alt

সারাদেশ

কক্সবাজার রোহিঙ্গা শিবিরে দুর্বৃত্তের গুলিতে আরেক আরসা সদস্য নিহত

প্রতিনিধি, কক্সবাজার : বৃহস্পতিবার, ২৩ জুন ২০২২

কক্সবাজারের উখিয়ায় দুর্বৃত্তের গুলিতে মায়ানমারের সশস্ত্রগোষ্ঠী আরাকান স্যালভেশন আর্মির (আরসা) আরেক সদস্য নিহত হয়েছেন। গতকাল বুধবার রাতে উপজেলার বালুখালী শিবিরের (ক্যাম্প-১৭) এইচ-৮৪ ব্লকে এ ঘটনা ঘটেছে।

নিহত ব্যক্তির নাম মোহাম্মদ শাহ (৪২)। তিনি ওই শিবিরের ডি ব্লকের মৃত আবদুল আলীর ছেলে। মোহাম্মদ শাহ রোহিঙ্গা দুর্বৃত্তের গুলিতে নিহত আরসা কমান্ডার মোহাম্মদ হাশিমের সহযোগী এবং আরসা সদস্য বলে নিশ্চিত করেছে পুলিশ ও রোহিঙ্গা নেতারা।

১৪ আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়নের (এপিবিএন) অধিনায়ক ও পুলিশ সুপার মো. নাইমুল হক বলেন, রাত সাড়ে ৮টার দিকে মোহাম্মদ শাহ ক্যাম্পের একটি দোকানের সামনে কয়েকজন রোহিঙ্গার সঙ্গে আড্ডা দিচ্ছিলেন। এ সময় কয়েকজন রোহিঙ্গা সন্ত্রাসী মোহাম্মদ শাহকে লক্ষ্য করে গুলি করে পালিয়ে যায়। এতে মোহাম্মদ শাহর গলায় গুলি লাগে। পরে গুরুতর আহত অবস্থায় মোহাম্মদ শাহকে উদ্ধার করে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন।

এপিবিএন পুলিশ জানায়, নিহত মোহাম্মদ শাহ আরসা সেকেন্ড-ইন-কমান্ডার ও পুলিশের তালিকাভুক্ত শীর্ষ রোহিঙ্গা সন্ত্রাসী মো. হাশিমের সহযোগী ছিলেন। গত মে মাসে রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীর গুলিতে হাশিম খুন হলে মোহাম্মদ শাহ ক্যাম্প ছেড়ে মিয়ানমারে আত্মগোপনে ছিলেন। কয়েক দিন আগে মোহাম্মদ শাহ মিয়ানমার থেকে পালিয়ে আবার এই ক্যাম্পে এসে আশ্রয় নেন।

নিহত ব্যক্তির স্ত্রী সাজেদা বেগম বলেন, ঘরের ভেতর সব সময় নেটওয়ার্ক থাকে না। তাই রাত আটটার দিকে তাঁর স্বামী মুঠোফোনে কথা বলার জন্য ঘর থেকে বেরিয়ে পাশের একটি দোকানে যান। হঠাৎ কিছু অপরিচিত লোক দোকানে এসে তাঁর স্বামীকে গুলি করে পালিয়ে যায়। পরে দ্রুত তাঁকে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে নেওয়া হলে সেখানকার কর্তব্যরত চিকিৎসক তাঁর স্বামীকে মৃত ঘোষণা করেন।

পুলিশ জানায়, ১৫ জুন রাতে কুতুপালং ক্যাম্পের সি-ব্লকে হামলা চালায় কতিপয় আরসা সদস্য। এ সময় রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীদের আরেকটি গ্রুপ মুন্নাবাহিনীর সঙ্গে গোলাগুলিতে আরসা সদস্য মো. সলিম উল্লাহ নিহত হন। তিনি কুতুপালং আশ্রয়শিবিরের (ক্যাম্প-২, পশ্চিম) সি-২ ব্লকের বাসিন্দা আবদুস শুক্কুরের ছেলে। সলিম উল্লাহ আরসার সক্রিয় সদস্য ছিলেন। সলিম হত্যা হামলায় এপিবিএন পাঁচজন রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীকে গ্রেপ্তার করেছে।

এর কয়েক দিন আগে সন্ত্রাসীরা উখিয়ার বালুখালী (ক্যাম্প-২০) আশ্রয়শিবিরের একটি শেডের মাঝি (নেতা) আজিম উদ্দিনকে কুপিয়ে হত্যা করা হয়। আরসা সদস্যদের গতিবিধি এবং অবস্থান সম্পর্কে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে তথ্য দিয়ে সহযোগিতার অভিযোগে আজিমকে হত্যা করা হয় বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করছে পুলিশ। এ ঘটনায় জড়িত আরেকটি ক্যাম্পের রোহিঙ্গা মাঝি নুর মোহাম্মদকে গ্রেপ্তার করেছে এপিবিএন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন রোহিঙ্গা নেতা বলেন, রোহিঙ্গাদের শীর্ষ নেতা মুহিবুল্লাহ হত্যার পর আরসা সন্ত্রাসীরা বেপরোয়া হয়ে উঠেছে। সন্ত্রাসীরা সাধারণ রোহিঙ্গাদের ভয়ভীতি দেখানোর জন্য ভারী অস্ত্র প্রদর্শন করছে। মাঝেমধ্যে আরসা সদস্যরা আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সঙ্গে গোলাগুলিতে জড়িয়ে পড়ছে। আবার আরসার সঙ্গে অন্যান্য রোহিঙ্গা সন্ত্রাসী বাহিনীর মধ্যেও গোলাগুলির ঘটনা ঘটছে। এতে সাধারণ রোহিঙ্গাদের মধ্যে আতঙ্ক সৃষ্টি হয়েছে।

তবে পুলিশ সুপার মো. নাইমুল হক বলেন, আশ্রয়শিবিরের পরিস্থিতি আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। সন্ত্রাসীদের ধরতে শিবিরে অভিযান চলছে। শিবিরে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

ছবি

সখীপুরে দুর্ঘটনা রোধে স্বেচ্ছাশ্রমে ঝোপঝাড় পরিস্কার

ছবি

নারায়ণগঞ্জে ৩৬ কেজি গাঁজাসহ গ্রেপ্তার ২

ছবি

দেশব্যাপী শিক্ষক নির্যাতনের প্রতিবাদে শাবিপ্রবি শিক্ষক সমিতির মানববন্ধন

ছবি

স্বাস্থ্যসম্মত উপায়ে শুঁটকি মাছ উৎপাদনের বিকল্প নেই

ছবি

৬ জুলাই দেশব্যাপী প্রতিবাদ ও সম্প্রীতি সমাবেশ

ছবি

বগুড়ায় মায়ের কাছ থেকে শিশু সন্তানকে কেড়ে নেয়ার চেষ্টা

নড়াইলে পিকআপের ধাক্কায় ইজিবাইক যাত্রী নিহত

বগুড়ায় সড়ক দুর্ঘটনায় গরু ব্যবসায়ীর মৃত্যু

ছবি

মান্দায় যুবলীগ নেতার ওপর হামলা, গাড়ি ভাঙচুরের অভিযোগ

ছবি

সাঁওতাল বিদ্রোহ দিবস পালিত

ছবি

ট্রেনের অগ্রিম টিকিট বিক্রি শুরু শুক্রবার

চিকিৎসায় নিঃস্ব পরিবার : গৃহবধূর আত্মহত্যা

ছবি

বন্যাদুর্গত অসহায়দের পাশে ‘স্বপ্নের খোঁজে ফাউন্ডেশন’

ছবি

পুলিশের এন্টি টেররিজম ইউনিটের সঙ্গে পুস্তক প্রকাশক ও বিক্রেতা সমিতির মতবিনিময়

মেঘনার ক্রমাগত ভাঙনে আতংকে আশুগঞ্জের চর-সোনারামপুরবাসী

ফেয়ার গ্রুপ লিমিটেড ও এমআইএসটি’র মধ্যে সমঝোতা স্বারক স্বাক্ষরিত

ছবি

পিটিসি নোয়াখালীতে সমাপনী কুচকাওয়াজ ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান

প্রধান শিক্ষকের আত্মহত্যা

ছবি

নতুন প্রজন্মকে ধর্মান্ধতা থেকে বের করতে হবে

কর্মসম্পাদনে দেশ সেরা সিলেট সিটি কর্পোরেশন

মির্জাগঞ্জে মিনিট্রাক উল্টে চালক নিহত

ছবি

থেমে থেমে বৃষ্টি সিলেটে, বেড়েছে সুরমার পানি

ঘোড়াঘাটে এক আদিবাসী যুবকের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

ছবি

আম খেয়ে গরুর বাজার মাতাতে প্রস্তুত ৪২ মণের ‘চাঁপাই সম্রাট’

সখীপুরে মেয়রের বিরুদ্ধে টেন্ডার ছাড়াই সড়কের গাছ কাটার অভিযোগ

ঘুমন্ত ব্যবসায়ীকে কুপিয়ে হত্যা, ২ জনের পা বিচ্ছিন্ন

ছবি

সুনামগঞ্জের সুরমার পানি ফের বাড়ছে

ছবি

বন্ধুর আশ্রয়ে ছিল শিক্ষক হত্যার অভিযুক্ত ছাত্র

কিশোরগঞ্জে নতুন ১৬ জনের করোনা শনাক্ত

ছবি

তিস্তার পানি ফের বিপদসীমার ওপরে, নিম্নাঞ্চল প্লাবিত

ছবি

গ্রামীণফোনের সিম বিক্রিতে নিষেধাজ্ঞা

ছবি

শিক্ষিকাকে ধর্ষণচেষ্টায় আটক ১

ছবি

বাবার কোলে শিশুকে গুলি করে হত্যা: আরেক আসামি গ্রেপ্তার

বেতন বৈষম্য নিরসন দাবি প্রাথমিকের দপ্তরিদের

ঘোড়াঘাটে করতোয়া নদীতে ডুবে শিশুর মৃত্যু

ছবি

রোহিঙ্গা শিবিরে ঘরে ঘরে বাড়ছে চর্মরোগ

tab

সারাদেশ

কক্সবাজার রোহিঙ্গা শিবিরে দুর্বৃত্তের গুলিতে আরেক আরসা সদস্য নিহত

প্রতিনিধি, কক্সবাজার

বৃহস্পতিবার, ২৩ জুন ২০২২

কক্সবাজারের উখিয়ায় দুর্বৃত্তের গুলিতে মায়ানমারের সশস্ত্রগোষ্ঠী আরাকান স্যালভেশন আর্মির (আরসা) আরেক সদস্য নিহত হয়েছেন। গতকাল বুধবার রাতে উপজেলার বালুখালী শিবিরের (ক্যাম্প-১৭) এইচ-৮৪ ব্লকে এ ঘটনা ঘটেছে।

নিহত ব্যক্তির নাম মোহাম্মদ শাহ (৪২)। তিনি ওই শিবিরের ডি ব্লকের মৃত আবদুল আলীর ছেলে। মোহাম্মদ শাহ রোহিঙ্গা দুর্বৃত্তের গুলিতে নিহত আরসা কমান্ডার মোহাম্মদ হাশিমের সহযোগী এবং আরসা সদস্য বলে নিশ্চিত করেছে পুলিশ ও রোহিঙ্গা নেতারা।

১৪ আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়নের (এপিবিএন) অধিনায়ক ও পুলিশ সুপার মো. নাইমুল হক বলেন, রাত সাড়ে ৮টার দিকে মোহাম্মদ শাহ ক্যাম্পের একটি দোকানের সামনে কয়েকজন রোহিঙ্গার সঙ্গে আড্ডা দিচ্ছিলেন। এ সময় কয়েকজন রোহিঙ্গা সন্ত্রাসী মোহাম্মদ শাহকে লক্ষ্য করে গুলি করে পালিয়ে যায়। এতে মোহাম্মদ শাহর গলায় গুলি লাগে। পরে গুরুতর আহত অবস্থায় মোহাম্মদ শাহকে উদ্ধার করে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন।

এপিবিএন পুলিশ জানায়, নিহত মোহাম্মদ শাহ আরসা সেকেন্ড-ইন-কমান্ডার ও পুলিশের তালিকাভুক্ত শীর্ষ রোহিঙ্গা সন্ত্রাসী মো. হাশিমের সহযোগী ছিলেন। গত মে মাসে রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীর গুলিতে হাশিম খুন হলে মোহাম্মদ শাহ ক্যাম্প ছেড়ে মিয়ানমারে আত্মগোপনে ছিলেন। কয়েক দিন আগে মোহাম্মদ শাহ মিয়ানমার থেকে পালিয়ে আবার এই ক্যাম্পে এসে আশ্রয় নেন।

নিহত ব্যক্তির স্ত্রী সাজেদা বেগম বলেন, ঘরের ভেতর সব সময় নেটওয়ার্ক থাকে না। তাই রাত আটটার দিকে তাঁর স্বামী মুঠোফোনে কথা বলার জন্য ঘর থেকে বেরিয়ে পাশের একটি দোকানে যান। হঠাৎ কিছু অপরিচিত লোক দোকানে এসে তাঁর স্বামীকে গুলি করে পালিয়ে যায়। পরে দ্রুত তাঁকে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে নেওয়া হলে সেখানকার কর্তব্যরত চিকিৎসক তাঁর স্বামীকে মৃত ঘোষণা করেন।

পুলিশ জানায়, ১৫ জুন রাতে কুতুপালং ক্যাম্পের সি-ব্লকে হামলা চালায় কতিপয় আরসা সদস্য। এ সময় রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীদের আরেকটি গ্রুপ মুন্নাবাহিনীর সঙ্গে গোলাগুলিতে আরসা সদস্য মো. সলিম উল্লাহ নিহত হন। তিনি কুতুপালং আশ্রয়শিবিরের (ক্যাম্প-২, পশ্চিম) সি-২ ব্লকের বাসিন্দা আবদুস শুক্কুরের ছেলে। সলিম উল্লাহ আরসার সক্রিয় সদস্য ছিলেন। সলিম হত্যা হামলায় এপিবিএন পাঁচজন রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীকে গ্রেপ্তার করেছে।

এর কয়েক দিন আগে সন্ত্রাসীরা উখিয়ার বালুখালী (ক্যাম্প-২০) আশ্রয়শিবিরের একটি শেডের মাঝি (নেতা) আজিম উদ্দিনকে কুপিয়ে হত্যা করা হয়। আরসা সদস্যদের গতিবিধি এবং অবস্থান সম্পর্কে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে তথ্য দিয়ে সহযোগিতার অভিযোগে আজিমকে হত্যা করা হয় বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করছে পুলিশ। এ ঘটনায় জড়িত আরেকটি ক্যাম্পের রোহিঙ্গা মাঝি নুর মোহাম্মদকে গ্রেপ্তার করেছে এপিবিএন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন রোহিঙ্গা নেতা বলেন, রোহিঙ্গাদের শীর্ষ নেতা মুহিবুল্লাহ হত্যার পর আরসা সন্ত্রাসীরা বেপরোয়া হয়ে উঠেছে। সন্ত্রাসীরা সাধারণ রোহিঙ্গাদের ভয়ভীতি দেখানোর জন্য ভারী অস্ত্র প্রদর্শন করছে। মাঝেমধ্যে আরসা সদস্যরা আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সঙ্গে গোলাগুলিতে জড়িয়ে পড়ছে। আবার আরসার সঙ্গে অন্যান্য রোহিঙ্গা সন্ত্রাসী বাহিনীর মধ্যেও গোলাগুলির ঘটনা ঘটছে। এতে সাধারণ রোহিঙ্গাদের মধ্যে আতঙ্ক সৃষ্টি হয়েছে।

তবে পুলিশ সুপার মো. নাইমুল হক বলেন, আশ্রয়শিবিরের পরিস্থিতি আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। সন্ত্রাসীদের ধরতে শিবিরে অভিযান চলছে। শিবিরে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

back to top