alt

সারাদেশ

শিক্ষক হত্যার বিচার হয়নি ৪ বছরেও; জামিনে মুক্ত আসামীরা

মো. পলাশ খান, শরীয়তপুর(জাজিরা) : শুক্রবার, ০৭ অক্টোবর ২০২২

শরীয়তপুরের জাজিরা উপজেলার পশ্চিম রায়ের কান্দি গ্রামের বাসিন্দা স্কুল শিক্ষক রুবিনা আক্তার (৩৪) চার বছর আগে (২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮) নিখোঁজ হওয়ার পাঁচদিন পর ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮ সালে বিকেলে নিহতের নিজ বাড়ীর পিছনের একটি বাঁশ বাগানে পাওয়া যায়।

পরে এই ঘটনায় নিহত শিক্ষকের ভাই সামসুল হক মুন্সি অজ্ঞাতনামা আসামী করে জাজিরা থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। গত ২৫ সেপ্টেম্বর এই হত্যাকান্ডের ৪ বছর পেরুলেও অগ্রগতি নেই বিচারকার্যে।

মামলার প্রেক্ষিতে হত্যায় সংশ্লিষ্টতার সন্দেহে ওই বছর (২৭ সেপ্টেম্বর ২০১৮) তৎকালীন জাজিরা উপজেলা যুবলীগ নেতা ও নিহতের ভগ্নীপতি কামাল মাদবর ওরফে তমি কামাল কে আটক করে পরেরদিন জেল হাজতে প্রেরণ করেন জাজিরা থানা পুলিশ। এর কিছুদিন পরেই আটককৃত আসামীরা আদালত থেকে জামিনে মুক্তি পেয়ে বেড়িয়ে আসেন।

এই মামলায় পুলিশ ২০১৯ সালের মার্চে কামাল মাদবর ওরফে তমি কামাল সহ৫ জনকে আসামী করে একটি তদন্ত প্রতিবেদন(চার্জশিট) জমা দেয় আদালতে।

চার্জশিটভুক্ত বাকী আসামীরা হলেন- মেহেদী হাসান, মো: রাসেল মাদবর, সজিব হোসেন মাদবর ও রাকিব শাহ। কিন্তু উক্ত চার্জশীট সঠিক নয় দাবী করে আসামী কামাল মাদবর ওরফে তমি কামাল হাইকোর্টে একটি রিট দায়ের করেন। বর্তমানে মামলাটি হাইকোর্টে প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

এ বিষয়ে নিহত শিক্ষক রুবিনা আক্তারের ভাই সামসুল হক মুন্সি বলেন,‘আমার বোনের খুনিদের বিচার না হওয়া পর্যন্ত আমি আইনের লড়াই চালিয়ে যাবো। এতে আমার যত কষ্টই হোক। ওদের মত নরপশুদের ছাড় দিলে আমার বোনের মত আরো অনেকের বোন এমন নৃশংসতার শিকার হবে। আমি আমার বোনের হত্যাকারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চাই।’

মামলায় বাদী পক্ষে হাইকোর্টের আইনজীবী ফয়জুর রহমান মনির বলেন, ‘বিবাদী পক্ষ পুলিশের দেয়া চার্জশীটের বিরুদ্ধে রিট করার পর থেকে দেশে করোনাভাইরাস মহামারি শুরু হয়। এতে মামলাটি ধীরগতিতে চলছে।’

নিহত শিক্ষিক রুবিনা আক্তারের মা রাবিয়া খাতুন বলেন, ‘আমার মেয়েকে যারা এমন নিষ্ঠুরের মত মারছে ওদের কঠিন বিচার চাই।’

জাজিরা উপজেলার শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক সি এম এনামুল হক বলেন, ‘আমাদের সহকর্মী রুবিনা আক্তারকে যেভাবে নৃশংসভাবে হত্যা করা হয়েছে। এমন একটি চাঞ্চল্যকর হত্যাকান্ডের বিচার আরো দ্রুত হওয়া উচিৎ ছিল। আমরা শিক্ষক রুবিনা আক্তারের হত্যাকারীদের দ্রুত ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চাই।’

নারী ও শিশু নির্যাতন বিরোধী সংগঠন নারী নির্যাতন দমন চাঁদনী মঞ্চের আহবায়ক জামাল মাদবর বলেন, শরীয়তপুরের জাজিরায় ২০১৫ সালে ৮ম শ্রেণির শিক্ষার্থী চাঁদনী আক্তার হেনাকে ধর্ষণ ও হত্যাকান্ডের পর আজ ৭ বছর পেড়িয়ে গিয়েছে।

‘এই হত্যাকান্ডের মামলাটি এখন স্থবির হয়েছে আছে। শিক্ষক রুবিনা আক্তার হত্যাকান্ডের মামলায়ও আজ ৪ বছর। অথচ এমন সব চাঞ্চল্যকর হত্যকান্ডের ঘটনায় বিচারকার্য নিরপেক্ষ ও দ্রুত পরিচালিত হওয়া উচিৎ ছিল। তাহলে অন্তত বার বার আমাদের এমন নৃশংস ঘটনার সাক্ষী হতে হতোনা। আশা করি মহামান্য হাইকোর্ট শিক্ষক রুবিনা আক্তারের পরিবারকে ন্যায়বিচার দিতে ও অপরাধীদের দ্রুত আইনের আওতায় এনে বিচারের দৃষ্টান্ত স্থাপণে পদক্ষেপ নিবেন।’

স্থানীয় ও মামলা সূত্রে জানা যায়, শিক্ষক রুবিনা আক্তার জাজিরা উপজেলার বড় মুলনা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষকতা করতেন।

২০১৮ সালের ২১ সেপ্টেম্বর দুপুরে বিদ্যালয়ের প্রয়োজনীয় কিছু কাগজপত্র ফটোকপি করার জন্য জাজিরা উপজেলা সদরে যাওয়ার কথা বলে বাড়ি থেকে বের হন রুবিনা আক্তার। এরপর আর ফিরে আসেননি।

তিনি বাড়ি না ফেরায় ২২ সেপ্টেম্বর তার ভাই সামসুল হক মুন্সি জাজিরা থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেন। ২৫ সেপ্টেম্বর গ্রামের বাসিন্দারা তাদের বাড়ির কাছে একটি বাঁশ বাগানে বাঁশের সঙ্গে ওড়না দিয়ে বাঁধা লাশের সন্ধান পেয়ে পুলিশে খবর দিলে পুলিশ এসে লাশ উদ্ধার করেন।

ছবি

হোটেলে ঢুকে গেল কাভার্ড ভ্যান, নিহত ৫

ছবি

মীরসরাইয়ে নাচে-গানে পিঠা-পুলিতে ধানকাটা উৎসব

ছবি

পাহাড়ে উন্নয়ন বাড়লেও থামেনি সংঘাত

ছবি

চুরির অপবাদ দিয়ে শিশু নির্যাতন, গ্রেপ্তার নির্যাতনকারী আ’লীগ নেতা

ছবি

উপকূল ঘিরে ফের সক্রিয় মানবপাচারকারী চক্র

দেড় ফুট রেললাইন ভাঙা : দুই শিশুর বুদ্ধিমত্তায় রক্ষা পেল ট্রেন

গৃহবধূ হত্যায় ৬ জনের দন্ড

দ্বিতীয় বিয়ে করায় বিধবার ঘরে তালা মাতব্বরদের!

ছবি

আর কত হলে মিলবে বয়স্ক ভাতা

‘বারইপাড়া খালে হাতির ঝিলের আদলে হবে ঝিল’

সুলতানের পালিত কন্যা নীহার বালা আর নেই

ভুয়া কষ্টিপাথরের মূর্তি বিক্রি চক্রের হোতা গ্রেপ্তার

ছবি

সীতাকুন্ডে সড়ক সংস্কারে তীব্র যানজট : দুর্ভোগে যাত্রীরা

ছবি

পরিত্যক্ত ঘোষণার ১৩ বছরেও স্কুল ভবন হয়নি : আতঙ্কে পাঠদান

সংবিধান মেনেই আগামী সংসদ নির্বাচন : আমু

ছবি

গাইবান্ধা-৫ ভোটে অনিয়ম: ১৩৩ জনের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিল ইসি

ছবি

স্কুলছাত্রীকে অপহরণ-ধর্ষণ: যুবকের ১৪ বছরের কারাদণ্ড

ছবি

রংপুর সিটি নির্বাচনে ১০ মেয়র প্রার্থীর মনোনয়ন বৈধ

ছবি

বীর মুক্তিযোদ্ধাকে হত্যা মামলার আসামির ফাঁসি কার্যকর

ছবি

ফরিদপুরে বিকট শব্দে ফাটল ৪ বোমা, এলাকাজুড়ে আতঙ্ক

ছবি

টুঙ্গিপাড়ায় বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে ওবায়দুল কাদেরের শ্রদ্ধা

ছবি

দু’দিন আগে রাজশাহীর আট জেলায় পরিবহন ধর্মঘট শুরু

ছবি

ছোট ভাই এর দা’র কোপে বড় ভাইয়ের মৃত্যু

ছবি

পরীক্ষার ফি ও কোচিংয়ের টাকা দিতে না পারায় স্কুলছাত্রীর আত্মহত্যা

ছবি

সেই আয়াতের বিচ্ছিন্ন মাথা পাওয়া গেল স্লুইস গেটে

ছবি

বগুড়ায় গুদাম থেকে ১১৩০ বস্তা চাল উদ্ধার

ছবি

চাঁপাইনবাবগঞ্জে অনির্দিষ্টকালের পরিবহন ধর্মঘট চলছে

ছবি

ধর্ষণ ও হত্যা মামলার আসামির ফাঁসি কার্যকর

ছবি

নভেম্বরে ডেঙ্গুতে সর্বোচ্চ মৃত্যুর রেকর্ড

১৩ দিন পর কৃষকের লাশ ফেরত দিল বিএসএফ

ছবি

মাঠে মাঠে ধান কাটার উৎসব

সাংবাদিক পরিচয়ে প্রতারণা : আটক ৩

ধান-চাল সংগ্রহ শুরু

শর্টসার্কিটের আগুনে দোকান ছাই

ডিউটি না করেই বেতন নিচ্ছেন খাদ্য অফিসের নিরাপত্তা প্রহরী

ছবি

নারী নির্যাতন প্রতিবাদ পক্ষ মানববন্ধন

tab

সারাদেশ

শিক্ষক হত্যার বিচার হয়নি ৪ বছরেও; জামিনে মুক্ত আসামীরা

মো. পলাশ খান, শরীয়তপুর(জাজিরা)

শুক্রবার, ০৭ অক্টোবর ২০২২

শরীয়তপুরের জাজিরা উপজেলার পশ্চিম রায়ের কান্দি গ্রামের বাসিন্দা স্কুল শিক্ষক রুবিনা আক্তার (৩৪) চার বছর আগে (২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮) নিখোঁজ হওয়ার পাঁচদিন পর ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮ সালে বিকেলে নিহতের নিজ বাড়ীর পিছনের একটি বাঁশ বাগানে পাওয়া যায়।

পরে এই ঘটনায় নিহত শিক্ষকের ভাই সামসুল হক মুন্সি অজ্ঞাতনামা আসামী করে জাজিরা থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। গত ২৫ সেপ্টেম্বর এই হত্যাকান্ডের ৪ বছর পেরুলেও অগ্রগতি নেই বিচারকার্যে।

মামলার প্রেক্ষিতে হত্যায় সংশ্লিষ্টতার সন্দেহে ওই বছর (২৭ সেপ্টেম্বর ২০১৮) তৎকালীন জাজিরা উপজেলা যুবলীগ নেতা ও নিহতের ভগ্নীপতি কামাল মাদবর ওরফে তমি কামাল কে আটক করে পরেরদিন জেল হাজতে প্রেরণ করেন জাজিরা থানা পুলিশ। এর কিছুদিন পরেই আটককৃত আসামীরা আদালত থেকে জামিনে মুক্তি পেয়ে বেড়িয়ে আসেন।

এই মামলায় পুলিশ ২০১৯ সালের মার্চে কামাল মাদবর ওরফে তমি কামাল সহ৫ জনকে আসামী করে একটি তদন্ত প্রতিবেদন(চার্জশিট) জমা দেয় আদালতে।

চার্জশিটভুক্ত বাকী আসামীরা হলেন- মেহেদী হাসান, মো: রাসেল মাদবর, সজিব হোসেন মাদবর ও রাকিব শাহ। কিন্তু উক্ত চার্জশীট সঠিক নয় দাবী করে আসামী কামাল মাদবর ওরফে তমি কামাল হাইকোর্টে একটি রিট দায়ের করেন। বর্তমানে মামলাটি হাইকোর্টে প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

এ বিষয়ে নিহত শিক্ষক রুবিনা আক্তারের ভাই সামসুল হক মুন্সি বলেন,‘আমার বোনের খুনিদের বিচার না হওয়া পর্যন্ত আমি আইনের লড়াই চালিয়ে যাবো। এতে আমার যত কষ্টই হোক। ওদের মত নরপশুদের ছাড় দিলে আমার বোনের মত আরো অনেকের বোন এমন নৃশংসতার শিকার হবে। আমি আমার বোনের হত্যাকারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চাই।’

মামলায় বাদী পক্ষে হাইকোর্টের আইনজীবী ফয়জুর রহমান মনির বলেন, ‘বিবাদী পক্ষ পুলিশের দেয়া চার্জশীটের বিরুদ্ধে রিট করার পর থেকে দেশে করোনাভাইরাস মহামারি শুরু হয়। এতে মামলাটি ধীরগতিতে চলছে।’

নিহত শিক্ষিক রুবিনা আক্তারের মা রাবিয়া খাতুন বলেন, ‘আমার মেয়েকে যারা এমন নিষ্ঠুরের মত মারছে ওদের কঠিন বিচার চাই।’

জাজিরা উপজেলার শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক সি এম এনামুল হক বলেন, ‘আমাদের সহকর্মী রুবিনা আক্তারকে যেভাবে নৃশংসভাবে হত্যা করা হয়েছে। এমন একটি চাঞ্চল্যকর হত্যাকান্ডের বিচার আরো দ্রুত হওয়া উচিৎ ছিল। আমরা শিক্ষক রুবিনা আক্তারের হত্যাকারীদের দ্রুত ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চাই।’

নারী ও শিশু নির্যাতন বিরোধী সংগঠন নারী নির্যাতন দমন চাঁদনী মঞ্চের আহবায়ক জামাল মাদবর বলেন, শরীয়তপুরের জাজিরায় ২০১৫ সালে ৮ম শ্রেণির শিক্ষার্থী চাঁদনী আক্তার হেনাকে ধর্ষণ ও হত্যাকান্ডের পর আজ ৭ বছর পেড়িয়ে গিয়েছে।

‘এই হত্যাকান্ডের মামলাটি এখন স্থবির হয়েছে আছে। শিক্ষক রুবিনা আক্তার হত্যাকান্ডের মামলায়ও আজ ৪ বছর। অথচ এমন সব চাঞ্চল্যকর হত্যকান্ডের ঘটনায় বিচারকার্য নিরপেক্ষ ও দ্রুত পরিচালিত হওয়া উচিৎ ছিল। তাহলে অন্তত বার বার আমাদের এমন নৃশংস ঘটনার সাক্ষী হতে হতোনা। আশা করি মহামান্য হাইকোর্ট শিক্ষক রুবিনা আক্তারের পরিবারকে ন্যায়বিচার দিতে ও অপরাধীদের দ্রুত আইনের আওতায় এনে বিচারের দৃষ্টান্ত স্থাপণে পদক্ষেপ নিবেন।’

স্থানীয় ও মামলা সূত্রে জানা যায়, শিক্ষক রুবিনা আক্তার জাজিরা উপজেলার বড় মুলনা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষকতা করতেন।

২০১৮ সালের ২১ সেপ্টেম্বর দুপুরে বিদ্যালয়ের প্রয়োজনীয় কিছু কাগজপত্র ফটোকপি করার জন্য জাজিরা উপজেলা সদরে যাওয়ার কথা বলে বাড়ি থেকে বের হন রুবিনা আক্তার। এরপর আর ফিরে আসেননি।

তিনি বাড়ি না ফেরায় ২২ সেপ্টেম্বর তার ভাই সামসুল হক মুন্সি জাজিরা থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেন। ২৫ সেপ্টেম্বর গ্রামের বাসিন্দারা তাদের বাড়ির কাছে একটি বাঁশ বাগানে বাঁশের সঙ্গে ওড়না দিয়ে বাঁধা লাশের সন্ধান পেয়ে পুলিশে খবর দিলে পুলিশ এসে লাশ উদ্ধার করেন।

back to top