alt

অপরাধ ও দুর্নীতি

রাশিয়া থেকে জুয়ার সাইট নিয়ন্ত্রণ, দেশে ল্যাব তৈরি করে পরিচালনা

প্রতি মাসে ২০ কোটি টাকা করে পাচার, গত ১ বছর ধরে

চক্রের এজেন্টসহ ৬ জনকে গ্রেপ্তার

সাইফ বাবলু : শুক্রবার, ০১ সেপ্টেম্বর ২০২৩

অনলাইন জুয়ার বিনিয়োগের অর্থ কৌশলে চলে যাচ্ছে দেশের বাইরে। কিপ্টো কারেন্সির মাধ্যমে রাশিয়াসহ বিভিন্ন দেশ থেকে অনলাইন জুয়ার অ্যাপস নিয়ন্ত্রণ করা হচ্ছে। বাংলাদেশের কয়েকটি এলাকায় এ জুয়ার কার্যক্রমের সঙ্গে যুক্ত এজেন্টরা বাসায় ল্যাব তৈরি করে সাইটগুলো পরিচালনা করছে। সম্প্রতি রাশিয়া থেকে নিয়ন্ত্রিত ৩টি অনলাইন জুয়ার সাইট নজরে আসার পর পুলিশ অভিযান চালিয়ে ৬ জনকে গ্রেপ্তার করেছে। তাদের দেয়া তথ্যে চক্রের মূল নিয়ন্ত্রণ হিসেবে রাশিয়া প্রবাসী বাংলাদেশি এক নাগরিকের নাম পেয়েছে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ সিআইডি। সিআইডি বলছে, চক্রটি বাংলাদেশ থেকে গত ১ বছর ধরে প্রতি মাসে ২০ কোটি টাকা করে পাচার করেছে বলে তথ্য মিলেছে। চক্রের সদস্যদের সঙ্গে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে বিভিন্ন কোম্পানির মোবাইল ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিস (এমএফএস) এর এজেন্ট-কর্মচারীরাও যুক্ত।

সিআইডি জানিয়েছে, সিআইডির সাইবার ইন্টেলিজেন্ট অ্যান্ড রিস্ক ম্যানেজম্যান টিমের সদস্য দীর্ঘদিন ধরে মনিটরিং করার পর অনলাইন প্ল্যাটফর্মে Mel Bet, 1x Bet Ges Bet winner নামের বেটিং সাইটসমূহ নজরে আসে। সিআইডি লক্ষ্য করে সেখানে বাংলাদেশের প্রচুর গ্রাহক বেটিং বা জুয়া খেলায় অংশগ্রহণ করছে। সিআইডিপ্রধান অতিরিক্ত আইজিপি মোহাম্মদ আলী মিয়া নির্দেশনায় ওই তিনটি সাইটের বিভিন্ন তথ্য-উপাত্ত এনালাইসিস করে সিআইডি সাইবার ইন্টেলিজেন্স অ্যান্ড রিস্ক ম্যানেজমেন্ট-এর একটি টিম।

গত ৩১ আগস্ট বৃহস্পতিবার সিআইডির সাইবার টিমের পুলিশ সুপার রেজাউল মাসুদের নেতৃত্বাধীন টিমের সদস্যরা ঢাকার মোহাম্মদপুর, বনশ্রী ও আগারগাঁও এবং সিরাজগঞ্জ জেলার শাহজাদপুর থানা এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে। অভিযানে মো. রেজাউল করিম (৩১), মো. সৈকত রহমান (৩০), মো. সাদিকুল ইসলাম (২৮), নাজমুল আহসান (৩০), মো. তৌহিদ হোসেন (২৫) এবং মো. জাকির হোসেন (৩৪) আটক করা হয়। গ্রেপ্তারকালীন সময়ে তাদের কাছ থেকে ১৭টি বিভিন্ন ব্রান্ডের মোবাইল ফোন, ২১টি সিম, ল্যাপটপ ৪টি, ডেস্কটপ কম্পিউটার ৭টি, ট্যাব ২টি, এবং নগদ প্রায় ৪ লাখ টাকা উদ্ধার করা হয়। আটককৃতদের বিরুদ্ধে শুক্রবার (১ সেপ্টেম্বর) রাজধানীর পল্টন মডেল থানায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে একটি মামলা করা হয়েছে।

সিআইডির ভাষ্য, অনলাইন জুয়ায় টাকা দিয়ে খেলায় অংশ নেয় জুয়াড়িরা। বেটার রা কিপ্টো কারেন্সির মাধ্যমে টাকা বিনিয়োগ করে অ্যাপসে। আর এসব অর্থ কৌশলে চলে যায় দেশের বাইরে। দীর্ঘদিন ধরে অনলাইনে জুয়া খেলার বিভিন্ন অ্যাপসে জুয়াড়িদের সংখ্যা বেড়েই যাচ্ছে। বাংলাদেশের বিভিন্ন জেলায় জুয়ার সাইটগুলো পরিচালনার জন্য আপস নিয়ন্ত্রণকারীরা বাংলাদেশ তাদের নিজস্ব প্রতিনিধি নিয়োগ করেছে। এসব প্রতিনিধিরা নিজ নিজ বাসায় ডিজিটাল ল্যাব তৈরি করে একাধিক কম্পিউটার বসিয়ে জুয়ার সাইটগুলো পরিচালনা করছে।

সিআইডির তদন্ত সংশ্লিষ্টায় জানিয়েছেন, অন লাইনে জুয়া খেলায় অংশগ্রহণকারীদের একটি বড় অংশ উঠতি বয়সের তরুণ- তরুণীরা। এছাড়া স্কুল-কলেজসহ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের একটি বড় অংশও এখন অনলাইন জুয়ায় জড়িয়ে পড়েছে। একটি সংঘবদ্ধ চক্র বিভিন্ন ধরনের অ্যাপসে এসব তরুন-তরুণী ও শিক্ষার্থীদের নানা কৌশলে অনলাইনে জুয়া খেলায় সম্পৃক্ত করতে লোভনীয় অফার দিচ্ছে। আর এ ফাঁদে পড়ে অংশগ্রহণকারীরা যে টাকা কিপ্টো কারেন্সির মাধ্যমে দিচ্ছে তা কৌশলে দেশের বাইরে পাচার হচ্ছে। সম্প্রতি মেল বেট ও ওয়ান এক্স বেট এবং বেট উইনার নামে ৩টি জুয়ার মাধ্যমে দেশ থেকে কোটি টাকা পাচার হওয়ার প্রমাণ পেয়েছে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ সিআইডি।

সিআইডি বলছে, রাশিয়া থেকে মূলত এই সমস্ত অনলাইন জুয়ার ওয়েবসাইট নিয়ন্ত্রণ করা হয়। বিভিন্ন দেশে স্থানীয়ভাবে নিয়ন্ত্রণের জন্য ম্যানেজার নিয়োগ করা হয়। ম্যানেজার বাংলাদেশে জুয়ার এজেন্ট হিসাবে বিশ্বস্তদের নিয়োগ দেয়। জুয়ার এজেন্টরা এ সমস্ত অ্যাপস পরিচালনা করতে পারে টেকনিক্যালি দক্ষ এমন লোক রাখেন।

গ্রেপ্তারকৃত রেজাউল করিম তার বাসায় ৭টি কম্পিউটার ও ৪টি ল্যাপটপ নিয়ে টেকনিক্যালি দক্ষ কয়েকজনকে সঙ্গে নিয়ে আইটি ল্যাব তৈরি করে এই জুয়ার কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছিল। জুয়ার টাকা লেনদেনের জন্য তাদের সঙ্গে যুক্ত হন গ্রেপ্তারকৃত সাদিকুল ও জাকির হোসেনের মতো এমএফএস এজেন্ট। গ্রেপ্তারকৃত নাজমুল, তৌহিদদের মতো এমএফএস ডিস্ট্রিবিউশন হাউসের কিছু অসাধু কর্মচারীর সহযোগিতায় এই চক্র এজেন্ট সিম সংগ্রহ করে অনলাইন জুয়ার কাজসমূহ নির্বিঘেœ করতে পারে।

আটককৃত চক্রটি ঢাকার বিভিন্ন এলাকা এবং দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলসমূহে এই জুয়ার কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছে। গ্রেপ্তারকৃতদের জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়, শরীয়তপুরের বাসিন্দা মতিউর রহমান যিনি রাশিয়ার মস্কোতে অবস্থান করছেন তিনি মূলত এই সাইটসমূহের বাংলাদেশের দায়িত্বে রয়েছেন। তার সহযোগী হিসেবে রয়েছেন যশোরের আশিকুর রহমান।

এই দুইজন এবং গ্রেপ্তারকৃত সৈকত ও রেজাউল এই চারজনের সমন্বয়ে বাংলাদেশে এ তিনটি ওয়েবসাইটের নিয়ন্ত্রণ করা হয়। তাদের মাধ্যমে জুয়ার এজেন্টরা ওয়েবসাইটে ব্যবহৃত এমএফএস (এজেন্ট সিম) ব্যবহার করে সারা বাংলাদেশ থেকে জুয়াড়িদের টাকা সংগ্রহ করে প্রতি মাসে এই চক্রটি এমএফএস এবং বিভিন্ন ব্যাংকের মাধ্যমে কয়েক কোটি টাকা লেনদেন করে। কমিশন বাবদ তারা টাকার একটা ক্ষুদ্র অংশ পেয়ে জুয়াড়িদের কাছ থেকে সংগৃহীত পুরো টাকা অ্যাপস পরিচালনাকারীদের কাছে হুন্ডি কিংবা ক্রিপ্টো কারেন্সিতে কনভার্ট করে রাশিয়াতে পাঠিয়ে দেয়া হয়।

সাইবার টিমের পুলিশ সুপার রেজাউল মাসুদ টেলিফোনে সংবাদকে জানান, শরিয়তপুরের বাসিন্দা মতিউর রহমান এ অনলাইন জুয়া চক্রের মূল দলনেতা। গ্রেপ্তারকৃতরা তার অনেকগুলো গ্রুপের একটি গ্রুপ। গ্রেপ্তারকৃত গ্রুপের কাছ থেকে প্রতি মাসে কমপক্ষে ২০ কোটি টাকা পেতো মতিউর। তার এ গ্রুপের রেজাউল ও সৈকত অ্যাপস পরিচালনা করে মাসে ৭০ হাজার টাকা পেতেন। এজেন্টরা টাকা লেনদেন করে একটি কমিশন পেতেন। যে মোবাইল সিমগুলো উদ্ধার হয়েছে প্রতিটি সিমের বিপরীতে ২০ লাখ টাকা করে লেনদেনের তথ্য মিলেছে।

রেজাউল মাসুদ জানান, আমরা ধারণা করছি মতিউরের আরও একাধিক গ্রুপ রয়েছে। যে অ্যাপসগুলো দ্বারা জুয়া চলতো এসব অ্যাপসে অনেক নামীদামি মডেল, অভিনেতা অভিনেত্রীদের বিজ্ঞাপন দিতেও দেখা গেছে। এ রকম আরও জুয়ার সাইট আছে কি না সে বিষয়ে তদন্ত চলছে।

কিশোরী কন্যাকে ধর্ষণের দায়ে জন্মদাতার যাবজ্জীবন

ছবি

সিলেটে ৭ জুয়াড়ি গ্রেফতার

প্রশ্নপত্র কিনে সহযোগী দুই ভাইকে দিতেন পিএসসির অফিস সহায়ক সাজেদুল

ছবি

গরুকাণ্ডে ফাঁসছেন সাদিক অ্যাগ্রোর ইমরান ও প্রাণিসম্পদের কর্মকর্তারা

ছবি

এমপি আজীম খুন : আরও দুই খুনি ভারতে

ছাত্রীকে আটকে রেখে ধর্ষণ, নির্যাতন

ছবি

প্রশ্ন ফাঁস: বরখাস্ত ৫ কর্মীর বিষয়ে তদন্ত করতে দুদকে চিঠি দিলো পিএসসি

ছবি

স্ত্রীসহ ডিপিডিসির ব্যবস্থাপকের বিরুদ্ধে দুদকের মামলা

ছবি

প্রশ্নফাঁসের মাস্টারমাইন্ড নোমান সিদ্দিক

ছবি

প্রশ্ন ফাঁসের ঘটনায় পিএসসির ২ উপপরিচালকসহ ১৭ জন গ্রেপ্তার

ছবি

অভিযোগ গঠন বাতিল চেয়ে হাইকোর্টে ড. ইউনূস

ছবি

জয়পুরহাটে তিন মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার

ছবি

মুন্সীগঞ্জে ইউপি চেয়ারম্যানকে গুলি করে হত্যা

জাটকা নিধন রোধে অভিযান, গ্রেপ্তার ৮ হাজার জেলে

ছবি

ঘোড়াঘাটে টিকটকের আড়ালে সমকামী ভিডিও তৈরি, পুলিশের জালে দুই যুবক

ছবি

এনবিআরের সাবেক কর্মকর্তা মতিউরের পরিবারের সম্পদ ক্রোকের নির্দেশ

ছবি

ড. ইউনূসসহ ৪ জনের জামিনের মেয়াদ ফের বাড়লো

ছবি

"অবৈধ সম্পদ: চিত্রনায়ক শান্ত খানের বিরুদ্ধে দুদকের মামলা দায়ের"

ছবি

১৩ বছর পর সাভারে সাবেক এমপির স্ত্রী হত্যার রহস্য উদ্ঘাটন

ছবি

সাজা কখনও স্থগিত হয় না : ড. ইউনূসের মামলার পর্যবেক্ষণে হাইকোর্ট

ছবি

সাবেক ডিসি ও জজসহ ৫ জনের বিরুদ্ধে দুদকের অভিযোগপত্র দাখিল

ছবি

নকল কসমেটিকস উৎপাদন : ৭ প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা সাড়ে ১৪ লাখ টাকা

চাঁদপুরে কোহিনুর হত্যা মামলায় ২ আসামীর মৃত্যুদণ্ড

ছবি

মাথাচাড়া দিচ্ছে নিত্য-নতুন সাইবার অপরাধ: সিক্যাফ’র গবেষণা

ছবি

কেন্দ্রে প্রভাষকসহ ১০ শিক্ষার্থী বহিষ্কার

ছাগলকাণ্ডে বেরিয়ে আসছে আরও দুর্নীতি

সোনারগাঁয়ে বিচার শালিসে সন্ত্রাসী হামলায় দলিল লেখক গুলিবিদ্ধ

ছবি

নরসিংদীতে ভূয়া পুলিশ আটক

সোনারগাঁয়ে সাবেক নারী সদস্যকে শ্লীলতাহানি করে পেটালেন ইউপি সদস্য

সিলেটে কাউন্সিলর আজাদের বাসভবনে হামলা, সিসিক মেয়র ও কাউন্সিলরদের নিন্দা

ছবি

জুড়ীতে জুয়াড়িদের অভ্যন্তরীণ লেনদেনের বলি আরমান

পীরগাছায় স্কুল ছাত্রীকে অপহরণের অভিযোগ

ছবি

মতিউর আসলে কোথায়?

ছবি

সৎ মেয়েকে ধর্ষণ, ফরিদপুরে সাবেক বিডিআর কর্মকর্তার যাবজ্জীবন কারাদন্ড

ছবি

এমপি আনার হত্যা: মোস্তাফিজ ও ফয়সাল ৬ দিনের রিমান্ডে

ছবি

রাবিতে পুলিশ ফাঁড়ির নিকটে ছিনতাই, গ্রেফতার ১

tab

অপরাধ ও দুর্নীতি

রাশিয়া থেকে জুয়ার সাইট নিয়ন্ত্রণ, দেশে ল্যাব তৈরি করে পরিচালনা

প্রতি মাসে ২০ কোটি টাকা করে পাচার, গত ১ বছর ধরে

চক্রের এজেন্টসহ ৬ জনকে গ্রেপ্তার

সাইফ বাবলু

শুক্রবার, ০১ সেপ্টেম্বর ২০২৩

অনলাইন জুয়ার বিনিয়োগের অর্থ কৌশলে চলে যাচ্ছে দেশের বাইরে। কিপ্টো কারেন্সির মাধ্যমে রাশিয়াসহ বিভিন্ন দেশ থেকে অনলাইন জুয়ার অ্যাপস নিয়ন্ত্রণ করা হচ্ছে। বাংলাদেশের কয়েকটি এলাকায় এ জুয়ার কার্যক্রমের সঙ্গে যুক্ত এজেন্টরা বাসায় ল্যাব তৈরি করে সাইটগুলো পরিচালনা করছে। সম্প্রতি রাশিয়া থেকে নিয়ন্ত্রিত ৩টি অনলাইন জুয়ার সাইট নজরে আসার পর পুলিশ অভিযান চালিয়ে ৬ জনকে গ্রেপ্তার করেছে। তাদের দেয়া তথ্যে চক্রের মূল নিয়ন্ত্রণ হিসেবে রাশিয়া প্রবাসী বাংলাদেশি এক নাগরিকের নাম পেয়েছে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ সিআইডি। সিআইডি বলছে, চক্রটি বাংলাদেশ থেকে গত ১ বছর ধরে প্রতি মাসে ২০ কোটি টাকা করে পাচার করেছে বলে তথ্য মিলেছে। চক্রের সদস্যদের সঙ্গে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে বিভিন্ন কোম্পানির মোবাইল ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিস (এমএফএস) এর এজেন্ট-কর্মচারীরাও যুক্ত।

সিআইডি জানিয়েছে, সিআইডির সাইবার ইন্টেলিজেন্ট অ্যান্ড রিস্ক ম্যানেজম্যান টিমের সদস্য দীর্ঘদিন ধরে মনিটরিং করার পর অনলাইন প্ল্যাটফর্মে Mel Bet, 1x Bet Ges Bet winner নামের বেটিং সাইটসমূহ নজরে আসে। সিআইডি লক্ষ্য করে সেখানে বাংলাদেশের প্রচুর গ্রাহক বেটিং বা জুয়া খেলায় অংশগ্রহণ করছে। সিআইডিপ্রধান অতিরিক্ত আইজিপি মোহাম্মদ আলী মিয়া নির্দেশনায় ওই তিনটি সাইটের বিভিন্ন তথ্য-উপাত্ত এনালাইসিস করে সিআইডি সাইবার ইন্টেলিজেন্স অ্যান্ড রিস্ক ম্যানেজমেন্ট-এর একটি টিম।

গত ৩১ আগস্ট বৃহস্পতিবার সিআইডির সাইবার টিমের পুলিশ সুপার রেজাউল মাসুদের নেতৃত্বাধীন টিমের সদস্যরা ঢাকার মোহাম্মদপুর, বনশ্রী ও আগারগাঁও এবং সিরাজগঞ্জ জেলার শাহজাদপুর থানা এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে। অভিযানে মো. রেজাউল করিম (৩১), মো. সৈকত রহমান (৩০), মো. সাদিকুল ইসলাম (২৮), নাজমুল আহসান (৩০), মো. তৌহিদ হোসেন (২৫) এবং মো. জাকির হোসেন (৩৪) আটক করা হয়। গ্রেপ্তারকালীন সময়ে তাদের কাছ থেকে ১৭টি বিভিন্ন ব্রান্ডের মোবাইল ফোন, ২১টি সিম, ল্যাপটপ ৪টি, ডেস্কটপ কম্পিউটার ৭টি, ট্যাব ২টি, এবং নগদ প্রায় ৪ লাখ টাকা উদ্ধার করা হয়। আটককৃতদের বিরুদ্ধে শুক্রবার (১ সেপ্টেম্বর) রাজধানীর পল্টন মডেল থানায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে একটি মামলা করা হয়েছে।

সিআইডির ভাষ্য, অনলাইন জুয়ায় টাকা দিয়ে খেলায় অংশ নেয় জুয়াড়িরা। বেটার রা কিপ্টো কারেন্সির মাধ্যমে টাকা বিনিয়োগ করে অ্যাপসে। আর এসব অর্থ কৌশলে চলে যায় দেশের বাইরে। দীর্ঘদিন ধরে অনলাইনে জুয়া খেলার বিভিন্ন অ্যাপসে জুয়াড়িদের সংখ্যা বেড়েই যাচ্ছে। বাংলাদেশের বিভিন্ন জেলায় জুয়ার সাইটগুলো পরিচালনার জন্য আপস নিয়ন্ত্রণকারীরা বাংলাদেশ তাদের নিজস্ব প্রতিনিধি নিয়োগ করেছে। এসব প্রতিনিধিরা নিজ নিজ বাসায় ডিজিটাল ল্যাব তৈরি করে একাধিক কম্পিউটার বসিয়ে জুয়ার সাইটগুলো পরিচালনা করছে।

সিআইডির তদন্ত সংশ্লিষ্টায় জানিয়েছেন, অন লাইনে জুয়া খেলায় অংশগ্রহণকারীদের একটি বড় অংশ উঠতি বয়সের তরুণ- তরুণীরা। এছাড়া স্কুল-কলেজসহ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের একটি বড় অংশও এখন অনলাইন জুয়ায় জড়িয়ে পড়েছে। একটি সংঘবদ্ধ চক্র বিভিন্ন ধরনের অ্যাপসে এসব তরুন-তরুণী ও শিক্ষার্থীদের নানা কৌশলে অনলাইনে জুয়া খেলায় সম্পৃক্ত করতে লোভনীয় অফার দিচ্ছে। আর এ ফাঁদে পড়ে অংশগ্রহণকারীরা যে টাকা কিপ্টো কারেন্সির মাধ্যমে দিচ্ছে তা কৌশলে দেশের বাইরে পাচার হচ্ছে। সম্প্রতি মেল বেট ও ওয়ান এক্স বেট এবং বেট উইনার নামে ৩টি জুয়ার মাধ্যমে দেশ থেকে কোটি টাকা পাচার হওয়ার প্রমাণ পেয়েছে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ সিআইডি।

সিআইডি বলছে, রাশিয়া থেকে মূলত এই সমস্ত অনলাইন জুয়ার ওয়েবসাইট নিয়ন্ত্রণ করা হয়। বিভিন্ন দেশে স্থানীয়ভাবে নিয়ন্ত্রণের জন্য ম্যানেজার নিয়োগ করা হয়। ম্যানেজার বাংলাদেশে জুয়ার এজেন্ট হিসাবে বিশ্বস্তদের নিয়োগ দেয়। জুয়ার এজেন্টরা এ সমস্ত অ্যাপস পরিচালনা করতে পারে টেকনিক্যালি দক্ষ এমন লোক রাখেন।

গ্রেপ্তারকৃত রেজাউল করিম তার বাসায় ৭টি কম্পিউটার ও ৪টি ল্যাপটপ নিয়ে টেকনিক্যালি দক্ষ কয়েকজনকে সঙ্গে নিয়ে আইটি ল্যাব তৈরি করে এই জুয়ার কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছিল। জুয়ার টাকা লেনদেনের জন্য তাদের সঙ্গে যুক্ত হন গ্রেপ্তারকৃত সাদিকুল ও জাকির হোসেনের মতো এমএফএস এজেন্ট। গ্রেপ্তারকৃত নাজমুল, তৌহিদদের মতো এমএফএস ডিস্ট্রিবিউশন হাউসের কিছু অসাধু কর্মচারীর সহযোগিতায় এই চক্র এজেন্ট সিম সংগ্রহ করে অনলাইন জুয়ার কাজসমূহ নির্বিঘেœ করতে পারে।

আটককৃত চক্রটি ঢাকার বিভিন্ন এলাকা এবং দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলসমূহে এই জুয়ার কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছে। গ্রেপ্তারকৃতদের জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়, শরীয়তপুরের বাসিন্দা মতিউর রহমান যিনি রাশিয়ার মস্কোতে অবস্থান করছেন তিনি মূলত এই সাইটসমূহের বাংলাদেশের দায়িত্বে রয়েছেন। তার সহযোগী হিসেবে রয়েছেন যশোরের আশিকুর রহমান।

এই দুইজন এবং গ্রেপ্তারকৃত সৈকত ও রেজাউল এই চারজনের সমন্বয়ে বাংলাদেশে এ তিনটি ওয়েবসাইটের নিয়ন্ত্রণ করা হয়। তাদের মাধ্যমে জুয়ার এজেন্টরা ওয়েবসাইটে ব্যবহৃত এমএফএস (এজেন্ট সিম) ব্যবহার করে সারা বাংলাদেশ থেকে জুয়াড়িদের টাকা সংগ্রহ করে প্রতি মাসে এই চক্রটি এমএফএস এবং বিভিন্ন ব্যাংকের মাধ্যমে কয়েক কোটি টাকা লেনদেন করে। কমিশন বাবদ তারা টাকার একটা ক্ষুদ্র অংশ পেয়ে জুয়াড়িদের কাছ থেকে সংগৃহীত পুরো টাকা অ্যাপস পরিচালনাকারীদের কাছে হুন্ডি কিংবা ক্রিপ্টো কারেন্সিতে কনভার্ট করে রাশিয়াতে পাঠিয়ে দেয়া হয়।

সাইবার টিমের পুলিশ সুপার রেজাউল মাসুদ টেলিফোনে সংবাদকে জানান, শরিয়তপুরের বাসিন্দা মতিউর রহমান এ অনলাইন জুয়া চক্রের মূল দলনেতা। গ্রেপ্তারকৃতরা তার অনেকগুলো গ্রুপের একটি গ্রুপ। গ্রেপ্তারকৃত গ্রুপের কাছ থেকে প্রতি মাসে কমপক্ষে ২০ কোটি টাকা পেতো মতিউর। তার এ গ্রুপের রেজাউল ও সৈকত অ্যাপস পরিচালনা করে মাসে ৭০ হাজার টাকা পেতেন। এজেন্টরা টাকা লেনদেন করে একটি কমিশন পেতেন। যে মোবাইল সিমগুলো উদ্ধার হয়েছে প্রতিটি সিমের বিপরীতে ২০ লাখ টাকা করে লেনদেনের তথ্য মিলেছে।

রেজাউল মাসুদ জানান, আমরা ধারণা করছি মতিউরের আরও একাধিক গ্রুপ রয়েছে। যে অ্যাপসগুলো দ্বারা জুয়া চলতো এসব অ্যাপসে অনেক নামীদামি মডেল, অভিনেতা অভিনেত্রীদের বিজ্ঞাপন দিতেও দেখা গেছে। এ রকম আরও জুয়ার সাইট আছে কি না সে বিষয়ে তদন্ত চলছে।

back to top