alt

অর্থ-বাণিজ্য

মাংস আমদানি বন্ধে সরকারের কাছে ১০ দফা দাবি

অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক : রোববার, ২৫ অক্টোবর ২০২০
image

দেশের হোটেল রেস্তোরাঁগুলোতে বিদেশ থেকে আমদানি করা মাংস খাওয়ানো হয়। এতে দেশের খামারিরা কম দামেও গরু বিক্রি করতে পারে না। ফলে তাদের ব্যবসা ধ্বংস হতে বসেছে। তাই বিদেশ থেকে মাংস আমদানি বন্ধ করে দেশের খামারিদের বাঁচাতে সরকারের কাছে ১০ দফা দাবি জানিয়েছে বাংলাদেশ ডেইরি ফার্মারস অ্যাসোসিয়েশন।

রোববার (২৫ অক্টোবর) জাতীয় প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে এসব দশ দফা দাবির কথা জানান সংগঠনটির নেতারা।

বাংলাদেশ ডেইরি ফার্মারস অ্যাসোসিয়েশনের যাত্রাবাড়ী থানার সভাপতি এসএম শাহনুর বলেন, খামারিদের সবাইকে গরুর খাবার কিনেই খামার চালাতে হয়। গো-খাদ্যের দাম বেশি হলে খামারিরা ক্ষতিগ্রস্ত হন। তখন গরুর দাম বেশি হয়ে যায়। গরু উৎপাদনে আমাদের বেশি খরচ পড়ায় মাংস বেশি দামে বিক্রি করতে হয়। কিন্তু বিদেশি মাংস আরও কম দামে পেয়ে আমাদের কাছ থেকে আর নিতে চায় না। ফলে আমরা খামারিরা ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছি। গো-খাদ্যের দাম কমানোর জন্য সরকারের কাছে আমরা দাবি জানাচ্ছি।

গাবতলী গরুর হাট গরু ব্যবসায়ী সমিতির সাবেক সাধারণ সম্পাদক মজিবুর রহমান সংবাদ সম্মেলনে বলেন, ঢাকাসহ সারাদেশে হোটেল রেস্তোরাঁয় এখন বিদেশ থেকে আমদানি করা মাংস খাওয়ানো হয়। অন্যদিকে তারা গ্রাম থেকে এবং বিভিন্ন খামার থেকে গরু কিনে এনে দিনের পর দিন বাজারে বসে থাকেন, বিক্রি হয় না। অনেক সময় কম দামেও গরু বিক্রি করতে হয়। আমাদের তো অন্য কোন কাজ জানা নেই, সারা জীবন ধরেই গরু ব্যবসার সঙ্গে জড়িত রয়েছি। আমাদের ব্যবসা এখন ধ্বংস হয়ে যাচ্ছে। গো-খাদ্যের দাম কমালে আমরা কম দামে গরু কিনতে পারব। আমাদের ব্যবসাটা বাঁচান।

হিমায়িত মাংস আমদানি বন্ধে সরকারের সরাসরি হস্তক্ষেপ চেয়ে চট্টগ্রামের ব্যবসায়ী ওয়াসিব জামান বলেন, আমরা মানসম্মত গরু উৎপাদন করছি। অথচ বিদেশ থেকে হিমায়িত মাংস আমদানি করে একদিকে সাধারণ মানুষের ক্ষতি করছে, অপরদিকে আমরা যারা খামারি আছি, তারা ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছি। বিদেশ থেকে হিমায়িত মাংস আমদানি বন্ধ করা হোক।

ঢাকা ও ঢাকার বাইরে থেকে আসা খামারিদের উপস্থিতিতে এই সংবাদ সম্মেলনে সংগঠনের সভাপতি মোহাম্মদ ইমরান হোসেন তাদের দশ দফা দাবি পড়ে শোনান। দাবিগুলো হলো- ১. টিসিবির মাধ্যমে পশুখাদ্য আমদানি করে প্রতিটি উপজেলায় খামারিদের মাঝে দ্রুত বিতরণের ব্যবস্থা করা। ২. দেশের মাংস শিল্পকে রক্ষার জন্য ভারত থেকে হিমায়িত মাংস আমদানি বন্ধ করা। ৩. বাণিজ্যিক হারের বদলে কৃষি খাতের হারে পশুর খামারের বিদ্যুৎ বিল নির্ধারণ। ৪. এই শিল্পে বিশ বছর আয়কর বেয়াত দেয়া। ৫. এন্টি ডাম্পিং ট্যাক্স আরোপের মাধ্যমে গুঁড়া দুধ আমদানিতে শুল্ক হার বাড়িয়ে শতভাগ করা। ৬. আমদানি কমিয়ে দেশে সরকারি ও বেসরকারি পর্যায়ে গুঁড়া দুধের প্লান্ট নির্মাণ করে দেশীয় শিল্পকে অগ্রাধিকার দেয়া। ৭. আমদানি করা নিম্নমানের কাঁচামাল দিয়ে অস্বাস্থ্যকর কনডেনসড মিল্ক তৈরি বন্ধ করে দেশীয় দুধ ও কাঁচামাল দিয়ে কনডেনসড মিল্ক তৈরি। ৮. খামারিদের বিনা জামানতে কম সুধে ঋণ সুবিধা দেয়া। ৯. ডেইরি বোর্ড গঠন। ১০. পশু ভ্যাকসিন, ওষুধ এবং চিকিৎসাসেবা সহজতর করা এবং বিনামূল্যে দেয়া।

বাংলাদেশের আমদানি নীতি অনুযায়ী, শূকর ছাড়া অন্য কোন পশুর হিমায়িত মাংস আমদানিতে কোন নিষেধাজ্ঞা নেই। প্রাণিসম্পদ অধিদফতরের অনুমতি নিয়ে কয়েকটি শর্ত পূরণ করে ৩৩ শতাংশ শুল্ক দিয়ে হিমায়িত মাংস আমদানি করা যায়। শর্ত হলো, মোড়কের গায়ে উৎপাদনের তারিখ ও মেয়াদোত্তীর্ণের তারিখ থাকতে হবে, মাংস অ্যান্টিবায়োটিক বা রোগমুক্ত কিনা- সেই সনদ থাকতে হবে এবং বন্দরে খালাসের সময় সেই মাংস পরীক্ষা করবে বাংলাদেশি কর্তৃপক্ষ। গত বছর প্রতি মাসে গড়ে পাঁচ লাখ ১৬ হাজার কেজি মাংস আমদানি হয়েছে দেশে। এর বেশিরভাগটাই আসে পাশের দেশ ভারত থেকে। এছাড়া চীন, মায়ানমার ও নেপাল থেকেও আমদানি হয়।

ট্যারিফ কমিশনের তথ্য অনুযায়ী, আমদানি করা এসব হিমায়িত মাংসের দাম স্থানীয়ভাবে উৎপাদিত মাংসের বাজার মূল্য থেকে অর্ধেক। ফলে হোটেল রেস্তোরাঁগুলো বেশি লাভের জন্য দেশি গরুর মাংসের বদলে আমদানি করা মাংসই বিক্রি করছে। অথচ প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের হিসাবে, প্রতিবছর দেশে প্রায় আড়াই লাখ টন মাংস উদ্বৃত্ত হয়। কোরবানির চাহিদা এখন দেশে উৎপাদিত পশু দিয়েই শতভাগ পূরণ হয়। সে কারণে দেশের খামারিদের স্বার্থ রক্ষায় বিদেশ থেকে হিমায়িত গরুর মাংস আমদানি না করার দাবি জানিয়ে আসছে এ খাত সংশ্লিষ্ট সংগঠনগুলো। এ বিষয়ে একটি রিট আবেদনের প্রেক্ষিতে গত বছর হাইকোর্টের একটি বেঞ্চ রুলও জারি করে, যা এখনও শুনানির অপেক্ষায় রায়েছে।

মিউচুয়াল ট্রাস্টও ইভ্যালি, আলেশা মার্টের সঙ্গে কার্ড লেনদেনে নিষেধাজ্ঞা দিল

বন্ড ইস্যুতে সংশোধনী আনছে পূবালী-ব্যাংক এশিয়া

ছবি

ব্র্যাক ব্যাংকের নতুন ডিএমডি চৌধুরী মইনুল ইসলাম

ছবি

হজ্ব ও ওমরাহ পালনের জন্য চালু করা হলো জীবন বীমা

ব্যবসা সম্প্রসারণে ঢাকায় আসছে কঙ্গোর প্রতিনিধি দল

ইকমার্স সাইট থেকে পণ্য বুঝে পেয়ে দাম পরিশোধ

ব্র্যাকের পর লেনদেনে নিষেধাজ্ঞা দিল আরও দুই ব্যাংক

লেনদেন কমলেও সূচক বেড়েছে শেয়ারবাজারে

১৫ ফেব্রুয়ারির পর এলসি খোলা যাবে না

ছবি

দুই বছরে ২ দশমিক ৬ ট্রিলিয়ন ডলারের হালাল পণ্যের বাজার সৃষ্টি হবে

লেনদেনের বড়পতনেও সূচক বেড়েছে অর্ধশত পয়েন্ট

ছবি

ডিএসইতে সূচক বাড়লেও সিএসইতে কমেছে

ছবি

বেসরকারি খাত শক্তিশালী করতে আইনকানুন সংস্কার প্রয়োজন

ছবি

চ্যালেঞ্জ থাকলেও সামষ্টিক অর্থনীতির গতি ঊর্ধ্বমুখী : অর্থমন্ত্রী

ছবি

ইভ্যালিসহ ১০ ই-কমার্সে কেনাকাটায় ব্র্যাক ব্যাংকের নিষেধাজ্ঞা

ফের শেয়ারবাজারে বড় পতন

বেক্সিমকোর সুকুক বন্ডের অনুমোদন

ছবি

প্রধানমন্ত্রীর দীর্ঘায়ু কামনা করে বিড়ি শ্রমিকদের দোয়া

শান্তা ফিক্সড ইনকাম ফান্ডের খসড়া প্রসপেক্টাস অনুমোদন

ইউনিয়ন ইন্স্যুরেন্সের আইপিও অনুমোদন

ছবি

সূচকের পতনে শেষ হলো লেনদেন

ছবি

১৫৯ জনকে ছাঁটাই করলো গ্রামীণফোন, প্রতিবাদ কর্মীদের

ছবি

ইএফডির জন্য বৈষম্যের স্বীকার ব্যবসায়ীরা

৮ জুলাই থেকে চালু হচ্ছে ই-রিটার্ন সিস্টেম

করোনা মোকাবিলায় সাড়ে ১৩ কোটি টাকা সহায়তা স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড ব্যাংকের

‘এমবিএল রেইনবো’ নিয়ে ভার্চুয়াল প্রশিক্ষণ মার্কেন্টাইল ব্যাংকের

ব্রোকারেজ হাউজে রাখা অর্থের সুদের ভাগ পাবেন বিনিয়োগকারীরা

চারটি অর্থনৈতিক অঞ্চলে জমি ইজারা পেল ছয় প্রতিষ্ঠান

ছবি

ডিএসইতে সূচকের মিশ্র প্রবণতায় লেনদেন চলছে

ই-মেইলের লিংক ক্লিকেই রিজার্ভের টাকা চুরি

ছবি

কাজুবাদাম, কফির সম্ভাবনাকে কাজে লাগাতে সমন্বিত উদ্যোগ চলছে: কৃষিমন্ত্রী

ছবি

২০২৫ সালের মধ্যে ৩০০ বিলিয়ন ডলারের বাজার হবে অগমেন্টেড রিয়েলিটি

বর্তমান বাজার ব্যবস্থায় বৈষম্যহীন সমাজ প্রশ্নসাপেক্ষ

ছবি

বীমা কোম্পানির পরিচালকদের ৬০ শতাংশ শেয়ার ধারণ করতে হবে : আইডিআরএ

ছবি

ওয়ালটন কারখানা পরিদর্শন করলেন বিএসইসি চেয়ারম্যান

বাণিজ্য সম্প্রসারণে একযোগে কাজ করবে বাংলাদেশ-ভিয়েতনাম

tab

অর্থ-বাণিজ্য

মাংস আমদানি বন্ধে সরকারের কাছে ১০ দফা দাবি

অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক
image

রোববার, ২৫ অক্টোবর ২০২০

দেশের হোটেল রেস্তোরাঁগুলোতে বিদেশ থেকে আমদানি করা মাংস খাওয়ানো হয়। এতে দেশের খামারিরা কম দামেও গরু বিক্রি করতে পারে না। ফলে তাদের ব্যবসা ধ্বংস হতে বসেছে। তাই বিদেশ থেকে মাংস আমদানি বন্ধ করে দেশের খামারিদের বাঁচাতে সরকারের কাছে ১০ দফা দাবি জানিয়েছে বাংলাদেশ ডেইরি ফার্মারস অ্যাসোসিয়েশন।

রোববার (২৫ অক্টোবর) জাতীয় প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে এসব দশ দফা দাবির কথা জানান সংগঠনটির নেতারা।

বাংলাদেশ ডেইরি ফার্মারস অ্যাসোসিয়েশনের যাত্রাবাড়ী থানার সভাপতি এসএম শাহনুর বলেন, খামারিদের সবাইকে গরুর খাবার কিনেই খামার চালাতে হয়। গো-খাদ্যের দাম বেশি হলে খামারিরা ক্ষতিগ্রস্ত হন। তখন গরুর দাম বেশি হয়ে যায়। গরু উৎপাদনে আমাদের বেশি খরচ পড়ায় মাংস বেশি দামে বিক্রি করতে হয়। কিন্তু বিদেশি মাংস আরও কম দামে পেয়ে আমাদের কাছ থেকে আর নিতে চায় না। ফলে আমরা খামারিরা ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছি। গো-খাদ্যের দাম কমানোর জন্য সরকারের কাছে আমরা দাবি জানাচ্ছি।

গাবতলী গরুর হাট গরু ব্যবসায়ী সমিতির সাবেক সাধারণ সম্পাদক মজিবুর রহমান সংবাদ সম্মেলনে বলেন, ঢাকাসহ সারাদেশে হোটেল রেস্তোরাঁয় এখন বিদেশ থেকে আমদানি করা মাংস খাওয়ানো হয়। অন্যদিকে তারা গ্রাম থেকে এবং বিভিন্ন খামার থেকে গরু কিনে এনে দিনের পর দিন বাজারে বসে থাকেন, বিক্রি হয় না। অনেক সময় কম দামেও গরু বিক্রি করতে হয়। আমাদের তো অন্য কোন কাজ জানা নেই, সারা জীবন ধরেই গরু ব্যবসার সঙ্গে জড়িত রয়েছি। আমাদের ব্যবসা এখন ধ্বংস হয়ে যাচ্ছে। গো-খাদ্যের দাম কমালে আমরা কম দামে গরু কিনতে পারব। আমাদের ব্যবসাটা বাঁচান।

হিমায়িত মাংস আমদানি বন্ধে সরকারের সরাসরি হস্তক্ষেপ চেয়ে চট্টগ্রামের ব্যবসায়ী ওয়াসিব জামান বলেন, আমরা মানসম্মত গরু উৎপাদন করছি। অথচ বিদেশ থেকে হিমায়িত মাংস আমদানি করে একদিকে সাধারণ মানুষের ক্ষতি করছে, অপরদিকে আমরা যারা খামারি আছি, তারা ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছি। বিদেশ থেকে হিমায়িত মাংস আমদানি বন্ধ করা হোক।

ঢাকা ও ঢাকার বাইরে থেকে আসা খামারিদের উপস্থিতিতে এই সংবাদ সম্মেলনে সংগঠনের সভাপতি মোহাম্মদ ইমরান হোসেন তাদের দশ দফা দাবি পড়ে শোনান। দাবিগুলো হলো- ১. টিসিবির মাধ্যমে পশুখাদ্য আমদানি করে প্রতিটি উপজেলায় খামারিদের মাঝে দ্রুত বিতরণের ব্যবস্থা করা। ২. দেশের মাংস শিল্পকে রক্ষার জন্য ভারত থেকে হিমায়িত মাংস আমদানি বন্ধ করা। ৩. বাণিজ্যিক হারের বদলে কৃষি খাতের হারে পশুর খামারের বিদ্যুৎ বিল নির্ধারণ। ৪. এই শিল্পে বিশ বছর আয়কর বেয়াত দেয়া। ৫. এন্টি ডাম্পিং ট্যাক্স আরোপের মাধ্যমে গুঁড়া দুধ আমদানিতে শুল্ক হার বাড়িয়ে শতভাগ করা। ৬. আমদানি কমিয়ে দেশে সরকারি ও বেসরকারি পর্যায়ে গুঁড়া দুধের প্লান্ট নির্মাণ করে দেশীয় শিল্পকে অগ্রাধিকার দেয়া। ৭. আমদানি করা নিম্নমানের কাঁচামাল দিয়ে অস্বাস্থ্যকর কনডেনসড মিল্ক তৈরি বন্ধ করে দেশীয় দুধ ও কাঁচামাল দিয়ে কনডেনসড মিল্ক তৈরি। ৮. খামারিদের বিনা জামানতে কম সুধে ঋণ সুবিধা দেয়া। ৯. ডেইরি বোর্ড গঠন। ১০. পশু ভ্যাকসিন, ওষুধ এবং চিকিৎসাসেবা সহজতর করা এবং বিনামূল্যে দেয়া।

বাংলাদেশের আমদানি নীতি অনুযায়ী, শূকর ছাড়া অন্য কোন পশুর হিমায়িত মাংস আমদানিতে কোন নিষেধাজ্ঞা নেই। প্রাণিসম্পদ অধিদফতরের অনুমতি নিয়ে কয়েকটি শর্ত পূরণ করে ৩৩ শতাংশ শুল্ক দিয়ে হিমায়িত মাংস আমদানি করা যায়। শর্ত হলো, মোড়কের গায়ে উৎপাদনের তারিখ ও মেয়াদোত্তীর্ণের তারিখ থাকতে হবে, মাংস অ্যান্টিবায়োটিক বা রোগমুক্ত কিনা- সেই সনদ থাকতে হবে এবং বন্দরে খালাসের সময় সেই মাংস পরীক্ষা করবে বাংলাদেশি কর্তৃপক্ষ। গত বছর প্রতি মাসে গড়ে পাঁচ লাখ ১৬ হাজার কেজি মাংস আমদানি হয়েছে দেশে। এর বেশিরভাগটাই আসে পাশের দেশ ভারত থেকে। এছাড়া চীন, মায়ানমার ও নেপাল থেকেও আমদানি হয়।

ট্যারিফ কমিশনের তথ্য অনুযায়ী, আমদানি করা এসব হিমায়িত মাংসের দাম স্থানীয়ভাবে উৎপাদিত মাংসের বাজার মূল্য থেকে অর্ধেক। ফলে হোটেল রেস্তোরাঁগুলো বেশি লাভের জন্য দেশি গরুর মাংসের বদলে আমদানি করা মাংসই বিক্রি করছে। অথচ প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের হিসাবে, প্রতিবছর দেশে প্রায় আড়াই লাখ টন মাংস উদ্বৃত্ত হয়। কোরবানির চাহিদা এখন দেশে উৎপাদিত পশু দিয়েই শতভাগ পূরণ হয়। সে কারণে দেশের খামারিদের স্বার্থ রক্ষায় বিদেশ থেকে হিমায়িত গরুর মাংস আমদানি না করার দাবি জানিয়ে আসছে এ খাত সংশ্লিষ্ট সংগঠনগুলো। এ বিষয়ে একটি রিট আবেদনের প্রেক্ষিতে গত বছর হাইকোর্টের একটি বেঞ্চ রুলও জারি করে, যা এখনও শুনানির অপেক্ষায় রায়েছে।

back to top