alt

সারাদেশ

এডিশ মশার কামড়ে দুই ধরনের ভাইরাসে আক্রান্ত হচ্ছে মানুষ

বাকী বিল্লাহ : শনিবার, ০২ জুলাই ২০২২

এডিশ মশার কামড়ে দুই ধরনের ভাইরাসে আক্রান্ত হচ্ছে মানুষ। এর মধ্যে একটি ডেঙ্গুজ্বর ও অন্যটি চিকুনগুনিয়া। এই ভাইরাস রাজধানী থেকে গ্রাম পর্যন্ত ছড়িয়ে পড়েছে। দেশের বিভিন্ন জেলা পর্যায়ে এখনই মানুষ ডেঙ্গুজ্বরে আক্রান্ত হচ্ছে। থেমে থেমে বৃষ্টির কারণে এ বছর ডেঙ্গুজ্বরের অবস্থার অবনতির আশঙ্কা করছেন কীটতত্ত্ব বিশেষজ্ঞরা।

অন্যদিকে ডেঙ্গুজ্বরের বাহক এডিশ মশার অবস্থান জানার জন্য চলতি মাসে কোরবানির ঈদের পর (২০ জুলাই) ঢাকার দুই সিটি করপোরেশনে জরিপ শুরু হবে। সিটি করপোরেশনের প্রতিটি ওয়ার্ডে জরিপ চালানো হতে পারে বলে বিশেষজ্ঞরা জানান।

মহাখালী স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হেলথ ইমার্জেন্সি অপারেশন সেন্টার ও কন্ট্রোল রুমের দায়িত্বপ্রাপ্ত চিকিৎসক ডা. জাহিদুল ইসলাম জানান, ২৪ ঘণ্টায় ডেঙ্গুজ্বরে আক্রান্ত হয়ে নতুন করে ৪৯ জন হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। এর মধ্যে ঢাকায় ৪৭ জন ও ঢাকার বাইরে দুইজন ভর্তি হয়েছে।

বর্তমানে দেশের বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি আছে ১৫১ জন। এর মধ্যে ঢাকায় ১৪৫ জন ভর্তি আছেন। অন্যান্য বিভাগে আছে ৬ জন। চলতি বছরের ১ জানুয়ারি থেকে শনিবার (২ জুলাই) পর্যন্ত ডেঙ্গুজ্বরে আক্রান্ত হয়ে মোট ভর্তি হয়েছে ১১৬০ জন। এর মধ্যে শনিবার পর্যন্ত ছাড়পত্র নিয়েছে এক হাজার ৮ জন। চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছে একজন।

হাসপাতালের প্রাপ্ত তথ্য মতে, আক্রান্তদের মধ্যে ৭ জন মিটফোর্ড হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। একজন বাংলাদেশ শিশু হাসপাতাল ও ইনস্টিটিউটে, মুগদা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ৭ জন, হলিফ্যামিলি হাসপাতালে ৩ জন, বারডেম হাসপাতালে ২ জন ভর্তি হয়েছে। আক্রান্তরা সবাইর ডেঙ্গু ফিবার। এছাড়া অন্যান্য প্রাইভেট হাসপাতালে অনেকেই ভর্তি আছে। আবার অনেকেই চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে বাসা-বাড়িতে থেকে চিকিৎসা নিচ্ছেন। আক্রান্তদের মধ্যে অনেকেই ডাক্তারের চেম্বারে যোগাযোগ করছেন।

কীটতত্ত্ব বিশেষজ্ঞরা জানান, ডেঙ্গুজ্বরে আক্রান্ত ব্যক্তির মুভমেন্টের (এক স্থান থেকে অন্য স্থানে বা জেলায় যাওয়া) কারণে ডেঙ্গুজ্বরের ভাইরাস দ্রুত সারাদেশে ছড়িয়ে পড়ে। ডেঙ্গুজ্বরের বাহক এডিশ মশার কামরে কেউ অসুস্থ হয়ে ঢাকা থেকে জেলা বা গ্রামে সেখানে তাকে মশা কামড় দিলে এবং ওই মশা আবার অন্য সুস্থ ব্যক্তিকে কামড় দিলে তারও ডেঙ্গুজ্বর হবে। আর চিকুনগুনিয়ার ভাইরাস থাকলে তারও চিকুনগুনিয়া হবে। এটাই স্বাভাবিক। এভাবে সারাদেশে ভাইরাসের বিস্তার ঘটছে।

এর আগে যশোর, কুষ্টিয়া, বরিশাল, সাতক্ষীরা, সিরাজগঞ্জসহ বিভিন্ন জেলায় ডেঙ্গুজ্বরের বাহক শনাক্ত হয়েছে। এ বছর এখনই ব্যবস্থা না নিলে অবস্থার অবনতির আশঙ্কা করা হচ্ছে।

এদিকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি প্রফেসর ডা. শারফুদ্দিন আহমেদ বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে আগে থেকে ডেঙ্গু কর্র্নার চালু আছে। ডেঙ্গু রোগী বাড়লে আবার ডেঙ্গু কর্নারের সেবা জোরদার করা হবে। তবে ডেঙ্গু প্রতিরোধে সবাইকে আরও সচেতন হতে হবে। বাসা-বাড়ির ভিতরের ফুলের টব, টায়ার, ফ্রিজের নিচে যাতে পানি জমে না থাকে তার লক্ষ্য রাখতে হবে।

অব্যবহৃত বাথরুমের কোমোডের মধ্যে মশার বংশবিস্তার ঘটতে পারে। এছাড়া নির্মাণাধীন ভবনের ছাদে জমে থাকা বৃষ্টির পাানিতে মশার বিস্তার ঘটে। তার জন্য সবাইকে সচেতন থাকতে হবে।

আইসিইউ বিশেষজ্ঞ প্রফেসর ডা. দেবব্রত বনিক বলেন, ইদানীং মশার উপদ্রব বেড়ে গেছে। বৃষ্টির কারণে মশার উপদ্রব বাড়লেও মশা দমনে কার্যক্রম আরও জোরদার করা দরকার বলে এ বিশেষজ্ঞ মনে করেন।

এখন দেশে নতুন করে ডেঙ্গুজ্বর ও করোনা আক্রান্ত রোগী বাড়ছে। এখন জ্বর হলে কার ডেঙ্গু আর কার করোনাভাইরাস তা নিশ্চিত হওয়ার জন্য পরীক্ষা দরকার। রোগ শনাক্ত হলে চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে দ্রুত চিকিৎসা করানো দরকার।

এ দিকে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, রাজধানীর বাসাবো, মুগদা, যাত্রাবাড়ি, পল্টন, খিলগাঁও, ধানমন্ডির অভিজাত এলাকা, মিরপুরের পল্লবী, পুরান ঢাকা, বিমানবন্দর এলাকাসহ বিভিন্ন স্থানে মশার উপস্থিতি রয়েছে। এডিশ মশা ও কিউলেক্স মশার উপদ্রব বাড়ছে। মশা থেকে বাঁচতে নগরবাসী অ্যারোসলসহ অন্যান্য ওষুধ ব্যবহার করলেও মশা দমন করা যাচ্ছে না। বাসা-বাড়ির ভেতর মশার উপদ্রব রয়েছে। সিটি করপোরেশনের মশানিধন কর্তৃপক্ষের লোকজন মাঝে মধ্যে মশার ওষুধ দিলেও আবার একদিন পরে মশার উপস্থিতি দেখা দেয়। আর আক্রান্ত ব্যক্তিরা সতর্ক না থাকায় রোগ ছড়ায় বলে বিশেষজ্ঞরা মনে করেন। বন্যা ও পরিবহনসহ নানা কারণে মশার বিস্তার ঘটছে।

ছবি

পদ্মা সেতু থেকে ঝাঁপ দিয়ে যুবক নিখোঁজ

ছবি

গার্ডার পড়ে ৫ জনের প্রাণহানি: তদন্ত কমিটি গঠন

বঙ্গবন্ধু নিপীড়িত মানুষের আশার আলো-প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী

ছবি

অবিনশ্বর-চিরঅম্লান বঙ্গবন্ধু

ছবি

সাগরে আটকা পড়া ১৩ জেলেসহ ট্রলার উদ্ধার

ছবি

আখাউড়ায় ১০০ দুঃস্থ পরিবারকে খাদ্য সহায়তা দিলো বিজিবি

ছবি

ডেসকোর উদ্যোগে শোক দিবস পালিত

ছবি

কক্সবাজার সৈকতে গোসল নেমে পর্যটক নিখোঁজ, উদ্ধার ২

ছবি

উত্তরায় গার্ডার ধস: বেঁচে রইলেন শুধু নবদম্পতি

ছবি

জলবায়ু ও পরিবেশবান্ধব বিনিয়োগে উৎসাহিত করতে জিআইজেড এর প্রশিক্ষণ

ছবি

সেনাবাহিনীর ‘লেডিস ক্লাব ও বাফওয়ার” জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে দুস্থদের মধ্যে খাবার বিতরন

ছবি

ডিফেন্স ফাইন্যান্স ডিপার্টমেন্টের উদ্যোগে জাতীয় শোক দিবস পালন

ছবি

রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শনে কক্সবাজারে আসছেন জাতিসংঘের মানবাধিকার প্রধান

ছবি

কারযোগে ইয়াবা কারবার: ৬ পাচারকারী আটক করলো ডিবি

ছবি

আগামী বছরে সপ্তাহে ৫ দিন ক্লাস: শিক্ষামন্ত্রী

সোনারগাঁয়ে গোসলে নেমে দুই যুবক নিখোঁজ, একজন মৃত উদ্ধার

নওগাঁয় হাসপাতাল থেকে অজ্ঞাত নবজাতক উদ্ধার

ছবি

এমপির সামনেই সংঘর্ষে জড়াল ছাত্রলীগ, পুলিশের লাঠিচার্জ

ছবি

প্রবাসীর স্ত্রীকে অচেতন করে নগ্ন ভিডিও ধারণ, গ্রেপ্তার ২

ছবি

জয়পুরহাটে ইজিবাইক চার্জার তৈরির কারখানায় অগ্নিকাণ্ড

ছবি

গাজীপুরের পথে ১১ ঘণ্টা পর ট্রেন চলাচল শুরু

ছবি

জাতীয় পতাকা টাঙাতে গিয়ে প্রাণ গেল দুই ভাইয়ের

ছবি

মামুনকে আদালতে তোলা হবে আজ

ছবি

সুন্দরবনের জন্য বাংলাদেশ ব্যাংক ও এমআরডিআইয়ের যৌথ উদ্যোগ

রোগীর পেট কাটার পর ডাক্তার বললেন অস্ত্রোপচার অসম্ভব

ছাত্রীকে উত্ত্যক্ত : স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতার বিরুদ্ধে মামলা

খালে দুই জনের সলিল সমাধি

দাউদকান্দিতে বিনামূল্যে চিকিৎসা পেল পাঁচ শতাধিক রোগী

তরুণদের উচ্চ রক্তচাপ ও হৃদরোগ ঝুঁঁকি বাড়ছে

ছবি

দেশের প্রথম ব্লাস্টলেস রেললাইন সর্বাধুনিক হবে ভাঙ্গা রেল জংশন

শীতলক্ষ্যায় সেতুর দাবিতে কাপাসিয়ায় মানববন্ধন

ছবি

বিএসএমএমইউতে স্থূলতা ক্লিনিক চালু করা হবে: উপাচার্য

ছবি

ঢামেক ইন্টার্ন চিকিৎসকদের কর্মবিরতি প্রত্যাহার

ছবি

নাফনদী থেকে ক্রিস্টাল মেথ আইস ও ইয়াবা উদ্ধার

ছবি

গোসল করতে নেমে ৪র্থ শ্রেণীর শিক্ষার্থী নিহত

ডেঙ্গুজ্বরে আরও ৯২ হাসপাতালে ভর্তি মোট মৃত্যু ১৬

tab

সারাদেশ

এডিশ মশার কামড়ে দুই ধরনের ভাইরাসে আক্রান্ত হচ্ছে মানুষ

বাকী বিল্লাহ

শনিবার, ০২ জুলাই ২০২২

এডিশ মশার কামড়ে দুই ধরনের ভাইরাসে আক্রান্ত হচ্ছে মানুষ। এর মধ্যে একটি ডেঙ্গুজ্বর ও অন্যটি চিকুনগুনিয়া। এই ভাইরাস রাজধানী থেকে গ্রাম পর্যন্ত ছড়িয়ে পড়েছে। দেশের বিভিন্ন জেলা পর্যায়ে এখনই মানুষ ডেঙ্গুজ্বরে আক্রান্ত হচ্ছে। থেমে থেমে বৃষ্টির কারণে এ বছর ডেঙ্গুজ্বরের অবস্থার অবনতির আশঙ্কা করছেন কীটতত্ত্ব বিশেষজ্ঞরা।

অন্যদিকে ডেঙ্গুজ্বরের বাহক এডিশ মশার অবস্থান জানার জন্য চলতি মাসে কোরবানির ঈদের পর (২০ জুলাই) ঢাকার দুই সিটি করপোরেশনে জরিপ শুরু হবে। সিটি করপোরেশনের প্রতিটি ওয়ার্ডে জরিপ চালানো হতে পারে বলে বিশেষজ্ঞরা জানান।

মহাখালী স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হেলথ ইমার্জেন্সি অপারেশন সেন্টার ও কন্ট্রোল রুমের দায়িত্বপ্রাপ্ত চিকিৎসক ডা. জাহিদুল ইসলাম জানান, ২৪ ঘণ্টায় ডেঙ্গুজ্বরে আক্রান্ত হয়ে নতুন করে ৪৯ জন হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। এর মধ্যে ঢাকায় ৪৭ জন ও ঢাকার বাইরে দুইজন ভর্তি হয়েছে।

বর্তমানে দেশের বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি আছে ১৫১ জন। এর মধ্যে ঢাকায় ১৪৫ জন ভর্তি আছেন। অন্যান্য বিভাগে আছে ৬ জন। চলতি বছরের ১ জানুয়ারি থেকে শনিবার (২ জুলাই) পর্যন্ত ডেঙ্গুজ্বরে আক্রান্ত হয়ে মোট ভর্তি হয়েছে ১১৬০ জন। এর মধ্যে শনিবার পর্যন্ত ছাড়পত্র নিয়েছে এক হাজার ৮ জন। চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছে একজন।

হাসপাতালের প্রাপ্ত তথ্য মতে, আক্রান্তদের মধ্যে ৭ জন মিটফোর্ড হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। একজন বাংলাদেশ শিশু হাসপাতাল ও ইনস্টিটিউটে, মুগদা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ৭ জন, হলিফ্যামিলি হাসপাতালে ৩ জন, বারডেম হাসপাতালে ২ জন ভর্তি হয়েছে। আক্রান্তরা সবাইর ডেঙ্গু ফিবার। এছাড়া অন্যান্য প্রাইভেট হাসপাতালে অনেকেই ভর্তি আছে। আবার অনেকেই চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে বাসা-বাড়িতে থেকে চিকিৎসা নিচ্ছেন। আক্রান্তদের মধ্যে অনেকেই ডাক্তারের চেম্বারে যোগাযোগ করছেন।

কীটতত্ত্ব বিশেষজ্ঞরা জানান, ডেঙ্গুজ্বরে আক্রান্ত ব্যক্তির মুভমেন্টের (এক স্থান থেকে অন্য স্থানে বা জেলায় যাওয়া) কারণে ডেঙ্গুজ্বরের ভাইরাস দ্রুত সারাদেশে ছড়িয়ে পড়ে। ডেঙ্গুজ্বরের বাহক এডিশ মশার কামরে কেউ অসুস্থ হয়ে ঢাকা থেকে জেলা বা গ্রামে সেখানে তাকে মশা কামড় দিলে এবং ওই মশা আবার অন্য সুস্থ ব্যক্তিকে কামড় দিলে তারও ডেঙ্গুজ্বর হবে। আর চিকুনগুনিয়ার ভাইরাস থাকলে তারও চিকুনগুনিয়া হবে। এটাই স্বাভাবিক। এভাবে সারাদেশে ভাইরাসের বিস্তার ঘটছে।

এর আগে যশোর, কুষ্টিয়া, বরিশাল, সাতক্ষীরা, সিরাজগঞ্জসহ বিভিন্ন জেলায় ডেঙ্গুজ্বরের বাহক শনাক্ত হয়েছে। এ বছর এখনই ব্যবস্থা না নিলে অবস্থার অবনতির আশঙ্কা করা হচ্ছে।

এদিকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি প্রফেসর ডা. শারফুদ্দিন আহমেদ বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে আগে থেকে ডেঙ্গু কর্র্নার চালু আছে। ডেঙ্গু রোগী বাড়লে আবার ডেঙ্গু কর্নারের সেবা জোরদার করা হবে। তবে ডেঙ্গু প্রতিরোধে সবাইকে আরও সচেতন হতে হবে। বাসা-বাড়ির ভিতরের ফুলের টব, টায়ার, ফ্রিজের নিচে যাতে পানি জমে না থাকে তার লক্ষ্য রাখতে হবে।

অব্যবহৃত বাথরুমের কোমোডের মধ্যে মশার বংশবিস্তার ঘটতে পারে। এছাড়া নির্মাণাধীন ভবনের ছাদে জমে থাকা বৃষ্টির পাানিতে মশার বিস্তার ঘটে। তার জন্য সবাইকে সচেতন থাকতে হবে।

আইসিইউ বিশেষজ্ঞ প্রফেসর ডা. দেবব্রত বনিক বলেন, ইদানীং মশার উপদ্রব বেড়ে গেছে। বৃষ্টির কারণে মশার উপদ্রব বাড়লেও মশা দমনে কার্যক্রম আরও জোরদার করা দরকার বলে এ বিশেষজ্ঞ মনে করেন।

এখন দেশে নতুন করে ডেঙ্গুজ্বর ও করোনা আক্রান্ত রোগী বাড়ছে। এখন জ্বর হলে কার ডেঙ্গু আর কার করোনাভাইরাস তা নিশ্চিত হওয়ার জন্য পরীক্ষা দরকার। রোগ শনাক্ত হলে চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে দ্রুত চিকিৎসা করানো দরকার।

এ দিকে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, রাজধানীর বাসাবো, মুগদা, যাত্রাবাড়ি, পল্টন, খিলগাঁও, ধানমন্ডির অভিজাত এলাকা, মিরপুরের পল্লবী, পুরান ঢাকা, বিমানবন্দর এলাকাসহ বিভিন্ন স্থানে মশার উপস্থিতি রয়েছে। এডিশ মশা ও কিউলেক্স মশার উপদ্রব বাড়ছে। মশা থেকে বাঁচতে নগরবাসী অ্যারোসলসহ অন্যান্য ওষুধ ব্যবহার করলেও মশা দমন করা যাচ্ছে না। বাসা-বাড়ির ভেতর মশার উপদ্রব রয়েছে। সিটি করপোরেশনের মশানিধন কর্তৃপক্ষের লোকজন মাঝে মধ্যে মশার ওষুধ দিলেও আবার একদিন পরে মশার উপস্থিতি দেখা দেয়। আর আক্রান্ত ব্যক্তিরা সতর্ক না থাকায় রোগ ছড়ায় বলে বিশেষজ্ঞরা মনে করেন। বন্যা ও পরিবহনসহ নানা কারণে মশার বিস্তার ঘটছে।

back to top