ন পদ্ধতি ছিল সেখানে ক্রসচেকের কোনই উপায় ছিল না, বর্তামানে তা থাকার কথা। স্কুল বেজড অ্যাসেসমেন্ট ছিল লিখিত পরীক্ষা নির্ভর ৮০ ভাগ, আর ২০ ভাগ ছিল ধারাবাহিক শিখনকালীন মূল্যায়ন। প্রায়োগিক দিকের যে প্লানিং ছিল সেখানে বড় গ্যাপ ছিল। শিখনকালীন মূল্যায়নের ক্ষেত্রে শিক্ষকই একমাত্র দায়িত্বপ্রাপ্ত ছিল। যার ফলে, শিক্ষক সেটিকে সঠিকভাবে করতে পারেননি অনেক ক্ষেত্রেই। বর্তমানের মূল্যায়নটা আলাদা কারণ অভিজ্ঞতা চক্রের মধ্যে দিয়ে শিক্ষার্থীরা শিখবে যেখানে শিক্ষার্থীর স্বমূল্যায়নের জায়গা আছে, তাকে নানারকম কাজ করতে হবে। বর্তমান মূল্যায়ন ব্যবস্থায় এসব বিষয়ের উল্লেখ আছে কিন্তু শিক্ষকরা এগুলোর সাথে এখনো পরিচিত নন, আত্মবিশ^াসী হওয়া তো দূরের কথা।

সৃজনশীল প্রশ্ন মানুষের শিখনকে লিখিত উপায়ে প্রকাশের একটা বিকল্প মাধ্যম যেটা মানুষের ক্রিটিক্যাল থিংকিংকে উন্নত করার জন্য করা হয়েছিল; কিন্তু মানুষ তো তার শিখনকে শুধু লিখে প্রকাশ করে না। এখানে একটি গ্যাপ রয়েছে। লিখে প্রকাশ করা বিষয়টিকে ঠিক রেখে নানারকম বিকল্প খোঁজার চেষ্টা করা হয়েছে। যে কোন মূল্যায়নে লেখাটাকে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ উপায় হিসেবে দেখা হয় কারণ লেখার অর্থ হচ্ছে প্রার্থীর অন্তর্নিহিত ধারণা, চিন্তাধারা, মতামত, যোগ্যতা, অভিজ্ঞতা, কল্পনা, পরিকল্পনা, স্বপ্ন, উদ্দেশ্য বিস্তারিতভাবে তার লেখায় ফুটে উঠে যদিও লেখার দ্বারা তার উপস্থাপন দক্ষতা কিংবা সহমর্মিতা বা গণতান্ত্রিক ধারণার বাস্তব প্রতিফলন নাও ঘটতে পারে। লেখার মাধ্যমে নান্দদিক দিকগুলোও ফুটে উঠে। তাই যুগ যুগ ধরে লেখাটাই একজন প্রার্থীর গুরুত্বপূর্ণ মূল্যায়ন মাধ্যম হিসেবে বিবেচিত হয়ে আসছে। কিন্তু নতুন কারিকুলামে লেখা বিষয়টির ওপর উল্লেখযোগ্যহারে কমিয়ে দেওয়া হয়েছে।

ঠিকমতো বই পৌঁছায়নি সব শিশুদের কাছে, ইতোমধ্যে দুটো বই তুলে নেয়া হয়েছে, যেসব বই শিশুদের কাছে এসেছে সেগুলোর মধ্যে বিভিন্ন ধরনের ভুল-ভ্রান্তি ধরা পড়ছে। সব মিলিয়ে শিক্ষার্থীরা বিপাকে পড়েছে

শ্রেণীকক্ষেই সবকিছু পড়ানো হবে কথাটি আদর্শিক। বাস্তবের সাথে পুরোটা কিন্তু মিলে না অন্তত আমাদের দেশের কনটেস্টে। প্রথমত, শ্রেণীকক্ষের সংক্ষিপ্ত সময়ের মধ্যে একটি বিষয়ে শিক্ষার্থীদের যে পরিমাণ অনুশীলন দরকার সেটি হয়না কিছু বাস্তব কারণে। একজন শিক্ষার্থীর যে আলাদা সময় প্রয়োজন সেটি দেওয়ারও সুযোগ থাকনো। কাজেই শিক্ষার্থীরা বিশেষ করে যারা ভাল ফলাফল করতে চাইতো তারা প্রাইভেট পড়ে, কোচিং করে সেগুলো সেরে নেওয়ার চেষ্টা করতো। যারা দুর্বল তারা দুর্বলতা কাটিয়ে ওঠার জন্য প্রাইভেট পড়া ও কোচিং করা চালিয়ে যেত।

তবে বিষয় দুটো কিছু ক্ষেত্রে অতিমাত্রায় বাণিজ্যিক আকার ধারণ করায় সচেতন অভিভাবক, শিক্ষাবিদ ও পলিসি মেকারগন প্রাইভেট পড়ানো বন্ধ করার পক্ষে যুক্তি দিয়ে আসছেন এবং বন্ধের জন্য কিছুটা এ ব্যবস্থা করেছেন। শিক্ষাকে আনন্দময় করার প্রতিশ্রুতির মধ্যে দিয়ে হোমওয়ার্কের একেবারেই গুরুত্ব না দেওয়ার বিষয়টিও চলে এসেছে। কিন্তু হোমওয়ার্ক একেবারে বাদ দেওয়া ঠিক হবে না, কারণ এ বয়সের শিক্ষার্থীদের ব্যস্ত রাখতে হবে; কিন্তু সেটি যেন তাদের জন্য বোঝা না হয়ে দাঁড়ায়। বাসায় একেবারে কিছু করার না থাকলে তারা বাজে কাজে সময় নষ্ট করবে। অলস মস্তিষ্ক শয়তানের বাসা বলে যে কথাটি প্রচলিত আছে সেটিই হয়তো এখানে হবে। শ্রেণীকক্ষের অল্প সময়ের মধ্যে সব বিষয়ের সঠিক অনুশীলন সম্ভব হয় না। তাছাড়া কিছু শিক্ষার্থী সবার সামনে থেকে বিষয় আয়ত্ত করতে পারেনা, তাদের আলাদা এবং নিজস্ব সময় প্রয়োজন।

শিক্ষার্থীরা পাস করছে, ভালো গ্রেডিং পেয়ে আসছিলো কিন্তু তাদের ক্রিটিক্যাল থিংকিং উন্নত হচ্ছিল না, নতুন কারিকুলামের মূল্যায়ন প্রক্রিয়ায় এ বিষয়েটিও গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে যেটি ভালো পদক্ষেপ। আগে কোনরকম আন্ডারস্ট্যান্ডিং ছাড়া, কনটেক্সটের সঙ্গে কোন সমপর্ক না বুঝেই একজন শিক্ষার্থী কেবল মুখস্থ করে ভালো নম্বর পেয়ে যেত। এখন কিন্তু তাকে বুঝে কনটেক্সটের সঙ্গে রিলেশনশিপ তৈরি করে শুধুমাত্র জানলেই চলবে না, তাকে সেটা প্রয়োগ করার দক্ষতাও অর্জন করতে হবে। এটিও আদর্শিক কথা বলে মনে হয়। ক’জন শিক্ষকের এ বিষয়টি মূল্যায়ন করার দক্ষতা রয়েছে সেটি একটি বিষয়, তাছাড়া একজন শিক্ষককে প্রতিদিন কতটা করে ক্লাস নিতে হয়, কতজন শিক্ষার্থীর সাথে কথা বলতে হয়, কতটা ধৈর্য তার থাকে যে এসব বিষয় লক্ষ্য করে করে শিক্ষার্থীদের মূল্যায়ন করবেন।

আমাদের শিক্ষার্থীদের অপার সম্ভাবনা রয়েছে, মেধা আছে কিন্তু প্রকাশ করার পরিবেশ, পরিস্থিতি না থাকায় এগুলো সুপ্তই থেকে যায়, প্রকাশিত হয় না, হলেও অনেক বিলম্বে। ভালো গ্রেডিং নিয়ে পাস করেও লেখায় দুর্বল ছিল। বর্তমান মূল্যায়নে লেখার ওপর গুরুত্ব আরও কমিয়ে দেওয়া হয়েছে কারণ তার কার্যাবলীর ওপরই বেশি মূল্যায়ন হবে। যে কোন মূল্যায়নে লেখাটাকে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ উপায় হিসেবে দেখা হয়। যুগ যুগ ধরে লেখাটাই একজন প্রার্থীর গুরুত্বপূর্ণ মূল্যায়ন মাধ্যম হিসেবে বিবেচিত হয়ে আসছে; কিন্তু নতুন কারিকুলাম বিষয়টির ওপর গুরুত্ব উল্লেখযোগ্যহারে কমিয়ে দেওয়া হয়েছে, সেটি বিবেচনার দাবি রাখে।

তবে একজন শিক্ষক যদি দক্ষ হন শিক্ষার্থীদের লেখার মাধ্যমে প্রকাশ করায় তাদের দক্ষ করে গড়ে তুলতে পারবেন। যে কোন কারিকুলামেই শিক্ষকের দায়িত্ববোধ, সৃজনশীলতা এবং জানার আগ্রহ শিক্ষার্থীদের প্রকৃত জ্ঞান অর্জনে ও তা বাস্তবে প্রয়োগ করার ক্ষেত্রে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রাখে।

[লেখক : প্রেসিডেন্ট, ইংলিশ টিচার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ]

উদার-উদ্দাম বৈশাখ চাই

ঈদ নিয়ে আসুক শান্তি ও সমৃদ্ধি, বিস্তৃত হোক সম্প্রীতি ও সৌহার্দ

প্রসঙ্গ: বিদেশি ঋণ

ছাত্ররাজনীতি কি খারাপ?

জাকাত : বিশ্বের প্রথম সামাজিক নিরাপত্তা ব্যবস্থা

বাংলাদেশ স্কাউটস দিবস : শুরুর কথা

ছবি

সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির দৃষ্টান্ত

প্রবাসীর ঈদ-ভাবনা

বিশ্ব স্বাস্থ্য দিবস

ধানের ফলন বাড়াতে ক্লাইমেট স্মার্ট গুটি ইউরিয়া প্রযুক্তি

কমিশন কিংবা ভিজিটে জমি রেজিস্ট্রির আইনি বিধান ও প্রাসঙ্গিকতা

ছবি

ঈদের অর্থনীতি

পশ্চিমবঙ্গে ভোটের রাজনীতিতে ‘পোস্ট পার্টিশন সিনড্রম’

শিক্ষকের বঞ্চনা, শিক্ষকের বেদনা

নিরাপদ সড়ক কেন চাই

রম্যগদ্য : ‘প্রহরীর সাতশ কোটি টাকা...’

ছবি

অবন্তিকাদের আত্মহনন

শিক্ষাবিষয়ক ভাবনা

অপ্রয়োজনে সিজারিয়ান নয়

পণ্য রপ্তানিতে বৈচিত্র্য আনতে হবে

আত্মহত্যা রোধে নৈতিক শিক্ষা

আউশ ধান : পরিবেশ ও কৃষকবান্ধব ফসল

ছবি

বিশ্ব অটিজম সচেতনতা দিবস

জেনেটিক ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের আতুড়ঘর

চেক ডিজঅনার মামলার অধিক্ষেত্র ও প্রাসঙ্গিকতা

বৈশ্বিক জলবায়ু পরিবর্তন ও বাংলাদেশের কৃষি

ছবি

‘হৃৎ কলমের’ পাখি এবং আমাদের জেগে ওঠা

ছবি

ভূগর্ভস্থ পানি সুরক্ষায় বৃষ্টির পানি সংরক্ষণ

প্রসঙ্গ : নিত্যপণ্যের দাম

ছবি

টঙ্ক আন্দোলনের কুমুদিনী হাজং

ঢাকাকে বাসযোগ্য করতে চাই বিকেন্দ্রীকরণ

দূষণমুক্ত পানির বিকল্প নাই

রম্যগদ্য : ‘দুনিয়ার বাঙালি এক হও”

পশ্চিমবঙ্গে ভোটের লড়াই

স্মৃতির জানালা খুলে স্বাধীনতাকে উপভোগ করছি

শিশুর সার্বিক বিকাশে বাবা-মায়ের ভূমিকা

tab

উপ-সম্পাদকীয়

নতুন কারিকুলামের মূল্যায়ন পদ্ধতি

মাছুম বিল্লাহ

রোববার, ১২ মার্চ ২০২৩

মূল্যায়ন শিখন-শেখানো কার্যক্রমের একটি গুরুত্বপূর্ণ উপাদান ও বিষয়। আমরা এত বছর যে প্রক্রিয়ায় শিক্ষার্থীদের মূল্যায়ন করে এসেছি সেটি নিয়ে অনেক প্রশ্ন ছিল। তাই নতুন কারিকুলামে এখানে অনেক পরিবর্তন নিয়ে আসা হয়েছে। কিন্তু এটি নিয়ে বিপাকে প্রায় সবাই। প্রাক-প্রাথমিক থেকে উচ্চ মাধ্যমিক স্তর পর্যন্ত বিদ্যমান পরীক্ষার চেয়ে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ধারাবাহিক মূল্যায়ন বেশি হবে। এর মধ্যে তৃতীয় শ্রেণী পর্যন্ত কোন পরীক্ষা হবে না, পুরোটাই মূল্যায়ন হবে সারা বছর ধরে চলা বিভিন্ন রকমের শিখন কার্যক্রমের ভিত্তিতে। পরবর্তী শ্রেণীগুলোর মূল্যায়নের পদ্ধতি হিসেবে পরীক্ষা ও ধারাবাহিক শিখন কার্যক্রম-দুটোই থাকছে। চতুর্থ ও পঞ্চম শ্রেণীতে বাংলা, ইংরেজি, গণিত, বিজ্ঞান ও সামাজিক বিজ্ঞান বিষয়ের ৬০ শতাংশ মূল্যায়ন হবে ‘শিখনকালীন’ এবং বাকি ৪০ শতাংশ হবে পরীক্ষার ভিত্তিতে। নবম দশম শ্রেণীতে এটি ৫০ শতাংশ, ৫০ শতাংশ আর উচ্চ মাধ্যমিকে শিখনকালীন মূল্যায়ন ৩০ শতাংশ এবং সামস্টিক মূল্যায়ন ৭০ শতাংশ।

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে কার্যক্রমের ভিত্তিতে শারীরিক ও মানসিক স্বাস্থ্য ও সুরক্ষা, ধর্মশিক্ষা এবং শিল্পকলা বিষয়ের পুরোটাই শিখনকালীন মূল্যায়ন হবে। এখানেই বেধেছে বিপত্তি। ঠিকমতো বই পৌঁছায়নি সব শিশুদের কাছে, ইতোমধ্যে দুটো বই তুলে নেওয়া হয়েছে, যেসব বই শিশুদের কাছে এসেছে সেগুলোর মধ্যে বিভিন্ন ধরনের ভুল-ভ্রান্তি ধরা পড়ছে। সব মিলিয়ে শিক্ষার্থীরা বিপাকে পড়েছে। আমি দেখছি শিক্ষার্থীদের চেয়ে শিক্ষকরা বেশি বিপাকে পড়েছেন।

কারণ তাদের বলা হয়েছেÑ ৬০ শতাংশ মূল্যায়ন হবে শিখনকালীন এবং বাকি ৪০ শতাংশ পরীক্ষার ভিত্তিতে অর্থাৎ সামস্টিক মূল্যায়ন। এখন এই ৬০ শতাংশ মূল্যায়ন কিভাবে হবে সেটি কারুর কাছেই স্পষ্ট নয়। অনেক শিক্ষক কথা বলছেন, ফোন দিচ্ছেন, মেইল দিচ্ছেন বিষয়টি আরও খোলাসা করার জন্য। আমি তাদের জিজ্ঞেস করেছি আপনারা প্রশিক্ষনে এর উত্তর পাননি।

উত্তরে সবাই যেটি বলেছেন তার সারমর্ম হচ্ছে ‘বারবার জিজ্ঞেস করা সত্ত্বেও প্রশিক্ষকরা বিষয়টি এড়িয়ে গেছেন। বুঝা যাচ্ছে বিষয়টি সম্পর্কে তাদেরও স্বচ্ছ ধারণা নেই।’ আসলেও তাই। কোন বিষয়ের বইয়ে কোন ধরনের মডেল প্রশ্ন সরবরাহ করা হয়নি। সম্ভবত শিক্ষার্থীদের অধিকমাত্রায় সৃজনশীল করার জন্যই এই প্রচেষ্টা। কিন্তু আমাদের ভুলে গেলে চলবে না যে, আইইএলটিএসের মতো আন্তর্জাতিক পরীক্ষায়ও খুব সন্দরভাবে সিলেবাস, মডেল প্রশ্ন দেওয়া থাকে। পরীক্ষার চারটি অংশের কোন অংশে কত সময়, কয়টি প্রশ্ন থাকবে, ওই ধরনের প্রশ্নের উদ্দেশ্য কি অর্থাৎ শিক্ষার্থীদের কি টেস্ট করা হচ্ছে সব কিছুই সুন্দরভাবে উল্লেখ করা থাকে। আর আমাদের কি হলো, আমরা হঠাৎ করে এত সৃজনশীল বানানোর চেষ্টা কেন করছি-এতো তো দেখছি ‘আম’ ও ‘আমের ছালা’ সবই যাচ্ছে। শিক্ষকরা বিভ্রান্তিতে, অভিভাবকরা বিভ্রান্তিতে, শিক্ষার্থীরা ক্লাসে আসছে না বহু জায়গায়, আসলেও কিছু করতে চাচ্ছে না। এই অবস্থা নিয়ে আমাদের চিন্তা করতে হবে।

শিখনকালীন কোন লেসনে বা চ্যাপ্টারে কিভাবে নিতে হবে, প্রতি সপ্তাহে না মাসে নিতে হবে, যেহেতু নম্বর দেওয়ার পদ্ধতি নেই তাহলে সেগুলোর গড় কিভাবে হবে ইত্যাদি বিষয়গুলো এখনও ঘোলাটে। তারপর সে ফলগুলো মূল ফলকে, মূল মূল্যায়নে কিভাবে সংযুক্ত হবে এবং সার্বিক মূল্যায়নে সেটি কিভাবে মূল্যায়িত হবে সে সব বিষয় পুরোপুরি অনুপস্থিত। কাজেই শুধু শিক্ষার্থীরা নয়, শিক্ষকরাও বিপাকে। প্রশিক্ষণে এ ধরনের কোন আলোচনা হয়নি। কেউ কেউ করতে চেয়েছেন, প্রশিক্ষকরা এড়িয়ে গেছেন। বিষয়টি প্রশিক্ষকদের কাছেও স্পষ্ট নয়। যে অ্যাপসের মাধ্যমে এটি করার কথা, সেই অ্যাপসের খবর নেই। কবে হবে তারও কোন দিকনির্দেশনা নেই।

শিক্ষকদের মধ্য থেকেই বিষয়টি নিয়ে বেশি বেশি আলোচনা ও প্রশ্ন আসার কথা ছিল সেভাবে কিন্তু আসেনি বা আসছে না। শুধুমাত্র আগ্রহী ও সিরিয়াস কিছু টিচার বিষয়টি নিয়ে ভেবেছেন। আমাদের পূর্ববর্তী মূল্যায়ন ব্যবস্থায় শিক্ষকদের দায়িত্বই শতভাগ যা প্রাইভেট কোচিং, শিক্ষার্থীদের মুখস্থ-নির্ভরতা, শিক্ষকদের নোট প্রদান ইত্যাদি বিষয়গুলোকে প্রভাবিত করতো। দীর্ঘদিন ধরে এটা ছিল আমাদের শতভাগ মূল্যায়নের ধরন। এখন যে প্রক্রিয়াটি আসছে, সেখানে শিক্ষার্থীর স্বমূল্যায়ন ব্যবস্থা রয়েছে। সে হাতে কলমে একটা কাজ করে এসে তারপর তাকে একটা রুবরিক্স পূরণ করতে হবে। ছকটা পূরণ করে ওই জায়গাগুলোতে তার যে পর্যবেক্ষণগুলো সে দেখেছে বা শুনেছে বা হাতেকলমে করেছে তার এভিডেন্সগুলোর রেফারেন্স লিখতে হবে।

দ্বিতীয়ত, সহপাঠী মূল্যায়ন গ্রুপ, একটা গ্রুপ আরেকটা গ্রপকে মূল্যায়ন করবে। আবার অভিজ্ঞতা অর্জন করতে গিয়ে অভিভাবক বা অন্যান্য অংশীজনের সঙ্গে তার যে ইন্টার অ্যাকশন হচ্ছে তারাও এখানে বিভিন্ন উপায়ে অংশগ্রহণ করবে। এগুলোর এভিডেন্সগুলো থাকছে, এসবের ভিত্তিতে শিক্ষককে একটি কালেক্টিভ রেজাল্ট তৈরি করতে হবে। আগে যে মূল্যায়ন পদ্ধতি ছিল সেখানে ক্রসচেকের কোনই উপায় ছিল না, বর্তামানে তা থাকার কথা। স্কুল বেজড অ্যাসেসমেন্ট ছিল লিখিত পরীক্ষা নির্ভর ৮০ ভাগ, আর ২০ ভাগ ছিল ধারাবাহিক শিখনকালীন মূল্যায়ন। প্রায়োগিক দিকের যে প্লানিং ছিল সেখানে বড় গ্যাপ ছিল। শিখনকালীন মূল্যায়নের ক্ষেত্রে শিক্ষকই একমাত্র দায়িত্বপ্রাপ্ত ছিল। যার ফলে, শিক্ষক সেটিকে সঠিকভাবে করতে পারেননি অনেক ক্ষেত্রেই। বর্তমানের মূল্যায়নটা আলাদা কারণ অভিজ্ঞতা চক্রের মধ্যে দিয়ে শিক্ষার্থীরা শিখবে যেখানে শিক্ষার্থীর স্বমূল্যায়নের জায়গা আছে, তাকে নানারকম কাজ করতে হবে। বর্তমান মূল্যায়ন ব্যবস্থায় এসব বিষয়ের উল্লেখ আছে কিন্তু শিক্ষকরা এগুলোর সাথে এখনো পরিচিত নন, আত্মবিশ^াসী হওয়া তো দূরের কথা।

সৃজনশীল প্রশ্ন মানুষের শিখনকে লিখিত উপায়ে প্রকাশের একটা বিকল্প মাধ্যম যেটা মানুষের ক্রিটিক্যাল থিংকিংকে উন্নত করার জন্য করা হয়েছিল; কিন্তু মানুষ তো তার শিখনকে শুধু লিখে প্রকাশ করে না। এখানে একটি গ্যাপ রয়েছে। লিখে প্রকাশ করা বিষয়টিকে ঠিক রেখে নানারকম বিকল্প খোঁজার চেষ্টা করা হয়েছে। যে কোন মূল্যায়নে লেখাটাকে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ উপায় হিসেবে দেখা হয় কারণ লেখার অর্থ হচ্ছে প্রার্থীর অন্তর্নিহিত ধারণা, চিন্তাধারা, মতামত, যোগ্যতা, অভিজ্ঞতা, কল্পনা, পরিকল্পনা, স্বপ্ন, উদ্দেশ্য বিস্তারিতভাবে তার লেখায় ফুটে উঠে যদিও লেখার দ্বারা তার উপস্থাপন দক্ষতা কিংবা সহমর্মিতা বা গণতান্ত্রিক ধারণার বাস্তব প্রতিফলন নাও ঘটতে পারে। লেখার মাধ্যমে নান্দদিক দিকগুলোও ফুটে উঠে। তাই যুগ যুগ ধরে লেখাটাই একজন প্রার্থীর গুরুত্বপূর্ণ মূল্যায়ন মাধ্যম হিসেবে বিবেচিত হয়ে আসছে। কিন্তু নতুন কারিকুলামে লেখা বিষয়টির ওপর উল্লেখযোগ্যহারে কমিয়ে দেওয়া হয়েছে।

ঠিকমতো বই পৌঁছায়নি সব শিশুদের কাছে, ইতোমধ্যে দুটো বই তুলে নেয়া হয়েছে, যেসব বই শিশুদের কাছে এসেছে সেগুলোর মধ্যে বিভিন্ন ধরনের ভুল-ভ্রান্তি ধরা পড়ছে। সব মিলিয়ে শিক্ষার্থীরা বিপাকে পড়েছে

শ্রেণীকক্ষেই সবকিছু পড়ানো হবে কথাটি আদর্শিক। বাস্তবের সাথে পুরোটা কিন্তু মিলে না অন্তত আমাদের দেশের কনটেস্টে। প্রথমত, শ্রেণীকক্ষের সংক্ষিপ্ত সময়ের মধ্যে একটি বিষয়ে শিক্ষার্থীদের যে পরিমাণ অনুশীলন দরকার সেটি হয়না কিছু বাস্তব কারণে। একজন শিক্ষার্থীর যে আলাদা সময় প্রয়োজন সেটি দেওয়ারও সুযোগ থাকনো। কাজেই শিক্ষার্থীরা বিশেষ করে যারা ভাল ফলাফল করতে চাইতো তারা প্রাইভেট পড়ে, কোচিং করে সেগুলো সেরে নেওয়ার চেষ্টা করতো। যারা দুর্বল তারা দুর্বলতা কাটিয়ে ওঠার জন্য প্রাইভেট পড়া ও কোচিং করা চালিয়ে যেত।

তবে বিষয় দুটো কিছু ক্ষেত্রে অতিমাত্রায় বাণিজ্যিক আকার ধারণ করায় সচেতন অভিভাবক, শিক্ষাবিদ ও পলিসি মেকারগন প্রাইভেট পড়ানো বন্ধ করার পক্ষে যুক্তি দিয়ে আসছেন এবং বন্ধের জন্য কিছুটা এ ব্যবস্থা করেছেন। শিক্ষাকে আনন্দময় করার প্রতিশ্রুতির মধ্যে দিয়ে হোমওয়ার্কের একেবারেই গুরুত্ব না দেওয়ার বিষয়টিও চলে এসেছে। কিন্তু হোমওয়ার্ক একেবারে বাদ দেওয়া ঠিক হবে না, কারণ এ বয়সের শিক্ষার্থীদের ব্যস্ত রাখতে হবে; কিন্তু সেটি যেন তাদের জন্য বোঝা না হয়ে দাঁড়ায়। বাসায় একেবারে কিছু করার না থাকলে তারা বাজে কাজে সময় নষ্ট করবে। অলস মস্তিষ্ক শয়তানের বাসা বলে যে কথাটি প্রচলিত আছে সেটিই হয়তো এখানে হবে। শ্রেণীকক্ষের অল্প সময়ের মধ্যে সব বিষয়ের সঠিক অনুশীলন সম্ভব হয় না। তাছাড়া কিছু শিক্ষার্থী সবার সামনে থেকে বিষয় আয়ত্ত করতে পারেনা, তাদের আলাদা এবং নিজস্ব সময় প্রয়োজন।

শিক্ষার্থীরা পাস করছে, ভালো গ্রেডিং পেয়ে আসছিলো কিন্তু তাদের ক্রিটিক্যাল থিংকিং উন্নত হচ্ছিল না, নতুন কারিকুলামের মূল্যায়ন প্রক্রিয়ায় এ বিষয়েটিও গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে যেটি ভালো পদক্ষেপ। আগে কোনরকম আন্ডারস্ট্যান্ডিং ছাড়া, কনটেক্সটের সঙ্গে কোন সমপর্ক না বুঝেই একজন শিক্ষার্থী কেবল মুখস্থ করে ভালো নম্বর পেয়ে যেত। এখন কিন্তু তাকে বুঝে কনটেক্সটের সঙ্গে রিলেশনশিপ তৈরি করে শুধুমাত্র জানলেই চলবে না, তাকে সেটা প্রয়োগ করার দক্ষতাও অর্জন করতে হবে। এটিও আদর্শিক কথা বলে মনে হয়। ক’জন শিক্ষকের এ বিষয়টি মূল্যায়ন করার দক্ষতা রয়েছে সেটি একটি বিষয়, তাছাড়া একজন শিক্ষককে প্রতিদিন কতটা করে ক্লাস নিতে হয়, কতজন শিক্ষার্থীর সাথে কথা বলতে হয়, কতটা ধৈর্য তার থাকে যে এসব বিষয় লক্ষ্য করে করে শিক্ষার্থীদের মূল্যায়ন করবেন।

আমাদের শিক্ষার্থীদের অপার সম্ভাবনা রয়েছে, মেধা আছে কিন্তু প্রকাশ করার পরিবেশ, পরিস্থিতি না থাকায় এগুলো সুপ্তই থেকে যায়, প্রকাশিত হয় না, হলেও অনেক বিলম্বে। ভালো গ্রেডিং নিয়ে পাস করেও লেখায় দুর্বল ছিল। বর্তমান মূল্যায়নে লেখার ওপর গুরুত্ব আরও কমিয়ে দেওয়া হয়েছে কারণ তার কার্যাবলীর ওপরই বেশি মূল্যায়ন হবে। যে কোন মূল্যায়নে লেখাটাকে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ উপায় হিসেবে দেখা হয়। যুগ যুগ ধরে লেখাটাই একজন প্রার্থীর গুরুত্বপূর্ণ মূল্যায়ন মাধ্যম হিসেবে বিবেচিত হয়ে আসছে; কিন্তু নতুন কারিকুলাম বিষয়টির ওপর গুরুত্ব উল্লেখযোগ্যহারে কমিয়ে দেওয়া হয়েছে, সেটি বিবেচনার দাবি রাখে।

তবে একজন শিক্ষক যদি দক্ষ হন শিক্ষার্থীদের লেখার মাধ্যমে প্রকাশ করায় তাদের দক্ষ করে গড়ে তুলতে পারবেন। যে কোন কারিকুলামেই শিক্ষকের দায়িত্ববোধ, সৃজনশীলতা এবং জানার আগ্রহ শিক্ষার্থীদের প্রকৃত জ্ঞান অর্জনে ও তা বাস্তবে প্রয়োগ করার ক্ষেত্রে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রাখে।

[লেখক : প্রেসিডেন্ট, ইংলিশ টিচার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ]

back to top