alt

অপরাধ ও দুর্নীতি

শ্রেণী পরিবর্তণ করে রেজিস্ট্রি এক দলিলেই সতের লাখ টাকা রাজস্ব ফাঁকি!

প্রতিনিধি, শেরপুর (বগুড়া) : বৃহস্পতিবার, ২৫ নভেম্বর ২০২১

বিদায় বেলায় বগুড়ার শেরপুর সাব-রেজিস্ট্রার নূরে আলম সিদ্দিকীর বিরুদ্ধে সরকারকে রাজস্ব ফাঁকি দিয়ে দলিল রেজিস্ট্রি করার অভিযোগ উঠেছে। আইন বহির্ভূতভাবে জমির শ্রেণী পরিবর্তনের মাধ্যমে দলিল রেজিস্ট্রি করে এক দলিলেই সরকারকে রাজস্ব ফাঁকি দেয়া হয় অন্তত সতের লাখ টাকা। বুধবার (২৪ নভেম্বর) এই দলিল রেজিস্ট্রির ঘটনায় তোলপাড় শুরু হয়েছে।

দলিল লেখকদের অভিযোগ, বদলি জনিত কারণে এদিনই শেষ কর্মদিবস এই সাব-রেজিস্ট্রারের। তাই অনেকটা গোপনেই তরিঘরি করে দলিলটি রেজিস্ট্রি করেন। এতে সরকার লাখ লাখ টাকা রাজস্ব হারালেও তার পকেটে উঠেছে মোটা অঙ্কের টাকা। শুধু এই ঘটনাই নয়। এমন আরও অনেকটা ঘটনাই ধামাচাপা দেয়া হয়েছে। তাই সরকারের উচ্চমহল থেকে তদন্ত হলে এই উপজেলায় সরকারি লাখ লাখ টাকা রাজস্ব ফাঁকির গোমড় বের হয়ে আসবে বলে দাবি করেন তারা।

অভিযোগে জানা যায়, উপজেলার মির্জাপুর ইউনিয়নের দড়িমুকুন্দ মৌজায় দুই একর চার শতক বাণিজ্যিক জমি বগুড়া পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-২’এর জেনারেল ম্যানেজার ক্রয় করেন। জমি বিক্রেতা স্থানীয় বাসিন্দা এসএম কামাল হোসেন। সর্বশেষ জমির কাগজপপত্রে বাণিজ্যিক হিসেবেই নামজারি ও খাজনা পরিশোধ করেন তিনি। অথচ এই জমি ধানী হিসেবে উল্লেখ করে বুধবার দুপুরে তার নিকট থেকে জমিটি রেজিস্ট্রি করে নেওয়া হয়। যার দলিল নং-১১০৯০। পুরো বিষয়টি সাব-রেজিস্ট্রার নূরে আলম সিদ্দিকীকে ম্যানেজ করেই করা হয়। এতে করে সরকার বাণিজ্যিক জমি রেজিস্ট্রির নির্ধারিত ভ্যাট-ট্যাক্স থেকে বঞ্চিত হয়েছে। এভাবে জমির শ্রেণী পরিবর্তন করে দলিল রেজিস্ট্রি করায় সরকার অন্তত সতের লাখ টাকা রাজস্ব হারিয়েছে বলে অভিযোগে বলা হয়েছে।

এদিকে এই দলিলে সম্পাদনকারী হিসেবে স্বাক্ষর করেছেন দলিল লেখক মতিউর রহমান । তার বক্তব্য জানতে চাইলে তিনি বলেন, জমির সব কাগজপত্রই ধানী রয়েছে। শুধু বাণিজ্যিক হিসেবে খাজনা পরিশোধ করা হয়। তাই সেভাবেই দলিল করা হয়েছে। এক্ষেত্রে জমির কোন শ্রেণী পরিবর্তন করা হয়নি বলে জানান তিনি।

বিষয়টি সম্পর্কে বক্তব্য জানতে চাইলে অভিযুক্ত সাব-রেজিস্টার নূরে আলম সিদ্দিকী বলেন, যথাযথ নিয়ম মেনেই দলিলটি রেজিস্ট্রি করা হয়েছে। তাই সরকার কোন রাজস্ব হারাননি। এসব নিছক অপপ্রচার। আমি এখানে যোগদানের পর যেসব দলিল লেখক কোনো অবৈধ সুযোগ-সুবিধা নিতে পারেননি মূলত তারাই আমার এই বিদায় বেলায় এ ধরনের মিথ্যা অভিযোগ উত্থাপন করেছেন বলে দাবি করেন এই সাব-রেজিস্ট্রার।

ছবি

জাহাঙ্গীরের বিরুদ্ধে ১০০ কোটি টাকার মানহানি মামলা

ছবি

কুয়েতে মানবপাচার মামলায় পাপুলের ৭ বছর কারাদণ্ড

ছবি

পুলিশের অপরাধ তদন্তে ‘স্বাধীন কমিশন’ কেন নয়: হাইকোর্টের রুল

ছবি

পিছিয়ে গেলো আবরার হত্যা মামলার রায়

ছবি

আবরার হত্যা : আদালতে ২২ আসামি

রাজশাহীতে বিভিন্ন অপরাধে আটক ১৯

সীতাকুন্ডে জমি বিবাদে দোকান-গাড়িতে আগুন, বাড়িতে হামলা

ছবি

আহসান কবীরের মৃত্যু: উত্তর সিটির সেই ময়লার গাড়ির চালক গ্রেপ্তার

ছবি

আবরার হত্যা মামলার রায় রোববার

ইউপি নির্বাচন-পরবর্তী সহিংসতায় নিহত ২

ছবি

বরাদ্দের চাল ও টাকা ঢুকেছে ইউপি চেয়ারম্যানের পকেটে

সোনারগাঁয়ে ২ প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ-গুলি : আহত ২০

হবিগঞ্জে নির্বাচনী সংঘর্ষ-ভাংচুর, আহত ১৫

ছবি

নাঈমের মৃত্যু: ডিএসসিসি’র গাড়ির চালক হারুন গ্রেপ্তার

ছবি

নাঈমের মৃত্যু: আসল চালকের খোঁজ মিলল বরখাস্তের পর

কুমিল্লায় জোড়া খুন আরও এক আসামি মাসুম গ্রেপ্তার

ছবি

পুলিশের সামনে স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী চাচার ওপর ভাতিজার বাহিনীর হামলা

ছবি

ইভ্যালির ৩৬ ব্যাংক হিসাবে ৩৮’শ কোটি টাকার লেনদেন

ছবি

জাহাঙ্গীরের বিরুদ্ধে এবার পঞ্চগড়ে মামলা

আড়াইহাজারে স্বর্ণ দোকানে ভাঙচুর-লুট, হিন্দু পাড়ায় হামলার হুমকি : আতঙ্ক

শৈলকুপায় সংঘর্ষে আহত ২৫ আটক ৬

মুন্সীগঞ্জে অবাধে উৎপাদন হচ্ছে কারেন্ট জাল

ধর্ষণ ও হত্যা চেষ্টা মামলায় সাবেক মেয়র পুত্রের যাবজ্জীবন

ব্রাহ্মণপাড়ায় নৌকা না পেয়ে আ’লীগ অফিস ভাংচুর

চট্টগ্রামে প্রতারণার অভিযোগে কাস্টমসের ২ কর্তাসহ ৪ জনের বিরুদ্ধে মামলা

ঘর পুড়িয়ে মাকে মারধর : ছেলের বিরুদ্ধে মামলা

ছবি

পতাকা ইস্যু: পাকিস্তান দলের বিরুদ্ধে মামলার আবেদন খারিজ

ছবি

কাউন্সিলর সোহেল হত্যা: ৯ নম্বর আসামি গ্রেপ্তার

ছবি

গোপালগঞ্জে ইজিবাইক চালক হত্যা: ৫ জনের মৃত্যুদণ্ড

ছবি

মুক্তিযোদ্ধা যাচাই-বাছাইয়ে ১০ শতাংশ কোটা বাতিল: হাইকোর্ট

ছবি

নটর ডেম শিক্ষার্থী নিহতের ঘটনায় পল্টন থানায় মামলা

ছবি

পতাকা নিয়ে অনুশীলন: পাকিস্তান দলের বিরুদ্ধে মামলার আবেদন

ছবি

ড্রেনে পড়ে শিক্ষার্থীর মৃত্যু: ১০ কোটি টাকা ক্ষতিপূরণ চেয়ে রিট

ছবি

‘অসৎ উদ্দেশ্যে’ আসামিকে জামিন দিয়েছিলেন কামরুন্নাহার

ছবি

মহাসড়কে সন্ত্রাস-চাঁদাবাজি ও দূর্ঘটনা তথ্য জানাতে চালু হচ্ছে অ্যাপ

ছবি

শিক্ষার্থীকে ধর্ষণের হুমকি: বাস চালক-সহকারী কারাগারে

tab

অপরাধ ও দুর্নীতি

শ্রেণী পরিবর্তণ করে রেজিস্ট্রি এক দলিলেই সতের লাখ টাকা রাজস্ব ফাঁকি!

প্রতিনিধি, শেরপুর (বগুড়া)

বৃহস্পতিবার, ২৫ নভেম্বর ২০২১

বিদায় বেলায় বগুড়ার শেরপুর সাব-রেজিস্ট্রার নূরে আলম সিদ্দিকীর বিরুদ্ধে সরকারকে রাজস্ব ফাঁকি দিয়ে দলিল রেজিস্ট্রি করার অভিযোগ উঠেছে। আইন বহির্ভূতভাবে জমির শ্রেণী পরিবর্তনের মাধ্যমে দলিল রেজিস্ট্রি করে এক দলিলেই সরকারকে রাজস্ব ফাঁকি দেয়া হয় অন্তত সতের লাখ টাকা। বুধবার (২৪ নভেম্বর) এই দলিল রেজিস্ট্রির ঘটনায় তোলপাড় শুরু হয়েছে।

দলিল লেখকদের অভিযোগ, বদলি জনিত কারণে এদিনই শেষ কর্মদিবস এই সাব-রেজিস্ট্রারের। তাই অনেকটা গোপনেই তরিঘরি করে দলিলটি রেজিস্ট্রি করেন। এতে সরকার লাখ লাখ টাকা রাজস্ব হারালেও তার পকেটে উঠেছে মোটা অঙ্কের টাকা। শুধু এই ঘটনাই নয়। এমন আরও অনেকটা ঘটনাই ধামাচাপা দেয়া হয়েছে। তাই সরকারের উচ্চমহল থেকে তদন্ত হলে এই উপজেলায় সরকারি লাখ লাখ টাকা রাজস্ব ফাঁকির গোমড় বের হয়ে আসবে বলে দাবি করেন তারা।

অভিযোগে জানা যায়, উপজেলার মির্জাপুর ইউনিয়নের দড়িমুকুন্দ মৌজায় দুই একর চার শতক বাণিজ্যিক জমি বগুড়া পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-২’এর জেনারেল ম্যানেজার ক্রয় করেন। জমি বিক্রেতা স্থানীয় বাসিন্দা এসএম কামাল হোসেন। সর্বশেষ জমির কাগজপপত্রে বাণিজ্যিক হিসেবেই নামজারি ও খাজনা পরিশোধ করেন তিনি। অথচ এই জমি ধানী হিসেবে উল্লেখ করে বুধবার দুপুরে তার নিকট থেকে জমিটি রেজিস্ট্রি করে নেওয়া হয়। যার দলিল নং-১১০৯০। পুরো বিষয়টি সাব-রেজিস্ট্রার নূরে আলম সিদ্দিকীকে ম্যানেজ করেই করা হয়। এতে করে সরকার বাণিজ্যিক জমি রেজিস্ট্রির নির্ধারিত ভ্যাট-ট্যাক্স থেকে বঞ্চিত হয়েছে। এভাবে জমির শ্রেণী পরিবর্তন করে দলিল রেজিস্ট্রি করায় সরকার অন্তত সতের লাখ টাকা রাজস্ব হারিয়েছে বলে অভিযোগে বলা হয়েছে।

এদিকে এই দলিলে সম্পাদনকারী হিসেবে স্বাক্ষর করেছেন দলিল লেখক মতিউর রহমান । তার বক্তব্য জানতে চাইলে তিনি বলেন, জমির সব কাগজপত্রই ধানী রয়েছে। শুধু বাণিজ্যিক হিসেবে খাজনা পরিশোধ করা হয়। তাই সেভাবেই দলিল করা হয়েছে। এক্ষেত্রে জমির কোন শ্রেণী পরিবর্তন করা হয়নি বলে জানান তিনি।

বিষয়টি সম্পর্কে বক্তব্য জানতে চাইলে অভিযুক্ত সাব-রেজিস্টার নূরে আলম সিদ্দিকী বলেন, যথাযথ নিয়ম মেনেই দলিলটি রেজিস্ট্রি করা হয়েছে। তাই সরকার কোন রাজস্ব হারাননি। এসব নিছক অপপ্রচার। আমি এখানে যোগদানের পর যেসব দলিল লেখক কোনো অবৈধ সুযোগ-সুবিধা নিতে পারেননি মূলত তারাই আমার এই বিদায় বেলায় এ ধরনের মিথ্যা অভিযোগ উত্থাপন করেছেন বলে দাবি করেন এই সাব-রেজিস্ট্রার।

back to top