alt

বাংলাদেশ

ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট : সতর্ক বার্তা জনস্বাস্থ্যবিদদের

সংবাদ অনলাইন ডেস্ক : রোববার, ০৯ মে ২০২১
image

শ্বাসকষ্ট নিয়ে রাজধানীর বিভিন্ন হাসপাতালে করোনা আক্রান্তদের ভর্তি করা হয়। সংক্রমণ আশঙ্কা নিয়েও সতর্ক নয় সাধারণ মানুষ -সংবাদ

বাংলাদেশে করোনাভাইরাসের ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট (ধরন) ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কায় স্বাস্থ্য ব্যবস্থায় সংশ্লিষ্ট সব মহলে উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা দেখা দিয়েছে। এ সংক্রান্ত বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে পড়লে বাংলাদেশের সামগ্রিক স্বাস্থ্য ও চিকিৎসা ব্যবস্থা ভেঙে পড়তে পারে। মানুষের মৃত্যুও অস্বাভাবিক বেড়ে যেতে পারে। এ অবস্থা থেকে মুক্ত থাকতে এই মুহূর্তেই স্বাস্থ্যবিধি কঠোরভাবে মেনে চলা এবং ভারত থেকে বাংলাদেশে লোক চলাচল সম্পূর্ণ বন্ধ করার পাশাপাশি সীমান্ত এলাকায় কঠোর নজরদারি আরোপ করতে হবে বলে বিশেষজ্ঞরা জানান।

সম্প্রতি ভারতে করোনার একাধিক ভ্যারিয়েন্ট ছড়িয়ে পড়েছে। এতে সংক্রমণ এবং মৃত্যু আশঙ্কাজনকভাবে বেড়ে যাওয়ার প্রেক্ষাপটে বিশ্বব্যাপী নতুন আতংক সৃষ্টি হয়েছে। করোনার ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট অত্যন্ত দ্রুত সংক্রমিত করে এবং তাতে আক্রান্তরা দ্রুত মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েন বলে ভারত থেকে খবর পাওয়া যায়। অক্টোবরে এই ভ্যারিয়েন্ট শনাক্তের সময় ভারতে করোনা সংক্রমণ অনেকটাই নিয়ন্ত্রণে এসেছিল। এখন বিশ্বের অন্তত ১৮টি দেশে করোনার ভারতীয় ধরনটির সংক্রমণের তথ্য পাওয়া গেছে।

এ প্রেক্ষাপটে প্রতিবেশী দেশ হওয়ায় বাংলাদেশেও ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা করছিলেন স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা। এরইমধ্যে করোনার ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট বাংলাদেশেও ছড়িয়ে পড়ার খবর জানায় স্বাস্থ্য বিভাগ।

গত ৮ মে ভারত থেকে ফিরে আসা দুই বাংলাদেশির শরীরে প্রথম করোনার ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট (ধরন) শনাক্ত হয়েছে। আরও চারজনের নমুনার সঙ্গে ভারতীয় ভ্যারিয়েন্টের মিল পাওয়া গেছে। তবে শনাক্ত হওয়া ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট দুটি অধিক সংক্রামক বা প্রাণঘাতী নয় বলেও মনে করছেন অণুজীব বিজ্ঞানীরা। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা জানিয়েছেন, ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট নিয়ে তারা উদ্বিগ্ন।

এদিকে বাংলাদেশে যাতে ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট ছড়িয়ে পড়তে না পারে সেজন্য ভারতের সঙ্গে বাংলাদেশের সব সীমান্ত ১৪ দিনের জন্য বন্ধ ঘোষণা করেছে বাংলাদেশ। গত ২৬ এপ্রিল থেকে এই সিদ্ধান্ত কার্যকর হয়েছে। রোববার (৯ মে) সরকার সীমান্ত বন্ধের মেয়াদ আরও ১৪ দিন বাড়িয়েছে। তবে জরুরি পণ্যবাহী যানবাহনের যাতায়াত অব্যাহত রয়েছে। এছাড়াও ভারতে অবস্থানরত যেসব বাংলাদেশির ভিসার মেয়াদ শেষ হয়ে যাচ্ছে তারা ভারতে বাংলাদেশি দূতাবাসের বিশেষ অনুমতি নিয়ে দেশে ফিরতে পারছেন।

এখন বাংলাদেশে করোনার ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট ছড়িয়ে পড়লে কতটা বিপজ্জনক পরিস্থিতি সৃষ্টি হতে পারে এবং এটা প্রতিরোধের জন্য কী ব্যবস্থা গ্রহণ করা প্রয়োজন এ ব্যাপারে সংবাদ কথা বলেছে তিনজন জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞের সঙ্গে। তারা করোনার ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট প্রতিরোধ করতে এই মুহূর্তেই সরকারকে কঠোর অবস্থান নেয়ার পরামর্শ দিয়েছেন।

ডা. আবু জামিল ফয়সাল বলেন, ‘ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট যদি বাংলাদেশে ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে পড়ে তবে গভীর সংকট তৈরি হবে। পুরো পরিস্থিতি চরম বিপজ্জনক হয়ে পড়বে। পুরো স্বাস্থ্য ব্যবস্থাই ভেঙে পড়তে পারে। সে অবস্থা যাতে না হয় সেজন্য আমাদের কঠোর অবস্থান গ্রহণ করতে হবে। প্রথমত করোনার জন্য যে স্বাস্থ্যবিধি জারি করা হয়েছে তা কঠোরভাবে পালন করতে হবে। সরকারের জারি করা স্বাস্থ্যবিধিতে অবশ্য পালনীয় সব নিয়মÑ মাস্ক পরা, সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখাসহ সব বলা আছে। একই সঙ্গে ভারত থেকে কারও বাংলাদেশে প্রবেশ বন্ধ করতে হবে। এই পুরো প্রক্রিয়া কঠোরভাবে মনিটর করতে হবে। তবেই সম্ভব হয়ে ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট থেকে রক্ষা পাওয়া।’

ডা. বেনজির আহমদ বলেন, ‘বাংলাদেশে করোনার ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট ছড়িয়ে পড়ছে এটা অত্যন্ত আশঙ্কার বিষয়। ভারতে এ করোনাভাইরাস ব্যাপকভাবে সংক্রমণ এবং প্রাণঘাতী হয়েছে। সে অবস্থা আমাদের দেশেও হতে পারে। যদি বাংলাদেশে ভারতের মতো অবস্থা সৃষ্টি হয় তবে তা চরম বিপদ ডেকে আনবে, আমাদের পক্ষে সামাল দেয়া সম্ভব হবে না।’

‘এখন আমাদের যে কাজটি অত্যন্ত দ্রুত এবং সঠিকভাবে করতে হবে তা হলো, ভারতের সঙ্গে সব সীমান্ত বন্ধ করে দেয়া, যা ইতোমধ্যে করা হয়েছে কিন্তু তা কতটা ঠিকভাবে হচ্ছে তা মনিটর করতে হবে। কোনভাবেই কেউ যাতে ঢুকতে না পারে এবং কোন কারণে কেউ ঢুকলে তাকে অবশ্যই ১৪ দিন আইসোলেশনে রেখে চিকিৎসা দিতে হবে। এতে কোন শৈথিল্য দেখানো যাবে না। সীমান্তবর্তী যেসব জেলায় ভারত থেকে গোপনে লোক চলাচল হতে পারে সেসব এলাকায় কঠোর লকডাউন জারি করতে হবে।’

‘অন্যদিকে হাসপাতালে চিকিৎসার সব ব্যবস্থা, আইসিইউ এবং অক্সিজেন প্রস্তুত রাখতে হবে, যাতে আক্রান্তকে পর্যাপ্ত চিকিৎসা দেয়া সম্ভব হয়। তার চেয়ে বড় কথা দেশের স্বার্থে, নিজের স্বার্থে পুরো বিষয়টি অত্যন্ত গুরুত্ব দিয়ে পালন করার মনমানসিকতা সৃষ্টি করতে হবে,’ সতর্ক করেন ডা. বেনজির।

জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ ডা. লেলিন চৌধুরী বলেন, ‘ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট অনেক দ্রুত ছড়ায় এবং বেশি প্রাণঘাতী। যদি সে ভ্যারিয়েন্ট বাংলাদেশে ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে পরে তবে চরম বিপদ নেমে আসবে। সেটা সামাল দেয়া আমাদের দেশের চিকিৎসা ব্যবস্থায় সামাল দেয়া সম্ভব নয় বলেই সবাই মনে করেন। ফলে ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট যাতে ছড়িয়ে পড়তে না পারে তার চেষ্টা একদিকে সরকার অন্যদিকে দেশের মানুষকে ঐকবদ্ধভাবে চেষ্টা করতে হবে। এর কোন বিকল্প নেই।’

‘এখন প্রশ্ন হচ্ছে ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট থেকে রক্ষা পেতে আমাদের কী ব্যবস্থা নেয়া দরকার। এর উত্তর হচ্ছে, আমাদের অবশ্যই ভারত থেকে লোকজনের আসা বন্ধ করতে হবে। যেসব এলাকায় ভারত থেকে লোজনের আসা-যাওয়া বেশি সেসব এলাকায় জরিপ করতে হবে। কোন রোগী পাওয়া গেলে সম্পূর্ণ লকডাউন করতে হবে। অন্যদিতে দেশের সব মানুষকে টিকা দেয়া এবং চিকিৎসা ব্যবস্থা জোরদার করতে হবে। তবেই ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট থেকে রক্ষা পাওয়া সম্ভব হতে পারে,’ বলেন ডা. লেলিন।

ছবি

আম বাগানের সাথী বোরো ত্রি-ফসলের উজ্জ্বল সম্ভাবনা

ছবি

ওবায়দুল কাদেরের বিরুদ্ধে ফেসবুকে অশালীন পোস্ট, নোবিপ্রবির কর্মকর্তা আটক

সীমান্ত জেলায় কঠোর লকডাউন বাড়ছে মৃত্যু-সংক্রমণ

কুমিল্লায় অস্ত্রসহ সন্ত্রাসী গ্রেপ্তার

গোয়ালন্দে দুটি বসতঘর ছাই

চাটখিলে বাল্যবিয়ে বন্ধ করল ইউএনও

ছবি

৬ বছর শিকলবন্দী আবির অর্থাভাবে চিকিৎসা বঞ্চিত

কুয়াকাটায় অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ

কিশোরগঞ্জে লেবুর কেজি ৩০ টাকা

নান্দাইলে ব্যবসায়ীর মরদেহ উদ্বার

দশমিনায় আদালত চালুর দাবিতে আইনজীবীদের মানববন্ধন

ছবি

নারায়ণপাড়া উপস্বাস্থ্য কেন্দ্রের কার্যক্রম চলছে পরিত্যক্ত ভবনে

ছবি

এবার পাগলা মসজিদের দান সিন্দুকে ১২ বস্তা টাকা

ছবি

শিবগঞ্জে সড়ক দুর্ঘটনায় একই পরিবারের নিহত ৩

ছবি

জবির বিতর্কিত শিক্ষককে ফের অর্থ পরিচালক করার পাঁয়তারা

ছবি

ঢাকা-গাজীপুর মহাসড়কে দীর্ঘ যানজট, বিপর্যস্ত জনজীবন

ছবি

খুলনায় করোনায় মৃত্যুর মিছিল থামছেই না

ছবি

কুষ্টিয়া পৌর এলাকায় আরো ৭ দিন বাড়লো কঠোর বিধিবিনিষেধ

ছবি

সামাজিক উন্নয়নে ২৫ কোটি ডলার ঋণ দিচ্ছে এডিবি

ছবি

শিশু তৃষা ধর্ষণ ও হত্যা : স্বীকারোক্তি, আলামত, প্রমাণ, তারপরও খালাস

শাজাহান খান সেনা সমর্থিত সরকারের সাথে আতাত করেছিল: মাদারীপুর আ’লীগ নেতা

ছবি

উত্তর-দক্ষিণাঞ্চলে রোগীর ভিড়, হাসপাতালে শয্যা সংকট

ঢাকায় বেড়েছে শনাক্তের হার, মৃত্যু কমেছে

ছবি

ধর্ষণ-নিপীড়নের বিচার ও পৃথক স্বাধীন ভূমি কমিশন চায় আদিবাসীরা

ছবি

সাড়ে ৮ শ’ ভুমিহীন ও গৃহহীন পরিবার জমিসহ বাড়ি পাচ্ছেন

ছবি

মুজিববর্ষের ঘর উদ্বোধনের আগেই ভাঙ্গন তালিকা নিয়ে বির্তক

ছবি

ডিজিটালাইজেশনের আওতায় আনা হলে বিচারিক তথ্য ঘরে বসেই সংগ্রহ করা যাবে: সিলেট মহানগর দায়রা জজ

ছবি

ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক শ্যামলসহ পাঁচশ’ নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে দুটি মামলা

ছবি

সিলেটে তিন শিশু নিখোঁজ

ছবি

গাইবান্ধায় আত্মগোপনে ছিলেন আবু ত্ব-হা : পুলিশ

বেতনের দাবিতে প্রাথমিক শিক্ষকদের মানববন্ধন

জনগণকে পুলিশি সহায়তায় মোবাইল নম্বর বিতরণ

ছবি

শেরপুর পৌর শহরের প্রধান রাস্তা বেহাল জনদুর্ভোগ চরমে

মির্জাগঞ্জে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে শ্রমিকের মৃত্যু

শিক্ষার্থীকে নির্যাতনের ঘটনায় শিক্ষক গ্রেপ্তার

ছবি

চার জেলায় করোনায় মৃত্যু ৪, শনাক্ত ২৪৮

tab

বাংলাদেশ

ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট : সতর্ক বার্তা জনস্বাস্থ্যবিদদের

সংবাদ অনলাইন ডেস্ক
image

শ্বাসকষ্ট নিয়ে রাজধানীর বিভিন্ন হাসপাতালে করোনা আক্রান্তদের ভর্তি করা হয়। সংক্রমণ আশঙ্কা নিয়েও সতর্ক নয় সাধারণ মানুষ -সংবাদ

রোববার, ০৯ মে ২০২১

বাংলাদেশে করোনাভাইরাসের ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট (ধরন) ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কায় স্বাস্থ্য ব্যবস্থায় সংশ্লিষ্ট সব মহলে উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা দেখা দিয়েছে। এ সংক্রান্ত বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে পড়লে বাংলাদেশের সামগ্রিক স্বাস্থ্য ও চিকিৎসা ব্যবস্থা ভেঙে পড়তে পারে। মানুষের মৃত্যুও অস্বাভাবিক বেড়ে যেতে পারে। এ অবস্থা থেকে মুক্ত থাকতে এই মুহূর্তেই স্বাস্থ্যবিধি কঠোরভাবে মেনে চলা এবং ভারত থেকে বাংলাদেশে লোক চলাচল সম্পূর্ণ বন্ধ করার পাশাপাশি সীমান্ত এলাকায় কঠোর নজরদারি আরোপ করতে হবে বলে বিশেষজ্ঞরা জানান।

সম্প্রতি ভারতে করোনার একাধিক ভ্যারিয়েন্ট ছড়িয়ে পড়েছে। এতে সংক্রমণ এবং মৃত্যু আশঙ্কাজনকভাবে বেড়ে যাওয়ার প্রেক্ষাপটে বিশ্বব্যাপী নতুন আতংক সৃষ্টি হয়েছে। করোনার ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট অত্যন্ত দ্রুত সংক্রমিত করে এবং তাতে আক্রান্তরা দ্রুত মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েন বলে ভারত থেকে খবর পাওয়া যায়। অক্টোবরে এই ভ্যারিয়েন্ট শনাক্তের সময় ভারতে করোনা সংক্রমণ অনেকটাই নিয়ন্ত্রণে এসেছিল। এখন বিশ্বের অন্তত ১৮টি দেশে করোনার ভারতীয় ধরনটির সংক্রমণের তথ্য পাওয়া গেছে।

এ প্রেক্ষাপটে প্রতিবেশী দেশ হওয়ায় বাংলাদেশেও ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা করছিলেন স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা। এরইমধ্যে করোনার ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট বাংলাদেশেও ছড়িয়ে পড়ার খবর জানায় স্বাস্থ্য বিভাগ।

গত ৮ মে ভারত থেকে ফিরে আসা দুই বাংলাদেশির শরীরে প্রথম করোনার ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট (ধরন) শনাক্ত হয়েছে। আরও চারজনের নমুনার সঙ্গে ভারতীয় ভ্যারিয়েন্টের মিল পাওয়া গেছে। তবে শনাক্ত হওয়া ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট দুটি অধিক সংক্রামক বা প্রাণঘাতী নয় বলেও মনে করছেন অণুজীব বিজ্ঞানীরা। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা জানিয়েছেন, ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট নিয়ে তারা উদ্বিগ্ন।

এদিকে বাংলাদেশে যাতে ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট ছড়িয়ে পড়তে না পারে সেজন্য ভারতের সঙ্গে বাংলাদেশের সব সীমান্ত ১৪ দিনের জন্য বন্ধ ঘোষণা করেছে বাংলাদেশ। গত ২৬ এপ্রিল থেকে এই সিদ্ধান্ত কার্যকর হয়েছে। রোববার (৯ মে) সরকার সীমান্ত বন্ধের মেয়াদ আরও ১৪ দিন বাড়িয়েছে। তবে জরুরি পণ্যবাহী যানবাহনের যাতায়াত অব্যাহত রয়েছে। এছাড়াও ভারতে অবস্থানরত যেসব বাংলাদেশির ভিসার মেয়াদ শেষ হয়ে যাচ্ছে তারা ভারতে বাংলাদেশি দূতাবাসের বিশেষ অনুমতি নিয়ে দেশে ফিরতে পারছেন।

এখন বাংলাদেশে করোনার ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট ছড়িয়ে পড়লে কতটা বিপজ্জনক পরিস্থিতি সৃষ্টি হতে পারে এবং এটা প্রতিরোধের জন্য কী ব্যবস্থা গ্রহণ করা প্রয়োজন এ ব্যাপারে সংবাদ কথা বলেছে তিনজন জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞের সঙ্গে। তারা করোনার ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট প্রতিরোধ করতে এই মুহূর্তেই সরকারকে কঠোর অবস্থান নেয়ার পরামর্শ দিয়েছেন।

ডা. আবু জামিল ফয়সাল বলেন, ‘ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট যদি বাংলাদেশে ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে পড়ে তবে গভীর সংকট তৈরি হবে। পুরো পরিস্থিতি চরম বিপজ্জনক হয়ে পড়বে। পুরো স্বাস্থ্য ব্যবস্থাই ভেঙে পড়তে পারে। সে অবস্থা যাতে না হয় সেজন্য আমাদের কঠোর অবস্থান গ্রহণ করতে হবে। প্রথমত করোনার জন্য যে স্বাস্থ্যবিধি জারি করা হয়েছে তা কঠোরভাবে পালন করতে হবে। সরকারের জারি করা স্বাস্থ্যবিধিতে অবশ্য পালনীয় সব নিয়মÑ মাস্ক পরা, সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখাসহ সব বলা আছে। একই সঙ্গে ভারত থেকে কারও বাংলাদেশে প্রবেশ বন্ধ করতে হবে। এই পুরো প্রক্রিয়া কঠোরভাবে মনিটর করতে হবে। তবেই সম্ভব হয়ে ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট থেকে রক্ষা পাওয়া।’

ডা. বেনজির আহমদ বলেন, ‘বাংলাদেশে করোনার ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট ছড়িয়ে পড়ছে এটা অত্যন্ত আশঙ্কার বিষয়। ভারতে এ করোনাভাইরাস ব্যাপকভাবে সংক্রমণ এবং প্রাণঘাতী হয়েছে। সে অবস্থা আমাদের দেশেও হতে পারে। যদি বাংলাদেশে ভারতের মতো অবস্থা সৃষ্টি হয় তবে তা চরম বিপদ ডেকে আনবে, আমাদের পক্ষে সামাল দেয়া সম্ভব হবে না।’

‘এখন আমাদের যে কাজটি অত্যন্ত দ্রুত এবং সঠিকভাবে করতে হবে তা হলো, ভারতের সঙ্গে সব সীমান্ত বন্ধ করে দেয়া, যা ইতোমধ্যে করা হয়েছে কিন্তু তা কতটা ঠিকভাবে হচ্ছে তা মনিটর করতে হবে। কোনভাবেই কেউ যাতে ঢুকতে না পারে এবং কোন কারণে কেউ ঢুকলে তাকে অবশ্যই ১৪ দিন আইসোলেশনে রেখে চিকিৎসা দিতে হবে। এতে কোন শৈথিল্য দেখানো যাবে না। সীমান্তবর্তী যেসব জেলায় ভারত থেকে গোপনে লোক চলাচল হতে পারে সেসব এলাকায় কঠোর লকডাউন জারি করতে হবে।’

‘অন্যদিকে হাসপাতালে চিকিৎসার সব ব্যবস্থা, আইসিইউ এবং অক্সিজেন প্রস্তুত রাখতে হবে, যাতে আক্রান্তকে পর্যাপ্ত চিকিৎসা দেয়া সম্ভব হয়। তার চেয়ে বড় কথা দেশের স্বার্থে, নিজের স্বার্থে পুরো বিষয়টি অত্যন্ত গুরুত্ব দিয়ে পালন করার মনমানসিকতা সৃষ্টি করতে হবে,’ সতর্ক করেন ডা. বেনজির।

জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ ডা. লেলিন চৌধুরী বলেন, ‘ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট অনেক দ্রুত ছড়ায় এবং বেশি প্রাণঘাতী। যদি সে ভ্যারিয়েন্ট বাংলাদেশে ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে পরে তবে চরম বিপদ নেমে আসবে। সেটা সামাল দেয়া আমাদের দেশের চিকিৎসা ব্যবস্থায় সামাল দেয়া সম্ভব নয় বলেই সবাই মনে করেন। ফলে ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট যাতে ছড়িয়ে পড়তে না পারে তার চেষ্টা একদিকে সরকার অন্যদিকে দেশের মানুষকে ঐকবদ্ধভাবে চেষ্টা করতে হবে। এর কোন বিকল্প নেই।’

‘এখন প্রশ্ন হচ্ছে ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট থেকে রক্ষা পেতে আমাদের কী ব্যবস্থা নেয়া দরকার। এর উত্তর হচ্ছে, আমাদের অবশ্যই ভারত থেকে লোকজনের আসা বন্ধ করতে হবে। যেসব এলাকায় ভারত থেকে লোজনের আসা-যাওয়া বেশি সেসব এলাকায় জরিপ করতে হবে। কোন রোগী পাওয়া গেলে সম্পূর্ণ লকডাউন করতে হবে। অন্যদিতে দেশের সব মানুষকে টিকা দেয়া এবং চিকিৎসা ব্যবস্থা জোরদার করতে হবে। তবেই ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট থেকে রক্ষা পাওয়া সম্ভব হতে পারে,’ বলেন ডা. লেলিন।

back to top