alt

সারাদেশ

টানা বৃষ্টি, কমবে তাপমাত্রা, বাড়বে শীত

সংবাদ অনলাইন রিপোর্ট : বৃহস্পতিবার, ০৭ ডিসেম্বর ২০২৩

দিনভর বৃষ্টি, দুর্ভোগে রাজধানীবাসী। এই অবস্থায় ন্যায্যমূল্যে পণ্য কিনতে বৃষ্টিতে ভিজে টিসিবির ট্রাকের পেছনে দীর্ঘ অপেক্ষা। বৃহস্পতিবার শান্তিনগর থেকে তোলা -সোহরাব আলম

গত বুধবার রাত থেকে শুরু হয়েছে বৃষ্টি। বৃহস্পতিবার (৭ ডিসেম্বর) দিনভর বৃষ্টির পরও থামার লক্ষণ ছিল না, টিপটিপ করে ঝরছে তা দিনভর। ঢাকাসহ প্রায় সারাদেশেই চলছে গুঁড়িগুঁড়ি বৃষ্টি, আবার কোথাও হচ্ছে হালকা থেকে মাঝারি ধরনের বৃষ্টিও হয়েছে। ঘূর্ণিঝড় মিগজাউমের প্রভাবে সারাদেশে বৃষ্টি ঝরছে, থেকে থেকে বয়ে যাচ্ছে ঠান্ডা বাতাস। লঘুচাপটি দুর্বল হয়ে ভারতের উত্তর অন্ধ্র প্রদেশ ও এর আশে পাশের এলাকায় অবস্থান করছে।

বিশেষজ্ঞদের মত, আগামীকাল শুক্রবার সকাল থেকে বা একটু বেলা বাড়লেই বৃষ্টি বন্ধ হয়ে আবহাওয়া পরিস্থিতির উন্নতি হবে। বর্তমানে এটি গুরুত্বহীন মনে করছে আবহাওয়া অধিদপ্তর।

আবহাওয়া অধিদপ্তর জানিয়েছে, রাজশাহী, পাবনা, রংপুর, বগুড়া, টাঙ্গাইল, ময়মনসিংহ, ঢাকা, ফরিদপুর, যশোর, কুষ্টিয়া, খুলনা, বরিশাল, পটুয়াখালী, নোয়াখালী, কুমিল্লা, সিলেট ও চট্টগ্রাম অঞ্চলের ওপর দিয়ে পূর্ব-দক্ষিণপূর্ব দিক থেকে ঘণ্টায় ৪৫-৬০ কিলোমিটার বেগে অস্থায়ীভাবে ঝড়ো হাওয়া বয়ে যেতে পারে।

তারা আরও জানায়, ঘূর্ণিঝড় মিগজাউমের প্রভাবে আকাশে যে সঞ্চারণশীল মেঘের সৃষ্টি হয়েছিল তারই প্রভাবে এই বৃষ্টি হচ্ছে। শুক্রবার (আজ) বৃষ্টি কিছুটা কমে আসতে পারে। অধিদপ্তরের পক্ষ থেকে তাপমাত্রা ২ থেকে ৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস কমে যাওয়ার কথাও বলা হয়েছে।

এদিকে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে দমকা হাওয়াসহ বৃষ্টির কারণে নদীবন্দর গুলোকে ১ নম্বর সতর্ক সংকেত আগের মতোই দেখাতে বলা হয়েছে।

তবে আকাশ মেঘলা থাকবে। টানা বৃষ্টির কারণে কমবে দিন ও রাতের তাপমাত্রা। বৃহস্পতিবার অধিদপ্তরের আবহাওয়াবিদ ড. মুহাম্মদ আবুল কালাম মল্লিক বলেন, ‘আগামীকাল (আজ) সকালের মধ্যে তাপমাত্রা দুই থেকে তিন ডিগ্রি সেলসিয়াস হ্রাস পেতে পারে। সকাল ৯টা থেকে পরবর্তী ২৪ ঘণ্টায় কেবল রাতের তাপমাত্রা কমে যেতে পারে এক থেকে দুই ডিগ্রি সেলসিয়াস পর্যন্ত।’

তবে, আগামী ১০ ডিসেম্বর থেকে ক্রমান্বয়ে তাপমাত্রা ‘কমতে শুরু করবে’ বলে জানান এই আবহাওয়াবিদ।

তিনি বলেন,‘আমরা মনে করছি, তাপমাত্রা কমতে কমতে চলতি মাসে একবার অথবা দুবার দেশের কোথাও কোথাও তাপমাত্রা ১০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের নিচে নেমে যেতে পারে। এটি ডিসেম্বরের শেষ ভাগে হওয়ার সম্ভাবনা বেশি।’

আবহাওয়া দপ্তরের আবহাওয়াবিদ আবদুর রহমান জানান, এই বৃষ্টির ধারা আগামীকাল (আজ) সারাদেশে বর্ষিত হবে। শনিবার থেকে বৃষ্টি কমে আসবে। সম্ভবত রোববার থেকে মেঘ কেটে মুখ দেখাবে সূর্য। ধরণি রোদের স্পর্শ পেলেও শুরু হবে শীতের প্রভাব। তাপমাত্রা ২ থেকে ৩ ডিগ্রি কমে যাবে। বৃষ্টির সম্ভাবনা তারপর আপাতত নেই। তাপমাত্রা ক্রমেই কমতে কমতে জেঁকে বসবে শীত।

মাসের শেষ ভাগে ‘শৈত্যপ্রবাহ’

সাধারণত জুন-জুলাই মাসে প্রচুর বৃষ্টি হয়। এবার বাংলাদেশে এই দুই মাসে বৃষ্টির পরিমাণ ছিল তুলনামূলক কম। অক্টোবর-নভেম্বরের বেশি বৃষ্টি হয়েছে। অধিদপ্তরের তথ্য বিশ্লেষণে দেখা যায়, অক্টোবরে সারাদেশে স্বাভাবিকের চেয়ে ৩৫ দশমিক এক শতাংশ বেশি বৃষ্টি হয়েছিল। নভেম্বরে চার বিভাগে বৃষ্টি বেশি হওয়ায় সার্বিকভাবে সারাদেশে স্বাভাবিকের চেয়ে ৬৫ দশমিক আট শতাংশ বেশি বৃষ্টি হয়েছে।

বর্ষার অস্বাভাবিক আচরণে এবার শীত প্রায় স্থিতিশীল থাকবে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা। আবহাওয়াবিদ মো. বজলুর রশিদ বলেন, ‘এবার শুরু থেকেই বর্ষার আচরণ আনইউজুয়াল। সেই কারণে আমরা মনে করছি, শীত যেমন পড়ার কথা তেমন পড়বে না। তাপমাত্রা কিছুটা বেশি থাকবে।’

এবার শীত খানিকটা দেরিতেই আসছে। কেন? আবদুর রহমান জানান, কারণ এই শক্তিশালী মিগজাউম। ঘূর্ণিঝড় মিগজাউমের প্রভাবেই আবহাওয়ায় শীতের প্রভাব কম পড়েছে। এখন ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাব কমতে কমতে শেষ হয়ে যাবে এবং প্রবল হয়ে উঠবে শীত।

আবহাওয়া অধিদপ্তর তাদের দীর্ঘ মেয়াদি পূর্বাভাসে জানিয়েছে, চলতি মাসের শেষ ভাগেই কোথাও কোথাও মাঝারি ধরনের শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যেতে পারে। অর্থাৎ তাপমাত্রা ছয় থেকে আট ডিগ্রি সেলসিয়াসের মধ্যে থাকতে পারে। আবুল কালাম মল্লিক বলেন, ‘ডিসেম্বরে দিন ও রাতের তাপমাত্রা স্বাভাবিকের চেয়ে কিছুটা বেশি থাকবে।’

‘মিগজাউম’ নামটি মায়ানমারের দেয়া। এটি একটি বর্মি শব্দ। গত ২৯ নভেম্বর দক্ষিণ আন্দামান সাগরে একটি লঘুচাপের সৃষ্টি হয়েছিল। সেটি ক্রমেই ঘনীভূত হয়ে ২ ডিসেম্বর নিম্নচাপে এবং পরের দিন ৩ ডিসেম্বর গভীর নিম্নচাপে রূপ নিয়ে দক্ষিণ বঙ্গোপসাগর ও এর সংলগ্ন এলাকায় ধেয়ে আসে। রূপ নেয় মিগজাউম নামের ঘূর্ণিঝড়ে। ঘূর্ণিঝড়টি এখন দুর্বল হয়ে পড়েছে। আবহাওয়া বিভাগ বলছে, মিগজাউম এখন ভারতের উত্তর অন্ধ্র প্রদেশের দিকে সরে গেছে। আর গুরুত্বহীন হয়ে পড়েছে। তবে তার প্রভাব যে একেবারে কাটেনি, তার প্রমাণ মিলছে এই মেঘ-বৃষ্টিতে।

বৃষ্টিতে রাজধানীতে যানজট-ভোগান্তি, রিকশা সিএনজির ভাড়া দ্বিগুণ

বৃহস্পতিবার ভোর থেকে রাজধানীতে পড়ছে গুঁড়িগুঁড়ি বৃষ্টির কারণে নগরবাসীর জীবনে বাড়তি দুর্ভোগ যোগ হয়েছে। এসব কারণে সবচেয়ে বেশি ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে অফিসমুখী লোকজন ও স্কুলগামী শিক্ষার্থীদের। অবরোধের কারণেও রাজধানীর কিছু পয়েন্টে যানজট দেখা গেছে। রাজধানীর বাংলামোটর, শাহবাগ, সায়েন্স ল্যাব, বিজয় সরণি ও আসাদগেট পয়েন্টে বাড়তি যানবাহনের চাপ দেখা গেছে। এসব রাস্তায় চলাচল করা যাত্রীদের যানজট ঠেলে বৃষ্টিতে কাঁকভেজা হয়ে গন্তব্যে পৌঁছাতে হয়েছে।

কল্যাণপুর থেকে মৎস্য ভবন আসা তরিকুল সুমন বলেন, বৃষ্টির জন্য কিছু জায়গায় গাড়ি চলেছে ধীরগতিতে। যখন সাইন্স ল্যাবে আধা ঘণ্টা বসে থাকতে হয়েছে। একারণে সাহাবাগে ঢুকতে দীর্ঘ সময় লেগেছে।

এছাড়া বৃষ্টিতে যারা রিকশায় চড়ে কিংবা ছাতা মাথায় দিয়ে হেঁটে গন্তব্যে রওনা দিয়েছেন তাদেরও ভোগান্তির কমতি নেই। বৃষ্টিতে সিএনজি, রিকশায় অতিরিক্ত ভাড়া গুনতে হয়েছে। শাহবাগ থেকে নিউমার্কেট যাবেন লুবনা ইসলাম। এই পথে ভাড়া সর্বোচ্চ ৪০ টাকা হলেও আজ নিচ্ছে ৭০ থেকে ১০০ টাকা। তিনি বলেন, ‘একটু বৃষ্টি হলেই ভোগান্তি আমাদের। কিছু রিকশাচালক, সিএনজিচালক পেয়ে বসে। অতিরিক্ত ভাড়া নেয়।’

প্রতিদিন ধানমন্ডি থেকে কারওয়ান বাজার রিকশায় যাতায়াত করেন লোপা রহমান। তিনি জানান, স্বাভাবিক সময়ে ভাড়া ১০০ টাকা হলেও আজ দ্বিগুণ ভাড়া ২০০ টাকা দিয়ে এসেছেন।

অন্যদিকে আশপাশে যাত্রী তুলছে না রিকশা চালকরা। একটু দূরের লোকজন ছাড়া যাত্রী তুলতে চাইছেন না তারা। কারণ হিসেবে তারা বলছেন, দূরের ভাড়া বেশি, তাই পরিবহন সংকট থাকাকালীন কাছের যাত্রী না তুলে তার দূরের যাত্রী নিচ্ছেন।

এ বিষয়ে রিকশাচালক সবুজ মিয়া সংবাদকে বলেন, ‘অবরোধ আর বৃষ্টির কারণে সকাল থেকে সড়কে বাস অল্প। দলে দলে যাত্রীরা রাস্তায় দাঁড়িয়ে আছে, কিন্তু বাস পাচ্ছে না। তাই সবাই রিকশাতেই যাচ্ছে। এ সুযোগে আমরাও দূরের যাত্রী নিচ্ছি, কারণ দূরে ভাড়া বেশি।’

সড়কে বাড়তি যানবাহনের চাপ নিয়ে দায়িত্বরত ট্রাফিক কর্মকর্তা নিউটন বলেন, বৃষ্টির জন্য দুপুরের দিকে সড়কে যানবাহনের কিছুটা চাপ ছিল। দুপুরে যানজট থাকলেও এখন তেমন গাড়ির চাপ নেই। বৃষ্টির জন্য কিছু কিছু জায়গায় গাড়ি ধীরগতি হয়েছে।

ছবি

মায়ের জানাজায় ইতালি থেকে এসে নিজেই লাশ হলেন শাহ আলম

ছবি

নরসিংদীতে কলেজ ছাত্র নিহত

ছবি

অবসরের ৬ মাসের মধ্যে এমপিওভুক্ত শিক্ষক-কর্মচারীদেরকে ভাতা দেওয়ার নির্দেশ

৯ রোহিঙ্গাকে অনুপ্রবেশের সময় মায়ানমারে ফেরত পাঠাল বিজিবি

ছবি

নোয়াখালীতে খৎনায় ভুল, অতিরিক্ত রক্তপাতে সংকটে শিশুর স্বাস্থ্য

ছবি

রাজধানীর আকাশ মেঘলা আকাশ, কয়েকটি স্থানে বৃষ্টির পূর্বাভাস

ছবি

রাজবাড়ীর শহীদ মিনারে বেদির ফুল নি‌য়ে যাওয়ার ভি‌ডিও ধারণ, সাংবাদিককে মারধর

ছবি

রাজবাড়ীর শহীদ মিনারে বেদির ফুল নি‌য়ে যাওয়ার ভি‌ডিও ধারণ, সাংবাদিককে মারধর

ছবি

গাজীপুরে নিখোঁজ মাদ্রাসা ছাত্রের লাশ উদ্ধার

ছবি

বারি’তে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উদযাপিত হয়েছে

ছবি

শহীদ মিনার থেকে ফুল দিয়ে ফেরার পথে যুবলীগ নেতাকে কুপিয়ে হত্যা

ছবি

১ কোটি ৬০ লাখ টাকা মূল্যের সোনাসহ এক যাত্রী আটক

ছবি

গাজীপুরে নদী থেকে নিখোঁজ মাদরাসা ছাত্রের লাশ উদ্ধার

ছবি

বরিশালে নিজের ফাঁদে প্রাণ গেল কৃষকের

দুই মেয়েকে বিষ পান করিয়ে মায়েরও বিষ পান, মায়ের মৃত্যু

ছবি

পর্যটকবাহী বাস-পিকআপ সংঘর্ষে দুই নারী নিহত, আহত ১৫

ছবি

টেকনাফ সীমান্তে ফের গোলাগুলির শব্দ, আতঙ্কে সাধারণ মানুষ

ছবি

ফুল দেয়া নিয়ে মৌলভীবাজারে শহীদ মিনারে বাক-বিতন্ডা

ছবি

বারি ও মদিনা টেক এর মধ্যে সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর

ছবি

গাজীপু‌রে সোয়া লাখ পিস ইয়াব উদ্ধার, আটক ৪ মাদক কারবারী

ছবি

গাজীপুরে কারখানা শ্রমিকদের মাঝে নিত্যপণ্য সামগ্রী বিতরণ

ছবি

নওগাঁয় ভয়াবহ ‘প্রক্সিকাণ্ড’ ৫৯ দাখিল পরীক্ষার্থীই ভুয়া

ছবি

অস্ত্রসহ পালিয়ে আসা রোহিঙ্গারা গুরুত্বপূর্ণ তথ্য দিয়েছে : পুলিশ

ছবি

উপজেলা নির্বাচনে জামানত ‘বহুগুণ’ বাড়াতে চায় ইসি

ছবি

নগরীর সমস্যা নিয়ে পোস্টার: কবি ও গ্রাফিক ডিজাইনার শামীম কারাগারে

ছবি

চাঁপাইনবাবগঞ্জে স্কুলছাত্র হত্যায় দুজনের যাবজ্জীবন

ছবি

দাখিল পরীক্ষা দিচ্ছিল অন্যের হয়ে, নওগাঁয় ৫৯ জন আটক

ছবি

কক্সবাজারের সুগন্ধ্যা বীচের নতুন নাম ‘বঙ্গবন্ধু বীচ’

ছবি

গাইবান্ধার ডিসিকে প্রত্যাহারের দাবিতে মানববন্ধন, না মানলে বৃহত্তর কর্মসুচি

ছবি

হত্যার ১৪ বছর পর ৫ জনের মৃত্যুদণ্ড

ছবি

ঢাকা-কক্সবাজার রুটে ‘বিশেষ ট্রেন’

মোল্লাহাটে আধিপত্য বিস্তার নিয়ে দুই গ্রুপে সংঘর্ষ, নিহত ১, পুলিশসহ আহত ২৮

শরীয়তপুরে ধুতুরাপাতা খেয়ে নারী ও শিশুসহ একই পরিবারের ৬ জন অসুস্থ, দুজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক

ছবি

মিরপুরে ঝিলপাড় বস্তিতে আগুন, নিয়ন্ত্রণে ৮ ইউনিট

ছবি

জয়পুরহাটে হত্যা মামলায় মা-ছেলেসহ পাঁচজনের মৃত্যুদণ্ড

ছবি

ঢাকা-কক্সবাজার পথে পাঁচ দিনে ৫ ‘বিশেষ ট্রেন’

tab

সারাদেশ

টানা বৃষ্টি, কমবে তাপমাত্রা, বাড়বে শীত

সংবাদ অনলাইন রিপোর্ট

দিনভর বৃষ্টি, দুর্ভোগে রাজধানীবাসী। এই অবস্থায় ন্যায্যমূল্যে পণ্য কিনতে বৃষ্টিতে ভিজে টিসিবির ট্রাকের পেছনে দীর্ঘ অপেক্ষা। বৃহস্পতিবার শান্তিনগর থেকে তোলা -সোহরাব আলম

বৃহস্পতিবার, ০৭ ডিসেম্বর ২০২৩

গত বুধবার রাত থেকে শুরু হয়েছে বৃষ্টি। বৃহস্পতিবার (৭ ডিসেম্বর) দিনভর বৃষ্টির পরও থামার লক্ষণ ছিল না, টিপটিপ করে ঝরছে তা দিনভর। ঢাকাসহ প্রায় সারাদেশেই চলছে গুঁড়িগুঁড়ি বৃষ্টি, আবার কোথাও হচ্ছে হালকা থেকে মাঝারি ধরনের বৃষ্টিও হয়েছে। ঘূর্ণিঝড় মিগজাউমের প্রভাবে সারাদেশে বৃষ্টি ঝরছে, থেকে থেকে বয়ে যাচ্ছে ঠান্ডা বাতাস। লঘুচাপটি দুর্বল হয়ে ভারতের উত্তর অন্ধ্র প্রদেশ ও এর আশে পাশের এলাকায় অবস্থান করছে।

বিশেষজ্ঞদের মত, আগামীকাল শুক্রবার সকাল থেকে বা একটু বেলা বাড়লেই বৃষ্টি বন্ধ হয়ে আবহাওয়া পরিস্থিতির উন্নতি হবে। বর্তমানে এটি গুরুত্বহীন মনে করছে আবহাওয়া অধিদপ্তর।

আবহাওয়া অধিদপ্তর জানিয়েছে, রাজশাহী, পাবনা, রংপুর, বগুড়া, টাঙ্গাইল, ময়মনসিংহ, ঢাকা, ফরিদপুর, যশোর, কুষ্টিয়া, খুলনা, বরিশাল, পটুয়াখালী, নোয়াখালী, কুমিল্লা, সিলেট ও চট্টগ্রাম অঞ্চলের ওপর দিয়ে পূর্ব-দক্ষিণপূর্ব দিক থেকে ঘণ্টায় ৪৫-৬০ কিলোমিটার বেগে অস্থায়ীভাবে ঝড়ো হাওয়া বয়ে যেতে পারে।

তারা আরও জানায়, ঘূর্ণিঝড় মিগজাউমের প্রভাবে আকাশে যে সঞ্চারণশীল মেঘের সৃষ্টি হয়েছিল তারই প্রভাবে এই বৃষ্টি হচ্ছে। শুক্রবার (আজ) বৃষ্টি কিছুটা কমে আসতে পারে। অধিদপ্তরের পক্ষ থেকে তাপমাত্রা ২ থেকে ৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস কমে যাওয়ার কথাও বলা হয়েছে।

এদিকে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে দমকা হাওয়াসহ বৃষ্টির কারণে নদীবন্দর গুলোকে ১ নম্বর সতর্ক সংকেত আগের মতোই দেখাতে বলা হয়েছে।

তবে আকাশ মেঘলা থাকবে। টানা বৃষ্টির কারণে কমবে দিন ও রাতের তাপমাত্রা। বৃহস্পতিবার অধিদপ্তরের আবহাওয়াবিদ ড. মুহাম্মদ আবুল কালাম মল্লিক বলেন, ‘আগামীকাল (আজ) সকালের মধ্যে তাপমাত্রা দুই থেকে তিন ডিগ্রি সেলসিয়াস হ্রাস পেতে পারে। সকাল ৯টা থেকে পরবর্তী ২৪ ঘণ্টায় কেবল রাতের তাপমাত্রা কমে যেতে পারে এক থেকে দুই ডিগ্রি সেলসিয়াস পর্যন্ত।’

তবে, আগামী ১০ ডিসেম্বর থেকে ক্রমান্বয়ে তাপমাত্রা ‘কমতে শুরু করবে’ বলে জানান এই আবহাওয়াবিদ।

তিনি বলেন,‘আমরা মনে করছি, তাপমাত্রা কমতে কমতে চলতি মাসে একবার অথবা দুবার দেশের কোথাও কোথাও তাপমাত্রা ১০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের নিচে নেমে যেতে পারে। এটি ডিসেম্বরের শেষ ভাগে হওয়ার সম্ভাবনা বেশি।’

আবহাওয়া দপ্তরের আবহাওয়াবিদ আবদুর রহমান জানান, এই বৃষ্টির ধারা আগামীকাল (আজ) সারাদেশে বর্ষিত হবে। শনিবার থেকে বৃষ্টি কমে আসবে। সম্ভবত রোববার থেকে মেঘ কেটে মুখ দেখাবে সূর্য। ধরণি রোদের স্পর্শ পেলেও শুরু হবে শীতের প্রভাব। তাপমাত্রা ২ থেকে ৩ ডিগ্রি কমে যাবে। বৃষ্টির সম্ভাবনা তারপর আপাতত নেই। তাপমাত্রা ক্রমেই কমতে কমতে জেঁকে বসবে শীত।

মাসের শেষ ভাগে ‘শৈত্যপ্রবাহ’

সাধারণত জুন-জুলাই মাসে প্রচুর বৃষ্টি হয়। এবার বাংলাদেশে এই দুই মাসে বৃষ্টির পরিমাণ ছিল তুলনামূলক কম। অক্টোবর-নভেম্বরের বেশি বৃষ্টি হয়েছে। অধিদপ্তরের তথ্য বিশ্লেষণে দেখা যায়, অক্টোবরে সারাদেশে স্বাভাবিকের চেয়ে ৩৫ দশমিক এক শতাংশ বেশি বৃষ্টি হয়েছিল। নভেম্বরে চার বিভাগে বৃষ্টি বেশি হওয়ায় সার্বিকভাবে সারাদেশে স্বাভাবিকের চেয়ে ৬৫ দশমিক আট শতাংশ বেশি বৃষ্টি হয়েছে।

বর্ষার অস্বাভাবিক আচরণে এবার শীত প্রায় স্থিতিশীল থাকবে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা। আবহাওয়াবিদ মো. বজলুর রশিদ বলেন, ‘এবার শুরু থেকেই বর্ষার আচরণ আনইউজুয়াল। সেই কারণে আমরা মনে করছি, শীত যেমন পড়ার কথা তেমন পড়বে না। তাপমাত্রা কিছুটা বেশি থাকবে।’

এবার শীত খানিকটা দেরিতেই আসছে। কেন? আবদুর রহমান জানান, কারণ এই শক্তিশালী মিগজাউম। ঘূর্ণিঝড় মিগজাউমের প্রভাবেই আবহাওয়ায় শীতের প্রভাব কম পড়েছে। এখন ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাব কমতে কমতে শেষ হয়ে যাবে এবং প্রবল হয়ে উঠবে শীত।

আবহাওয়া অধিদপ্তর তাদের দীর্ঘ মেয়াদি পূর্বাভাসে জানিয়েছে, চলতি মাসের শেষ ভাগেই কোথাও কোথাও মাঝারি ধরনের শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যেতে পারে। অর্থাৎ তাপমাত্রা ছয় থেকে আট ডিগ্রি সেলসিয়াসের মধ্যে থাকতে পারে। আবুল কালাম মল্লিক বলেন, ‘ডিসেম্বরে দিন ও রাতের তাপমাত্রা স্বাভাবিকের চেয়ে কিছুটা বেশি থাকবে।’

‘মিগজাউম’ নামটি মায়ানমারের দেয়া। এটি একটি বর্মি শব্দ। গত ২৯ নভেম্বর দক্ষিণ আন্দামান সাগরে একটি লঘুচাপের সৃষ্টি হয়েছিল। সেটি ক্রমেই ঘনীভূত হয়ে ২ ডিসেম্বর নিম্নচাপে এবং পরের দিন ৩ ডিসেম্বর গভীর নিম্নচাপে রূপ নিয়ে দক্ষিণ বঙ্গোপসাগর ও এর সংলগ্ন এলাকায় ধেয়ে আসে। রূপ নেয় মিগজাউম নামের ঘূর্ণিঝড়ে। ঘূর্ণিঝড়টি এখন দুর্বল হয়ে পড়েছে। আবহাওয়া বিভাগ বলছে, মিগজাউম এখন ভারতের উত্তর অন্ধ্র প্রদেশের দিকে সরে গেছে। আর গুরুত্বহীন হয়ে পড়েছে। তবে তার প্রভাব যে একেবারে কাটেনি, তার প্রমাণ মিলছে এই মেঘ-বৃষ্টিতে।

বৃষ্টিতে রাজধানীতে যানজট-ভোগান্তি, রিকশা সিএনজির ভাড়া দ্বিগুণ

বৃহস্পতিবার ভোর থেকে রাজধানীতে পড়ছে গুঁড়িগুঁড়ি বৃষ্টির কারণে নগরবাসীর জীবনে বাড়তি দুর্ভোগ যোগ হয়েছে। এসব কারণে সবচেয়ে বেশি ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে অফিসমুখী লোকজন ও স্কুলগামী শিক্ষার্থীদের। অবরোধের কারণেও রাজধানীর কিছু পয়েন্টে যানজট দেখা গেছে। রাজধানীর বাংলামোটর, শাহবাগ, সায়েন্স ল্যাব, বিজয় সরণি ও আসাদগেট পয়েন্টে বাড়তি যানবাহনের চাপ দেখা গেছে। এসব রাস্তায় চলাচল করা যাত্রীদের যানজট ঠেলে বৃষ্টিতে কাঁকভেজা হয়ে গন্তব্যে পৌঁছাতে হয়েছে।

কল্যাণপুর থেকে মৎস্য ভবন আসা তরিকুল সুমন বলেন, বৃষ্টির জন্য কিছু জায়গায় গাড়ি চলেছে ধীরগতিতে। যখন সাইন্স ল্যাবে আধা ঘণ্টা বসে থাকতে হয়েছে। একারণে সাহাবাগে ঢুকতে দীর্ঘ সময় লেগেছে।

এছাড়া বৃষ্টিতে যারা রিকশায় চড়ে কিংবা ছাতা মাথায় দিয়ে হেঁটে গন্তব্যে রওনা দিয়েছেন তাদেরও ভোগান্তির কমতি নেই। বৃষ্টিতে সিএনজি, রিকশায় অতিরিক্ত ভাড়া গুনতে হয়েছে। শাহবাগ থেকে নিউমার্কেট যাবেন লুবনা ইসলাম। এই পথে ভাড়া সর্বোচ্চ ৪০ টাকা হলেও আজ নিচ্ছে ৭০ থেকে ১০০ টাকা। তিনি বলেন, ‘একটু বৃষ্টি হলেই ভোগান্তি আমাদের। কিছু রিকশাচালক, সিএনজিচালক পেয়ে বসে। অতিরিক্ত ভাড়া নেয়।’

প্রতিদিন ধানমন্ডি থেকে কারওয়ান বাজার রিকশায় যাতায়াত করেন লোপা রহমান। তিনি জানান, স্বাভাবিক সময়ে ভাড়া ১০০ টাকা হলেও আজ দ্বিগুণ ভাড়া ২০০ টাকা দিয়ে এসেছেন।

অন্যদিকে আশপাশে যাত্রী তুলছে না রিকশা চালকরা। একটু দূরের লোকজন ছাড়া যাত্রী তুলতে চাইছেন না তারা। কারণ হিসেবে তারা বলছেন, দূরের ভাড়া বেশি, তাই পরিবহন সংকট থাকাকালীন কাছের যাত্রী না তুলে তার দূরের যাত্রী নিচ্ছেন।

এ বিষয়ে রিকশাচালক সবুজ মিয়া সংবাদকে বলেন, ‘অবরোধ আর বৃষ্টির কারণে সকাল থেকে সড়কে বাস অল্প। দলে দলে যাত্রীরা রাস্তায় দাঁড়িয়ে আছে, কিন্তু বাস পাচ্ছে না। তাই সবাই রিকশাতেই যাচ্ছে। এ সুযোগে আমরাও দূরের যাত্রী নিচ্ছি, কারণ দূরে ভাড়া বেশি।’

সড়কে বাড়তি যানবাহনের চাপ নিয়ে দায়িত্বরত ট্রাফিক কর্মকর্তা নিউটন বলেন, বৃষ্টির জন্য দুপুরের দিকে সড়কে যানবাহনের কিছুটা চাপ ছিল। দুপুরে যানজট থাকলেও এখন তেমন গাড়ির চাপ নেই। বৃষ্টির জন্য কিছু কিছু জায়গায় গাড়ি ধীরগতি হয়েছে।

back to top