alt

পাঠকের চিঠি

নারী জাগরণের অগ্রদূত

: মঙ্গলবার, ০৮ ডিসেম্বর ২০২০

নারী জাগরণের এই অগ্রদূত বেগম রোকেয়া সাখাওয়াত হোসেন জন্মগ্রহণ করেন ১৮৮০ সালের ৯ ডিসেম্বর পায়রাবন্দ গ্রামে এবং ১৯৩২ সালের ৯ ডিসেম্বর মৃত্যুবরণ করেন। এই হিসেবে আজ ৯ ডিসেম্বর বেগম রোকেয়ার ১৪০তম জন্মদিন ও ৮৮তম মৃত্যুবার্ষিকী। প্রতি বছর ৯ ডিসেম্বর রোকেয়া দিবস পালন করা হয়ে থাকে তাকে সম্মান জানানোর জন্য। তিনি নারীদের মুক্তির জন্য যে পথ সুগম করে গেছেন তা শুধু কয়েকটি বাক্যে লিখে তার তাৎপর্য বোঝানো সম্ভব নয়। শুধু স্বল্প পরিসরে নয় বরং রাষ্ট্র, সমাজ ও পরিবার ব্যবস্থায় নারীর সমান অধিকারের জন্য লড়াই করেছেন বেগম রোকেয়া সাখাওয়াত হোসেন।

শুধু নারী জাগরণের অগ্রদূত নন, তিনি উনবিংশ শতাব্দীর খ্যাতিমান বাঙালি সাহিত্যিক, শিক্ষাবিদ ও সমাজ সংস্কারক ছিলেন।

বেগম রোকেয়ার যখন জন্ম তখন সমাজে বিরাজমান ছিল বিভিন্ন কুসংস্কার আর মেয়েদের জন্য কঠোর নিয়ম। নারীরা ছিল কঠোর নিয়মের বেড়াজালে বন্দী। তার জীবনও ব্যতিক্রম ছিল না। তিনি অত্যন্ত রক্ষণশীল ও প্রতিকূল পরিবেশে বেড়ে ওঠেন কিন্তু তিনি নিজেকে বিকশিত করেছেন এবং সেই সঙ্গে নারীদের জন্য নতুন দিগন্তের সূচনা করে গেছেন।

তার লেখনীতে তিনি নারীদের অধিকারের কথা বলেছেন। সাহিত্যিক হিসেবে আত্মপ্রকাশ ঘটে ১৯০২ সালে। তার প্রকাশিত রচনাগুলোর মধ্যে রয়েছে মতিচুর, সুলতানার স্বপ্ন, পদ্মরাগ, অবরোধবাসিনী ইত্যাদি। তিনি সমাজকে বোঝাতে চেয়েছেন, নারীরা কোনো অংশে কম নয় তারাও চাইলে পুরুষের সঙ্গে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে চলতে পারে। তাদেরও সমান অধিকার রয়েছে, শিক্ষা লাভের অধিকার রয়েছে। তিনি তার লেখনীর মাধ্যমে নারীবাদী চিন্তার প্রকাশ ঘটিয়েছেন।

ধর্মান্ধ সমাজে যখন নারী শিক্ষা নিষিদ্ধ ছিল তিনি তখন সমাজকে আলোর পথ দেখিয়েছেন। তার লেখনীর মাধ্যমে ধিক্কার জানিয়েছেন সেই সমাজকে যেখানে নারীদের শুধু ভোগ্যপণ্য মনে করা হয়। নিজের জীবনের অভিজ্ঞতা থেকেই শিক্ষার নিগূঢ় অর্থ বুঝেছিলেন রোকেয়া তাই তিনি এ সমাজকে তা উপলব্ধি করিয়ে গেছেন। নারী শিক্ষাকে সুদূরপ্রসারী করার জন্য ভাগলপুরে প্রথম প্রতিষ্ঠা করেন সাখাওয়াত মেমোরিয়াল গার্লস স্কুল।

বেগম রোকেয়া সাখাওয়াত হোসেন তাদের জন্য এক আদর্শ যারা নারীদের জন্য সংগ্রাম করে চলেছে আর সেইসব নারীদের জন্য পথপ্রদর্শক যারা আলোর পথের পথিক।

৯ ডিসেম্বর এ মহীয়সী নারীকে শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করা হয়। সরকারি-বেসরকারিভাবে বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করার মাধ্যমে জাতির কাছে তুলে ধরা হয় এক মহীয়সী নারীর জীবনী। এ মহীয়সী নারীর অবদানকে স্মরণ করে প্রতিটি নারী নতুন সমাজের স্বপ্ন দেখে।

ফারিয়া ইয়াসমিন

দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণে ব্যবস্থা নিন

প্রাথমিকে হিসাব রক্ষক নিয়োগ দিন

আবারও রক্তে রঞ্জিত রাস্তা, নেই কঠোর ব্যবস্থা

ছবি

ওমিক্রন : দরকার সর্বোচ্চ সচেতনতা

ভুলে যাওয়ার রোগ

চান্স পাওয়াই সামগ্রিক সফলতা নয়

ইউপি নির্বাচনে ইসিকে কঠোর হতে হবে

পিটিআই ইন্সট্রাক্টর প্রসঙ্গে

ছবি

অনলাইন কেনাকাটায় প্রতারণা বন্ধ হবে কবে?

ছবি

পোলট্রি ফিডের দাম

কর্মমুখী শিক্ষা

বস্তুনিষ্ঠ সাংবাদিকতা

পেট্রল-অকটেনের দাম নিয়ে গুজব

জীবনের সেরা উপহার

শীতে অসহায় মানুষদের পাশে দাঁড়ান

ছবি

জ্বালানি তেলের দাম বাড়ানোর প্রভাব

পায়রা সেতুর টোল

গ্রামে ইন্টারনেট সেবা বাড়ান

লবলং কি দখল-দূষণমুক্ত হবে না?

আকাশে ডানা মেলে কতদূর অতিথি পাখি

মাটির প্রদীপ

লেজার রশ্মি সচেতনতা জরুরি

কিশোর অপরাধ রুখতে সামাজিক দায়বদ্ধতা

অনলাইনে সব রেলস্টেশনের নাম যোগ করুন

ছবি

গুচ্ছ ভর্তি পরীক্ষা

চলন্ত ট্রেনে পাথর ছোড়া বন্ধ হোক

ঢাকা-ময়মনসিংহ পূর্ব বাইপাসের নিরাপত্তা

একই সময়ে একাধিক নিয়োগ পরীক্ষা কাম্য নয়

হামলা ও ধর্ষণ

দখল-দূষণে বিপর্যস্ত সুতাং নদী

খেলার মাঠ ও পার্ক রক্ষা করতে হবে

বিষ দিয়ে মাছ শিকার নয়

ছবি

ক্রিকেটারদের নিয়ে ট্রল

শিক্ষকদের স্বতন্ত্র বেতন স্কেল বাস্তবায়ন প্রসঙ্গে

ড্রেনে নেই ঢাকনা বিপাকে পথচারী

করোনা মোকাবিলা আগামীর প্রস্তুতি

tab

পাঠকের চিঠি

নারী জাগরণের অগ্রদূত

মঙ্গলবার, ০৮ ডিসেম্বর ২০২০

নারী জাগরণের এই অগ্রদূত বেগম রোকেয়া সাখাওয়াত হোসেন জন্মগ্রহণ করেন ১৮৮০ সালের ৯ ডিসেম্বর পায়রাবন্দ গ্রামে এবং ১৯৩২ সালের ৯ ডিসেম্বর মৃত্যুবরণ করেন। এই হিসেবে আজ ৯ ডিসেম্বর বেগম রোকেয়ার ১৪০তম জন্মদিন ও ৮৮তম মৃত্যুবার্ষিকী। প্রতি বছর ৯ ডিসেম্বর রোকেয়া দিবস পালন করা হয়ে থাকে তাকে সম্মান জানানোর জন্য। তিনি নারীদের মুক্তির জন্য যে পথ সুগম করে গেছেন তা শুধু কয়েকটি বাক্যে লিখে তার তাৎপর্য বোঝানো সম্ভব নয়। শুধু স্বল্প পরিসরে নয় বরং রাষ্ট্র, সমাজ ও পরিবার ব্যবস্থায় নারীর সমান অধিকারের জন্য লড়াই করেছেন বেগম রোকেয়া সাখাওয়াত হোসেন।

শুধু নারী জাগরণের অগ্রদূত নন, তিনি উনবিংশ শতাব্দীর খ্যাতিমান বাঙালি সাহিত্যিক, শিক্ষাবিদ ও সমাজ সংস্কারক ছিলেন।

বেগম রোকেয়ার যখন জন্ম তখন সমাজে বিরাজমান ছিল বিভিন্ন কুসংস্কার আর মেয়েদের জন্য কঠোর নিয়ম। নারীরা ছিল কঠোর নিয়মের বেড়াজালে বন্দী। তার জীবনও ব্যতিক্রম ছিল না। তিনি অত্যন্ত রক্ষণশীল ও প্রতিকূল পরিবেশে বেড়ে ওঠেন কিন্তু তিনি নিজেকে বিকশিত করেছেন এবং সেই সঙ্গে নারীদের জন্য নতুন দিগন্তের সূচনা করে গেছেন।

তার লেখনীতে তিনি নারীদের অধিকারের কথা বলেছেন। সাহিত্যিক হিসেবে আত্মপ্রকাশ ঘটে ১৯০২ সালে। তার প্রকাশিত রচনাগুলোর মধ্যে রয়েছে মতিচুর, সুলতানার স্বপ্ন, পদ্মরাগ, অবরোধবাসিনী ইত্যাদি। তিনি সমাজকে বোঝাতে চেয়েছেন, নারীরা কোনো অংশে কম নয় তারাও চাইলে পুরুষের সঙ্গে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে চলতে পারে। তাদেরও সমান অধিকার রয়েছে, শিক্ষা লাভের অধিকার রয়েছে। তিনি তার লেখনীর মাধ্যমে নারীবাদী চিন্তার প্রকাশ ঘটিয়েছেন।

ধর্মান্ধ সমাজে যখন নারী শিক্ষা নিষিদ্ধ ছিল তিনি তখন সমাজকে আলোর পথ দেখিয়েছেন। তার লেখনীর মাধ্যমে ধিক্কার জানিয়েছেন সেই সমাজকে যেখানে নারীদের শুধু ভোগ্যপণ্য মনে করা হয়। নিজের জীবনের অভিজ্ঞতা থেকেই শিক্ষার নিগূঢ় অর্থ বুঝেছিলেন রোকেয়া তাই তিনি এ সমাজকে তা উপলব্ধি করিয়ে গেছেন। নারী শিক্ষাকে সুদূরপ্রসারী করার জন্য ভাগলপুরে প্রথম প্রতিষ্ঠা করেন সাখাওয়াত মেমোরিয়াল গার্লস স্কুল।

বেগম রোকেয়া সাখাওয়াত হোসেন তাদের জন্য এক আদর্শ যারা নারীদের জন্য সংগ্রাম করে চলেছে আর সেইসব নারীদের জন্য পথপ্রদর্শক যারা আলোর পথের পথিক।

৯ ডিসেম্বর এ মহীয়সী নারীকে শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করা হয়। সরকারি-বেসরকারিভাবে বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করার মাধ্যমে জাতির কাছে তুলে ধরা হয় এক মহীয়সী নারীর জীবনী। এ মহীয়সী নারীর অবদানকে স্মরণ করে প্রতিটি নারী নতুন সমাজের স্বপ্ন দেখে।

ফারিয়া ইয়াসমিন

back to top