alt

সারাদেশ

জীবন দিয়ে দায়িত্ব পালন করলেন পুলিশ কর্মকর্তা পেয়ারুল

লিয়াকত আলী বাদল, রংপুর : শনিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১

ইয়াবাসহ মাদক ব্যবসায়ী আটক করতে গিয়ে খুন হন পুলিশের এএসআই পেয়ারুল ইসলাম। উপর্যুপরি ছুরিকাঘাতে ক্ষতবিক্ষত হবার পরেও জীবনবাজি রেখে মাদক ব্যবসায়ী পলাশকে জাপটে ধরে ছিলেন পেয়ারুল ইসলাম। শেষ পর্যন্ত নিজের জীবন দিয়ে প্রমাণ করলেন তার দায়িত্ব আর কর্মনিষ্ঠার।

রংপুরের হারাগাছ থানার বাহারকাছনা তেলিপাড়া এলাকায় ১৫১ পিস ইয়াবাসহ মাদক ব্যবসায়ী পলাশকে আটক করার সময় তার হাতে থাকা ছুরি দিয়ে বুকে-পিঠে উপর্যুপরি ছুরিকাঘাত করে নৃশংসভাবে হত্যা করেছে মাদক ব্যবসায়ী পলাশ।

হারাগাছ মেট্রোপলিটন থানার ওসি শওকত হোসেন পুলিশ কর্মকর্তা পেয়ারুল ইসলাম নিহত হবার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

পুলিশ জানায়, শুক্রবার (২৪ সেপ্টেম্বর) রাতে গোপন সূত্রে খবর পেয়ে হারাগাছ থানার এএসআই পেয়ারুল ইসলামের নেতৃত্বে কয়েকজন পুলিশ বাহারকাছনা তেলিপাড়া এলাকা থেকে মাদক ব্যবসায়ী পলাশকে আটক করে। তার শরীর তল্লাশি চালিয়ে ১৫১ পিস ইয়াবা উদ্ধার করে পুলিশ। এ সময় মাদক ব্যবসায়ী পলাশ এএসআই পেয়ারুল ইসলামকে তার হাতে থাকা ছুরি দিয়ে পেটে উপযুপরি ছুরিকাঘাত করে পালিয়ে যাবার চেষ্টা করে।

এরপরই এলাকাবাসী ও পুলিশের অন্য সদস্যরা তাকে আটক করতে সক্ষম হয়। পরে গুরুতর আহত অবস্থায় পেয়ারুল ইসলামকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। অবস্থার অবনতি ঘটলে তাকে হাসপাতালের আইসিইউতে স্থানান্তর করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শনিবার (২৫ সেপ্টেম্বর) বেলা সাড়ে এগারটায় তিনি মারা যান। নিহত এএসআই পেয়ারুল ইসলামের বাড়ি কুড়িগ্রাম জেলার রাজারহাট উপজেলার বিদ্যানন্দ গ্রামে। বাবার নাম আবদুর রহমান বলে পুলিশ জানিয়েছে।

এদিকে গুরুতর আহত হবার খবর পেয়ে পুলিশের পেয়ারুল ইসলামের বাবা মেরাজুল ইসলাম, চাচাতো ভাই সালাম, আনোয়ারুলসহ অন্য স্বজনরা হাসপাতালে ছুটে আসেন। কিন্তু রাতে তার অবস্থার অবনতি ঘটলে তাকে আইসিইউতে নেয়া হয়। সেখানে মৃত্যুর সঙ্গে লড়ে শনিবার (২৫ সেপ্টেম্বর) মারা যান।

এ সময় স্বজন ও সহকর্মীদের আহাজারিতে হাসপাতালের বাতাস ভারি হয়ে ওঠে। নিহত পেয়ারুল ইসলামের স্বজনরা খুনি মাদক ব্যবসায়ী পলাশের ফাঁসি দাবি করে।

এএসআই পেয়ারুল ইসলামের নিহত হবার খবর পেয়ে রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের কমিশনার আবদুল আলীম মাহমুদ অতিরিক্ত উপপুলিশ কমিশনার কাজী ইবনে মিজান উপপুলিশ কমিশনার ক্রাইম মারুফ হোসেনসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা হাসপাতালে ছুটে আসেন। উপপুলিশ কমিশনার ডিবি কাজী ইবনে মিজান জানান, পেয়ারুল ইসলাম জীবনের বিনিময়ে প্রমাণ করেছেন পুলিশ বাহিনীর সদস্যরা তাদের কর্তব্যপরায়ণতায় কতটা অবিচল। তিনি বলেন, ঘটনাটিকে আমরা সিরিয়াসলি নিয়েছি। এর সঙ্গে আর কারা কারা জড়িত তাদের গ্রেপ্তার করে বিচারের আওতায় আনা হবে।

এদিকে নিহত পুলিশ কর্মকর্তার মরদেহ দুপুর দেড়টা পর্যন্ত হাসপাতালের ডেড হাউজে রাখা হয়। পরে দুপুর দুইটার দিকে ময়নাতদন্ত করার জন্য রংপুর মেডিকেল কলেজের মর্গে নিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়।

হারাগাছ থানার ওসি শওকত আলী জানান, বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে ময়নাতদন্তের পর নিহত এএসআই পিয়ারুল ইসলামকে পুলিশ লাইনে নেয়া হয়েছে সেখানে জানাজা শেষে তার মরদেহ স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হয়। সেখান থেকে তাকে তার গ্রামের বাড়ি রাজারহাট উপজেলার বিদ্যানন্দ গ্রামে নেয়া হয়।

পিয়ারুলের বাড়িতে শোকের মাতম

কুড়িগ্রাম জেলা বার্তা পরিবেশক জানান, রংপুরের হারাগাছে মাদক কারবারির ছুরিকাঘাতে নিহত পিয়ারুল ইসলামের লাশ আনার পর তার বাড়িতে শুরু হয় শোকের মাতম। শনিবার সন্ধ্যার পর নিজ গ্রামে দাফন করা হয় পিয়ারুল ইসলামকে।

স্থানীয় ইউপি সদস্য খোরশেদ আলম জানান, রংপুরের হারাগাছ থানায় কর্মরত এএসআই পিয়ারুল ইসলামের মৃত্যু মেনে নিতে পারছে না তার পরিবারসহ এলাকাবাসী। সে একজন স্বজ্জন ব্যক্তি হিসেবে পরিচিত ছিলেন। তিন ভাইবোনের মধ্যে সে ছিল বড়। তার বাবা আবদুর রহমান মিন্টু চন্দ্রপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক হিসেবে কর্মরত আছেন। পিয়ারুল ইসলাম দীর্ঘ একযুগ ধরে পুলিশ বিভাগে কর্মরত ছিলেন। সর্বশেষ রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশ বিভাগের আওতায় হারাগাছ থানায় কর্মরত ছিলেন। তার দুটি পুত্র সন্তান রয়েছে। প্রথমটির বয়স ৭ এবং দ্বিতীয়টির বয়স দেড় বছর।

কুড়িগ্রামের রাজারহাট থানার ওসি রাজু সরকার জানান, এএসআই পিয়ারুল ইসলামের প্রথম জানাজা রংপুর পুলিশ লাইন মাঠে বিকেল সাড়ে ৩টায় অনুষ্ঠিত হয়। দ্বিতীয় জানাজা রাত ৯টায় তার গ্রামের বাড়ি কুড়িগ্রামের রাজারহাট উপজেলার বিদ্যানন্দ ইউনিয়নের চন্দ্রপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে অনুষ্ঠিত হয়। এরপর তাকে চন্দ্রপাড়া গ্রামে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়। এ সময় পুলিশ বিভাগের কর্মকর্তা, স্থানীয় জনপ্রতিনিধি, গণ্যমান্য ব্যক্তি ও এলাকাবাসী অংশগ্রহণ করেন।

নিহত পিয়ারুল ইসলামের বাবা আবদুর রহমান মিন্টু জানান, আমার সন্তানের মৃত্যু মেনে নিতে খুব কষ্ট হচ্ছে। সরকারি দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে জীবন দিয়েছে সে। এ জন্য আমি গর্ব অনুভব করি। হত্যাকারীর দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানিয়েছেন তিনি।

ছবি

মনোনয়ন সমস্যায় ৮৮টি ইউপিতে নৌকা পাচ্ছে না কেউ

ছবি

গুলশানে আবাসিক ভবনে আগুন, নিয়ন্ত্রণে ৯ ইউনিট

ছবি

লক্ষ্মীপুরের ৫ হাসপাতালে চিকিৎসক-কর্মচারী সংকট

ছবি

আইনজীবী আবদুল বাসেত মজুমদার আর নেই

ছবি

খুলনায় তিন খুনের ঘটনায় মামলা, আটক ৪

ছবি

পাটুরিয়া ঘাটে ১৭ ট্রাক নিয়ে ফেরিডুবি

ছবি

চট্টগ্রামে মান্নান ফ্লাইওভারে ফাটল

ছবি

থানা হাজতের গ্রিল ভেঙে পালালেন আসামি, দুই পুলিশ প্রত্যাহার

ছবি

অনলাইন শপিং উৎসবে প্রোটিন মার্কেট এর অফার

ছবি

প্রকল্প বাস্তবায়নে ধীরগতি, সংসদীয় কমিটির ক্ষোভ

ছবি

নগদ-ডিআরইউ বেস্ট রিপোর্টিং পুরস্কার পেলেন ২২ সাংবাদিক

কলারোয়ায় ইঁদুর নিধন অভিযান

ছবি

মুক্তিযুদ্ধে শহীদ বাবার সম্মানে বিনা পারিশ্রমিকে ১০০১টি কিডনি প্রতিস্থাপন

চুনারুঘাটে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ

ছবি

অতি বৃষ্টিতে শত শত বিঘার আমন ধান বিনষ্টের আশঙ্কায় দিশেহারা কৃষক

ছবি

ফরিদপুরে সাম্প্রদায়িক সন্ত্রাসে জড়িতদের গ্রেপ্তার ও শাস্তির দাবি

ছবি

সাম্প্রদায়িক হামলার বিচার বিভাগীয় তদন্ত চেয়ে রিট

ছবি

২২ দিনের অভিযানে সাড়ে ৩শ কোটি টাকার অবৈধ জাল ধ্বংস

ছবি

গোপালগঞ্জে ব্যবসায়ী হত্যা মামলায় ৫ জনের মৃত্যুদণ্ড

ছবি

বিমান কর্তৃপক্ষের আশ্বাস, কাজে ফিরবেন ক্ষুব্ধ পাইলটরা

ছবি

নন্দীগ্রামে বর্গাচাষির বেগুন-করলা গাছ উপড়ে ফেলেছে দুর্বৃত্তরা

কক্সবাজার সৈকতে ফের অবৈধ দোকান উচ্ছেদ

ছবি

প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত বীর মুক্তিযোদ্ধার নাম তালিকাভুক্ত না হওয়ায় ক্ষোভ

গাইনি চিকিৎসক টাকা নিয়ে সনদ দেয় রেডিওলোজির!

মহেশখালীর পৌর মেয়রসহ ৩১ জনের বিরুদ্ধে ডাকাতি মামলা

ভালুকায় সাপের কামড়ে মৃত্যু ১

ছবি

চট্টগ্রামে উড়ালসড়কে ‘নির্মাণত্রুটির’ কারণে ফাটল, বললেন মেয়র

বদলগাছীতে ইভিএমে ভোট

কাঁঠালিয়ায় আ’লীগ নেতার অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ

চৌগাছায় ভোট কেন্দ্র স্থানান্তর নিয়ে দ্বিধা বিভক্ত এলাকাবাসী

ছবি

শীতের আগমনীতে খেজুর রস সংগ্রহের প্রস্তুতি নিচ্ছে গাছিরা

শেরপুরে ধর্ষণ মামলার আসামিকে গ্রেপ্তার না করায় বাদীর পরিবার নিরাপত্তাহীন

ছবি

লন্ডনে বসে দুর্গাপূজায় হামলার পরিকল্পনা: তথ্যমন্ত্রী

ছবি

হেফাজতে ইসলামের আমির মুহিবুল্লাহ বাবুনগরী হাসপাতালে

ছবি

খুলনায় পুকুরে মিলল মা-বাবা ও মেয়ের লাশ

ছবি

মুহিবুল্লাহ হত্যা: ২ দিনের রিমান্ডে তিন আসামি

tab

সারাদেশ

জীবন দিয়ে দায়িত্ব পালন করলেন পুলিশ কর্মকর্তা পেয়ারুল

লিয়াকত আলী বাদল, রংপুর

শনিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১

ইয়াবাসহ মাদক ব্যবসায়ী আটক করতে গিয়ে খুন হন পুলিশের এএসআই পেয়ারুল ইসলাম। উপর্যুপরি ছুরিকাঘাতে ক্ষতবিক্ষত হবার পরেও জীবনবাজি রেখে মাদক ব্যবসায়ী পলাশকে জাপটে ধরে ছিলেন পেয়ারুল ইসলাম। শেষ পর্যন্ত নিজের জীবন দিয়ে প্রমাণ করলেন তার দায়িত্ব আর কর্মনিষ্ঠার।

রংপুরের হারাগাছ থানার বাহারকাছনা তেলিপাড়া এলাকায় ১৫১ পিস ইয়াবাসহ মাদক ব্যবসায়ী পলাশকে আটক করার সময় তার হাতে থাকা ছুরি দিয়ে বুকে-পিঠে উপর্যুপরি ছুরিকাঘাত করে নৃশংসভাবে হত্যা করেছে মাদক ব্যবসায়ী পলাশ।

হারাগাছ মেট্রোপলিটন থানার ওসি শওকত হোসেন পুলিশ কর্মকর্তা পেয়ারুল ইসলাম নিহত হবার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

পুলিশ জানায়, শুক্রবার (২৪ সেপ্টেম্বর) রাতে গোপন সূত্রে খবর পেয়ে হারাগাছ থানার এএসআই পেয়ারুল ইসলামের নেতৃত্বে কয়েকজন পুলিশ বাহারকাছনা তেলিপাড়া এলাকা থেকে মাদক ব্যবসায়ী পলাশকে আটক করে। তার শরীর তল্লাশি চালিয়ে ১৫১ পিস ইয়াবা উদ্ধার করে পুলিশ। এ সময় মাদক ব্যবসায়ী পলাশ এএসআই পেয়ারুল ইসলামকে তার হাতে থাকা ছুরি দিয়ে পেটে উপযুপরি ছুরিকাঘাত করে পালিয়ে যাবার চেষ্টা করে।

এরপরই এলাকাবাসী ও পুলিশের অন্য সদস্যরা তাকে আটক করতে সক্ষম হয়। পরে গুরুতর আহত অবস্থায় পেয়ারুল ইসলামকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। অবস্থার অবনতি ঘটলে তাকে হাসপাতালের আইসিইউতে স্থানান্তর করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শনিবার (২৫ সেপ্টেম্বর) বেলা সাড়ে এগারটায় তিনি মারা যান। নিহত এএসআই পেয়ারুল ইসলামের বাড়ি কুড়িগ্রাম জেলার রাজারহাট উপজেলার বিদ্যানন্দ গ্রামে। বাবার নাম আবদুর রহমান বলে পুলিশ জানিয়েছে।

এদিকে গুরুতর আহত হবার খবর পেয়ে পুলিশের পেয়ারুল ইসলামের বাবা মেরাজুল ইসলাম, চাচাতো ভাই সালাম, আনোয়ারুলসহ অন্য স্বজনরা হাসপাতালে ছুটে আসেন। কিন্তু রাতে তার অবস্থার অবনতি ঘটলে তাকে আইসিইউতে নেয়া হয়। সেখানে মৃত্যুর সঙ্গে লড়ে শনিবার (২৫ সেপ্টেম্বর) মারা যান।

এ সময় স্বজন ও সহকর্মীদের আহাজারিতে হাসপাতালের বাতাস ভারি হয়ে ওঠে। নিহত পেয়ারুল ইসলামের স্বজনরা খুনি মাদক ব্যবসায়ী পলাশের ফাঁসি দাবি করে।

এএসআই পেয়ারুল ইসলামের নিহত হবার খবর পেয়ে রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের কমিশনার আবদুল আলীম মাহমুদ অতিরিক্ত উপপুলিশ কমিশনার কাজী ইবনে মিজান উপপুলিশ কমিশনার ক্রাইম মারুফ হোসেনসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা হাসপাতালে ছুটে আসেন। উপপুলিশ কমিশনার ডিবি কাজী ইবনে মিজান জানান, পেয়ারুল ইসলাম জীবনের বিনিময়ে প্রমাণ করেছেন পুলিশ বাহিনীর সদস্যরা তাদের কর্তব্যপরায়ণতায় কতটা অবিচল। তিনি বলেন, ঘটনাটিকে আমরা সিরিয়াসলি নিয়েছি। এর সঙ্গে আর কারা কারা জড়িত তাদের গ্রেপ্তার করে বিচারের আওতায় আনা হবে।

এদিকে নিহত পুলিশ কর্মকর্তার মরদেহ দুপুর দেড়টা পর্যন্ত হাসপাতালের ডেড হাউজে রাখা হয়। পরে দুপুর দুইটার দিকে ময়নাতদন্ত করার জন্য রংপুর মেডিকেল কলেজের মর্গে নিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়।

হারাগাছ থানার ওসি শওকত আলী জানান, বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে ময়নাতদন্তের পর নিহত এএসআই পিয়ারুল ইসলামকে পুলিশ লাইনে নেয়া হয়েছে সেখানে জানাজা শেষে তার মরদেহ স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হয়। সেখান থেকে তাকে তার গ্রামের বাড়ি রাজারহাট উপজেলার বিদ্যানন্দ গ্রামে নেয়া হয়।

পিয়ারুলের বাড়িতে শোকের মাতম

কুড়িগ্রাম জেলা বার্তা পরিবেশক জানান, রংপুরের হারাগাছে মাদক কারবারির ছুরিকাঘাতে নিহত পিয়ারুল ইসলামের লাশ আনার পর তার বাড়িতে শুরু হয় শোকের মাতম। শনিবার সন্ধ্যার পর নিজ গ্রামে দাফন করা হয় পিয়ারুল ইসলামকে।

স্থানীয় ইউপি সদস্য খোরশেদ আলম জানান, রংপুরের হারাগাছ থানায় কর্মরত এএসআই পিয়ারুল ইসলামের মৃত্যু মেনে নিতে পারছে না তার পরিবারসহ এলাকাবাসী। সে একজন স্বজ্জন ব্যক্তি হিসেবে পরিচিত ছিলেন। তিন ভাইবোনের মধ্যে সে ছিল বড়। তার বাবা আবদুর রহমান মিন্টু চন্দ্রপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক হিসেবে কর্মরত আছেন। পিয়ারুল ইসলাম দীর্ঘ একযুগ ধরে পুলিশ বিভাগে কর্মরত ছিলেন। সর্বশেষ রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশ বিভাগের আওতায় হারাগাছ থানায় কর্মরত ছিলেন। তার দুটি পুত্র সন্তান রয়েছে। প্রথমটির বয়স ৭ এবং দ্বিতীয়টির বয়স দেড় বছর।

কুড়িগ্রামের রাজারহাট থানার ওসি রাজু সরকার জানান, এএসআই পিয়ারুল ইসলামের প্রথম জানাজা রংপুর পুলিশ লাইন মাঠে বিকেল সাড়ে ৩টায় অনুষ্ঠিত হয়। দ্বিতীয় জানাজা রাত ৯টায় তার গ্রামের বাড়ি কুড়িগ্রামের রাজারহাট উপজেলার বিদ্যানন্দ ইউনিয়নের চন্দ্রপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে অনুষ্ঠিত হয়। এরপর তাকে চন্দ্রপাড়া গ্রামে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়। এ সময় পুলিশ বিভাগের কর্মকর্তা, স্থানীয় জনপ্রতিনিধি, গণ্যমান্য ব্যক্তি ও এলাকাবাসী অংশগ্রহণ করেন।

নিহত পিয়ারুল ইসলামের বাবা আবদুর রহমান মিন্টু জানান, আমার সন্তানের মৃত্যু মেনে নিতে খুব কষ্ট হচ্ছে। সরকারি দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে জীবন দিয়েছে সে। এ জন্য আমি গর্ব অনুভব করি। হত্যাকারীর দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানিয়েছেন তিনি।

back to top