alt

অপরাধ ও দুর্নীতি

রমনা বটমূলসহ ২ মামলার ফাঁসির আসামি হুজির সাবেক আমির গ্রেপ্তার

সংবাদ অনলাইন রিপোর্ট : বৃহস্পতিবার, ২৬ মে ২০২২

দীর্ঘদিন ধরে পলাতক রমনা বটমূলে বোমা হামলা মামলা এবং গোপালগঞ্জে শেখ হাসিনাকে হত্যাচেষ্টার মৃত্যুদণ্ড প্রাপ্ত আসামী মুফতি আব্দুল হাইকে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব।এই মুফতি আব্দুল হাইকে জঙ্গি সংগঠন হরকাতুল জিহাদ বাংলাদেশের সাবেক আমির।

বুধবার সন্ধ্যায় নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লা থেকে তাকে গ্রেপ্তারের কথা জানান র‌্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার সহকারী পরিচালক আ ন ম ইমরান খান।

রমনা বটমূলে বোমা হামলা মামলার এবং গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়ায় ৭৬ কেজি বোমা পুঁতে রেখে শেখ হাসিনা হত্যা প্রচেষ্টা মামলার মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামি ছাড়াও মুফতি আবদুল হাই একাধিক মামলায় যাবজ্জীবন দণ্ড প্রাপ্ত।

এর আগে গত ১৪ এপ্রিল রমনা বটমূলে বোমা হামলার মামলায় আরেক ফাঁসির আসামি মুফতি শফিকুরকে গ্রেপ্তার করে র‌্যাব। তাকে গ্রেপ্তারের পর র‌্যাব জানায় গ্রেপ্তার এড়াতে ছদ্মনামে বিভিন্ন মাদ্রাসায় শিক্ষকতা ও ইমামতি করে আসছিলেন শফিকুর।

২০০১ সালে রাজধানীর রমনার বটমূলে ছায়ানটের বৈশাখ বরণের অনুষ্ঠানে বোমা হামলায় ১০ জন প্রাণ হারান। বাংলাদেশের অসাম্প্রদায়িক চেতনার মূলে আঘাত হানতে মৌলবাদী গোষ্ঠী সেই হামলা চালিয়েছিল বলে পরে তদন্তে বেরিয়ে আসে।

হামলার পর ওই দিনই নীলক্ষেত পুলিশ ফাঁড়ির সার্জেন্ট অমল চন্দ্র চন্দ রমনা থানায় হত্যা ও বিস্ফোরক আইনে দুটি মামলা করেন। দুই মামলায় নিষিদ্ধ জঙ্গি সংগঠন হরকাতুল জিহাদের (হুজি) শীর্ষ নেতা মুফতি আব্দুল হান্নানসহ ১৪ জঙ্গিকে আসামি করা হয়।

ঘটনার প্রায় আট বছর পর দুই মামলায় ১৪ জনকে আসামি করে ২০০৮ সালের ৩০ নভেম্বর ঢাকার আদালতে অভিযোগপত্র দেয় পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি)।

এ মামলায় ২০১৪ সালের ২৩ জুন ঢাকার দায়রা জজ আদালত প্রধান আসামি মুফতি হান্নানসহ আটজনের মৃত্যুদণ্ড ও ছয়জনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের রায় দেন।

মৃত্যুদণ্ডের সাজা পাওয়া অন্যরা হলেন মুফতি শফিকুর রহমান, আকবর হোসেন, আরিফ হাসান সুমন, সাবেক উপমন্ত্রী আব্দুস সালাম পিন্টুর ভাই মাওলানা মো. তাজউদ্দিন, হাফেজ জাহাঙ্গীর আলম বদর, আবু বকর ওরফে হাফেজ সেলিম হাওলাদার ও মুফতি আব্দুল হাই।

দণ্ডিত আসামিদের মধ্যে তাজউদ্দিন, বদর, হাফেজ জাহাঙ্গীর ও আব্দুল হাই পলাতক ছিলেন। বুধবার ধরা পড়লেন আব্দুল হাই।

অপরদিকে গোপালগঞ্জের কোটালিপাড়ায় ৭৬ কেজির বোমা পুঁতে শেখ হাসিনাকে হত্যাচেষ্টা মামলাতেও মৃত্যুদণ্ড পেয়েছেন মুফতি হাই।

২০০০ সালের ২০ জুলাই গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়ার শেখ লুৎফর রহমান মহাবিদ্যালয়ের উত্তর পাশের একটি দোকানের সামনে থেকে পুঁতে রাখা ৭৬ কেজি বিস্ফোরক উদ্ধার করা হয়।

দুই দিন পরে ওই মহাবিদ্যালয়ের মাঠে একটি জনসভায় বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভাষণ দেয়ার কথা ছিল। এ ঘটনায় কোটালিপাড়া থানার এসআই নূর হোসেন বাদী হয়ে থানায় বিস্ফোরক দ্রব্য আইনে মামলা করেন।

তদন্ত শেষে অভিযোগপত্র দাখিল করা হয় ২০০১ সালের ৮ এপ্রিল, তাতে আসামি করা হয় ১৬ জনকে। পরে ২০০৯ সালের ২৯ জুন নতুন করে নয় জনকে অন্তর্ভুক্ত করে সম্পূরক অভিযোগপত্র দাখিল করা হয়।

২০১৭ সালের ২০ অগাস্ট ঢাকার দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনাল এই মামলায় ১০ জঙ্গির প্রাণদণ্ডের রায় দেন। এছাড়া চার আসামিকে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড দেন।

এ মামলায় মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন- ওয়াশিম আখতার ওরফে তারেক হোসেন, মো. রাশেদ ড্রাইভার ওরফে আবুল কালাম, মো. ইউসুফ ওরফে আবু মুসা হারুন, শেখ ফরিদ ওরফে মাওলানা শওকত ওসমান, হাফেজ জাহাঙ্গীর আলম বদর, মাওলানা আবু বক্কর, হাফেজ মাওলানা ইয়াহিয়া, মুফতি শফিকুর রহমান, মুফতি আবদুল হাই এবং মাওলানা আবদুর রউফ ওরফে আবু ওমর।

এদের মধ্যে এখন শুধু মো. ইউসুফ ওরফে আবু মুসা হারুন, হাফেজ জাহাঙ্গীর আলম বদর পলাতক রয়েছেন।

চলতি বছর এক মাসের মধ্যে ধরা পড়লেন মুফতি শফিকুর ও আব্দুল হাই।

ছবি

শিক্ষককে পিটিয়ে হত্যা: ৫ দিনের রিমান্ডে জিতু

রংপুরে হত্যা মামলায় বাপ ছেলের ফাঁসির আদেশ

গ্যাস সিলিন্ডারে ফেন্সিডিল

ছবি

পদ্মা সেতুর নাট খোলার পৃথক ঘটনায় আরেক যুবক গ্রেপ্তার

ছবি

সাভারে শিক্ষককে পিটিয়ে খুন: মামলায় অভিযুক্ত ছাত্রের বয়স ১৬, র‍্যাব বলছে সনদ অনুযায়ী ১৯

ছবি

বিমানবন্দরে ২২ লাখ রিয়াল জব্দ, পালিয়েছেন যাত্রী

ছবি

যুদ্ধাপরাধ : একজনের মৃত্যুদণ্ড, তিনজনের আমৃত্যু কারাদণ্ড

ছবি

অর্থ আত্মসাৎ: ডেসটিনির মেজর সাকিবুজ্জামানসহ ৪ জন কারাগারে

কলেজ শিক্ষক হত্যা : অভিযুক্ত ছাত্রের বাবা আটক

মেয়ের প্রেমের বিয়ের বিরোধে ছেলের মা’কে আগুনে পুড়িয়ে মারলো মেয়ের মা

ছবি

মানবপাচার মামলায় ইভা আরমানের আগাম জামিন

ছবি

বন্ধুকে খুনের পর মোবাইল বিক্রির টাকায় বান্ধবীকে নিয়ে হোটেলে কিশোর

ছবি

পদ্মা সেতুর ‘ষড়যন্ত্রকারীদের’ চিহ্নিতে এক মাসের মধ্যে কমিশন গঠনের নির্দেশ

ছবি

অর্থ পাচারকারীদের খেলাপি ঋণ পুনঃতফসিল খতিয়ে দেখতে হবে: হাইকোর্ট

ছবি

নড়াইলে শিক্ষক নির্যাতন, প্রতিবাদ সমাবেশ চলছে

সাবেক সেনাপ্রধান হারুনের চিকিৎসায় মেডিকেল বোর্ড গঠনে আবেদন

ছবি

পদ্মা সেতুর নাট-বল্টু খোলা বায়েজিদ ৭ দিনের রিমান্ডে

ছবি

পদ্মা সেতুর নাট-বল্টু খোলা নিয়ে যা বলল সিআইডি

ছবি

পদ্মা সেতুর বিরোধিতাকারীরা জাতির শত্রু, তাদের চিহ্নিত করা দরকার: হাইকোর্ট

সোনাইমুড়ীতে আ’লীগের দু’গ্রুপের সংঘর্ষ, আহত-৯

অর্থ আত্মসাৎ : গাজীপুরের সাবেক মেয়র জাহাঙ্গিরের বিরুদ্ধে অনুসন্ধান শুরু

ছবি

ভারতে আশ্রয় নিয়েছিল শেখ হাসিনা হত্যাচেষ্টা মামলার আসামি পিন্টু

ছবি

পদ্মা সেতু নিয়ে গুজবের শিকার রেনুর পরিবার কেমন আছে

ছবি

মোবাইলের আইএমইআই নম্বর পরিবর্তন করে বেশি দামে বিক্রি করত তারা

হাতিয়ার মেঘনাপাড় থেকে আগ্নেয়াস্ত্র উদ্ধার

১৮ বছর পর গৃহবধূ গণধর্ষণ মামলার রায় : ২ জনের যাবজ্জীবন

ছবি

মুক্তিযোদ্ধা হোসেন হত্যা: ৬ জেএমবির ফাঁসির রায়

ছবি

অর্থ আত্মসাৎ: ওয়াসার এমডিসহ ৯ জনের বিরুদ্ধে মামলার আবেদন

র‌্যাবকে ঘুষ দিতে গিয়ে মামলার আসামি

মহাসড়কে ব্যারিকেড দিয়ে সোয়াবিন ভর্তি ট্রাক ছিনতাই

ছবি

১৫ পর কৃষক হত্যার রায়, ৮ জনের যাবজ্জীবন

ময়মনসিংহের ছোট ভাইয়ের দায়ের কোপে বড় ভাই নিহত

ছবি

‘এমন আচরণ রাষ্ট্রের জন্য কলঙ্ক’

সিরাজগঞ্জে হেরোইন বহনের দায়ে দু’জনের যাবজ্জীবন

ছবি

সাতক্ষীরায় আ. লীগ নেতা মোশাররফ হোসেন গুলিবিদ্ঘধ, হাসপাতালে ভর্তি

পাবনা জেনারেল হাসপাতালে বর্জ্য ব্যবস্থাপনা সামগ্রী ক্রয়ে দুর্নীতি!

tab

অপরাধ ও দুর্নীতি

রমনা বটমূলসহ ২ মামলার ফাঁসির আসামি হুজির সাবেক আমির গ্রেপ্তার

সংবাদ অনলাইন রিপোর্ট

বৃহস্পতিবার, ২৬ মে ২০২২

দীর্ঘদিন ধরে পলাতক রমনা বটমূলে বোমা হামলা মামলা এবং গোপালগঞ্জে শেখ হাসিনাকে হত্যাচেষ্টার মৃত্যুদণ্ড প্রাপ্ত আসামী মুফতি আব্দুল হাইকে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব।এই মুফতি আব্দুল হাইকে জঙ্গি সংগঠন হরকাতুল জিহাদ বাংলাদেশের সাবেক আমির।

বুধবার সন্ধ্যায় নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লা থেকে তাকে গ্রেপ্তারের কথা জানান র‌্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার সহকারী পরিচালক আ ন ম ইমরান খান।

রমনা বটমূলে বোমা হামলা মামলার এবং গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়ায় ৭৬ কেজি বোমা পুঁতে রেখে শেখ হাসিনা হত্যা প্রচেষ্টা মামলার মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামি ছাড়াও মুফতি আবদুল হাই একাধিক মামলায় যাবজ্জীবন দণ্ড প্রাপ্ত।

এর আগে গত ১৪ এপ্রিল রমনা বটমূলে বোমা হামলার মামলায় আরেক ফাঁসির আসামি মুফতি শফিকুরকে গ্রেপ্তার করে র‌্যাব। তাকে গ্রেপ্তারের পর র‌্যাব জানায় গ্রেপ্তার এড়াতে ছদ্মনামে বিভিন্ন মাদ্রাসায় শিক্ষকতা ও ইমামতি করে আসছিলেন শফিকুর।

২০০১ সালে রাজধানীর রমনার বটমূলে ছায়ানটের বৈশাখ বরণের অনুষ্ঠানে বোমা হামলায় ১০ জন প্রাণ হারান। বাংলাদেশের অসাম্প্রদায়িক চেতনার মূলে আঘাত হানতে মৌলবাদী গোষ্ঠী সেই হামলা চালিয়েছিল বলে পরে তদন্তে বেরিয়ে আসে।

হামলার পর ওই দিনই নীলক্ষেত পুলিশ ফাঁড়ির সার্জেন্ট অমল চন্দ্র চন্দ রমনা থানায় হত্যা ও বিস্ফোরক আইনে দুটি মামলা করেন। দুই মামলায় নিষিদ্ধ জঙ্গি সংগঠন হরকাতুল জিহাদের (হুজি) শীর্ষ নেতা মুফতি আব্দুল হান্নানসহ ১৪ জঙ্গিকে আসামি করা হয়।

ঘটনার প্রায় আট বছর পর দুই মামলায় ১৪ জনকে আসামি করে ২০০৮ সালের ৩০ নভেম্বর ঢাকার আদালতে অভিযোগপত্র দেয় পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি)।

এ মামলায় ২০১৪ সালের ২৩ জুন ঢাকার দায়রা জজ আদালত প্রধান আসামি মুফতি হান্নানসহ আটজনের মৃত্যুদণ্ড ও ছয়জনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের রায় দেন।

মৃত্যুদণ্ডের সাজা পাওয়া অন্যরা হলেন মুফতি শফিকুর রহমান, আকবর হোসেন, আরিফ হাসান সুমন, সাবেক উপমন্ত্রী আব্দুস সালাম পিন্টুর ভাই মাওলানা মো. তাজউদ্দিন, হাফেজ জাহাঙ্গীর আলম বদর, আবু বকর ওরফে হাফেজ সেলিম হাওলাদার ও মুফতি আব্দুল হাই।

দণ্ডিত আসামিদের মধ্যে তাজউদ্দিন, বদর, হাফেজ জাহাঙ্গীর ও আব্দুল হাই পলাতক ছিলেন। বুধবার ধরা পড়লেন আব্দুল হাই।

অপরদিকে গোপালগঞ্জের কোটালিপাড়ায় ৭৬ কেজির বোমা পুঁতে শেখ হাসিনাকে হত্যাচেষ্টা মামলাতেও মৃত্যুদণ্ড পেয়েছেন মুফতি হাই।

২০০০ সালের ২০ জুলাই গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়ার শেখ লুৎফর রহমান মহাবিদ্যালয়ের উত্তর পাশের একটি দোকানের সামনে থেকে পুঁতে রাখা ৭৬ কেজি বিস্ফোরক উদ্ধার করা হয়।

দুই দিন পরে ওই মহাবিদ্যালয়ের মাঠে একটি জনসভায় বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভাষণ দেয়ার কথা ছিল। এ ঘটনায় কোটালিপাড়া থানার এসআই নূর হোসেন বাদী হয়ে থানায় বিস্ফোরক দ্রব্য আইনে মামলা করেন।

তদন্ত শেষে অভিযোগপত্র দাখিল করা হয় ২০০১ সালের ৮ এপ্রিল, তাতে আসামি করা হয় ১৬ জনকে। পরে ২০০৯ সালের ২৯ জুন নতুন করে নয় জনকে অন্তর্ভুক্ত করে সম্পূরক অভিযোগপত্র দাখিল করা হয়।

২০১৭ সালের ২০ অগাস্ট ঢাকার দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনাল এই মামলায় ১০ জঙ্গির প্রাণদণ্ডের রায় দেন। এছাড়া চার আসামিকে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড দেন।

এ মামলায় মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন- ওয়াশিম আখতার ওরফে তারেক হোসেন, মো. রাশেদ ড্রাইভার ওরফে আবুল কালাম, মো. ইউসুফ ওরফে আবু মুসা হারুন, শেখ ফরিদ ওরফে মাওলানা শওকত ওসমান, হাফেজ জাহাঙ্গীর আলম বদর, মাওলানা আবু বক্কর, হাফেজ মাওলানা ইয়াহিয়া, মুফতি শফিকুর রহমান, মুফতি আবদুল হাই এবং মাওলানা আবদুর রউফ ওরফে আবু ওমর।

এদের মধ্যে এখন শুধু মো. ইউসুফ ওরফে আবু মুসা হারুন, হাফেজ জাহাঙ্গীর আলম বদর পলাতক রয়েছেন।

চলতি বছর এক মাসের মধ্যে ধরা পড়লেন মুফতি শফিকুর ও আব্দুল হাই।

back to top