alt

সারাদেশ

যমুনার চরে বৈচিত্র্যময় সবুজ ফসলের সমারোহ

হাবিবুর রহমান, যমুনার চর থেকে ফিরে : বুধবার, ০৬ ডিসেম্বর ২০২৩

দক্ষিণে দেশখ্যাত বঙ্গবন্ধু সেতু। পশ্চিমে যমুনা নদী আর সিরাজগঞ্জ জেলা। উত্তরে যমুনার বিস্তীর্ণ চর আর চর। পূর্বে টাঙ্গাইল জেলা। এরমধ্যে অর্জুনা আর গাবসারা দুইটি ইউনিয়নের কয়েকটি চর। যমুনার পলিবাহিত ধূ-ধূ বালুচর। চারদিকে যমুনা নদী বেষ্টিত। মাঝখানে বড় দুটি ইউনিয়নে বসতি গড়েছে অনেক আগেই। যদিও বর্ষায় থাকে থৈ থৈ জল আর জল। উজান থেকে নেমে আসা গ্রোতে চরগুলো ডুবে যায় বিশাল জলরাশিতে। নৌকায় এপার ওপার যাতায়াত এ জনপদের মানুষের। আর শুকনো মৌসুমে চরাঞ্চলের উর্বর মৃত্তিকায় ফুঁসে উঠে কৃষি ফসলের বৈচিত্র। যেন সবুজের বৈচিত্রময় সমারোহ। চরে মাথা উঁচু করে জেগে উঠে নানা ফসল। পলিবাহিত থাকার কারণে চরের উর্বরতা শক্তি অনেক বেশি। চরে চরে ভুট্টা, বাদাম,আলু, মাসকালাই,মরিচ, মুলা, শিম,লাউ,জিরা, সজ, পেয়াজ, রসুন, গম, কাউন, গবাদিপশু পশুখাদ্য ঘাসসহ নানা ফসলের দিগন্ত জুড়া সবুজ আর সবুজ। চরের বাড়িগুলো ছোট ছোট খামার। প্রতি বাড়ির আঙিনা আর পালানে সবজি। গরু ছাগল পালন। চরের নারী পুরুষ সমান তালে মাঠ ঘাটে কাজ করে। বর্ষার ৬ মাস তাদের তেমন কাজ থাকে না। ৬ মাস কাজ করে খাবার আর অর্থের যোগান নিয়ে রাখে। সংসারে স্বচ্ছলতার জন্য তারা কাজ করে। মাঠেও নারীরা পুরুষের সঙ্গে কাজ করে থাকে। এমনটা জানা গেছে চর শুশুয়া, অর্জুনা, চর গোবিন্দসহ কয়েক চরের মানুষের সঙ্গে কথা বলে। টাঙ্গাইলের ভুইয়াপুরের দুটি ইউনিয়ন অর্জুনা আর গাবসারা। অর্জুনা ইউনিয়নটি গোপালপুর আর ভুইয়াপুরের পশ্চিমে আর গাবসারা ভুইয়াপুরের পশ্চিমে অবস্থিত। দুটি ইউনিয়নই চর আর আর। স্থানীয়রা চরাঞ্চল হিসেবে চিনে থাকে। এ সব চর বহু পুরানো। ভাঙা গড়ার খেলার মতো। এবার এখানে চর। আবার সরে যায়। নদী ভাঙার উপর চরের নিশানা। চরের জমি জমা নিয়েও অনেক সময় ঝগড়া বিবাদ হয়। দখল নিয়ে দেখা দেয় বিরোধ বিবাদ। পলি পড়ে মৃত্তিকা হয় উর্বর। ফসলের জন্য পলিজমা মাটি ব্যাপক উর্বর। কৃষি ফসলের জন্য যেন সৃষ্টি কর্তার আশীর্বাদ। ফোলে ফেঁপে ফুঁসে উঠে ফসল। ফলনও আসে ভালো। এসব তথ্য চরের মানুষের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে।

কৃষি অফিস সূত্রে জানা গেছে, ২০২৩-২০২৪ অর্থবছরের রবি মৌসুমে ভুইয়াপুর উপজেলায় সরিষা চাষ হয়েছে ৩৫৭০ হেক্টর। এর মধ্যে উফসী ২৫৯৫ হেক্টর ও স্থানীয় জাতের ৯৭৫ হেক্টর। ভুট্টা ২৮৫১ হেক্টর, চিনাবাদাম ১৩২০ হেক্টর, মুসুর ৫২২, খেসারি ১০১২ হেক্টর, কালোজিরা ১০ হেক্টর, মিষ্টি আলু ৫৭ হেক্টর, মরিচ ৮৫ হেক্টর, শাকসবজি ৪৭০ হেক্টর, পেয়াজ ৫২ হেক্টর, আলু ৩৮ হেক্টর, রসুন ৩৪ হেক্টর, ধনিয়া ২৪ হেক্টর, গম ৪৮০ হেক্টর, মাষকালাই ১২২৪ ও রোপা আমন ৬১১৫ হেক্টর।

সরেজমিনে অর্জুনা আর গাবসারা ইউনিয়নে গিয়ে জানা যায়, চরাঞ্চলের কৃষি ফসল চাষের নানা কথা। নলিন থেকে নৌকা যমুনা নদী পার হলে চরশুশুয়া গ্রাম। নদীর পাড় উঠে দেখা যায় সবুজ আর সবুজ। দুই পাশে শস্য ভান্ডার মাঝ খানে মেঠো পথ। ডানপাশে মাসকালাই বাম পাশে ভুট্টার খেত। সামনে এগিয়ে দেখা আহাম্মদ খান (৫৫) আলী নামের এক কৃষকের সঙ্গে। তার হাতে কাস্তে আর রশি। তার কথা বলে জানা গেল, তাদের এলাকার নাম ভিন্ন ভিন্ন চরের নামে। তারমতে, এ সব চরে এ সময়ে গম,ভুট্টা, সজ, সবজি, মরিচ, মুলা, ধান, শিম, লাউসহ বিভিন্ন কৃষি ফসলের চাষ হয়। তিনি হাত দিয়ে দূরে দেখালেন ঐ চরে তার ২ বিঘা মরিচের চাষ। এখানে তার মাষকালাই তিন বিঘা, ধান দেড় বিঘা, ৫ বিঘা ভুট্টার আবাদ। এখন মাষকালাই তোলার জন্য এসেছে। তিনি জানালেন, চরে চাষ করতে তেমন সার লাগে না। অল্প খরচে অধিক ফসল পাওয়া যায়।

চর শ^শুয়া গ্রামে গিয়ে কথা হয়। সরকারি ইবরাহীম খা কলেজের শিক্ষার্থী আব্দুর রহমানের সঙ্গে। তিনি জানালেন এ চরের প্রায় সবাই কৃষি কাজের সঙ্গে জড়িত। কম বেশি সবাই কৃষি কাজ করে। চরাঞ্চলের মানুষের প্রধান পেশা কৃষি কাজ। তার বাবাও একজন কৃষক। তাদের সব ধরনের ফসল চাষ করে। তারমতে, কম খরচে অধিক ফসল পাওয়া যায়। চরে বেশি চাষ হয় ভতা। ভালো লাভ পান চরের কৃষকরা। রাজীব মিয়া(২৩) নামের এক কৃষক জানালেন, এবার তিনি চরে তিন বিঘা ভুট্টা, দুই বিঘা মাষকালাই ও ১৫ শতাংশ কালো জিরা চাষ করেছে। শুধু রাজীব, আব্দুর রহমান, গোলাম রব্বানী, জাহাঙ্গীর আলমই নন তাদের মত চর তালতলা, চর শুশুয়া, বেহারির চর, জঙ্গিচর, চরসোহাগভাগা, চরকালিপুর, চরচন্দনি, চরবাসুদেবসহ বিভিন্ন চরের মানুষ তারা কৃষি কাজের সঙ্গে জড়িত। কৃষি কাজ করে চলে তাদের জীবন জীবিকা। প্রতিবছর তারা কৃষি কাজে ভালো লাভ পান। বাড়িতে গবাদিপশু পালন করেও লাভ পেয়ে থাকে । বর্ষাকালে কৃষি ফসল, কাজ থাকে না বিধায় এ মৌসুমে কৃষি ফসলের সঙ্গে বাড়ি হাঁস মুরগি গরু ছাগল ভেড়া ঘোড়া পালন করে। বর্ষার আগেই গবাদিপশু বিক্রি করে দেয়।

স্থানীয় চেয়ারম্যান দিদারুল আলম খান মাহবুব জানালেন, চরের কৃষকদের সরকারি কৃষি সেবা প্রণোদনা দেয়া হয়ে থাকে । তবে সবাই পান না। চরের পলি উর্বর থাকার কারণে সোনা ফলে। যোগাযোগ ব্যবস্থা ভালো না থাকায় ঘোড়া গাড়ী আর মাথা করে চরের ফসল বাড়িতে উঠাতে হয়। এ সময়ে চরের সবুজ ফসলে ভরা।

ভুইয়াপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. আরিফুর রহমান জানান, চরাঞ্চলে কিছু কিছু কৃষি ফসলের জন্য বিশেষ উপযোগি। বাদাম, মিষ্টি আলু, ভুট্টা, মরিচসহ অন্যান্য ফসলে ভালো জন্মে। বন্যায় চরাঞ্চল প্লাবিত হয়ে পলি পড়ে জমির উর্বরতা শক্তি বৃদ্ধি পায়। ফলে কৃষি ফসল ভালো ফলন হয়ে থাকে। তিনি জানান, ২০২৩-২০২৪ অর্থ বছরের রবি মৌসুমে ভুইয়াপুর উপজেলায় সরিষা চাষ হয়েছে ৩৫৭০ হেক্টর।

ছবি

টেকনাফ সীমান্তে ফের গোলাগুলির শব্দ, আতঙ্কে সাধারণ মানুষ

ছবি

মৌলভীবাজারে শহীদ মিনারে পুলিশের ওপর আ.লীগের হামলা

ছবি

বারি ও মদিনা টেক এর মধ্যে সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর

ছবি

গাজীপু‌রে সোয়া লাখ পিস ইয়াব উদ্ধার, আটক ৪ মাদক কারবারী

ছবি

গাজীপুরে কারখানা শ্রমিকদের মাঝে নিত্যপণ্য সামগ্রী বিতরণ

ছবি

নওগাঁয় ভয়াবহ ‘প্রক্সিকাণ্ড’ ৫৯ দাখিল পরীক্ষার্থীই ভুয়া

ছবি

অস্ত্রসহ পালিয়ে আসা রোহিঙ্গারা গুরুত্বপূর্ণ তথ্য দিয়েছে : পুলিশ

ছবি

উপজেলা নির্বাচনে জামানত ‘বহুগুণ’ বাড়াতে চায় ইসি

ছবি

নগরীর সমস্যা নিয়ে পোস্টার: কবি ও গ্রাফিক ডিজাইনার শামীম কারাগারে

ছবি

চাঁপাইনবাবগঞ্জে স্কুলছাত্র হত্যায় দুজনের যাবজ্জীবন

ছবি

দাখিল পরীক্ষা দিচ্ছিল অন্যের হয়ে, নওগাঁয় ৫৯ জন আটক

ছবি

কক্সবাজারের সুগন্ধ্যা বীচের নতুন নাম ‘বঙ্গবন্ধু বীচ’

ছবি

গাইবান্ধার ডিসিকে প্রত্যাহারের দাবিতে মানববন্ধন, না মানলে বৃহত্তর কর্মসুচি

ছবি

হত্যার ১৪ বছর পর ৫ জনের মৃত্যুদণ্ড

ছবি

ঢাকা-কক্সবাজার রুটে ‘বিশেষ ট্রেন’

মোল্লাহাটে আধিপত্য বিস্তার নিয়ে দুই গ্রুপে সংঘর্ষ, নিহত ১, পুলিশসহ আহত ২৮

শরীয়তপুরে ধুতুরাপাতা খেয়ে নারী ও শিশুসহ একই পরিবারের ৬ জন অসুস্থ, দুজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক

ছবি

মিরপুরে ঝিলপাড় বস্তিতে আগুন, নিয়ন্ত্রণে ৮ ইউনিট

ছবি

জয়পুরহাটে হত্যা মামলায় মা-ছেলেসহ পাঁচজনের মৃত্যুদণ্ড

ছবি

ঢাকা-কক্সবাজার পথে পাঁচ দিনে ৫ ‘বিশেষ ট্রেন’

ছবি

গাজীপুরে ট্রাকচাপায় নিহত ৩

রাজশাহীতে কুড়িয়ে পাওয়া বরই খেয়ে দুই শিশুর মৃত্যু

ছবি

ভাতিজার লাঠির আঘাতে চাচা নিহত

ছবি

অপহরণের ৬ দিন পর মুক্তিপণে ফিরলো স্কুল ছাত্র

ছবি

ময়মনসিংহে ডোবায় মিলল বস্তাবন্দি অজ্ঞাত নারীর লাশ

ছবি

অনুপ্রবেশের অপেক্ষায় নাফনদীতে হাজারো রোহিঙ্গা, সতর্ক অবস্থানে বিজিবি

ছবি

রাজশাহীতে দুই শিশুর মৃত্যুর কারণ নিপা ভাইরাস নয় : আইইডিসিআর

ছবি

টাঙ্গাইলে পিকআপ-অটোরিকশা সংঘর্ষে নিহত ৪

ছবি

অনুপ্রবেশকারী ৫ রোহিঙ্গাকে মায়ানমারে ফেরত

ছবি

গুলিবিদ্ধ নারীসহ পাঁচ রোহিঙ্গার অনুপ্রবেশ

ছবি

অজানা ভাইরাসে ২ মেয়ের মৃত্যুর পর মা-বাবাকে নেওয়া হলো আইসোলেশনে

ছবি

গুলিবিদ্ধ নারীসহ মায়ানমারের ৫ রোহিঙ্গার অনুপ্রবেশ

ছবি

‘মাদকনির্ভরশীলতা এবং মানসিক রোগীদের চিকিৎসা গুরুত্বপূর্ণ’

ছবি

কক্সবাজারে তিনদিনে পেটে ডিমসহ ৬ মৃত কাছিম উদ্ধার

ছবি

আবারও কাঁপল টেকনাফ সীমান্ত, নাফনদীর ওপারে থেমে থেমে বিস্ফোণের শব্দ

ছবি

সারাদেশে নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহের লক্ষ্যে কাজ করছে সরকার : শিল্পমন্ত্রী

tab

সারাদেশ

যমুনার চরে বৈচিত্র্যময় সবুজ ফসলের সমারোহ

হাবিবুর রহমান, যমুনার চর থেকে ফিরে

বুধবার, ০৬ ডিসেম্বর ২০২৩

দক্ষিণে দেশখ্যাত বঙ্গবন্ধু সেতু। পশ্চিমে যমুনা নদী আর সিরাজগঞ্জ জেলা। উত্তরে যমুনার বিস্তীর্ণ চর আর চর। পূর্বে টাঙ্গাইল জেলা। এরমধ্যে অর্জুনা আর গাবসারা দুইটি ইউনিয়নের কয়েকটি চর। যমুনার পলিবাহিত ধূ-ধূ বালুচর। চারদিকে যমুনা নদী বেষ্টিত। মাঝখানে বড় দুটি ইউনিয়নে বসতি গড়েছে অনেক আগেই। যদিও বর্ষায় থাকে থৈ থৈ জল আর জল। উজান থেকে নেমে আসা গ্রোতে চরগুলো ডুবে যায় বিশাল জলরাশিতে। নৌকায় এপার ওপার যাতায়াত এ জনপদের মানুষের। আর শুকনো মৌসুমে চরাঞ্চলের উর্বর মৃত্তিকায় ফুঁসে উঠে কৃষি ফসলের বৈচিত্র। যেন সবুজের বৈচিত্রময় সমারোহ। চরে মাথা উঁচু করে জেগে উঠে নানা ফসল। পলিবাহিত থাকার কারণে চরের উর্বরতা শক্তি অনেক বেশি। চরে চরে ভুট্টা, বাদাম,আলু, মাসকালাই,মরিচ, মুলা, শিম,লাউ,জিরা, সজ, পেয়াজ, রসুন, গম, কাউন, গবাদিপশু পশুখাদ্য ঘাসসহ নানা ফসলের দিগন্ত জুড়া সবুজ আর সবুজ। চরের বাড়িগুলো ছোট ছোট খামার। প্রতি বাড়ির আঙিনা আর পালানে সবজি। গরু ছাগল পালন। চরের নারী পুরুষ সমান তালে মাঠ ঘাটে কাজ করে। বর্ষার ৬ মাস তাদের তেমন কাজ থাকে না। ৬ মাস কাজ করে খাবার আর অর্থের যোগান নিয়ে রাখে। সংসারে স্বচ্ছলতার জন্য তারা কাজ করে। মাঠেও নারীরা পুরুষের সঙ্গে কাজ করে থাকে। এমনটা জানা গেছে চর শুশুয়া, অর্জুনা, চর গোবিন্দসহ কয়েক চরের মানুষের সঙ্গে কথা বলে। টাঙ্গাইলের ভুইয়াপুরের দুটি ইউনিয়ন অর্জুনা আর গাবসারা। অর্জুনা ইউনিয়নটি গোপালপুর আর ভুইয়াপুরের পশ্চিমে আর গাবসারা ভুইয়াপুরের পশ্চিমে অবস্থিত। দুটি ইউনিয়নই চর আর আর। স্থানীয়রা চরাঞ্চল হিসেবে চিনে থাকে। এ সব চর বহু পুরানো। ভাঙা গড়ার খেলার মতো। এবার এখানে চর। আবার সরে যায়। নদী ভাঙার উপর চরের নিশানা। চরের জমি জমা নিয়েও অনেক সময় ঝগড়া বিবাদ হয়। দখল নিয়ে দেখা দেয় বিরোধ বিবাদ। পলি পড়ে মৃত্তিকা হয় উর্বর। ফসলের জন্য পলিজমা মাটি ব্যাপক উর্বর। কৃষি ফসলের জন্য যেন সৃষ্টি কর্তার আশীর্বাদ। ফোলে ফেঁপে ফুঁসে উঠে ফসল। ফলনও আসে ভালো। এসব তথ্য চরের মানুষের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে।

কৃষি অফিস সূত্রে জানা গেছে, ২০২৩-২০২৪ অর্থবছরের রবি মৌসুমে ভুইয়াপুর উপজেলায় সরিষা চাষ হয়েছে ৩৫৭০ হেক্টর। এর মধ্যে উফসী ২৫৯৫ হেক্টর ও স্থানীয় জাতের ৯৭৫ হেক্টর। ভুট্টা ২৮৫১ হেক্টর, চিনাবাদাম ১৩২০ হেক্টর, মুসুর ৫২২, খেসারি ১০১২ হেক্টর, কালোজিরা ১০ হেক্টর, মিষ্টি আলু ৫৭ হেক্টর, মরিচ ৮৫ হেক্টর, শাকসবজি ৪৭০ হেক্টর, পেয়াজ ৫২ হেক্টর, আলু ৩৮ হেক্টর, রসুন ৩৪ হেক্টর, ধনিয়া ২৪ হেক্টর, গম ৪৮০ হেক্টর, মাষকালাই ১২২৪ ও রোপা আমন ৬১১৫ হেক্টর।

সরেজমিনে অর্জুনা আর গাবসারা ইউনিয়নে গিয়ে জানা যায়, চরাঞ্চলের কৃষি ফসল চাষের নানা কথা। নলিন থেকে নৌকা যমুনা নদী পার হলে চরশুশুয়া গ্রাম। নদীর পাড় উঠে দেখা যায় সবুজ আর সবুজ। দুই পাশে শস্য ভান্ডার মাঝ খানে মেঠো পথ। ডানপাশে মাসকালাই বাম পাশে ভুট্টার খেত। সামনে এগিয়ে দেখা আহাম্মদ খান (৫৫) আলী নামের এক কৃষকের সঙ্গে। তার হাতে কাস্তে আর রশি। তার কথা বলে জানা গেল, তাদের এলাকার নাম ভিন্ন ভিন্ন চরের নামে। তারমতে, এ সব চরে এ সময়ে গম,ভুট্টা, সজ, সবজি, মরিচ, মুলা, ধান, শিম, লাউসহ বিভিন্ন কৃষি ফসলের চাষ হয়। তিনি হাত দিয়ে দূরে দেখালেন ঐ চরে তার ২ বিঘা মরিচের চাষ। এখানে তার মাষকালাই তিন বিঘা, ধান দেড় বিঘা, ৫ বিঘা ভুট্টার আবাদ। এখন মাষকালাই তোলার জন্য এসেছে। তিনি জানালেন, চরে চাষ করতে তেমন সার লাগে না। অল্প খরচে অধিক ফসল পাওয়া যায়।

চর শ^শুয়া গ্রামে গিয়ে কথা হয়। সরকারি ইবরাহীম খা কলেজের শিক্ষার্থী আব্দুর রহমানের সঙ্গে। তিনি জানালেন এ চরের প্রায় সবাই কৃষি কাজের সঙ্গে জড়িত। কম বেশি সবাই কৃষি কাজ করে। চরাঞ্চলের মানুষের প্রধান পেশা কৃষি কাজ। তার বাবাও একজন কৃষক। তাদের সব ধরনের ফসল চাষ করে। তারমতে, কম খরচে অধিক ফসল পাওয়া যায়। চরে বেশি চাষ হয় ভতা। ভালো লাভ পান চরের কৃষকরা। রাজীব মিয়া(২৩) নামের এক কৃষক জানালেন, এবার তিনি চরে তিন বিঘা ভুট্টা, দুই বিঘা মাষকালাই ও ১৫ শতাংশ কালো জিরা চাষ করেছে। শুধু রাজীব, আব্দুর রহমান, গোলাম রব্বানী, জাহাঙ্গীর আলমই নন তাদের মত চর তালতলা, চর শুশুয়া, বেহারির চর, জঙ্গিচর, চরসোহাগভাগা, চরকালিপুর, চরচন্দনি, চরবাসুদেবসহ বিভিন্ন চরের মানুষ তারা কৃষি কাজের সঙ্গে জড়িত। কৃষি কাজ করে চলে তাদের জীবন জীবিকা। প্রতিবছর তারা কৃষি কাজে ভালো লাভ পান। বাড়িতে গবাদিপশু পালন করেও লাভ পেয়ে থাকে । বর্ষাকালে কৃষি ফসল, কাজ থাকে না বিধায় এ মৌসুমে কৃষি ফসলের সঙ্গে বাড়ি হাঁস মুরগি গরু ছাগল ভেড়া ঘোড়া পালন করে। বর্ষার আগেই গবাদিপশু বিক্রি করে দেয়।

স্থানীয় চেয়ারম্যান দিদারুল আলম খান মাহবুব জানালেন, চরের কৃষকদের সরকারি কৃষি সেবা প্রণোদনা দেয়া হয়ে থাকে । তবে সবাই পান না। চরের পলি উর্বর থাকার কারণে সোনা ফলে। যোগাযোগ ব্যবস্থা ভালো না থাকায় ঘোড়া গাড়ী আর মাথা করে চরের ফসল বাড়িতে উঠাতে হয়। এ সময়ে চরের সবুজ ফসলে ভরা।

ভুইয়াপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. আরিফুর রহমান জানান, চরাঞ্চলে কিছু কিছু কৃষি ফসলের জন্য বিশেষ উপযোগি। বাদাম, মিষ্টি আলু, ভুট্টা, মরিচসহ অন্যান্য ফসলে ভালো জন্মে। বন্যায় চরাঞ্চল প্লাবিত হয়ে পলি পড়ে জমির উর্বরতা শক্তি বৃদ্ধি পায়। ফলে কৃষি ফসল ভালো ফলন হয়ে থাকে। তিনি জানান, ২০২৩-২০২৪ অর্থ বছরের রবি মৌসুমে ভুইয়াপুর উপজেলায় সরিষা চাষ হয়েছে ৩৫৭০ হেক্টর।

back to top