alt

সারাদেশ

বান্দরবানে গুলি, পাল্টা গুলিতে পাহাড়ে বসবাসরতরা নিরাপত্তা হুমকিতে

বাকী বিল্লাহ : শনিবার, ২৫ মে ২০২৪

বান্দরবানের দুর্গম পাহাড়ে সন্ত্রাসী গোষ্ঠীর সদস্যদেরকে ধরতে পুলিশ দুর্গম অঞ্চলে ক্যাম্প স্থাপন করে অভিযান চালাচ্ছে। অভিযানের সময় সন্ত্রাসী গোষ্ঠীগুলো পুলিশের ক্যাম্পে অতর্কিত গুলি করছে। হামলা ঠেকাতে পুলিশও পাল্টা গুলি করছে। রাত আড়াইটা থেকে ভোর পর্যন্ত এসব তা-ব চলে। গুলি, পাল্টা গুলির কারণে পাহাড়ে বসবাসরত সাধারণ মানুষ নিরাপত্তা হুমকিতে আছে। এই অবস্থায় নিরাপরাধ মানুষকে বাঁচাতে তাবু খাটিয়ে অস্ত্র তাক করে সশস্ত্র পাহারা দিচ্ছেন। সেই পাহারার ওপর পাহাড়ের গুহা থেকে অতর্কিত গুলি চালানোর ঘটনা ঘটছে।

https://sangbad.net.bd/images/2024/May/25May24/news/bandarban-1.jpg

পুলিশ ও স্থানীয়ভাবে প্রাপ্ত তথ্য মতে, স্থানীয় সন্ত্রাসীদের অপরাধ ঠেকাতে অন্যান্য আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য ছাড়াও ২-আমর্ড পুলিশ ব্যাটালিয়নের (এপিবিএন-২) টিমের প্রায় ৬শ সদস্য দুর্গম অঞ্চলে অস্থায়ী ক্যাম্প স্থাপন করে অবস্থান নিয়ে অভিযান চালাচ্ছে। তারা এলাকার ছোটখাট অপরাধী থেকে শুরু করে কুকিচিন ন্যাশনাল ফ্রন্ট (কেএনএফ) সশস্ত্র সন্ত্রাসীদের তা-ব ঠেকাতে কাজ করছেন।

ইতোমধ্যে নানা অপরাধে জড়িত থাকার অভিযোগে ১শর বেশি অভিযুক্তকে আটক করা হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে মামলাও দায়ের করা হয়েছে। তাদের কাছ থেকে নানা আলামত জব্দ করা হয়েছে। এপিবিএন-২ অভিযান অব্যাহত আছে।

২-এপিবিএনের অধিনায়ক (অতিরিক্ত ডিআইজি) আলী আহমদ খান জানান, এপিবিএন-২ টিম বান্দরবানের মেঘলার দায়িত্বরত সাইবার ক্রাইম সেলের সদস্যরা ফেসবুক পেজসহ বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে জিডির সূত্র ধরে সম্প্রতি ২৩৫টি মোবাইল ফোন সেট উদ্ধার করছে। এসব মোবাইল ফোন সেট বিভিন্ন সময় অপরাধীরা ছিনতাই, ছুরি ও থাবা পার্টির আদলে ছিনিয়ে নিয়ে গেছে। উদ্ধারকৃত মোবাইল ফোন সেটগুলো পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

সূত্র মতে, বান্দরবানের সাইবার ক্রাইম সেল, সাইবার ক্রাইম টিম ইতোমধ্যে ৭টি অভিযান পরিচালনা করে ৯ জনকে আটক করা হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে ৭টি নিয়মিত মামলা দায়ের করা হয়েছে। তাদের কাছ থেকে জুয়া খেলায় ব্যবহৃত ১২টি জুয়া আইডি জব্দ করেছে।

বান্দরবানের মেঘলা এলাকায় সম্প্রতি এপিবিএন ৬০টি সফল অভিযানে ২ কেজি আফিম, ইয়াবার চালানসহ অন্যান্য আলামত নিয়ে মোট ৯৮ জনকে গ্রেপ্তার করেছে। তাদের বিরুদ্ধে ৬০টি মামলাও দায়ের করা হয়েছে।

এপিবিএনের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, পার্বত্য অঞ্চলের আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় এবং কেএনএফের সশস্ত্র সন্ত্রাসী গোষ্ঠী কর্তৃক বান্দরবানে ব্যাংক ডাকাতি, অপহরণসহ অপরাধমূলক কর্মকা-ের ফলে পার্বত্য অঞ্চলের অস্থিতিশীল পরিবেশ সৃষ্টি করে।

শুধু তাই না তারা পাহাড়ে বসবাসরত মানুষের নিরাপত্তা হুমকির মধ্যে পড়েছে এ অবস্থায় পার্বত্য জেলার আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় ২ এপিবিএনের টিম, মেঘলা, চিহ্নিত ঝুঁকিপূর্ণ এলাকা পর্যায়ক্রমে রুমা, বেথেলপাড়া, অন্যান্য আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সঙ্গে যৌথ ক্যাম্প করে নিরাপত্তা দিচ্ছেন। ক্যাম্পগুলোতে মোট ৪শ সদস্যসহ ৬শ সদস্য ক্যাম্প স্থাপন করে ওইসব অঞ্চলে আইনশৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণ করছে।

https://sangbad.net.bd/images/2024/May/25May24/news/bandarban-2.jpg

কেএনএফের হামলার জবাবে পাল্টা হামলা গুলি বর্ষণ ঃ বান্দরবানের বোয়াংছড়ি থেকে ২৫ কিলোমিটার গহীন দুর্গম এলাকায় সদর ইউনিয়নের ৬নং ওয়ার্ডস্থ পাইক্ষ্যাংপাড়া ও দেবতাপাড়ার মাঝামাঝি স্থানে কেএনএফের সদস্যরা যৌথবাহিনীর টহলের ওপর সম্প্রতি অতর্কিত গুলি বর্ষণ করে। তখন এপিবিএন ও সেনাবাহিনীর টিম পাল্টা গুলি বর্ষণ করেছে। গত ২ মে দুপুর সোয়া ২টার দিকে এই ঘটনা ঘটেছে। উক্ত ঘটনায় পুলিশের ৪ সদস্য মিলে ২৪ রউন্ড গুলি করছে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, গত ৩ মে রাত আড়াইটার দিকে বান্দরবানের বোয়াংছড়ি উপজেলার পাইক্ষ্যংপাড়া এপিবিএন পুলিশের অস্থায়ী ক্যাম্পের তাবুতে পাহাড়ি সশস্ত্র সন্ত্রাসী গ্রুপ কেএনএফ কাঁটা পাহাড়ের ওপর থেকে অতর্কিত গুলি বর্ষণ করলে, পুলিশ সদস্যরা সরকারি সম্পদ রক্ষায় কেএনএফ সদস্যদেরকে লক্ষ্য করে পাল্টা গুলি বর্ষণ করে। প্রথমে কেএনএফ পিছু হটলেও ভোর ৪টা ১০ মিনিটের সময় কেএনএফের সদস্যরা আবার আক্রমণ করে। তখন পুলিশ পাল্টা আক্রমণ করলে তারা পিছু হটতে বাধ্য হয়। ওই দিন এপিবিএনের ৩ সদস্য মিলে ৩৬ রাউন্ড গুলি করছে। দুই দফায় আক্রমণে ও পাল্টা প্রতিরোধে ৬০ রাউন্ড গুলি চালানো হয়েছে।

আমাদের বান্দরবান প্রতিনিধি জানিয়েছেন, বান্দরবানে যৌথ বাহিনীর টানা অভিযানে কুকিচিন ন্যাশনাল ফ্রন্টের (কেএনএফ) মোট সাত সদস্য নিহত হয়েছে। অভিযান চলাকালে কেএনএফের ২৫ নারীসহ মোট ৮৭ জনকে গ্রেপ্তার করে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে।

সর্বশেষ গত রোববার রুমায় যৌথবাহিনীর সঙ্গে বন্দুকযুদ্বে কুকিচিন ন্যাশনাল ফ্রন্টের (কেএনএফ) তিনজন সদস্য নিহত হয়েছে। ওই সময় তাদের আস্তানা থেকে আগ্নেয়াস্ত্র, গোলাবারুদ ও সরঞ্জাম উদ্ধার করা হয়েছে।

স্থানীয় সূত্র জানায়, জেলার রুমা ও বোয়াংছড়ি উপজেলার সীমান্তবর্তী ডেবাছড়া এলাকায় পাহাড়ে সশস্ত্র সংগঠন কুকিচিন ন্যাশনাল ফ্রণ্ট (কেএনএফ) আস্তানায় যৌথ বাহিনী অভিযান চালায়। তখন কেএনএফের সশস্ত্র সন্ত্রাসীদের সঙ্গে যৌথবাহিনীর গোলাগুলি হয়। থেমে থেমে কয়েক দফা গোলাগুলির ঘটনায় কেএনএফের ৩ সশস্ত্র সদস্য নিহত হয়। তাদের মধ্যে দুইজন ঘটনাস্থলে এবং একজন আহত অবস্থায় মারা যান।

https://sangbad.net.bd/images/2024/May/25May24/news/bandarban-3.jpg

ঘটনাস্থল থেকে নিহতদের লাশ যৌথ বাহিনীর সদস্যরা রুমা সদরে নিয়ে যান। আর গোলাগুলির পর কেএনএফের অন্য সদস্যরা আস্তানা ছেড়ে পাহাড়ের দিতে পালিয়ে যান।

যৌথবাহিনীর একজন কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করা শর্তে জানান, বান্দরবানে যৌথ বাহিনীর একের পর এক অভিযানে কেএনএফ সদস্যরা কোনঠাসা হয়ে পড়েছে। সম্প্রতি রুমার কেএনএফের ৩ সদস্য নিহত হওয়ার পর সেখানে এখনো যৌথবাহিনীর তৎপরতা চলছে। এলাকাজুড়ে পরিস্থিতি থম থমে অবস্থা বিরাজ করছে।

উল্লেখ্য গত ৭ই মে রুমা উপজেলার দুর্গম দার্জিলিং পাড়ায় যৌথবাহিনীর সঙ্গে গোলাগুলিতে কেএনএফের ১ জন সশস্ত্র সন্ত্রাসীর মৃত্যু হয়। এর আগে গত ২৮ এপ্রিল রুমা উপজেলার রেমাক্রী প্রাংসা ইউনিয়নের জঙ্গলে যৌথবাহিনীর সঙ্গে কেএনএফের গোলাগুলিতে ২ জন সশস্ত্র সন্ত্রাসীর মৃত্যু হয়েছে।

গত ২২ এপ্রিল রুমার দুর্গম মুনলাই পাড়ায় সেনাবাহিনীর সঙ্গে গোলাগুলিতে কেএনএফের ১ জন সশস্ত্র সদস্য মারা যায়। ওই সময় ঘটনাস্থল থেকে কেএনএফের বিপুল পরিমাণ অস্ত্র-বারুদ ও সরঞ্জাম উদ্ধার করা হয়।

উল্লেখ্য রুমা ও থানচিতে ব্যাংক ডাকাতি, হামলা, আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ১৪টি অস্ত্র লুট, ব্যাংকের অর্থ ও ব্যাংক ম্যানেজারকে অপহরণের ঘটনায় ৯টি মামলা দায়ের করা হয়েছে। তার মধ্যে থানচিতে ৪টি ও রুমায় ৫টি। এসব মামলায় জড়িত থাকার অভিযোগে ৮৭ জনকে গ্রেপ্তার করে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে। এদের মধ্যে ২৫ জন নারী। এখনো বান্দরবানে গভীর জঙ্গল ও পাহাড় এলাকায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর তৎপরতা অব্যাহত আছে।

ছবি

সুনামগঞ্জে ঈদের আনন্দ মলিন হয়ে গেছে আকস্মিক বন্যায়

ঈশ্বরগঞ্জে ঈদ আনন্দ উপভোগ করা হলনা চাচা ভাতিজার

সখীপুরে গৃহবধূ নিখোঁজের পর পুকুর থেকে লাশ উদ্ধার

দুই ভাইয়ের চিরদিনের ছুটি

সিলেটে তিন নদীর পানি বিপৎসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে

ছবি

ঘড়ি ছাড়াই হাতের দিকে তাকিয়েই সময় বলে দেন ইয়াছিন!

নড়াইলে এবারও ঈদ করতে পারছেন না ২০০ পরিবার,আজাদ হত্যা মামলা নিয়ে উত্তেজনা

ছবি

রংপুরে ঈদ উপলক্ষে বরাদ্দ চাল কালোবাজারে বিক্রি,৪ হাজার কেজি ভিজিএফের চাল উদ্ধার

ছবি

রংপুরে ১৫ কিলোমিটার যানজট, যাত্রীদের চরম দূর্ভোগ

ছবি

বরিশাল জেলাকে ভূমিহীন ও গৃহহীন ঘোষণা

ছবি

তিস্তার নিম্নাঞ্চল প্লাবিত, ডুবেছে ফসলি জমি

ছবি

ঈদের দিন ৩ বিভাগে ভারী বৃষ্টির আভাস

রাঙ্গামাটিতে বজ্রপাতে চারজনের মৃত্যু

চাঁদাবাজির অভিয়োগে ৫ পুলিশ সদস্য বরখাস্ত

ছবি

বাড়তি ভাড়ায় ফিটনেসবিহীন লঞ্চে দ্বিগুণ যাত্রী পারাপার

ছবি

জেলা প্রশাসনের তত্ত্বাবধানে খুলে দেওয়া হলো বেনজীরের সাভানা পার্ক

ছবি

সেন্ট মার্টিনে ২৩০০ পরিবারকে চাল সহায়তা

ফরিদপুরে পুলিশের কাছে চাঁদা বন্ধের আবেদন বরলো ইউপি চেয়ারম্যান

সোনারগাঁয়ে গরু বিক্রেতাদের মেরে নগদ টাকা মোবাইল ও গরু ছিনতাই, আহত ৫

ছবি

দেশকে রক্ষার সক্ষমতা আছে: সেনাপ্রধান

ছবি

নাফনদীতে মায়ানমারের ৩টি জাহাজ, নেই কোনো বিস্ফোরণের শব্দ

ছবি

বরিশালে অটোরিকশা-ইজিবাইক মুখোমুখি সংঘর্ষে নারী নিহত

শেষ সময়ে ঈদে বাড়ি যেতে ঘরমুখো মানুষের ভিড় বেড়েছে সড়ক মহাসড়কে

ছবি

বনানীতে বাসের ধাক্কায় বাইকচালক নিহত

ছবি

কাভার্ডভ্যানের পেছনে লিচুবাহী ট্রাকের ধাক্কা, নিহত ২

ছবি

সামিট-ওরিয়নের দুটিসহ রেন্টাল ৬ বিদ্যুৎকেন্দ্রের মেয়াদ ফের বাড়ছে

ছবি

ট্রেনের টিকিট কালোবাজারি: র‌্যাবের অভিযানে ১০ জনকে গ্রেপ্তার

ফরিদপুরে পুকুর থেকে শিশুর লাশ উদ্ধার

ছবি

নিত্যপণ্য নিয়ে কক্সবাজার থেকে সেন্টমার্টিন যাচ্ছে জাহাজ

ছবি

রোহিঙ্গা ক্যাম্প থেকে অস্ত্র ও গুলিসহ আরসা সন্ত্রাসী গ্রেপ্তার

ছবি

গাজীপুরে পুকুরে ডুবে দুই মাদ্রাসা শিক্ষার্থীর মৃত্যু

ছবি

বেতন-বোনাসের দাবিতে কুমিল্লায় শ্রমিক বিক্ষোভ, ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে ধীরগতি

ছবি

টাঙ্গাইলে মহাসড়‌কে ট্রাক উল্টে ১৫ কিলোমিটার যানজট

ছবি

মাদকের টাকার জন্য ছোট ভাইয়ের সঙ্গে ঝগড়া, নিজের বুকে ছুরি চালাল কিশোর

ছবি

দুম্বা পালন করে স্বাবলম্বী ভৈরবের সবুজ

আখাউড়া স্থলবন্দর দিয়ে প্রথমবার জিরা আমদানি

tab

সারাদেশ

বান্দরবানে গুলি, পাল্টা গুলিতে পাহাড়ে বসবাসরতরা নিরাপত্তা হুমকিতে

বাকী বিল্লাহ

শনিবার, ২৫ মে ২০২৪

বান্দরবানের দুর্গম পাহাড়ে সন্ত্রাসী গোষ্ঠীর সদস্যদেরকে ধরতে পুলিশ দুর্গম অঞ্চলে ক্যাম্প স্থাপন করে অভিযান চালাচ্ছে। অভিযানের সময় সন্ত্রাসী গোষ্ঠীগুলো পুলিশের ক্যাম্পে অতর্কিত গুলি করছে। হামলা ঠেকাতে পুলিশও পাল্টা গুলি করছে। রাত আড়াইটা থেকে ভোর পর্যন্ত এসব তা-ব চলে। গুলি, পাল্টা গুলির কারণে পাহাড়ে বসবাসরত সাধারণ মানুষ নিরাপত্তা হুমকিতে আছে। এই অবস্থায় নিরাপরাধ মানুষকে বাঁচাতে তাবু খাটিয়ে অস্ত্র তাক করে সশস্ত্র পাহারা দিচ্ছেন। সেই পাহারার ওপর পাহাড়ের গুহা থেকে অতর্কিত গুলি চালানোর ঘটনা ঘটছে।

https://sangbad.net.bd/images/2024/May/25May24/news/bandarban-1.jpg

পুলিশ ও স্থানীয়ভাবে প্রাপ্ত তথ্য মতে, স্থানীয় সন্ত্রাসীদের অপরাধ ঠেকাতে অন্যান্য আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য ছাড়াও ২-আমর্ড পুলিশ ব্যাটালিয়নের (এপিবিএন-২) টিমের প্রায় ৬শ সদস্য দুর্গম অঞ্চলে অস্থায়ী ক্যাম্প স্থাপন করে অবস্থান নিয়ে অভিযান চালাচ্ছে। তারা এলাকার ছোটখাট অপরাধী থেকে শুরু করে কুকিচিন ন্যাশনাল ফ্রন্ট (কেএনএফ) সশস্ত্র সন্ত্রাসীদের তা-ব ঠেকাতে কাজ করছেন।

ইতোমধ্যে নানা অপরাধে জড়িত থাকার অভিযোগে ১শর বেশি অভিযুক্তকে আটক করা হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে মামলাও দায়ের করা হয়েছে। তাদের কাছ থেকে নানা আলামত জব্দ করা হয়েছে। এপিবিএন-২ অভিযান অব্যাহত আছে।

২-এপিবিএনের অধিনায়ক (অতিরিক্ত ডিআইজি) আলী আহমদ খান জানান, এপিবিএন-২ টিম বান্দরবানের মেঘলার দায়িত্বরত সাইবার ক্রাইম সেলের সদস্যরা ফেসবুক পেজসহ বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে জিডির সূত্র ধরে সম্প্রতি ২৩৫টি মোবাইল ফোন সেট উদ্ধার করছে। এসব মোবাইল ফোন সেট বিভিন্ন সময় অপরাধীরা ছিনতাই, ছুরি ও থাবা পার্টির আদলে ছিনিয়ে নিয়ে গেছে। উদ্ধারকৃত মোবাইল ফোন সেটগুলো পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

সূত্র মতে, বান্দরবানের সাইবার ক্রাইম সেল, সাইবার ক্রাইম টিম ইতোমধ্যে ৭টি অভিযান পরিচালনা করে ৯ জনকে আটক করা হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে ৭টি নিয়মিত মামলা দায়ের করা হয়েছে। তাদের কাছ থেকে জুয়া খেলায় ব্যবহৃত ১২টি জুয়া আইডি জব্দ করেছে।

বান্দরবানের মেঘলা এলাকায় সম্প্রতি এপিবিএন ৬০টি সফল অভিযানে ২ কেজি আফিম, ইয়াবার চালানসহ অন্যান্য আলামত নিয়ে মোট ৯৮ জনকে গ্রেপ্তার করেছে। তাদের বিরুদ্ধে ৬০টি মামলাও দায়ের করা হয়েছে।

এপিবিএনের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, পার্বত্য অঞ্চলের আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় এবং কেএনএফের সশস্ত্র সন্ত্রাসী গোষ্ঠী কর্তৃক বান্দরবানে ব্যাংক ডাকাতি, অপহরণসহ অপরাধমূলক কর্মকা-ের ফলে পার্বত্য অঞ্চলের অস্থিতিশীল পরিবেশ সৃষ্টি করে।

শুধু তাই না তারা পাহাড়ে বসবাসরত মানুষের নিরাপত্তা হুমকির মধ্যে পড়েছে এ অবস্থায় পার্বত্য জেলার আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় ২ এপিবিএনের টিম, মেঘলা, চিহ্নিত ঝুঁকিপূর্ণ এলাকা পর্যায়ক্রমে রুমা, বেথেলপাড়া, অন্যান্য আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সঙ্গে যৌথ ক্যাম্প করে নিরাপত্তা দিচ্ছেন। ক্যাম্পগুলোতে মোট ৪শ সদস্যসহ ৬শ সদস্য ক্যাম্প স্থাপন করে ওইসব অঞ্চলে আইনশৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণ করছে।

https://sangbad.net.bd/images/2024/May/25May24/news/bandarban-2.jpg

কেএনএফের হামলার জবাবে পাল্টা হামলা গুলি বর্ষণ ঃ বান্দরবানের বোয়াংছড়ি থেকে ২৫ কিলোমিটার গহীন দুর্গম এলাকায় সদর ইউনিয়নের ৬নং ওয়ার্ডস্থ পাইক্ষ্যাংপাড়া ও দেবতাপাড়ার মাঝামাঝি স্থানে কেএনএফের সদস্যরা যৌথবাহিনীর টহলের ওপর সম্প্রতি অতর্কিত গুলি বর্ষণ করে। তখন এপিবিএন ও সেনাবাহিনীর টিম পাল্টা গুলি বর্ষণ করেছে। গত ২ মে দুপুর সোয়া ২টার দিকে এই ঘটনা ঘটেছে। উক্ত ঘটনায় পুলিশের ৪ সদস্য মিলে ২৪ রউন্ড গুলি করছে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, গত ৩ মে রাত আড়াইটার দিকে বান্দরবানের বোয়াংছড়ি উপজেলার পাইক্ষ্যংপাড়া এপিবিএন পুলিশের অস্থায়ী ক্যাম্পের তাবুতে পাহাড়ি সশস্ত্র সন্ত্রাসী গ্রুপ কেএনএফ কাঁটা পাহাড়ের ওপর থেকে অতর্কিত গুলি বর্ষণ করলে, পুলিশ সদস্যরা সরকারি সম্পদ রক্ষায় কেএনএফ সদস্যদেরকে লক্ষ্য করে পাল্টা গুলি বর্ষণ করে। প্রথমে কেএনএফ পিছু হটলেও ভোর ৪টা ১০ মিনিটের সময় কেএনএফের সদস্যরা আবার আক্রমণ করে। তখন পুলিশ পাল্টা আক্রমণ করলে তারা পিছু হটতে বাধ্য হয়। ওই দিন এপিবিএনের ৩ সদস্য মিলে ৩৬ রাউন্ড গুলি করছে। দুই দফায় আক্রমণে ও পাল্টা প্রতিরোধে ৬০ রাউন্ড গুলি চালানো হয়েছে।

আমাদের বান্দরবান প্রতিনিধি জানিয়েছেন, বান্দরবানে যৌথ বাহিনীর টানা অভিযানে কুকিচিন ন্যাশনাল ফ্রন্টের (কেএনএফ) মোট সাত সদস্য নিহত হয়েছে। অভিযান চলাকালে কেএনএফের ২৫ নারীসহ মোট ৮৭ জনকে গ্রেপ্তার করে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে।

সর্বশেষ গত রোববার রুমায় যৌথবাহিনীর সঙ্গে বন্দুকযুদ্বে কুকিচিন ন্যাশনাল ফ্রন্টের (কেএনএফ) তিনজন সদস্য নিহত হয়েছে। ওই সময় তাদের আস্তানা থেকে আগ্নেয়াস্ত্র, গোলাবারুদ ও সরঞ্জাম উদ্ধার করা হয়েছে।

স্থানীয় সূত্র জানায়, জেলার রুমা ও বোয়াংছড়ি উপজেলার সীমান্তবর্তী ডেবাছড়া এলাকায় পাহাড়ে সশস্ত্র সংগঠন কুকিচিন ন্যাশনাল ফ্রণ্ট (কেএনএফ) আস্তানায় যৌথ বাহিনী অভিযান চালায়। তখন কেএনএফের সশস্ত্র সন্ত্রাসীদের সঙ্গে যৌথবাহিনীর গোলাগুলি হয়। থেমে থেমে কয়েক দফা গোলাগুলির ঘটনায় কেএনএফের ৩ সশস্ত্র সদস্য নিহত হয়। তাদের মধ্যে দুইজন ঘটনাস্থলে এবং একজন আহত অবস্থায় মারা যান।

https://sangbad.net.bd/images/2024/May/25May24/news/bandarban-3.jpg

ঘটনাস্থল থেকে নিহতদের লাশ যৌথ বাহিনীর সদস্যরা রুমা সদরে নিয়ে যান। আর গোলাগুলির পর কেএনএফের অন্য সদস্যরা আস্তানা ছেড়ে পাহাড়ের দিতে পালিয়ে যান।

যৌথবাহিনীর একজন কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করা শর্তে জানান, বান্দরবানে যৌথ বাহিনীর একের পর এক অভিযানে কেএনএফ সদস্যরা কোনঠাসা হয়ে পড়েছে। সম্প্রতি রুমার কেএনএফের ৩ সদস্য নিহত হওয়ার পর সেখানে এখনো যৌথবাহিনীর তৎপরতা চলছে। এলাকাজুড়ে পরিস্থিতি থম থমে অবস্থা বিরাজ করছে।

উল্লেখ্য গত ৭ই মে রুমা উপজেলার দুর্গম দার্জিলিং পাড়ায় যৌথবাহিনীর সঙ্গে গোলাগুলিতে কেএনএফের ১ জন সশস্ত্র সন্ত্রাসীর মৃত্যু হয়। এর আগে গত ২৮ এপ্রিল রুমা উপজেলার রেমাক্রী প্রাংসা ইউনিয়নের জঙ্গলে যৌথবাহিনীর সঙ্গে কেএনএফের গোলাগুলিতে ২ জন সশস্ত্র সন্ত্রাসীর মৃত্যু হয়েছে।

গত ২২ এপ্রিল রুমার দুর্গম মুনলাই পাড়ায় সেনাবাহিনীর সঙ্গে গোলাগুলিতে কেএনএফের ১ জন সশস্ত্র সদস্য মারা যায়। ওই সময় ঘটনাস্থল থেকে কেএনএফের বিপুল পরিমাণ অস্ত্র-বারুদ ও সরঞ্জাম উদ্ধার করা হয়।

উল্লেখ্য রুমা ও থানচিতে ব্যাংক ডাকাতি, হামলা, আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ১৪টি অস্ত্র লুট, ব্যাংকের অর্থ ও ব্যাংক ম্যানেজারকে অপহরণের ঘটনায় ৯টি মামলা দায়ের করা হয়েছে। তার মধ্যে থানচিতে ৪টি ও রুমায় ৫টি। এসব মামলায় জড়িত থাকার অভিযোগে ৮৭ জনকে গ্রেপ্তার করে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে। এদের মধ্যে ২৫ জন নারী। এখনো বান্দরবানে গভীর জঙ্গল ও পাহাড় এলাকায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর তৎপরতা অব্যাহত আছে।

back to top